রবিবার, সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২০
প্রকাশ : 2020-07-29

বিকেল ৫টার মধ্যে কোরবানির বর্জ্য অপসারণে প্রস্তুত চসিক

২৯জুলাই,বুধবার,শারমিন আকতার,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনাকালে সর্বোচ্চ সতর্কতায় কোরবানির পশুর বর্জ্য অপসারণে সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন। বিকেল ৫টার মধ্যে নগরের ৪১টি ওয়ার্ডের বর্জ্য অপসারণের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। এ কাজের জন্য করপোরেশন প্রায় ৫ হাজার শ্রমিক, ৩৫০টি গাড়ি, পশু জবাইকৃত স্থানে ২০ টন ব্লিচিং পাউডার ছিটানোর ব্যবস্থা করেছে। বুধবার (২৯ জুলাই) বিকেলে কোরবানির বর্জ্য অপসারণের প্রস্তুতি সভায় মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন এসব কথা বলেন। চসিক বর্জ্য স্ট্যান্ডিং কমিটির সদস্য নুরুল হকের সভাপতিত্বে সভায় চসিক কাউন্সিলর মোবারক আলী, মেয়রের একান্ত সচিব মো. আবুল হাশেম বিশেষ অতিথি ছিলেন। বর্জ্য অপসারণে সংশ্লিষ্টরা মতামত, লোকবল ও গাড়ির চাহিদা ও পরিকল্পনার কথা সভায় তুলে ধরেন। ৪১টি ওয়ার্ডে দায়িত্বপ্রাপ্ত পরিচ্ছন্ন বিভাগের সুপারভাইজাররা বর্জ্য অপসারণে তাদের কাজের সুবিধার্থে প্রয়োজনীয় ওয়াকিটকি, গাড়ি, টমটম গাড়ি ইত্যাদির চাহিদার কথা উল্লেখ করে তা সরবরাহের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ করেন। চসিক এবার ৪টি জোনে ভাগ করে কোরবানির পশুর বর্জ্য অপসারণ করবে। ৪টি জোনের দায়িত্বপ্রাপ্ত কাউন্সিলর মোবারক আলী (১, ২, ৩, ৪, ৫, ৬, ৭, ৮, ১৫ ও ১৬ নম্বর ওয়ার্ড), কাউন্সিলর মো. আবদুল কাদের (২৩, ২৭, ২৮, ২৯, ৩০, ৩৬, ৩৭, ৩৮, ৩৯, ৪০ ও ৪১), কাউন্সিলর নুরুল হক (১৭, ১৮, ১৯, ২০, ২১, ২২, ৩১, ৩২, ৩৩, ৩৪, ৩৫) ও কাউন্সিলর মোরশেদ আকতার চৌধুরী (৯, ১০, ১১, ১২, ১৩, ১৪, ২৪, ২৫ ও ২৬)। করপোরেশনের পক্ষ থেকে এবার বর্জ্য অপসারণে কোনো ওয়ার্ডে যত ট্রিপ গাড়ি দেওয়া প্রয়োজন তা দেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছে সভায়। এ জন্য দামপাড়ার চসিক কার্যালয়ে ১টি নিয়ন্ত্রণ কক্ষ খোলাসহ চসিকের প্রকৌশল বিভাগের যান্ত্রিক শাখা ও পরিবহন পুল প্রস্তুত রাখা হয়েছে। মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন কোরবানির ঈদের বর্জ্য অপসারণে নগরবাসী, সব ওয়ার্ড কাউন্সিলর, করপোরেশনের পরিচ্ছন্ন, প্রকৌশল বিভাগের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সহযোগিতা চেয়েছেন। বিশেষ করে এবার করোনাকালে সর্বোচ্চ সর্তকতার সঙ্গে পরিচ্ছন্নতার বিষয়ে সবাইকে সজাগ থাকার পরামর্শ দেন। তিনি এবারও বর্জ্য অপসারণে চসিকের সাফল্য ধরে রাখতে পারলে পরিচ্ছন্ন বিভাগের দায়িত্বরত শ্রমিক-সেবকদের জন্য পুরস্কারের ব্যবস্থা থাকবে বলে জানান। সভায় চসিকের প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা শেখ সফিকুল মান্নান সিদ্দিকী, অতিরিক্ত প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা মোরশেদুল আলম চৌধুরীসহ পরিচ্ছন্ন বিভাগের সুপারভাইজার ও দলনেতারা উপস্থিত ছিলেন।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর