প্রকাশ : 2021-06-20

তলাবিহীন ঝুড়ি আখ্যা পাওয়া এদেশের ঝুড়ি এখন উপচে পড়ছে- তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী

২০,জুন,রবিবার,নিজেস্ব সংবাদদাতা,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এমপি বলেছেন, জনগণের কল্যাণে বিএনপিকে রাজনীতি করতে দেখা যায়না। তারা কেবল বেগম খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য এবং তারেক রহমানের শাস্তি নিয়ে রাজনীতি করছে। অর্থাৎ বিএনপির রাজনীতি স্বাস্থ্য আর শাস্তির মধ্যেই ঘুরপাক খাচ্ছে। মন্ত্রী আজ তাঁর নির্বাচনী এলাকা রাঙ্গুনিয়ার বেতাগী ইউনিয়নে আশ্রয়ণ প্রকল্পের আওতায় ভূমিহীন ও গৃহহীনদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে ঘর হস্তান্তরের পর মতবিনিময় সভায় এসব কথা বলেন। তথ্যমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের বিগত ৫০ বছরের অর্জন সব বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের হাত ধরে হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর দুরদর্শী চিন্তা-চেতনায় বাংলাদেশের অভূতপূর্ব অর্জন নিয়ে সারা বিশ^ প্রশংসা করছে। উন্নয়নের সব সূচকে আমরা পাকিস্তানকে এবং মাথাপিছু আয়সহ অনেক সূচকে ভারতকেও ছাড়িয়ে গেছি। করোনা মহামারির মধ্যেও আমরা জিডিপি গ্রোথের নিরীখে ৩য় স্থানে অবস্থান করছি যেখানে অনেক শক্তিশালী দেশের জিডিপির প্রবৃদ্ধিই হয়নি। অথচ বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম বাংলাদেশের উন্নয়ন দেখতে পাননা। বয়সের কারনে তার মতিভ্রম হয়েছে। বিএনপিপন্থী ডাক্তাদের সংগঠন ড্যাব এর উচিত মির্জা সাহেবের মানসিক স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা। তিনি বলেন, বিএনপি কিছুদিন পূর্বেও বেগম খালেদা জিয়াকে বিদেশে নিয়ে চিকিৎসা করার জন্য দাবি করেছে। অথচ বেগম খালেদা জিয়া দেশীয় হাসপাতাল থেকে সুচিকিৎসা নিয়ে সুস্থ্য হয়ে বাসায় ফিরে গেছেন। এতে বোঝা যায়, বিদেশে নিয়ে চিকিৎসা করার দাবি তাদের সম্পুর্ণ অমূলক ছিল। তথ্যমন্ত্রী বলেন, মানুষের ৩টি প্রধান মৌলিক চাহিদা অন্ন, বস্ত্র ও বাসস্থানের পুরোপুরি ব্যবস্থা আওয়ামী লীগ সরকার করেছে। অন্নের সংস্থান আমরা অনেক পূর্বেই করতে পেরেছি। নিজস্ব চাহিদা মিটিয়ে বাংলাদেশ এখন খাদ্য উদ্বৃত্তের দেশে পরিণত হয়েছে। তলাবিহীন ঝুড়ি আখ্যা পাওয়া এদেশের ঝুড়ি এখন উপচে পড়ছে। বাংলাদেশ এখন অন্য দেশকে সাহায্য সহযোগিতা করছে, ঋণও দিচ্ছে। তিনি বলেন, একসময় বিদেশীদের ব্যবহৃত জামা কাপড় এনে আমরা ব্যবহার করতাম। বর্তমানে বাংলাদেশের তৈরি পোষাক দিয়ে বিদেশী বাবুরা তাদের সাহেবিয়ানা বজায় রাখছে। এতে করে বাংলাদেশের গৌরব বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছে। মন্ত্রী বলেন, নদী ভাঙ্গা গৃহহীন মানুষদের অসহায় অবস্থা দেখে বঙ্গবন্ধু গৃহের ব্যবস্থা করেছেন। তাঁরই সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আশ্রয়ণ প্রকল্পের মাধ্যমে দেশের সকল ভূমিহীন ও গৃহহীন মানুষকে নির্দিষ্ট ঠিকানায় নিয়ে এসেছেন। দুই শতক ভূমির মালিকানাসহ ঘর নির্মাণ করে দিয়ে প্রধানমন্ত্রী এসব অসহায় মানুষদের পুনর্বাসন করেছেন। তাদের মুখে হাসি ফুটিয়েছেন। সরকারের পক্ষ থেকে জমিসহ ঘর নির্মাণ করে দেয়ার এ মহতী উদ্যোগ পৃথিবীর আর কোন দেশে দেখা যায়না। এটা পৃথিবীর এক ও অনন্য দৃষ্টান্ত। আজকে ঘর পাওয়া মানুষদের উদ্দেশ্য করে মন্ত্রী বলেন, ঘরের যত্ন নিতে হবে। সরকারের তরফ থেকে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা হয়েছে। প্রয়োজনে আরো সহযোগিতা করা হবে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মাসুদুর রহমান, উপজেলা চেয়ারম্যান স্বজন কুমার তালুকদার এবং স্থানীয় ইউনিয়ন চেয়ারম্যান নুর কুতুবুল আলম এসময় বক্তৃতা করেন।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর