করোনা: চট্টগ্রামে ৪ জনের মৃত্যু, নতুন আক্রান্ত ৭৪২
৩১জুলাই ২০২১, নিজেস্ব সংবাদদাতা, চট্টগ্রাম, নিউজ একাত্তর : গত ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রামে ২ হাজার ১৩৪টি নমুনা পরীক্ষা করে ৭৪২ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। পরীক্ষার তুলনায় সংক্রমণের হার ৩৪ দশমিক ৭৭ শতাংশ। শনিবার (৩১ জুলাই) সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে প্রকাশিত প্রতিবেদন সূত্রে এ তথ্য জানা যায়। এদিন করোনায় ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে মহানগর এলাকায় ৩ জন এবং উপজেলায় ১ জন। চট্টগ্রামে মোট মৃত্যুবরণ করেছেন ৯৬২ জন। এদিকে চট্টগ্রামে এরইমধ্যে বিভিন্ন হাসপাতালে শয্যা ও আইসিইউ সংকট দেখা দিয়েছে। সরকারি হাসপাতালে ধারণক্ষমতার অতিরিক্ত রোগী ভর্তি রয়েছে। স্বাস্থ্য সংশ্লিষ্টরা বলছেন, লকডাউন দেওয়া হলেও মানুষের বিভিন্ন অজুহাতে ঘর থেকে বের হওয়ার প্রবণতাই সংক্রমণ বাড়ার কারণ। তাই মাস্ক ব্যবহার এবং স্বাস্থ্যবিধি মানার বিকল্প নেই। সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি বলেন, হাসপাতালগুলোতে শয্যা সংকট তৈরি হয়েছে। আইসিইউতে নেই স্থান। এই অবস্থায় চিকিৎসকরা সেবা দিতে হিমশিম খাচ্ছেন। নিউজ একাত্তর / আলী হোসেন
গত ২৪ ঘন্টায় চট্টগ্রামে মৃত্যু ৯ জন
৩০ জুলাই ২০২১, নিজেস্ব সংবাদদাতা , চট্টগ্রাম, নিউজ একাত্তর ঃচট্টগ্রামে বাড়তে থাকা সংক্রমণে প্রতিদিনই রেকর্ড পরিমাণ রোগী শনাক্ত হচ্ছে। এরই মধ্যে টানা দ্বিতীয় দিনের মতো আবারও সর্বোচ্চ শনাক্তের রেকর্ড গড়েছে। নগরীতে ১ হাজার ৮৫ জন এবং উপজেলায় ৩৮১ জন নিয়ে চট্টগ্রামের নতুন শনাক্ত ১ হাজার ৪৬৬ জন। এর আগে গত বৃহস্পতিবার ১ হাজার ৩১৫ জনের শনাক্ত ছিল একদিনের সর্বোচ্চ শনাক্তের রেকর্ড। এ নিয়ে চট্টগ্রামে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ৮১ হাজার ৭৫১ জন। এছাড়া গত ২৪ ঘন্টা করোনায় মারা গেছেন ৯ জন । এরমধ্যে নগরীতে পাঁচজন এবং উপজেলায় চারজন। এ নিয়ে চট্টগ্রামে করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়ালো ৯৫৮ জন। শুক্রবার চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন কার্যালয়ের প্রকাশিত তথ্যমতে, গত বৃহস্পতিবার কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ চট্টগ্রামের ১২ টি ল্যাবে ৩ হাজার ৯২৩ নমুনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১ হাজার ৪৬৬ জন। নমুনা হিসেবে শনাক্তের হার ৩৭ দশমিক ৩৬ শতাংশ। আক্রান্তদের মধ্যে নগরীতে ১ হাজার ৮৫ জন এবং উপজেলায় ৩৮১ জন। এ নিয়ে চট্টগ্রাম নগরীতে ৬০ হাজার ৯০৭ জন এবং উপজেলায় ২০ হাজার ৩১০ জনসহ চট্টগ্রামে এ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ৮১ হাজার ২১৭ জন। এছাড়া গত ২৪ ঘন্টায় নগরীতে পাঁচজন এবং উপজেলায় চারজনসহ চট্টগ্রামে করোনায় মারা গেছেন ৯ জন। এ নিয়ে নগরীরে ৫৭৪ জন এবং উপজেলায় ৩৮৪ জনসহ চট্টগ্রামে করোনায় মৃতের সংখ্যা দাঁড়ালো ৯৫৮ জন।ল্যাবভিত্তিক তথ্যমতে, ফৌজদারহাট বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল এন্ড ইনফেকশাস ডিজিজেস (বিআইটিআইডি) ল্যাবে ৮৫৭ নমুনার মধ্যে ১৪০ জন করোনা পজেটিভ হয়েছে। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ২৯০ নমুনায় ১৯৩ জন, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে ২৯৭ নমুনায় ১১৭ জন, চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি এন্ড অ্যানিম্যাল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় (সিভাসু) ল্যাব ৩৬৯ নমুনায় ১৪৪ জন, এন্টিজেন টেস্টে ৯০১ নমুনায় ৩২৮ জন, ইমপেরিয়াল হাসপাতালে ২৩৭ নমুনায় ১০৩ জন, শেভরণে ২২৩ নমুনায় ৮২ জন, চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালে ৮৮ নমুনায় ৪৬ জন, ইপিক হেলথ কেয়ার ল্যাবে ৬৮১ নমুনায় ৩৭৯ জন, আরটিআরএল ল্যাবে ২৮ নমুনায় ৯ জন এবং মেডিকেল সেন্টার হাসপাতালে ৪৯ নমুনায় ২৫ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এছাড়া কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ ল্যাবে চট্টগ্রামের ৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করে কারো শরীরে করোনার অস্তিত্ব মেলেনি। নিউজ একাত্তর / ভুঁইয়া
চট্টগ্রামের দাবি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে যথাযথ ভাবে তুলে ধরবো - জেলা প্রশাসক
২৯ জুলাই ২০২১, চট্টগ্রাম, নিউজ একাত্তর ঃঅপরূপ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যমন্ডিত চট্টগ্রাম মহানগরীর ঐতিহ্য সমৃদ্ধ ঐতিহাসিক সিআরবি এলাকায় সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্বে (পিপিপি) প্রস্তাবিত হাসপাতাল, মেডিকেল কলেজ নির্মাণ প্রকল্প বাতিলের জন্য চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মো. মমিনুর রহমানের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বরাবরে স্মারকলিপি পেশ করেছেন নাগরিক সমাজ, চট্টগ্রাম নেতৃবৃন্দ। এসময় চট্টগ্রামের সদস্য সচিব ইব্রাহীম হোসেন চৌধুরী বাবুল জেলা প্রশাসককে উদ্দেম্য করে বলেন, আধুনিক হাসপাতাল করার জন্য জেলা প্রশাসনের কাছে অনেক ভালো ভালো জায়গা আছে। শুধু হাসপাতাল নয় - যেকোন ভালো কাজের জন্য জেলা প্রশাসন জায়গা দিতে পারে। সিআরবির মতো প্রকৃতির হেরিটেজ এলাকায় হাসপাতাল হলে হাসপাতালকে ঘিরে অনেকগুলো স্থাপনা গড়ে উঠবে। তখন সিআরবি তার প্রাকৃতিক পরিবেশ হারাবে। গতকাল বিকেল সাড়ে তিনটায় চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মো. মমিনুর রহমানের মাধ্যমে নাগরিক সমাজ , চট্টগ্রাম প্রধানমন্ত্রী বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান কালে তিনি এ কথা বলেন। এসময় জেলা প্রশাসক বলেন, আমি আপনাদের যে দাবি, তা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে যথাযথ ভাবে তুলে ধরবো। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী প্রকৃতিকে ভালোবাসেন। প্রাকৃতিক পরিবেশ ধ্বংস করে তিনি কিছু করবেন না। এসময় নাগরিক সমাজ, দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান ও চট্টগ্রাম আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট এ এইচ এম জিয়াউদ্দিন বলেন, সিআরবির মতো প্রাকৃতিক, সাংস্কৃতিক এবং মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজড়িত এলাকায় একটি বিশেষায়িত হাসপাতাল হলে পুরো এলাকা ধ্বংস হয়ে যাবে। জীব বৈচিত্র্য ধ্বংস হবে। চট্টগ্রামবাসীর জন্য উন্মুক্ত কোন পরিবেশ থাকবে না। তাঁরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিষয়টি যথাযথ ভাবে তুলে ধরার দাবি জানান। স্মারকলিপি প্রদানকালে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, নাগরিক সমাজ, চট্টগ্রামের যুগ্ম সদস্য সচিব নাট্যজন সাইফুল আলম বাবু, আবৃত্তি শিল্পী রাশেদ হাসান, রাজনীতিক ও পরিবেশবাদী শরীফ চৌহান, কার্যকরী সদস্য চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ, এডভোকেট টি আর খান, এডভোকেট মো. রায়হান, এডভোকেট কাশেম কামাল, সংস্কৃতি সংগঠক অহিল সিরাজ, এডভোকেট তোফাজ্জল হোসেন জিকু, আবৃত্তিমিল্পী প্রনব চৌধুরী, রাহুল দত্ত প্রমুখ। বিজ্ঞপ্তি / নিউজ একাত্তর / আলী হোসেন
চট্টগ্রামের সিআরবি রক্ষায় ১০০১ সদস্যর কমিটি
২৯ জুলাই ২০২১,চট্টগ্রাম, নিউজ একাত্তর ঃসিআরবি রক্ষায় আমরণ অনশনের ঘোষণা দিয়েছেন বিশিষ্ট সমাজ বিজ্ঞানী প্রফেসর ড. অনুপম সেন। বুধবার (২৮ জুলাই) নাগরিক সমাজ, চট্টগ্রামের কমিটি ঘোষণা উপলক্ষে মতবিনিময়ের আয়োজন করা হয়। মতবিনিময় সভায় সভাপতির বক্তব্যে ড. অনুপম সেন বলেন, চট্টগ্রাম শহর আজ পরিণত হয়েছে ইটের পরে ইট বিশিষ্ট একটি নগরীতে। বর্তমানে প্রকৃতির অসীম দানে-ঋদ্ধ সিআরবির মতো এরকম বড় উন্মুক্ত স্থান চট্টগ্রামে আর নেই। শতবর্ষী বৃক্ষরাজি পাহাড়, টিলা ও উপত্যকায় ঘেরা বাংলাদেশের ইতিহাস ও ঐতিহ্যমন্ডিত অনন্য প্রাকৃতিক স্থান সিআরবি ধ্বংসের পাঁয়তারা কোনো ভাবেই মেনে নেয়া যায় না। সিআরবি থেকে এই বেনিয়া গোষ্ঠীকে তাড়াতে প্রয়োজনে দিনের পর দিন অনশন করতেও প্রস্তুত আমি। সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধ গবেষক ডা. মাহফুজুর রহমান, মহানগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি অ্যাডভোকেট ইব্রাহিম হোসেন চৌধুরী বাবুল, পেশাজীবী সমন্বয় পরিষদ, চট্টগ্রামের সভাপতি ডাঃ এ কিউ এম সিরাজুল ইসলাম, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ মফিজুর রহমান, বিজয় মেলা পরিষদের মহাসচিব মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ইউনুস, কবি, সাংবাদিক, প্রাবন্ধিক কামরুল হাসান বাদল, চট্টগ্রাম শিল্পকলা একাডেমির পরিচালনা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক নাট্যজন সাইফুল ইসলাম বাবু, চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ, চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক কবি ও সাংবাদিক শুকলাল দাশ, সাংবাদিক আলীউর রহমান, সংস্কৃতিক সংগঠক স্বপন মজুমদার, আবৃত্তিশিল্পী রাশেদ হাসান, রাজনীতিবিদ ও পরিবেশ সংগঠক শরীফ চৌহান, বিএফইউজের যুগ্ম মহাসচিব সাংবাদিক মহসীন কাজী ও আবৃত্তি শিল্পী প্রনব চৌধুরী। স্বাগত বক্তব্য রাখেন কবি ও সাংবাদিক ঋত্বিক নয়ন। সভায় বক্তারা বলেন, সিআরবি রক্ষা আমাদের প্রাণের দাবি। আমরা এ কমিটি করার একটাই উদ্দেশ্য সিআরবি রক্ষার আন্দোলনকে বেগবান করার পাশাপাশি একমুখী করা। কারণ চট্টগ্রামের সংবেদনশীল একজন মানুষও খুঁজে পাওয়া যাবে না যিনি সিআরবি রক্ষার এ আন্দোলনকে সমর্থন করেন না। আমরা চাই আন্দোলনটা বিক্ষিপ্ত ভাবে না হয়ে, ছড়িয়ে ছিটিয়ে না করে জোটবদ্ধ ভাবে হোক। সে লক্ষ্যেই এ কমিটি গঠন। যারাই আন্দোলনের সাথে যুক্ত আছেন, তিনি হোন ব্যক্তি কিংবা কোনো সংগঠনের প্রতিনিধি, মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের প্রতিটি মানুষই এ সংগঠনের সদস্য হিসেবে বিবেচিত হবেন। সভায় সর্বসম্মতিক্রমে সমাজবিজ্ঞানী প্রফেসর ড. অনুপম সেনকে চেয়ারম্যান এবং অ্যাডভোকেট ইব্রাহীম হোসেন বাবুলকে সদস্য সচিব করে ১০০১ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির কোচেয়ারম্যান হিসেবে আছেন, শহীদ জায়া বেগম মুশতারী শফি, কবি ও সাংবাদিক আবুল মোমেন, মানবাধিকার কর্মী অ্যাডভোকেট রানা দাশগুপ্ত, মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধ গবেষক মাহফুজুর রহমান, অধ্যাপক ডা. এ কিউ এম সিরাজুল ইসলাম, রাজনীতিবিদ খোরশেদ আলম সুজন, সাংস্কৃতিক সংগঠক ও রাজনীতিবিদ মফিজুর রহমান, পরিবেশ বিজ্ঞানী ড. ইদ্রীস আলী, ইঞ্জিনিয়ারস ইন্সটিটিউশনের চেয়ারম্যান প্রবীর কুমার সেন, স্থপতি আশিক ইমরান, মুক্তিযোদ্ধা মো. ইউনুচ ও রাজনীতিক মাজহারুল হক শাহ। যুগ্ম সদস্য সচিব হিসেবে আছেন কবি ও সাংবাদিক কামরুল হাসান বাদল, নাট্যজন সাইফুল আলম বাবু, আবৃত্তি শিল্পী রাশেদ হাসান, সাংবাদিক মহসীন কাজী, সংগঠক শরীফ চৌহান ও সংগঠক স্বপন মজুমদার। কার্যকরী সদস্য হিসেবে আছেন অ্যাডভোকেট ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী, অ্যাডভোকেট এ এইচ এম জিয়াউদ্দিন, সাংবাদিক হাসান আকবর, সাংবাদিক তপন চক্রবর্ত্তী, সাংবাদিক আসিফ সিরাজ, সাংবাদিক চৌধুরী ফরিদ, কবি ও সাংবাদিক নাজিমুদ্দিন শ্যামল, সাংবাদিক শুকলাল দাশ, শিক্ষক নেতা ও আবৃত্তি শিল্পী অঞ্চল চৌধুরী, সংস্কৃতি সংগঠক সুনীল ধর, সংস্কৃতি সংগঠক অধ্যাপিকা শীলা দাশগুপ্তা, সাংবাদিক আলীউর রহমান, আবৃত্তি শিল্পী প্রনব চৌধুরী, সাংবাদিক ঋত্বিক নয়ন, শিল্পী আলাউদ্দিন তাহের, দীপেন চৌধুরী, সুজিত চক্রবর্ত্তী, রাজনীতিক হাসান মনসুর, রাজনীতিক মিঠুল দাশগুপ্ত, সাংবাদিক রমেন দাশগুপ্ত, সাংবাদিক মহরম হোসাইন, সাংবাদিক আসমা বীথি, সাংবাদিক মিঠুন চৌধুরী, সাংবাদিক আমিনুল ইসলাম মুন্না, সাংবাদিক পার্থ প্রতীম বিশ্বাস, টিটু দত্ত, রাহুল দত্ত, কবি আ ফ ম মোদাচ্ছের আলী, সাংবাদিক মিনহাজ উদ্দিন, সাবেক ছাত্র নেতা শিবু প্রসাদ চৌধুরী, হাবিবুর রহমান তারেক, নূরুল আজম রনি, অ্যাডভোকেট তোফাজ্জল হোসেন জিকু, সাংবাদিক সুজিত সাহা, সাইদুল ইসলাম, রাহুল দাশ নয়ন, সুবল বড়ুয়া, উমর ফারুক, নারী নেত্রী হাসিনা আক্তার টুনু, জেসমিন সুলতানা পারু, সাহেলা আবেদীন লিমা, আবৃত্তিকার মিলি চৌধুরী, সাবের শাহ, দিলরুবা খানম, সালাউদ্দিন শামীম, শফিউল আজম জিফু, শাহরিয়ার মুনির জিসান, শাহাবুদ্দিন, নইমুল আবেদীন, মাহমুদুল করিম, সংস্কৃতি সংগঠক অহিদ সিরাজ স্বপন, নজরুল ইসলাম জয়, যন্ত্র শিল্পী প্রবীর দত্ত সাজু, অসীম বরণ চন্দ, চারু শিল্পী বিজন মজুমদার, দীপক দত্ত, শ্রীকান্ত আচার্য ও চলচ্চিত্র সংগঠক শৈবাল চৌধুরী। প্রেস বিজ্ঞপ্তি / নিউজ একাত্তর / আলী হোসেন
১৮০ সিএনজি ট্যাক্সিসহ ৬১ লট পণ্য নিলামে
২৮ জুলাই ২০২১, নিজস্ব সংবাদদাতা, নিউজ একাত্তর : চট্টগ্রাম বন্দরে ৪০ ফুট দৈর্ঘ্যরে ৯টি কন্টেইনারে থাকা ফোর স্ট্রোক ইঞ্জিনের ১৮০টি তিন চাকার পিয়াগো এপিই সিএনজি ট্যাক্সি নিলামে বিক্রি করছে দেশে সিংহভাগ রাজস্ব আহরণকারী প্রতিষ্ঠান চট্টগ্রাম কাস্টমস হাউস। মোট ৬১ লট পণ্যের এই নিলাম আগামীকাল বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম ও ঢাকায় একযোগে অনুষ্ঠিত হবে। এটি চট্টগ্রাম কাস্টমস হাউসের চলতি বছরের ১৩ নম্বর নিলাম। নিলামে ১৮০টি সিএনজি ট্যাক্সি ছাড়াও উল্লেখযোগ্য পণ্যের মধ্যে আছে ১টি জাপানে তৈরি ২০১৪ মডেলের সিলভার কালারের টয়োটা প্রভোক্স কার, জাপানি মমি পোকো প্যান্ট ব্রান্ডের প্রায় সাড়ে ১১টন বিভিন্ন সাইজের শিশুদের ডায়পার, প্রায় ২৭ টন ওয়াল ও ফ্লোর সিরামিক টাইলস, প্রায় ১২ হাজার লিটার এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ ওয়েল ও ১৬ লটে মোট ৬টন বিভিন্ন ধরনের কাপড়। এছাড়াও আছে এরেক্স ব্রান্ডের ৭২৪ জোড়া জুতা, ছেলেদের জ্যাকেট, রেড চিলি সস, ইন্সটেন্ট কফি ও ক্যাপাচিনো কফি, গোলমরিচ, নুডলস ও চিপস, ড্রাগন ফল, ইলেক্ট্রিক সুইচ ও সকেট, টেক্সটাইল কেমিক্যাল, সালফিউরিক এসিড, প্লাস্টিক হ্যাঙ্গার, ওয়াশিং কেমিক্যাল, পেনসিল ব্যাটারি, মেটাল ফ্রেম, খালি প্লাস্টিকের বোতল, সিকিউরিটি ট্যাগ, প্লাস্টিক বোর্ড ইত্যাদি। কাস্টমস সূত্র জানায়, নিলামের দরপত্র ও ক্যাটালগ ক্রয় করা যাবে আজ বুধবার অফিস চলাকালীন সময় পর্যন্ত। নিলামের ক্যাটালগ ও দরপত্র জমা দেওয়া যাবে আগামীকাল বৃহস্পতিবার দুপুর ২টা পর্যন্ত। এর ত্রিশ মিনিট পর দুপুর আড়াইটায় চট্টগ্রাম ও ঢাকায় একযোগে নিলামের বক্স খোলা হবে। নিলামের দরপত্র ও ক্যাটালগ পাওয়া যাবে সরকারি নিলাম পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স কে এম কর্পোরেশন এর স্ট্র্যান্ড রোডের মাঝিরঘাটস্থ প্রধান কার্যালয়ে এবং বন্দর স্টেডিয়াম এর বিপরীতে কাস্টম অকশন শেড থেকে। এছাড়া ঢাকার দরদাতারা ৮০, মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকার ঠিকানা থেকেও ক্যাটালগ ও দরপত্র সংগ্রহ করতে পারবেন। জমা দেওয়া যাবে চট্টগ্রাম কাস্টমস হাউসের নিলাম শাখায় ও চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন কার্যালয়ে। এছাড়া ঢাকার কাকরাইলে অবস্থিত শুল্ক আবগারি ও ভ্যাট কমিশনারেটের যুগ্ম-কমিশনার (সদর) এর দপ্তরেও দরপত্র জমা দিতে পারবেন। নিলামের বিষয়ে নিলাম পরিচালনাকরী প্রতিষ্ঠান মেসার্স কে এম কর্পোরেশন এর ম্যানেজার (নিলাম শাখা) মোহাম্মদ মোরশেদ নিউজ একাত্তরকে জানান, এবারের চলতি বছরের ১৩ নম্বর নিলামে ৬১ লট পণ্য নিলামে বিক্রির জন্য ক্যাটালগ ও দরপত্র বিক্রি চলছে। আগ্রহী দরদাতারা লক ডাউনের মধ্যেও নিলামে আনা পণ্যগুলো দেখে নেওয়ার সুযোগ পেয়েছেন। আগামীকাল চট্টগ্রাম ও ঢাকায় একযোগে নিলামের বক্স খোলা হবে। নিউজ একাত্তর / ভুঁইয়া
চট্টগ্রামে ট্রাক চালক হত্যার ঘটনায় দুই ভাই গ্রেফতার
২৫ জুলাই ২০২১, চট্টগ্রাম সংবাদদাতা, নিউজ একাত্তর ঃচট্টগ্রামে কোরবানির গরু বহনকারী ট্রাকের চালককে গুলি করে হত্যার ঘটনায় দুই ভাইকে গ্রেপ্তার করেছে RAB। তারা হলেন- সাদ্দাম হোসেন বাচা (৩১) ও মো. তুহিন (১৯)। ঢাকার সাভারের দেওগাঁ এলাকা থেকে শনিবার রাতে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। ওই দুই জন সংঘবদ্ধ ডাকাত দলের সদস্য বলে RAB এর দাবি। চট্টগ্রামের রাউজান উপজেলায় তাদের বাড়ি হলেও সাদ্দাম সীতাকুণ্ডের ছিন্নমূল এলাকায় এবং তুহিন নগরীর বায়েজিদ থানার আরেফীন নগরে থাকেন । গত ১৬ জুলাই এ হত্যাকাণ্ডের পর থানা পুলিশের সাথে ছায়া তদন্ত শুরু করে RAB-7।গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শনিবার সাভারের দেওগাঁ এলাকায় অভিযান চালিয়ে দুই ভাইকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে আরও অন্তত সাত জন জড়িত থাকার তথ্য RAB পেয়েছে। তাদের ধরতেও RAB এর কাজ করছে। গ্রেপ্তারের পর দুই জনকে সীতাকুণ্ড থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। গত ১৬ জুলাই নগরীর বিবিরহাটে কোরবানির গরু নিয়ে যাওয়ার সময় ফৌজদারহাট-বায়েজিদ লিঙ্ক রোডের চার নম্বর সড়কের কাছে ট্রাকটির পথ আটকানো হয়। চালক ট্রাকটি চালিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করলে তাকে সামনে থেকে গুলি করা হয়। গাড়িতে তার মৃত্যু হয়েছে। নিউজ একাত্তর / ভুঁইয়া
সিআরবিতে হাসপাতাল নির্মাণ, প্রতিবাদে চট্টগ্রামের বিশিষ্ট নাগরিকদের বিবৃতি
২৫ জুলাই ২০২১, প্রেস বিজ্ঞপ্তি, নিউজ একাত্তর ঃসাম্প্রতিককালে পূর্ব রেলের সদর দপ্তর চট্টগ্রামের সিআরবি এলাকায় সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্বে (পিপিপি) একটি হাসপাতাল ও মেডিকেল কলেজ নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। যা আমাদের কাছে একটি আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত বলে মনে হয়েছে। অবিভক্ত ভারতের বেঙ্গল অ্যান্ড আসাম রেলওয়ের সদর দপ্তর সিআরবি ভবনটি হয় ১৮৯৫ সালে। শতবর্ষী বৃক্ষ ঘেরা পাহাড়, টিলা ও উপত্যকা ঘেরা এ এলাকাটি জনসমাগমের অন্যতম প্রধান কেন্দ্র। আশেপাশের পাহাড়ে বিভিন্ন প্রজাতির পাখি ও প্রাণীর আবাস। শিরীষ গাছের তলায় প্রতি বছর হয় বর্ষবরণের অনুষ্ঠান; বসে মেলা, চলে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, বলী খেলা। সড়কের বাম পাশে বর্তমান রেলওয়ে হাসপাতাল, পাশের খালি জমি, রেলওয়ে হাসপাতাল কলোনি রোড এবং এই রাস্তাটির দুপাশে থাকা প্রায় ৫০টি কর্মচারী কোয়ার্টার (একতলা সেমিপাকা) নিয়ে মোট ছয় একর জমিতে হাসপাতালটি নির্মাণের প্রস্তাব করা হয়েছে। এই ইট-পাথরের রুক্ষ-কঠিন শহরের উঁচু উঁচু দালান আর শিল্প প্রতিষ্ঠানের ভিড়ে শতবর্ষী বৃক্ষে ঘেরা সিআরবিকে এক টুকরো অক্সিজেন প্ল্যান্ট বলা চলে। পাহাড়ের মাঝে প্রাকৃতিক শোভা মন্ডিত এলাকায় হাসপাতাল নির্মাণ করতে গেলে শতবর্ষী অনেক গাছ কাটা পড়ার পাশাপাশি এখানকার সবুজ নিসর্গ ধ্বংস হয়ে যাবে। নাগরিক জীবনে ক্লান্ত নগরবাসী একটু পার্থিব জগতের সব ব্যস্ততা আর জীবনের হিসাব-নিকাশে যখন ক্লান্ত-শ্রান্ত, তখন বুক ভরে নিঃশ্বাস নেওয়ার জন্য এখানে এসে বসে। একেকটি গাছের দিকে তাকালে যেন নিজের অজান্তেই হারিয়ে যায় কোনো অজানা অতীতে, শেকড়ের সন্ধানে মন উজাড় হয়ে যায়। হাসপাতাল নির্মাণের প্রস্তাবিত স্থানে রয়েছে বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ আবদুর রবের কবর, যিনি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদের প্রথম নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। এই মাটি শহীদের স্মৃতিধন্য। এই সিআরবিতে অনেকে শহীদ হয়েছেন মুক্তিযুদ্ধে। রেলের অনেক শ্রমিক কর্মচারী মুক্তিযুদ্ধে জীবন দিয়েছেন। বৃটিশ বিরোধী আন্দোলনে এই সিআরবি তথা পাহাড়তলী ছিল বিপ্লবের সূতিকাগার। সেইসব স্মৃতি সংরক্ষণে রেল উদ্যোগ নেয়নি। অথচ শহীদের কবর, শহীদের নামে কলোনি, শহীদের নামে যে সড়ক সেই জমি তারা বেসরকারি হাসপাতালকে বরাদ্দ দিয়েছে। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বাংলাদেশকে পরিচালিত করছেন। বলতে দ্বিধা নেই, তাঁর সুশাসনকে কলঙ্কিত করার জন্য প্রশাসনে ঘাপটি মেরে থাকা কতিপয় ষড়যন্ত্রকারী আমলা এই রেলের সরকারি জায়গায় বেসরকারি হাসপাতাল প্রকল্পের দু:সাহস দেখিয়েছে। সিআরবি এলাকায় এই প্রকল্প স্থাপিত হলে সেটির নেতিবাচক প্রভাব শুধু প্রকল্পের নির্দিষ্ট স্থানেই সীমিত থাকবে না। এটি শুধু শতবর্ষী বৃক্ষ না কাটার বিষয় নয়; সময়ের প্রয়োজনে প্রকল্প এলাকা ঘিরে নতুন নতুন দালান, অবকাঠামো, দোকানপাট, পার্কিং, ফার্মেসি, হোটেল-রেস্টুরেন্ট, ডায়াগনস্টিক সেন্টার, চিকিৎসা সংশ্লিষ্টদের জন্য আবাসিক ভবনে ছেয়ে যাবে। যার ফলে পরিবেশ দূষণ ঘটবে এবং পুরো সিআরবি এলাকাটির প্রাকৃতিক পরিবেশ ও সাংস্কৃতিক বলয় হুমকির মুখে পড়বে। এছাড়া, সিআরবি এলাকায় যেহেতু বর্ষবরণসহ বছরব্যাপী নানা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজিত হয়, এটির সংলগ্ন এলাকায় হাসপাতাল ও মেডিকেল কলেজ নির্মিত হলে তা হাসপাতালের রোগী ও মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীদের পাঠদানেও তীব্র ব্যাঘাত ঘটানোর আশঙ্কা থাকবে। এক কথায়, প্রস্তাবিত প্রকল্পটি পুরো এলাকাটিকে যানজট, কোলাহলপূর্ণ ও জঞ্জালময় পরিবেশে রূপ দেবে যা সিআরবির অনুপম ও প্রশান্ত প্রাকৃতিক পরিবেশ সম্পূর্ণ ধ্বংস করে দেবে। বাংলাদেশের সংবিধানের ১৮ক ধারা অনুসারে রাষ্ট্র বর্তমান ও ভবিষ্যৎ নাগরিকদের জন্য পরিবেশ সংরক্ষণ ও উন্নয়ন করবে এবং প্রাকৃতিক সম্পদ, জীব-বৈচিত্র্য, জলাভূমি, বন ও বন্যপ্রাণির সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা বিধান করবে। সিআরবি এলাকায় প্রস্তাবিত প্রকল্পটি সাংবিধানিক প্রতিশ্রুতির স্পষ্ট লঙ্ঘন। তাছাড়া চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ থেকে বলা হয়েছে যে, সিআরবিতে যেকোনো ধরনের বাণিজ্যিক স্থাপনা মাস্টারপ্ল্যানের লঙ্ঘন। ১৯৯৯ সালের ৯ ডিসেম্বর প্রজ্ঞাপন জারি করে চট্টগ্রাম নগরে মাস্টারপ্ল্যান কার্যকর করে সরকার। সেখানে সিআরবির মতো হেরিটেজকে রক্ষা করার কথা বলা হয়েছে। এ অবস্থায়, আমরা চট্টগ্রামবাসীর পক্ষে সরকারের কাছে দাবি জানিয়ে বলতে চাই, চট্টগ্রামের ঐতিহাসিক প্রাকৃতিক ঐতিহ্য, প্রাকৃতিক পরিবেশ, বন, পাহাড় ধ্বংস করে বন্দরনগরীর ফুসফুস খ্যাত চির সবুজ সিআরবিতে শুধু হাসপাতালই নয়, কোনো ধরনের স্থাপনা করা সমীচীন হবে না। প্রকৃতি ও পরিবেশ বিনাশী সব কর্মকাণ্ডই হবে আত্মবিধ্বংসী। চট্টগ্রামের ফুসফুস ও বুকভরে নিঃশ্বাস নেবার স্থানটিকে ঐতিহ্য হিসাবে সংরক্ষণের মাধ্যমে সিআরবিতে হাসপাতাল নির্মাণের সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের দাবি জানাই। একাত্মতা প্রকাশ করেছেন যাঁরা :সমাজবিজ্ঞানী প্রফেসর ড. অনুপম সেন, শহীদ জায়া বেগম মুশতারী শফি, দৈনিক আজাদী সম্পাদক এম এ মালেক, আন্তর্জাতিক যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর এডভোকেট রানা দাশগুপ্ত, কবি ও সাংবাদিক আবুল মোমেন (একুশে পদক প্রাপ্ত), দৈনিক পূর্বকোণ সম্পাদক ডা.ম রমিজউদ্দিন,ভোরের কাগজ সম্পাদক শ্যামল দত্ত, মুক্তিযোদ্ধা ডা. মাহফুজুর রহমান (মুক্তিযুদ্ধ গবেষক), প্রফেসর ডা. এ কিউ এম সিরাজুল ইসলাম (পেশাজীবী সমন্বয় পরিষদ, চট্টগ্রামের সভাপতি), চট্টগ্রাম চেম্বার এন্ড কমার্সের প্রেসিডেন্ট মাহবুবুল আলম, প্রফেসর ড. জাহাঙ্গীর আলম (সাবেক উপাচার্য, চুয়েট), চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সভাপতি আলহাজ্ব আলী আব্বাস, দৈনিক সুপ্রভাত বাংলাদেশের সম্পাদক রুশো মাহমুদ, দৈনিক পূর্বদেশ সম্পাদক, মুজিবুর রহমান সিআইপি, দৈনিক বীর চট্টগ্রাম মঞ্চ সম্পাদক, সৈয়দ উমর ফারুক, একুশে পদকপ্রাপ্ত বংশী বাদক ক্যাপ্টেন আজিজুল ইসলাম, মুক্তিযোদ্ধা ও বিশিষ্ট আইনজীবী এডভোকেট ইব্রাহীম হোসেন চৌধুরী বাবুল, নাগরিক উদ্যোগ এর প্রধান উপদেষ্টা, খোরশেদ আলম সুজন, সাংস্কৃতিক সংগঠক মফিজুর রহমান, আহমেদ ইকবাল হায়দার (একুশে পদক প্রাপ্ত), সাংবাদিক আবু সুফিয়ান (সাবেক সভাপতি, চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব), কথাসাহিত্যিক ও সাংবাদিক বিশ্বজিত চৌধুরী, কবি ও সাংবাদিক ওমর কায়সার, শিশু সাহিত্যিক ও সাংবাদিক রাশেদ রউফ (বাংলা একাডেমি পুরষ্কার প্রাপ্ত), চবি শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর মনজুরুল আলম, প্রাবন্ধিক অজয় দাশগুপ্ত, মুক্তিযোদ্ধা ও গবেষক সিরু বাঙালি, কবি ও সাংবাদিক কামরুল হাসান বাদল, প্রকৌশলী প্রবীর কুমার সেন (সভাপতি, চট্টগ্রাম ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশন), মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোজাফফর আহমেদ, মুক্তিযোদ্ধা মো. ইউনূস (মহাসচিব, বিজয় মেলা পরিষদ), চিত্রশিল্পী আহমেদ নেওয়াজ, প্রফেসর ড. গাজী সালেহ উদ্দিন (শহীদ পরিবারের সন্তান), নাট্যকার ও কবি শিশির দত্ত, নাট্যকার কবি ও গবেষক অভিক ওসমান, নাট্যজন ও সাংবাদিক প্রদীপ দেওয়ানজী, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সহ সভাপতি সাংবাদিক রিয়াজ হায়দার চৌধুরী, কবি অধ্যাপক ফাউজুল কবির, কবি ও সাংবাদিক নাজিমুদ্দিন শ্যামল( চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি), কবি ও সাংবাদিক এজাজ ইউসুফী (চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি), মুক্তিযোদ্ধা কবি সাথী দাশ, প্রফেসর ড. মো. সেকান্দর চৌধুরী (সাবেক সাধারণ সম্পাদক, চবি শিক্ষক সমিতি), চিত্রশিল্পী-গবেষক অধ্যাপক আবুল মনসুর, প্রফেসর ড. মুস্তাফিজুর রহমান ছিদ্দিকী (চবি সমাজবিজ্ঞান অনুষদের ডিন), প্রফেসর ড. কাজী এস. এম. খসরুল আলম কুদ্দুসী, প্রফেসর ড. জিনোবোধী ভিক্ষু, চবির সহযোগী অধ্যাপক মাধব দীপ (সাবেক যুগ্ম সম্পাদক, চবি শিক্ষক সমিতি), শ্রমিক নেতা মৃণাল কান্তি চৌধুরী, এডভোকেট এ এইচ এম জিয়াউদ্দিন (সাধারণ সম্পাদক, চট্টগ্রাম আইনজীবী সমিতি), অধ্যক্ষ মো. জাহাঙ্গীর (কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি), আবৃত্তি শিল্পী ও শিক্ষক নেতা অঞ্চল চৌধুরী ( সম্মিলিত আবৃত্তি জোট, চট্টগ্রামের সভাপতি), নাট্যকার, নির্দেশক রবিউল আলম (বাংলা একাডেমি পদকপ্রাপ্ত), স্থপতি আশিক ইমরান (সভাপতি, স্থপতি ইন্সটিটিউট), অধ্যক্ষ হাসিনা জাকারিয়া বেলা, অধ্যাপিকা ফেরদৌস আরা আলীম, মুক্তিযোদ্ধা ও পরিবেশ বিজ্ঞানী ড. ইদ্রীস আলী, শিক্ষাবিদ ড. আনোয়ারা আলম, শিল্পী মিহির লালা (স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শব্দ সৈনিক), নাট্য ব্যক্তিত্ব প্রফেসর ম. সাইফুল আলম চৌধুরী, শিল্পী কল্পনা লালা (স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শব্দ সৈনিক), চিত্রশিল্পী দীপক দত্ত (সদস্য সচিব, চারুশিল্পী সম্মিলন পরিষদ), নাট্য ব্যক্তিত্ব প্রফেসর ড. কুন্তল বড়ুয়া, এডভোকেট ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী (সাবেক সভাপতি, চট্টগ্রাম আইনজীবী সমিতি), নাট্য ব্যক্তিত্ব সাইফুল আলম বাবু (সাধারণ সম্পাদক, চট্টগ্রাম শিল্পকলা একাডেমি পরিচালনা পরিষদ), আবদুল হালিম দোভাষ (উপদেষ্টা, বাংলাদেশ আবৃত্তি শিল্পী সংসদ), বাংলাদেশ আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক ও প্রমার সভাপতি আবৃত্তি শিল্পী রাশেদ হাসান, মুক্তিযোদ্ধা প্রফেসর ডা.সরফরাজ খান বাবুল, প্রকৌশলী দেলোয়ার মজুমদার (নগর পরিকল্পনাবিদ), নাট্যকার রোসাঙ্গির বাচ্চু, ডা. মিনহাজুর রহমান (বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ, চট্টগ্রাম), অধ্যক্ষ দবির উদ্দিন আহমদ (সভাপতি, বাংলাদেশ কলেজ শিক্ষক সমিতি), অধ্যাপক আবু তাহের চৌধুরী (সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ কলেজ শিক্ষক সমিতি, চট্টগ্রাম), শিল্পী আলাউদ্দিন তাহের (সভাপতি, চট্টগ্রাম মঞ্চ সঙ্গীত শিল্পী সংস্থা), অধ্যাপক ভবরঞ্জন বণিক ( সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি, চট্টগ্রাম জেলা), নাট্যকার নির্দেশক মুনীর হেলাল, কবি ইউসুফ মুহম্মদ, সংস্কৃতি সংগঠক ডা. চন্দন দাশ, চলচ্চিত্র নির্মাতা আনোয়ার হোসেন পিন্টু, মুক্তিযুদ্ধ একাডেমি ট্রাস্ট চট্টগ্রাম বিভাগের আহবায়ক আ.ফ.ম.মোদাচ্ছের আলী, শরীফ চৌহান (সমন্বয়ক, গণজাগরণ মঞ্চ, চট্টগ্রাম), অধ্যক্ষ কাবেরী সেনগুপ্ত (সঙ্গীত ভবন), নারী নেত্রী জেসমিন সুলতানা পারু, চলচ্চিত্র নির্মাতা শৈবাল চৌধুরী, সংস্কৃতি সংগঠক অধ্যাপিকা শীলা দাশগুপ্তা, কবি রিজোয়ান মাহমুদ, উন্নয়ন ও মানবাধিকার কর্মী কমল সেনগুপ্ত, কবি আবসার হাবিব, কবি জ্যোতির্ময় নন্দী, এডভোকেট মুজিবুল হক ( সাবেক সভাপতি, চট্টগ্রাম আইনজীবী সমিতি), সাবেক সাংসদ নারী নেত্রী সাবিহা মুছা, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের যুগ্ম মহাসচিব সাংবাদিক মহসীন কাজী, মানসী দাশ তালুকদার (সাবেক কালচারাল অফিসার, চট্টগ্রাম শিল্পকলা একাডেমি), নৃত্য শিল্পী ও প্রশিক্ষক প্রমা অবন্তী, শাহআলম নিপু (চবি সিন্ডিকেট সদস্য), গবেষক জামাল উদ্দিন (চট্টগ্রাম সৃজনশীল প্রকাশক সমিতির সাধারণ সম্পাদক), মুক্তিযোদ্ধা গবেষক সাংবাদিক ম. শামসুল হক, নাট্যকার ও কবি অধ্যাপক সঞ্জীব বড়ুয়া, নাট্যজন অভিজিৎ সেনগুপ্ত (প্রশিক্ষণ সম্পাদক, বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশন), রনজিত কুমার নাথ (কেন্দ্রীয় সহ সভাপতি, বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি), নূরুল হক সিদ্দিকী (সভাপতি, শিক্ষক সমিতি, মহানগর শাখা), প্রদীপ কানুনগো (সাধারণ সম্পাদক, শিক্ষক সমিতি, মহানগর শাখা), মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ লকিতুল্লাহ (সভাপতি, শিক্ষক সমিতি, চট্টগ্রাম আঞ্চলিক শাখা), মো. ওসমান গণি (সভাপতি, বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি, দক্ষিণ জেলা), তাপস চক্রবর্তী (সাধারণ সম্পাদক,বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি, দক্ষিণ জেলা) প্রেস বিজ্ঞপ্তি/ নিউজ একাত্তর / ভুঁইয়া
গত ২৪ ঘন্টায় চট্টগ্রামে ১১ জনের মৃত্যু আক্রান্ত ৮০১
২৫ জুলাই ২০২১, চট্টগ্রাম সংবাদদাতা, নিউজ একাত্তর ঃচট্টগ্রামে একদিনের মাথায় করোনা সংক্রমণ শনাক্তের হার ১৫ শতাংশ বেড়েছে। করোনায় আক্রান্ত আরো ১১ জন মারা গেছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছেন আরো ৮০১ জন। রোববার সকালে জেলা সিভিল সার্জন অফিস থেকে এসব তথ্য জানানো হয়। এতে বলা হয় গত ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রামের বিভিন্ন ল্যাবে ২০৭৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে ৮০১ জনের। শনাক্তের হার ৩৮ দশমিক ৫৪ শতাংশ। আগের দিন শনিবার এ হার ছিল ২৩ শতাংশ। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে মহানগরীর বাসিন্দা ৪৬৯ জন এবং বাকি ৩৩২ জন বিভিন্ন উপজেলার বাসিন্দা। এ নিয়ে চট্টগ্রামে আক্রান্তের সংখ্যা ৭৫ হাজার ৩৩৩ জন। এ পর্যন্ত করোনায় মারা গেছেন ৮৮৫ জন। নিউজ একাত্তর / ভুঁইয়া
সীতাকুণ্ডে নারীসহ ৩ রোহিঙ্গা আটক
২৪ জুলাই ২০২১,চট্টগ্রাম সংবাদদাতা, নিউজ একাত্তর ঃচট্রগ্রামের সীতাকুণ্ড পৌরসভা এলাকায় রোহিঙ্গা সন্দেহে ৩ জনকে আটক করেছে পুলিশ। শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টার সময় সীতাকুণ্ড আলিয়া কামিল (এম.এ) মাদ্রাসার সামনে থেকে রোহিঙ্গা সন্দেহে তাদের ৩ জনকে স্থানীদের সহযোগিতায় সীতাকুণ্ড মডেল থানা পুলিশ আটক করে। আটককৃতরা রোহিঙ্গারা হলেন, জোবায়ের (২৬), সানজিদা (৩২) ও মেয়ে ইয়াসমিন (১৩)। সূত্রে জানা যায়, ঢাকা থেকে ৩ জন রোহিঙ্গা সীতাকুণ্ডে এসে পৌঁছে। সন্ধ্যায় তারা চট্টগ্রামের উদ্দেশে রওনা দেয়ার সময় স্থানীয়দের সন্দেহ হলে তাদের আটকিয়ে রেখে পুলিশে খবর দেয়। এসময় পুলিশ ঘটনাস্থলে আসলে তাদেরকে পুলিশে সোপর্দ করা হয়। সীতাকুণ্ড মডেল থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম আজাদ জানান, সীতাকুণ্ড বাজার থেকে ৩ রোহিঙ্গাকে আটক করা হয়েছে। নিউজ একাত্তর /আলী হোসেন

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর