সোমবার, আগস্ট ২, ২০২১
রোজিনা ইসলামকে হেনস্তার ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও ঘটনার প্রকৃত ব্যাখ্যা চেয়ে চিঠি দিয়েছে এমজেএফ
১৮,মে,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: প্রথম আলো পত্রিকার জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলামকে পাঁচ ঘণ্টা আটকে রেখে হেনস্তার ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়ে ঘটনার প্রকৃত ব্যাখ্যা দাবি করেছেন মিলেনিয়াম হিউম্যান রাইটর্স এন্ড জার্নালিষ্ট ফাউন্ডেশন ( এমজেএফ) এর চেয়ারম্যান সাংবাদিক মোহাম্মদ নাছির উদ্দীন চৌধুরী । মঙ্গলবার (১৮ মে) এক বিবৃতিতে ওই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানানো হয়। বিবৃতিতে বলা হয়, গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদে দেখা যায় যে, রোজিনা অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে চিকিৎসার কোনো ব্যবস্থা না করে প্রায় পাঁচ ঘণ্টা আটকে রাখা হয়, যা অমানবিক বলে এমজেএফ মনে করে। এবিষয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিবের কাছে ব্যাখ্যা চেয়ে চিঠি দেওয়া হয়েছে। সোমবার রাতে রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে শাহবাগ থানায় মামলা দায়ের করা হয়। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অভিযোগের ভিত্তিতে স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের উপসচিব ডা. মো. শিব্বির আহমেদ উসমানী এ মামলা দায়ের করেন। সাংবাদিক রোজিনার বিরুদ্ধে অনুমতি ছাড়া মোবাইল ফোনে সরকারি গুরুত্বপূর্ণ নথির ছবি তোলা এবং আরও কিছু নথি লুকিয়ে রাখার অভিযোগ এনেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায় বিশেষ কৃতিত্বের জন্য রোজিনা ইসলাম কানাডিয়ান অ্যাওয়ার্ডস ফর এক্সিলেন্স ইন বাংলাদেশি জার্নালিজম (২০১১), টিআইবির অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা পুরস্কার (২০১৫), পিআইবি ও দুদকের উদ্যোগে দুর্নীতি প্রতিরোধে গণমাধ্যম পুরস্কার বাংলাদেশসহ (২০১৪) বেশ কিছু পুরস্কার পেয়েছেন।
রোজিনা ইসলামের মুক্তি দাবি চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের
১৮,মে,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের অবিলম্বে মুক্তি দাবি জানিয়েছে চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়ন। পাশাপাশি রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে যারা ষড়যন্ত্র করেছেন তাদের বিরুদ্ধে সরকারকে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন সাংবাদিকরা। মঙ্গলবার (১৮ মে) চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সামনে সাংবাদিক ইউনিয়ন আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে এ দাবি জানান সাংবাদিক নেতারা। প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলামকে হেনস্থা ও আটকের প্রতিবাদে এ বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনে চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মোহাম্মদ আলী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তথ্যমন্ত্রী সাংবাদিকবান্ধব। তাদের গণমাধ্যমবান্ধব ভূমিকাকে বিতর্কিত করার জন্য এই ঘটনা ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে কাজ করছে বলে মনে করি। আমরা রোজিনা ইসলামের অবিলম্বে মুক্তি চাই। গতকাল যারা ষড়যন্ত্র করেছে তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনে বিচার বিভাগীয় তদন্ত চাই আমরা। সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে যারা অপরাধ করেছে তাদের বিরদ্ধে সরকার ব্যবস্থা নেবে, এটাই চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের দাবি। চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সভাপতি আলী আব্বাস এসময় সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের মুক্তি দাবি করেন। মানববন্ধনে সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক ম. শামসুল ইসলাম বলেন, একজন সাংবাদিককে হেনস্থা, শারীরিকভাবে নির্যাতন সারাদেশের সাংবাদিকদের জন্য হুমকি। অবিলম্বে রোজিনার হেনস্থাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাই। এসময় রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান তিনি। সমাবেশে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী ফরিদসহ চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়ন, প্রেসক্লাবসহ বিভিন্ন সাংবাদিক সংগঠনের নেতারা বক্তব্য রাখেন।
সাংবাদিক রোজিনাকে হেনস্তার ঘটনায় তীব্র নিন্দা, ব্যাখ্যা দাবি মানবাধিকার কমিশনের
১৮,মে,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: প্রথম আলো পত্রিকার জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলামকে পাঁচ ঘণ্টা আটকে রেখে হেনস্তার ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়ে ঘটনার প্রকৃত ব্যাখ্যা দাবি করেছে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন। মঙ্গলবার (১৮ মে) সকালে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. আজহার হোসেন স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে ওই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানানো হয়। বিবৃতিতে বলা হয়, গণমাধ্যম সূত্রে জানা যায়, অনুমতি ছাড়া করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিনের সরকারি নথির ছবি তোলার অভিযোগে গতকাল দৈনিক প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলামকে সচিবালয়ে পাঁচ ঘণ্টা আটকে রেখে হেনস্তা করা হয়। জাতীয় মানবাধিকার কমিশন ঘটনার তীব্র নিন্দা জানায়। কমিশনের চেয়ারম্যান নাছিমা বেগম মনে করেন, দীর্ঘ সময় ধরে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিবের একান্ত সচিবের কক্ষে একজন সাংবাদিককে আটক রাখার বিষয়টি নিন্দনীয়। গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদে দেখা যায় যে, রোজিনা অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে চিকিৎসার কোনো ব্যবস্থা না করে প্রায় পাঁচ ঘণ্টা আটকে রাখা হয়, যা অমানবিক বলে কমিশন মনে করে। এবিষয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিবের কাছে ব্যাখ্যা চেয়ে চিঠি দেওয়া হয়েছে। সোমবার রাতে রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে শাহবাগ থানায় মামলা দায়ের করা হয়। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অভিযোগের ভিত্তিতে স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের উপসচিব ডা. মো. শিব্বির আহমেদ উসমানী এ মামলা দায়ের করেন। সাংবাদিক রোজিনার বিরুদ্ধে অনুমতি ছাড়া মোবাইল ফোনে সরকারি গুরুত্বপূর্ণ নথির ছবি তোলা এবং আরও কিছু নথি লুকিয়ে রাখার অভিযোগ এনেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায় বিশেষ কৃতিত্বের জন্য রোজিনা ইসলাম কানাডিয়ান অ্যাওয়ার্ডস ফর এক্সিলেন্স ইন বাংলাদেশি জার্নালিজম (২০১১), টিআইবির অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা পুরস্কার (২০১৫), পিআইবি ও দুদকের উদ্যোগে দুর্নীতি প্রতিরোধে গণমাধ্যম পুরস্কার বাংলাদেশসহ (২০১৪) বেশ কিছু পুরস্কার পেয়েছেন।
সাংবাদিক রোজিনা গ্রেপ্তার: স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সংবাদ বয়কটের ঘোষণা
১৮,মে,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা করে গ্রেপ্তারের প্রতিবাদ ও তার মামলা প্রত্যাহারসহ তাকে দ্রুত নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানিয়েছেন ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিসহ সাংবাদিক সমাজ। অবিলম্বে মামলা প্রত্যাহার করে সসম্মানে তার মুক্তি না হওয়া পর্যন্ত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সব ইতিবাচক সংবাদ বয়কটের ঘোষণা সাংবাদিকদের। আজ মঙ্গলবার দুপুরের দিকে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি প্রাঙ্গণে মানববন্ধন করে এই দাবি জানান এবং এই ঘটনার জন্য সাংবাদিকদের কাছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানান। এসময় যে আইনে রোজিনা ইসলামকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে তা বাতিলের দাবি জানানো হয় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির পক্ষ থেকে। অপরদিকে রোজিনা ইসলামের মামলা প্রত্যাহার ও তাকে নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে আগামীকাল বুধবার সকাল ১১টা থেকে ১২টা পর্যন্ত জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন করবে সচিবালয় রিপোর্টার্স ফোরাম। রোজিনা ইসলামের জামিন না হওয়া পর্যন্ত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সব ধরনের ইতিবাচক সংবাদ বয়কটের ঘোষণা দেন বাংলাদেশ সেক্রেটারিয়াট রিপোর্টার্স ফোরাম বিএসআরএফ-এর সভাপতি তপন বিশ্বাস। তিনি বলেন, আমরা বিএসআরএফ এর পক্ষ থেকে আমাদের সহকর্মী পেশাগত কাজে গিয়ে হেনস্তা, তাকে নিঃশর্ত মুক্তি ও মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে বুধবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সকাল ১১টা ১২টা পর্যন্ত মানববন্ধন কর্মসূচি করবো। রোজিনা ইসলামের জামিন না হওয়া পর্যন্ত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সব ব্রিফিং বর্জন করবো। তথ্যমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি প্রদান করবো এবং আইনমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাত করে জামিনের ব্যাপারে কথা বলবো। সোমবার রাতে তাকে গ্রেপ্তারে প্রতিবাদ ও মুক্তির দাবি জানান বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও বিরোধীদলীয় উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ কাদের এমপি। এছাড়াও রোজিনা ইসলামকে গ্রেপ্তারে নিন্দা ও প্রতিবাদের পাশাপাশি তার নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ হেলথ্ রিপোর্টার্স ফোরাম (বিএইচআরএফ), বাংলাদেশ ব্রডকাস্ট জার্নালিস্ট ফোরাম বিজেসি ও জাতীয় মানবাধিকার কমিশন। উল্লেখ্য, আজ (মঙ্গলবার) সকালে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় আয়োজিত সকাল ১১টার সংবাদ সম্মেলন বয়কট করেছে বাংলাদেশ সেক্রেটারিয়েট রিপোর্টার্স ফোরাম (বিএসআরএফ)।
সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের রিমান্ড নাকচ, জামিন শুনানি বৃহস্পতিবার
১৮,মে,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের রিমান্ড আবেদন নাকচ করেছেন আদালত। মঙ্গলবার ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ জসিমের আদালত শুনানি শেষে রিমান্ড নামঞ্জুর করে রোজিনাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। রোজিনার জামিনের আবেদনের আংশিক শুনানি শেষে বিচারক বাকি শুনানির জন্য বৃহস্পতিবার তারিখ রেখেছেন। রোজিনার আইনজীবী এহসানুল হক সামাজী এ তথ্য জানিয়েছেন। এর আগে মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে রোজিনাকে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম (সিএমএম) আদালতে নেয়া হয়। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী হেমায়েত উদ্দিন খান হিরন। রোজিনা ইসলামকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাঁচ দিনের রিমান্ডে নেয়ার আবেদন করা হলে তার আইনজীবী এহসানুল হক সামাজী রিমান্ডের আবেদনের বিরোধিতা করে জামিন চান। শুনানি শেষে বিচারক জসিম উদ্দিন রোজিনার জামিন আদেশ ও রিমান্ড আবেদন বাতিল করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। রোজিনার জামিনের আবেদনের আংশিক শুনানি শেষে বিচারক বাকি শুনানির জন্য বৃহস্পতিবার তারিখ রেখেছেন।
স্বাস্থ্যের কর্মকর্তারা চেয়ারে বসতেই উঠে গেলেন সাংবাদিকরা
১৮,মে,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: দৈনিক প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা করে গ্রেফতারের প্রতিবাদে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ব্রিফিং বয়কটের ঘোষণা দিয়েছেন সাংবাদিকরা। এরই অংশ হিসেবে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তিনজন অতিরিক্তি সচিব ব্রিফিং করতে আসলে তা বয়কট করে তারা উঠে যান। মঙ্গলবার (১৮ মে) বেলা ১১টায় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের বিষয়ে ব্রিফিংয়ের কথা থাকলেও স্বাস্থের কর্মকর্তারা সম্মেলনকক্ষে প্রবেশ করেন ১১টা ২০ মিনিটে। এরপরই বাংলাদেশ সেক্রেটারিয়েট রিপোর্টার্স ফোরামের (বিএসআরএফ) সাধারণ সম্পাদক শামীম আহমেদ সংবাদ সম্মেলন বয়কট ঘোষণা করে সবাইকে সম্মেলন কেন্দ্র ত্যাগ করার অনুরোধ জানান। এরপর সেখান থেকে চলে যান সাংবাদিকরা। তিনি বলেন, গতকাল রোজিনা ইসলামের বিষয়ে কথা বলতে এবং ঘটনা জানতে আমরা দীর্ঘ সময় স্বাস্থ্য সচিবের রুমের সামনে অপেক্ষা করেছি, তিনি দেখা করেননি। তিনি আমাদের বারবার অপমান করেছেন। আজকের এই ব্রিফিং আমরা বয়কট করছি। পরবর্তী কর্মসূচি আমাদের বিএসআরএফের জরুরি সভা শেষে নেতৃবৃন্দ সিদ্ধান্ত নেবেন। তার এই ঘোষণার পর সব সাংবাদিক স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ব্রিফিং বয়কট করে বেরিয়ে যান। এ সময় বিএসআরএফের অর্থ সম্পাদক মাসউদুল হক ও কার্যনির্বাহী সদস্য মোরসালীন বাবলা উপস্থিত ছিলেন। এর আগে আজ সকালে বাংলাদেশ বিএসআরএফের সাধারণ সম্পাদক শামীম আহমেদ স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এই ব্রিফিং বয়কটের সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়। এতে বলা হয়, দৈনিক প্রথম আলোর সিনিয়র রিপোর্টার ও বাংলাদেশ সেক্রেটারিয়েট রিপোর্টার্স ফোরামের (বিএসআরএফ) সদস্য রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা করে গ্রেফতারের প্রতিবাদে আজকের (মঙ্গলবার) স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় আয়োজিত বেলা ১১টার সংবাদ সম্মেলন বয়কটের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। পরবর্তী কর্মসূচি কার্যনির্বাহী কমিটির আজকের জরুরি সভা থেকে ঘোষণা করা হবে। এ বিষয়ে সবার সহযোগিতা কামনা করছে বিএসআরএফ।
রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা: শাহবাগ থানার সামনে সাংবাদিকদের বিক্ষোভ, বিভিন্ন সংগঠনের নিন্দা
১৮,মে,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে সচিবালয়ে পাঁচ ঘণ্টা আটকে রেখে হেনস্তা এবং পরে শাহবাগ থানায় হস্তান্তরের ঘটনায় প্রতিবাদ জানাচ্ছেন বিভিন্ন গণমাধ্যমে কর্মরত সাংবাদিকেরা। এদিকে এ ঘটনায় বিভিন্ন সংগঠন ও সাংবাদিক নেতারা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। সোমবার রাতে শাহবাগ থানার ভেতরে অবস্থান নিয়ে সাংবাদিকেরা বিক্ষোভ করেন। তাঁরা রোজিনা ইসলামকে ছেড়ে দেওয়ার দাবি জানান। সাংবাদিকেরা এ ঘটনায় স্বাস্থ্যমন্ত্রী, স্বাস্থ্য সচিবের প্রতি ধিক্কার জানান। সাংবাদিকেরা মন্ত্রী সচিবের পদত্যাগ দাবি করেন। রাত সাড়ে ১১টায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বিক্ষোভ চলছিল। সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম সচিবালয়ে পেশাগত দায়িত্ব পালনের জন্য সচিবালয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে যান। সেখানে বিকেল তিনটার দিকে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা তাঁকে একটি কক্ষে আটক করেন। পরে রাত সাড়ে ৮টার দিকে রোজিনা ইসলামকে শাহবাগ থানার পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়। রোজিনা ইসলামকে ৯টার দিকে শাহবাগ থানায় নিয়ে যায় পুলিশ। সচিবালয়ে আটক অবস্থায় সাংবাদিক রোজিনা একপর্যায়ে অসুস্থ হয়ে পড়েন। বিভিন্ন গণমাধ্যমের সাংবাদিকেরা প্রথমে সচিবালয়ের সামনে অবস্থান করে বিক্ষোভ করেন। এরপর তারা সেখান থেকে শাহবাগ থানায় চলে আসেন। সেখানে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ-স্লোগান দেন তাঁরা। বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি এম আব্দুল্লাহ বলেন, রোজিনা ইসলামের সঙ্গে যে আচরণ করা হয়েছে তা ন্যাক্কারজনক। এ ঘটনায় সাংবাদিকেরা উদ্বিগ্ন, ক্ষুব্ধ ও বিস্মিত। স্বাধীন ও অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা এবং মুক্ত গণমাধ্যমের প্রতি ধারাবাহিক আক্রোশেরই প্রতিফলন। ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ আলম খান বলেন, কোনো নিরপরাধ সাংবাদিক যেন হয়রানির শিকার না হয় সেটা সরকারকে নিশ্চিত করতে হবে। নিন্দা জানিয়ে বিভিন্ন সংগঠনের বিবৃতি: বিশ্বব্যাপী সাংবাদিকদের অধিকার নিয়ে কাজ করা নিউইয়র্কভিত্তিক সংগঠন কমিটি টু প্রটেক্ট জার্নালিস্ট (সিপিজে) এক টুইট বার্তায় রোজিনা ইসলামকে আটক এবং পুলিশের কাছে হস্তান্তরের ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। বাংলাদেশে সচিবালয়ে তিনি পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়েছিলেন। তাঁকে অবিলম্বে ছেড়ে দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে সংগঠনটি। সিপিজে তাদের টুইটে সচিবালয়ে আটক অবস্থায় অসুস্থ হয়ে মেঝেতে পড়ে যাওয়া রোজিনা ইসলামের একটি ছবিও ব্যবহার করেছে। জাতীয় পার্টি: সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে আটক ও হেনস্তা করার ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন জাতীয় সংসদের বিরোধী দল জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান জি এম কাদের। তিনি এক বিবৃতিতে বলেন, মন্ত্রণালয়ের অভ্যন্তরে সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা করার ঘটনায় নিরপেক্ষ তদন্ত প্রয়োজন। তাঁর সঙ্গে যে আচরণ করা হয়েছে তা লজ্জাজনক। তিনি বলেন, স্বাধীন সাংবাদিকতা এবং সাংবাদিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা রাষ্ট্রের দায়িত্ব। বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ: পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় একজন নারী সাংবাদিকের ওপর সরকারের স্বাস্থ্য বিভাগের বিভাগের এই আচরণের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন মহিলা পরিষদের সভাপতি ফওজিয়া মোসলেম ও সাধারণ সম্পাদক মালেকা বানু। আইন ও সালিশ কেন্দ্র: রোজিনা ইসলামকে আটক ও হেনস্তার নিন্দা জানিয়ে আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক) এক বিবৃতিতে বলেছে, বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনের মাধ্যমে জনগণের তথ্য পাওয়ার অধিকার নিশ্চিত করতে রোজিনা ইসলাম কাজ করছেন। তিনি তাঁর প্রতিবেদনে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন দুর্নীতি ও অনিয়ম তুলে এনেছেন। এ ছাড়া করোনাকালীন সময়ে জনগণের স্বাস্থ্য অধিকার রক্ষায় মন্ত্রণালয়ের দূর্বলতাগুলোও তাঁর প্রতিবেদনে পরিষ্কারভাবে উঠে এসেছে। এসব প্রতিবেদন নিঃসন্দেহে স্বাস্থ্যখাতে সুশাসন ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে। এমন একজন সাংবাদিককে পেশাগত কাজের সময় এভাবে আটক করা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। রোজিনাকে আটকের এ ঘটনা গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ও সাংবাদিকদের পেশাগত দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে একটি অত্যন্ত বাজে দৃষ্টান্ত স্থাপন করবে, যা কোনোভাবেই প্রত্যাশিত নয়। সূত্র: প্রথম আলো
সচিবালয়ে পাঁচ ঘণ্টা আটকে রেখে থানায় নেওয়া হলো সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে
১৭,মে,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: পাঁচ ঘণ্টার বেশি সময় সচিবালয়ে আটকে রেখে শাহবাগ থানায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলামকে। রোজিনা ইসলাম পেশাগত দায়িত্ব পালনের জন্য আজ সোমবার বেলা সাড়ে তিনটার দিকে সচিবালয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে যান। তাঁকে সেখানে একটি কক্ষে আটকে রাখা হয় এবং তাঁর মুঠোফোন কেড়ে নেওয়া হয়। একপর্যায়ে সেখানে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। রোজিনা ইসলামকে আটকে রাখার খবর পেয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমের সাংবাদিকেরা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ওই ভবনে যান। কিন্তু দীর্ঘ সময় ধরে রোজিনাকে আটকে রাখার কারণ সম্পর্কে গণমাধ্যমকর্মীরা জানতে চাইলেও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা কিছুই জানাননি। পরে বিকেলে সাংবাদিকেরা সচিবালয়ের বাইরে জড়ো হয়ে রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা ও আটকে রাখার প্রতিবাদ করেন। জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি ফরিদা ইয়াসমিন বলেন, রোজিনা ইসলাম অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায় অনন্য। আন্তর্জাতিকভাবে তাঁর স্বীকৃতি আছে। এমন একজন সাংবাদিক পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গেলে তাঁকে ঘণ্টার পর ঘণ্টা আটকে রাখা অন্যায়, অনভিপ্রেত। কী কারণে এভাবে আটকে রাখা হয়েছে, অসুস্থ হওয়ার পরও তাঁকে হাসপাতালে না নেওয়ার বিষয়টির সুষ্ঠু তদন্ত হওয়া দরকার। রোজিনাকে হেনস্তা করার পেছনে দায়ী ব্যক্তিদের খুঁজে বের করতে হবে। রোজিনা ইসলামকে দীর্ঘ সময় আটকে রেখে হেনস্তা করা হয়েছে, এ বিষয়ে সচিবালয়ে উপস্থিত সাংবাদিকেরা স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিবের বক্তব্য জানার চেষ্টা করেন। কিন্তু সচিবের বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি। পরে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য কর্মকর্তা মাইদুল ইসলাম প্রধান সাংবাদিকদের বলেন, রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে কিছু নথির ছবি তোলার অভিযোগ এনে থানায় অভিযোগ করা হয়েছে। রোজিনা ইসলামকে শাহবাগ থানায় নিয়ে রাখা হয়েছে। পুলিশ জানায়, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে থানায় আনা হয়েছে। শাহবাগ থানার সামনে বিভিন্ন গণমাধ্যমের সাংবাদিকেরা অবস্থান করছেন। রোজিনা ইসলামকে দীর্ঘ সময় আটকে রেখে হেনস্তা করার ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি মুরসালিন নোমানী। তিনি অবিলম্বে রোজিনা ইসলামকে পুলিশ হেফাজত থেকে ছেড়ে দেওয়ার দাবি জানান। সূত্র: প্রথম আলো
বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় বেড়ে ২ হাজার ২২৭ ডলারে দাঁড়িয়েছে: পরিকল্পনামন্ত্রী
১৭,মে,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: দেশের মাথাপিছু আয় ২ হাজার ৬৪ মার্কিন ডলার থেকে বৃদ্ধি পেয়ে ২ হাজার ২২৭ মার্কিন ডলারে (১ লাখ ৮৮ হাজার ৮৭৩ টাকা) দাঁড়িয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার বৈঠকে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান এ কথা বলেন। বৈঠকের পর মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন। প্রধানমন্ত্রী গণভবন থেকে এবং মন্ত্রিপরিষদের অন্যান্য সদস্যরা বাংলাদেশ সচিবালয় থেকে ভার্চুয়ালি এই বৈঠকে যোগ দেন। মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ২০২০-২১ অর্থ-বছরে আমাদের মাথাপিছু আয় ২ হাজার ২২৭ মার্কিন ডলারে উন্নীত হয়েছে। এর আগে মাথাপিছু আয় ছিল ২ হাজার ৬৪ মার্কিন ডলার। তাই, এই প্রবৃদ্ধি ৯ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। তিনি আরো বলেন, প্রতি ডলারের বিপরীতে টাকার মান ৮৪.৮১ ধরে ১ লাখ ৮৮ হাজার ৮৭৩ টাকা হিসেবে করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, দেশের জিডিপিও বৃদ্ধি পেয়েছে। জিডিপি বৃদ্ধি পেয়ে ২৭,৯৬,৩৫৮ কোটি টাকা থেকে এখন ৩০,৮৭,৩০০ কোটি টাকায় পৌঁছেছে। এটি অত্যন্ত ভাল অর্জন। আজ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৪০তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উল্লেখ করে তিনি বলেন, এই শুভ দিনেই অর্জনটি প্রকাশ পেল। সভায়, স্বদেশ প্রত্যাবর্তন উপলক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা জানানো হয়।

জাতীয় পাতার আরো খবর