বুধবার, ডিসেম্বর ৮, ২০২১
ইভ্যালিতে পাওয়া যাবে বসুন্ধরা ফুড চেইনের খাবার
২৬,জুলাই,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ই-কমার্স ভিত্তিক দেশীয় অনলাইন মার্কেটপ্লেস ইভ্যালি ডট কম ডট বিডিতে পাওয়া যাবে বসুন্ধরা ফুড চেইনের খাবার। দেশের বৃহত্তম শিল্পগোষ্ঠী বসুন্ধরা গ্রুপের মালিকানাধীন তিনটি চেইন রেস্টুরেন্ট বাবা রাফি বাংলাদেশ, সানফ্লাওয়ার রেস্টুরেন্ট ও দ্য ফুড হলের খাবার এখন থেকে ইভ্যালিতে অর্ডার করতে পারবেন গ্রাহকরা। রোববার (২৬ জুলাই) এ লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠানটি দু টির মধ্যে একটি সমঝোতা চুক্তিপত্র (এমওইউ) স্বাক্ষরিত হয়। রাজধানীর বসুন্ধরা ইন্ডাস্ট্রিয়াল হেডকোয়ার্টার-২ এ অনুষ্ঠিত চুক্তি স্বাক্ষর পর্বে বসুন্ধরা গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান সাফওয়ান সোবহান তাসভির ও পরিচালক ইয়েসা সোবহান এবং ইভ্যালির চেয়ারম্যান শামিমা নাসরিন ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ রাসেল উপস্থিত ছিলেন। এসময় ইয়েসা সোবহান বসুন্ধরা গ্রুপের পক্ষে এবং শামিমা নাসরিন ইভ্যালির পক্ষে চুক্তিপত্রে স্বাক্ষর করেন। চুক্তি অনুসারে, বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা, বসুন্ধরা সিটি শপিং কমপ্লেক্স ও পূর্বাচল ৩০০ ফিট সড়ক সংলগ্ন মেহেদি ফুড কোর্টসহ রাজধানীতে অবস্থিত বসুন্ধরা ফুড চেইনের আওতাভুক্ত রেস্টুরেন্টগুলোর খাবার ইভ্যালিতেই অর্ডার করতে পারবেন গ্রাহকরা। বাবা রাফি বাংলাদেশ, সানফ্লাওয়ার রেস্টুরেন্ট ও দ্য ফুড হলে গ্রাহকদের অর্ডারকৃত খাবার সরবরাহ করবে ইভ্যালি। গ্রাহকদের জন্য আকর্ষণীয় অফারে খাবার হোম ডেলিভারি করা হবে বলে ইভ্যালির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। চুক্তি স্বাক্ষর বিষয়ে ইভ্যালির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ রাসেল বলেন, ই-ফুড নামে ইভ্যালির ফুড ডেলিভারি সেবা কার্যক্রম শুরু করে মাত্র দুই মাস আগে। ইভ্যালিতে নিবন্ধিত প্রায় ৩৫ লাখ গ্রাহক আছেন যাদের আমরা এ ফুড ডেলিভারি সেবা দিতে চাই। সেই লক্ষ্যে আজকে আমরা বসুন্ধরা গ্রুপের প্রতিষ্ঠান বাবা রাফি, সানফ্লাওয়ার রেস্টুরেন্ট ও দ্য ফুড হলের সঙ্গে চুক্তি করি। এর মাধ্যমে এসব রেস্টুরেন্টের খাবার ইভ্যালির সিস্টার কনসার্ন ই-ফুডের মাধ্যমে গ্রাহকদের কাছে সরবরাহ করা হবে। এছাড়া এসব রেস্টুরেন্টের ডাইন ইন সার্ভিসের সঙ্গে কীভাবে ইভ্যালি যুক্ত হতে পারে সেই বিষয়েও কাজ করা হবে। বসুন্ধরা গ্রুপের সঙ্গে যুক্ত হতে পারাটা আমাদের জন্য অতি আনন্দের ও সম্মানের একটি বিষয়। বর্তমানে ঢাকায় থাকা বসুন্ধরার এসব রেস্টুরেন্টের খাবার সরবরাহ করা হবে। পরবর্তীতে ঢাকার বাইরের অন্য শহরগুলোতেও এ সেবার পরিধি বাড়ানো হবে। অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বসুন্ধরা ইন্ডাস্ট্রিয়াল সেক্টর-সি এর চিফ ফিনান্সিয়াল অফিসার (অ্যাকাউন্টস অ্যান্ড ফিনান্স) মির্জা মুজাহিদুল ইসলাম, বসুন্ধরা পেপার মিলস লিমিটেড-২ এর অ্যাকাউন্টস অ্যান্ড ফিনান্স বিভাগের বিভাগীয় প্রধান মোহাম্মদ কামরুল হাসান ও সেক্টর-সি এর হেড অব মার্কেটিং মোহাম্মদ তৌফিক হাসান উপস্থিত ছিলেন। পাশাপাশি ইভ্যালির হেড অব করপোরেট বিজনেস সিরাজুল ইসলাম রানা, ই-ফুড বিভাগের প্রধান মোস্তাহিদ উল ইসলাম বাধনসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।
চার মামলায় ২৮ দিনের রিমান্ডে সাহেদ
২৬,জুলাই,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চার মামলায় রিজেন্ট গ্রুপ ও রিজেন্ট হাসপাতাল লিমিটেডের চেয়ারম্যান সাহেদ করিম ওরফে মো. সাহেদকে ২৮ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মাসুদ পারভেজেরও ২১ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়েছে। রোববার (২৬ জুলাই) ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতের রাজেশ চৌধুরী শুনানি শেষে এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এর আগে সকাল ১০টার দিকে ১০ দিনের রিমান্ড শেষে রাজধানীর উত্তরা পশ্চিমে তিনটি ও উত্তরা পূর্ব থানায় প্রতারণার এক মামলায় গ্রেফতার দেখানোর পর ১০ দিন করে মোট ৪০ দিনের রিমান্ড আবেদন করে আদালতে তাদের হাজির করা হয়। গত ১৬ জুলাই সাহেদকে ১০ দিনের রিমান্ডের আদেশ দেন আদালত। ওই রিমান্ড রোববার শেষ হয়েছে। গত ৬ জুলাই নানা অনিয়ম, প্রতারণা, সরকারের সঙ্গে চুক্তি ভঙ্গ, করোনা পরীক্ষার ভুয়া রিপোর্ট, সার্টিফিকেট দেওয়া ও রোগীদের কাছ থেকে টাকা নেওয়ার অভিযোগে রিজেন্ট গ্রুপের দুটি হাসপাতালে অভিযান চালায় Rabর ভ্রাম্যমাণ আদালত। অভিযানে নের্তৃত্ব দেন Rabর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. সারোয়ার আলম। অভিযানে গিয়ে প্রতারণার সত্যতা মেলে। সেই সঙ্গে পাওয়া যায় গুরুত্বপূর্ণ সব তথ্য। পরদিন গত ৭ জুলাই রিজেন্ট গ্রুপের মূল কার্যালয় এবং রাজধানীর উত্তরা ও মিরপুরে এর দুটি হাসপাতাল সিলগালা করে দেওয়া হয়। হাসপাতালটি প্রতারণা করে ১০ হাজারেরও বেশি করোনা পরীক্ষার সার্টিফিকেট দিয়েছে। এসব অভিযোগের ভিত্তিতে উত্তরা পশ্চিম থানায় রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান সাহেদসহ ১৭ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করে Rapid Action Battalion (Rab)। অভিযানের সময় রিজেন্ট হাসপাতালের পরিচালক ও ব্যবস্থাপকসহ আটজন কর্মীকে গ্রেফতার করে Rab। গ্রেফতার কর্মীদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের ভিত্তিতে গত ৯ জুলাই রিজেন্ট হাসপাতালের জনসংযোগ কর্মকর্তা তরিকুল ইসলাম শিবলীকে গ্রেফতার করা হয়। এরপর সর্বশেষ গত ১৫ জুলাই ভোরে Rabর বিশেষ অভিযানে সাতক্ষীরার দেবহাটা উপজেলার কোমরপুর গ্রামের লবঙ্গবতী নদীর তীর সীমান্ত এলাকা থেকে আত্মগোপনে থাকা রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান সাহেদকে গ্রেফতার করা হয়।
মৎস্য খাতকে আরো সমৃদ্ধ করতে সবাইকে কাজ করতে হবে : স্পিকার
২৫,জুলাই,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেছেন, দেশীয় পুষ্টির চাহিদা পূরণ করে অর্থনীতির চাকাকে সচল রাখতে মৎস্য খাতকে আরো সমৃদ্ধ করতে সংশ্লিষ্ট সবাইকে কাজ করতে হবে। তিনি বলেন, মৎস্য খাতকে আরো উন্নত করতে বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি করে মৎস্য চাষীদের জীবনমান উন্নয়নের চেষ্টা অব্যাহত রাখতে হবে। জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ ২০২০ উপলক্ষে আজ শনিবার জাতীয় সংসদ ভবন লেকে মাছের পোনা অবমুক্তকরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে তিনি এ কথা বলেন। তিনি মৎস্য চাষীদের কল্যাণ নিশ্চিত করতে প্রশিক্ষণ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলেও উল্লেখ করেন। চলমান করোনা পরিস্থিতির মাধ্যেও নিয়মিত কর্মকান্ডের অংশ হিসেবে এমন আয়োজনের জন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তরকে ধন্যবাদ জানান স্পিকার। জাতীয় সংসদের সিনিয়র সচিব ড. জাফর আহমেদ খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া ও চিফ হুইপ নূর-ই- আলম চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন। স্পিকার বলেন, প্রধানমন্ত্রী ইতোমধ্যে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহের উদ্বোধন করেছেন। তারই ধারাবাহিকতায় মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে এ কর্মসূচি পালন করা হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আজ বাংলাদেশ মিঠাপানির মাছ উৎপাদনে বিশ্বে চতুর্থ অবস্থানে রয়েছে। নদীমাতৃক বাংলাদেশের বড় সম্পদ মাছের উৎপাদন আরো বৃদ্ধি করার মাধ্যমে অর্থনীতিকে আরো বেগবান করতে হবে। পরে স্পিকার সংসদ ভবন লেকে মৎস্য পোনা অবমুক্তকরণ করেন। সংসদ ভবন লেকে চার প্রজাতির (রুই, কাতলা, মৃগেল ও কালিবাউস) ৬ হাজার ৮৮০টি মাছের পোনা অবমুক্ত করা হয়। মৎস্য অধিদপ্তরের উদ্যোগে এ অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন মৎস্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কাজী শামস আফরোজ। অনুষ্ঠানে হুইপ ইকবালুর রহিম, মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য মোছলেম উদ্দিন আহমদ, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা ও সংসদ সচিবালয়ের কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
শারমিন জাহান ৩ দিনের রিমান্ডে
২৫,জুলাই,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) সহকারি রেজিস্ট্রার ও অপরাজিতা ইন্টারন্যাশনালের মালিক শারমিন জাহানকে তিন দিনের রিমান্ডে নেয়া হয়েছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালের করোনা ইউনিটে নকল এন-৯৫ মাস্ক সরবরাহের অভিযোগে তাকে এ রিমান্ডে নেয়া হয়। আজ শনিবার ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মইনুল ইসলাম এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন। শারমিন জাহানকে আজ আদালতে হাজির করে তার বিরুদ্ধে তিন দিনের রিমান্ডের আবেদন করে তদন্তকারী কর্মকর্তা ডিবি পুলিশ ইন্সপেক্টর মো. আক্তারুজ্জামান ইলিয়াস। আদালত উভয় পক্ষের শুনানি শেষে এ আদেশ দেন। এরআগে নকল মাস্ক সরবরাহের অভিযোগে শারমিন জাহানকে গ্রেফতার করেছে গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) একটি দল। শুক্রবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে রাজধানীর শাহবাগ এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গণমাধ্যম শাখার প্রধান উপ-কমিশনার (ডিসি) ওয়ালিদ হোসেন শারমিনের গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, শুক্রবার রাতে শাহবাগ এলাকার একটি বাসা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। পরে শারমিনকে ডিবি কার্যালয়ে আনা হয়েছে। আজ তাকে আদালতে হাজির করা হলে বিচারক এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এরআগে নকল মাস্ক সরবরাহের অভিযোগে অপরাজিতা ইন্টারন্যাশনালের স্বত্বাধিকারী শারমিন জাহানের বিরুদ্ধে রাজধানীর শাহবাগ থানায় একটি মামলা করে বিএসএমএমইউ কর্তৃপক্ষ। নকল ও ত্রুটিপূর্ণ মাস্ক সরবরার্হে অভিযোগে গত বৃহস্পতিবার রাতে বিএসএমএমইউর প্রক্টর বাদি হয়ে এ মামলা করে। শারমিনের সরবরাহকৃত মাস্কের কারণে করোনা চিকিৎসায় জড়িত ডাক্তার ও নার্সসহ কোভিড-১৯ সম্মুখযোদ্ধাদের জীবন মারাত্মক ঝুঁকিতে পড়েছে বলে মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়। শারমিন জাহান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগে স্নাতকোত্তর শেষে বিশ্ববিদ্যালয়েরই প্রশাসন-১ শাখায় সহকারী রেজিস্ট্রার হিসেবে যোগদান করেন। তার বাড়ি নেত্রকোনার পূর্বধলার শ্যামগঞ্জের গোহালকান্দায়। মামলায় বিএসএমএইউয়ের প্রক্টর মো. মোজাফফর আহমেদ জানিয়েছেন, গত ২৭ জুন শারমিন জাহানকে ১১ হাজার মাস্ক সরবরাহের কার্যাদেশ দেয় বিশ্ববিদ্যালয়। কার্যাদেশের বিপরীতে তিনি ৩০ জুন প্রথম দফায় ১ হাজার ৩০০টি, ২ জুলাই দ্বিতীয় ও তৃতীয় দফায় ৪৬০টি ও ১ হাজার এবং ১৩ জুলাই চতুর্থ দফায় ৭০০টি মাস্ক সরবরাহ করে। প্রথম ও দ্বিতীয় দফার মাস্কে কোনো সমস্যা ছিল না। তৃতীয় ও চতুর্থ দফায় লট বিতরণ ও ব্যবহারে ত্রুটি পাওয়া যায় এবং মাস্কের গুণগত মান স্পেসিফিকেশন অনুযায়ি পাওয়া যায়নি। কোনো মাস্কের বন্ধনি ফিতা ছিঁড়ে গেছে, কোনো মাস্কের ছাপানো লেখায় ত্রুটিপূর্ণ ইংরেজি লেখা পাওয়া গেছে, কোনো কোনো মাস্কের নিরাপত্তা কোড ও লট নম্বর প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইটে গিয়ে নকল বলে জানা গেছে।
নতুন সিভিএফ দূত সায়মা ওয়াজেদকে তথ্যমন্ত্রীর অভিনন্দন
২৫,জুলাই,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকিতে থাকা ৪৮টি দেশের জোট ক্লাইমেট ভালনারেবল ফোরামের (সিভিএফ) দূত মনোনীত হওয়ায় সায়মা ওয়াজেদ হোসেন পুতুলকে অভিনন্দন জানিয়েছেন পরিবেশ গবেষক ও তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। আজ এক অভিনন্দন বার্তায় সাবেক পরিবেশমন্ত্রী, আওয়ামী লীগের প্রথম ও এক দশকের পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক (২০০২-২০১২) ও তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান বলেন, অত্যন্ত কম কার্বন নি:সারক হয়েও বাংলাদেশ বৈশ্বিক জলবায়ু পরিবর্তনের শিকার। কিন্তু গর্বের কথা এই যে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ এ বিষয়ে অধিকার আদায়ের সংগ্রামে বিশ্বে পথিকৃৎ হিসেবে স্বীকৃত। জননেত্রীর পদাঙ্ক অনুসরণ করে তার কন্যা সায়মা ওয়াজেদ সিভিএফ দূত হিসেবে জলবায়ু পরিবর্তন ও বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধিতে ক্ষতিগ্রস্ত ও ঝুঁকির সম্মুখীন দেশগুলোর পক্ষে এখন বিশ্বের সামনে দাঁড়াবেন এবং আমি আন্তরিকভাবে এ দায়িত্ব পালনে তার সর্বোতসাফল্য কামনা করি, জানান পরিবেশ রসায়নে পিএইচডি হাছান মাহমুদ। পাশাপাশি সায়মা ওয়াজেদ হোসেন পুতুল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মানসিক স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ প্যানেল সদস্য, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় সংস্থাটির অটিজম বিষয়ক শুভেচ্ছা দূত এবং বাংলাদেশের অটিজম বিষয়ক জাতীয় কমিটির চেয়ারপারসন হিসেবে দায়িত্ব পালনরত। সায়মা ওয়াজেদ হোসেন পুতুল এর সাথে মালদ্বীপের সাবেক প্রেসিডেন্ট নাশিদ কামাল, ফিলিপাইনের ডেপুটি স্পিকার লরেন লেগ্রেডা ও কঙ্গোর জলবায়ু বিশেষজ্ঞ তোসি মাপ্নু সিভিএফ এর বিষয়ভিত্তিক দূত হিসেবে মনোনীত হয়েছেন। বাংলাদেশ ২০২০-২১ দু বছরের জন্য এ ফোরামের প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালন করছে।
স্বাস্থ্যখাতে দুর্নীতির দায় শুধু সরকারের নয়: নতুন ডিজি
২৫,জুলাই,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: স্বাস্থ্যৎখাতের দুর্নীতির দায় শুধু সরকারের নয়। বর্তমান পরিস্থিতিতে ঘুরে দাঁড়ানোই বড় চ্যালেঞ্জ বলে মনে করেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের নবনিযুক্ত মহাপরিচালক ডা. আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশীদ আালম। শনিবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন তিনি। স্বাস্থ্য অধিদফতরের নতুন ডিজি হিসেবে নিয়োগ পান ডা. আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম। ঢাকা মেডিকেলের সার্জারি বিভাগের প্রধান থেকে এখন তিনি স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক। নানা অনিয়মের অভিযোগে বিতর্কিত ডিজি আবুল কালাম আজাদের পদত্যাগের পর অধিদফতর ঢেলে সাজানোর সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। এরই ধারাবাহিকতায় একের পর এক আসছে পরিবর্তন। করোনা মহামারী মোকাবিলায় শুরু থেকেই প্রশ্নের মুখে পড়ে স্বাস্থ্য অধিদফতর। কোভিড পরীক্ষা থেকে শুরু করে চিকিৎসার সব ক্ষেত্রেই ব্যর্থতার পাল্লাই ভারী সংস্থাটির। এর মধ্যে আসতে থাকে স্বাস্থ্য ডিজি আবুল কালাম আজাদের নানা অনিয়ম ও বিতর্কিত সিদ্ধান্তের খতিয়ান। দাবি ওঠে তার পদত্যাগের। রিজেন্ট, জেকেজি ও সাহাবুদ্দিন মেডিকেল কেলেঙ্কারির ঘটনায় নানা মহলের সমালোচনার মুখে মঙ্গলবার পদত্যাগপত্র জমা দেন বিতর্কিত ডিজি আজাদ। বিপর্যয়ের মুখে পড়া স্বাস্থ্য বিভাগের হাল কে ধরছেন তা নিয়ে চলতে থাকে আলোচনা। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ঢাকা মেডিকেলের সার্জারি বিভাগের অধ্যাপক আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশীদ আলমকে মহাপরিচালক নিয়োগ দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করে সরকার। রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এ প্রজ্ঞাপন জারি করে।
করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৩৮ মৃত্যু, শনাক্ত ২৫২০
২৫,জুলাই,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও ৩৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মৃত্যু হয়েছে দুই হাজার ৮৭৪ জনের। নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন দুই হাজার ৫২০ জন। সব মিলিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে দুই লাখ ২১ হাজার ১৭৮ জনে। শনিবার (২৫ জুলাই) দুপুর আড়াইটায় করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত নিয়মিত অনলাইন স্বাস্থ্য বুলেটিনে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা এ তথ্য জানান। তিনি জানান, ঢাকা সিটিসহ দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ও বাড়িতে উপসর্গ বিহীন রোগীসহ গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন এক হাজার ১১৪ জন। এ পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন এক লাখ ২২ হাজার ৯০ জন। তিনি আরও জানান, সারাদেশে ৮০টি ল্যাব আছে। সরকারি ব্যবস্থাপনায় ৪৮টি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ৩২টি ল্যাব চালু আছে। গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে নয় হাজার ৬১৫টি। আগের নমুনাসহ মোট নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ১০ হাজার ৪৪৬টি। এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ১১ লাখ ৪৮০টি। নাসিমা সুলতানা জানান, ২৪ ঘণ্টায় মৃত ৩৮ জনের মধ্যে ২৯ জন পুরুষ ও নারী নয় জন। এদের মধ্যে রয়েছেন ঢাকা বিভাগে ১৭ জন, চট্টগ্রাম ও খুলনা বিভাগে চার জন করে আট জন, রাজশাহী বিভাগে আট জন, ময়মনসিংহ বিভাগে তিন জন, সিলেট ও রংপুর বিভাগে এক জন করে দুই জন। এদের মধ্যে হাসপাতালে ৩৪ জন ও বাসায় মারা গেছেন তিন জন এবং হাসপাতালে নেওয়ার পথে এক জন মারা গেছেন। মৃতদের বয়স বিশ্লেষণে দেখা যায়, ১০০ বছরের ঊর্ধ্বে এক জন, ৮১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে চার জন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে নয় জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে আট জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে সাত জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে ছয় জন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে তিন জন রয়েছেন। তিনি জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে এসেছেন ৬৫৯ জন ও আইসোলেশন থেকে ছাড় পেয়েছেন ৪১৭ জন। এ পর্যন্ত আইসোলেশনে এসেছেন ৪৬ হাজার ৫৫৯ জন। আইসোলেশন থেকে ছাড়পত্র নিয়েছেন ২৭ হাজার ৩৫৭ জন। বর্তমানে আইসোলেশনে আছেন ১৯ হাজার ২০২ জন।
রাষ্ট্রপতির কৃতজ্ঞতা প্রকাশ
২৪,জুলাই,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ তাঁর ছোট ভাই আবদুল হাই এর মৃত্যুতে দেশ ও দেশের বাইরে যেসব ব্যক্তি শোক ও সমবেদনা জানিয়েছেন তাঁদের প্রতি গভীর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন। বিশেষ করে ভারতের রাষ্ট্রপতি রাম নাথ কোভিন্দ, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরিন শারমিন চৌধুরী, বাংলাদেশের প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন, মন্ত্রিপরিষদের সদস্যবৃন্দ, সংসদ সদস্যবৃন্দ, সামরিক ও বেসামরিক প্রশাসনের পদস্থ কর্মকর্তাবৃন্দ, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, শিক্ষাবিদ, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, সাংবাদিক, সুধীজনসহ সমাজের বিভিন্ন পর্যায়ের ব্যক্তিবর্গ যাঁরা শোকের সময় পাশে থেকে সহানুভূতি ও সহমর্মিতা জানিয়েছেন তাঁদের প্রতি রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানান। বর্ষার এ মৌসুমে বৈরী আবহাওয়া উপেক্ষা করে দূরদূরান্ত থেকে অনেক কষ্ট স্বীকার করে মিঠামইন সদরে মুক্তিযোদ্ধা আবদুল হক সরকারি কলেজ মাঠে আবদুল হাই এর নামাজে জানাযায় যাঁরা অংশগ্রহণ করেছেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সহানুভূতি ও সহমর্মিতা জানিয়েছেন তাঁদের প্রতিও রাষ্ট্রপতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন। রাষ্ট্রপতি স্থানীয় রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, প্রশাসন, সশস্ত্র বাহিনী, পিজিআর, এসএসএফ, পুলিশ বাহিনীর সদস্যসহ বিভিন্ন বাহিনী ও সংস্থার সদস্য, গণমাধ্যমের প্রতিনিধিবৃন্দ, এলাকার সর্বস্তরের জনগণ যাঁরা নানা প্রতিকূলতা সত্বেও নিজ নিজ অবস্থান থেকে সার্বিক সহযোগিতা প্রদান করেছেন তাঁদের প্রতিও গভীর কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানিয়েছেন। রাষ্ট্রপতি আশা প্রকাশ করেন যে, শোকের এ সময়ে শুভানুধ্যায়ীদের সহানুভূতি ও সহমর্মিতা শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের মনে সাহস যোগাবে এবং ভবিষ্যত চলার পথ সুগম করবে। রাষ্ট্রপতি মরহুমের রুহের মাগফিরাতের জন্য সকলের দোয়া কামনা করেন।

জাতীয় পাতার আরো খবর