রবিবার, মার্চ ৭, ২০২১
জম্মু-কাশ্মীরে ৫০০ ক্রীড়া একাডেমিকে ভারতের আর্থিক সহায়তা
১৮নভেম্বর,বুধবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ভারতে খেলাধূলার আরও উন্নয়নের জন্য দেশটির জম্মু ও কাশ্মীরে ৫০০টি বেসরকারি একাডেমিকে আর্থিক সহায়তা দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে দেশটির ক্রীড়া মন্ত্রী কিরেন রিজিজু। দেশটির ক্রীড়া মন্ত্রনালয় ২০২০-২১ অর্থবছর থেকে পরবর্তী চার বছরে খেলো ইন্ডিয়া স্কিমের মাধ্যমে এই সহায়তা প্রদান করবে একাডেমিগুলোকে। এই স্কিমের মাধ্যমে প্রশিক্ষিত খেলোয়াড়ের গুণগতমান উন্নয়ন, একাডেমিতে কোচের ব্যবস্থা, খেলার মাঠের মান উন্নয়ন, অবকাঠামো, ক্রীড়া বিজ্ঞানের সুবিধাগুলো নিয়ে কাজ করা হবে। এছাড়া ২০২৮ অলিম্পিকে ভারতের সেরা খেলোয়াড়দের দেওয়ার জন্য ১৪টি বিষয়ে অগ্রাধিকার দিয়ে সেই শাখাগুলোকে প্রথম পর্যায়ের সুবিধা দেওয়া হবে। এ বিষয়ে দেশটির ক্রীড়ামন্ত্রী কিরেন রিজিজু বলেছেন, দেশের সবচেয়ে প্রত্যন্ত অঞ্চলেও যেন খেলাধুলার প্রতিভা গড়ে তোলা যায়, সেজন্য সরকারের পক্ষ থেকে এই প্রতিষ্ঠানগুলোকে সহায়তা করা জরুরি। দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে অনেক ছোট ছোট একাডেমি রয়েছে যারা অ্যাথলেটদের সনাক্ত এবং প্রশিক্ষণে খুব ভাল কাজ করছে। আমরা তাদের সহায্যের মাধ্যমে দেশের ক্রীড়ার উন্নয়ন করতে চাই। তথ্যসূত্র: ইন্ডিয়া ব্লুমস
দুঃসময়ে পাশে দাঁড়ানোয় ইরানের কাছে কৃতজ্ঞ কাতার
১৮নভেম্বর,বুধবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: দুঃসময়ে সহযোগিতা করার জন্য আবারও ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের প্রশংসা করেছে কাতার। কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মো. বিন আব্দুর রহমান আলে সানি বলেছেন, সৌদি আরব ও তার মিত্র দেশগুলো যখন কাতারের বিরুদ্ধে অবরোধ আরোপ করে তখন নিজের আকাশসীমা উন্মুক্ত করে দিয়েছিল ইরান। কাতারের জনগণের জন্য ওষুধ এবং খাদ্য সংগ্রহের একমাত্র পথ ছিল ইরান। ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের সহযোগিতার জন্য কাতার কৃতজ্ঞ বলে তিনি জানান। রিয়াদের দিক-নির্দেশনা অনুযায়ী পররাষ্ট্র নীতি নির্ধারণ না করার কারণে ২০১৭ সালের ৫ জুন সৌদি আরব তার কয়েকটি মিত্র দেশকে সঙ্গে নিয়ে কাতারের ওপর অবরোধ আরোপ করে এবং দেশটির সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করে। সৌদি আরব ও তার মিত্র দেশগুলো কাতারের জন্য আকাশসীমাও বন্ধ করে দেয়। এ সময় নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী এবং ঔষধ সংগ্রহের ক্ষেত্রে তাদেরকে সহযোগিতা করে ইরান। ইরান নিজেও কাতারে খাদ্য সামগ্রী ও ওষুধ সরবরাহ করে। দুঃসময়ে সহযোগিতার জন্য এর আগে কাতারের আমিরও একাধিকবার ইরানের কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।
ট্রাম্পের অসহযোগিতায় আরও মানুষের মৃত্যু হতে পারে : বাইডেন
১৭নভেম্বর,মঙ্গলবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয়ী হওয়া ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন সতর্ক করে বলেছেন আসন্ন সরকার গঠনে বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সহযোগিতা না করলে আরও বহু মানুষের মৃত্যু হতে পারে। স্বাভাবিকভাবে ক্ষমতা হস্তান্তরে ট্রাম্প বা তার প্রশাসনের তেমন কোনো উদ্যোগ দেখা যাচ্ছে না। ডেলাওয়ারে এক ভাষণে জো বাইডেন বলেন, করোনা মহামারিতে ট্রাম্প প্রশাসনের সহায়তার প্রয়োজন রয়েছে। তিনি সতর্ক করে বলেছেন, ট্রাম্পের চলতি বছরের নির্বাচনের ফলাফল মেনে না নেওয়ার কারণে নতুন সরকার গঠন বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। এর ফলে দ্রুত ভ্যাকসিন বিতরণের সক্ষমতা ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে। সিএনএন-এর এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সোমবার ডেলাওয়ারে শ্রমিক ও ব্যবসায়ী নেতাদের সঙ্গে সাক্ষাত করে দেশের বর্তমান অর্থনৈতিক অবস্থা নিয়ে বক্তব্য রেখেছেন জো বাইডেন। এরপরেই এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের উদ্দেশে বাইডেন বলেন, আমরা সবাই যদি সহযোগিতা না করি তবে আরও অনেক মানুষের মৃত্যু হতে পারে। গত ৩ নভেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। নির্বাচনে ৩০৬টি ইলেকটোরাল ভোট পেয়ে জয় নিশ্চিত করেছেন জো বাইডেন। অপরদিকে ট্রাম্প পেয়েছেন ২৩২টি ভোট। অর্থাৎ বাইডেনের চেয়ে বড় ব্যবধানে হেরে গেছেন তিনি। মার্কিন গণমাধ্যমগুলোতে এর মধ্যেই বাইডেনকে জয়ী হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। কিন্তু নিজের পরাজয় কিছুতেই মেনে নিতে পারছেন না ট্রাম্প। গত রোববার সন্ধ্যায় তিনি এক টুইটে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জো বাইডেনের জয় স্বীকার করে নিলেও সোমবার দুপুরে আরেক টুইটে নিজের জয় দাবি করেছেন এই বিদায়ী প্রেসিডেন্ট। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে হাস্যরসের সৃষ্টি হয়েছে। টুইটারের পাশাপাশি ফেসবুকে নিজের আইডিতে এক পোস্টে ট্রাম্প বলেন, আমিই এই নির্বাচনে জিতেছি। আগের টুইটে বাইডেনের জয়ের কথা স্বীকার করে রিপাবলিকান ট্রাম্প বলেছিলেন, তিনি (বাইডেন) জিতেছেন, তবে নির্বাচনে জালিয়াতি করে। নির্বাচনে কোনো পর্যবেক্ষক ছিল না। ভোট গণনা করেছে কট্টর বামপন্থী ব্যক্তিমালিকানার প্রতিষ্ঠান ডমিনিয়ন, যাদের বিরুদ্ধে অনেক দুর্নাম রয়েছে। তাদের সরঞ্জামগুলো খুবই বাজে, যা টেক্সাসের ভোট গণনার জন্যেও যথাযথ ছিল না। জো বাইডেনকে অন্যায়ভাবে জিতিয়ে দিতে ভুয়া মিডিয়া ভূমিকা রেখেছে। আমি কিছুই মানি না। এদিকে, ট্রাম্পের এমন আচরণকে দায়িত্ব জ্ঞানহীন বলেছেন বাইডেন। অপরদিকে সামাজিক মাধ্যমের এক পোস্টে সাবেক ফার্স্ট লেডি মিশেল ওবামা বলেছেন, এটা কোনো খেলা নয়। বাইডেন বলছেন, এখনই কিংবা যত তাড়াতাড়ি সম্ভব সমন্বয় শুরু করা প্রয়োজন। তিনি বলেন, প্রেসিডেন্ট অংশ নিলে এটা খুবই সহজেই হয়ে যাবে। তিনি বলেন, আমি আশা করছি যে, ২০ জানুয়ারি আশার আগেই প্রেসিডেন্ট এ বিষয়টি বুঝবেন। আগামী ২০ জানুয়ারি প্রেসিডেন্ট হিসেবে জো বাইডেনের ক্ষমতা গ্রহণের কথা রয়েছে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে করোনা সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়লেও এখন পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রেই আক্রান্ত ও মৃত্যু সবচেয়ে বেশি। দেশটিতে এর মধ্যেই করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ১ কোটি ১৫ লাখের বেশি মানুষ। অপরদিকে মারা গেছে ২ লাখ ৫২ হাজার ৬৫১ জন। শুরু থেকেই করোনা সংক্রমণ দ্রুত ছড়িয়ে পড়া এবং মৃত্যুর জন্য ট্রাম্প প্রশাসনকেই দায়ী করা হচ্ছে। নিজে করোনায় আক্রান্ত হয়েও এ বিষয়ে সঠিক পদক্ষেপ গ্রহণ করেননি তিনি। করোনা পরিস্থিতিকে সঠিকভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে ব্যর্থ হওয়ার কারণেই এবারের নির্বাচনে ট্রাম্প পরাজিত হয়েছেন বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।
অবশেষে হার স্বীকার করলেন ট্রাম্প
১৬নভেম্বর,সোমবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: অবশেষে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্র্যাট দলীয় প্রার্থী জো বাইডেনের জয়ী হওয়ার কথা স্বীকার করলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। তবে তিনি ভোট কারচুপির অভিযোগ করতে ছাড়েননি। ট্রাম্পের অভিযোগ, নির্বাচনে জালিয়াতি করেই জিতেছেন জো বাইডেন। রোববার (১৫ নভেম্বর) এক টুইট বার্তায় এ অভিযোগ করেন তিনি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকান নেতা ডোনাল্ড ট্রাম্পকে বড় ব্যবধানে হারিয়ে জয়ী হয়েছেন জো বাইডেন। বাইডেনের বিজয় নিশ্চিত হওয়ার পর থেকেই নির্বাচনে পরাজয় মেনে নিতে অস্বীকৃতি জানিয়ে আসছিলেন ট্রাম্প। তবে রোববার যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময় সকালে এক টুইট বার্তায় ট্রাম্প বাইডেনের নাম উল্লেখ না করে বলেন, তিনি জিতেছেন, তবে নির্বাচনে জালিয়াতি করে। টুইট বার্তায় ট্রাম্প দাবি করেন, নির্বাচনে কোনো নির্বাচনি পর্যবেক্ষক ছিল না। ভোট গণনা করেছে কট্টর বামপন্থী ব্যক্তিমালিকানার প্রতিষ্ঠান ডমিনিয়ন, যাদের বিরুদ্ধে অনেক দুর্নাম রয়েছে। তাদের সরঞ্জামগুলো খুবই বাজে, যা টেক্সাসের ভোট গণনার জন্যেও যথাযথ ছিল না। গণমাধ্যমেরও ওপরও বেজায় চটেছেন ট্রাম্প। ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বলেন, জো বাইডেনকে অন্যায়ভাবে জিতিয়ে দিতে ভুয়া মিডিয়া ভূমিকা রেখেছে। আমি কিছুই মানি না। প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জো বাইডেনের কাছে বিশাল ব্যবধানে হেরে গেছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। ইলেকটোরাল ভোটে বাইডেনের চেয়ে অনেক পিছিয়ে আছেন তিনি। কিন্তু কোনোভাবেই পরাজয় স্বীকার করছিলেন না ট্রাম্প। তার পরিবারের সদস্যরা তাকে এ বিষয়টি বোঝানোর চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছে। বার বার ট্রাম্প দাবি করছেন, তিনিই জয়ী হয়েছেন। ট্রাম্পের এমন আচরণের বিষয়ে জো বাইডেন বলেছিলেন, নির্বাচনে ডোনাল্ড ট্রাম্প পরাজয় মেনে নিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন। এটি একটি বিব্রতকর বিষয়। ইতোমধ্যে বিভিন্ন দেশের নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে শুরু করেছেন জো বাইডেন। তিনি জোর দিয়ে বলেছেন, কোনো কিছুই ক্ষমতা হস্তান্তর বন্ধ করতে পারবে না। গত শনিবার ব্যাটলগ্রাউন্ড নর্থ ক্যারোলাইনা ও জর্জিয়ায় ভোটের গণনা আর পুনর্গণনা পর্ব শেষ হয়েছে। ফলাফলে ইতোমধ্যেই প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয়ী ঘোষিত ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন ৩০৬টি ইলেকটোরাল কলেজে জয় পেয়েছেন। তার রিপাবলিকান প্রতিদ্বন্দ্বী তথা বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ঝুলিতে ২৩২টি ভোট। তবে এখনও সরকারিভাবে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের চূড়ান্ত ফল ঘোষিত হয়নি। এদিকে ডোনাল্ড ট্রাম্পও নিজের পরাজয় এখনও স্বীকার করে নেননি। জালিয়াতির অভিযোগ তুলছেন তিনি। তবে ৫৩৮ ভোটের মধ্যে সংখ্যাগরিষ্ঠতার জন্য প্রয়োজনীয় ম্যাজিক ফিগার ২৭০ আগেই ছুঁয়ে ফেলায় জয়ী ঘোষিত হন জো বাইডেন।
রোমানিয়ার করোনা হাসপাতালে আগুন, নিহত ১০
১৫নভেম্বর,রবিবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: রোমানিয়ায় করোনা বিশেষায়িত একটি হাসপাতালে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। এতে অন্তত ১০ জন নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে ওই হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এতে গুরুতর আহত হয়েছে দায়িত্বরত চিকিৎসকসহ আরও ৭ জন। খবর আল-জাজিরার। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শনিবার (১৪ নভেম্বর) পিয়াত্রা নিমট শহরের পাবলিক হাসপাতালের করোনা আক্রান্ত রোগীদের জন্য নির্ধারিত নিবিড় পরিচর্যা ওয়ার্ড থেকে আগুন ছড়িয়ে পড়ে। ওই ওয়ার্ডে মোট ১৬ জন করোনা রোগী ছিলেন। হাসপাতালটির পরিচালক লুসিয়ান মিকু স্থানীয় গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, দায়িত্বরত একজন চিকিৎসক আগুনে পোড়া রোগীদের বাঁচানোর চেষ্টা করছিলেন। ফলে আগুন লেগে তার শরীরের ৮০ শতাংশ পুড়ে গেছে। দেশটির স্বাস্থ্যমন্ত্রী নেলু তাতারু জানিয়েছেন, বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে এই অগ্নিকাণ্ড ঘটতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। দীর্ঘদিন ধরে ওই অঞ্চলের জরুরি হাসপাতালগুলোতে অব্যবস্থাপনা চলছিল। গত বছর বিষয়টি তদারকির জন্য সরকার আটজন কর্মকর্তাকে নিয়োগ দেয়। রোগীদের যথাযথ চিকিৎসা সেবা দিতে না পারার দায়ে গত তিন সপ্তাহ আগে ওই হাসপাতালটির পরিচালক পদত্যাগ করেন। আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে কাজ করে যাচ্ছে দমকল বাহিনী। তাদের সঙ্গে দেশটির বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীও যোগ দিয়েছে। হাসপাতালের বাকি রোগীদের বের করে আনার চেষ্টা চলছে।
আন্তর্জাতিক শিশু শান্তি পুরস্কার জিতল বাংলাদেশের সাদাত
১৪নভেম্বর,শনিবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সাইবারবুলিং বা অনলাইনে হয়রানি বন্ধে অবদান রাখায় আন্তর্জাতিক শিশু শান্তি পুরস্কার জিতেছে বাংলাদেশি কিশোর সাদাত রহমান। মূলত সাইবারবুলিং প্রতিরোধী অ্যাপ তৈরি এবং এর মাধ্যমে মানুজনকে অনলাইনে হয়রানির বিষয়ে সচেতন করার প্রচেষ্টার স্বীকৃতি স্বরূপ সম্মানজনক এ পুরস্কার জিতেছে সে। নোবেল শান্তি পুরস্কার জয়ী মালালা ইউসুফজাই ১৭ বছর বয়সী সাদাতকে সবার জন্য অনুপ্রেরণা হিসেবে উল্লেখ করেছেন। এক ভার্চ্যুয়াল বক্তব্যে বাংলাদেশি কিশোরকে নিয়ে মালালা বলেন, সে বিশ্বজুড়ে তরুণ-তরুণীদের সাইবার বুলিং বন্ধ করতে এবং তাদের সম্প্রদায়ে সমবয়সীদের যারা মানসিক সহিংসতায় ভুগছে তাদের সহায়তা করার আহ্বান জানাচ্ছে। সাদাত একজন সত্যিকারের পরিবর্তনকারী। শিশু অধিকার নিয়ে কাজের স্বীকৃতি হিসেবে প্রতিবছর আন্তর্জাতিক শিশু শান্তি পুরস্কার ঘোষণা করে নেদারল্যান্ডস-ভিত্তিক কিডসরাইটস ফাউন্ডেশন নামে একটি সংস্থা। এর আগে সুইডিশ কিশোরী গ্রেটা থানবার্গের মতো অনেকেই এ পুরস্কারে ভূষিত হয়েছে। জানা যায়, সাদাত রহমানের তৈরি অ্যাপের নাম- সাইবার টিনস। এর মাধ্যমে পরিচয় গোপন রেখে একদল স্বেচ্ছাসেবকের কাছে অনলাইনে হয়রানির বিষয়ে অভিযোগ জানানো যায়। পরে ওই স্বেচ্ছাসেবকরাই প্রয়োজনবোধে পুলিশ বা সমাজকর্মীদের কাছে যান। এছাড়া কিশোর-কিশোরীদের অনলাইন নিরাপত্তার বিষয়ে শিক্ষা দেয় এই অ্যাপ। সাইবারবুলিংয়ের শিকার হয়ে ১৫ বছর বয়সী এক কিশোরীর মৃত্যুর খবর গভীরভাবে উদ্বেলিত করেছিল সাদাতকে। এধরনের ঘটনা যেন আর না ঘটে সেই উদ্দেশ্যেই সাইবার টিনস অ্যাপ তৈরির চিন্তা মাথায় আসে তার। সাদাতের নিজ জেলা নড়াইলে ১ হাজার ৮০০ জনের বেশি কিশোর-কিশোরী বর্তমানে এই অ্যাপ ব্যবহার করছে। অ্যাপটি চালু হওয়ার পর থেকে ৩০০ জনেরও বেশি ভুক্তভোগীকে সেবা দেয়া হয়েছে এবং অভিযোগের ভিত্তিতে অন্তত আটজন নিপীড়ককে গ্রেফতার করা হয়েছে। আন্তর্জাতিক শিশু শান্তি পুরস্কারে অর্থমূল্য হিসেবে এক লাখ ইউরো (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় এক কোটি টাকা) পেয়েছে সাদাত হোসেন। এই অর্থ সাইবারবুলিং-রোধী অ্যাপটি বাংলাদেশজুড়ে ছড়িয়ে দেয়ার কাজে খরচ করা হবে বলে জানিয়েছে এ কিশোর। পুরস্কার গ্রহণের সময় সাদাত বলেছে, সাইবারবুলিংয়ের বিরুদ্ধে লড়াই হচ্ছে একপ্রকার যুদ্ধ। আর এই যুদ্ধের আমি এক সৈন্য। সবাই এভাবে সমর্থন দিলে আমরা একসঙ্গে সাইবারবুলিংয়ের বিরুদ্ধে এই যুদ্ধ জয়ী হবো।
লিবিয়া উপকূলে নৌকা ডুবে কমপক্ষে ৭৪ অভিবাসনপ্রত্যাশীর মৃত্যু
১৩নভেম্বর,শুক্রবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: লিবিয়া উপকূলে নৌকাডুবিতে অন্তত ৭৪ জন অভিবাসনপ্রত্যাশী মারা গেছেন। জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা আইওএম গতকাল বৃহস্পতিবার এই তথ্য জানায়। লিবিয়ার খোমসের কাছে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে। বন্দরনগরী খোমস লিবিয়ার রাজধানী ত্রিপোলি থেকে ১২০ কিলোমিটার পশ্চিমে অবস্থিত। আইওএম এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার লিবিয়ার খোমস উপকূলে এই নৌকাডুবির ঘটনা ঘটে। নৌকাটিতে অন্তত ১২০ জন আরোহী ছিলেন। তাদের মধ্যে নারী, পুরুষ ও শিশু ছিল। নৌকাটি ডুবে যাওয়ার পর ৪৭ জনকে জীবিত উদ্ধার করে তীরে আনা হয়েছে। আর এখন পর্যন্ত ৩১ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। আইওএমের তথ্য অনুযায়ী, গত ১ অক্টোবর থেকে এ নিয়ে মধ্য ভূমধ্যসাগরে অন্তত আটটি অভিবাসনপ্রত্যাশীবাহী নৌকাডুবির ঘটনা ঘটলো। নৌকাডুবির ঘটনায় এখনো নিখোঁজ থাকা লোকজনকে উদ্ধারে তল্লাশি কার্যক্রম চালাচ্ছে কোস্টগার্ড। সঙ্গে স্থানীয় জেলেরাও আছেন। আইএমও জানিয়েছে, গত দুই দিনে মধ্য ভূমধ্যসাগরে দুটি নৌকাডুবির ঘটনায় আরও অন্তত ১৯ জন মারা গেছেন। গত সাত বছরে সমুদ্রপথে ২০ হাজারের বেশি অভিবাসনপ্রত্যাশীর মৃত্যু হয়েছে। আইওএমর তথ্য মতে, ২০১১ সালের গণভ্যুত্থানে মুয়াম্মার গাদ্দাফি ক্ষমতাচ্যুত ও নিহত হওয়ার পর যুদ্ধবিধ্বস্ত লিবিয়া আফ্রিকা ও মধ্যপ্রাচ্য থেকে ইউরোপে প্রবেশের অন্যতম প্রধান রুট হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। ২০১৪ সাল থেকে ভূমধ্যসাগরের বিপজ্জনক এই পথ পাড়ি দিতে গিয়ে অন্তত ২০ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে। গত মঙ্গলবার লিবিয়ার উপকূলে একই ধরনের নৌকাডুবির ঘটনায় তিন নারী ও এক শিশুসহ ১৩ জন আফ্রিকান অভিবাসীর মৃত্যু হয়েছিল। চলতি বছর কেবল ভূমধ্যসাগরেই ইউরোপ পৌঁছানোর চেষ্টা করা অন্তত ৯০০ মানুষের সলিল সমাধি হয়েছে বলে জানিয়েছে আইওএম। সমুদ্রের বিপজ্জনক এ পথ পাড়ি দিতে চেষ্টা করা ১১ হাজারেরও বেশি মানুষকে উদ্ধার করে লিবিয়ায় ফেরতও পাঠানো হয়েছে। সেখানে তারা মানবাধিকার লঙ্ঘন ও বন্দিশিবিরে অনির্দিষ্টকাল আটকের মতো ঘটনার মুখোমুখি হয়েছিল। আইওএম জানিয়েছে, অভিবাসীদের প্রত্যাবর্তনের জন্য লিবিয়া নিরাপদ বন্দর নয়। এজন্য সংস্থাটি প্রত্যাবর্তন ও শোষণের চক্র বন্ধের জন্য জরুরি ও সুনির্দিষ্ট ব্যবস্থা গ্রহণে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে। সূত্র: আল জাজিরা
প্রযুক্তি খাতে নতুন ভিসা দিচ্ছে সিঙ্গাপুর
১২নভেম্বর,বৃহস্পতিবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: প্রযুক্তি খাতে কাজের জন্য বিদেশি কর্মীদের নতুন ভিসা দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে সিঙ্গাপুর। আগামী জানুয়ারিতেই শুরু হচ্ছে এই কর্মসূচি। খবর রয়টার্সের। জানা গেছে, সিঙ্গাপুরের নতুন টেক-পাস কর্মসূচির আওতায় অন্তত ৫০০ জন অভিজ্ঞ কর্মী নির্বাহী পদে দুই বছরের ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন। এই ভিসা নিয়ে নগররাষ্ট্রটিতে নতুন ব্যবসা পরিচালনা, বিনিয়োগ করা অথবা সিঙ্গাপুরভিত্তিক যেকোনও প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের পরিচালক হওয়া যাবে। তবে আবেদনকারীদের প্রযুক্তি খাতে পাঁচ বছর কাজ করা বা সফল প্রযুক্তিপণ্য তৈরির মতো অভিজ্ঞতার প্রয়োজন হতে পারে। বৃহস্পতিবার এ ভিসা কর্মসূচির ঘোষণা দিয়ে সিঙ্গাপুরের বাণিজ্যমন্ত্রী চান চান সিং বলেন, টেক-পাসের মাধ্যমে এ দেশে প্রযুক্তি-প্রতিভা বৃদ্ধি পাবে এবং এই অঞ্চলের শীর্ষস্থানীয় টেক হাব হিসেবে আমাদের অবস্থান আরও সুদৃঢ় হবে। লোভনীয় অনুদান এবং প্রণোদনায় সজ্জিত সিঙ্গাপুর সাম্প্রতিক বছরগুলোতে টেক ফার্ম ও বিনিয়োগকারীদের আকৃষ্ট করতে জোর প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। ফেসবুক, অ্যালফাবেট, টেনসেন্টের মতো বিশ্বব্যাপী সমাদৃত প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান এবং আলিবাবা, টেনসেন্টের মতো চীনা টেক জায়ান্টরা রয়েছে তাদের আগ্রহের কেন্দ্রে। তবে করোনাভাইরাস মহামারির কারণে ছোট্ট দেশটিতে বেকারত্বের হার গত ১৬ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছেছে। এর মধ্যে বিদেশি কর্মী নিলে স্থানীয়দের চাকরির বাজার ছোট হয়ে আসবে বলে আশঙ্কা রয়েছে অনেকের। ইতোমধ্যেই সিঙ্গাপুরের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান অভিবাসীদের জন্য কড়াকড়ি বাড়িয়েছে, সেখানে বিদেশি কর্মীদের প্রথমে ছাটাই করতে উৎসাহিত করা হচ্ছে। এর মধ্যেই বিদেশি প্রতিভার জন্য দ্বার খোলা রাখার ঘোষণা দিল দেশটির সরকার।
সৌদি আরবে বোমা হামলা
১১নভেম্বর,বুধবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: প্রথম বিশ্বযুদ্ধের অবসানের স্মরণে সৌদি আরবের বন্দরনগরী জেদ্দা শহরের একটি অমুসলিম সমাধিক্ষেত্রে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বোমা হামলা হয়েছে। বুধবার সকালের দিকের এ হামলায় বেশ কয়েকজন আহত হন বলে দেশটির গণমাধ্যমের খবরে জানানো হয়েছে। ইউরোপীয় ইউনিয়নের বিভিন্ন দেশের কূটনীতিকরা ওই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরা বলছে, সৌদি আরবের জেদ্দা শহরের একটি অমুসলিম সমাধিক্ষেত্রে বোমা বিস্ফোরণে অন্তত চারজন আহত হয়েছেন। ফ্রান্সের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলছে, ইউরোপীয় কূটনীতিকদের উপস্থিতিতে জেদ্দায় আয়োজিত প্রথম বিশ্বযুদ্ধের অবসানের স্মরণ অনুষ্ঠানে বোমা হামলা হয়েছে। ফরাসি এই মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, জেদ্দায় একটি অমুসলিম সমাধিক্ষেত্রে প্রথম বিশ্বযুদ্ধের অবসানের স্মরণে প্রত্যেক বছর অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। ফ্রান্সসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের কনস্যুলেট এই অনুষ্ঠানে অংশ নেন। বুধবার সকালের দিকে এই স্মরণ অনুষ্ঠানে আইইডি (ইম্প্রোভাইজড এক্সপ্লোসিভ ডিভাইস) হামলা হয়েছে; যাতে বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। ফ্রান্স এই কাপুরুষোচিত ও অযৌক্তিক হামলার কড়া নিন্দা জানায়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক গ্রিসের এক কনস্যুলেট কর্মকর্তা জেদ্দায় বোমা হামলার তথ্য নিশ্চিত করেন। ওই কর্মকর্তা বলেন, জেদ্দায় অমুসলিম সমাধিক্ষেত্রে একটি বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। বিস্ফোরণে চারজন সামান্য হয়েছেন; তাদের মধ্যে একজন গ্রিসের নাগরিক। এ বিস্ফোরণের ব্যাপারে বিস্তারিত কোনও তথ্য দেননি তিনি।

আন্তর্জাতিক পাতার আরো খবর