সেই মুর্তজার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করবে না সৌদি আরব!

১৬জুন২০১৯,রবিবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সৌদি আরবে ১৩ বছর বয়সে আটক মুর্তজা কুরেইরিসকে দেওয়া মৃত্যুদণ্ড বাতিল করেছে দেশটির সরকার। ২০২২ সালেই তাকে মুক্তি দেওয়া হতে পারে। শনিবার ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এ কথা জানিয়েছেন দেশটির এক কর্মকর্তা। তবে আনুষ্ঠানিকভাবে সরকারের পক্ষ থেকে এখনো কোনো বিবৃতি দেওয়া হয়নি। আরবের দুর্নীতিপ্রবণ ও জনবিরোধী শাসকদের বিরুদ্ধে যখন বসন্তের ঢেউ খেলে গিয়েছিল, সে সময় সৌদি রাজতন্ত্রের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়েছিল শিশু মুর্তজা কুরেইরিস। বন্ধুদের সঙ্গে নিয়ে নিরস্ত্র অবস্থায় সাইকেল নিয়ে অহিংস প্রতিবাদে নেমেছিল সে। মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন সম্প্রতি তাদের এক বিশেষ অনুসন্ধানের মাধ্যমে জানতে সক্ষম হয়, সুদীর্ঘ নিপীড়ন ও নির্যাতনের মধ্য দিয়ে তার মিথ্যা স্বীকারোক্তি আদায় করা হয়েছে। সবশেষে শান্তিপূর্ণ সরকার বিরোধিতার শাস্তি হিসেবে ওই শিশুর মৃত্যুদণ্ডের সাজা ঘোষিত হয়েছে। যুক্তরাজ্যভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল সিএনএনে প্রকাশিত প্রতিবেদনটির সত্যতা যাচাই করেছে। লেখক-সাংবাদিক ইয়ান ফ্রেজার এক টুইট বার্তায় বলেন, সৌদি তরুণ এমন ১০ বছর বয়সে গণতন্ত্রের দাবিতে প্রতিবাদে নামার শাস্তি হিসেবে মৃত্যুদণ্ড পেতে যাচ্ছে, এরপর তার মরদেহ সম্ভবত জনসমক্ষে ঝুলিয়ে রাখা হবে। তবে সর্বশেষ সৌদি কর্মকর্তা জানালেন, মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হচ্ছে না মুর্তজাকে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই কর্মকর্তা বলেন, তার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হবে না। সৌদি সাংবাদিক জামাল খাসোগির হত্যাকাণ্ডের পর সারা বিশ্বের সমালোচনার মুখে পড়ে সৌদি আরব। এ ছাড়া দেশটিতে মানবাধিকারকর্মীদের ওপর চড়াও হওয়ার রেকর্ড রয়েছে সৌদি সরকারের। বুধবার অস্ট্রিয়ার সরকার জানায়, মুর্তাজার মৃত্যুদণ্ডের প্রতিবাদে তারা ভিয়েনায় সৌদি অর্থায়নে পরিচালিত ধর্মীয় কেন্দ্রগুলো বন্ধ করে দেওয়ার পরিকল্পনা করছে।-এনটিভি...

ভারতে চিকিৎসকদের কর্মবিরতি

১৪ জুন২০১৯,শুক্রবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম:ভারতের পশ্চিমবঙ্গের চিকিৎসকদের কর্মবিরতি ও প্রতিবাদকে সমর্থন জানিয়ে নয়াদিল্লি, মুম্বাই ও হায়দরাবাদের চিকিৎসকরা একদিনের কর্মবিরতির ডাক দিয়েছেন। ফলে এই সব হাসপাতালের আউটডোর এবং অন্যান্য সেবা কার্যত বন্ধ রয়েছে। নয়াদিল্লির অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল সায়েন্সেসের (এইমস) সুপারিটেন্ডেন্ট ডিকে শর্মা একটি বিবৃতিতে জানিয়েছেন, ইমার্জেন্সি সেবা স্বাভাবিক থাকবে। রেসিডেন্ট চিকিৎসকরা ইমার্জেন্সি সেবা দেবেন অন্যদিনের মতোই। এইমসে চিকিৎসা নিতে আসা এক রোগীর আত্মীয় জানিয়েছেন, তার মায়ের ডায়ালিসিস আজ হওয়ার কথা। তাদের বলা হয়েছে চলে যেতে এবং অন্য কোথাও থেকে এটা করিয়ে নিতে। সোমবার থেকে চলা জুনিয়র চিকিৎসকদের ধর্মঘটের ফলে রাজ্যের সব সরকারি হাসপাতালের সেবা ব্যাহত হয়েছে। গত চার দিন ধরে ইমার্জেন্সি বিভাগ, আউটডোর বিভাগ ও প্যাথলজিক্যাল বিভাগের পরিষেবা মিলছে না। পাওয়া যাচ্ছে না ব্যক্তিগত চিকিৎসা সেবাও। রোগীর আত্মীয়স্বজনের হাতে এক জুনিয়র চিকিৎসকের আক্রান্ত হওয়ার প্রতিবাদে ওই ধর্মঘট ডেকেছেন চিকিৎসকরা। চিকিৎসকদের পক্ষে জানানো হয়েছে, যতক্ষণ না তারা নিরাপত্তা পাচ্ছেন, তারা কাজে ফিরবেন না। কলকাতার এক সরকারি হাসপাতালে পরিদর্শনে গিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় চিকিৎসকদের হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, কাজে ফিরতে হবে। যারা কাজে ফিরতে চান না, তাদের চাকরি ছেড়ে দিতে বলেন তিনি।...

নির্দিষ্ট সময়ে অফিস, বাড়িতে ফাইল দেখা যাবে না: মন্ত্রীদের বললেন মোদি

১৩জুন২০১৯,বৃহস্পতিবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ভারতের কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার সদস্যরা কী করতে পারবেন আর কী করতে পারবেন না সে সম্পর্কে তাদের কয়েকটি বিষয় মাথায় রাখতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। মন্ত্রিসভার প্রথম বৈঠকে এ ব্যাপারে আলোচনা হয়েছে বলে জানিয়েছে ভারতীয় গণমাধ্যম এনডিটিভি। এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়, মন্ত্রীদের নিয়মিত এবং নির্দিষ্ট সময় নিজেদের মন্ত্রণালয়ে আসতে বলেছেন মোদি। একইসঙ্গে বাড়িতে বসে ফাইল দেখার অভ্যাস পরিত্যাগ করার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। পাশাপাশি এবার যারা প্রথমবার মন্ত্রী হয়েছেন তাদের সাহায্য করার কথাও বলেছেন মোদি। সরকারি কাজ কিভাবে হয় সে সম্পর্কে নতুনদের ধারণা কম। এজন্য প্রবীণদেরই সাহায্য করতে হবে বলে তিনি জানিয়েছেন। মন্ত্রীদের মোদি আরও বলেছেন, সংশ্লিষ্ট প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে সরকারি ফাইল ভাগ করে নিতে। এতে তাদের আগ্রহ বাড়বে এবং আরও ভালো ও দ্রুত কাজ হবে বলে মনে করেন তিনি। একইসঙ্গে দলীয় কর্মীদের সঙ্গে দেখা করার জন্য মন্ত্রীদের একটি করে দিন ধার্য করার কথাও বলেছেন মোদি। সাংসদরা যাতে চাইলেই মন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে পারেন সেটাও নিশ্চিত করার কথা বলেছেন তিনি। কয়েকটি সূত্র জানিয়েছে, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি প্রতিদিন ভোরে ঘুম থেকে ওঠেন। এরপর শরীরচর্চা শেষ করে দিনের কাজ শুরু করেন। মোদি চান, তার মন্ত্রিসভার সদস্যরাও প্রতিদিন নিয়ম মেনে কাজ করুক।...

সুদানে সহিংসতার কঠোর নিন্দা জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের

১২জুন২০১৯,বুধবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ সুদানে সাম্প্রতিক সহিংসতার কঠোর নিন্দা এবং এ সংকট সমাধানে কাজ করতে খার্তুমের সামরিক শাসক ও বিক্ষোভ-আন্দোলনের নেতাদের আহ্বান জানিয়েছে। খবর এএফপির। মঙ্গলবার সর্বসম্মতিক্রমে দেয়া এক বিবৃতিতে নিরাপত্তা পরিষদ বেসামরিক নাগরিকদের বিরুদ্ধে দ্রুত বিভিন্ন হামলা বন্ধের এবং মানবাধিকার সমুন্নত রাখার গুরুত্বের ওপর জোর দেয়ার আহ্বান জানিয়েছে। সুদানের এ সংকট প্রশ্নে একই ধরনের আরেকটি খসড়া বিবৃতির ব্যাপারে রাশিয়া ও চীন বাধা দেয়ার এক সপ্তাহ পর বিশ্বের ক্ষমতাধর দেশগুলোর পক্ষ থেকে এ আবেদন করা হয়। চিকিৎসকদের নিয়ে গঠিত একটি কমিটির মতে, গত ৩ জুন বিক্ষোভকারীদের ওপর ব্যাপক দমনপীড়ন চালানোর সময় শতাধিক লোক নিহত হয়। তবে সরকারি কর্মকর্তারা জানান, মৃতের প্রকৃত সংখ্যা এর চেয়ে অনেক কম। উল্লেখ্য, সুদানের প্রেসিডেন্ট ওমর আল-বশিরের বিরুদ্ধে দেশব্যাপী মাসের পর মাস বিক্ষোভের পর গত ১১ এপ্রিল তিনি ক্ষমতাচ্যুত হন। আর এর পর থেকেই সামরিক পরিষদ দেশটির নেতৃত্ব দিয়ে আসছে। এদিকে বিক্ষোভকারীরা অব্যাহত সামরিক শাসনের অবসানের দাবি জানিয়ে আসছে। এর ফলে সুদানের নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা গত ৩ জুন খার্তুমে সামরিক সদরদপ্তরের বাইরে জড়ো হওয়া বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে ব্যাপক শক্তি প্রয়োগ করে। এতে সেখানে ওই প্রাণহানির ঘটনা ঘটে।-বাসস ...

বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ড. শিরীণ আখতারের পুষ্পমাল্য অর্পণ

১৭জুন২০১৯,সোমবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. শিরীণ আখতারকে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের রুটিন দায়িত্ব প্রদান করায় গতকাল তিনি চবি বঙ্গবন্ধু চত্বরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুস্পমাল্য অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এ সময় চবি সিনেট ও সিন্ডিকেট সদস্যবৃন্দ, চবি বিভিন্ন অনুষদের ডিনবৃন্দ, শিক্ষক সমিতির নেতৃবৃন্দ, রেজিস্ট্রার, বিভিন্ন হলের প্রভোস্টবৃন্দ, বিভাগীয় সভাপতি, ইনস্টিটিউট ও গবেষণা কেন্দ্রের পরিচালকব শিক্ষকবৃন্দ, প্রক্টর, অফিস প্রধানবৃন্দ, অফিসার সমিতি, কর্মচারী সমিতি ও কর্মচারী ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ, শিক্ষার্থীবৃন্দ এবং সর্বস্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। পরে উপাচার্য দপ্তরের সভাকক্ষে সকলের উপস্থিতি ও অংশগ্রহণে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ও দেশ-জাতির উন্নয়ন-অগ্রগতি এবং কল্যাণ কামনাসহ মহান আল্লাহর দরবারে শুকরিয়া আদায় করে বিশেষ দোয়া ও মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়। পূর্বাহ্নে চবি উপাচার্য দপ্তরে পবিত্র খতমে কোরআন ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।...

ঝিনাইদহে ট্রাক উল্টে খাদে, চালক ও সহকারী নিহত

১৬জুন২০১৯,রবিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলায় সিমেন্টবোঝাই ট্রাক উল্টে চালক ও তাঁর সহকারী (হেলপার) নিহত হয়েছেন। আজ রোববার সকাল ৬টার দিকে উপজেলার ছালাভরা নামক স্থানে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত ট্রাকচালক সুজন (৩০) কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা উপজেলার মাধবপুর গ্রামের মানিক আলীর ছেলে। তবে চালকের সহকারীর নাম-পরিচয় জানা যায়নি। ঝিনাইদহ ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের উপসহকারী পরিচালক রফিকুল ইসলাম বলেন, সকালে সিমেন্টবোঝাই ট্রাকটি কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা উপজেলার দিকে যাচ্ছিল। পথে ট্রাকটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে খাদে উল্টে পড়ে। এতে ঘটনাস্থলেই চালক সুজন ও তাঁর সহকারী নিহত হন। লাশ উদ্ধার করে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে বলে জানান ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তা রফিকুল। ...

আওয়ামী লীগ কর্মী খুন

১৪ জুন২০১৯,শুক্রবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম:যশোরের চৌগাছায় দলীয় প্রতিপক্ষের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে মমিনুর রহমান (৫০) নামে এক আওয়ামী লীগ কর্মী খুন হয়েছে। তিনি উপজেলার চৌগাছা সদর ইউনিয়নের লস্কারপুর গ্রামের শামসুদ্দিন ওরফে ইসমাইলের ছেলে। আজ শুক্রবার সকালে এ ঘটনা ঘটে। প্রত্যক্ষদর্শী নিহতের ভাতিজা রাকিব হোসেন ও স্ত্রী শেফালী বেগম বলেন, শুক্রবার সকালে বাড়ির পাশের পুকুরে নেটের পাটা দেয়ার কাজ করছিল। এ সময় একই গ্রামের মৃত সিরাজুল ইসলাম ওরফে সিরাজের ছেলে আলম হোসেন, মশিয়ার রহমান ও ইউনুছ আলীর নেতৃত্বে আলমের ছেলে তুষার, মশিয়ারের ছেলে সুমন, আলমের শ্যালক আবু বক্করের ছেলে নান্নু, আলমের ভাগ্নে চুরামনকাঠি গ্রামের রাসেল মমিনুরের উপর পরিকল্পিত ভাবে হামলা চালায়। এ সময় তারা দেশীয় অস্ত্র রাম-দা ও গাছি-দা দিয়ে এলোপাতাড়ি ভাবে কুপিয়ে মৃত ভেবে ফেলে রেখে চলে যায়। হামলাকারীরা ঘটনাস্থল ছেড়ে গেলে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে চৌগাছা মডেল হাসপাতালে নিলে জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। চৌগাছা মডেল হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. সুব্রত কুমার বাগচী বলেন, হাসপাতালে আনার আগেই তার মৃত্যু হয়েছে। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে তার মৃত্যু হয়েছে। নিহতের দুই হাত, বুকে, পিঠসহ সমস্ত শরীরে ধারালো অস্ত্রের আঘাত রয়েছে।...

মাদকাসক্ত নাতির হাতে নানী খুন

১৪ জুন২০১৯,শুক্রবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম:বগুড়ার সোনাতলায় মাদকাসক্ত নাতি সুখদেব দাসের (২১) হাতে নানী জোছনা বালা (৫৫) খুন হয়েছেন। ঘটনার পর ঘাতক নাতিকে আটক করে পুলিশে দিয়েছে স্থানীয় লোকজন। বৃহস্পতিবার রাতে বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার চক নন্দন গ্রামে এ হত্যাকান্ড ঘটে। নিহত জোছনা বালা একই গ্রামের মৃত উপেন দাসের স্ত্রী। সোনাতলা থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জাহিদ হোসেন জানান, হতদরিদ্র পরিবারের ছেলে সুখদেব তার নানা বাড়িতে থেকে সোনাতলা বাজারে শ্রমিকের কাজ করে। সে একজন মাদকাসক্ত এবং তার মানসিক সমস্যা রয়েছে। কোনো কারণে ক্ষিপ্ত হয়ে বৃহস্পতিবার গভীর রাতে সুখদেব কাঁচি দিয়ে তার নানীর পেটে আঘাত করলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। ভোর চারটার দিকে স্থানীয় লোকজন ঘটনাটি জানতে পেরে সুখদেবকে আটক করে পুলিশের হাতে তুলে দেয়। তিনি আরো জানান, লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।...

২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে যা আছে

১৩জুন২০১৯,বৃহস্পতিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: ২০১৯-২০ অর্থবছরে মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য সম্মানী ভাতা ১০ হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে ১২ হাজার টাকায় উন্নীত করার প্রস্তাব করা হয়েছে। ২০১৯-২০ অর্থবছরে জাতীয় বাজেটে সামাজিক নিরাপত্তা খাতে ৭৪ হাজার ৩৬৭ কোটি টাকা বরাদ্দ প্রস্তাব করা হয়েছে। এ বরাদ্দ জাতীয় বাজেটের শতকরা ১৪ দশমিক ২১ ভাগ এবং জিডিপির শতকরা ২ দশমিক ৫৮ ভাগ। গত অর্থবছরে সামাজিক নিরাপত্তা খাতে বরাদ্দের পরিমাণ ছিলো ৬৪ হাজার ৪০৪ কোটি টাকা। প্রতিবন্ধী ছাত্র-ছাত্রীদের উপবৃত্তির সংখ্যা ৯০ হাজার থেকে ১ লাখ জনে বাড়ানো এবং উপবৃত্তির হার বাড়িয়ে প্রাথমিক স্তরে ৭০০ টাকা থেকে ৭৫০ টাকা, মাধ্যমিক স্তরে ৭৫০ টাকা থেকে ৮০০ টাকা এবং উচ্চ মাধ্যমিক স্তরে ৮৫০ টাকা থেকে ৯০০ টাকা বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়েছে। এবারের বাজেটে বড় আকারের ব্যয় মেটাতে মোট রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৩ লাখ ৭৭ হাজার ৮১০ কোটি টাকা। এটি জিডিপির ১৩ দশমিক ১ শতাংশের সমান। এরমধ্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) আদায় করবে ৩ লাখ ২৫ হাজার ৬০০ কোটি টাকা, এনবিআর বহির্ভূত কর আদায় ধরা হয়েছে ১৪ হাজার ৫০০ কোটি টাকা। কর ছাড়া আদায় বা প্রাপ্তি ধরা হয়েছে ৩৭ হাজার ৭১০ কোটি টাকা। বিদায়ী অর্থবছরে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্য হচ্ছে ৩ লাখ ৩৯ হাজার ২৮০ কোটি টাকা। নতুন বাজেটে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ৩৮ হাজার ৫৩০ কোটি টাকা বেশি ধরা হয়েছে। মোবাইল: মোবাইল গ্রাহকের কথা বলার ওপর করহার বাড়ছে। ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে চলমান ৫ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক বাড়িয়ে ১০ শতাংশ করার প্রস্তাব করা হয়েছে। এতে একজন গ্রাহক ১০০ টাকা রিচার্জ করলে তা থেকে প্রায় ২৭ টাকা কর বাবদ নিয়ে যাবে সরকার, যা এখন ২২ টাকা। ফলে গ্রাহক যত বেশি কথা বলবে, তত বেশি কর পাবে সরকার। বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে এই বাজেট প্রস্তাব উপস্থাপন করেন অর্থমন্ত্রী। বাজেট প্রস্তাবে তিনি এ লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেন। এর আগে বাজেটে মন্ত্রিসভা অনুমোদন দেয় এবং পরে ওই প্রস্তাবে সই করবেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। এটি দেশের ৪৮তম ও বর্তমান সরকারের তৃতীয় মেয়াদের প্রথম বাজেট। অর্থমন্ত্রী হিসেবে আ হ ম মুস্তফা কামালের প্রথম বাজেট। যদিও গত সরকারের পরিকল্পনামন্ত্রী হিসেবে অনেক বাজেট প্রণয়নে পরোক্ষভাবে জড়িত ছিলেন তিনি। বর্তমানে মোবাইল সেবার ওপর ১৫ শতাংশ মূল্য সংযোজন কর (ভ্যাট), ৫ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক এবং তার সঙ্গে ১ শতাংশ সারচার্জসহ মোট করের পরিমাণ প্রায় ২২ শতাংশ। প্রস্তাবিত বাজেটে বিদ্যমান করের সঙ্গে বাড়তি ৫ শতাংশ যোগ হচ্ছে। বাড়তি করহার পাস হলে মোবাইল সেবায় মোট করহার দাঁড়াবে প্রায় ২৭ শতাংশ। ফলে গ্রাহকের কথা বলার খরচ আরও বেড়ে যাবে। এনবিআর সূত্রে জানা গেছে, মোবাইল সেবার বাইরে এখন প্রতি সিম সংযোজন এবং প্রতিস্থাপনে ১০০ টাকা নির্ধারিত কর দিতে হয়। ২০০৫-০৬ অর্থবছরে সিমকে প্রথমবারের মতো করের আওতায় আনা হয়। তবে প্রথমদিকে নির্ধারিত কর ছিল ৩০০ টাকা। ক্রমান্বয়ে তা কমিয়ে আনা হয়। গ্রাহকের সংখ্যা বাড়াতে নিজেরাই এই কর দেয় মোবাইল অপারেটররা। যদিও এই কর প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে আসছে মোবাইল অপারেটররা। বিড়ি-সিগারেটের দাম: নতুন অর্থবছরের (২০১৯-২০) প্রস্তাবিত বাজেটে বাড়ছে বিড়ি-সিগারেটসহ তামাকজাত দ্রব্যের সম্পূরক শুল্ক। ফলে বাড়বে বিড়ি-সিগারেটসহ তামাকজাত পণ্যের দাম। প্রস্তাবিত বাজেটে বলা হয়েছে, সিগারেটের নিম্নস্তরের ১০ শলাকার দাম ৩৭ টাকা। যাতে প্রস্তাব করা হয়েছে ৫৫ শতাংশ শুল্ক আরোপ। মধ্যম স্তরের ১০ শলাকার দাম ৬৩ টাকা এবং ৬৫ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক। আর উচ্চ স্তরের ১০ শলাকার দাম ৯৩ টাকা ও ১২৩ টাকা। আর এতে থাকছে ৬৫ শতাংশ সম্পূরক শুল্কের প্রস্তাব। হাতে তৈরি ফিল্টারবিহীন বিড়ির ২৫ শলাকার দাম ১৪ টাকা এবং ৩৫ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক। ফিল্টারযুক্ত বিড়ির ২০ শলাকার দাম ১৭ টাকা ও ৪০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক আরোপ করার প্রস্তাব করা হয়েছে। ১০ গ্রাম জর্দার দাম ৩০ টাকা ও ৫০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক এবং প্রতি ১০ গ্রাম গুলের দাম ১৫ টাকা এবং ৫০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক নির্ধারণের জন্য বাজেটে প্রস্তাব করা হয়েছে। পেনশন: প্রস্তাবিত বাজেটে দেশের সবার জন্য পেনশনের ব্যবস্থা রাখার কথা বলেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট প্রস্তাবে বলা হয়, সরকারি যে পেনশন ব্যবস্থা রয়েছে, তাতে জনসংখ্যার খুব সামান্য একটি অংশ এই সুবিধার আওতায় রয়েছে। দেশের সংগঠিত ও অসংগঠিত ক্ষেত্রের সব কর্মীকে ক্রমান্বয়ে পেনশন সুবিধার আওতায় আনতে শিগগিরই ইউনিভার্সাল পেনশন অথরিটি গঠন করবে সরকার। সেই সঙ্গে পেনশনভোগীদের সবাইকে ইলেকট্রনিক ফান্ড ট্রান্সফার (ইএফটি) পদ্ধতির আওতায় আনা হবে। অর্থমন্ত্রী বলেন, ইএফটি পদ্ধতিতে ২৭ হাজার পেনশনভোগী তাঁদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টের মধ্যমে পেনশনের টাকা পাচ্ছেন। আগামী অর্থবছরে সব পেনশনভোগী এই পদ্ধতির আওতায় চলে আসবেন। এদিকে দেশের ইতিহাসে ১২তম দায়িত্বশীল ব্যক্তি হিসেবে জাতীয় সংসদে বাজেট পেশ করছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) বিকেল ৩টা ৭ মিনিটে অর্থমন্ত্রী তার বাজেট বক্তব্য শুরু করার জন্য স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর কাছ থেকে অনুমতি গ্রহণ করেন। এ সময় স্পিকার অর্থমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে বলেন যে, আপনি চাইলে বসে বাজেট বক্তব্য উপস্থাপন করতে পারেন। আওয়ামী লীগের সাংসদ শেখ ফজলুল করিম সেলিম পাশ থেকে অর্থমন্ত্রীকে বাজেট বক্তব্য কীভাবে উপস্থাপন করতে হয়, সে বিষয়ে পরামর্শ দিচ্ছিলেন। এরপর, অর্থমন্ত্রী তার আসনে বসে বাজেট বক্তব্য দেওয়া শুরু করেন। অর্থমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর সংগ্রাম ও বাংলাদেশের জন্ম ইতিহাস নিয়ে একটি প্রামাণ্য চিত্র উপস্থাপন করেন। এরপর তিনি এবারের বাজেটকে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাজেট বলে অভিহিত করেন। তার আগে সাদা পাঞ্জাবির ওপর মুজিব কোট পরে তিনি সংসদে প্রবেশ করেন। ...

আরও আড়াই লাখ টন ধান কিনবে সরকার

১১জুন২০১৯,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: দাম পড়ে যাওয়ার কৃষকদের কাছ থেকে আরও আড়াই লাখ মেট্রিক টন বোরো ধান কেনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। মঙ্গলবার (১১ জুন) সচিবালয়ে এক তাৎক্ষণিক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার। কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন। খাদ্যমন্ত্রী বলেন, এবার বোরোর ফলন অনেক উদ্বৃত্ত হয়ে গেছে। দেশের খাদ্য গুদামগুলোর ধারণ ক্ষমতা ১৯ লাখ ৬০ হাজার মেট্রিক টন। আর এখন গুদামে আছে ১৪ লাখ মেট্রিক টন খাদ্যশষ্য। সোমবার প্রধানমন্ত্রী দিক নির্দেশনা দিয়েছেন, আমরা আরও আড়াই লাখ মেট্রিক টন ধান কৃষকের কাছ থেকে কিনব। এতেও বাজার না উঠলে (ধানের) পরিমাণ আরও বাড়াব, যেন কৃষক নায্যমূল্য পান। এই আড়াই লাখ টনের বাইরে প্রয়োজনে আরও এক বা দুই লাখ মেট্রিক টন ধান কৃষকের কাছ থেকে কেনা হবে বলে জানান কৃষিমন্ত্রী রাজ্জাক। এবছর বোরো মৌসুমে সরকার ১০ লাখ মেট্রিক টন সিদ্ধ চাল, দেড় লাখ টন আতপ চাল এবং দেড় লাখ টন বোরো ধান এবং ৫০ হাজার মেট্রিক টন গম কেনার সিদ্ধান্ত নেয়। ঠিক হয়, ২৫ এপ্রিল থেকে প্রতিকেজি ধান ২৬ টাকা এবং প্রতি কেজি চাল ৩৬ টাকায় কিনবে সরকার। কিন্তু সরকারিভাবে ধান-চাল ক্রয় শুরু হতে দেরির কারণে ফড়িয়ারা সেই সুযোগ নেয়। তারা ইচ্ছামতো দাম নির্ধারণ করলে ধান নিয়ে অসহায় অবস্থায় পড়েন কৃষকরা। উৎপাদন খরচ না ওঠায় অসন্তোষ থেকে পাকা ধানে কৃষকের আগুন দেওয়ার ঘটনাও ঘটে। এই পরিস্থিতিতে কৃষকদের বাঁচাতে নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে মন্ত্রণালয়কে বেশি ধান কেনার ব্যবস্থা নিতে সুপারিশ করে খাদ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি। পাশাপাশি চাল আমদানি নিরুৎসাহিত করতে শুল্ক বাড়ানো হয়। খাদ্যমন্ত্রী জানান, এখন পর্যন্ত কৃষকের কাছ থেকে ৩০ হাজার টন বোরো ধান কেনা হয়েছে। এক লাখ ২০ হাজার টন ধান কেনা এখনও বাকি আছে। আরও দেড় লাখ টন ধান কেনার সিদ্ধান্ত হওয়ায় এবার সব মিলিয়ে মোট চার লাখ টন বোরো ধান কৃষকের কাছ থেকে কিনবে সরকার।...

পাবলিক পরীক্ষায় পাসের নম্বর বাড়ল

১৭জুন২০১৯,সোমবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: এবার পাবলিক পরীক্ষায় পাসের নম্বর ৩৩ থেকে বাড়িয়ে ৪০ নির্ধারণ করা হচ্ছে বলে জানা গেছে। আর এই উদ্যোগ নিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এ ব্যাপারে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একজন অতিরিক্ত সচিব বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে বিভিন্ন মহল থেকে বলার চেষ্টা করা হচ্ছে, দেশে শিক্ষার মান পড়ে যাচ্ছে। তবে সরকার মনে করে এ তথ্য সঠিক নয়। এ জন্য পাস নম্বর বাড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে। এছাড়া পৃথিবীর বহু উন্নত দেশে পাস নম্বর ৪০ নির্ধারিত রয়েছে। ওই কর্মকর্তা আরও বলেন, ২০০১ সাল থেকে পাবলিক পরীক্ষায় গ্রেডিং সিস্টেম চালু করা হয়। এ পদ্ধতি চালুর পর থেকে প্রতি বছর পাবলিক পরীক্ষায় পাসের হার বাড়ছে। পাশাপাশি নতুন এই ব্যবস্থায় উত্তরপত্রে শিক্ষকদের নম্বর দেওয়ার প্রবণতাও আগের থেকে বেড়েছে। পরীক্ষার্থীরা এখন পরীক্ষায় আগের থেকে বেশি নম্বর পাচ্ছে। এসব বিষয় মাথায় রেখে পরীক্ষায় পাস নম্বর ৪০ করার চিন্তা-ভাবনা করা হচ্ছে। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে এসএসসি, এইচএসসি, জেএসসি ও প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় পাসের হার প্রতি বছর বাড়ছে। এ কারণে শিক্ষাসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা অভিযোগ করে আসছেন, পাসের হার ও জিপিএ-৫ বাড়লেও শিক্ষার মান সেই অর্থে বাড়ছে না। এসব কারণে কয়েক বছর ধরে শিক্ষাসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা নানা ধরনের প্রশ্ন তুলে আসছেন। ...

পরীক্ষায় আর থাকছে না জিপিএ ৫

১৩জুন২০১৯,বৃহস্পতিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: আগামী জেএসসি পরীক্ষা থেকে জিপিএ ৫ এর পরিবর্তে কিউমুলেটিভ গ্রেড পয়েন্ট অ্যাভারেজ (সিজিপিএ) ৪ এর মাধ্যমে ফল প্রকাশের উদ্যোগ নিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। বুধবার আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় কমিটির বৈঠকে সিজিপিএ পুনর্বিন্যাস করে একটি খসড়া উপস্থাপনের নির্দেশ দেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। আন্তঃশিক্ষা বোর্ডের সভাপতি ও ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মু. জিয়াউল হক বলেন, বৈঠকে জিপিএ ৫-এর পরিবর্তে সিজিপিএ ৪-এর মাধ্যমে ফল প্রকাশে সবাই একমত হয়েছেন। তবে এ ব্যাপারে আমরা বিভিন্ন স্টেকহোল্ডারের সঙ্গে বৈঠক করব। বিশ্বের অন্যান্য দেশের ফল পর্যালোচনা করব। এরপর আগামী এক মাসের মধ্যে সিজিপিএ ৪-এর মাধ্যমে কীভাবে ফল দেওয়া যায় সে ব্যাপারে একটি খসড়া শিক্ষামন্ত্রীর কাছে উপস্থাপন করব। যদি সম্ভব হয় আগামী জেএসসি থেকেই আমরা সিজিপিএ ৪-এর মাধ্যমে ফল প্রকাশ করতে চাই। বর্তমানে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে সিজিপিএ ৪-এর মাধ্যমে ফল প্রকাশ করা হয়। এ কারণে এসএসসি ও এইচএসসির ফলের সঙ্গে উচ্চতর শিক্ষার ফলের সমন্বয় করতে গিয়ে দেশের চাকরিদাতারা সমস্যায় পড়েন। আর বিদেশে পড়ালেখা ও চাকরির ক্ষেত্রে পড়তে হয় আরও বড় সমস্যায়। কারণ প্রতিনিয়তই বাংলাদেশ থেকে শিক্ষার্থীরা বিদেশে পড়তে যাচ্ছে। তাদের এসএসসি ও এইচএসসি সার্টিফিকেটের সমতা করে তারপর বিদেশে যেতে হয়। এতে অনেক বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে গিয়ে সমস্যায় পড়তে হয়। বাংলাদেশে ২০০১ সাল থেকে পাবলিক পরীক্ষায় গ্রেড পদ্ধতি চালু হয়। সেখানে ৮০ থেকে ১০০ নম্বর প্রাপ্তদের গ্রেড পয়েন্ট ৫, লেটার গ্রেড এ প্লাস। এটাই সর্বোচ্চ গ্রেড। এরপর ৭০ থেকে ৭৯ নম্বর প্রাপ্তদের গ্রেড পয়েন্ট ৪, লেটার গ্রেড এ। ৬০ থেকে ৬৯ নম্বর প্রাপ্তদের গ্রেড পয়েন্ট ৩.৫০, লেটার গ্রেড এ মাইনাস। ৫০ থেকে ৫৯ নম্বর প্রাপ্তদের গ্রেড পয়েন্ট ৩, লেটার গ্রেড বি। ৪০ থেকে ৪৯ নম্বর প্রাপ্তদের গ্রেড পয়েন্ট ২, লেটার গ্রেড সি। ৩৩ থেকে ৩৯ নম্বর প্রাপ্তদের গ্রেড পয়েন্ট এক, লেটার গ্রেড ডি। আর শূন্য থেকে ৩২ পাওয়া শিক্ষার্থীদের গ্রেড পয়েন্ট জিরো, লেটার গ্রেড এফ। জিপিএ ১ অর্জন করলেই তাকে উত্তীর্ণ হিসেবে ধরা হয়। কোনো বিষয়ে এফ গ্রেড না পেলে চতুর্থ বিষয় বাদে সব বিষয়ের প্রাপ্ত গ্রেড পয়েন্টকে গড় করেই একজন শিক্ষার্থীর লেটার গ্রেড নির্ণয় করা হয়। বর্তমানে বাংলাদেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে গড়ে সব বিষয়ে ৮০-এর ওপরে নম্বর পেলে সিজিপিএ ৪ ও লেটার গ্রেড হয় এ প্লাস। এরপর ৭৫ থেকে ৮০-এর মধ্যে সিজিপিএ ৩.৭৫ ও লেটার গ্রেড এ; ৭০ থেকে ৭৫-এর মধ্যে গ্রেড পয়েন্ট ৩.৫০ ও লেটার গ্রেড এ মাইনাস; ৬৫ থেকে ৭০-এর মধ্যে পয়েন্ট ৩.২৫ ও লেটার গ্রেড বি প্লাস; ৬০ থেকে ৬৫-এর মধ্যে পয়েন্ট ৩ ও লেটার গ্রেড বি; ৫৫ থেকে ৬০-এর মধ্যে পয়েন্ট ২.৭৫ ও লেটার গ্রেড বি মাইনাস; ৫০ থেকে ৫৫-এর মধ্যে পয়েন্ট ২.৫০ ও লেটার গ্রেড সি প্লাস; ৪৫ থেকে ৫০-এর মধ্যে পয়েন্ট ২.২৫ ও লেটার গ্রেড সি ৪০ থেকে ৪৫ নম্বর পেলে পয়েন্ট ২ ও লেটার গ্রেড ডি হিসেবে বিবেচনা করা হয়। আর ৪০-এর কম নম্বর পেলে ফেল, এর লেটার গ্রেড এফ, এতে কোনো গ্রেড পয়েন্ট নেই।...

সেমির স্বপ্নে টাইগাররা মাঠে নামবে আজ

১৭জুন২০১৯,সোমবার,ক্রীড়া ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সেমিফাইনাল খেলার স্বপ্নে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে বাংলাদেশ মাঠে নামবে আজ। চলতি বিশ্বকাপে ১ জয়, ২ হার ও পরিত্যক্ত ১ ম্যাচে টাইগারদের সংগ্রহ মাত্র ৩ পয়েন্ট। এতে চিন্তার ভাজ বাংলাদেশের কপালে। সেমিফাইনালে যাবার পথে নিশ্চিন্ত অবস্থানে নেই মাশরাফি বাহিনী। এ অবস্থায় নিজেদের পঞ্চম ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে মুখোমুখি হচ্ছে বাংলাদেশ। এই ম্যাচ না জিতলে শেষ চারের লড়াই থেকে ছিটকে যাচ্ছে না কোনো দলই। তবে অনেকটাই বন্ধ হয়ে যাবে সম্ভাবনার দুয়ার। জয়টা তাই খুব জরুরি দুই দলের জন্যই। ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে ভালো খেলার টনিক হিসেবে আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজের সুখস্মৃতি মনে করতে পারে। ঐ আসরে লিগ পর্বে দু বার ও ফাইনালে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে বিধ্বস্ত করে ত্রিদেশীয় সিরিজে অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলো বাংলাদেশ। সেই সুখস্মৃতিতে উজ্জীবিত হয়ে জয়ের ধারায় ফেরার লক্ষ্য মাশরাফি-সাকিবদের। ইংল্যান্ডের টনটনের দ্য কুপার অ্যাসোসিয়েটস কাউন্টি গ্রাউন্ডে রোববার বাংলাদেশ সময় বিকেল ৩টা ৩০ মিনিটে শুরু হবে বাংলাদেশ-ওয়েস্ট ইন্ডিজ ম্যাচ। এই ভেন্যুটি সমারসেট কাউন্টি গ্রাউন্ড নামেও পরিচিত। জয় দিয়ে এবারের বিশ্বকাপ শুরু করেছিলো বাংলাদেশ। কেনিংটন ওভালে শক্তিশলী দক্ষিণ আফ্রিকাকে ২১ রানে হারায় টাইগাররা। প্রোটিয়াদের বিপক্ষে জয়ের পর নিউজিল্যান্ডের সাথেও জয়ের স্বপ্ন দেখছিলো বাংলাদেশ। কিন্তু ২ উইকেটে কিউইদের কাছে হেরে টুর্নামেন্টে প্রথম ধাক্কা খায় বাংলাদেশ। এরপর নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে স্বাগতিক ইংল্যান্ডের বিপক্ষে কার্ডিফের পয়মন্ত ভেন্যুতে ১০৬ রানের বড় ব্যবধানে হারে বাংলাদেশ। দুটি হারের সাথে শ্রীলংকার বিপক্ষে বৃষ্টির কারনে পরিত্যক্ত হয় খেলা। যে কারণে নিজেদের লক্ষ্যের পথে দুঃশ্চিন্তায় পড়ে গেছে বাংলাদেশ। এবার ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে জয় তুলে নিয়ে কিছুটা চিন্তামুক্ত হতে মরিয়া টাইগাররা। পয়েন্ট টেবিলে বাংলাদেশের মত একই অবস্থা ওয়েস্ট ইন্ডিজের। ৪ খেলায় ১ জয় ২টি হার ও ১টি পরিত্যক্ত ম্যাচে ৩ পয়েন্ট ক্যারিবীয়দের। তবে রান রেটে এগিয়ে থাকায় টেবিলের ষষ্ঠস্থানে রয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। পাকিস্তানের বিপক্ষে ৭ উইকেটের জয় দিয়ে এবারের বিশ্বকাপে যাত্রা শুরু করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। এরপর অস্ট্রেলিয়ার কাছে ১৫ রানে হারে তারা। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে তাদের তৃতীয় ম্যাচটি বৃষ্টিতে ভেসে যায়। ফলে পয়েন্ট ভাগাভাগি করে দু দল। নিজেদের চতুর্থ ম্যাচে স্বাগতিক ইংল্যান্ডের কাছে ৮ উইকেটে ম্যাচ হারে জেসন হোল্ডারের দল। বাংলাদেশ দল : মাশরাফি বিন মর্তুজা (অধিনায়ক), সাকিব আল হাসান (সহ-অধিনায়ক), মুশফিকুর রহিম, লিটন দাস, মোহাম্মদ মিঠুন, মাহমুদুল্লাহ, মেহেদি হাসান মিরাজ, মোহাম্মদ সাইফ উদ্দিন, মোসাদ্দেক হোসেন, আবু জায়েদ রাহি, রুবেল হোসেন, মুস্তাফিজুর রহমান। ওয়েস্ট ইন্ডিজ দল : জেসন হোল্ডার (অধিনায়ক), ফাবিয়ান অ্যালেন, কার্লোস ব্রাথওয়েট, ড্যারেন ব্রাভো, শেলডন কটরেল, শানন গ্যাব্রিয়েল, ক্রিস গেইল, শিমরোন হেটমায়ার, শাই হোপ, এভিন লুইস, অ্যাসলে নার্স, নিকোলাস পুরান, কেমার রোচ, আন্দ্রে রাসেল ও ওশানে থমাস। ...

ভারত-পাকিস্তান ম্যাচেও বড় বাধা হতে পারে বৃষ্টি

১৬জুন২০১৯,রবিবার,ক্রীড়া ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বিশ্বকাপের মঞ্চে ভারতের সামনে ২০১৭ সালে অনুষ্ঠিত চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি হারের বদলা নেওয়ার সুযোগ। রোববার ম্যানচেস্টারের ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে ২০১৯ বিশ্বকাপের ম্যাচ খেলতে নামছে ভারত-পাকিস্তান। এই বিশ্বকাপের সবচেয়ে বড় শত্রু হয়ে উঠেছে বৃষ্টি। এরই মধ্যে চারটি ম্যাচ বৃষ্টির কারণে বাতিল হয়ে গেছে। পুরো পয়েন্ট পেতে পারত যেসব দল, তাদের না খেলেই পেতে হয়েছে এক পয়েন্ট। আর যাদের পয়েন্ট পাওয়ার কথাই ছিল না, তারাও পেয়ে গেছে এক পয়েন্ট। যার ফলে অসন্তোষ তৈরি হয়েছে দলগুলোর মধ্যে। রোববারও ভারত-পাকিস্তান ম্যাচে কালো মেঘের অবস্থান রয়েছে। যা দেখে মনে করা হচ্ছে, ম্যাচের শুরুর সময়ের আশপাশে হালকা বৃষ্টিও হতে পারে। তবে এত দিন যা দেখা গেছে তাতে হালকা বৃষ্টি কোথাও হয়নি। এমন বৃষ্টি হয়েছে যে ম্যাচ ভেস্তে গেছে। সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি তাদের খবরে জানায়, স্থানীয় সময় সকাল ১০.৩০ (বাংলাদেশ সময় দুপুর ৩.৩০) থেকে বিকেল ৫টা (বাংলাদেশ সময় রাত ১০.০০) পর্যন্ত পরিস্থিতি ম্যাচের অনুকূলে থাকবে না। আবহাওয়ার পূর্বাভাস দেওয়া ওয়েবসাইট আকুওয়েদার-এর পূর্বাভাস অনুযায়ী, ম্যানচেস্টারে বৃষ্টি হবে স্থানীয় সময় দুপুর ১২টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত। এখানে আরো পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে, সারা দিন এখানে তাপমাত্রা থাকবে ১৭ ডিগ্রির আশপাশে। ভারত-পাকিস্তান ম্যাচের দুদিন আগেই ম্যানচেস্টারে প্রবল বৃষ্টি হয়েছে। পিচ ঢেকে রাখা হয়েছে। স্কয়ারও ঢেকে রাখা হয়েছে। কিন্তু কিছুক্ষণ পরেই বৃষ্টি থেমে যায় এবং সূর্য ওঠে। আর এটাই ভারত-পাকিস্তান ম্যাচকে ভরসা দিচ্ছে। যে ম্যাচ দেখতে গোটা বিশ্ব থেকে সমর্থকরা ছুটে এসেছে। ভেস্তে যাওয়াটা বিশ্বকাপের জন্য খুব খারাপ উদাহরণ হয়ে থাকবে। এরই মধ্যে এই আবহাওয়ায় খেলা এবং রিজার্ভ ডে নিয়ে প্রশ্ন উঠে গিয়েছে আইসিসির বিরুদ্ধে। যদি ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ ভেস্তে যায়, তা হলে সেই প্রশ্ন যে বাড়বে সেটাই স্বাভাবিক। যে চারটি ম্যাচ ভেস্তে গিয়েছে তার মধ্যে একটি ছিল ভারত-নিউজিল্যান্ডের ম্যাচও। পাকিস্তানেরও একটি ম্যাচ বৃষ্টির জন্য ভেস্তে গেছে। ভারতের সামনে বিশ্বকাপের মঞ্চে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ৬-০ থেকে ফল ৭-০ করার লক্ষ্য। পাকিস্তান সেখানে চাইবে বিশ্বকাপে ভারতের বিরুদ্ধে জয়ের মুখ। ...

বিসিএস বক্কর- চঞ্চল চৌধুরী

৭জুন২০১৯,শুক্রবার,বিনোদন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ঈদে কমেডি নাটকের কদর সব থেকে বেশি থাকে। দর্শকদের চাহিদার কথা চিন্তা করে নির্মাতা সকল আহমেদ নির্মাণ করেছেন নাটক বিসিএস বক্কর। লিখেছেন মিজানুর রহমান বেলাল। নাটকের নাম ভূমিকায় চঞ্চল চৌধুরী এবং সন্ধ্যা চরিত্রে অভিনয় করেছেন জাকিয়া বারী মম। বিসিএস বক্কর সম্পর্কে নির্মাতা সকল আহমেদ বলেন,খুব মজার গল্প। আশা করছি, নাটকটি দেখে সবাই বিনোদন পাবেন। নাটকের গল্পে দেখা যাবে, পুরান ঢাকার ছেলে বক্কর। বাবার একমাত্র সন্তান হওয়ার কারণে প্রচণ্ড বাউন্ডেলে। বক্কর বিসিএস পরীক্ষা দেবে, এলাকায় আলোচনার সৃষ্টি হয়েছে। কারণ, বক্কর রাঁস্তায়, ছাদে, গাছে, পথে-প্রান্তরে মানুষকে দেখিয়ে দেখিয়ে চিৎকার করে পড়ে। বক্করের সাথে দুজন সহযোগী রাখে তার বাবা। একজন হাতফ্যানে বাতাস করতে, আরেক জন নানান সেবা যত্ম করার জন্য। বক্কর লেখা-পড়ার নামে পুরো এলাকায় সার্কাসের মতো হাস্যত্মক ঘটনার জন্ম দেয়। সন্ধ্যা মহল্লার মেয়ে। ভীষণ সুন্দরী। বক্কর সন্ধ্যাকে ভালোবাসে। আর সন্ধ্যা প্রথমবারের মতো বিসিএস পরীক্ষা দেবে। ভালো ছাত্রী, প্রস্তুতি ভালো, বিনয়ী ও যথেষ্ট প্রতিবাদী। কিন্তু বক্করের বিসিএসের এবারই শেষ চান্স। বয়স নাই। তাই যে করে হোক বিসিএস পরীক্ষায় উর্ত্তীণ হতেই হবে। সন্ধ্যাকে, এলাকার মানুষকে, মা-বাবাকে, এমন কি রাস্তার পথচারীকে দেখিয়ে দেখিয়ে গলা ফাটিয়ে লেখাপড়া করে। এ নিয়ে এলাকায় ব্যাপক আলোড়ন উঠে, চারদিক সমালোচনা হতে থাকে বক্করকে নিয়ে। কিন্তু সন্ধ্যার পড়াশুনা কেউ দেখতে পায় না। লুকিয়ে পড়ে। ভীষণ মেধাবী। বক্কর ও সন্ধ্যার লেখাপড়া নিয়ে দুই পরিবারের দ্বন্দ্ব বাজার পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়ে। সন্ধ্যার বাবার সাফ কথা। বিসিএস জামাই ছাড়া সন্ধ্যাকে বিয়ে দিবে না। সন্ধ্যাও বিসিএস ছেলে ছাড়া বিয়ে বা প্রেম করবে না। তাই বক্কর বিসিএস পাস করার জন্য জান কুরবানি দিয়ে পড়ে। শেষে বক্কর নাকি সন্ধ্যা পাস করে বিসিএসে? বক্করের পরিণতি কী হয়? এটা জানা যাবে নাটকের শেষে। নাটকটি আগামীকাল শনিবার ঈদের চতুর্থ দিন রাত ৮টা ৩০ মিনিটে আরটিভিতে প্রচারিত হবে। চঞ্চল ও মম ছাড়াও এতে অভিনয় করেছেন শফিক খান দিলু. শিখা মৌ, মাহবুব আলম রশিদ খান প্রমুখ।...

ঈদে ২৬১ সিনেমা হলে মুক্তি পেয়েছে তিনটি চলচ্চিত্র

৫জুন২০১৯,বুধবার,বিনোদন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সারা দেশে উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে মুসলিমদের সর্ববৃহৎ ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর উদযাপিত হচ্ছে আজ বুধবার। দিনটিকে রাঙাতে সকাল থেকেই এক শ্রেণির মানুষ সিনেমা হলে ভিড় করে। মুক্তি পায় বড় বাজেটের চলচ্চিত্র। এবার ঈদে ২৬১ সিনেমা হলে মুক্তি পাচ্ছে তিনটি চলচ্চিত্র। শাকিব খানের নিজের প্রযোজিত চলচ্চিত্র পাসওয়ার্ড মুক্তি পেয়েছে ১৭৭টি সিনেমা হলে। অনন্য মামুনের গল্প নির্ভর চলচ্চিত্র আবার বসন্ত মুক্তি পেয়েছে সাতটি সিনেমা হলে, সাকিব সনেট প্রযোজিত নোলক ছবিটি মুক্তি পেয়েছে ৭৭টি সিনেমা হলে। অপরাধ জগতের এক ডনের সুইস ব্যাংকের অ্যাকাউন্টের পাসওয়ার্ড নিয়েই পাসওয়ার্ড ছবির গল্প। ঘটনাক্রমে পাসওয়ার্ডটি হারিয়ে যায়। সেই হারিয়ে যাওয়া পাসওয়ার্ড খুঁজতে থাকে ডন। আবদুল্লাহ জহির বাবুর চিত্রনাট্যের এ ছবিতে অভিনয় করেছেন শাকিব খান, বুবলী, মিশা সওদাগর, অমিত হাসান প্রমুখ। ছবিটি যৌথ ভাবে প্রযোজনা করেছেন শাকিব খান ও বন্ধু মোহাম্মদ ইকবাল। পরিচালনা করেছেন মালেক আফসারী। দেশের ১৭৭টি সিনেমা হলে ছবিটি মুক্তি পেয়েছে। একজন বাবার একাকিত্বের গল্প নিয়ে চলচ্চিত্র আবার বসন্ত। ৬৫ বছরের লোকটির সাথে ভালোবাসায় জড়িয়ে পড়ে ২৫ বছরের একটি মেয়ে। গল্পনির্ভর এই চলচ্চিত্রটি রাজধানীর বলাকা সিনেওয়ার্ল্ড ও সিনেপ্লেক্সগুলোতে ঈদে মুক্তি পাবে। ছবিটি পরিচালনা করেছেন অনন্য মামুন। ছবিতে অভিনয় করেছেন তারিক আনাম খান, স্পর্শীয়া, আনন্দ খালেদ, ইমতুসহ অনেকে। অনন্য মামুন বলেন,টার্গেট সিনেপ্লেক্সে হলেও ছবির প্রিমিয়ারের পর অন্য সিনেমা হলমালিকরা আগ্রহ দেখানোর পর সাভারের সেনা অডিটরিয়াম ও ময়মনসিংহে পূরবী সিনেমা হলে ছবিটি মুক্তি দিচ্ছি। সিনেপ্লেক্সসহ মোট সাতটি হলে ছবিটি মুক্তি পাচ্ছে। একসঙ্গে অনেক সিনেমা হলে মুক্তি দেওয়ার ইচ্ছে আমার নেই। এই ছবিটি আগামী ছয় মাস ধরে দর্শক দেখবেন বলে আমি আশা করি। পারিবারিক আবেগ ও বন্ধনের ছবি নোলক। দুই পরিবারের দ্বন্দ্ব আর পারিবারিক ঐতিহ্য নোলক ছবির মূল গল্প। এই ছবিতে শাকিব খানের সাথে জুটি বেঁধেছেন নায়িকা ববি। ছবিটি প্রযোজক সাকিব সনেট। ফেরারি ফরহাদের লেখা এ কাহিনীর ছবিতে আরো অভিনয় করেছেন তারিক আনাম খান, নিমা রহমান, ওমর সানী, মৌসুমী, শহীদুল আলম সাচ্চু প্রমুখ। দেশের ৭১টি সিনেমা হলে ছবিটি মুক্তি পেয়েছে। ২০১৭ সালের ১ ডিসেম্বর ভারতের রামুজি ফিল্ম সিটিতে শুরু হয় নোলক ছবির শুটিং। শুরুতে নোলক-এর পরিচালক ছিলেন নাট্যনির্মাতা রাশেদ রাহা। কিন্তু সিনেমার শুটিংয়ের মাঝপথে পরিচালক ও প্রযোজকের মধ্যে দ্বন্দ্ব হয়। একপর্যায়ে পরিচালক রাশেদ রাহাকে বাদ দিয়েই সিনেমার শুটিং শেষ করেন প্রযোজক সাকিব সনেট। ছবিটি প্রযোজনা করেছে বি হ্যাপী এন্টারটেইনমেন্ট।-ntv...

শত বছরের পুরোনো দুর্গাবাড়ী

বাঙালি হিন্দু সমাজের প্রধান ধর্মীয় উৎসব শারদীয়া দুর্গোৎসব। আর এই পুজোয় আপনিও ঘুরে আসতে পারেন সিলেটের শত বছরের পুরোনো দুর্গাবাড়ী থেকে। আর খরচের কথা ভাবছেন, মাত্র ৮০০ টাকা।শোনা যায় কলকাতার পাথরঘাটা নামক স্থানের এক সম্ভ্রান্ত জমিদার এই দুর্গাবাড়ী প্রতিষ্ঠান করেন। এই ব্যাপারে ব্রজেন্দ্র নারায়ণ চৌধুরী সম্পাদিত স্মৃতি প্রতিতি নামক বই এ উল্লেখ আছে। ব্রজেন্দ্র নারায়ণ চৌধুরী ছিলেন সিলেট সরকারি মহিলা কলেজের প্রতিষ্ঠাতা। স্বদেশি আন্দোলনে অনেক বীর এখানে এসে মায়ের পায়ে নিজের রক্ত দিয়ে প্রতিজ্ঞা করতেন নিজের আদর্শ থেকে এক চুলও বিচ্যুত হবেন না। স্বদেশকে পরাধীনতা থেকে মুক্ত করেই তবে ঘরে ফিরবেন।টিলার ওপর মূল মন্দির অবস্থিত। অর্ধশত সিঁড়ি ডিঙিয়ে আপনাকে পৌঁছাতে হবে মূল মন্দিরে। মূল মন্দিরে স্থাপিত দুর্গা প্রতিমা শত বছর ধরে পুজিত হয়ে আসছেন। পাশেই আছে আপনার বসার জন্য জায়গা। এর সাথেই আছে শিব মন্দির। টিলার থেকে দূরের দৃশ্য আপনাকে অভিভূত করবে। পূজার সময় ধূপ-ধূনার মোহনীয় গন্ধ আপনাকে নিয়ে যাবে এক অন্য জগতে।কীভাবে যাবেন,দুর্গাবাড়ী মন্দির যেতে হলে আপনাকে বাস/টেনে করে আসতে হবে সিলেট শহরে। প্রতিদিন ঢাকা থেকে সিলেটের উদ্দেশে বাস/ট্রেন ছাড়ে, ভাড়া পড়বে ৩২০ টাকা থেকে এক হাজার ২০০ টাকা। সিলেট শহরের যেকোনো প্রান্ত থেকে দুর্গাবাড়ী যাব বললেই আপনাকে নিয়ে যাবে শত বছরের পুরোনো দুর্গাবাড়িতে। রিকশা/সিএনজি ভাড়া নেবে ৮০ থেকে ১৫০ টাকা।...

ঈদের ছুটিতে পর্যটন নগরী কক্সবাজারে

বর্ষা মৌসুম তারপরও ঈদের ছুটিতে পর্যটন নগরী কক্সবাজারে ছুটে আসছেন পর্যটকরা। তাদের স্বাগত জানাতে প্রস্তুত কক্সবাজার। সৈকত শহরের ৪ শতাধিক হোটেল-মোটেল-গেষ্টহাউজ ও কটেজ কর্তৃপক্ষের প্রস্তুতিও শেষ। আর পর্যটকদের নিরাপত্তায় বিশেষ ব্যবস্থা নিয়েছে ট্যুরিস্ট পুলিশও। রমজানে বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজার পর্যটক শূন্য থাকলেও ঈদের ছুটিতে ভ্রমণ পিপাসুদের ঢল নামে এই সৈকতে। বর্ষা মৌসুম হওয়ায় প্রথমে পর্যটকের সংকটের আশঙ্কা দেখা দিয়েছিল কক্সবাজারে। তবে সব আশঙ্কাকে উড়িয়ে দিয়ে এরই মধ্যে হোটেল-মোটেল-গেস্ট হাউস ও কটেজের প্রায় ৮০ শতাংশ কক্ষ বুকড হয়ে গেছে। আর ব্যবসায়ীরাও নতুন সাজে সাজিয়েছেন তাদের প্রতিষ্ঠান। হোটেল কর্তৃপক্ষও পর্যটকদের নানান সুযোগ-সুবিধা দেয়াসহ শেষ করছে যাবতীয় প্রস্তুতি। তারা আশা , প্রতি বছরেই মতো এবারও ঈদের ছুটিতে ভালো ব্যবসা হবে। বর্ষা মৌসুম তাই সাগর উত্তাল থাকবে। এক্ষেত্রে অনাকাঙ্কিত দুর্ঘটনা এড়াতে পর্যটকদের সমুদ্রে স্নান ও নিরাপত্তায় কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানালেন হোটেল ওনার্স এসোসিয়েশনের এ নেতা। কক্সবাজার হোটেল ওনার্স এসোসিয়েশনের মুখপাত্র মো. সাখাওয়াত হোসাইন জানান, 'সমুদ্র উত্তাল থাকবে। এখানে লাইফগার্ড ও পুলিশ ট্যুরিস্টদের তৎপরতাটা বৃদ্ধি করলে আমার মনে হয়, যারা কক্সবাজারে আসবেন তারা নিবিঘ্নে এখান থেকে ফিরতে পারবেন।' আর ট্যুরিস্ট পুলিশের এ কর্মকর্তা জানালেন, ঈদের ছুটিতে পর্যটকরা যাতে স্বাচ্ছন্দ্যে কক্সবাজার ভ্রমণ করতে পারে সেজন্য সব ধরণের পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।...

বাংলাদেশের গণমাধ্যম খুব বেশি স্বাধীন নয়,ফ্রিডম হাউজের প্রতিবেদন

৮জুন২০১৯,শনিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম:রাজনৈতিক স্বাধীনতা, গণতন্ত্র ও মানবাধিকার নিয়ে কাজ করা সংস্থা ফ্রিডম হাউজ সমপ্রতি বিশ্বজুড়ে সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতার বিষয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক এই পর্যবেক্ষণ সংস্থা বিশ্বের দেশগুলোতে গণমাধ্যমের স্বাধীনতার ওপর ০ থেকে ৪ পয়েন্ট ধরে প্রতিবেদনটি তৈরি করেছে। এতে বাংলাদেশ পেয়েছে ১ পয়েন্ট। অপরদিকে গণমাধ্যমের সবথেকে বেশি স্বাধীনতা নিশ্চিতকারী দেশগুলো পেয়েছে ৪ পয়েন্ট। এর মধ্যে রয়েছে সুইডেন, যুক্তরাষ্ট্র, বৃটেন, উরুগুয়েসহ মোট ২৬টি দেশ। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে ভারত পেয়েছে ২ পয়েন্ট, পাকিস্তান ১ পয়েন্ট, নেপাল ২ পয়েন্ট, ভুটান ২ পয়েন্ট, আফগানিস্তান ২ পয়েন্ট, মালদ্বীপ ১ পয়েন্ট ও শ্রীলঙ্কা ২ পয়েন্ট। বাংলাদেশের বিষয়ে এই প্রতিবেদনে বলা হয়, এদেশের গণমাধ্যম খুব বেশি স্বাধীন নয়। এতে চিত্রগ্রাহক শহিদুল আলমকে গ্রেপ্তারের কথা উল্লেখ করা হয়। বলা হয়, শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের খবর প্রচার করায় ও তাদের পক্ষে কথা বলায় শহিদুল আলমকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। বাংলাদেশে ব্লগার হত্যা ও তাদের লেখালেখির ওপর কড়াকড়ির সমালোচনা করেছে ফ্রিডম হাউজ। সংস্থাটির দাবি, বাংলাদেশের সাংবাদিকরা সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা হারানো, গ্রেপ্তার ও নির্যাতনের ভয়ে সেলফ-সেন্সরশিপের দিকে ঝুঁকে পড়ছে। ফ্রিডম হাউজের গবেষণা ও বিশ্লেষণ বিভাগের জ্যেষ্ঠ পরিচালক সারাহ রেপুচ্চি গণমাধ্যমের স্বাধীনতাকে নিম্নমুখী রাস্তার সঙ্গে তুলনা করেছেন। তিনি এ গবেষণায় উঠে আসা প্রধান দিকগুলো নিয়ে আলোচনা করেছেন। এতে তিনি লিখেছেন, গত এক দশকে বিশ্বব্যাপী গণমাধ্যমের স্বাধীনতা উল্লেখযোগ্য মাত্রায় সংকুচিত হয়েছে। বিশ্বের প্রভাবশালী গণতন্ত্রগুলোতে পপুলিস্ট নেতাদের উত্থান হয়েছে। যারা মুক্ত গণমাধ্যমের গলা চিপে ধরছে। তবে, বিশ্বব্যাপী গণমাধ্যমের স্বাধীনতা শুধু সংকুচিতই হয়নি কিছু দেশে এ অবস্থার উন্নতিও লক্ষ্য করা গেছে বলে জানিয়েছে ফ্রিডম হাউজ। এসব দেশের মধ্যে রয়েছে- ইথিওপিয়া, মালয়েশিয়া, আর্মেনিয়া, ইকুয়েডর ও গাম্বিয়া। এই ৫টি দেশকে অন্ধকারে আলোর পথযাত্রী হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন সারাহ রেপুচ্চি। এ ছাড়া, আরব বসন্তের পর মধ্যপ্রাচ্যের কয়েকটি দেশে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা পূর্বের তুলনায় বেড়েছে বলে জানিয়েছে ফ্রিডম হাউজ। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিশ্বে কর্তৃত্ববাদী সরকার ও প্রভাবশালী মহলের চাপেই গণমাধ্যমের স্বাধীনতা দিনদিন হুমকির মুখে পড়ছে। সাংবাদিকরা নানান ধরনের বাধার মুখোমুখি হচ্ছেন। তাদের ওপর গ্রেপ্তার ও নির্যাতন বাড়ছে বলেও জানানো হয়েছে ওই প্রতিবেদনে। তবে দুর্বল গণতন্ত্র ও নতুন গণতন্ত্রের দেশগুলোতে সবথেকে বেশি চাপের মুখে রয়েছেন তারা। এ ছাড়া চীন ও আফ্রিকার কয়েকটি দেশে গণমাধ্যমের স্বাধীনতাকে শোচনীয় বলে উল্লেখ করেছে ফ্রিডম হাউজ। তাদের তালিকায় চীন পেয়েছে শূন্য পয়েন্ট। সংস্থাটির দাবি, চীন ও আফ্রিকার কয়েকটি দেশের সরকার তাদের গণমাধ্যমগুলোকে নিজস্ব মতামত চাপিয়ে দিচ্ছে। চীনে সরকারের মতবাদ প্রকাশে সাংবাদিকদের ওপর চাপ দেয়া হচ্ছে বলেও জানানো হয়েছে এ প্রতিবেদনে। এ ছাড়া চীনের প্রতি সংবাদ সেন্সরের অভিযোগও আনে ফ্রিডম হাউজ। ইউরেশিয়া অঞ্চলের দেশগুলোর বিষয়ে বলা হয়েছে, ২০১৪ সালের তুলনায় এ অঞ্চলের দেশগুলোতে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ১১ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের সাংবাদিকদের নানা সুবিধা থাকা সত্ত্বেও তারা কিছুটা চাপ অনুভব করেন বলে এই প্রতিবেদনে প্রকাশ করা হয়। এ নিয়ে উদ্বেগও প্রকাশ করেছে সংস্থাটি।...

ইসলামে সাংবাদিকতা একটি আমানত

৪জুন২০১৯,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: সাংবাদিকতা এক মহান, মহৎ, মর্যাদাশীল ও দায়িত্বপূর্ণ পেশা। সত্য প্রকাশে আপসহীনতাই একজন আদর্শ সাংবাদিকের মৌলিক বৈশিষ্ট। নতজানু সাংবাদিক দেশ, জাতি ও গণমাধ্যমের বড়শত্রু। সাংবাদিকতা শব্দটি এসেছে সংবাদ থেকে, যার ইংরেজি প্রতিশব্দ হলো নিউজ আর আরবি প্রতিশব্দ হলো খবর, হাদিস, কিসসা বা নাবা। এই নাবা থেকেই নবী; নবী শব্দের অর্থ সংবাদদাতা, সংবাদ বাহক, দূত ইত্যাদি। এই দৃষ্টিতে প্রত্যেক নবীকেই একেকজন সাংবাদিক বলা যায়।সূত্রঃ আমাদের সময় ।কোরআন ও হাদিসে নাবা শব্দটি অনেকবার এসেছে। ৩০তম পারার প্রথম সূরাটির নাম আন-নাবা তথা সংবাদ। মহানবী হজরত মুহাম্মাদ (সা.) এর যত বাণী রয়েছে সেগুলোকে খবর বা সংবাদ বলা হয়েছে। তিনি সাহাবিদের উপদেশ দিতে গিয়ে এভাবে উল্লেখ করেছেন,আমি কী তোমাদেরকে এমন সংবাদ দিব না যার ওপর আমল করলে তোমরা জান্নাতে যেতে পারবে?যেহেতু প্রত্যেক নবী-রাসূল আল্লাহর দেয়া সংবাদ পৃথিবীর মানুষদের কাছে পৌঁছে দিয়েছেন সেহেতু তাঁরা মূলত ইসলামি সাংবাদিকতা তথা ইসলামের সংবাদ কর্মী হিসেবে কাজ করেছেন তাতে কোনো সন্দেহ নেই। আরো বুঝা গেল, সাংবাদিকতা এক মহান, মহৎ, মর্যাদাশীল ও দায়িত্বপূর্ণ পেশা। ইসলামি সাংবাদিকতার মূল ভিত্তি- ইসলামে সাংবাদিকতার গুরুত্ব অপরিসীম। দাওয়াত তথা আল্লাহর দিকে মানুষকে আহ্বান করা ইসলামের অন্যতম ইবাদত। আর সাংবাদিকতা কিছুতেই দাওয়াত বিমুক্ত হতে পারে না। তাই ইসলামে সাংবাদিকতার মূল ভিত্তি তিনটি- (এক) দাওয়াত ইলাল খাইর তথা কল্যাণের পথে আহ্বান। (দুই) সৎ, সত্য ও ন্যায়ের আদেশ। (তিন) অসৎ, অসত্য ও অন্যায় থেকে বাধা প্রদান। ইসলামি সাংবাদিকতার নীতিমালা- আমানত বা বিশ্বস্ততা রক্ষা করা: ইসলামে সাংবাদিকতা একটি আমানত। আর এর দাবী হচ্ছে, যেকোনো তথ্য ও সংবাদকে বস্তুনিষ্ঠভাবে গণমাধ্যমে তুলে ধরা। নিজস্ব চিন্তা কিংবা দল-মতের রংচং মাখিয়ে সংবাদকে আংশিক বা পুরোপুরি পরিবর্তন করে উপস্থাপন করা ইসলামের দৃষ্টিতে সম্পূর্ণ হারাম। আল্লাহ বলেন, হে ইমানদারগণ! আল্লাহকে ভয় করো এবং সঠিক কথা বলো।(সূরা আল আহজাব-৭০) আমানতের খেয়ানত ইসলামে কঠোরভাবে নিষেধ আল্লাহ বলেন, হে ঈমানদারগণ! খেয়ানত করোনা আল্লাহর সঙ্গে ও রাসূলের সঙ্গে এবং খেয়ানত করো না নিজেদের পারস্পরিক আমানতে জেনে-শুনে। (সূরা আল আনফাল-২৭) খবরের সত্যতা যাচাই: ইসলামে সততা ও সত্যবাদীতার গুরুত্ব অপরিসীম। মিথ্যা বলা মহাপাপ বা কবিরা গুনাহ। আনাস (রা.) বলেন, রাসূল (সা.)-কে কবিরা গুনাহ সম্পর্কে জিজ্ঞেস করা হলো। তিনি বললেন, আল্লাহর সঙ্গে কাউকে অংশীদার সাব্যস্ত করা, মা-বাবার অবাধ্য হওয়া। কাউকে হত্যা করা আর মিথ্যা সাক্ষ্য দেয়া। (বুখারি) তাই সংবাদের তথ্য যাচাই ও সত্যতা নিরুপণ করা সাংবাদিকের অপরিহার্য কর্তব্য। শোনা কথা বা ব্যক্তি বিশেষের দেয়া তথ্যের ওপর নির্ভর করে সংবাদ পরিবেশন জায়েয নয়। মহান আল্লাহ বলেন, হে মুমিনগণ! যদি কোনো পাপাচারী তোমাদের কাছে কোনো বার্তা নিয়ে আসে, তোমরা তা পরীক্ষা করে দেখবে। যাতে অজ্ঞতাবশত তোমরা কোনো সম্প্রদায়ের ক্ষতি সাধনে প্রবৃত্ত না হও এবং পরে যাতে নিজেদের কৃতকর্মের জন্য তোমাদের অনুতপ্ত হতে না হয়। (সূরা আল হুজুরাত-৬) প্রিয়নবী হজরত মুহাম্মাদ (সা.) বলেছেন,যা শুনবে, তা-ই (যাচাই করা ছাড়া) প্রচার করা মিথ্যাবাদী হওয়ার জন্য যথেষ্ট। (মুসলিম শরিফ) তথ্য গোপন রোধ: ব্যক্তি স্বার্থ, দলীয় স্বার্থ কিংবা নিজস্ব চিন্তা-চেতনা বিরোধী হওয়ায় অনেকে প্রাপ্ত তথ্য গোপন করে থাকে। নিউজ রুমে অনেক নিউজ কিল করা হয়। এটি ইসলাম সমর্থন করেনা। সত্য ও সাক্ষ্য গোপন করা আল কোরআনের দৃষ্টিতে অসুস্থ মনমানসিকতার পরিচায়ক। আল্লাহ বলেন, আর তোমরা সাক্ষ্য গোপন করো না, আর যে ব্যক্তি তা গোপন করে, অবশ্যই তার অন্তর পাপী। (সূরা আল বাকারা-২৮৩) প্রিয় নবী (সা.) ইরশাদ করেছেন,আল্লাহ ওই ব্যক্তির চেহারা উজ্জ্বল করুন; যে আমার কথা শুনে অতঃপর তা হুবহু ধারণ করে অবিকল অন্যের কাছে পৌঁছে দেয়।(তিরমিজি শরিফ) ব্যক্তিস্বার্থে কাউকে দোষারোপ করা যাবে না: আক্রোশ তাড়িত হয়ে কাউকে হেয় করার মানসে তার ব্যক্তিগত তথ্য প্রকাশ করা খুবই অন্যায়। আল্লাহ তায়ালা বলেন,হে মুমিনগণ! তোমরা আল্লাহর উদ্দেশে সাক্ষ্যদানের ব্যাপারে নীতিবান থাকবে এবং কোনো সম্প্রদায়ের প্রতি বিদ্বেষ তোমাদের কখনো যেন সুবিচার বর্জনে প্ররোচিত না করে।(সূরা মায়েদা : ৮) ব্যক্তি অধিকার ও জাতীয় স্বার্থ সংশ্লিষ্ট না হলে কারো দোষ-ক্রটি জনগণের সামনে তুলে ধরার অনুমতি ইসলাম দেয় না। বরং প্রিয় নবী (সা.) মানুষের ব্যক্তিগত দোষ-ক্রটি গোপন রাখতে উৎসাহ দিয়েছেন। আবূ হুরাইরাহ রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন,যে দুনিয়াতে কোনো বান্দার দোষ গোপন রাখে, আল্লাহ তায়ালা কিয়ামতের দিন তার দোষ গোপন রাখবেন।(মুসলিম ও বুখারি) মনে রাখা দরকার, কোনো ব্যক্তির দোষ তার অগোচরে বর্ণনা করার নাম হলো গীবত। গীবত বা পরনিন্দা মহাপাপ। কোরআনে একে মৃত ভাইয়ের গোশত খাওয়ার সঙ্গে তুলনা করা হয়েছে। হাদিস শরীফে গীবতকে ব্যাভিচারের চেয়েও মারাত্মক বলা হয়েছে। আর অপবাদের গুনাহ এর চাইতেও ভয়াবহ। অতএব প্রত্যেক সাংবাদিককে কারো ব্যাপারে নেতিবাচক সংবাদ প্রচার করার আগে অনেকবার চিন্তা করা উচিত। তবে ব্যক্তির দোষ-ত্রুটি যদি এমন পর্যায়ের হয় যে, তার দ্বারা অন্য ব্যক্তি, সমাজ কিংবা রাষ্ট্র ক্ষতিগ্রস্ত হয়, তাহলে তার অত্যাচার, দুর্নীতি ও প্রতারণা থেকে জনগণকে সচেতন করার লক্ষ্যে তার আসল চেহারা তুলে ধরতে অসুবিধা নেই। এ বিষয়ে ইসলাম বিশেষ ছাড় দিয়েছে। আল্লাহ তায়ালা বলেন,আল্লাহ মন্দ কথার প্রচার-প্রসার পছন্দ করেন না, কিন্তু যার ওপর জুলুম করা হয়েছে (তার কথা ভিন্ন)।-(সূরা নিসা-১৪৮) তাফসিরবিদ আল্লামা মুজাহিদ (রহ.) বলেন, এ আয়াতের উদ্দেশ্য হলো, নিপীড়িত জনতার সপক্ষে গিয়ে জালিমের বিরুদ্ধে অভিযোগ করা এবং বিষয়টি জনসম্মুখে প্রকাশ করা বৈধ। সত্য প্রকাশে আপোস নয়: অপশক্তির কাছে মাথা নত না করে নির্ভীকচিত্তে সংবাদ পরিবেশন করাই ইসলামের দাবি। রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেন,অত্যাচারী শাসকের সামনে ন্যায়বিচারের বাণী তুলে ধরা বড় জিহাদ।(তিরমিজি) মহানবী হজরত মুহাম্মাদ (সা.) তার সাথীদের এই আদর্শেই গড়ে তুলেছিলেন। হজরত মুয়াজ (রা.) বলেন, রাসূল (সা.) আমাকে বলেছেন,হে মুয়াজ, তুমি সত্যই বলবে, যদিও তা তিক্ত হয়। আল্লাহর ব্যাপারে কোনো নিন্দুকের নিন্দাকের নিন্দা যেন তোমাকে প্রভাবিত না করে। মহান আল্লাহ বলেন,যারা অত্যাচার করেছে, তোমরা তাদের প্রতি ঝুঁকে পড়ো না; অন্যথায় জাহান্নামের আগুন তোমাদের স্পর্শ করবে। (সূরা হুদ- ১১৩) তাই পক্ষপাতদুষ্ট সংবাদ বর্জন এবং নিরপেক্ষ সংবাদ পরিবেশন সাংবাদিক সমাজের কর্তব্য। অনুমান নির্ভর সংবাদ নয়: কোনো বিষয়ে সংবাদ পরিবেশনের আগে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে সঠিক তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করা ইসলামী শরীয়ার অন্যতম বিধান। সুস্পষ্ট প্রমাণ ছাড়া শুধু অনুমান ও জনশ্রুতি নির্ভর সংবাদ পরিবেশন করা প্রচলিত ও ইসলামী সাংবাদিকতার নীতিমালার পরিপন্থী। এ বিষয়ে আল্লাহর নির্দেশ,যে বিষয়ে তোমার কোনো জ্ঞান নেই, তার অনুসরণ করো না; নিশ্চয়ই কান, চোখ, অন্তর- এগুলোর প্রতিটি সম্পর্কে কৈফিয়ৎ তলব করা হবে।(সূরা বনি ইসরাঈল-৩৬) হে মুমিনগণ! তোমরা অনেক ধারণা থেকে বেঁচে থাক। নিশ্চয় কতক ধারণা গোনাহ।(সূরা আল হুজরাত-১২) গুজব ও মিডিয়া সন্ত্রাস কাম্য নয় সংবাদ কখনো গুজবের জন্য হতে পারেনা, এবং তা হতে পারেনা কাউকে বিভ্রান্ত বা প্রতারণা করার জন্য। গুজব ও মিডিয়া সন্ত্রাসের কারণে রাজনৈতিক ও ধর্মীয় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে , সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট হয় এবং দেশ জুড়ে দেখা দেয় বিশৃংখলা। তাই এটা সম্পূর্ণ বর্জনীয়। আল্লাহ বলেন,এবং পৃথিবীতে অনর্থ সৃষ্টি করতে প্রয়াসী হয়ো না। নিশ্চয় আল্লাহ অনর্থ সৃষ্টিকারীদেরকে পছন্দ করেন না। (সূরা কাসাস ৭৭) ইসলাম সাংবাদিকের সত্য বলার অধিকার সুপ্রতিষ্ঠিত করেছে। তাই সত্য প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে জাতির বিবেক সাংবাদিকদের ভূমিকা হবে আপোসহীন। উচ্চারিত হবে তাদের কন্ঠে তাদেরই অগ্রজ সাংবাদিক বিদ্রোহী কবির শ্লোগান অসত্যের কাছে কভু নত নাহি হবে শীর, ভয়ে কাঁপে কাপুরুষ লড়ে যায় বীর।একজন মুসলিম সাংবাদিক ইসলামী বিধি-বিধানের আলোকে সংবাদ কার্যক্রম পরিচালনা করলে তা হবে ইবাদত এবং ইহপরকালীন জীবনের মুক্তির কারণ। এর ব্যতিক্রম হলেই একজন সংবাদকর্মী হয়ে যাবেন দুনিয়া ও আখেরাতে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষ। আল্লাহ আমাদের সকলকে বুঝার ও মানার তাওফিক দান করুন। আমিন।...

এই সপ্তাহেই খালেদা জিয়ার জামিন

১৭জুন২০১৯,সোমবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: চলতি সপ্তাহেই জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়ার জামিন হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। রোববার (১৬ জুন) জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মুক্তিযোদ্ধা দল আয়োজিত এক মানববন্ধন কর্মসূচিতে তিনি এ আশা প্রকাশ করেন। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি ও জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দাবি শীর্ষক এ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়। হাইকোর্টে এখন বেগম জিয়ার দুটি মামলা আছে উল্লেখ করে মওদুদ বলেন, একটি হলো জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলা এবং আরেকটি হলো, জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলা। এই সপ্তাহের মধ্যে হাইকোর্টের ডিভিশনে এ দুটি মামলায় জামিন চাওয়া হবে। আমরা আশা করি, জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বেগম জিয়া জামিন হবে। যদি জামিন না হয় তাহলে অবশ্যই আমরা আপিল বিভাগে যাবো। কিন্তু আমরা জানি, সরকারের রাজনৈতিক প্রভাবের কারণে আজকে প্রায় এক বছর চার মাস যাবৎ বেগম জিয়া কারাগারে আছেন। নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, আইনী প্রক্রিয়ায় বেগম জিয়ার জামিনের জন্য আমরা যথাসাধ্য চেষ্টা করবো। কিন্তু তার সত্যিকারের মুক্তি আসবে আন্দোলনের মাধ্যমে। রাজপথেই বেগম জিয়া মুক্তি নিশ্চিত হতে পারে। এজন্য আমাদের সংগঠিত হতে হবে এবং কর্মসূচি দিতে হবে। আমাদেরকে এমন কর্মসূচি দিতে হবে, যাতে সরকার বেগম জিয়াকে মুক্তি দিতে বাধ্য হয়। মওদুদ বলেন, বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়ে সারা বাংলাদেশের মানুষ উৎকণ্ঠিত। তারা সকলেই চায়, বেগম জিয়া যাতে আর কারা না থাকেন। এটা দেশের ১৬ কোটি মানুষের ইচ্ছা। কিন্তু সম্ভব হচ্ছে না। সম্ভব হচ্ছে না কারণ, সরকারের রাজনৈতিক প্রভাবের কারণে আমরা শত চেষ্টা করেও জামিনের সুরহা করতে পারছি না। প্রস্তাবিত বাজেটের বিষয়ে তিনি বলেন, সরকারে সুবিধাভোগীদের জন্য এ বাজেট। এ বাজেট জনসাধারণের জন্য না। বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্য বলেন, গত এক দশকে বাংলাদেশ থেকে ৫ কোটি ৮৮ লাখ কোটি টাকা বিদেশে গেছে। এটা বর্তমান সরকারের বাজেটের চেয়েও বেশী টাকা। যে হারে টাকা পাচার হচ্ছে! এ পাচার কারা করছে? এ সরকারের মদদ নিয়ে যারা ব্যবসা- বানিজ্য করে টাকা করেছে, সেটা দেশে বিনিয়োগ না করে বিদেশে পাচার করেছে। নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্য করে তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশের মানুষের জন্য সুদিন আসছে। এই সুদিন এখন সময়ের ব্যাপার। এই সুদিন সেই দিন আসবে, যে দিন গণতন্ত্র আসবে, বেগম জিয়া মুক্তি হবেন, আইশনের শাসন এবং বিচারবিভাগের স্বাধীনতা ফিরে আসবে। সেই দিনের অপেক্ষায় আপনাদের থাকতে হবে। আয়োজক সংগঠনের সহসভাপতি মিজানুর রহমানের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শওকত মাহমুদ, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আব্দুস সালাম, স্বনির্ভর বিষয়ক সম্পাদক শিরিন সুলতানা মুক্তিযোদ্ধা দলের সাধারণ সম্পাদক সাদেক খান প্রমুখ বক্তব্যে রাখেন। এছাড়া মুক্তিযোদ্ধা দলের সভাপতি ইসতিয়াক আজিজ উলফাত উপস্থিত ছিলেন।-আলোকিত বাংলাদেশ...

জনগণের সম্পূর্ণ বিরুদ্ধে এই বাজেট দেয়া হয়েছে :মির্জা ফখরুল

১৪ জুন২০১৯,শুক্রবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম:জনগণের সম্পূর্ণ বিরুদ্ধে এই বাজেট দেয়া হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। আজ শুক্রবার বিকালে বিএনপি চেয়ারপারসনে গুলশান রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে আনুষ্ঠানিক বাজেট প্রতিক্রিয়ায় তিনি এ মন্তব্য করেন। বিএনপির মহাসচিব বলেন, এই বাজেটে সাধারণ জনগণের জন্য কিছু রাখা হয়নি। এর মাধ্যমে ধনী শ্রেণিকে আরো ধনী হওয়ার সুযোগ তৈরি করে দেয়া হয়েছে। মির্জা আলমগীর বলেন, এই বাজেট জনগণ মেনে নেয়নি। তারা সম্পূর্ণ প্রত্যাখান করেছে। সরকারের এই প্রস্তাবিত বাজেট একটি উচ্চাভিলাসী ও গণবিরোধী বাজেট। সরকার জনগণকে বাইরে রেখে যেভাবে নির্বাচন করেছে, একই ভাবে বাজেটও দিয়েছে। এটি জনগণের বিরুদ্ধে গেছে। মির্জা ফখরুল বলেন, গতকাল অর্থমন্ত্রী ৫ লক্ষ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকার উচ্চাভিলাসী বাজেট ঘোষণা করেছেন। বাজেটের আকার বড় করার চমক সৃষ্টির প্রতিযোগিতায় নেমেছেন অর্থমন্ত্রী। কিন্তু বাজেট বৃদ্ধি এ প্রবনতা বছর শেষে চুপসে যেতে দেখা যায়। এ বাজেট নিয়ে জনমনে কোনো উচ্ছ্বাস নেই। স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান বলেন, এই বাজেট সারা বছরে সরকারের ব্যর্থতার দলীল। এর মাধ্যমে জনগণের উপর করের বোঝা চাপিয়ে দেয়া হয়েছে। আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, যখন কোনো অনির্বাচিত সরকার দেশ পরিচালনা করে তারা জনগণের কাছে দায়বদ্ধ থাকে না। দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশ একমাত্র দেশ, যেখানে একটি অনির্বাচিত সরকার ক্ষমতায়। এই সরকার তাদের নিজেদের স্বার্থে বাজেট দিয়েছে। তিনি বলেন, পৃথিবীর কিছু দেশে দেখবেন কিছু মানুষ নিজেরা ব্যবসা করে, তারা দেশ পরিচালনা করে, তারাই আইন প্রণয়ন করে। বাংলাদেশেও একই অবস্থা এখন। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ড. আবদুল মঈন খান, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী প্রমুখ। ...

ধর্ষণ প্রতিরোধক শাড়ি এখন বাজারে!

১৬মে,বৃহস্পতিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে উন্নত হচ্ছে সমাজ। কিন্তু মানসিকতায় বিশেষ পরিবর্তন আসেনি। তাই তো আজও মহিলাদের ধর্ষিতা হওয়ার জন্য দায়ি করা হয় তাঁর পোশাককে। পোশাকই নাকি সমাজে ধর্ষকের জন্ম দেয়। সমাজের সেই সব মানুষের চিন্তাধারায় সজোরে ধাক্কা দিতে বাজারে এল নতুন এক পোশাক। যা ধর্ষণ প্রতিরোধ করতে সক্ষম যে কোনও পরিস্থিতিতে। সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছিল দিল্লির ঘটনার একটি ভিডিও। যেখানে এক মহিলাকেই স্পষ্ট বলতে শোনা গিয়েছে, খাটো পোশাকের মেয়েদের ধর্ষণ করা উচিত। আরও মজার বিষয় হল, মহিলার সপক্ষে অনেকেই সুর চড়িয়ে বলেন, খাটো পোশাক সত্যিই ধর্ষণের অন্যতম কারণ। অর্থাৎ তাঁদের মতে, মহিলারা আরও মার্জিত-ঢাকা পোশাক পরলেই ধর্ষণ সমস্যার সমাধান হবে। হায়! যদি এমনটাই হত, তবে তিন মাসের শিশুর ধর্ষণের খবর কি আর শিরোনামে উঠে আসত? কিংবা বোরখা পরিহিতার গায়ে কি কখনও যৌন হেনস্থার আঁচ লাগত? সেসব প্রশ্নের উত্তর অবশ্য অধরা। এ প্রসঙ্গ আপাতত থাক। তবে খাটো পোশাকের পালটা দিতে তরুণদের একটি দল হাজির করেছে সুপার সংস্কারি শাড়ি। নিজেদের ওয়েবসাইটে এই অদ্ভুত শাড়ির কথা ব্যাখ্যা করেছে তারা। তবে পুরোটাই মজা করে। তাঁদের মতে, পোশাকই যদি ধর্ষণের কারণ হয়, তবে এমন শাড়িই মহিলাদের পরা উচিত। তাহলেই মুশকিল আসান। মূলত দিল্লির ওই ঘটনার বিরোধিতা করতেই এমন উদ্যোগ। ওয়েবসাইটটিতে শাড়ির বিবরণে লেখা রয়েছে, এই পোশাকে রয়েছে ধর্ষণ-প্রতিরোধক প্রযুক্তি। শাড়িটি পরলে ধর্ষক ওই মহিলাকে দেখতেই পাবেন না। যৌনপিপাসুদের হাত থেকে বাঁচতে এই অত্যাধুনিক শাড়ি অবশ্যই নিজের কালেকশনে রাখুন। যখন আপনাকে দেখাই যাবে না, তখন ধর্ষণের কোনও আশঙ্কাও থাকবে না। যদিও বাস্তবে এ শাড়িতে এমন কিছুই নেই। আসলে মজার ছলেই সমাজের সেই সব মুখোশ পরা মানুষদের কটাক্ষ করতে চেয়েছে তরুণদের এই দল। হিংসাত্মক পথে না হেঁটে প্রতিবাদ জানিয়েছে হাস্যরসের মাধ্যমে৷ ওয়েবসাইটে বলা আছে, শাড়িগুলি অনলাইনে অর্ডারও করা যাবে। ১০০, ২০০, ৫০০ টাকা নানা মূল্যের শাড়ি রয়েছে। তবে নিছকই ব্যবসার জন্য শাড়িগুলি তারা বিক্রি করছে না। এই অর্থ সমাজের পিছিয়ে পড়া মেয়েদের শিক্ষার জন্য ব্যবহার করা হবে। যাতে হিংসার বিরুদ্ধে নিজেরাই রুখে দাঁড়াতে পারে তারা। তাই এই অর্থকে অনুদান বলতেই আগ্রহী ওই তরুণরা।...

মনে হয় তিনি স্বর্গে বাস করছেন

১০ মে,শুক্রবার ,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম : এশিয়ার সবচেয়ে মোটা নারী তকমাপ্রাপ্ত ভারতের মুম্বাইয়ের অমিতা রজনী নিজের ওজন ৩০০ কেজি থেকে ২১৪ কেজিই কমিয়ে ফেলেছেন। দেখতে কদাকার স্থুলকায় নারী থেকে তিনি এখন স্লিমফিট সুন্দরী।চার বছরে দুটি অস্ত্রোপচার এবং লাইফস্টাইল পরিবর্তনের মাধ্যমে তিনি তার ওজন কমিয়েছেন। ৩০০ কেজি থেকে কমে তার ওজন এখন মাত্র ৮৬ কেজি। ভারতের মুম্বাইয়ের এই নারীর চিকিৎসক বেরিয়াট্রিক সার্জন ডা. শশাঙ্ক শাহ জানিয়েছেন, ৪২ বছরের অমিতাই ছিলেন এশিয়ার সবচেয়ে মোটা নারী।দেশটির একটি গণমাধ্যমে দেয়া সাক্ষাত্কারে অমিতা রজনী বলেন, অস্ত্রোপচারের আগে তার জীবন দুর্বিষহ হয়ে উঠেছিল। পোশাক বদলানো বা সামান্য একটু হাঁটার জন্যও প্রয়োজন হতো সাহায্যের। টানা ৮ বছর শয্যাশায়ী ছিলেন তিনি।অমিতা বলেছেন, এই আট বছরে একদিনও বাড়ির বাইরে বের হননি, দেখেননি সূর্যের আলো। তাকে দেখলেই তার ভাইয়ের ৬ মাস বয়সী ছেলে কাঁদতে শুরু করতো। এখানেই শেষ নয়; মুটিয়ে যাওয়ার পাশাপাশি কিডনির জটিলতা, ২ ডায়াবেটিস এবং শ্বাসকষ্ট ছিল তার।ভারতের লীলাবতী এবং হিন্দুজা হাসপাতালে দুবার বেরিয়াট্রিক সার্জারি হয় তার। অস্ত্রোপচারের পর ৩০ দিন চিকিৎসকরা পর্যবেক্ষণে রেখেছিলেন তাকে। এ সময় ফিজিওথেরাপি এবং ব্রিদিং এক্সারসাইজও চলতো।অমিতা জানিয়েছেন, এখন মনে হয় তিনি স্বর্গে বাস করছেন। সুস্থ হওয়ার পর ঘুরে দেখেছেন ভারতের বিভিন্ন প্রান্ত।...

সকল ধর্মের মানুষের ঘরেই আলো ছড়ায় ঈদ

৪জুন২০১৯,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: রমজানের ঈদ এবং কোরবানির ঈদ নিয়ে প্রতিবছরই সংবাদপত্রে লেখা বেরোয়। একটি সংযমের মাস, অন্যটি ত্যাগের উৎসব। এই সংযম ও ত্যাগ নিয়ে আমিও কতবার লিখেছি, তার সীমা সংখ্যা নেই। নজরুল তো এই দুই ঈদ নিয়ে একটি গান, একটি কবিতাই লিখে ফেলেছেন। রমজানের ঈদ নিয়ে তিনি লিখেছিলেন গান, রমজানের ওই রোজার শেষে এলো খুশির ঈদ। কোরবানির ঈদ নিয়ে লিখেছিলেন কবিতা, ওরে হত্যা নয় আজ সত্যাগ্রহ শক্তির উদ্বোধন। এই গান ও কবিতা দুটিই একসময় প্লাবন সৃষ্টি করেছিল দেশে। দুই ঈদ সম্পর্কেই নজরুল লিখেছিলেন, সারাদিন উপবাসে থেকে ইফতার ও সেহিরতে যথেচ্ছ পান ভোজন করাটা ত্যাগ এবং সংযম কোনোটাই নয়। গরিব প্রতিবেশীকে অনাহার অর্ধাহারে রেখে নিজে ইফতারি-সেহিরর নামে পোলাও-কোর্মা খাওয়াটা সংযম নয়, বরং ভণ্ডামি। কোরবানির ঈদ সম্পর্কে তিনি লিখেছিলেন, বনের পশুকে নয়, তুই আগে মনের পশুকে হত্যা কর। তা না পারলে কেবল পশু হত্যা কোনো কাজ দেবে না। রমজানের ঈদের নাম ঈদুল ফিতর। অর্থাৎ ফিতরের ঈদ। এই ঈদ বা উৎসব গরিব প্রতিবেশীকে শরিক না করে পালন করা যায় না। এ জন্য একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ গরিব প্রতিবেশীকে দিতে হয়। ইসলামে ফিতরা, জাকাত ইত্যাদি প্রবর্তন করা হয়েছিল গরিবদের প্রতি ধনীদের দায়িত্ব পালনের জন্য। দুই ঈদের আরো একটি উদ্দেশ্য ছিল সমাজে শ্রেণি ব্যবধান ঘোচানো। গরিব আর ধনী, অভিজাত আর অনভিজাত পাশাপাশি বসে নামাজ পড়ছে, নামাজ শেষে মনিব আর চাকর কোলাকুলি করছে। দেড় হাজার বছর আগে এটি ছিল একটি বৈপ্লবিক ব্যবস্থা। বর্তমানে আরো উন্নত যুগের উন্নত সামাজিক ব্যবস্থার সময়েও এই দৃশ্য বিরল। নারীরা ঘোড়ায় চড়ে পুরুষের পাশাপাশি যুদ্ধ করে এই দৃশ্য দেখা ইসলামের প্রথম যুগেই সম্ভব ছিল। মোল্লাবাদের আবির্ভাবের ফলে ইসলামের এই মৌলিক আদর্শ, নারীমুক্তি, দাসমুক্তি, শ্রেণি সাম্য, আর্থিক সাম্য, অন্য ধর্মের প্রতি সম্মান ও সহিষ্ণুতা প্রায় বিলুপ্তির পথে। ইসলামকে তার প্রকৃত আদর্শে ফিরিয়ে নেওয়ার জন্য পরবর্তীকালে যেসব সংস্কারক চেষ্টা করেছিলেন, যেমন ইমাম আবু হানিফা, ইমাম শাফেয়ি, ইমাম মালেক, ইমাম আহমদ ইবনে হাম্বল প্রমুখ সংস্কারকের বেশির ভাগকেই উগ্র মোল্লাবাদীরা হত্যা করেছিল। বাংলাদেশের সৌভাগ্য, সেই প্রাচীনকালে ব্রাহ্মণ্য শাসনের অত্যাচার-উত্পীড়নে অতিষ্ঠ এবং বর্ণবিভাগে বিভাজিত দেশটিতে প্রধানত পারস্য থেকে আগত ধর্ম প্রচারকরা ইসলাম প্রচার করেছেন। উত্পীড়িত মানুষ তাকে স্বাগত জানিয়েছে। শ্রেণি বিভক্তিতে পীড়িত অস্পৃশ্য নিম্ন শ্রেণির হিন্দু ও বৌদ্ধরা দলে দলে ইসলাম গ্রহণ করেছে। তাদের অস্পৃশ্যতা দূর হয়েছে। মানবাধিকার ফিরে পেয়েছে। পণ্ডিত মোতাহার হোসেন চৌধুরীর মতে, বাঙালির স্থানীয় কালচার তার জাতীয় কালচার। ইসলাম যে বহিরাগত কালচার সঙ্গে করে এনেছে, তা ধর্মীয় কালচার। এ দুইয়ের মিলনে-মিশ্রণে যে বাঙালি কালচার গড়ে উঠেছে, তা ধর্মনিরপেক্ষ কালচার। এই কালচারের প্রভাবে ধর্মীয় উগ্রতা কখনো প্রশ্রয় পায়নি। মিলন ও ভালোবাসায় সুফিবাদ, মরমি বৈষ্ণববাদ ইত্যাদি গড়ে উঠেছে। ব্রিটিশ আমলেও বাঙালি হিন্দু-মুসলমানের প্রধান উৎসব ছিল রমজানের ঈদ ও সর্বজনীন দুর্গাপূজা। রমজানের ঈদ ও দুর্গাপূজা উপলক্ষে শরৎকালে সরকারি অফিস-আদালত, স্কুল-কলেজ এক মাস ছুটি থাকত। শহরে কর্মরত মানুষ ছুটিতে গ্রামে ফিরে আসত। ঈদ ও পূজা উপলক্ষে হিন্দু ও মুসলমানের মধ্যে মিলন ঘটত। পাকিস্তান আমলে সামাজিক জীবন ও রাজনীতিতে ধর্ম ও সাম্প্রদায়িকতার বিভেদ বেড়ে ওঠে। দুই সম্প্রদায়ের বাঙালি জীবনেই তার ছাপ পড়ে। বাংলাদেশ হিন্দু-মুসলমানের মিলিত সংগ্রামের পর স্বাধীনতা লাভ করায় অসাম্প্রদায়িক জাতীয়তার ভিত্তি শক্ত হবে; রমজানের ঈদ, দুর্গাপূজা, বৈশাখী উৎসব, ভাষা দিবস প্রভৃতি জাতীয় উৎসবে রূপান্তরিত হবে আশা করা হচ্ছিল। কিন্তু বাধা পড়ে উগ্র ওয়াহাবিবাদ, মওদুদীবাদ ইত্যাদি মতবাদের আবির্ভাবের ফলে। এই ওয়াহাবিবাদ থেকেই কট্টর জঙ্গিবাদ বা পলিটিক্যাল ইসলাম জন্ম নেয়। তা শুধু জাতীয় উৎসবগুলোকেই ধর্মীয় করেনি, জাতীয় রাজনীতিকেও ধর্মীয় কালচার দ্বারা প্রভাবিত করে যেসব ধর্মীয় উৎসব জনগণের মিলিত উৎসবে পরিণত হয়েছিল, তাতেও বিভাজন ঘটায়। বাঙালির সমাজ এখন বিভাজিত সমাজ। তার হাজার বছরের মিশ্র সংস্কৃতি এখন ধর্মীয় সংস্কৃতি দ্বারা আচ্ছন্ন। স্বাধীনতাযুদ্ধে বাঙালি মুসলমান যতটা স্বদেশে ফিরেছিল, বিএনপি-জামায়াতের শাসন এবং মোল্লাবাদের উত্থানে ততটাই স্বদেশবিমুখ হয়েছে। এ অবস্থাকেই কবি শামসুর রাহমান বলেছিলেন, অদ্ভুত উটের পিঠে চলেছে স্বদেশ। এই উটের পিঠ থেকে স্বদেশকে নামাতে সময় লেগেছে ২১ বছর। এই যুদ্ধ চলেছে ২১ বছরের বেশি এবং এখনো চলছে। বাংলাদেশে রমজানের খুশির চাঁদ এখন খণ্ডিত। দুর্গাপূজার মণ্ডপ পুলিশ পাহারায় রাখতে হয়। এই অবস্থা থেকে জাতীয় উৎসবগুলোকে মুক্ত করতে হবে। আমাদের কৈশোরে রমজানের ঈদে হিন্দু ও বৌদ্ধরাও উৎসবে যোগ দিত। তারা নামাজ পড়তে আসত না। আসত উৎসবের খাওয়াদাওয়ায় যোগ দিতে। অনুরূপ আমরাও দুর্গা ও সরস্বতীর পূজার উৎসবের অংশে যোগ দিতাম। বৌদ্ধ পূর্ণিমার উৎসবে মেতে উঠতাম। বাঙালির সংস্কৃতি, সমাজ ছিল মিশ্র ও মিলিত। তার উৎসবও তাই। বাংলাদেশে তার হাজার বছরের লোকায়ত সমাজ ও সভ্যতা ফিরিয়ে আনতে হবে। না হলে বাংলাদেশের স্বাধীনতা অসম্পূর্ণ থাকবে। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলার বাস্তবায়ন সম্ভব হবে না। পশ্চিমবঙ্গের রাজধানী কলকাতায় একাধিকবার গড়ের মাঠে রমজানের ঈদের নামাজের বিশাল জামাতে যোগ দেওয়ার সৌভাগ্য আমার হয়েছে। দেখেছি, মুখ্যমন্ত্রী ডা. বিধান রায়, সিদ্ধার্থ শঙ্কর রায় এই ঈদের জামাতে আসতেন। এখন আসেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁরা নামাজ পড়তে আসেন না। নামাজের আগে যে খুতবা পাঠ হয়, সেই সময় খতিবের পাশে বসেন। খুতবা পাঠ শেষ হলে মুসলমানদের ঈদ মোবারক জানান। তাদের সমস্যা ও অভিযোগ দূর করার প্রতিশ্রুতি দেন। বাংলাদেশেও দুর্গাপূজায়, বুদ্ধপূর্ণিমায় বা উপজাতীয়দের কোনো ধর্মীয় উৎসবে যে দলের সরকারই ক্ষমতায় থাকুক, তারা যায়। যুদ্ধাপরাধী মতিউর রহমান নিজামী যখন মন্ত্রী, তিনিও পুলিশসহ দুর্গাপূজার মণ্ডপে গেছেন। সেটা ছিল লোক-দেখানো যাওয়া। একদিকে মন্ত্রী গেছেন পূজামণ্ডপে, অন্যদিকে তাঁর দলের লোকেরা মন্দিরে হামলা করেছে, মূর্তি ভেঙেছে। এইচ এম এরশাদের আমলে তো সরকারের নিযুক্ত গুণ্ডারা মন্দির ও মূর্তি ভেঙেছে। সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর নির্যাতন চালিয়েছে। অতঃপর বিশ্বজনমতের নিন্দা ও চাপের মুখে আবার সরকারি খরচে ভাঙা মন্দির মেরামত করেছে। এই অবস্থা ভারতেও দেখা গেছে। মহররমের মিছিলে হামলা হয়েছে। ঈদের জামাতে বোমা মারা হয়েছে। মসজিদ ভাঙা হয়েছে। গরু কোরবানির জন্য সংখ্যালঘু মানুষ হত্যা করা হয়েছে। ভারতে ৭০০ বছরের পুরনো বাবরি মসজিদ ভাঙা হয়েছে। বাংলাদেশে পাকিস্তানি হানাদাররা হাজার বছরের প্রাচীন রমনা কালীমন্দির ভেঙেছে। একদিকে ভারতে দাপট দেখাচ্ছে হিংস্র হিন্দুত্ববাদ এবং বাংলাদেশে দাপট দেখাচ্ছে উগ্র ইসলামী জঙ্গিবাদ। অথচ কোনো ধর্মেই হিংসাকে প্রশ্রয় দেওয়া হয়নি। ধর্মে হিংসা ঢুকিয়েছে মোল্লাবাদীরা এবং উদ্দেশ্যপূর্ণ রাজনীতিকরা। একে রুখতে হলে ধর্মের পবিত্র অনুষ্ঠানগুলোকে মোল্লাবাদীদের খপ্পরমুক্ত করতে হবে। রমজানের ঈদ, দুর্গাপূজার মতো উৎসবগুলোকে সাম্প্রদায়িক মিলনের কেন্দ্র করে তোলার জন্য সরকারকেই উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে। আওয়ামী লীগের শাসনামলে অবশ্য সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি অনেকটাই ফিরে আসে। সংখ্যালঘুদের পূজা-পার্বণও অনেকটা হামলামুক্ত হয়। কিন্তু বড় কাজ হবে এই উৎসবগুলোকে সব ধর্মের মানুষের সম্মিলিত উৎসব করে তোলা। ইউরোপে যেমন খ্রিস্ট ধর্মের ক্রিসমাস উৎসব সব ধর্ম-বর্ণের মানুষই পালন করে। রবীন্দ্রনাথ বলেছিলেন, আনন্দময়ীর আগমনের বাজনা যেন হিন্দুর ঘরেই সীমাবদ্ধ না থাকে, সকল ধর্মের মানুষের ঘরেই বেজে উঠে। আর নজরুল বলেছিলেন, রমজানের ঈদের চাঁদ যেন কেবল মুসলমানের ঘরে আলো না ছড়িয়ে সকল ধর্মের মানুষের ঘরেই আলো ছড়ায়। এবারের রমজানের ঈদে আমাদের সবার প্রার্থনা হোক, এই চাঁদ যেন সব বিভেদ-বিবাদের মেঘ সরিয়ে ধর্ম-বর্ণ-নির্বিশেষে সবার ঘরে আনন্দের আলো ছড়ায়। সবার জন্য রইল ঈদ মোবারক।-আবদুল গাফফার চৌধুরী ...

এসএসসি পরীক্ষা নিয়ে ভাবনা

১১মে,শনিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম:এসএসসি পরীক্ষা নিয়ে ভাবনা ( মুহম্মদ জাফর ইকবাল)১. এসএসসি পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়েছে। প্রায় একুশ লাখ ছেলেমেয়ে পরীক্ষা দিয়েছিল, এর মাঝে প্রায় বিরাশি শতাংশ পাস করেছে। সময়মতো পরীক্ষা নেওয়া হয়েছে সময়মতো পরীক্ষার ফল ঘোষণা করা হয়েছে। মনে আছে একটা সময় ছিল যখন হরতালের পর হরতাল দিয়ে আমাদের জীবনটাকে একেবারে এলোমেলো করে দেওয়া হতো! আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষার রুটিন দেওয়ার সময় রুটিনের নিচে লিখে রাখতাম অনিবার্য কারণে পরীক্ষা নেওয়া না গেলে অমুক দিন পরীক্ষা নেওয়া হবে। আমরা যারা একটু বেশি দুঃসাহসী ছিলাম তারা সারাদিন হরতাল শেষে সন্ধ্যাবেলাও পরীক্ষা নিয়েছি। হঠাৎ করে ইলেকট্রিসিটি চলে গেলে যেন পরীক্ষা নিতে পারি সেজন্য মোমবাতি রেডি রাখতাম। শুধু মুখ ফুটে কোনও একটা রাজনৈতিক দলকে উচ্চারণ করতে হতো অমুকদিন হরতাল, ব্যস সারাদেশ অচল হয়ে যেতো! মনে আছে, আমি অনেকবার রাজনৈতিক দলের কাছে অনুরোধ করতাম, হরতালের সময় যেরকম হাসপাতাল অ্যাম্বুলেন্সকে হরতালমুক্ত রাখা হতো সেরকম স্কুল কলেজ এবং পরীক্ষা যেন হরতালমুক্ত রাখা হয়! কিন্তু কে আমাদের কথা শুনবে? সেই হরতাল দেশ থেকে উঠে গেছে। আমার মাঝে মাঝে নিজেকে চিমটি কেটে দেখতে হয় সত্যিই এটা ঘটেছে নাকি স্বপ্ন দেখছি! এভাবে আরও কিছুদিন কেটে গেলে ছোট ছেলেমেয়েদের একদিন বোঝাতে হবে হরতাল জিনিসটি কী! শুধু যে হরতাল উঠে গেছে, তা নয়, মনে হচ্ছে শেষ পর্যন্ত প্রশ্নফাঁস থেকেও আমরা মুক্তি পেয়েছি। এই মাত্র কদিন আগেও মায়েরা রাত জেগে বসে থাকতেন, ফেসবুক থেকে ফাঁস হয়ে যাওয়া প্রশ্ন ডাউনলোড করে সেটা সমাধান করিয়ে নিজের বাচ্চাদের হাতে তুলে দিতেন মুখস্থ করার জন্য। (হয়তো বাবারাও কিংবা অন্য আত্মীয়-স্বজনও এটা করেছেন, কিন্তু আমার কাছে যেসব তথ্য এসেছে সেখানে মায়েদের কথাটাই বেশি এসেছে, তাই মায়েদের কথা বলছি এবং সুস্থ স্বাভাবিক মায়েদের কাছে অগ্রিম ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি এরকম কুৎসিত একটা বাক্য লেখার জন্য।) প্রশ্ন ফাঁস নিয়ে আমার ক্ষোভটা একটু বেশি, কারণ মনে আছে আমি এটা নিয়ে চেঁচামেচি শুরু করার পর হঠাৎ করে আবিষ্কার করেছিলাম আমার এই বিশাল নাটক করার পরও আমার সাথে কেউ নেই! আমি মোটামুটি একা। কোনোভাবেই শিক্ষা মন্ত্রণালয় কিংবা বোর্ডগুলোকে একবারও স্বীকার করানো যায়নি যে, আসলেই দেশে পাবলিক পরীক্ষার প্রশ্নফাঁস হচ্ছে। যতক্ষণ পর্যন্ত সমস্যাটির অস্তিত্ব স্বীকার করা না হচ্ছে, ততক্ষণ পর্যন্ত সেই সমস্যাটির সমাধান হবে কেমন করে? শেষপর্যন্ত মন্ত্রণালয় যখন স্বীকার করতে শুরু করল যে আসলেই প্রশ্নফাঁস হচ্ছে তখন মোটামুটি ম্যাজিকের মতো সমস্যাটি দূর হয়ে গেলো! পরীক্ষার খাতা দেখার ব্যাপারেও একটা শৃঙ্খলা এসেছে, চোখ বন্ধ করে বেশি নম্বর দেওয়ার প্রক্রিয়াটাও মনে হয় বন্ধ হয়েছে, বাকি আছে শুধু প্রশ্নের মান। আগের থেকে যথেষ্ট উন্নত হয়েছে কিন্তু এখনো মনে হয় মানসম্মত প্রশ্ন করা শুরু হয়নি, শিক্ষকরা সৃজনশীল প্রশ্ন করতে পারেন না বলে অভিযোগ আছে। এখনও মাঝে মাঝেই গাইড বই থেকে পরীক্ষায় প্রশ্ন চলে আসে। সে কারণে গাইড বইয়ের প্রকাশক এবং কোচিং ব্যবসায়ীদের অনেক আনন্দ। ভালো প্রশ্ন করা খুব সহজ কাজ নয়, একজনকে এই দায়িত্ব দিলেই সেটা হয়ে যায় না। কিন্তু যেহেতু একটা প্রশ্ন প্রায় বিশ লাখ ছেলেমেয়ে ব্যবহার করে সেই প্রশ্নটি অনেক মূল্যবান, তার জন্য অনেক কাঠখড় পোড়ানো দরকার। এ রকম প্রশ্নগুলো যারা করেন তাদের যে সম্মানী দেওয়া হয়, সেটা রীতিমতো হাস্যকর। আমি সুযোগ পেলেই শিক্ষার সঙ্গে যুক্ত গুরুত্বপূর্ণ মানুষদের বলি প্রশ্ন করার জন্য হোটেল সোনারগাঁয়ে একটা সুইট ভাড়া করতে, প্রশ্নকর্তারা সেখানে থাকবেন ভাবনাচিন্তা করে সুন্দর প্রশ্ন করে সেটা টাইপ করে একেবারে ক্যামেরা রেডি করে দিয়ে বাড়ি যাবেন। গুরুত্বপূর্ণ মানুষেরা আমার কথা বিশ্বাস করেন না। তারা ভাবেন আমি ঠাট্টা করছি। আমি কিন্তু ঠাট্টা করে কথাগুলো বলি না, সত্যি সত্যি বলি। স্কুল-কলেজের শিক্ষক হলেই তাদের হেলাফেলা করা যাবে সেটা আমি বিশ্বাস করি না। যখন তারা বিশ লাখ ছেলেমেয়ের জন্য প্রশ্ন করছে তখন তারা মোটেও হেলাফেলা করার মানুষ না। তারা অনেক গুরুত্বপূর্ণ মানুষ। পরীক্ষার মানসম্মত প্রশ্ন করা হলে অনেক বড় একটা কাজ হবে। সবাই পরীক্ষায় ভালো নম্বর পেতে চায়, মানসম্মত প্রশ্ন হলে শুধু তারাই ভালো নম্বর পাবে যারা বিষয়টা জানে। কোচিং সেন্টার থেকে ভালোভাবে পরীক্ষা দেওয়ার টেকনিক শিখে লাভ হবে না। সেজন্য ভালো প্রশ্ন খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ভালো প্রশ্ন করার পরও আরো একটা বিষয় থেকে যায়। আমরা যখন এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছিলাম তখন সকালে এক পেপার বিকালে আরেক পেপার পরীক্ষা দিয়েছি! প্রত্যেকদিন পরীক্ষা, মাঝে কোনও গ্যাপ নেই। পরীক্ষা শুরু হওয়ার পর ঝড়ের গতিতে পরীক্ষা শেষ! এটা নিয়ে যে আপত্তি করা যায় সেটাও আমরা জানতাম না। খুব যে কষ্ট হয়েছে কিংবা পরীক্ষার পর অর্ধেক ছেলেমেয়ে পাগল হয়ে গেছে সে রকম কিছু শুনিনি। সেই বিষয়টা ধীরে ধীরে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করা যায়। (আমার এই বক্তব্য শুনে পরীক্ষার্থীরা চাপাতি হাতে নিয়ে আমাকে খুঁজবে সেরকম একটা আশংকা আছে, তারপরও বলছি!) পরীক্ষা লেখাপড়া নয়, শুধু পরীক্ষার প্রস্তুতির জন্য দিনের পর দিন কাটিয়ে দেওয়ার মাঝে কোনও আনন্দ নেই। ঝটপট পরীক্ষা শেষ করে বাকি সময়টা নির্ভেজাল আনন্দের মাঝে কাটানো হচ্ছে জীবনকে উপভোগ করা। বাচ্চাদের কেন জীবন উপভোগ করতে শেখাব না? ২. প্রতিবছর এসএসসি পরীক্ষার ফল প্রকাশ হওয়ার পর আমরা পত্রপত্রিকায় এবং টেলিভিশনে পরীক্ষার্থীদের আনন্দোজ্জ্বল ছবি দেখতে পাই। এই বয়সটিতে সবকিছুকেই রঙিন মনে হয় তাই পরীক্ষার পর তাদের আনন্দ এবং উচ্ছ্বাসটিও হয় অনেক বেশি স্বতঃস্ফূর্ত, অনেক বেশি তীব্র। দেখতে খুব ভালো লাগে। কিন্তু প্রতিবছরই এই আনন্দে উদ্ভাসিত ছেলেমেয়েগুলোর ছবি দেখার সময় আমি এক ধরনের আশঙ্কা অনুভব করি। এই বয়সটি তীব্র আবেগের বয়স, আমি নিশ্চিতভাবে জানি অসংখ্য ছেলেমেয়ের তীব্র আনন্দের পাশাপাশি কিছু ছেলেমেয়ে রয়েছে যাদের পরীক্ষার ফলটি তাদের মনমতো হয়নি। সেজন্য কয়দিন মন খারাপ করে থেকে আবার নতুন উৎসাহ নিয়ে জীবন শুরু করে দিলে আমার কোনও আপত্তি ছিল না। কিন্তু সেটি হয় না, প্রতিবছরই দেখতে পাই পরীক্ষার ফল বের হওয়ার পর বেশকিছু ছেলেমেয়ে একেবারে আত্মহত্যা করে ফেলে। এই বছর এখন পর্যন্ত পাঁচটি ছেলেমেয়ের খবর পেয়েছি যারা আত্মহত্যা করেছে। সারাদেশে এরা ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। এদের মাঝে ছেলে আছে, তবে মেয়েদের সংখ্যা বেশি। এসএসসি পরীক্ষার্থী আছে সেরকম দাখিল পরীক্ষার্থী আছে। পরীক্ষায় পাস করতে পারেনি সেজন্য আত্মহত্যা করেছে যেরকম আছে, যথেষ্ট ভালো করেছে কিন্তু শেষ পর্যন্ত জিপিএ ফাইভ হয়নি বলে আত্মহত্যা করেছে সেরকম ঘটনাও ঘটেছে। কী ভয়ঙ্কর একটি ঘটনা। একজন মানুষের জীবন কত বড় একটি ব্যাপার সেই জীবনটি থেকে কত কী আমরা আশা করতে পারি, সেই জীবনটিকে একটি কিশোর কিংবা কিশোরী শেষ করে দিচ্ছে কারণ তার পরীক্ষার ফল ভালো হয়নি, এটি আমরা কেমন করে গ্রহণ করব? যখনই এরকম একটি ঘটনার কথা পত্রপত্রিকায় দেখি আমার বুকটি ভেঙে যায়। শুধু মনে হয়, আহা আমি যদি তার সঙ্গে একটুখানি কথা বলতে পারতাম। মাথায় হাত বুলিয়ে বলতে পারতাম জীবনটা কত বড়, তুচ্ছ একটা পরীক্ষার তুচ্ছ একটা ফলকে পিছনে ফেলে জীবনে কত বড় একটা কিছু করে ফেলা যায়। পৃথিবীতে সেরকম কত উদাহরণ আছে। প্রত্যেকটা মানুষকেই জীবনে কত ঘাত-প্রতিঘাত সহ্য করতে হয়, একজন মানুষের জীবনে যতটুকু সাফল্য তার থেকে ব্যর্থতা অনেক বেশি। সেই ব্যর্থতা এলে কি কখনো হাল ছেড়ে দিতে হয়? ভবিষ্যতে আরও কত সুন্দর জীবন অপেক্ষা করছে আমরা সেটি কি কল্পনা করতে পারি? কিন্তু আমার কখনো এই অভিমানী ছেলেমেয়েগুলোর সঙ্গে দেখা হয় না। তাদের মাথায় হাত বুলিয়ে সান্ত্বনা দেওয়ার সুযোগ হয় না। শুধু পত্র-পত্রিকায় খবরগুলো দেখে দীর্ঘশ্বাস ফেলি। আমি আশা করে থাকি আমাদের দেশের ছেলেমেয়েরা এবং তাদের মা-বাবারা বুঝতে পারবেন যে পরীক্ষার এই একটি ফল পৃথিবীর বিশাল কর্মযজ্ঞের তুলনায় কিছুই না। পরীক্ষায় মনের মতো ফল না করেও একটি চমৎকার জীবন হওয়া সম্ভব। শুধু ডাক্তার ও ইঞ্জিনিয়ার হওয়াই জীবন নয়, ডাক্তার ও ইঞ্জিনিয়ার না হয়ে এই পৃথিবীর অসংখ্য মানুষ আশ্চর্যরকম সুখী হয়ে জীবন কাটিয়েছে, তারা পরিবারকে দিয়েছে, সমাজকে দিয়েছে, দেশকে দিয়েছে এমনকী পৃথিবীকে দিয়েছে। লেখাপড়ার সত্যিকার উদ্দেশ্যটি মনে হয় আমরা আমাদের ছেলেমেয়েদেরকে কিংবা তাদের মা-বাবাদের এখনো বোঝাতে পারিনি! ৩. আত্মহত্যার খবর পড়ে যখন মন খারাপ করে বসে থাকি তখন তার পাশাপাশি অদম্য মনোবলের একজনের কাহিনি পড়ে আবার মনটি আনন্দে ভরে ওঠে। তামান্না আখতার নামে একটি কিশোরী জন্ম নিয়েছে দুই হাত এবং একটি পা ছাড়া। সে সেই ছেলেবেলা থেকে অসাধারণ লেখাপড়া করে এসেছে, এসএসসিতেও তার মনের মতো পরীক্ষার ফল হয়েছে। আমার আনন্দ সেখানে নয়, আমার আনন্দ তার স্বপ্নের কথা পড়ে। সে বড় হয়ে প্রথমে ডাক্তার হতে চেয়েছিল এখন সিভিল সার্ভিসের কর্মকর্তা হওয়ার স্বপ্ন দেখছে! আমি মাঝে মাঝে নতুন সিভিল সার্ভিস কর্মকর্তাদের সামনে বক্তৃতা দেই। যদি বেঁচে থাকি তাহলে এমন তো হতেও পারে যে সেরকম কোনও একটি সভায় হঠাৎ করে দেখব সামনে একটি হুইল চেয়ারে মাথা উঁচু করে তামান্না বসে আছে। স্বপ্ন দেখতে দোষ কী? আরও একটি আনন্দের ব্যাপার হয়েছে। আমি সবসময়েই বলে থাকি আমাদের দেশের সবচেয়ে বড় শক্তি যে এখানে ছেলেরা এবং মেয়েরা সমানভাবে লেখাপড়া করে যাচ্ছে। আমি মোটামুটিভাবে বিশ্বাস করি মেয়েরা যখন জীবনের সবক্ষেত্রে ছেলেদের সমান সমান হয়ে যায় তখন এই দেশটি নিয়ে আমাদের আর কোনও দুর্ভাবনা করতে হবে না। এবারে এসএসসি পরীক্ষার ফল দেখে মনে হলো আমরা সেদিকে আরও একধাপ এগিয়ে গেছি! মেয়েরা এর মাঝে ছেলেদের থেকে ভালো করতে শুরু করেছে। লেখক : অধ্যাপক, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, সিলেট...

বাংলাদেশের গণমাধ্যম খুব বেশি স্বাধীন নয়,ফ্রিডম হাউজের প্রতিবেদন

৮জুন২০১৯,শনিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম:রাজনৈতিক স্বাধীনতা, গণতন্ত্র ও মানবাধিকার নিয়ে কাজ করা সংস্থা ফ্রিডম হাউজ সমপ্রতি বিশ্বজুড়ে সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতার বিষয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক এই পর্যবেক্ষণ সংস্থা বিশ্বের দেশগুলোতে গণমাধ্যমের স্বাধীনতার ওপর ০ থেকে ৪ পয়েন্ট ধরে প্রতিবেদনটি তৈরি করেছে। এতে বাংলাদেশ পেয়েছে ১ পয়েন্ট। অপরদিকে গণমাধ্যমের সবথেকে বেশি স্বাধীনতা নিশ্চিতকারী দেশগুলো পেয়েছে ৪ পয়েন্ট। এর মধ্যে রয়েছে সুইডেন, যুক্তরাষ্ট্র, বৃটেন, উরুগুয়েসহ মোট ২৬টি দেশ। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে ভারত পেয়েছে ২ পয়েন্ট, পাকিস্তান ১ পয়েন্ট, নেপাল ২ পয়েন্ট, ভুটান ২ পয়েন্ট, আফগানিস্তান ২ পয়েন্ট, মালদ্বীপ ১ পয়েন্ট ও শ্রীলঙ্কা ২ পয়েন্ট। বাংলাদেশের বিষয়ে এই প্রতিবেদনে বলা হয়, এদেশের গণমাধ্যম খুব বেশি স্বাধীন নয়। এতে চিত্রগ্রাহক শহিদুল আলমকে গ্রেপ্তারের কথা উল্লেখ করা হয়। বলা হয়, শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের খবর প্রচার করায় ও তাদের পক্ষে কথা বলায় শহিদুল আলমকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। বাংলাদেশে ব্লগার হত্যা ও তাদের লেখালেখির ওপর কড়াকড়ির সমালোচনা করেছে ফ্রিডম হাউজ। সংস্থাটির দাবি, বাংলাদেশের সাংবাদিকরা সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা হারানো, গ্রেপ্তার ও নির্যাতনের ভয়ে সেলফ-সেন্সরশিপের দিকে ঝুঁকে পড়ছে। ফ্রিডম হাউজের গবেষণা ও বিশ্লেষণ বিভাগের জ্যেষ্ঠ পরিচালক সারাহ রেপুচ্চি গণমাধ্যমের স্বাধীনতাকে নিম্নমুখী রাস্তার সঙ্গে তুলনা করেছেন। তিনি এ গবেষণায় উঠে আসা প্রধান দিকগুলো নিয়ে আলোচনা করেছেন। এতে তিনি লিখেছেন, গত এক দশকে বিশ্বব্যাপী গণমাধ্যমের স্বাধীনতা উল্লেখযোগ্য মাত্রায় সংকুচিত হয়েছে। বিশ্বের প্রভাবশালী গণতন্ত্রগুলোতে পপুলিস্ট নেতাদের উত্থান হয়েছে। যারা মুক্ত গণমাধ্যমের গলা চিপে ধরছে। তবে, বিশ্বব্যাপী গণমাধ্যমের স্বাধীনতা শুধু সংকুচিতই হয়নি কিছু দেশে এ অবস্থার উন্নতিও লক্ষ্য করা গেছে বলে জানিয়েছে ফ্রিডম হাউজ। এসব দেশের মধ্যে রয়েছে- ইথিওপিয়া, মালয়েশিয়া, আর্মেনিয়া, ইকুয়েডর ও গাম্বিয়া। এই ৫টি দেশকে অন্ধকারে আলোর পথযাত্রী হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন সারাহ রেপুচ্চি। এ ছাড়া, আরব বসন্তের পর মধ্যপ্রাচ্যের কয়েকটি দেশে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা পূর্বের তুলনায় বেড়েছে বলে জানিয়েছে ফ্রিডম হাউজ। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিশ্বে কর্তৃত্ববাদী সরকার ও প্রভাবশালী মহলের চাপেই গণমাধ্যমের স্বাধীনতা দিনদিন হুমকির মুখে পড়ছে। সাংবাদিকরা নানান ধরনের বাধার মুখোমুখি হচ্ছেন। তাদের ওপর গ্রেপ্তার ও নির্যাতন বাড়ছে বলেও জানানো হয়েছে ওই প্রতিবেদনে। তবে দুর্বল গণতন্ত্র ও নতুন গণতন্ত্রের দেশগুলোতে সবথেকে বেশি চাপের মুখে রয়েছেন তারা। এ ছাড়া চীন ও আফ্রিকার কয়েকটি দেশে গণমাধ্যমের স্বাধীনতাকে শোচনীয় বলে উল্লেখ করেছে ফ্রিডম হাউজ। তাদের তালিকায় চীন পেয়েছে শূন্য পয়েন্ট। সংস্থাটির দাবি, চীন ও আফ্রিকার কয়েকটি দেশের সরকার তাদের গণমাধ্যমগুলোকে নিজস্ব মতামত চাপিয়ে দিচ্ছে। চীনে সরকারের মতবাদ প্রকাশে সাংবাদিকদের ওপর চাপ দেয়া হচ্ছে বলেও জানানো হয়েছে এ প্রতিবেদনে। এ ছাড়া চীনের প্রতি সংবাদ সেন্সরের অভিযোগও আনে ফ্রিডম হাউজ। ইউরেশিয়া অঞ্চলের দেশগুলোর বিষয়ে বলা হয়েছে, ২০১৪ সালের তুলনায় এ অঞ্চলের দেশগুলোতে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ১১ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের সাংবাদিকদের নানা সুবিধা থাকা সত্ত্বেও তারা কিছুটা চাপ অনুভব করেন বলে এই প্রতিবেদনে প্রকাশ করা হয়। এ নিয়ে উদ্বেগও প্রকাশ করেছে সংস্থাটি।


সকল ধর্মের মানুষের ঘরেই আলো ছড়ায় ঈদ

৪জুন২০১৯,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: রমজানের ঈদ এবং কোরবানির ঈদ নিয়ে প্রতিবছরই সংবাদপত্রে লেখা বেরোয়। একটি সংযমের মাস, অন্যটি ত্যাগের উৎসব। এই সংযম ও ত্যাগ নিয়ে আমিও কতবার লিখেছি, তার সীমা সংখ্যা নেই। নজরুল তো এই দুই ঈদ নিয়ে একটি গান, একটি কবিতাই লিখে ফেলেছেন। রমজানের ঈদ নিয়ে তিনি লিখেছিলেন গান, রমজানের ওই রোজার শেষে এলো খুশির ঈদ। কোরবানির ঈদ নিয়ে লিখেছিলেন কবিতা, ওরে হত্যা নয় আজ সত্যাগ্রহ শক্তির উদ্বোধন। এই গান ও কবিতা দুটিই একসময় প্লাবন সৃষ্টি করেছিল দেশে। দুই ঈদ সম্পর্কেই নজরুল লিখেছিলেন, সারাদিন উপবাসে থেকে ইফতার ও সেহিরতে যথেচ্ছ পান ভোজন করাটা ত্যাগ এবং সংযম কোনোটাই নয়। গরিব প্রতিবেশীকে অনাহার অর্ধাহারে রেখে নিজে ইফতারি-সেহিরর নামে পোলাও-কোর্মা খাওয়াটা সংযম নয়, বরং ভণ্ডামি। কোরবানির ঈদ সম্পর্কে তিনি লিখেছিলেন, বনের পশুকে নয়, তুই আগে মনের পশুকে হত্যা কর। তা না পারলে কেবল পশু হত্যা কোনো কাজ দেবে না। রমজানের ঈদের নাম ঈদুল ফিতর। অর্থাৎ ফিতরের ঈদ। এই ঈদ বা উৎসব গরিব প্রতিবেশীকে শরিক না করে পালন করা যায় না। এ জন্য একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ গরিব প্রতিবেশীকে দিতে হয়। ইসলামে ফিতরা, জাকাত ইত্যাদি প্রবর্তন করা হয়েছিল গরিবদের প্রতি ধনীদের দায়িত্ব পালনের জন্য। দুই ঈদের আরো একটি উদ্দেশ্য ছিল সমাজে শ্রেণি ব্যবধান ঘোচানো। গরিব আর ধনী, অভিজাত আর অনভিজাত পাশাপাশি বসে নামাজ পড়ছে, নামাজ শেষে মনিব আর চাকর কোলাকুলি করছে। দেড় হাজার বছর আগে এটি ছিল একটি বৈপ্লবিক ব্যবস্থা। বর্তমানে আরো উন্নত যুগের উন্নত সামাজিক ব্যবস্থার সময়েও এই দৃশ্য বিরল। নারীরা ঘোড়ায় চড়ে পুরুষের পাশাপাশি যুদ্ধ করে এই দৃশ্য দেখা ইসলামের প্রথম যুগেই সম্ভব ছিল। মোল্লাবাদের আবির্ভাবের ফলে ইসলামের এই মৌলিক আদর্শ, নারীমুক্তি, দাসমুক্তি, শ্রেণি সাম্য, আর্থিক সাম্য, অন্য ধর্মের প্রতি সম্মান ও সহিষ্ণুতা প্রায় বিলুপ্তির পথে। ইসলামকে তার প্রকৃত আদর্শে ফিরিয়ে নেওয়ার জন্য পরবর্তীকালে যেসব সংস্কারক চেষ্টা করেছিলেন, যেমন ইমাম আবু হানিফা, ইমাম শাফেয়ি, ইমাম মালেক, ইমাম আহমদ ইবনে হাম্বল প্রমুখ সংস্কারকের বেশির ভাগকেই উগ্র মোল্লাবাদীরা হত্যা করেছিল। বাংলাদেশের সৌভাগ্য, সেই প্রাচীনকালে ব্রাহ্মণ্য শাসনের অত্যাচার-উত্পীড়নে অতিষ্ঠ এবং বর্ণবিভাগে বিভাজিত দেশটিতে প্রধানত পারস্য থেকে আগত ধর্ম প্রচারকরা ইসলাম প্রচার করেছেন। উত্পীড়িত মানুষ তাকে স্বাগত জানিয়েছে। শ্রেণি বিভক্তিতে পীড়িত অস্পৃশ্য নিম্ন শ্রেণির হিন্দু ও বৌদ্ধরা দলে দলে ইসলাম গ্রহণ করেছে। তাদের অস্পৃশ্যতা দূর হয়েছে। মানবাধিকার ফিরে পেয়েছে। পণ্ডিত মোতাহার হোসেন চৌধুরীর মতে, বাঙালির স্থানীয় কালচার তার জাতীয় কালচার। ইসলাম যে বহিরাগত কালচার সঙ্গে করে এনেছে, তা ধর্মীয় কালচার। এ দুইয়ের মিলনে-মিশ্রণে যে বাঙালি কালচার গড়ে উঠেছে, তা ধর্মনিরপেক্ষ কালচার। এই কালচারের প্রভাবে ধর্মীয় উগ্রতা কখনো প্রশ্রয় পায়নি। মিলন ও ভালোবাসায় সুফিবাদ, মরমি বৈষ্ণববাদ ইত্যাদি গড়ে উঠেছে। ব্রিটিশ আমলেও বাঙালি হিন্দু-মুসলমানের প্রধান উৎসব ছিল রমজানের ঈদ ও সর্বজনীন দুর্গাপূজা। রমজানের ঈদ ও দুর্গাপূজা উপলক্ষে শরৎকালে সরকারি অফিস-আদালত, স্কুল-কলেজ এক মাস ছুটি থাকত। শহরে কর্মরত মানুষ ছুটিতে গ্রামে ফিরে আসত। ঈদ ও পূজা উপলক্ষে হিন্দু ও মুসলমানের মধ্যে মিলন ঘটত। পাকিস্তান আমলে সামাজিক জীবন ও রাজনীতিতে ধর্ম ও সাম্প্রদায়িকতার বিভেদ বেড়ে ওঠে। দুই সম্প্রদায়ের বাঙালি জীবনেই তার ছাপ পড়ে। বাংলাদেশ হিন্দু-মুসলমানের মিলিত সংগ্রামের পর স্বাধীনতা লাভ করায় অসাম্প্রদায়িক জাতীয়তার ভিত্তি শক্ত হবে; রমজানের ঈদ, দুর্গাপূজা, বৈশাখী উৎসব, ভাষা দিবস প্রভৃতি জাতীয় উৎসবে রূপান্তরিত হবে আশা করা হচ্ছিল। কিন্তু বাধা পড়ে উগ্র ওয়াহাবিবাদ, মওদুদীবাদ ইত্যাদি মতবাদের আবির্ভাবের ফলে। এই ওয়াহাবিবাদ থেকেই কট্টর জঙ্গিবাদ বা পলিটিক্যাল ইসলাম জন্ম নেয়। তা শুধু জাতীয় উৎসবগুলোকেই ধর্মীয় করেনি, জাতীয় রাজনীতিকেও ধর্মীয় কালচার দ্বারা প্রভাবিত করে যেসব ধর্মীয় উৎসব জনগণের মিলিত উৎসবে পরিণত হয়েছিল, তাতেও বিভাজন ঘটায়। বাঙালির সমাজ এখন বিভাজিত সমাজ। তার হাজার বছরের মিশ্র সংস্কৃতি এখন ধর্মীয় সংস্কৃতি দ্বারা আচ্ছন্ন। স্বাধীনতাযুদ্ধে বাঙালি মুসলমান যতটা স্বদেশে ফিরেছিল, বিএনপি-জামায়াতের শাসন এবং মোল্লাবাদের উত্থানে ততটাই স্বদেশবিমুখ হয়েছে। এ অবস্থাকেই কবি শামসুর রাহমান বলেছিলেন, অদ্ভুত উটের পিঠে চলেছে স্বদেশ। এই উটের পিঠ থেকে স্বদেশকে নামাতে সময় লেগেছে ২১ বছর। এই যুদ্ধ চলেছে ২১ বছরের বেশি এবং এখনো চলছে। বাংলাদেশে রমজানের খুশির চাঁদ এখন খণ্ডিত। দুর্গাপূজার মণ্ডপ পুলিশ পাহারায় রাখতে হয়। এই অবস্থা থেকে জাতীয় উৎসবগুলোকে মুক্ত করতে হবে। আমাদের কৈশোরে রমজানের ঈদে হিন্দু ও বৌদ্ধরাও উৎসবে যোগ দিত। তারা নামাজ পড়তে আসত না। আসত উৎসবের খাওয়াদাওয়ায় যোগ দিতে। অনুরূপ আমরাও দুর্গা ও সরস্বতীর পূজার উৎসবের অংশে যোগ দিতাম। বৌদ্ধ পূর্ণিমার উৎসবে মেতে উঠতাম। বাঙালির সংস্কৃতি, সমাজ ছিল মিশ্র ও মিলিত। তার উৎসবও তাই। বাংলাদেশে তার হাজার বছরের লোকায়ত সমাজ ও সভ্যতা ফিরিয়ে আনতে হবে। না হলে বাংলাদেশের স্বাধীনতা অসম্পূর্ণ থাকবে। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলার বাস্তবায়ন সম্ভব হবে না। পশ্চিমবঙ্গের রাজধানী কলকাতায় একাধিকবার গড়ের মাঠে রমজানের ঈদের নামাজের বিশাল জামাতে যোগ দেওয়ার সৌভাগ্য আমার হয়েছে। দেখেছি, মুখ্যমন্ত্রী ডা. বিধান রায়, সিদ্ধার্থ শঙ্কর রায় এই ঈদের জামাতে আসতেন। এখন আসেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁরা নামাজ পড়তে আসেন না। নামাজের আগে যে খুতবা পাঠ হয়, সেই সময় খতিবের পাশে বসেন। খুতবা পাঠ শেষ হলে মুসলমানদের ঈদ মোবারক জানান। তাদের সমস্যা ও অভিযোগ দূর করার প্রতিশ্রুতি দেন। বাংলাদেশেও দুর্গাপূজায়, বুদ্ধপূর্ণিমায় বা উপজাতীয়দের কোনো ধর্মীয় উৎসবে যে দলের সরকারই ক্ষমতায় থাকুক, তারা যায়। যুদ্ধাপরাধী মতিউর রহমান নিজামী যখন মন্ত্রী, তিনিও পুলিশসহ দুর্গাপূজার মণ্ডপে গেছেন। সেটা ছিল লোক-দেখানো যাওয়া। একদিকে মন্ত্রী গেছেন পূজামণ্ডপে, অন্যদিকে তাঁর দলের লোকেরা মন্দিরে হামলা করেছে, মূর্তি ভেঙেছে। এইচ এম এরশাদের আমলে তো সরকারের নিযুক্ত গুণ্ডারা মন্দির ও মূর্তি ভেঙেছে। সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর নির্যাতন চালিয়েছে। অতঃপর বিশ্বজনমতের নিন্দা ও চাপের মুখে আবার সরকারি খরচে ভাঙা মন্দির মেরামত করেছে। এই অবস্থা ভারতেও দেখা গেছে। মহররমের মিছিলে হামলা হয়েছে। ঈদের জামাতে বোমা মারা হয়েছে। মসজিদ ভাঙা হয়েছে। গরু কোরবানির জন্য সংখ্যালঘু মানুষ হত্যা করা হয়েছে। ভারতে ৭০০ বছরের পুরনো বাবরি মসজিদ ভাঙা হয়েছে। বাংলাদেশে পাকিস্তানি হানাদাররা হাজার বছরের প্রাচীন রমনা কালীমন্দির ভেঙেছে। একদিকে ভারতে দাপট দেখাচ্ছে হিংস্র হিন্দুত্ববাদ এবং বাংলাদেশে দাপট দেখাচ্ছে উগ্র ইসলামী জঙ্গিবাদ। অথচ কোনো ধর্মেই হিংসাকে প্রশ্রয় দেওয়া হয়নি। ধর্মে হিংসা ঢুকিয়েছে মোল্লাবাদীরা এবং উদ্দেশ্যপূর্ণ রাজনীতিকরা। একে রুখতে হলে ধর্মের পবিত্র অনুষ্ঠানগুলোকে মোল্লাবাদীদের খপ্পরমুক্ত করতে হবে। রমজানের ঈদ, দুর্গাপূজার মতো উৎসবগুলোকে সাম্প্রদায়িক মিলনের কেন্দ্র করে তোলার জন্য সরকারকেই উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে। আওয়ামী লীগের শাসনামলে অবশ্য সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি অনেকটাই ফিরে আসে। সংখ্যালঘুদের পূজা-পার্বণও অনেকটা হামলামুক্ত হয়। কিন্তু বড় কাজ হবে এই উৎসবগুলোকে সব ধর্মের মানুষের সম্মিলিত উৎসব করে তোলা। ইউরোপে যেমন খ্রিস্ট ধর্মের ক্রিসমাস উৎসব সব ধর্ম-বর্ণের মানুষই পালন করে। রবীন্দ্রনাথ বলেছিলেন, আনন্দময়ীর আগমনের বাজনা যেন হিন্দুর ঘরেই সীমাবদ্ধ না থাকে, সকল ধর্মের মানুষের ঘরেই বেজে উঠে। আর নজরুল বলেছিলেন, রমজানের ঈদের চাঁদ যেন কেবল মুসলমানের ঘরে আলো না ছড়িয়ে সকল ধর্মের মানুষের ঘরেই আলো ছড়ায়। এবারের রমজানের ঈদে আমাদের সবার প্রার্থনা হোক, এই চাঁদ যেন সব বিভেদ-বিবাদের মেঘ সরিয়ে ধর্ম-বর্ণ-নির্বিশেষে সবার ঘরে আনন্দের আলো ছড়ায়। সবার জন্য রইল ঈদ মোবারক।-আবদুল গাফফার চৌধুরী

তথ্যপ্রযুক্তির ফলে দক্ষতা প্রর্দশনের সুযোগ পাচ্ছে এ দেশের যুবকরা

১৪ জুন২০১৯,শুক্রবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম:সময়টা তথ্যপ্রযুক্তির। তথ্যপ্রযুক্তির প্রসারের ফলে বিভিন্ন ক্ষেত্রের দক্ষতা প্রর্দশনরে সুযোগ পাচ্ছে এ দেশের যুবকরা। অনেকেই ইন্টারনেটের মাধ্যমে কাজের ক্ষেত্র গড়ে তুলতে সক্ষম হচ্ছেন। ফলে সমাজে সম্ভাবনার ক্ষেত্র আরও সম্প্রসারিত হচ্ছে। আসলে যুব সমাজই হচ্ছে ক্ষুধা, দারিদ্র্য ও নিরক্ষরতামুক্ত আধুনিক, অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ার প্রধান চালিকাশক্তি। বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ গড়তে দেশের এই বিশাল শক্তির উপযুক্ত ব্যবহার হওয়া দরকার। এরাই নিজেদের মতো ও মনন শক্তি ব্যবহার করে নির্ধারণ করবে দেশের আগামী দিনের চলার পথ। তাই সমাজের এই সৃজনশীল ও উৎপাদনমুখী অংশকে উন্নয়নের মূল ধারায় সম্পৃক্ত করতে হবে। এ জন্য যুব সমাজের দক্ষতা ও র্কমক্ষমতা বাড়াতে প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ ও কর্মের জোগান দিতে হবে। যুব সমাজের অমিত সম্ভাবনা কাজে লাগিয়ে সামনে এগিয়ে যেতে হবে। তাই প্রবাসে নয়, স্বদেশেই র্কমসংস্থান নিশ্চিতের ব্যবস্থা করতে হবে।অফুরন্ত সম্ভাবনার অপর নাম বাংলাদেশ। এ দেশের রয়েছে অমিত সম্ভাবনাময় ষোল কোটি মানুষের বত্রিশ কোটি হাত। ষোল কোটি মানুষ বাংলাদেশের জন্য অভিশাপ নয়, আর্শীবাদ। কেননা, আবহমান কাল থেকেই এ দেশের মানুষরা কর্মনিষ্ঠ, পরিশ্রমী। অচিরেই এ দেশ পরিণত হবে পৃথিবীর অন্যতম বৃহৎ পোশাক, জুতা, ওষুধ, সিরামিক ও চামড়াজাত পণ্যের রপ্তানিকারক দেশে। সৃষ্টির্কতার অপার কৃপায় ধন্য এ দেশে রয়েছে পৃথিবীর সবচেয়ে র্উবর মাটি আর দূষণমুক্ত পানি। গ্যাস ও কয়লার প্রার্চুযের পাশাপাশি এ দেশে বছের তিনবার ফসল উৎপাদিত হয়। ফলে ঘনবসতিপূর্ণ দেশ হওয়া সত্ত্বেও ইতোমধ্যেই খাদ্যে স্বয়ংসর্ম্পূণতা র্অজিত হয়েছে, এ দেশে এখন আর কেউ না খেয়ে মরে না। কৃষিতে বৈপ্লবিক পরির্বতনের পাশাপাশি দেশের দরিদ্র, শ্রমজীবী, প্রান্তিক জনগোষ্ঠী নির্ভর প্রবাসী আয়কে পুঁজি করে বাংলাদেশ ঘুরে দাঁড়িয়েছে। অন্যদিকে ঘামঝরা শ্রমের ফসল পোশাকশিল্প উন্নয়নের ধারাকে করেছে আরও বেগবান। দেশে যেভাবে প্রবৃদ্ধি র্অজিত হয়েছে, র্অথনীতি এগিয়েছে, যেভাবে বিশ্বমন্দা ও রাজনৈতিক অস্থিরতা মোকাবেলা করেছে, তাতেই বোঝা যায় বাংলাদেশের মানুষ অপরিসীম ক্ষমতার অধিকারী।সত্তর দশকের 'ষড়যন্ত্রমূলক' তলাবিহীন ঝুড়ি, নব্বই দশকের বিশ্ব পরিমন্ডলে তুলনামূলক অচেনা বাংলাদেশ এখন বিশ্বব্যাপী এক বিস্ময়ের নাম। উন্নয়ন নিয়ে ভাবনা-চন্তিা করা মানুষদের কপালে ভাঁজ ফেলে রাজনৈতিক অস্থিরতার মধ্যেও সম্ভাবনার দিগন্তে সাফল্যের পতাকা উড়িয়ে দেশ অব্যাহত গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে।আন্তজাতিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান বিএমআই রিসাচের মতে আগামী ১০ বছরে বাংলাদেশ হয়ে উঠবে বিশ্বের র্অথনৈতিক প্রবৃদ্ধির নতুন চালিকাশক্তি। বিএমআই রিসাচ মনে করছে, ২০২৫ সালের মধ্যে এই ১০টি দেশ সম্মিলিতভাবে বিশ্ব র্অথনৈতিক প্রবৃদ্ধিতে ৪ দশমিক ৩ ট্রিলিয়ন র্অথাৎ চার লাখ তিন হাজার কোটি ডলার যোগ করবে, যা বিনিয়োগকারীদের বড় সুযোগ এনে দেবে। সম্প্রতি জাতিসংঘ উন্নয়ন র্কমসূচির (ইউএনডিপি) এশীয় প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের ৪৫টি দেশ সর্ম্পকে প্রকাশিতব্য মানব উন্নয়ন প্রতিবেদনে বাংলাদেশকে তরুণদের দেশ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। প্রতিবেদনের তথ্যানুযায়ী বাংলাদেশের ৪৯ শতাংশ মানুষের বয়স ২৪ বছর কিংবা তার নিচে। দেশের কর্মক্ষম মানুষের সংখ্যা ১০ কোটি ৫৬ লাখ বা মোট জনসংখ্যার ৬৬ শতাংশ। জনসংখ্যাতাত্ত্বিক এই অবস্থান বাংলাদেশকে র্অথনৈতিক উন্নয়নের ক্ষেত্রে সুর্বণ সুযোগ এনে দিয়েছে। ইউএনডিপি বলছে, এ সুযোগ কাজে লাগাতে হলে আরও বেশি কাজের সুযোগ সৃষ্টি করতে হবে, শ্রমশক্তিতে নারীর অংশগ্রহণ বাড়াতে হবে। আর বিনিয়োগ বাড়াতে হবে উৎপাদনশীল খাতে। ইউএনডিপির পরিসংখ্যান অনুযায়ী বাংলাদেশে ১৫ থেকে ৬৪ বছর বয়সী কর্মক্ষম জনসংখ্যা ১০ কোটি ৫৬ লাখ। র্অথাৎ মোট জনসংখ্যার ৬৬ শতাংশই র্কমক্ষম। আগামী ১৫ বছরে র্অথাৎ ২০৩০ সাল নাগাদ র্কমক্ষম জনসংখ্যা বেড়ে দাঁড়াবে ১২ কোটি ৯৮ লাখে যা হবে মোট জনসংখ্যার ৭০ শতাংশ। দেশে বয়স্ক বা ৬০ বছরের বেশি বয়সী মানুষ ৭ শতাংশ। ২০৩০ ও ২০৫০ সালে তা বেড়ে দাঁড়াবে যথাক্রমে ১২ ও ২২ শতাংশে।উন্নয়ন বিশেষজ্ঞ এবং র্অথনীতিবিদদের মতে চীন, জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়া র্অথনৈতিক ক্ষেত্রে র্ঈষণীয় সাফল্য র্অজন করেছে তরুণ জনগোষ্ঠীকে যথাযথভাবে কাজে লাগিয়ে। বাংলাদেশের সামনেও সোনালি ভবিষ্যৎ হাতছানি দিচ্ছে। এ ক্ষেত্রে বাংলাদেশ সফল হবে কিনা তা নির্ভর করছে সৃষ্ট সুযোগ কতটা কাজে লাগানো যাবে তার ওপর। বাংলাদেশের জন্য এ মুর্হূতে সমস্যা হলো জনগোষ্ঠীর এক বিরাট অংশ বেকার। যুব জনগোষ্ঠীর একটি অংশ অভিভাবকদের আয়ের ওপর নির্ভরশীল। যুব সমাজের র্কমসংস্থানের যথাযথ পদক্ষেপ যেমন দেশের উন্নয়ন নিশ্চিত করবে তেমন এ ক্ষেত্রে র্ব্যথতা রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতার কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। দেশের সোনালি ভবিষ্যতের র্স্বাথেই কর্মসংস্থান সৃষ্টিকে অগ্রাধিকার দিতে হবে। এ ক্ষেত্রে গতি আনার উদ্যোগ নিতে হবে।নিজেদের সম্পদ কাজে লাগিয়ে দেশেই কর্মসংস্থানের পথ খুঁজতে হবে। সময়টা তথ্যপ্রযুক্তির। তথ্যপ্রযুক্তির প্রসারের ফলে বিভিন্ন ক্ষেত্রে দক্ষতা প্রর্দশনের সুযোগ পাচ্ছে এ দেশের যুবকরা। অনেকেই ইন্টারনেটের মাধ্যমে কাজের ক্ষেত্র গড়ে তুলতে সক্ষম হচ্ছেন। ফলে সমাজে সম্ভাবনার ক্ষেত্র আরও সম্প্রসারিত হচ্ছে। আসলে যুব সমাজই হচ্ছে ক্ষুধা, দারিদ্র্য ও নিরক্ষরতামুক্ত আধুনিক, অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ার প্রধান চালিকাশক্তি। বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ গড়তে দেশের এই বিশাল শক্তির উপযুক্ত ব্যবহার হওয়া দরকার। এরাই নিজেদের মতো ও মনন শক্তি ব্যবহার করে নির্ধারণ করবে দেশের আগামী দিনের চলার পথ। তাই সমাজের এই সৃজনশীল ও উৎপাদনমুখী অংশকে উন্নয়নের মূল ধারায় সম্পৃক্ত করতে হবে। এ জন্য যুব সমাজের দক্ষতা ও কর্মক্ষমতা বাড়াতে প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ ও কর্মের জোগান দিতে হবে। যুব সমাজের অমিত সম্ভাবনা কাজে লাগিয়ে সামনে এগিয়ে যেতে হবে। তাই প্রবাসে নয়, স্বদেশেই কর্মসংস্থান নিশ্চিতের ব্যবস্থা করতে হবে।লেখক: মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন চৌধুরী , সিনিয়র সাংবাদিক, কলামিষ্ট , গবেষক ও সম্পাদক-নিউজ একাত্তর ডট কম ।

আজকের মোট পাঠক

32787

নিউজ একাত্তর ডট কম

সম্পাদক : মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন চৌধুরী

নির্বাহী সম্পাদক : আহাম্মদ হোসেন ভুইয়া

একটি পপুলার মিডিয়া পাবলিকেশন এর প্রকাশনা | রেজি নং: চ-১২৪২৭/১৭

সম্পাদকীয় ও বানিজ্যিক কার্যালয় : ৪১৬/সি,খিলগাও ঢাকা ০২৪৩১৫০৪৮৮, ০১৮২৪২৪৫৫০৪, ০১৭৭৮৮৮৮৪৭২

চট্টগ্রাম কার্যালয় : ১৯/২০/২১ বি ৩য় তলা, হানিমুন টাওয়ার,পাহাড়তলী,চট্টগ্রাম।

ই-মেইল : newsekattor@gmail.com, editorekattor@gmail.com, কপিরাইট ©newsekattor.com কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত