প্রকাশ : 2020-08-04

চট্টগ্রামের ৫ পত্রিকার প্রকাশনা বন্ধই থাকছে, সংকট কাটছেনা

০৪আগস্ট,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সংবাদকর্মীদের পূর্ণ বোনাসের দাবিতে চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের (সিইউজে) আন্দোলনকে কেন্দ্র করে গত ৬ দিন ধরে বন্ধ রয়েছে চট্টগ্রামের পাঁচটি পত্রিকার প্রকাশনা। সম্পাদকদের সংগঠন চট্টগ্রাম নিউজ পেপারস অ্যালায়েন্স অনির্দিষ্টকালের জন্য প্রকাশনা বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়েছে। ফলে চরম অনিশ্চয়তা আর উদ্বেগে রয়েছেন সেখানকার কর্মরত সংবাদকর্মীসহ বিভিন্ন বিভাগে কর্মরত কর্মীরা। সাংবাদিক ইউনিয়ন গত ২৯ জুলাই দৈনিক আজাদী সম্পাদকের বাসভবন ঘেরাওয়ের পর ওই দিন রাতে পত্রিকা প্রকাশনা বন্ধের যে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তাতে অটুট থাকবেন তারা। বিশেষ করে এই সংগঠনের আহ্বায়ক আজাদী সম্পাদক এম এ মালেক কোনওভাবেই রাজি নন পত্রিকা প্রকাশে। অন্যদিকে পত্রিকা প্রকাশনা চালু করবেন। এমনকি আগামীকাল (৫ আগস্ট) সিইউজের নির্বাহী কমিটির এক জরুরী বৈঠকে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে। প্রয়োজনে নতুন কর্মসূচি দিবে সংগঠনটি। গত ২৯ জুলাই নগরীর খলিফাপট্টি এলাকায় দৈনিক আজাদীর সম্পাদক এম এ মালেকের বাসভবন ঘেরাওয়ের পরদিন থেকে পত্রিকার প্রকাশনা বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। তারপর থেকে টানা ৫ দিন পত্রিকাশূণ্য ছিল চট্টগ্রাম। যদিও নোয়াব ঈদের ছুটি ৪ আগস্ট পর্যন্ত করলেও কিন্তু আজ (৪ আগস্ট) পত্রিকার কার্যক্রম বন্ধ রেখেছে মালিকপক্ষ। ফলে আগামীকাল ৫ আগস্টও পত্রিকা বের হচ্ছে না। কখন পত্রিকা বের হবে তা কেউই বলতে পারছেন না। প্রকাশনা বন্ধ থাকা পত্রিকাগুলো হলো দৈনিক আজাদী, দৈনিক পূর্বকোণ, দৈনিক বীর চট্টগ্রাম মঞ্চ, দৈনিক সুপ্রভাত বাংলাদেশ, দৈনিক পূর্বদেশ। এসব পত্রিকায় কর্মরত সংবাদকর্মীদের ঈদুল আজহার অর্ধেক বোনাস দেওয়া হয়। পূর্ণ বোনাসের দাবিতে গত ২৬ জুলাই চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব চত্বরে মানববন্ধন ও সমাবেশ করে চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়ন (সিইউজে)। দাবি আদায় না হওয়ায় সম্পাদকদের বাসভবন ঘেরাওয়ের কর্মসূচি দেওয়া হয়। ২৯ জুলাই সিইউজে প্রথম কর্মসূচি পালন করে। পত্রিকার প্রকাশনা বন্ধ রাখা প্রসঙ্গে দৈনিক আজাদীর সম্পাদক ও চট্টগ্রাম নিউজ পেপারস অ্যালায়েন্সের সভাপতি এম এ মালেক আগে কথা বললেও এখন এ বিষয়ে কোনো কথা বলতেও আগ্রহী নন বলে জানা গেছে। মঙ্গলবার সকালেও আজাদীর চীফ রিপোর্টারসহ পত্রিকাটির সিনিয়র ক'জন সাংবাদিক তার সাথে সাক্ষাৎ করে পত্রিকা বের করার অনুরোধ করলে উনি তাতে রাজি হননি বলে জানান দৈনিক আজাদীর চীফ রিপোর্টার হাসান আকবর। তিনি বলেন, আমরা কয়েকজন সম্পাদকের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে পত্রিকা প্রকাশের অনুরোধ করেছি। তবে উনি (এম এ মালেক) এ বিষয়ে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন কোন কথা বলতে আগ্রহী না। আজাদীর প্রকাশনা বন্ধই থাকবে। এটা নিয়ে আর কোনও কথা নয়। এই পরিস্থিতিতে আজাদীসহ আরও চার দৈনিকের সংবাদকর্মীরা চরম অনিশ্চয়তা পড়েছে বলেও মন্তব্য করেন চট্টগ্রামের সিনিয়র এ সাংবাদিক। অন্যদিকে অন্য পত্রিকার সম্পাদকরাও চট্টগ্রাম নিউজ পেপারস অ্যালায়েন্সর আহ্বায়ক দৈনিক আজাদী সম্পাদক এম এ মালেকের কথার বাইরে যাবেন নাহ বলে আগেই জানিয়েছেন। চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়ন (সিইউজে) সভাপতি মোহাম্মদ আলী বলেন, সাংবাদিকদের প্রাপ্য থেকে বঞ্চিত করতে এরকম হুট করে একযোগে পত্রিকা বন্ধ রাখা এটা নজিরবিহীন ঘটনা। আমরা ইতোমধ্যে তথ্যমন্ত্রীকে লিখিত ও মৌখিকভাবে ঘটনার বিস্তারিত জানিয়েছি। আগামীকাল (৫ আগস্ট) সিইউজের নির্বাহী কমিটির জরুরী বৈঠক আছে সেখানেই এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। প্রয়োজনে নতুন কর্মসূচি দেওয়া হবে। সূত্র: সিভয়েস

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর