বুধবার, আগস্ট ৪, ২০২১
পদ্মা সেতু উদ্বোধনের দিনই রেল চলবে : রেলমন্ত্রী
০৪,মে,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন বলেছেন, পদ্মা সেতু উদ্বোধনের দিনই মুন্সীগঞ্জের মাওয়া থেকে ফরিদপুরের ভাঙ্গা পর্যন্ত চলবে রেল। পদ্মা সেতুর মাওয়া প্রান্তের ভায়াডাক্টারের সঙ্গে যুক্ত করা হয়েছে এ রেল লাইন সংযোগ। সেতু উদ্বোধনের দিনই সেতু অতিক্রম করে ভাঙ্গা পর্যন্ত যেতে পারবে রেল। ভাঙ্গা জংশন স্টেশন পায়রা বন্দরের সঙ্গে যুক্ত হবে। এ ছাড়া ফরিদপুর যশোরসহ ৪টি লাইন হয়ে বিভিন্ন গন্তব্যে যাবে। মঙ্গলবার (৪ মে) বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে মুন্সীগঞ্জের মাওয়া প্রান্তে স্থাপন হওয়া রেল সংযোগ ভায়াডাক্টার স্থান পরিদর্শনকালে এসব কথা বলেন তিনি। রেলমন্ত্রী বলেন, ইতোমধ্যে রেলের মূল কাজের প্রায় ৪১ শতাংশ শেষ হয়েছে এবং মাওয়া থেকে ফরিদপুরের ভাঙ্গা পর্যন্ত কাজের ৬৬ শতাংশ শেষ হয়েছে। বাকী কাজ আগামী জুন-জুলাই মাসের মধ্যে শেষ হবে। পরে মাওয়া প্রান্ত পরিদর্শন শেষে স্পিড বোট যোগে শরিয়তপুরের পদ্মা সেতুর জাজিরা প্রান্তে রেলের সার্বিক কাজের অগ্রগতি পরিদর্শনে যান তিনি। এর আগে বেলা ১১টার দিকে মাওয়া প্রান্ত পরিদর্শনে আসেন তিনি। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ রেলওয়ে মহা-পরিচালক ধীরেন্দ্র নাথ মজুমদার, প্রকল্প পিডি, অতিরিক্ত মহা-পরিচালক (অবকাঠামো), পদ্মা সেতুর রেলওয়ে প্রকল্পের চীপ ইঞ্জিনিয়ার মন্ত্রীর সফর সঙ্গী নাজনিন আরা প্রমুখ। প্রসঙ্গত, গত ৩ মে মুন্সীগঞ্জের মাওয়া প্রান্তে সেতুর ভায়াডাক্টারের সঙ্গে রেল লাইন সংযোগ স্থাপন করা হয়।
খাল খননের নামে কী হয় জানি, সাবধান : প্রধানমন্ত্রী
০৪,মে,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় মঙ্গলবার (৪ মে) পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের দুটি প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। সেগুলো হলো- ১ হাজার ১৫৮ কোটি ৩৬ লাখ টাকা খরচে চট্টগ্রাম জেলার পটিয়া উপজেলার বন্যা নিয়ন্ত্রণ, নিষ্কাশন ও সেচ প্রকল্প এবং ১ হাজার ৪৫২ কোটি ৩৩ লাখ টাকা খরচে তিস্তা সেচ প্রকল্পের কমান্ড এলাকার পুনর্বাসন ও সম্প্রসারণ প্রকল্প। একনেক সভায় প্রকল্প দুটির বিষয়ে আলোচনা করতে গিয়ে খাল খননের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাবধান হতে সংশ্লিষ্টদের হুঁশিয়ার করেছেন। সভা শেষে সংবাদ সম্মেলনে খাল খনন প্রকল্পের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য তুলে ধরে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, সাবধান! খাল খননের নামে যেসব কাণ্ড হয়! এটা তিনি (প্রধানমন্ত্রী) জানেন। আমরাও সবাই মোটামুটি জানি। তিনি (শেখ হাসিনা) বলেছেন, সেচে সেচে উপরের দিকে দেখিয়ে। মানে দেখাবার একটা প্রবণতা আছে। সেদিকে আমাদের তিনি সাবধান করেছেন। একনেকে প্রধানমন্ত্রী আরও কিছু অনুশাসন তুলে ধরেছেন। তার একটি হলো সরকারি সংস্থাগুলোকে নিজেদের খরচে চলতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য তুলে ধরে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, সরকারি সংস্থা, যেগুলো ব্যবসার জন্য স্থাপিত হয়েছে, যেমন- বিটিসিএল, বীমা, ব্যাংক, ইন্স্যুরেন্স এগুলো তো নামেই কোম্পানি। তারা যেন নিজেরা নিজেদের খরচ চালাতে পারে। আমরা কতদিন এখান (সরকারি কোষাগার) থেকে টাকা দিয়ে দিয়ে তাদের চালাবো। এটা ইকোনমিক্যালি (অর্থনৈতিকভাবে) গ্রহণযোগ্য নয়। এটা তিনি (প্রধানমন্ত্রী) আজকে আবার মূল্যায়ন করেছেন। আজ একনেক সভায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে সুপার স্পেশালাইজড হাসপাতাল স্থাপন প্রকল্পের সংশোধনী আনা হয়েছে। সংশোধনীতে প্রকল্পের মেয়াদ ও খরচ দুটোই বাড়ানো হয়েছে। প্রকল্পটির মূল খরচ ছিল ১ হাজার ৩৬৬ কোটি ৩৪ লাখ টাকা। প্রথম সংশোধনীতে ১৯৪ কোটি ৮৫ লাখ টাকা খরচ বাড়িয়ে করা হয়েছে ১ হাজার ৫৬১ কোটি ১৮ লাখ টাকা। ২০১৬ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৯ সালের ডিসেম্বর মেয়াদে প্রকল্পটি শেষ হওয়ার কথা ছিল। সংশোধনীতে প্রকল্পের মেয়াদ বাড়িয়ে ২০২২ সালের জুন পর্যন্ত করা হয়েছে। পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, বিএসএমএমইউয়ের কাজ শেষ করার জন্য প্রধানমন্ত্রী বলেছেন। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, দীর্ঘদিন ধরে চলছে এটা, তাড়াতাড়ি শেষ করুন। আর কত দিন নেবেন? উপজেলা পর্যায়ে যেসব স্টেডিয়াম নির্মাণ করা হবে, তা সবার জন্য উন্মুক্ত করা হবে বলেও জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। এ বিষয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, উপজেলা পর্যায়ে শেখ রাসেল নামে যে স্টেডিয়ামগুলো করা হবে, সেখানে তিনি (শেখ হাসিনা) বলেছেন, সবার জন্য উন্মুক্ত রাখতে হবে। নো রিজার্ভ। কোনো ক্লাবের বা ব্যক্তির আওতায় থাকবে না। ইউএনওরা দেখভাল করতে পারবেন। কিন্তু সবাই খেলার অধিকার পাবে। সেটা উন্মুক্ত রাখতে হবে এবং বসার জায়গাও রাখতে হবে। এভাবে তিনি (প্রধানমন্ত্রী) চাচ্ছেন।
লকডাউনের মেয়াদ ১৬ মে পর্যন্ত বাড়ানো হলো
০৩,মে,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধকল্পে চলমান লকডাউনের মেয়াদ আগামী ১৬ মে পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। তবে ৬ মে থেকে জেলার মধ্যে গণপরিবহন চলবে। কিন্তু আন্তঃজেলা গণপরিবহন বন্ধ থাকবে। এছাড়া ট্রেন ও লঞ্চ চলাচল বন্ধ থাকবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে আজ সকালে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। প্রধানমন্ত্রী তাঁর সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে এবং মন্ত্রিসভার সদস্যগণ সচিবালয়ের মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ভার্চুয়ালি বৈঠকে যুক্ত হন। পরে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বৈঠকের বিষয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন। নির্দেশনা অনুযায়ী, লকডাউনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে দোকান ও শপিংমল সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত খোলা রাখার প্রসঙ্গ টেনে এক্ষেত্রেও কড়াকড়ি আরোপ করার কথা জানিয়েছেন সচিব। মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, গতকাল স্বাস্থ্যমন্ত্রীর সভাপতিত্বে একটা মিটিং হয়েছে। সেখানে সুপারিশ করা হয়, আজকে সেই বিষয়ে ক্যাবিনেট সিদ্ধান্ত দিয়েছে-আজকে থেকে পুলিশ, সিটি কর্পোরেশন, ম্যাজিস্ট্রেট ও অ্যাডমিনিস্ট্রেশন তারা দেশের প্রত্যেকটি মার্কেট সুপারভাইস করবে। কোন মার্কেটে লোক হয়তো কন্ট্রোল করা যাবে না কিন্তু মাস্ক ছাড়া যদি বেশি লোকজন ঘোরাফেরা করে প্রয়োজনে আমরা সেসব মার্কেট বন্ধ করে দেব। ক্লিয়ারলি এটা বলে দেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, দোকান-মালিক সমিতির সভাপতি ওনারা আমাদের সহযোগিতা করবেন বলে আশ্বস্ত করেছেন। ওনারা নিজেরাও এটা সুপারভাইস করবেন। উল্লেখ্য, কোভিড-১৯ এর দ্বিতীয় দফা সংক্রমণ রোধে গত ১৪ এপ্রিল ভোর ৬টা থেকে আট দিনের কঠোর লকডাউন শুরু হয়। লকডাউনের মধ্যে পালনের জন্য ১৮টি নির্দেশনা দেয়া হয় সরকারের পক্ষ থেকে। পরে সাতদিন করে দু-দফা লকডাউনের মেয়াদ বাড়ানো হয়। সেই মেয়াদ শেষ হবে আগামী ৫ মে (বুধবার) মধ্যরাতে।
ঈদে তিন দিনের বেশি বাড়তি ছুটি বন্ধ
০৩,মে,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: এবারের ঈদ উল ফিতরে সরকারি ছুটি তিন দিন। এই তিন দিনের সঙ্গে কোনো প্রতিষ্ঠান নিজস্ব উদ্যোগে অতিরিক্ত ছুটি দিতে পারবে না। সিদ্ধান্তটি সরকারি ও বেসরকারি সব প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য হবে। সোমবার (৩ মে) সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিপরিষদ বৈঠকে আলোচনার পর এ সিদ্ধান্ত হয় বলে জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম। সরকারের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের এই বৈঠক সকাল সাড়ে ১০টায় ভার্চ্যুয়াল মাধ্যমে শুরু হয়। এতে গণভবন থেকে অনলাইনে যুক্ত হয়ে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সচিবালয় থেকে অংশ নেন মন্ত্রিসভার সদস্যরা। বৈঠকে বেশ কয়েকটি আইনের খসড়া ও নীতিগত অনুমোদন দেয়া হয়। মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, সংক্রমণ রোধে চলমান বিধি-নিষেধ বহাল রাখতে হবে অন্তত ১৬ মে পর্যন্ত। এ সময় দেশে বিপণিবিতান খোলা থাকলেও স্বাস্থ্যবিধি লঙ্ঘন করলে সেসব তাৎক্ষণিকভাবে বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।
চীন থেকে ৫ লাখ ডোজ টিকা আসবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
০৩,মে,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক এমপি বলেছেন, আগামী ১০ মে চীন থেকে ৫ লাখ ডোজ করোনার টিকা আসবে। ভ্যাকসিনগুলো নিজেদের জাহাজে করে আনা হবে। সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে সোমবার (৩ মে) দুপুরে তিনি এ কথা জানান। স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরও বলেন, আগামী ঈদুল ফিতর পর্যন্ত লকডাউন রাখার বিষয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় প্রস্তাব দিয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের সীমান্ত বন্ধ থাকবে। তিনি আরও বলেন, এই সময়ের মধ্যে কোনো আন্তঃজেলা গণপরিবহন চলবে না। এছাড়াও, যেসব দোকানদার ও ক্রেতা স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলবেন না তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তার আগে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, করোনা মহামারির বিস্তার ঠেকাতে চলমান বিধিনিষেধ ১৬ মে পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। এ অবস্থায় আসন্ন ঈদকে সামনে রেখে খোলা থাকা মার্কেট ও দোকানপাটে কঠোরভাবে স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে। তা না হলে বন্ধ করে দেওয়া হবে মার্কেট ও দোকানপাট, করা হবে জরিমানাও। মার্কেটে স্বাস্থ্যবিধি পরিপালনের বিষয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, গতকাল (রোববার) স্বাস্থ্যমন্ত্রীর সভাপতিত্বে একটা মিটিং হয়েছে। সেখানে সুপারিশ করা হয়, আজ সেই বিষয়ে ক্যাবিনেট সিদ্ধান্ত দিয়েছে- আজ থেকে পুলিশ, সিটি করপোরেশন, ম্যাজিস্ট্রেট ও অ্যাডমিনিস্ট্রেশন দেশের প্রত্যেকটি মার্কেট সুপারভাইস করবে। কোনো মার্কেটে এতে লোক হয়তো কন্ট্রোল করা যাবে না। কিন্তু মাস্ক ছাড়া যদি বেশি লোকজন ঘোরাফেরা করে প্রয়োজনে আমরা সেসব মার্কেট বন্ধ করে দেবো।
দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টির সম্ভাবনা
০২,মে,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টি/বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে বলে এক পূর্বাভাসে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। বলা হয়েছে, রংপুর, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং রাজশাহী, ঢাকা, চট্টগ্রাম, খুলনা ও বরিশাল বিভাগের দুই-এক জায়গা। এছাড়া ঢাকাসহ এর পাশ্ববর্তী এলাকার আকাশ অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা থাকতে পারে। এছাড়া অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ বৃষ্টি/বজ্রবৃষ্টিরও সম্ভাবনা রয়েছে। বয়ে যেতে পারে দমকা হাওয়া বলেও পূর্বাভাসে বলা হয়েছে। এদিকে, রাঙামাটি, কুমিল্লা, নোয়াখালী, নেত্রকোনা, রাজশাহী, পাবনা, দিনাজপুর ও পটুয়াখালি অঞ্চলসহ ঢাকা, সিলেট ও খুলনা বিভাগের উপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের যে তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে, তা কোনো কোনো স্থানে কমার সম্ভাবনা রয়েছে।
করোনায় দরিদ্র-অসহায়দের জন্য আর্থিক সহায়তা কার্যক্রমের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী
০২,মে,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: মহামারি করোনাভাইরাসের জন্য ক্ষতিগ্রস্ত দরিদ্র-অসহায় মানুষদের মোবাইল ব্যাংকিং পরিষেবার মাধ্যমে আর্থিক সহায়তা কার্যক্রমের উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে দেশের ৩৬ লাখ ৫০ হাজার ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে ২ হাজার ৫০০ টাকা করে পাবে। আজ রোববার (২ মে) বেলা ১১টার দিকে গণভবন থেকে এক ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ভোলা, জয়পুরহাট এবং চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে যুক্ত হয়ে দ্বিতীয় পর্যায়ের আর্থিক সহায়তা কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী। ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর কাছে এখন প্রধানমন্ত্রীর উপহার পৌঁছে যাবে। জানা গেছে, করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে দেশজুড়ে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার ক্ষতিগ্রস্ত ৩৬ লাখ ৫০ হাজার পরিবারের কষ্ট লাঘবে তাদের কাছে এই নগদ সহায়তা দেয়া হবে। ইতোমধ্যে সরকার ১ হাজার ৫০০ কোটি টাকা বরাদ্দও দিয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত প্রতিটি পরিবার মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস (এমএফএস) এর মাধ্যমে জিটুপি (গভর্নমেন্ট টু পার্সন) ভিত্তিতে এই সহায়তা পাবে। প্রসঙ্গত, গত ১৪ এপ্রিল দেশে লকডাউন ঘোষণা করা হলে প্রতিবন্ধী, দিনমজুর, রিকশা ও ভ্যানচালক, পরিবহন শ্রমিক এবং ভিক্ষুকসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ ক্ষতির মুখে পড়ে। স্থবির হয়ে পড়ে তাদের জীবন পরিচালনা। ক্ষতিগ্রস্ত এসব মানুষদের ক্ষতি পুষিয়ে উঠতে শুরু থেকে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে সহায়তা দিচ্ছে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়।
গণপরিবহন চালুর দাবিতে গাবতলীতে শ্রমিকদের বিক্ষোভ
০২,মে,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: গণপরিবহন চালুর দাবিতে বিক্ষোভ ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন। রোববার (২ মে) সকালে গাবতলী বাস টার্মিনালে পরিবহন শ্রমিকরা সমাবেত হয়ে এ কর্মসূচি পালন করেন। এদিন সকাল ১০টার দিকে শ্রমিকরা গাবতলীতে অবস্থান নেন। এসময় তারা সরকারের কাছে দ্রুত গণপরিবহন চালুর দাবি জানান। দাবি না মানা হলে কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দেন তারা। শ্রমিকরা জানান, গণপরিবহন বন্ধ থাকায় তাদের সংসার চলছে না।সবকিছু সচল হলেও গণপরিবহন বন্ধ রাখা হয়েছে। এতে করে পরিবারের মুখে খাবার তুলে দিতে পারছেন না তারা। বাস বন্ধ রাখা হলেও সরকারিভাবে তাদের কোনো ধরনের সরকারি সহায়তা দেয়া হচ্ছে না। এভাবে চলতে থাকলে তাদের পরিবারসহ না খেয়ে মরতে হবে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে তারা যাত্রী পরিবহন করতে চান বলেও জানান। স্বাস্থ্যবিধি মানার শর্তে লকডাউন শিথিল করায় গার্মেন্টস, শপিংমল, কাঁচাবাজার, অফিস-আদালত খুলে দেয়া হয়েছে। কেবল গণপরিবহন বন্ধ রাখায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন শ্রমিকরা। এসময় সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক ওসমান আলী বলেন, দেশের সড়কপথের পরিবহনগুলোতে প্রতিদিন ৫০ লাখ শ্রমিক কাজ করেন। তিনি বলেন, করোনায় মানুষের জীবন বাঁচানোর জন্য সরকার লকডাউন ঘোষণা করেছে। আমরা লকডাউনের বিরোধিতা করছি না। শপিংমলসহ সবকিছু সচল করা হলেও গণপরিবহন বন্ধ রাখা হচ্ছে কেন- সেই প্রশ্নও তোলেন তিনি। এই শ্রমিক নেতা বলেন, বর্তমানে বিকল্প যানবাহনে বাড়তি ভাড়া দিয়ে সাধারণ মানুষ চলাচল করছেন। এতে যেমন সংক্রমণের ঝুঁকি রয়েছে, তেমনি হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে। গণপরিবহন চালুর পাশাপাশি শ্রমিকদের আর্থিক অনুদান ও খাদ্যসহায়তা প্রদান এবং শ্রমিকদের জন্য ১০ টাকায় চাল বিক্রির ব্যবস্থা করার দাবি জানান। পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী আজ তারা আন্দোলনে নেমেছেন বলেও জানান তিনি।
শ্রমজীবী মানুষের কল্যাণে সরকার কাজ করছে: প্রধানমন্ত্রী
০১,মে,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: পহেলা মে শ্রমিক দিবস উপলক্ষে দেয়া এক বাণীতে বাংলাদেশসহ বিশ্বের সকল শ্রমজীবী মানুষকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শনিবার (১ মে) মহান মে দিবস ২০২১ উপলক্ষে শুক্রবার (৩০ এপ্রিল) দেয়া এক বাণীতে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, সরকার দেশের শ্রমজীবী মানুষের জীবনমান উন্নয়ন ও কল্যাণে বিভিন্ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে। তিনি বলেন, বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাস সংক্রমণের ভয়াল পরিস্থিতি মোকাবিলায় আমাদের সরকার শ্রমজীবী মানুষের পাশে থেকে ত্রাণ বিতরণসহ সর্বাত্মক কার্যক্রম পরিচালনা করছে। সরকার সংকট মোকাবিলায় শ্রমিকদের বেতনের জন্য ৮ হাজার ৬০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছে। মহান মে দিবস ২০২১ উপলক্ষে দেয়া এক বাণীতে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, রপ্তনিমুখী তৈরি পোশাক, চামড়াজাত পণ্য ও পাদুকাশিল্পে কর্মহীন হয়ে পড়া ও দুস্থ শ্রমিকদের জন্য সামাজিক সুরক্ষা কার্যক্রম বাস্তবায়ন নীতিমালা, ২০২০ বাস্তবায়নের জন্য শ্রম অধিদপ্তরের অনুকূলে ৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ প্রদান করেছে। করোনা পরিস্থিতিতে দেশের অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে কলকারখানা চালু রাখার নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে। সে ক্ষেত্রে অবশ্যই শ্রমিকদের স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তার বিষয়টি সংশ্লিষ্ট সবাইকে নিশ্চিত করতে হবে। তিনি বলেন, মহান মে দিবস বিশ্বব্যাপী শ্রমজীবী মানুষের ঐক্য ও সংহতির প্রতীক। এই ঐতিহাসিক দিনে তিনি বাংলাদেশসহ পৃথিবীর অন্যান্য দেশের সকল মেহনতি মানুষকে শুভেচ্ছা জানান। ১৮৮৬ সালের আমেরিকার শিকাগো শহরে রক্তাক্ত আন্দোলনে শ্রমিকের ন্যায্য দাবি আদায়ের লক্ষ্যে আত্মাহুতি দেওয়া বীর শ্রমিকদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন প্রধানমন্ত্রী। মে দিবসের এবারের প্রতিপাদ্য শ্রমিক-মালিক নির্বিশেষ, মুজিব বর্ষে গড়ব দেশ অত্যন্ত যথার্থ হয়েছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন। বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার দেশের শ্রমজীবী মানুষের জীবনমান উন্নয়ন ও কল্যণে বিভিন্ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, মালিক-শ্রমিকের মধ্যে সৌহার্দ্য ও সুসম্পর্ক বজায় রাখার মাধ্যমে নিরাপদ কর্মপরিবেশ, সামাজিক নিরাপত্তা ও শ্রমিক কল্যাণ নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ শ্রম আইন যুগোপযোগী ও আধুনিকায়ন করে বাংলাদেশ শ্রম (সংশোধন) আইন, ২০১৮ প্রণয়ন করা হয়েছে। তিনি বলেন, দেশের বিভিন্ন খাতে কর্মরত শ্রমিকদের কল্যাণ নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ শ্রমিক কল্যাণ ফাউন্ডেশন তহবিল গঠন করা হয়েছে। এই তহবিল থেকে প্রাতিষ্ঠানিক-অপ্রাতিষ্ঠানিক যে কোনো খাতে নিয়োজিত কোনো শ্রমিক কর্মরত অবস্থায় দুর্ঘটনাজনিত কারণে স্থায়ীভাবে অক্ষম হলে অথবা মৃত্যুবরণ করলে, জরুরি চিকিৎসা ব্যয়নির্বাহ ও দুরারোগ্য ব্যাধির চিকিৎসার জন্য এবং শ্রমিকদের সন্তানের উচ্চশিক্ষার জন্যেও আর্থিক সহায়তা পাচ্ছেন। আমরা রপ্তানিমুখী গার্মেন্টস শিল্পে কর্মরত শ্রমিক-কর্মচারীদের সার্বিক কল্যাণে আর্থিক সহায়তা প্রদানে একটি কেন্দ্রীয় তহবিল গঠন করেছি এবং সহযোগিতা অব্যাহত রেখেছি বলেন তিনি। শেখ হাসিনা বলেন, শ্রমকল্যাণ নিশ্চিতকরণে জাতীয় শ্রমনীতি, ২০১২ ও বাংলাদেশ শ্রম বিধিমালা, ২০১৫ প্রণয়ন করা হয়েছে। আমরা জাতীয় পেশাগত স্বাস্থ্য ও সেইফটি নীতিমালা, ২০১৩ এবং জাতীয় দক্ষতা উন্নয়ন নীতি, ২০১১ প্রণয়ন করেছি। পাশাপাশি, মানবসম্পদ উন্নয়নে জাতীয় দক্ষতা উন্নয়ন কাউন্সিল গঠন করা হয়েছে। শিল্পকারখানায় কমপ্লায়েন্স নিশ্চিত করতে কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন পরিদপ্তরকে অধিদপ্তরে উন্নীত করা হয়েছে। শ্রমিক ও তাদের পরিবারের কল্যাণে বিভিন্ন সেবার সম্প্রসারণ ও জোরদারকরণে আমরা শ্রম পরিদপ্তরকে সম্প্রতি অধিদপ্তরে রূপান্তরিত করেছি। তিনি বলেন, আমাদের সরকার সারাদেশে ১০০টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা করছে। এতে এক কোটির বেশি লোকের কর্মসংস্থান হবে। দেশি-বিদেশি সকল বিনিয়োগকারী যত্রতত্র শিল্প স্থাপন না করে এই অর্থনৈতিক অঞ্চলে বিনিয়োগ করার সুযোগ পাচ্ছে। দেশের বিভিন্ন স্থানে নারী শ্রমিককের জন্য শ্রমজীবী মহিলা হোস্টেল নির্মাণ করা হচ্ছে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আজীবন শোষিত, বঞ্চিত ও মেহনতি মানুষের অধিকার আদায়ের জন্য সংগ্রাম করেছেন জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, শোষণহীন সমাজ প্রতিষ্ঠার উদ্দেশ্যে তিনি ১৯৭২ সালে শ্রমনীতি প্রণয়ন করেন। তিনি পরিত্যক্ত কলকারখানা জাতীয়করণ করে দেশের অর্থনীতিকে শক্তিশালী এবং শ্রমিকদের ন্যায্য অধিকার নিশ্চিত করেছিলেন। তিনি বলেন, মুজিববর্ষে মহান মে দিবসের আদর্শে অনুপ্রণিত হয়ে করোনা মহামারির মধ্যে স্বাস্থ্যবিধি মেনে দেশের অগ্রযাত্রায় নিজ নিজ অবস্থান থেকে সবাই ভূমিকা রাখি মহান মে দিবসে এই হোক আমাদের অঙ্গীকার। আমরা শ্রমজীবী মানুষের কল্যাণ ও দেশের সার্বিক উন্নয়নের মধ্য নিয়ে জাতির পিতার স্বপ্বের সুখী, সমৃদ্ধ ও উন্নত বাংলাদেশ গড়ে তুলব, ইনশাআল্লহ। মহান মে দিবস উপলক্ষে গৃহীত সকল কর্মসূচির সার্বিক সাফল্য কামনা করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

জাতীয় পাতার আরো খবর