বুধবার, ডিসেম্বর ৮, ২০২১
ট্রেনের টিকিট মিলবে অনলাইনে
২৩,মে,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: আগামীকাল (২৪ মে) সোমবার থেকে নতুন করে বিধিনিষেধের মেয়াদ বাড়লেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে অর্ধেক যাত্রী নিয়ে চলবে ট্রেন। এক আসন ফাঁকা রেখে এবং ৫০% টিকিট বিক্রি হবে। তবে কাউন্টারে কোনো টিকিট পাওয়া যাবে না। সব টিকিট বিক্রি হবে অনলাইনে। রোববার (২৩ মে) রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন রেল ভবনে বাংলাদেশ রেলওয়ের মধুখালী হতে কামারখালী হয়ে মাগুরা শহর পর্যন্ত নতুন রেললাইন নির্মাণ প্রকল্পের চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন। নুরুল ইসলাম সুজন বলেন, বর্তমানে আমাদের ১০৮টি আন্তঃনগর ট্রেন রয়েছে। এর মধ্যে ২৮ জোড়া তথা ৫৬টি ট্রেন চালাবো। টিকিট অনলাইন থেকে সংগ্রহ করতে হবে। সংক্রমণের কারণে কাউন্টারে কোনো টিকিট রাখা হয়নি। এছাড়া ১৮টি কমিউটার ট্রেন চালানো হবে। এদিকে ট্রেন চলাচলের ঘোষণা আসার পর যাত্রী পরিবহনে প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে বাংলাদেশ রেলওয়ে। সরকারি নির্দেশনা আসা মাত্রই রেলওয়ে ট্রেনে যাত্রী পরিবহন শুরু করবে। তার আগে রেলপথের বিভিন্ন সেকশনে যাত্রীবাহী ট্রেন পরীক্ষামূলকভাবে (ট্রায়াল রান) পরিচালনা করা হচ্ছে। বাংলাদেশ রেলওয়ের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পরিচালন) শাহাদাত আলী সরদার জানান, করোনা সংক্রমণ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সরকারি বিধিনিষেধ জারির পর গত ৫ এপ্রিল থেকে যাত্রীবাহী ট্রেন বন্ধ রয়েছে। কিন্তু আমাদের প্রস্তুতি আছে যেকোনো সময় যাত্রীবাহী ট্রেন যাত্রীসহ পরিচালনার জন্য। এরই অংশ হিসেবে ট্রেনগুলোর ট্রায়াল রান করা হচ্ছে নিয়মিত। নির্দেশনা পেলেই আমরা যেকোন সময় ট্রেনে যাত্রী পরিবহন শুরু করতে পারবো। বাংলাদেশ রেলওয়ের তথ্যানুসারে, রোববার রেলপথের বিভিন্ন অংশে যাত্রীবাহী ট্রেন পরিচালনা করা হবে। পাকশী বিভাগের অধীনেই ১৯টি ট্রেনের ট্রায়াল রান পরিচালনা করা হবে। এর মধ্যে সুন্দরবন এক্সপ্রেস, চিত্রা এক্সপ্রেস, কপোতাক্ষ এক্সপ্রেস, রূপসা এক্সপ্রেস খুলনা-নওয়াপাড়া খুলনা রেলপথে পরিচালনা করা হবে। বেনাপোল এক্সপ্রেস খুলনা-বেনাপোল-খুলনা রুটে পরিচালনা করা হবে। রাজশাহী-পোরাদহ রেলপথে চালানো হবে ধূমকেতু এক্সপ্রেস, সিল্কসিটি এক্সপ্রেস, বনলতা এক্সপ্রেস, তিতুমীর এক্সপ্রেস, মধুমতি এক্সপ্রেস, সাগরদাঁড়ি এক্সপ্রেস। অপরদিকে নীলসাগর, সীমান্ত ও বরেন্দ্র এক্সপ্রেস পরিচালনা করা হবে চিলাহাটি নীলফামারী রেলপথে। এছাড়া বাংলাবান্ধা এক্সপ্রেস ট্রেনটি পরিচালনা করা হবে বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম রেলস্টেশন থেকে রুহিয়া রেলপথে। টুঙ্গিপাড়া এক্সপ্রেস টুঙ্গিপাড়া-আব্দুল্লাহপুর রুটে চালানো হবে। ঢালারচর এক্সপ্রেস, সিরাজগঞ্জ এক্সপ্রেস ও রাজশাহী কমিউটার ঈশ্বরদী-আব্দুল্লাহপুর রুটে চালানো হবে।
দুর্যোগ ঝুঁকি প্রশমনে জনগণকে আরো বেশি সচেতন হতে হবে : প্রধানমন্ত্রী
২৩,মে,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: মানুষকে সুরক্ষা প্রদানে সম্ভব সবকিছুই সরকার করছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দুর্যোগ ঝুঁকি প্রশমনে প্রযুক্তির ব্যবহার জানমালের ক্ষয়ক্ষতি অনেকাংশে হ্রাস করলেও জনগণকে আরো বেশি সচেতন হতে হবে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, আর একটা ঘুর্ণিঝড় কিন্তু আসছে। আমরা আধুনিক প্রযুক্তির কারণে অনেক আগে থেকেই জানতে পারি। আর এসব বিষয়ে যথেষ্ট সতর্কতা আমরা ইতোমধ্যে নিতে শুরু করেছি। ইনশাল্লাহ আমরা সতর্ক থাকবো এবং ঝুঁকি হ্রাস করতে পারবো। তিনি বলেন, সরকার নানা প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় সর্বান্তকরণে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ঘুর্ণিঝড়, জলোচ্ছাস, বন্যা, টর্নেডো, বজ্রপাত, ভূমিধ্বস অথবা ভূমিকম্প, অগ্নিকান্ড সবকিছুতেই মানুষকে রক্ষা করা বা সুরক্ষিত রাখার জন্য যা যা করণীয় সে ব্যবস্থাগুলো আমরা করে যাচ্ছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ সকালে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের ২২৫টি স্থাপনার উদ্বোধন ও ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে একথা বলেন। তিনি গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনের মূল অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি অংশগ্রহণ করেন। প্রধানমন্ত্রী তাঁর ভাষণে জাতির পিতার ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ থেকে আমাদের কেউ দাবায়ে রাখতে পারবা না উদ্ধৃত করেন এবং বলেন, বাঙালিকে কেউ দাবায়ে রাখতে পারবে না, এটা আমরা বিশ^াস করি। শেখ হাসিনা বলেন, সঠিক দিক নির্দেশনা, সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য, আদর্শ নিয়ে চললে বাংলাদেশের মানুষকে কেউ কখনও দাবিয়ে রাখতে পারবে না। সেভাবেই দেশকে গড়ার জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়ে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি। এ প্রসঙ্গে তিনি করেনাভাইরাস সম্পর্কে সকলকে পুণরায় সতর্ক করে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান পূণর্ব্যক্ত করে বলেন, সকলে মিলে এই দুর্যোগকেও আমরা প্রতিহত সক্ষম হব, ইনশাল্লাহ। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমানের সভাপতিত্বে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোহসীন স্বাগত বক্তৃতা করেন। অনুষ্ঠানে দেশের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার ওপর একটি ভিডিও চিত্র ও প্রদর্শিত হয়। গণভবন থেকে মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন।
বিধিনিষেধ বাড়লো ৩০শে মে পর্যন্ত, দূরপাল্লার গণপরিবহন চলাচলের অনুমতি
২৩,মে,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনার সংক্রমণ ও মৃত্যু ঠেকাতে চলমান বিধিনিষেধের মেয়াদ আরও সাতদিন বাড়িয়ে ৩০শে মে পর্যন্ত করেছে সরকার। একইসঙ্গে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ২৪ শে মে থেকে আন্তঃজেলায় সব ধরনের গণপরিবহন চলাচলের অনুমতি দেয়া হয়েছে। হোটেল-রেস্তুরাঁয় আসন সংখ্যার অর্ধেক মানুষ বসে খাওয়ারও অনুমতি দেয়া হয়েছে। আজ রোববার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এক প্রজ্ঞাপনে এ তথ্য জানানো হয়। উল্লেখ্য, গত মাসের শুরুতে করোনার সংক্রমণ ও মৃত্যু বেড়ে যাওয়ায় সারা দেশে কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করে সরকার। ৫ই এপ্রিল শুরু হওয়া এই বিধিনিষেধ দফায় দফায় বাড়ানো হয়। তবে মানুষের জীবিকার তাগিদে কিছু শর্ত শিথিল করা হয়েছে। খুলে দেয়া হয়েছে দোকান, মার্কেট, শপিং মল। স্বাস্থ্যবিধি মেনে রাজধানীসহ জেলা শহরগুলোতে চলাচলের অনুমতি দেয়া হয়েছে গণপরিবহনগুলোকে।।
জামিন পেলেন সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম
২৩,মে,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলামকে জামিন দিয়েছেন আদালত। রোববার (২৩ মে) ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট বাকী বিল্লাহর ভার্চ্যুয়াল আদালত পাসপোর্ট জমা দেওয়ার শর্তে পাঁচ হাজার টাকা মুচলেকায় জামিন মঞ্জুর করেন। এর আগে বৃহস্পতিবার (২০ মে) রোজিনার জামিন আবেদনের উপর শুনানি শেষে আদেশের জন্য এই দিন ধার্য করা হয়। রোজিনার পক্ষে জামিন আবেদনের শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী এহসানুল হক সমাজী, আমিনুল গণি টিটো, ব্যারিস্টার জ্যোতির্ময় বড়ুয়া, আশরাফ উল আলম ও প্রশান্ত কর্মকার। রাষ্ট্রপক্ষে অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর তাপস কুমার পাল ও সহকারী পাবলিক প্রসিকিউটর হেমায়েত উদ্দিন খান হিরন জামিনের বিরোধিতা করেন। গত ১৮ মে রোজিনার বিরুদ্ধে করা পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদন নামঞ্জুর করেন অপর মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ জসিম। একইসঙ্গে জামিন আবেদনের বিষয়ে শুনানির জন্য বৃহস্পতিবার (২০ মে) দিন ধার্য করেন। গত ১৭ মে বিকেলে সচিবালয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে হামলার শিকার হন সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম। তাকে এদিন ছয় ঘণ্টা আটকে রেখে রাত সাড়ে ৮টার দিকে সচিবালয় থেকে পুলিশি পাহারায় শাহবাগ থানায় নেওয়া হয় ওইদিন রাতেই রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে শাহবাগ থানায় একটি মামলা করা হয়েছে। মামলার নম্বর ১৬। দন্ডবিধি ৩৯৭ এবং ৪১১ অফিসিয়াল সিক্রেসি অ্যাক্ট ১৯২৩ এর ৩/ ৫ এর ধারায় এ মামলা করেন স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের উপ-সচিব শিব্বির আহমেদ ওসমানী। যেখানে তার বিরুদ্ধে সরকারি নথি সরানো ও ছবি তোলার অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। এই মামলার একমাত্র আসামি করা হয়েছে রোজিনা ইসলামকে।
তিন মন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন সাংবাদিক নেতারা
২২,মে,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের নিঃশর্ত মুক্তি ও মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে সরকারের তিন জন মন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন সাংবাদিক নেতারা বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে), ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন, জাতীয় প্রেসক্লাব, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি ও ব্রডকাস্ট জার্নালিস্ট সেন্টারের প্রতিনিধিরা রোববার তিন মন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন। শনিবার (২২ মে) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে বৈঠক শেষে এ তথ্য জানান ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (একাংশ) সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদ। তিনি বলেন, রোববার সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এবং তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদের সঙ্গে সাংবাদিকদের প্রতিনিধি দল দেখা করবে। এর আগেই রোজিনা মুক্তি পাবে বলে আশা করছি। রোববার আদালতের সিদ্ধান্তের পর আবার বৈঠক করে নতুন কর্মসূচি নেওয়া হবে। সাংবাদিক নেতা ইকবাল সোবহান চৌধুরী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাংবাদিকবান্ধব। তার সরকারের সময়ে কিছু আমলা সরকার ও গণমাধ্যমকে মুখোমুখি অবস্থানে দাঁড় করিয়েছে। আমরা আশা করছি এই অবস্থার নিরসন হবে। সেই সঙ্গে আমাদের আন্দোলন অব্যাহত থাকবে। রোববার আমরা তিনজন মন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করব। আমরা চেষ্টা করব এই বিষয়ে সুরাহার জন্য প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার। তিনি বলেন, এই মুহূর্তে আমাদের একটাই প্রত্যাশা রোজিনা ইসলামের জামিন। সেই সঙ্গে যে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে তাকে হেনস্তা করা হয়েছে সেগুলো নিয়েও আমরা সরকারের নীতিনির্ধারকদের সঙ্গে আলাপ করব। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিক নেতা ইকবাল সোবহান চৌধুরী, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মোল্লা জালাল ও ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব আবদুল মজিদ, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের একাংশের সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদ ও সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ আলম খান তপু, জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি ফরিদা ইয়াসমিন, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সহ-সভাপতি ওসমান গনি বাবুল ও সাধারণ সম্পাদক মসিউর রহমান খান, ব্রডকাস্ট জার্নালিস্ট সেন্টারের ট্রাস্টি রেজওয়ানুল হক রাজা ও সদস্য সচিব শাকিল আহমেদ প্রমুখ।
মৎস্যজীবী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে ভিডিও বার্তায় শুভেচ্ছা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী
২২,মে,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: মৎস্যজীবী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে ভিডিও বার্তায় শুভেচ্ছা জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এসময় তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় এসে মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনে কাজ করছে। শনিবার (২২ মে) সকালে বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে মৎস্যজীবী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, সকল ক্ষেত্রে বাংলাদেশকে স্বয়ংসম্পূর্ণ করতে চাই এবং জাতির পিতার আদর্শ নিয়ে বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়াবে বাংলাদেশ।
চালু হতে পারে দূরপাল্লার বাস
২২,মে,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত পরিসরে আগামী ২৪ মে থেকে দূরপাল্লার বাস চালুর উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। সাধারণ মানুষ ও পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের দুর্ভোগের কথা বিবেচনা করে এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এখন শুধু অপেক্ষা প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে সীমিত পরিসরে দূরপাল্লার বাস চলাচল সংক্রান্ত একটি প্রস্তাবনা তৈরির কাজ চলছে। এদিকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে দূরপাল্লার বাস ছাড়া হলে অর্ধেক আসন ফাঁকা রাখাসহ ভাড়া নির্ধারিত হারের চেয়ে ৬০ শতাংশ বেশি নেয়া হবে। এছাড়া প্রতি যাত্রার শুরু ও শেষে জীবাণুনাশক দিয়ে বাস জীবাণুমুক্ত এবং পরিবহন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি ও যাত্রীদের বাধ্যতামূলক মাস্ক পরিধান, হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার নিশ্চিত করা হবে। বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির মহাসচিব খোন্দকার এনায়েত উল্যাহ বলেন, দূরপাল্লার বাস বন্ধ থাকায় পরিবহনখাতের মালিক-শ্রমিকেরা মারাত্মক সংকটে রয়েছেন। বিষয়টি নিয়ে এরই মধ্যে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সঙ্গে যোগাযোগও করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, দূরপাল্লার বাস বন্ধ থাকায় মানুষ ঈদের আগে ও পরে প্রাইভেটকার, ট্রাক এবং মাইক্রোবাসে গাদাগাদি করে মানুষ চলাচল করেছেন। এতে করোনার ঝুঁকি আরো বাড়ছে। চলমান বিধিনিষেধের মধ্যে প্রথমে গণপরিবহন বন্ধ রাখা হলেও পরে জেলার ভেতরে বাস চলাচলের অনুমতি দেয় সরকার। এক্ষেত্রে অর্ধেক আসন ফাঁকা রেখে বাস-মিনিবাস চলাচলের নির্দেশনা দেয়া হয়। আর নির্ধারিত ভাড়ার চেয়ে ৬০ শতাংশ ভাড়া বৃদ্ধি করা হয়। এদিকে লঞ্চ এবং ট্রেন চালুর বিষয়ে এখনও কোনো আলোচনা হয়নি। সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, সরকারের নির্দেশনার ওপর ট্রেন চলাচল শুরুর বিষয়টি নির্ভর করবে।
লঞ্চ চলাচলে অনুমতি চান মালিকরা
২২,মে,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: স্বাস্থ্যবিধি মেনে আগামী ২৪শে মে থেকে সারাদেশে যাত্রীবাহী লঞ্চ চলাচলে অনুমতি দেয়ার দাবি জানিয়েছেন লঞ্চ মালিকরা। তারা বলেছেন, চলমান লকডাউনে দেশের কোথাও কোন স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না। তবে লঞ্চ বন্ধ রাখা হয়েছে কেন। আমরা চাই স্বাস্থ্যবিধি মেনে লঞ্চ চালাতে। আজ রাজধানীর সদরঘাটে এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানান তারা। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সংগঠনের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট বদিউজ্জামান বাদল। তিনি এ সময় শ্রমিক-কর্মচারীদের বেতন বোনাস দেয়ার জন্য সংস্থার পক্ষ থেকে গত ৫ মে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য-সচিব, নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী ও বিআইডব্লিউটিএ-এর চেয়ারম্যান বরাবর প্রণোদনার জন্য যে আবেদন করা হয়েছে তা অনতিবিলম্বে মালিকদের মাঝে বণ্টনের দাবি জানিয়েছেন। এছাড়া এনবিআরের ধারণ ক্ষমতার ওপর অগ্রিম প্রদত্ত ছয় মাসের ট্যাক্স আনুপাতিক হারে মওকুফ, বিআইডব্লিউটিএ-এর ছয় মাসের কারভেন্সি ও বার্লিং চার্জ মওকুফ, নৌ-পরিবহন অধিদফতরের ছয় মাসের সার্ভে ফি মওকুফ ও ব্যাংক লোনের ছয় মাসের সুদ মওকুফ করার দাবি জানান তিনি।

জাতীয় পাতার আরো খবর