চসিক প্রশাসক সুজনকে নাছিরের অভিনন্দন
০৫আগস্ট,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) নবনিযুক্ত প্রশাসক খোরশেদ আলম সুজনকে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানিয়েছেন বিদায়ী মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। করোনার কারণে স্থগিত চসিক নির্বাচন না হওয়া পর্যন্ত নতুন প্রশাসক দায়িত্ব পালন করবেন। আজ বুধবার নতুন প্রশাসক দায়িত্বভার গ্রহণ করবেন। মঙ্গলবার চসিকের বাজেট ঘোষণা অনুষ্ঠানে এবং নিজের ফেসবুক পেজে এই অভিনন্দন বার্তা পোস্ট করেন আ জ ম নাছির উদ্দীন। অভিনন্দনে নাছির উদ্দীন লেখেন, চট্টগ্রামের রাজপথের লড়াই সংগ্রামের দীর্ঘ দিনের পরীক্ষিত সৈনিক, স্বৈরাচার সাম্প্রদায়িকতা বিরোধী আন্দোলনের অন্যতম সংগঠক, চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি খোরশেদ আলম সুজনকে চসিকের প্রশাসক পদে নিয়োগ দেওয়ায় বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে চট্টগ্রামবাসীর পক্ষ থেকে সালাম, শুভেচ্ছা ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। অভিনন্দন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের নবনিযুক্ত প্রশাসক খোরশেদ আলম সুজন। অনেক অনেক শুভ কামনা রইলো। ছাত্রজীবন থেকে ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত খোরশেদ আলম সুজন ছাত্রলীগ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারণ সম্পাদক, পরে সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। ছাত্রলীগের বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালনের পর তিনি আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে আসেন। চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পদে থাকার পর বর্তমান কমিটির সহসভাপতি তিনি। দীর্ঘ বছর ধরে ছাত্রলীগ ও আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত খোরশেদ আলম সুজন চসিকের স্থগিত হওয়া নির্বাচনে মেয়র পদে দলীয় মনোনয়ন চেয়েছিলেন। বর্তমান মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনসহ আরো বেশ কজনও মেয়র পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চান। তবে শেষ পর্যন্ত দল থেকে মনোনয়ন পান মহানগর আওয়ামী লীগের প্রথম যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এম রেজাউল করিম চৌধুরী। সুজন ২০০৮ সালের নির্বাচনে চট্টগ্রামের বন্দর পতেঙ্গা আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছিলেন। পরে মনোনয়ন পরিবর্তন করে সেখানে এম এ লতিফকে দল থেকে প্রার্থী করা হয়। এরপর বিভিন্ন সংসদ নির্বাচনের পাশাপাশি চসিকের একাধিক নির্বাচনে নিজ দল আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন চেয়ে আসছিলেন সুজন।
ঈদুল আজহা উপলক্ষে বিরোধীদলীয় নেতার শুভেচ্ছা
৩০জুলাই,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে দেশবাসীসহ বিশ্বের সব মুসলিমদের আন্তরিক শুভেচ্ছা জানিয়েছেন জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ। বৃহস্পতিবার (৩০ জুলাই) গণমাধ্যমে পাঠানো এক বাণীতে তিনি এ শুভেচ্ছা জানান। শুভেচ্ছা বাণীতে বিরোধীদলীয় নেতা বলেন, আল্লাহর প্রতি গভীর আনুগত্য ও সর্বোচ্চ ত্যাগের মহিমায় ভাস্বর পবিত্র ঈদুল আজহা। মহান আল্লাহর নির্দেশে স্বীয় পুত্র ইসমাইল (আ.)কে কোরবানি করতে উদ্যত হয়ে হযরত ইব্রাহিম (আ.) আল্লাহর প্রতি অগাধ ভালবাসা, অবিচল আনুগত্য ও আকুণ্ঠ আত্মত্যাগের যে সুমহান দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন তা অতুলনীয়। তিনি আরও বলেন, ব্যক্তি ও সমাজ জীবনে কোরবানির শিক্ষা সঠিকভাবে কাজে লাগাতে পারলে জাতীয় উন্নয়ন ত্বারন্বিত হবে। রওশন এরশাদ বলেন, ঈদুল আজহা এবার একটু ভিন্নভাবে পালিত হচ্ছে। করোনা ভাইরাস আমাদের মধ্যে মহাবিপর্যয় হিসেবে দেখা দিয়েছে। মহান ত্যাগের মহিমায় সবাইকে মহামারি প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে নির্দেশনাগুলো মেনে নিজে সুস্থ থাকতে এবং সবাইকে সুস্থ রাখতে নিরাপদ সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ঈদুল আজহা উদযাপনের আহ্বান জানান তিনি।
গলাবাজির রাজনীতি করছে বিএনপি: কাদের
২৪,জুলাই,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: নির্বাচন ও আন্দোলনে জনগণ থেকে প্রত্যাখ্যাত বিএনপির নেতারা অপরাজনীতির অন্ধকার গিরিখাদে দিকভ্রান্ত পথহারা পথিকের মতো প্রলাপ করছেন বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। নিজেদের দুর্বলতা ঢাকতে বিএনপি প্রেস ব্রিফিং নির্ভর গলাবাজির রাজনীতি করছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি। শুক্রবার (২৪ জুলাই) ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে আয়োজিত করোনা প্রতিরোধ সামগ্রী ও বন্যাকবলিত জেলাগুলোতে ত্রাণ বিতরণ অনুষ্ঠানে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যুক্ত হয়ে এ মন্তব্য করেন মন্ত্রী। নিজের সরকারি বাসভবন থেকে ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপ-কমিটি আয়োজিত অনুষ্ঠানে যোগ দেন তিনি। ওবায়দুল কাদের বলেন, নিজেদের দুর্বলতা ঢাকতে সরকারের বিরুদ্ধে বিষোদগার ও চাতুর্যপূর্ণ কথামালা ব্যবহার করে প্রেস ব্রিফিং নির্ভর গলাবাজির রাজনীতি করছে বিএনপি। তিনি বলেন, গলাবাজির দিনশেষ, ডিজিটাল বাংলাদেশে জনগণ এখন অনেক সচেতন। জনগণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রতি আস্থাশীল। জনগণ জানে বৈশ্বিক মহামারি ও দুর্যোগ পরিস্থিতি মোকাবিলা ও পরবর্তী অর্থনৈতিক গতিশীলতা পুনরুদ্ধারে শেখ হাসিনার কোনো বিকল্প নেই। করোনার এ সঙ্কটে মানুষের জীবন জীবিকা সচল রাখতে খাদ্যের অভাবে মানুষের যেনো কষ্ট না হয় সেজন্য প্রধানমন্ত্রী একের পর এক জনকল্যাণমুখী পদক্ষেপ নিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দুর্যোগ মোকাবিলায় অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে বাংলাদেশ এখন অনেক শক্তিশালী। সেতুমন্ত্রী বলেন, বিদেশগামী নাগরিকদের জন্য নমুনা পরীক্ষা করে করোনার সনদ সংগ্রহ বাধ্যতামূলক। এজন্য সরকার নমুনা পরীক্ষার কেন্দ্র সুনির্দিষ্ট করে দিয়েছে। এক্ষেত্রে ৭২ ঘণ্টা আগে নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছে। এসময় আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী বলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকুক আর না থাকুক দেশের যেকোনো সঙ্কট ও দুর্যোগে অসহায় মানুষের পাশে থাকে। আর এটাই আওয়ামী লীগের ঐতিহ্য। কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক বলেন, দেশের এ সঙ্কটে বিএনপির কোনো কার্যক্রমে নেই। প্রেস ব্রিফিং করা ছাড়া তাদের আর কিছুই করার নেই। এসময় অনুষ্ঠানে ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, স্বাস্থ্যবিষয়ক সম্পাদক ডা. রোকেয়া সুলতানা, শ্রম বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান সিরাজ ও উপ-দপ্তর সম্পাদক সায়েম খান উপস্থিত ছিলেন।- বাংলা নিউজ
রাজনীতিতে দুর্বৃত্তায়নের বিরুদ্ধে সকল নেতা-কর্মীদের সোচ্চার হওয়ার আহ্বান
১৪,জুলাই,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: আওয়ামী লীগ সভাপতি ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা এমপির নির্দেশক্রমে রাজনীতিতে দুর্বৃত্তায়নের বিরুদ্ধে সকল নেতা-কর্মীদের সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ। এ সময় কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ বলেন, বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা এমপি দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স ঘোষণা করেছেন। দুর্নীতিবাজ ও দুর্বৃত্তায়নের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে এবং রাজনীতিতে দুর্বৃত্তায়নকে যারা পৃষ্ঠপোষকতা করবে তাদের বিরুদ্ধেও কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। আজ বিকেল ৪টায় আওয়ামী লীগ সভাপতি জননেত্রী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক অনির্ধারিত বৈঠক থেকে এ আহ্বান জানানো হয়। বৈঠকে বগুড়া-১ ও যশোর-৬ আসনের উপ-নির্বাচন পর্যবেক্ষণ ও সার্বিক খোঁজ-খবর নেন। বৈঠকে প্রতিকূল আবহাওয়া ও করোনাজনিত নানা সমস্যাকে জয় করে নির্বাচনে ভোটদানকারী সকল ভোটার ও সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠানে সংশ্লিষ্ট সকলকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে ধন্যবাদ জানানো হয়। বৈঠকে ১৫ আগস্ট সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাতবার্ষিকী উপলেক্ষে আওয়ামী লীগের কর্মসূচি সম্পর্কে বিস্তারিত আলাপ-আলোচনা হয় এবং ৫ আগস্ট শহীদ শেখ কামালের জন্মিদন ও ৮ আগস্ট বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিব-এর জন্মদিনের কর্মসূচি সম্পর্কে বিস্তারিত আলাপ-আলোচনা হয়। ওয়ান-ইলেভেন সরকারের মাইনাস টু ফর্মুলা বাস্তবায়নে ২০০৭ সালের ১৬ জুলাই আওয়ামী লীগ-এর সভাপতি বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা এমপি'কে গ্রেফতার করা হয়, দিনটি স্মরণে আগামী ১৬ জুলাই জননেত্রী শেখ হাসিনার কারাবন্ধি দিবস উপলক্ষে আওয়ামী লীগ সভাপতির কার্যালয়ে সীমিত পরিসরে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে আলোচনা অনুষ্ঠানের সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ-এর সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আ. ফ. ম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক বি এম মোজাম্মেল হক, এস. এম কামাল হোসেন, মির্জা আজম এমপি, অ্যাডভোকেট আফজাল হোসেন, শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল, উপ-দপ্তর সম্পাদক সায়েম খান, কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য সাহাবুদ্দিন ফরাজী প্রমুখ।
বিএনপির মুখে দুর্নীতির বিরুদ্ধে কথা বলা হাস্যকর : ওবায়দুল কাদের
০৬জুলাই,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপির মুখে দুর্নীতির বিরুদ্ধে কথা বলা হাস্যকর। সাধারণ মানুষ মনে করে দুর্নীতি আর বিএনপি সমার্থক। তিনি বলেন, বিএনপির মুখে দুর্নীতির বিরুদ্ধে কথা বলা হাস্যকর। দুর্নীতিতে পর-পর পাঁচ বার বিশ্ব চ্যাম্পিয়নের দল বিএনপি, লুটপাটের জন্যই জণগণের কাছে বার-বার প্রত্যাখ্যাত হয়েছে। দুর্নীতি আর বিএনপি সমার্থক বলেই মানুষ মনে করে। ওবায়দুল কাদের আজ সোমবার সংসদ ভবনের সরকারি বাসভবন থেকে এক অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন। করোনা সংকটে বিএনপি নেতারা আজগবী তথ্য সরবরাহ করে জনমনে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে দাবি করে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দুর্নীতি বিরোধী অবস্থান এবং প্রতিনিয়ত সততায় দেশ-বিদেশে সমাদ্রিত ও প্রসংশিত। দুর্নীতিবাজ যেই হোক দলীয় পরিচয়ের হলেও তাকেও ছাড় দেয়া হচ্ছে না, এটাই হলো বাস্তবতা। তিনি বলেন, করোনাভাইরাসের সংকটে দায়িত্বশীল আচরণ না করে বিএনপি তাদের চিরাচরিত নালিশের রাজনীতি আঁকড়ে ধরেছে এবং এই করোনাভাইরাসের সংকটকালে আজগবী সব তথ্য দিয়ে জনমনে বিভ্রান্তি তৈরি করছে। আর অন্ধকারে ঢিল ছুড়ছে অভিরাম। ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএপির কথা শুনে মনে হয়, পূর্ণিমার রাতেও তারা অমাবশ্যার অন্ধকার দেখতে পান। বিএনপিকে বিভাজন ও বৈরিতার রাজনীতি পরিহার করে মানুষ বাঁচানো ও করোনাভাইরাসের প্রতিরোধের লড়াইয়ে আবারও সহযোগিতার আহ্বান জানাচ্ছি। করোনাভাইরাসের মহামারিতে নেয়া পদক্ষেপের কথা তুলে ধরে সড়ক পরিবহন মন্ত্রী বলেন, বৈশ্বিক করোনাভাইরাসের সংকটের শুরু থেকে সরকার সবাইকে নিয়ে সমন্বিত ভাবে কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে। এখন প্রায় ৭৩টি কেন্দ্রে করোনাভাইরাসের পরীক্ষা হচ্ছে। দিন-দিন সক্ষমতা বাড়ছে, কেন্দ্র থেকে উপজেলা পর্যায়ে পর্যন্ত পরীক্ষার সুযোগ বৃদ্ধি করা হয়েছে। জেলা পর্যায়ে কোভিড-১৯ হাসপাতাল প্রস্তুত করা হয়েছে। উপজেলা পর্যায়ে প্রস্তুতি রয়েছে। তিনি বলেন, সরকার যদি অদক্ষ বা অযোগ্য হতো তবে এ সময়ে এমন ব্যবস্থা কি নিতে পারতো? এই পর্যন্ত ৭২ হাজার ৬ শত ২৫জন করোনাভাইরাসের রোগী সুস্থ হয়েছেন। সুস্থতার হার শতকরা ৪৪ দশমিক ৭২ ভাগ এবং মৃত্যুর হার শতকরা ১ দশমিক ২৬। মৃত্যুর এই হার যে কোন দেশের তুলনায় কম। ইউরোপ আমেরিকা এমন কি প্রতিবেশি দেশ ভারতে থেকে এখানে অনেক কম। যদিও সরকার একটি মৃত্যুও প্রত্যাশা করে না। ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি শুধু মৃত্যুর সংখ্যা নিয়ে কথা বলে, অথচ এত সংখ্যক লোক সুস্থ হচ্ছে এটা তাদের চোখে পড়ছে না। তাদের (বিএনপি) দৃষ্টিভঙ্গি যে নেতিবাচক এটাই তার প্রমান। সরকারের সমন্বিত পদক্ষেপে দক্ষতার সঙ্গে পরিস্থিতি মোকাবিলা করছে দাবি করে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, ইতোমধ্যে ২হাজার ডাক্তার ৫ হাজার নার্স নিয়োগ দেয়া হয়েছে। ২ হাজার মেডিকেল টেকনোলজিস্ট নিয়োগের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। পরীক্ষা কেন্দ্র দিন দিন বাড়ানো হচ্ছে। সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি পর্যায়ে এখন পরীক্ষা করানো হচ্ছে। বেসরকারী হাসপাতালগুলোকে সম্পৃক্ত করা হচ্ছে। তিনি বলেন, বিশ্বের অনেক দেশই নিজেদের সামর্থ দিয়ে করোনাভাইরাসের মোকাবিলায় হিমশিম খাচ্ছে। বহু দেশ নানা সীমাবদ্ধতার মধ্যে তাদের স্বাস্থ্য কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। সরকার সীমাবদ্ধতা নিয়েও করোনাভাইরাসের সংকট মোকাবিলার সর্বাত্মক প্রয়াস অব্যাহত রেখেছে। দিন-দিন শেখ হাসিনা সরকার সুরক্ষা সামগ্রী বাড়াচ্ছে, ভেন্টিলেশন ব্যবস্থা ও ডাক্তার সংখ্যা বৃদ্ধি করছে। সরকারের সমন্বিত দক্ষতার কারণে এসব করা সম্ভব হচ্ছে। অথচ বিএনপির কার্যক্রম শুধু বিবৃতিরে মধ্যেই সীমাবদ্ধ।
করোনা সংক্রমণ রোধ ও মানুষ বাঁচানোই এখন আওয়ামী লীগের একমাত্র রাজনীতি : ওবায়দুল কাদের
২৫,জুন,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধ ও মানুষ বাঁচানোই হচ্ছে এখন আওয়ামী লীগের একমাত্র রাজনীতি। তিনি বলেন, দেশের এই সংকটকালে সরকার ও আওয়ামী লীগ কোনো রাজনীতি করছে না। করোনার সংক্রমণ রোধ ও মানুষ বাঁচানোই হচ্ছে এখন একমাত্র রাজনীতি। ওবায়দুল কাদের আজ বুধবার তাঁর সংসদ ভবনস্থ সরকারি বাসভবনে সমসাময়িক বিষয় নিয়ে আয়োজিত এক আনলাইন সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এক বক্তব্যের জবাবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, বিএনপি মহাসচিব বরাবরের মতো সরকারের বিরুদ্ধে বিরূপ সমালোচনা করতে গিয়ে বিরাজনীতি করণের অভিযোগ এনেছেন। এ সংকটকালে সরকার তো কোন রাজনীতি করছে না? এমন কি আওয়ামী লীগও এসময়ে কোন রাজনৈতিক কার্যক্রম করছে না। তিনি বলেন, যদি কোন রাজনৈতিক দল দেশের স্বার্থে ভালো পরামর্শ দিতে চায়, সেটা সরকার গ্রহণ করবে। কোন ভুল হলে ভুল সংশোধন করার সৎ সাহস সরকারের রয়েছে। সরকারের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে বিএনপির মহাসচিবের এমন বক্তব্যের জবাবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, প্রকৃতপক্ষে নেতিবাচক ও অন্ধ সমালোচনা নির্ভর রাজনীতির জন্য বিএনপিরই পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। বক্তৃতা, বিবৃতির মাধমে সরকারের সমালোচনা করা ছাড়া বিএনপির এখন আর কোন রাজনীতি নেই। অসহায় মানুষ থেকে তাদের অবস্থান এখন যোজন যোজন দূরে। ওবায়দুল কাদের বলেন, দেশের সরকারি ও অনেক বেসরকারি হাসপাতালগুলো যখন করোনা আক্রান্ত রোগীদের সেবাদানে সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে। ফ্রন্টলাইনে কর্মরত যোদ্ধারা জীবন বাজী রেখে কাজ করছেন। তখন কিছু হাসপাতাল-ক্লিনিক যে কোনো সাধারণ সেবায় গেলেও বাধ্যতামূলক করোনা টেস্ট করানোর কথা বলছে, কিংবা করোনা রিপোর্ট ছাড়া চিকিৎসা দিচ্ছেন না। এমনকি কোনো কোনো হাসপাতাল রোগী ভর্তি না করার জন্য নানান ছলচাতুরী আশ্রয় নিচ্ছে, এ মুহূর্তে এটা সমীচীন নয়। তিনি বলেন, আবার করোনা টেস্টের ক্ষেত্রে কোনো কোনো প্রতিষ্ঠান স্মার্ট এবং দ্রুত সেবা দিলেও কারো কারো বিরুদ্ধে কিছু অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। একদিকে টেস্টের সিরিয়াল পেতে সময় লাগে অন্যদিকে নমুনা দেবার পর রেজাল্ট পেতে লাগছে কয়েক দিন। অহেতুক এসময়ক্ষেপণে রোগী ও তার আত্মীয় স্বজনরা যেমন উদ্বিগ্ন হচ্ছে, তেমনি মনোবল হারানোর পরিস্থিতি তৈরি হচ্ছে। আবার অনেকে মৃত্যুর মুখেও পতিত হচ্ছেন। এসকল প্রতিষ্ঠানকে স্বল্প সময়ে রিপোর্টদান এবং নমুনা সংগ্রহের সমন্বয় বাড়ানোর পাশাপাশি সেবার মান বাড়ানোর আহ্বান জানচ্ছি। বেসরকারি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে মানবিক হওয়ার আহ্বান জানিয়ে সড়ক পরিবহন মন্ত্রী বলেন, কিছু বেসরকারি হাসপাতাল যারা মানুষের অসহায়ত্ব নিয়ে বাণিজ্য করছে। তাদের এব্যাপারে সর্তক হওয়া উচিত। এ দুর্যোগে মানবিক হওয়া উচিত। অযৌক্তিক, অপ্রয়োজনীয় পরীক্ষা নিরীক্ষা পরিহার করে সঠিক সেবা দান করুন। জটিল রোগীদের তাৎক্ষণিক সেবা প্রদান দেরি হলে তা মৃত্যুর ঝুঁকিতে পতিত হবে। রাজনৈতিক দলগুলোকে নিয়ে যারা সমন্বয়ের কথা বলেন তাদের উদ্দেশ্যে ওবায়দুল কাদের পাল্টা প্রশ্ন রেখে বলেন, পৃথিবীর কোথাও কি এমন নজীর আছে? করোনা প্রতিরোধে চিকিৎসা সেবা প্রদান রাজনীতিবীদের কাজ নয়, যাদের দরকার, সেসব বিশেষজ্ঞদের নিয়ে কমিটি করা হয়েছে, তাদের মতামত নিয়েই সিদ্ধান্ত প্রদান করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী জানান, বর্তমানে ৬৬টি পরীক্ষাগারে করোনা পরীক্ষা করা হচ্ছে। সরকার পর্যায়ক্রমে প্রতিটি জেলায় নমুনা পরীক্ষার সুবিধা বাড়ানোর উদ্যোগ নিয়েছে। ওবায়দুল কাদের আশা প্রকাশ করে বলেন, ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ হয়ে জাতি যেমনি লক্ষ্য অর্জন করেছে, তেমনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে পারস্পরিক সহমর্মিতা,ত্যাগ ও স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালনের মাধ্যমে উত্তরনের পথে জাতি এগিয়ে যাবে।
বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে স্বাধীনতা, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নয়ন
২৪,জুন,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও উন্নয়নে আওয়ামী লীগের অবদান, ত্যাগের কথা তুলে ধরে দলটির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশারফ হোসেন বলেছেন, আওয়ামী লীগের নেতৃত্বই বঙ্গবন্ধু এ দেশ স্বাধীন করেছেন, নিয়েছেন নানান পদক্ষেপ। আর তারই কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশকে উন্নয়নের উচ্চ শিখরে নিয়ে যাচ্ছেন। মঙ্গলবার (২৩ জুন) রাতে আওয়ামী লীগের ৭১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে দলটির গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশনের (সিআরআই) আয়োজিত বিশেষ ওয়েবিনার গণমানুষের দল আওয়ামী লীগের ৭১ বছর শীর্ষক আলোচনা সভায় একথা বলেন তিনি। অনলাইনে অনুষ্ঠিত এ আলোচনা সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী, লে. কর্নেল (অবসরপ্রাপ্ত) মুহাম্মদ ফারুক খান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক ও জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক অজয় দাশগুপ্ত। ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন বলেন, ১৯৪৮ সালে বঙ্গবন্ধুর হাত ধরেই ভাষা আন্দোলন শুরু হয়। বঙ্গবন্ধু সারা জীবন এ দেশ ও দেশের মানুষের জন্য লড়াই-সংগ্রাম করেছেন, চৌদ্দ বছর জেল খেটেছেন বাংলাদেশের মুক্তির সংগ্রামের জন্য। তিনি যখন ছয় দফা দেন তখন বাংলাদেশে অনেক নেতা ছিল যারা ছয় দফাকে সমর্থন করেননি। অথচ এই ছয় দফা বাংলার মানুষের মুক্তির সনদ হিসেবে চিহ্নিত হয় এবং এই ছয় দফার ভিক্তিতেই ঊনসত্তরের গণঅভ্যুথান হয় এবং সত্তরের নির্বাচনে জয় পান। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তারই কন্যা শেখ হাসিনার অবদানের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের নেতৃত্বই বঙ্গবন্ধু এ দেশ স্বাধীন করেছেন, নিয়েছেন নানান পদক্ষেপ। আর তারই কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশকে উন্নয়নের উচ্চ শিখরে নিয়ে যাচ্ছেন। সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ফারুক খান বলেন, বঙ্গবন্ধু এ দেশ স্বাধীন করে দেশকে উন্নত করতে বহু কাজ করে গেছেন। আর বঙ্গবন্ধুকন্যার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সরকার ২০৪১ সালে বাংলাদেশ উন্নত রাষ্ট্র হবে বলে বিশ্বাস করি। বাংলাদেশ যা কিছু অর্জন করেছে সেটা বঙ্গবন্ধুর মতো নেতা ছিল বলে, আজকেব জননেত্রী শেখ হাসিনা আছেন বলেই আজ বিশ্বে বাংলাদেশ রোল মডেল। অনুষ্ঠানে দলের সর্বস্তরের নেতাকর্মী ও শুভানুধ্যায়ীদের আওয়ামী লীগের ৭১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর শুভেচ্ছা জানান দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। ভার্চ্যুয়াল এ আলোচনা সভা সঞ্চালনা করেন সাংবাদিক সুভাষ সিংহ রায়।
তারুণ্যের প্রত্যাশায় আ লীগ প্রচারিত হবে ২২ জুন
২১,জুন,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ৭১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বিশেষ ওয়েবিনার- তারুণ্যের প্রত্যাশায় আওয়ামী লীগ প্রচারিত হবে আগামী ২২ জুন (সোমবার) রাত ৮টা ৩০ মিনিটে। অনুষ্ঠানটি সরাসরি প্রচারিত হবে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অফিশিয়াল ফেসবুক পেজ এবং ইউটিউব চ্যানেলে এছাড়াও ইত্তেফাক, বিডিনিউজ২৪, দৈনিক সমকাল এবং সময় টিভির ফেসবুক পেজ এবং বিজয় টিভির পর্দায় সরাসরি প্রচারিত হবে এই অনুষ্ঠান। আলোচক হিসেবে যুক্ত হবেন আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. শাম্মী আহমেদ, তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক ড. সেলিম মাহমুদ, দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাইদ আল মাহমুদ স্বপন, সাংগঠনিক সদম্পাদক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য গোলাম কবির রাব্বানী চিনু এবং মারুফা আক্তার পপি। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করবেন প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ব্যারিস্টার শাহ আলি ফরহাদ।
এরশাদের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকীতে জাপার কর্মসূচি
১৮জুন,বৃহস্পতিবার,রাজনীতি ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চলতি বছরের আগামী ১৪ জুলাই জাতীয় পার্টির (জাপা) প্রতিষ্ঠাতা হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী। দিনটি উপলক্ষে দলটি করোনা বৈশ্বিক পরিস্থিতির কারণে স্বাস্থ্যবিধি মেনে কর্মসূচি পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে জাপা। বৃহস্পতিবার (১৮ জুন) জাপা থেকে পাঠানো এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। এতে বলা হয়, পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের দলের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী পালনের জন্য পার্টির মহাসচিব মো. মসিউর রহমান রাঙ্গাকে আহ্বায়ক এবং প্রেসিডিয়াম সদস্য ও অতিরিক্ত মহাসচিব শামীম হায়দার পাটোয়ারীকে সদস্য সচিব করে একটি কমিটি গঠন করে দিয়েছেন। তারা এই কমিটিতে প্রয়োজনীয় সংখ্যক সদস্য অন্তর্ভুক্ত করবেন। ১৪ জুলাই কর্মসূচিতে থাকছে: সারাদেশে জাপার সব কার্যালয়ে দলীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা, সব দলীয় কার্যালয়ে সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত কোরআন তেলাওয়াত, বিকেলে প্রতিটি কার্যালয়ে পল্লীবন্ধু এরশাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে দোয়া মাহফিল এবং আলোচনা সভা এবং কেন্দ্রীয়ভাবে পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের এমপির নেতৃত্বে পার্টির সিনিয়র নেতাদের সকাল ১০টায় রংপুরে পল্লীবন্ধুর কবর জিয়ারত করবেন এবং বিকেলে পার্টির কাকরাইলস্থ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে পল্লীবন্ধুর আত্মার মাগফিরাত কামনায় দোয়া মাহফিল অনষ্ঠিত হবে। এছাড়া এরশাদের অনেক দিনের স্মৃতি বিজড়িত বনানীস্থল পার্টির চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে দিনব্যাপী কোরআন তেলাওয়াত এবং দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে।

রাজনীতি পাতার আরো খবর