আলাস্কায় শক্তিশালী ভূমিকম্পের প্রভাবে সুনামি
২০,অক্টোবর,মঙ্গলবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: যুক্তরাষ্ট্রের আলাস্কা উপকূলে শক্তিশালী ভূমিকম্প আঘাত হেনেছে। রিখটার স্কেলে ভূমিকম্পের মাত্রা ছিল ৭ দশমিক ৫। ভূমিকম্পের প্রভাবে সেখানে ছোট আকারের সুনামিও আঘাত হেনেছে। খবর এএফপির। স্থানীয় সময় সোমবার ভূমিকম্পটি আঘাত হেনেছে বলে জানানো হয়েছে। তবে তাৎক্ষণিকভাবে ওই ভূমিকম্প থেকে কোনো ক্ষয়ক্ষতি বা হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ওশেনিক অ্যান্ড অ্যাটমোসফেরিক অ্যাডমিনিসট্রেশন জানিয়েছে, ভূমিকম্পের প্রভাবে ছোট আকারের সুনামি ওয়েভ বা জলোচ্ছ্বাস দেখা দিয়েছে। ইতোমধ্যেই স্থানীয় বাসিন্দাদের নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রে দক্ষিণ উপকূলে সুনামির প্রভাব দেখা গেছে বলে জানানো হয়েছে। ভূমিকম্প আঘাত হানার পর ঘন বসতিপূর্ণ আলাস্কায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। স্যান্ড পন্ড শহরের কাছে দুই ফুট উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসের রেকর্ড হয়েছে। ওই এলাকাটি ভূমিকম্পের উপকেন্দ্র থেকে ৬০ মাইল দূরে অবস্থিত। ভূমিকম্পটির গভীরতা ছিল ২৫ মাইল (৪০ কিলোমিটার) মার্কিন ভূতাত্ত্বিক জরিপ জানিয়েছে, ভূমিকম্পটি থেকে হতাহতের সম্ভাবনা খুবই কম। তবে শক্তিশালী ওই ভূমিকম্পের পর কমপক্ষে আরও পাঁচটি আফটার শক (পরাঘাত) অনুভূত হয়েছে। এগুলোর মাত্রা ৫ বা তার কিছুটা বেশি। আলাস্কা প্রশান্ত মহাসাগরীয় রিং অব ফায়ারে অবস্থিত হওয়ায় সেখানে প্রায়ই ছোট-বড় ভূমিকম্প আঘাত হানে। এর আগে প্রায় তিন মাস আগে ওই একই এলাকায় ৭ দশমিক ৮ মাত্রার আরও একটি ভূমিকম্প আঘাত হেনেছে। ওই অঙ্গরাজ্যে সবচেয়ে শক্তিশালী ভূমিকম্পটি আঘাত হেনেছিল ১৯৬৪ সালে। এর মাত্রা ছিল ৯ দশমিক ২। ওই ভূমিকম্পের আঘাতে আড়াই শতাধিকের বেশি মানুষ প্রাণ হারিয়েছে। ভূমিকম্পের প্রভাবে সুনামিও আঘাত হানে।
এবার ইসরায়েলের সঙ্গে আনুষ্ঠানিক সম্পর্ক স্থাপন করল বাহরাইন
১৯,অক্টোবর,সোমবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: আরব আমিরাতের পর এবার ইসরায়েলের সঙ্গে আনুষ্ঠানিকভাবে সম্পর্ক স্থাপন করল বাহরাইন। বাহরাইনের রাজধানী মানামায় যুক্তরাষ্ট্র এবং ইসরায়েলি প্রতিনিধি দলের উপস্থিতিতে দু'দেশের মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে। খবর বিবিসি, আল জাজিরা। রোববার যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যস্থতায় কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনে চুক্তি স্বাক্ষর করেছে বাহরাইন ও ইসরায়েল। ১৯৪৮ সালে ইসরায়েল প্রতিষ্ঠার পর কয়েক দশক ধরেই বেশিরভাগ আরব রাষ্ট্র ইসরায়েলকে বয়কট করে আসছে। ফিলিস্তিনের সঙ্গে বিরোধ নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত কোন দেশই কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করবে না বলে জানাচ্ছিল। কিন্তু ইসরায়েলের সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষরের মাধ্যমে সংযুক্ত আরব আমিরাত, মিসর, জর্ডান এবং বাহরাইন ইসরায়েলকে স্বীকৃত দিল। ফিলিস্তিনিরা এই কূটনৈতিক পদক্ষেপের নিন্দা জানিয়ে বলছে, এটা তাদের পিঠে ছুরি মারার শামিল। রোববার সন্ধ্যায় মানামায় এক অনুষ্ঠানে বাহরাইন ও ইসরায়েলের কর্মকর্তারা পূর্ণ কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের লক্ষ্যে একটি যৌথ চুক্তিপত্রে স্বাক্ষর করেন। এখন দুই দেশেই দূতাবাস খোলার বিষয়ে একমত প্রকাশ করেছে। ইসরায়েলি গণমাধ্যম জানিয়েছে যে, ওই নথিতে ইসরায়েল-ফিলিস্তিন সংঘর্ষ নিয়ে কোনো কিছু উল্লেখ ছিল না। চুক্তি স্বাক্ষরের পরে বাহরাইনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবদুল লতিফ বিন রশিদ আল-জায়ানি এক বক্তব্যে বলেন, তিনি দু'দেশের মধ্যে প্রতিটি ক্ষেত্রে ফলপ্রসূ দ্বিপক্ষীয় সহযোগিতা প্রত্যাশা করছেন। তিনি ফিলিস্তিনি সংঘাতের অবসানে দ্বি-রাষ্ট্রীয় সমাধানসহ এই অঞ্চলে শান্তি প্রতিষ্ঠারও আহ্বান জানান। বাহরাইনের আন্তর্জাতিক ডায়ালিং কোডের সাথে মিল রেখে ইসরায়েলি দল ইআইএআই ফ্লাইট ৯৭৩ নম্বরে সফর করেছে। তবে মানামায় আসার জন্য সৌদি আরব অতিক্রম করার কারণে তাদেরকে ওই দেশটির বিশেষ অনুমতি নিতে হয়েছে। যদিও ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করার ব্যাপারে এ পর্যন্ত যতো আহ্বান এসেছে, তার সবই প্রত্যাখ্যান করে আসছেন সৌদি নেতারা। এই কূটনীতিতে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে আঞ্চলিক বৈরিতা একটি ভূমিকা রেখেছে ধর্মীয় বিভাজনের কারণে। অর্থাৎ শিয়া মুসলিম শাসিত ইরানের সাথে সুন্নি মুসলিম শাসিত সৌদি আরবের সম্পর্ক গত এক দশকে আরও বৈরী হয়েছে। সংযুক্ত আরব আমিরাত এবং বাহরাইন এই দুই দেশই সৌদি আরবের মিত্র। এর আগে নানা অনানুষ্ঠানিক যোগাযোগের সময় এই দুই দেশ ইরানকে নিয়ে তাদের উদ্বেগের বিষয়টি ইসরায়েলের কাছে প্রকাশ করেছে। ইসরায়েলের প্রতিনিধিদের সঙ্গে মার্কিন অর্থমন্ত্রী স্টিভ মুচিনও উপস্থিত ছিলেন। মঙ্গলবার সংযুক্ত আরব আমিরাতে ইসরায়েলের প্রথম প্রতিনিধি দলের সাথেও তার যাওয়ার কথা রয়েছে। ফিলিস্তিনি নেতারা এই ঘোষণায় রীতিমত অবাক হয়েছেন বলে জানা গেছে। তারা সংযুক্ত আরব আমিরাতের সাথে ইসরায়েলের ওই চুক্তি এবং পরবর্তীতে বাহরাইনের সাথে ইসরায়েলের চুক্তির নিন্দা জানিয়েছে। গত মাসে যখন এই চুক্তির ঘোষণা দেওয়া হয়েছিল, তখনই বাহরাইন থেকে রাষ্ট্রদূত প্রত্যাহার করে নিয়েছিল ফিলিস্তিন। সেসময় ফিলিস্তিনের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছিল, এটি ফিলিস্তিনি জনগণের জাতীয় অধিকার এবং যৌথ আরব পদক্ষেপের জন্য বড় ক্ষতি।
করোনা : কারফিউয়ে জনমানবশূন্য ফ্রান্সের সড়ক
১৮,অক্টোবর,রবিবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: প্রাণঘাতী নভেল করোনাভাইরাসের পুনরুত্থানের লাগাম টানতে কারফিউ জারি করায় ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিস-সহ দেশটির অন্য ৮টি শহরের রাস্তা যেন জনমানবশূন্য মরুভূমিতে পরিণত হয়েছে। শনিবার রাত থেকে এই কারফিউ বলবৎ হওয়ায় ভূতুড়ে নগরীতে পরিণত হয়েছে ফ্রান্সের ৯টি শহর। ফ্রান্সে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ দ্বিতীয় দফায় বৃদ্ধি পাওয়ায় দেশটির সরকার বিতর্কিত রাত্রিকালীন কারফিউ জারির সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ইউরোপের দেশগুলোর মধ্যে করোনার অন্যতম হটস্পট হয়ে উঠছে ফ্রান্স। বসন্তে দুই মাসের লকডাউনে ব্যবসা-বাণিজ্য ধুঁকছে বলে দেশটির রেস্টুরেন্ট মালিকরা অভিযোগ করেছেন। এদিকে, করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ধাক্কা মোকাবিলায় ইউরোপের আরেক দেশ ইতালি নতুন করে বিধি-নিষেধ আরোপ করছে। করোনার প্রথম ঢেউয়ে ইউরোপের দেশগুলোর মধ্যে ইতালিই সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। শনিবার দেশটিতে দৈনিক রেকর্ডসংখ্যক করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিস, মার্সেলে, লিয়ন, লিলি এবং তুলোসসহ অন্যান্য শহরের প্রায় ২ কোটি মানুষ কারফিউয়ের আওতায় এসেছেন। প্রত্যেকদিন রাত ৯টা থেকে সকাল ৬টা পর্যন্ত এই কারফিউ বলবৎ থাকবে। দেশটির প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ বলেছেন, হাসপাতালগুলোর ওপর চাপ তৈরির ঝুঁকি এড়াতে কারফিউয়ের প্রয়োজন। কিন্তু দেশটিতে ব্যবসা-বাণিজ্যের ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে বলে অনেকেই উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। প্যারিসে ইতালীয় রেস্টুরেন্ট বায়ানকোর ব্যবস্থাপক স্টেফানো আনসেলমো ব্রিটিশ বার্তাসংস্থা রয়টার্সকে বলেন, রেস্টুরেন্টের কর্মচারীরা নিশ্চিতভাবেই চাকরি হারাবেন। এটা এক ধরনের দুর্যোগ। ফ্রান্সের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বলছে, শনিবার দেশটিতে রেকর্ড ৩২ হাজার ৪২৭ জন নতুন করে করোনা সংক্রমিত হয়েছেন। আগের দিন ২৫ হাজার ৮৬ জনের করোনা শনাক্ত হয়। গত বছরের ডিসেম্বরে চীনে উৎপত্তি হওয়া করোনাভাইরাসে ফ্রান্সে এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ৮ লাখ ৬৭ হাজারের বেশি মানুষ এবং মারা গেছেন ৩৩ হাজারের বেশি। দ্বিতীয় দফায় সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় দেশটির চিকিৎসা ব্যবস্থার ওপর মারাত্মক চাপ তৈরির শঙ্কা দেখা দিয়েছে। প্যারিস ও অন্যান্য শহরের হাসপাতালগুলোর নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রগুলোতে (আইসিইউ) করোনা রোগীর সংখ্যা গত কয়েকদিন ধরে তুলনামূলক বাড়ছে।
কলকাতায় বহুতল ভবনে ভয়াবহ আগুন, নিহত ২
১৭,অক্টোবর,শনিবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: কলকাতা একটি বহুতল ভবনে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড ঘটেছে। এতে এপর্যন্ত অন্তত দুইজন নিহত হয়েছেন। ছাদ থেকে লাফ দিয়ে আহত হয়েছেন আরও এক কিশোর। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, স্থানীয় সময় শুক্রবার রাত ১১টার দিকে গণেশচন্দ্র অ্যাভিনিউর একটি আটতলা বাড়িতে আগুন লাগে। দ্রুতই বেশ কয়েকটি তলায় সেই আগুন ছড়িয়ে পড়ে। এসময় আতঙ্কে চিৎকার করতে থাকেন বাসিন্দারা। প্রাথমিকভাবে ভবনের বাসিন্দা ও স্থানীয়রা আগুন নেভানোর চেষ্টা করেন। এসময় প্রাণভয়ে ভবন থেকে বেরিয়ে আসার চেষ্টা করেন অনেকে। খবর পেয়ে দমকল বাহিনী এসে আগুন নেভানোর কাজ শুরু করে। ভবনের ওপরের দিকে অনেকে আটকে পড়ায় নিয়ে আসা হয় হাইড্রোলিক ল্যাডার। তবে এর মধ্যেই ধোঁয়ায় দম বন্ধ হয়ে দুজনের মৃত্যু হয়। এদের মধ্যে একজন বৃদ্ধাও রয়েছেন। এদিকে, আগুনের ভয়ে ছাদ থেকে লাফ দিয়ে গুরুতর আহত হয়েছেন এক কিশোর। তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। দমকল কর্মীরা জানিয়েছেন, ভবনের একতলার মিটার বক্স থেকে আগুনের সূত্রপাত হয় বলে ধারণা করা হচ্ছে। প্রাথমিকভাবে স্থানীয় বাসিন্দা এবং পরে দমকল, বিপর্যয় মোকাবিলা দপ্তর ও পুলিশের সাহায্যে ভেতরে আটকে পড়া বাসিন্দাদের বের করে আনা হয়েছে। তবে প্রাণে বাঁচলেও অনেকেই তাদের সর্বস্ব হারিয়েছেন। আপাতত তাদের সাহায্য করছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।
দুবাই ভ্রমণে বাংলাদেশসহ ৫ দেশের যাত্রীদের জন্য নতুন নিয়ম
১৬,অক্টোবর,শুক্রবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: দুবাই ভ্রমণে বাংলাদেশসহ ৫ দেশের ট্যুরিস্ট ভিসাধারীদের জন্য সংশ্লিষ্ট বিমান সংস্থা ও ট্রাভেল এজেন্টদের নতুন নিয়ম চালুর নির্দেশ দেয়া হয়েছে। গাল্ফ নিউজের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে বিমানবন্দরে প্রবেশের নিয়ম না মানায় গত মঙ্গলবার পর্যন্ত শতাধিক ভারতীয় ও পাকিস্তানি নাগরিক দুবাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আটকে পড়েন। পরে তাদেরকে নিজ নিজ দেশে ফেরত পাঠানো হয়। এরপর বিমান সংস্থা ও ট্রাভেল এজেন্টদের এই নতুন নিয়ম জারির নির্দেশনা দেয় কর্তৃপক্ষ। সংশ্লিষ্ট বিমান সংস্থা ও ট্রাভেল এজেন্টরা বলছে, কর্তৃপক্ষের সর্বশেষ নির্দেশ অনুযায়ী বাংলাদেশ, পাকিস্তান, ভারত, আফগানিস্তান ও নেপাল থেকে আসা ট্যুরিস্ট ভিসাধারীদের দুবাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ও মাকতুম আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে প্রবেশের জন্য অবশ্যই বৈধ রাউন্ড ট্রিপ (আসা-যাওয়া) টিকিট সঙ্গে রাখতে হবে। এয়ারলাইন্স কোম্পানিগুলোকে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, এই পাঁচ দেশ থেকে ট্যুরিস্ট ভিসায় আসা যেসব যাত্রীর কাছে ফিরতি টিকিট থাকবে না, তাদেরকে ফেরত পাঠানো হবে। আর তাদের ফেরত পাঠানোর ব্যয় বহন করতে হবে এয়ারলাইন্সগুলোকেই। ট্রাভেল এজেন্টরা জানিয়েছে, এসব দেশের ট্যুরিস্ট ভিসার যাত্রীদের কাছে অন্তত দুই হাজার দিরহাম থাকতে হবে বলেও তাদেরকে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। এয়ার ইন্ডিয়া এক্সপ্রেস জানিয়েছে, দুবাই ভ্রমণে ট্যুরিস্ট ভিসাধারীদের অবশ্যই ফিরতি টিকিট সঙ্গে রাখতে হবে। এদিকে ইন্ডিগো জানিয়েছে, যেসব যাত্রীর কাছে ফিরতি টিকিট থাকবে না তাদেরকে বিমানবন্দরে ঢুকতে দেয়া হবে না। এছাড়া তারা নিজেদের অর্থে বিমানবন্দর ত্যাগ করবে। ট্রাভেল এজেন্টগুলো বলছে, তাদেরকেও এ ব্যাপারে অবহিত করা হয়েছে। সেই সঙ্গে বলা হয়েছে, দুবাই ভ্রমণে ট্যুরিস্ট ভিসাধারীদের কাছে যেন অন্তত ২ হাজার দিরহাম করে থাকে।
কাশ্মীরের মর্যাদা ফেরাতে মেহবুবা-ফারুকের জোট গঠন
১৬,অক্টোবর,শুক্রবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: এক বছরের বেশি সময় গৃহবন্দি থাকার পর সম্প্রতি মুক্তি পেয়েছেন ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি। এর মধ্যে জম্মু-কাশ্মীরে রাজনীতির চাকা গড়াতে শুরু করেছে। ৩৭০ ধারা ফেরাতে পিডিপি, এনসি ও অন্যান্য কয়েকটি বড় দল নিয়ে পিপলস অ্যালায়েন্স ফর গুপকার ডিক্লারেশন নামে একটি জোট গঠন করেছেন মেহবুবা মুফতি ও ন্যাশনাল কনফারেন্সের প্রেসিডেন্ট ফারুক আবদুল্লাহ। ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ফারুক আবদুল্লাহর বাড়িতে এ নিয়ে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এতে পিপলস ডেমোক্রেটিক পার্টির (পিডিপি) প্রেসিডেন্ট মেহবুবা মুফতি, পিপলস কনফারেন্সের চেয়ারম্যান সাজ্জাদ লোন, পিপলস মুভমেন্টের নেতা জাভেদ মির ও সিপিএমের মহম্মদ ইউসুফ তারিগামি উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকের পর ফারুক বলেন, একটি জোট গঠনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এই জোট কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা ফেরানোর চেষ্টা করবে। বৈঠকে জম্মু-কাশ্মীর কংগ্রেস প্রধান গুলাম মির শারীরিক অসুস্থতার কারণে আসতে পারেননি। গত বছরের আগস্টে ৩৭০ ধারা বিলুপ্তির সঙ্গে সঙ্গে বিশেষ মর্যাদা হারায় কাশ্মীর। এ ঘটনার ঠিক আগে আগে রাজ্যের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি, ওমর আবদুল্লাসহ একাধিক স্থানীয় নেতানেত্রীকে আটক করে সরকার। পরে তাদের গৃহবন্দি করে রাখা হয়। ৩৭০ ধারা বাতিলের পর মেহবুবাকে প্রথমে দুটি সরকারি বাসস্থানে আট মাস গৃহবন্দি করে রাখা হয়। তারপর চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে তাকে ফের আটক করা হয়। পরে তার বাসভবন ফেয়ার ভিউয়ে স্থানান্তরিত করা হয়। সেই বাসভবনকেই অস্থায়ী জেলে পরিণত করা হয় এবং সেখানেই গৃহবন্দি করে রাখা হয় এই নেত্রীকে।
তাইওয়ান প্রণালীতে মার্কিন যুদ্ধজাহাজ, সতর্ক করল চীন
১৫,অক্টোবর,বৃহস্পতিবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: তাইওয়ান প্রণালীতে মার্কিন যুদ্ধজাহাজের উপস্থিতির জেরে যুক্তরাষ্ট্রকে পরিণতির ব্যাপারে সতর্ক করে দিয়েছে চীন। যদিও মার্কিন সামরিক বাহিনী যুদ্ধজাহাজের তাইওয়ান প্রণালী পেরিয়ে যাওয়ার ঘটনাকে নিয়মিত যাত্রা বলে দাবি করেছে। কিন্তু এতে ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠা চীন সতর্ক করে দিয়ে বলেছে, তাইওয়ান প্রণালীতে ঝামেলা তৈরি করতে পারে এমন কর্মকাণ্ড থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে বিরত থাকতে বলা হচ্ছে। তাইওয়ান প্রণালী এবং এর আশপাশের এলাকার একচ্ছত্র মালিকানা দাবি করে চীন। গত কয়েক মাসে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য, হংকংয়ের উত্তপ্ত রাজনৈতিক পরিস্থিতিসহ আরও বেশ কিছু বিষয় নিয়ে ওয়াশিংটনের সঙ্গে বেইজিংয়ের সম্পর্ক তলানিতে ঠেকেছে। স্ব-শাসিত তাইওয়ানও এ দুই দেশের দীর্ঘদিনের উত্তেজনার অন্যতম উৎস। মার্কিন প্রশান্ত মহাসাগরীয় সামরিক বহরের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, গত ১৪ অক্টোবর ক্ষেপণাস্ত্র বিধ্বংসী যুদ্ধজাহাজ ইউএসএস ব্যারি তাইওয়ান প্রণালী অতিক্রম করেছে। এই যুদ্ধজাহাজের তাইওয়ান প্রণালী অতিক্রম সেখানে অবাধ এবং উন্মুক্ত ইন্দো-প্যাসিফিকের প্রতি মার্কিন প্রতিশ্রুতির প্রদর্শন করে। বিবৃতিতে বলা হয়, মার্কিন নৌ-বাহিনী আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী যেকোনও স্থানে উড্ডয়ন, যাত্রা এবং কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারে। তাইওয়ান প্রণালীতে মার্কিন নৌবাহিনীর যেকোনও ধরনের সামরিক উপস্থিতি চীনকে প্রচণ্ড ক্ষুব্ধ করে তোলে। স্বশাসিত দ্বীপ তাইওয়ানকে নিজেদের অবিচ্ছেদ্য ভূখণ্ড হিসেবে মনে করে চীন। তাইওয়ান প্রণালীতে মার্কিন সামরিক বাহিনীর যুদ্ধজাহাজ ইউএসএস ব্যারির যাত্রা আকাশ এবং সমুদ্রপথ থেকে শনাক্ত করেছে চীনা পিপলস লিবারেশন আর্মি। চীনের সামরিক বাহিনীর পূর্বাঞ্চলীয় থিয়েটার কমান্ডের মুখপাত্র কর্নেল ঝ্যাং চুনহুই এক বিবৃতিতে কড়া হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেছেন, তাইওয়ান প্রণালীতে ঝামেলা তৈরি করে; যুক্তরাষ্ট্রের এমন যেকোনও ধরনের কর্মকাণ্ড এবং কথা বন্ধ রাখতে সতর্ক করা হচ্ছে। ১৯৪৯ সালে চীনে গৃহযুদ্ধের অবসানের পর থেকে পৃথকভাবে শাসিত হয়ে আসছে তাইওয়ান। স্বশাসিত এই দ্বীপের নিজস্ব পতাকা, মুদ্রা এবং সামরিক বাহিনী রয়েছে। কিন্তু জাতিসংঘ তাইওয়ানকে এখন পর্যন্ত স্বাধীন রাষ্ট্রের স্বীকৃতি দেয়নি। ১৯৭৯ সালে তাইপের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করে ওয়াশিংটন; সে সময় চীনের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়নের লক্ষ্যে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সম্পর্ক ছিন্ন করলেও এই দ্বীপ ভূখণ্ডের শক্তিশালী মিত্র এবং প্রধান অস্ত্র সরবরাহকারী হিসেবে থেকে যায় যুক্তরাষ্ট্র।
সৌদি ক্রাউন প্রিন্স-পুতিনের ফোনালাপ
১৪,অক্টোবর,বুধবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সৌদির ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান এবং রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ফোনে আলাপ করেছেন। সৌদি প্রেস এজেন্সি এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে। টেলিফোনে আলাপকালে তারা বর্তমান বিশ্বে তেলের বাজারের অবস্থা, বৈশ্বিক অর্থনীতির প্রসার ঘটাতে স্থিতিশীলতা এবং ভারসাম্য অর্জন ও তা বজায় রাখার জন্য প্রচেষ্টার বিষয়ে আলোচনা করেছেন। তেল উৎপাদনের শীর্ষে থাকা দেশগুলোর মধ্যে সহযোগিতার সম্পর্ক চালিয়ে যাওয়ার বিষয়ে একমত প্রকাশ করেছে সৌদি ও রাশিয়া। তারা ওপেক প্লাস চুক্তির প্রতি সম্মতি জ্ঞাপন করেছেন। কারণ এর মাধ্যমে উৎপাদক এবং গ্রাহক উভয় পক্ষই উপকৃত হবে। এর আগেও পুতিন এবং ক্রাউন প্রিন্সের মধ্যে ফোনে আলাপ হয়েছে। গত এপ্রিলে তেল রফতানিকারক দেশগুলোর সংগঠন ওপেক-এর সম্মেলন শুরুর প্রাক্কালে পুতিনকে ফোন করেন মোহাম্মদ বিন সালমান। ওই ফোনালাপ বেশ তিক্তই ছিল বলা চলে। এরপর থেকেই বিশ্বের দুই শীর্ষ তেল রফতানিকারক দেশ সৌদি আরব ও রাশিয়ার মধ্যে তেলের দাম নিয়ে ভয়াবহ প্রতিযোগিতা শুরু হয়। এ নিয়ে সে সময় একটি বিশেষ প্রতিবেদন প্রকাশ করে মধ্যপ্রাচ্য বিষয়ক সংবাদ মাধ্যম মিডল ইস্ট আই। ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল যে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের জামাতা জেয়ার্ড কুশনারের পরামর্শেই পুতিনের সঙ্গে ফোনে আলাপ করেছিলেন মোহাম্মদ বিন সালমান। তবে এখন আর পুতিন এবং ক্রাউন প্রিন্সের মধ্যে সেই তিক্ত সম্পর্ক বিরাজ করছে না। বরং সাম্প্রতিক সময়ে দু'জনের এই ফোনালাপ বেশ ইতিবাচক বলেই উল্লেখ করা হয়েছে।
তুরস্কে মদ্যপানে ৪৪ জনের মৃত্যু
১৩,অক্টোবর,মঙ্গলবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: তুরস্কে অবৈধ উপায়ে বাসায় তৈরি মদ্যপানের পর বিষক্রিয়ায় অন্তত ৪৪ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। গত এক সপ্তাহে দেশটির বিভিন্ন প্রান্তে মদ্যপানে এই প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে বলে রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমের খবরে জানানো হয়েছে। রাষ্ট্রীয় সম্প্রচারমাধ্যম টিআরটি বলছে, মদ্যপানে প্রথম প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে দেশটির পশ্চিমাঞ্চলীয় ইজমির প্রদেশে। মদ্যপানের পর বিষক্রিয়ায় গত শুক্রবার এই অঞ্চলে অন্তত ১৮ জন মারা যান। তুরস্কের আরও অন্তত সাতটি প্রদেশের বিভিন্ন এলাকায় বাকিদের প্রাণ গেছে। পুলিশ বলছে, অবৈধ উপায়ে মদ তৈরি এবং বিক্রির দায়ে গত চারদিনে পুলিশ অন্তত ৫৮ জনকে গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে সাতজনের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের হয়েছে। দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় বলছে, মৃতদের মধ্যে কয়েকজন মাদকযুক্ত কিছু পরিষ্কারক ব্যবহার করে বাসায় পানীয় তৈরি করে পান করেছেন বলে সন্দেহ করছে পুলিশ। তুরস্কের ইসলামপন্থী ক্ষমতাসীন একে পার্টি দেশটিতে মদের ওপর উচ্চ শুল্ক আরোপ করেছে। দেশটিতে ব্যাপক জনপ্রিয় মৌরির স্বাদযুক্ত পানীয় রাকির ওপর গত এক দশকে ৪৪৩ শতাংশ ও বিয়ারে ৩৬৫ শতাংশ শুল্ক বৃদ্ধি করা হয়েছে। ৭০ ঘন-সেন্টিমিটারের একটি রাকির বোতলের দাম প্রায় ২২ মার্কিন ডলার; এর ওপর শুল্ক আরোপ করা হয়েছে প্রকৃত মূল্যের চেয়ে ২৩৪ শতাংশ বেশি।

আন্তর্জাতিক পাতার আরো খবর