সোমবার, আগস্ট ২, ২০২১
দক্ষ নেতৃত্বের অভাবে বিরোধী দলগুলো জনগণের আস্থা অর্জনে ব্যর্থ হয়েছে : প্রধানমন্ত্রী
৩১,জানুয়ারী,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: গণতন্ত্রের জন্য শক্তিশালী বিরোধী দল থাকা জরুরি উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দক্ষ নেতৃত্বের অভাবে বিরোধী দলগুলো জনগণের আস্থা অর্জনে ব্যর্থ হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী বলেন,এখন বিরোধী দল বলে যে দলগুলো রয়েছে তাঁদের নেতৃত্ব সেভাবে নেই বলে জনগণের আস্থা ও বিশ^াসটা তারা অর্জন করতে পারেনি। কিন্তু গণতন্ত্রের জন্য শক্তিশালী বিরোধী দল অবশ্যই দরকার। এতে কোন সন্দেহ নেই। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর নামে একটি ওয়েবসাইট উদ্বোধন এবং জাতির পিতার ভাষণের ডিজিটাল সংকলন প্রকাশ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে একথা বলেন। তিনি আজ বেলা সাড়ে ১১ টায় জাতীয় সংসদ সচিবালয় আয়োজিত- মুজিববর্ষের কার্যক্রম মুজিববর্ষ ওয়েবসাইট ২০২০-২১ এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অডিও ভাষণের ডিজিটাল সংকলনের উদ্বোধন করেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের দেশে গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত রাখার ক্ষেত্রে সংসদের ভূমিকা রয়েছে। কারণ, সংসদ এমন একটা জায়গা, যেখানে জনপ্রতিনিধিরা আসেন এবং জনগণের কথা বলার সুযোগ পান। সংসদের বিরোধী দলে থাকাকালিন তাঁদের কি ধরনের সমস্যার মোকাবেলা করতে হয়েছে সে সবের অভিজ্ঞতা তাঁর দল এবং তাঁর নিজের রয়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন,যে কারণে আমরা কিন্তু আর সে ধরনের সমস্যার সৃষ্টি করিনা। স্পীকার ড.শিরীন শারমিন চৌধূরী এবং সংসদ সদস্য নাবিল আহমেদও অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন। চীফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী লিটন এ সময় মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগকে জাতির পিতা তীল তীল করে গড়ে তুলেছিলেন এবং এই দলের যখন সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন তখন দলকে সুসংঘটিত করার জন্য মন্ত্রীত্ব ত্যাগ করেন । প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতার দীর্ঘদিনের একটা লালিত স্বপ্ন ছিল, একদিন এই বাঙালিদের একটি জাতি হিসেবে স্বাতন্ত্রতা দেবেন এবং স্বতন্ত্র রাষ্ট্র করে দেবেন। তিনি তা করেও ছিলেন। কিন্তু জাতির দুর্ভাগ্য তাঁকে সপরিবারে হত্যা করা হয়। তিনি বলেন, জাতির পিতার অসমাপ্ত কাজ সম্পন্ন করে বাঙালির অর্থনৈতিক মুক্তি আনয়নের মাধ্যমে তাঁদের মুখে হাসি ফোটানোর লক্ষ্য নিয়েই তাঁর সরকার ও দল কাজ করে যাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী ২০২০ সাল উদযাপন উপলক্ষ্যে আমরা যেসব কর্মসূচি নিয়েছি সে সবই জাতির জন্য গুরুত্বপূর্ণ। এ উপলক্ষ্যে বৃক্ষ রোপন এবং সংসদের বিশেষ অধিবেশন আয়োজন উল্লেখযোগ্য। তিনি বলেন, আজকে মুজিববর্ষে ওয়েবসাইট চালু করা হলো। তাছাড়া ডাকটিকেট অবমুক্ত করা হয়েছে। সেইসাথে বঙ্গবন্ধুর ভাষণগুলো নিয়ে এখানে সংকলন প্রকাশিত হয়েছে। শেখ হাসিনা বলেন, স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে তাঁর সরকার আরো কিছু কর্মসূচি নিয়েছে। করোনাপরিস্থিতির উন্নয়ন হলে সেসব কর্মসূচি বিস্তারিত ভাবে করা সম্ভব হবে। আর তাই মুজিববর্ষের কর্মসূচি তাঁর সরকার ২০২১ সালের ১৬ ডিসেম্বর, আমাদের বিজয় দিবস পর্যন্ত অব্যাহত রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সুষ্ঠুভাবে সংসদ পরিচলনার জন্য স্পীকারকে ধন্যবাদ জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন,আপনি অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে নিরপেক্ষভাবে এই সংসদকে পরিচালনা করছেন। যে কারণে আমাদের সংসদের ভাবমূর্তি আজ আন্তর্জাতিকভাবেও বৃদ্ধি পেয়েছে। তিনি বারবার নির্বাচিত করায় জনগণের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, আমরা চাই দেশে গতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত থাকুক এবং জাতির জন্য আমরা কাজ করার সুযোগ পাই।
সিনিয়র সচিব হলেন দুই জন
৩১,জানুয়ারী,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: আরও দুজন সচিবকে সিনিয়র সচিব হিসেবে পদোন্নতি দিয়েছে সরকার। রোববার (৩১ জানুয়ারি) জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে এ বিষয়ে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। এই দুই কর্মকর্তাকে আগের কর্মস্থলেই সিনিয়র সচিব হিসেবে পদায়ন করা হয়েছে। সিনিয়র সচিব পদে পদোন্নতি পাওয়া দুই কর্মকর্তা হলেন- সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিব মো. শহিদুজ্জামান ও কৃষি সচিব মো. মেসবাহুল ইসলাম। আগামী ৪ ফেব্রুয়ারি থেকে শহিদুজ্জামানের এবং ২ ফেব্রুয়ারি থেকে মো. মেসবাহুল ইসলামের এই পদোন্নতির আদেশ কার্যকর হবে। এই দুজনের পদোন্নতির ফলে প্রশাসনে সিনিয়র সচিবের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ১৩ জনে। সিনিয়র সচিবদের পদমর্যাদা মন্ত্রিপরিষদ সচিব ও সচিবদের মাঝামাঝি। ২০১২ সালের ৯ জানুয়ারি তৎকালীন মহাজোট সরকার প্রশাসনে প্রথমবারের মতো সিনিয়র সচিব পদটি চালু করে।
বাংলাদেশের প্রশংসা করে জাতিসংঘ মহাসচিবের চিঠি
৩১,জানুয়ারী,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: মিয়ানমারে নৃশংসতা ও নিপীড়ন থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা জনগণকে আশ্রয় দেয়ায় বাংলাদেশের প্রতি গভীর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস। সম্প্রতি পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনকে লেখা এক চিঠিতে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন তিনি। এর আগে জাতিসংঘ আশ্বাস দিয়েছিল, রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের টেকসই প্রত্যাবর্তনের জন্য অনুকূল পরিবেশ তৈরিতে মিয়ানমারের সাথে আলোচনা চালিয়ে যাবেন তারা। মহাসচিব সে প্রতিশ্রুতি পুনর্ব্যক্ত করে জানান, জাতিসংঘ সম্মিলিতভাবে সংকট নিরসনে বাংলাদেশের পাশে থাকবে এবং আন্তর্জাতিক সহায়তা জোরদার করবে। জাতিসংঘ মহাসচিব তার অফিসের কার্যক্রমকে সমর্থন করার জন্য বাংলাদেশ সরকারকে ধন্যবাদ জানান। পাশাপাশি রোহিঙ্গা সঙ্কটের টেকসই সমাধানের জন্য আরও আন্তর্জাতিক সহায়তার লক্ষ্যে মিয়ানমারে তার বিশেষ দূতের সাথে বাংলাদেশের অব্যাহত সহযোগিতা কামনা করেছেন। এর আগে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেনের নতুন বছরের শুভেচ্ছা জানিয়ে তাকে চিঠি দিয়েছিলেন। সেখানে রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন শুরু ও টেকসই পরিকল্পনা গ্রহণের জন্য জাতিসংঘকে আহ্বান জানিয়েছিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। তার জবাবে পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে এ চিঠি পাঠান জাতিসংঘ মহাসচিব।
মার্চ-এপ্রিলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা হতে পারে: প্রধানমন্ত্রী
৩০,জানুয়ারী,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনা পরিস্থিতি বিবেচনা করে আগামী মার্চ বা এপ্রিলে সীমিত পরিসরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হতে পারে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শনিবার (৩০ জানুয়ারি) বেলা পৌনে ১১টায় এইচএসসির ফল প্রকাশ অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। রাজধানীর সেগুনবাগিচায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে ফল প্রকাশ করা হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে অনলাইনে অনুষ্ঠানে যুক্ত হয়ে ফল প্রকাশের কার্যক্রম উদ্বোধন করেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, অসহায় পরিস্থিতির কারণে পরীক্ষা ছাড়ায় ফল ঘোষণা করতে হয়েছে। বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ অনুযায়ী এভাবে ফল প্রকাশ করা হয়েছে। শেখ হাসিনা বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ হয়েছে বলেই ঘরে বসে পড়াশোনা চালিয়ে যেতে পারছে শিক্ষার্থীরা। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলেও ক্লাস চলেছে।
সহযোগিতার সম্পর্ক জোরদার করবে ঢাকা-দিল্লি
৩০,জানুয়ারী,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে সহযোগিতার সম্পর্ক জোরদার করতে একমত হয়েছে ঢাকা-দিল্লি। শুক্রবার দিল্লিতে বাংলাদেশ-ভারতের পররাষ্ট্র সচিব পর্যায়ের বৈঠকে এ বিষয়ে উভয়পক্ষ একমত হয়। এতে বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেন পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন। আর ভারতের প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেন দেশটির পররাষ্ট্র সচিব হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা। বৈঠকে বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী, দুই দেশের কূটনৈতিক সম্পর্কের ৫০ বছর ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে সহযোগিতার সম্পর্ক জোরদারে উভয়পক্ষ সম্মত হয়েছে। বৈঠকে আগামী মার্চে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বাংলাদেশ সফরের প্রস্তুতি নিয়ে আলোচনা হয়েছে। এছাড়া দুই দেশের মধ্যে কোভিড ভ্যাকসিন, বাণিজ্য, কানেক্টিটিভিটি, বিদ্যুৎ-জ্বালানি, পানি বণ্টন ইত্যাদি বিষয়ে সহযোগিতা নিয়ে আলোচনা হয়। উভয়পক্ষ আগামী মার্চে ভারতের প্রধানমন্ত্রীর ঢাকা সফরের আগে স্বরাষ্ট্র, বাণিজ্য এবং পানিসম্পদ সচিবদের বৈঠকের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন চারদিনের সফরে বৃহস্পতিবার সকালে দিল্লি গেছেন। আগামী ২৬ মার্চ স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ঢাকা সফর চূড়ান্তের বিষয়টি এবারের দিল্লি সফরে প্রাধান্য পায়।
তৃতীয় দফায় ভাসানচরের পথে ১৭৭৮ রোহিঙ্গা
২৯,জানুয়ারী,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: কক্সবাজারের উখিয়া ও কুতুপালং ক্যাম্প থেকে চট্টগ্রাম হয়ে তৃতীয় দফায় রোহিঙ্গাদের নিয়ে নোয়াখালীর ভাসানচরে পথে রওনা হয়েছে চারটি জাহাজ। এই দলটিতে রয়েছেন ১ হাজার ৭৭৮ জন রোহিঙ্গা। শুক্রবার (২৯ জানুয়ারি) সকাল ৯টার দিকে চট্টগ্রামের পতেঙ্গা থেকে জাহাজগুলো রোহিঙ্গাদের নিয়ে যাত্রা শুরু করে। এর আগে, ভাসানচরে নিয়ে যাওয়ার জন্য বৃহস্পতিবার দুপুরে ওই রোহিঙ্গাদের উখিয়া ডিগ্রি কলেজ মাঠ থেকে বাসে করে চট্টগ্রামে নিয়ে আসা হয়েছিল। চট্টগ্রাম নৌ অঞ্চলের কমান্ডার রিয়ার অ্যাডমিরাল মো. মোজাম্মেল হক জানান, আরেকটি জাহাজে করে এই রোহিঙ্গাদের মালামাল নেয়া হচ্ছে। সাগর শান্ত আছে। বেলা সাড়ে ১১টা থেকে ১২টার মধ্যে তারা ভাসানচরে পৌঁছে যাবে। নিরাপত্তার জন্য নৌবাহিনী ও কোস্টগার্ডের দুটি জাহাজ ও চারটি স্পিডবোট রোহিঙ্গাদের বহনকারী জাহাজের সঙ্গে রয়েছে বলেও জানান তিনি।
নবনিযুক্ত মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে মোমেনের অভিনন্দন
২৯,জানুয়ারী,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: নবনিযুক্ত মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এন্থনি জন ব্লিনকেনকে অভিনন্দন জানিয়েছেন বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। মঙ্গলবার (২৬ জানুয়ারি) ব্লিনকেনের নিয়োগ নিশ্চিত করে মার্কিন সিনেট। আব্দুল মোমেন পত্রে মুজিববর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উৎসবে ব্লিনকেনকে বাংলাদেশ সফরে আসার জন্য আমন্ত্রণ জানান। বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী দুই দেশের নিরাপত্তাসহ শান্তি প্রতিষ্ঠা, উন্নয়ন ও অভীষ্ট লক্ষ্য অর্জনে একসঙ্গে কাজ করার আগ্রহও ব্যক্ত করেছেন। এছাড়াও আশা প্রকাশ করেন, আইনের শাসন ও বিচার প্রতিষ্ঠায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর খুনি রাশেদ চৌধুরীকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠাবে যুক্তরাষ্ট্র। পররাষ্ট্রমন্ত্রী রোহিঙ্গাদের বিষয়ে সমর্থন দেওয়ায় যুক্তরাষ্ট্রকে ধন্যবাদ জানিয়ে আশা ব্যক্ত করে বলেন, রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে আন্তর্জাতিক উদ্যোগে বাইডেন প্রশাসন আরও কার্যকরভাবে সম্পৃক্ত হবে।
এ বছর পর শেষ হচ্ছে পদ্মা সেতুর কাজ
২৮,জানুয়ারী,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: পদ্মা সেতুর পূর্ণাঙ্গ অবকাঠামো দৃশ্যমানের ৪৭ দিন পর সেতুর কাজে আরেক সাফল্য এসেছে। ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার সেতুর স্প্যানে বসানোর সড়ক ও রেলপথের সব স্ল্যাব তৈরির কাজ শেষ হয়েছে। দ্রুত এগিয়ে চলছে পদ্মা সেতুর পূর্ণাঙ্গ অবকাঠামো দৃশ্যমানের পর এখন সেতুর সড়ক ও রেলপথ তৈরির কাজ। স্প্যানে রাতদিন বসানো হচ্ছে স্ল্যাব। গত মঙ্গলবার রোডওয়ের স্ল্যাব তৈরি কাজও শেষ হয়েছে। এর আগে রেলের স্ল্যাব তৈরি সম্পন্ন হয়। আর তৈরি স্ল্যাবগুলো রাখা হচ্ছে মাওয়া প্রান্তের সংযোগ সেতুর শুরুর পয়েন্টের পাশে। সেখান থেকে নিয়েই সেতুতে বসানোর কাজ চলছে। পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের ফ্লিড ইঞ্জিনিয়ার মো. তারিকুল ইসলাম তারেক নিজেকে এ কাজে সম্পৃক্ত রাখতে পারায় নিজেকে গৌরবান্বিত মনে করেন। একের পর এক পদ্মা সেতুর সব বড় কাজ শেষ হচ্ছে। সব স্ল্যাব তৈরি সম্পন্ন হওয়ায় স্বপ্নের সেতুর অগ্রগতি আরেক ধাপ এগিয়ে গেল বলে মনে করেন পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের নির্বাহী প্রকৌশলী সৈয়দ রজব আলী ও পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের পিডি মো. সফিকুল ইসলাম। পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের পিডি মো. সফিকুল ইসলাম জানান, সেতুর কাজের জন্য স্থানীয় শ্রমিকও কম পাওয়া যাচ্ছে, করোনা সন্দেহজনক কাউকে রাখা হয় না প্রকল্পের কাজে। তবে আমাদের কাজের অগ্রগতি আছে। আশা করি, ২০২২ সালের মধ্যে শেষ হবে কাজ। পদ্মা সেতুর ওপর তলায় রোডওয়ে স্ল্যাবের কাজের অগ্রগতি ৫৬ ভাগ এবং নিচতলায় রেলওয়ে কাজের অগ্রগতি ৭৫ শতাংশ। মাওয়ার কুমারভোগ ইয়ার্ডে ২০১৮ সালের জানুযারিতে স্ল্যাব নির্মাণ শুরু হয়েছিল।
ভারতের টিকা পৃথিবীর সবচেয়ে নিরাপদ, দাবি সেব্রিনার
২৮,জানুয়ারী,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটে উৎপাদিত অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা কোভিড-১৯ টিকা পৃথিবীর সবচেয়ে নিরাপদ টিকা বলে দাবি করেছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. সেব্রিনা ফ্লোরা। বৃহস্পতিবার (২৮ জানুয়ারি) সকাল ১০টায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে টিকাদান কর্মসূচির উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি। ফ্লোরা বলেন, পৃথিবীতে করোনার যত টিকা আবিষ্কার হয়েছে সেগুলোর মধ্যে ভারতের (অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা) টিকা সবচেয়ে বেশি নিরাপদ। এটা প্রমাণিত, যে কোনো টিকার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হয়, মানুষকে সচেতন করতেই পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার কথা বলা হয়েছে। সুতরাং নির্ভয়ে এ টিকা নিতে পারেন দেশের মানুষ। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক আরও বলেন, যখন একজন চিকিৎসক টিকা নেন, তখন তার কমিউনিটি আগ্রহী হয়। একইভাবে যখন একজন সাংবাদিক টিকা নেবেন তার কমিউনিটিও আগ্রহী হবে এটি নিতে। সব পেশার লোকজন যদি টিকা নেন তখন তার কমিউনিটির অন্যরাও টিকা নিতে আগ্রহী হবেন। টিকা নিরাপদ হলে রাষ্ট্র ও সরকারপ্রধান এবং মন্ত্রিপরিষদ সদস্যরা নিচ্ছেন না কেন- এ প্রশ্নের জবাবে অধ্যাপক ফ্লোরা বলেন, আমার মনে হয়, তারা জনগণের কথা চিন্তা করেই পরে টিকা নেবেন। জনগণকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে টিকা দিচ্ছেন। জনগণের টিকা নেওয়া শেষ হলে রাষ্ট্র ও সরকারপ্রধান নেবেন। এর আগে সোমবার বিকেলে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে কোভিড-১৯ ভ্যাক্সিনেশন অনলাইন রেজিস্ট্রেশন বিষয়ক সংবাদ সম্মেলনে শিশু ও গর্ভবতী মা ছাড়া সবাই টিকা নিতে পারবেন বলে জানিয়েছিলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এ কর্মকর্তা। কোভিড হওয়ার চার সপ্তাহের মধ্যে টিকা নেওয়া যাবে না বলেও সর্তক করেন ওইদিন মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা। সকালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) টিকাদান কেন্দ্রে মন্ত্রিসভার প্রথম সদস্য হিসেবে করোনার টিকা দেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী (আইসিটি) জুনাইদ আহমেদ পলক। সকালে এ কেন্দ্রে প্রথমে টিকা নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়টির উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া বলেন, টিকা নেওয়াটা আমার সামাজিক, রাষ্ট্রীয় ও ব্যক্তিগত দায়িত্ব। আমাকে দেখে মানুষ আস্থা পাবে ও সাহস পাবে।

জাতীয় পাতার আরো খবর