শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০২১

রাশিয়ায় শুরু হলো ৩ দিনের পার্লামেন্ট নির্বাচন

১৭সেপ্টেম্বর ২০২১, আন্তর্জাতিক ডেস্ক , নিউজ একাত্তর : ক্রেমলিনের সমালোচকদের কয়েক বছর ধরে দমন-পীড়ন চালানোর অভিযোগের মধ্য দিয়ে শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর) শুরু হলো রাশিয়ার তিন দিনের পার্লামেন্ট নির্বাচন। এবারও জয়ের আশা দেশটির ক্ষমতাসীন দল ইউনাইটেড রাশিয়ার। খবর আল জাজিরার। পার্লামেন্ট ও স্থানীয় নির্বাচনের ভোটগ্রহণ চলছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় দেশ রাশিয়ার ১১টি টাইম জোনের বিস্তৃত অঞ্চলে। মস্কোর বাসিন্দারা যখন ঘুমাতে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন তখন পূর্বাঞ্চলের চুকুতখা ও কামচাটকা এলাকার লোকের ছুটছেন ভোটকেন্দ্রে। এবারের নির্বাচনে ১৪টি দল অংশ নিচ্ছে। আগামী রোববার পর্যন্ত চলবে ভোটগ্রহণ। দেশটির কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশনের প্রধান ইলা পামফিলোভা ভোটারদের আহ্বান জানিয়ে বলেন, চলুন ভোট দিতে যাই। বিরোধীদের দমন-পীড়নের কঠোর সমালোচনা থাকলেও প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সমর্থক দল ইউনাইটেড রাশিয়ার পার্লামেন্টে প্রভাব কমে যাওয়ার কোনো আভাস পাওয়া যাচ্ছে না এবারের নির্বাচনে। এদিকে, প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন এক ভিডিও বার্তায়, বৃহস্পতিবার রাশিয়ানদের ভোট দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। ৪৫০ আসনের পার্লামেন্ট দুমায় এখন ইউনাইটেড রাশিয়ার একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা বিদ্যমান। ফলে এর আগে প্রেসিডেন্ট পুতিন সংবিধান সংশোধনের বড় সুযোগ পান তাদের সমর্থন পেয়ে। সংবিধানে সংশোধনী আনার ফলে পুতিনের ফের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে দাঁড়ানোর বাধা দূর হয় এবং ২০৩৬ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকার পথ পরিষ্কার হয়। ১৯৯৯ সাল থেকে রাশিয়ার ক্ষমতার আসনে ভ্লাদিমির পুতিন। তবে ২০২৪ সালের নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন কিনা, তা এখনো প্রকাশ করেননি। তবে এবার করোনা মহামারি ও মূল্যস্ফীতির কারণে জনগণের মধ্যে সৃষ্ট হতাশা এবং বিরোধী নেতা অ্যালেক্সি নাভালনি ও তার সমর্থকদের দমন-পীড়নের প্রতিবাদে মস্কোতে বিক্ষোভ করেন কয়েক হাজার মানুষ। নিউজ একাত্তর/বিল্পব...

হাইতির প্রধানমন্ত্রীর দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা

১৫সেপ্টেম্বর ২০২১, আন্তর্জাতিক ডেস্ক , নিউজ একাত্তর : হাইতির প্রধানমন্ত্রী অ্যারিয়েল হেনরির দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা আনা হয়েছে। প্রেসিডেন্ট জোভেনেল ময়িজকে হত্যার ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে তার বিরুদ্ধে তদন্ত চলছে। ফলে তদন্ত চলাকালীন তিনি যেন দেশ থেকে অন্য কোথাও যেতে না পারেন সেজন্যই এই নিষেধাজ্ঞা আনা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী হেনরির বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিকভাবে অভিযোগ গঠনের আবেদন জানিয়েছেন দেশটির এক প্রসিকিউটর। প্রেসিডেন্ট ময়িজ হত্যাকাণ্ডের প্রধান সন্দেহভাজন জোসেফ ফেলিক্স বাদিওর সঙ্গে হেনরির সম্পৃক্ততার বিষয়ে তার কাছে ব্যাখ্যা চাওয়া হয়েছে। প্রসিকিউটর জানিয়েছেন, প্রেসিডেন্ট ময়িজের হত্যাকাণ্ডের কয়েক ঘণ্টা পর জোসেফের সঙ্গে বেশ কয়েকবার ফোনে কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী হেনরি। ফলে এই হত্যাকাণ্ডে তার সম্পৃক্ততা ছিল অভিযোগ উঠেছে। গত ৭ জুলাই ময়িজকে নিজ বাড়িতে হত্যা করা হয়। আততায়ীরা প্রেসিডেন্টের বাসভবনে ঢুকে তাকে গুলি করে হত্যা করে। সশস্ত্র একটি দল প্রেসিডেন্ট জোভেনেলের বাড়িতে মাঝ রাতে হামলা চালায়। দুর্বৃত্তদের গুলিতে আহত হন তার স্ত্রী মার্টিন ময়িজও। আর এ হত্যা মিশনে অংশ নেয় ২৮ জন বিদেশি ঘাতক। ৫৩ বছর বয়সী জোভেনেল ময়িজ ক্ষমতায় আসেন ২০১৭ সালে। হাইতি পশ্চিম ভারতীয় দ্বীপপুঞ্জের স্বাধীন দ্বীপরাষ্ট্র। এর সরকারি নাম হাইতি প্রজাতন্ত্র। ক্যারিবীয় সাগরের হিস্পানিওলা দ্বীপের পশ্চিম এক-তৃতীয়াংশ এলাকা নিয়ে রাষ্ট্রটি গঠিত। দ্বীপের বাকি অংশে ডোমিনিকান প্রজাতন্ত্র অবস্থিত। দেশটিতে রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতার ইতিহাস দীর্ঘ। বেশ কয়েকজন স্বৈরশাসক দেশটি শাসন করেছেন। এদের মধ্যে ফ্রঁসোয়া দুভালিয়ে-র নাম উল্লেখযোগ্য। ২১০০ শতকের শুরুতে এসে হাইতি একটি গ্রহণযোগ্য সরকার প্রতিষ্ঠা এবং জনগণের অর্থনৈতিক ও সামাজিক অবস্থা উন্নয়নের চেষ্টা করছে। ১৮০৪ সালে হাইতি লাতিন আমেরিকার প্রথম স্বাধীন দেশ হিসেবে আবির্ভূত হয়। এটিই দাসদের সফল বিপ্লবের ফলে সৃষ্ট একমাত্র রাষ্ট্র। হাইতি প্রথমে স্পেনীয় ও পরে ফরাসি উপনিবেশ ছিল। হাইতির সংখ্যাগরিষ্ঠ আফ্রিকান দাসেরা ফরাসি ঔপনিবেশিকদের উৎখাত করলে হাইতি স্বাধীনতা লাভ করে। পর্তোপ্রাস দেশটির রাজধানী ও বৃহত্তম শহর। নিউজ একাত্তর/বিল্পব...

যুক্তরাষ্ট্রের বিচার চায় উত্তর কোরিয়া

১৩সেপ্টেম্বর ২০২১, আন্তর্জাতিক ডেস্ক , নিউজ একাত্তর : আফগানিস্তানে মার্কিন আগ্রাসনের চালানোয় তাদের বিচারের দাবি করেছে উত্তর কোরিয়া। তাদের দাবি সন্ত্রাসীদের দমনের নামে দীর্ঘ ২০ বছর ধরে দেশটিতে দখলদারিত্ব কায়েম করেছে এবং অপরাধযজ্ঞ চালিয়েছে মার্কিন সেনারা । উত্তর কোরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় রোববার ১২ সেপ্টেম্বর তাদের ওয়েবসাইটে দেওয়া এক বিবৃতিতে বলেছে, আফগানিস্তানে গণভাবে ধ্বংসযজ্ঞ ও হত্যাকাণ্ড চালানোর জন্য দায়ী যুক্তরাষ্ট্রের মূল ব্যক্তিদের কঠোর শাস্তির আওতায় আনতে হবে। বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ন্যায় বিচার এবং মানবাধিকার রক্ষার ধোয়া তুলে আমেরিকা বিশ্বের বিভিন্ন অংশে এই ধরনের হত্যাকাণ্ড ও অপরাধযজ্ঞ চালিয়ে আসছে। নীরিহ নারী-শিশু ও সাধারণ নাগরিকরাও তাদের তাদের হামলা থেকে রক্ষা পায়নি। নিউজ একাত্তর/বিল্পব ...

চট্টগ্রামে এলো আরও ৩ লাখ ২৫ হাজার ডোজ টিকা

১৭সেপ্টেম্বর ২০২১, নিজেস্ব সংবাদদাতা , চট্টগ্রাম, নিউজ একাত্তর : আরও ৩ লাখ ২৫ হাজার ১২০ ডোজ টিকা এসেছে চট্টগ্রামে। এর মধ্যে সিনোফার্ম এর ৩ লাখ ১০ হাজার ডোজ ও মডার্নার টিকা রয়েছে ১৫ হাজার ১২০ ডোজ। বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) এসব টিকা চট্টগ্রামে এসে পৌঁছায় বলে জানান জেলা সিভিল সার্জন ও চট্টগ্রাম ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. সেখ ফজলে রাব্বি। তিনি বলেন, জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের সেন্ট্রাল ইপিআই কেন্দ্রে এসব টিকা সংরক্ষণ করা হয়েছে। চাহিদা অনুযায়ী বিভিন্ন কেন্দ্রে টিকা সরবরাহ করা হবে। জানা গেছে, ঢাকার গাজীপুরের বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেডের সেন্ট্রাল ওয়ার হাউজ থেকে প্রতিষ্ঠানটির নিজস্ব পরিবহনযোগে এসব টিকা চট্টগ্রামে আসে। টিকা গ্রহণ করেন সিভিল সার্জন। বর্তমানে সিনোফার্ম এর টিকা দেওয়া হচ্ছে সবাইকে। এছাড়া ২য় ডোজ হিসেবে দেওয়া হচ্ছে মডার্নার টিকা। টিকা স্বল্পতার কারণে গত কয়েকদিন ধরে মডার্নার টিকা দেওয়া বন্ধ ছিল। নিউজ একাত্তর/বিল্পব...

জেলেদের দুর্যোগ প্রতিরোধক সামগ্রী দিলো কোস্টগার্ড

১৭সেপ্টেম্বর ২০২১, মোংলা প্রতিনিধি , নিউজ একাত্তর : দুর্যোগকালে ব্যবহারের জন্য মোংলা উপকূলীয় অঞ্চলের জেলেদের হাতে লাইফ জ্যাকেট, লাইফ বয়া, রেডিও, টর্সলাইট ও কম্বলসহ দুর্যোগ প্রতিরোধক সামগ্রী তুলে দিলো কোস্টগার্ড। বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) দুপুরে কোস্টগার্ড পশ্চিম জোনের মোংলা বেইজে ৩০ জন জেলের হাতে এসব সামগ্রী তুলে দেন বাংলাদেশ কোস্টগার্ড-এর মহাপরিচালক (ডিজি) রিয়ার অ্যাডমিরাল আশরাফুল হক চৌধুরী। এ সময় কোস্টগার্ড পশ্চিম জোনের জোনাল কমান্ডার ক্যাপ্টেন শাজাহান সিরাজসহ সংস্থাটির বিভিন্ন পর্যায়ের পদস্থ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। কোস্টগার্ডের পক্ষ থেকে জানানো হয়, মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে ধারাবাহিক কার্যক্রমের অংশ হিসেবে আজ জেলেদের মাঝে এসব সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। ভবিষ্যতেও এ ধরণের কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। নিউজ একাত্তর/বিল্পব...

আখাউড়ার ২২ মণ্ডপে হবে দুর্গাপূজা

১৫সেপ্টেম্বর ২০২১, ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি , নিউজ একাত্তর : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় এ বছর ২২টি মণ্ডপে অনুষ্ঠিত হবে দুর্গাপূজা। বুধবার আখাউড়া থানা পুলিশের সাথে উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের মতবিনিময় সভায় এ তথ্য জানানো হয়। আখাউড়া থানার হলরুমে মত বিনিময়কালে প্রতিটি পূজা মণ্ডপের সভাপতি, সম্পাদকসহ হিন্দু ধর্মালম্বীদের নেতৃবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন। আখাউড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার সভাপতিত্বে এতে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, আখাউড়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) কাজী আবদুল খালেক, হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক চন্দন কুমার ঘোষ, পূজা উদযাপন পরিষদের আহবায়ক দীপক কুমার ঘোষ, ধরখার পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ বিমল কর্মকার, শ্রী শ্রী রাধামাধব আখড়া কমিটির সাধারণ সম্পাদক অলক কুমার চক্রবর্তী, পূজা উদযাপন পরিষদের সদস্য সচিব বিশ্বজিৎ পাল বাবু, দশভুজা মন্দির সভাপতি রতন পাল, দেবগ্রাম শিব মন্দির সভাপতি কালিপদ দাস, দাসপাড়া পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি রতি রঞ্জন দাস, পূজা উদযাপন কমিটির সদস্য সুমন সেন গুপ্ত, সুভাষ দাস, কানু লাল পাল প্রমুখ। পূজা উদযাপন পরিষদের সদস্য সাংবাদিক জুটন বনিকের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বলা হয়, গত বছর উপজেলায় ১৯টি পূজা অনুষ্ঠিত হয়। এ বছরও স্বাস্থ্যবিধি মেনে পূজা উদযাপন করা হবে। নিউজ একাত্তর/বিল্পব ...

মসিকর আঞ্চলিক কার্যালয় উদ্বোধন

১৪সেপ্টেম্বর ২০২১, ময়মনসিংহ প্রতিনিধি , নিউজ একাত্তর : ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের আঞ্চলিক ২ ও আঞ্চলিক ৩ এর কার্যালয় উদ্বোধন করা হয়েছে। মঙ্গলবার বেলা ১১টায় নগরীর কালিবাড়িতে ৯ নং ওয়ার্ড কার্যালয়ে অঞ্চল ২ এবং বেলা সাড়ে ১১টায় বয়ড়ায় ২৫ নং ওয়ার্ড কার্যালয়ে অঞ্চল ৩ এর কার্যালয় উদ্বোধন করেন ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ইকরামুল হক টিটু। উদ্বোধন উপলক্ষে অঞ্চল ৩ কার্যালয় প্রাঙ্গণে এক মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়। এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেয়র টিটু বলেন, ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশন ঘোষণার পর নাগরিকসেবা সহজিকরণ এবং নাগরিক ভোগান্তি লাঘবে দ্রুততম সময়ের মাধ্যমেই আঞ্চলিক কেন্দ্র চালুর চেষ্টা আমরা করেছি। নাগরিকসেবা প্রদানে আমরা নিদর্শন সৃষ্টি করতে চাই। ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্যানেল মেয়রবৃন্দ, সচিব রাজীব কুমার সরকার, সিটি কর্পোরেশনের বিভাগ ও শাখার প্রধানগণ, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গসহ অনেকেই উপস্থিত ছিলেন। নিউজ একাত্তর/ভুঁইয়া...

কিশোরগঞ্জ নিকলী হাওড়ে পর্যটক নৌযানে লাইফ জ্যাকেট বাধ্যতামূলক

১৪সেপ্টেম্বর ২০২১, কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি , নিউজ একাত্তর : কিশোরগঞ্জ জেলার নিকলী হাওড়ে পর্যটকবাহী সব নৌযানে লাইফ জ্যাকেট রাখা বাধ্যতামূলক করেছে উপজেলা প্রশাসন। অন্যথায় সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি ও নৌযানের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করার কথা জানিয়ে গণবিজ্ঞপ্তি জারি করেছে নিকলী উপজেলা প্রশাসন। সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আসসাদিক জামান স্বাক্ষরিত গণবিজ্ঞপ্তি থেকে এ তথ্য জানা যায়। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, নিকলী উপজেলার সব নৌযান মালিক, চালক ও মালিক সমিতির অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে,পর্যটকদের যাত্রা নিরাপদের নিমিত্ত প্রত্যেকটি নৌকায় আবশ্যিকভাবে লাইফ জ্যাকেট বা পানিতে জীবন রক্ষাকারী উপকরণ রাখা ও ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে। সংশ্লিষ্ট সব নৌযান মালিক, চালক ও নৌযান সমিতিকে উক্ত নির্দেশনা যথাযথ পালনের অনুরোধ করা হলো। অন্যথায় সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। উল্লেখ্য, গত শুক্রবার ছুটির দিনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিইউএফএ সংগঠনের উদ্যোগে শিশু ও নারীসহ ৫০ জনের একটি দল কিশোরগঞ্জ হাওড় পর্যটন এলাকায় ঘুরতে যায়। এসময় তাদের সঙ্গে আসা সৈয়দ জাহিরুর রহমান সাগর (৪৫) নামে একজন নিখোঁজ হন। ঘটনার দুই দিন পর রোববার বেলা ১১টার দিকে সাগরের মরদেহ ছাতিরচরের কাছে হুলাবারিয়ার চর এলাকায় ভেসে উঠে। মাছ ধরতে যাওয়া জেলেরা দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দেন। চলতি বছরে কিশোরগঞ্জের হাওড়ের পানিতে ডুবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র ও ব্যবসায়ী সৈয়দ জাহিরুর রহমান সাগরসহ অন্তত ছয় পর্যটকের মৃত্যু হয়েছে। নিউজ একাত্তর/ভুঁইয়া...

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্পনগরে জমি পেল সুপার রিফাইনারি

১৪সেপ্টেম্বর ২০২১, অর্থনীতি ডেস্ক , নিউজ একাত্তর : বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্পনগরে ১০ একর জমি বরাদ্দ পেয়েছে সুপার রিফাইনারি (প্রাইভেট) লিমিটেড নামে একটি বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান। গতকাল বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের (বেজা) কার্যালয়ে জমি ইজারা চুক্তি হয়েছে। বেজার নির্বাহী সদস্য (বিনিয়োগ উন্নয়ন) অতিরিক্ত সচিব আলী আহসান এবং সুপার রিফাইনারির ডিএমডি শাজির আহমেদ এ চুক্তিতে সই করেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান (সিনিয়র সচিব) শেখ ইউসুফ হারুন। চুক্তি অনুসারে সুপার রিফাইনারি ১ কোটি ৮৭ লাখ ৩০ হাজার ডলার বিনিয়োগ করে মিরসরাইয়ে চারটি কারখানা স্থাপন করবে। যাতে বিভিন্ন ধরনের রাসায়নিক দ্রব্য উৎপাদন করা হবে। এসব কারখানায় অন্তত ২০৩ লোকের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে বলে আশা করা হচ্ছে। নিউজ একাত্তর/ভুঁইয়া...

ওয়ালটন হাই-টেকে নবগঠিত বিভাগ উদ্বোধন

১২সেপ্টেম্বর ২০২১, অর্থনীতি ডেস্ক , নিউজ একাত্তর : ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের দুটি ডিপার্টমেন্টের নাম পরিবর্তন করা হয়েছে। ডিপার্টমেন্ট দুটির পরিবর্তিত নাম হলো প্রডাকশন ম্যানেজমেন্ট ও কোয়ালিটি ম্যানেজমেন্ট। আগে এ দুই বিভাগের নাম ছিল যথাক্রমে প্রডাকশন ও কোয়ালিটি কন্ট্রোল। সম্প্রতি ইন্ট্রোডিউসিং সিরিমোনি অব প্রডাকশন অ্যান্ড কোয়ালিটি ম্যানেজমেন্ট শীর্ষক এ অনুষ্ঠানে যোগ দেন ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের চেয়ারম্যান এসএম নুরুল আলম রেজভী এবং ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের এমডি ও সিইও গোলাম মুর্শেদ। এ সময় নবগঠিত বিভাগ দুটি উদ্বোধন করেন গোলাম মুর্শেদ। পাশাপাশি দুটি বিভাগের অফিশিয়াল লোগো উন্মোচন করা হয়। নিউজ একাত্তর/বিল্পব ...

এইচএসসির ফরম পূরণের সময় ফের বাড়লো

১৫সেপ্টেম্বর ২০২১, শিক্ষা ডেস্ক , নিউজ একাত্তর : এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার্থীদের ফরম পূরণের সময় বাড়ানো হয়েছে। ২০২১ সালের শিক্ষার্থীদের ফরম পূরণের জন্য প্রতিষ্ঠান থেকে এসএমএস পাঠানোর সময় নির্ধারণ করা হয়েছে ১৬ থেকে ২২ সেপ্টেম্বর। এসএমএস পাওয়ার পর শিক্ষার্থীদের ২৬ নভেম্বর পর্যন্ত ফি পরিশোধের সময় দেওয়া হয়েছে। বুধবার (১৫ সেপ্টেম্বর) ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২০২১ সালের এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের ফরম পূরণের জন্য প্রতিষ্ঠান থেকে এসএমএস পাঠানোর সময় ১৬ সেপ্টেম্বর থেকে ২২ সেপ্টেম্বর করা হয়েছে। এসএমএস পাওয়ার পর শিক্ষার্থীদের ফি পরিশোধের সময় ২৬ নভেম্বর পর্যন্ত। কোনও শিক্ষার্থী নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ফরম পূরণে ব্যর্থ হলে এর দায়ভার সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানকেই বহন করতে হবে। এর আগে আরও দুই দফা সময় বাড়ানো হয়েছিল। গত ৩১ জুলাই এক বিজ্ঞপ্তিতে ১২ আগস্ট থেকে ২৫ আগস্টের মধ্যে প্রতিষ্ঠানের অনলাইনে পরীক্ষার্থী নির্বাচন সম্পন্ন করার নির্দেশনা দেওয়া হয়। পরীক্ষার্থীকে ৩০ আগস্টের মধ্যে পরীক্ষার ফি দিতে বলা হয়েছিল। এরপর গত ২৫ আগস্ট এক নির্দেশনায় ফরম পূরণের সময় বাড়িয়ে ৩১ আগস্ট পর্যন্ত করা হয়। আর এসএমএস পাওয়ার পর শিক্ষার্থীদের ৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ফি পরিশোধের সময় বাড়ানো হয়েছিল। নিউজ একাত্তর/বিল্পব...

থাকছে না পিইসি-জেএসসি পরীক্ষা, এসএসসিতে থাকছে না বিভাগ

১৩সেপ্টেম্বর ২০২১, শিক্ষা ডেস্ক , নিউজ একাত্তর : সেকেন্ডারি স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) পরীক্ষার আগের কোনও পাবলিক পরীক্ষা থাকছে না। দশম শ্রেণি পর্যন্ত বিজ্ঞান, মানবিক ও বাণিজ্য বিভাগ থাকছে না। ২০২৩ সাল থেকেই এটা কার্যকার হবে। জাতীয় শিক্ষাক্রম রূপরেখা উপস্থাপন শীর্ষক প্রেস কনফারেন্সে সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) সচিবালয়ের সম্মেলন কক্ষে একথা বলেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মণি। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন এবং কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আমিনুল ইসলাম প্রমুখ। শিক্ষামন্ত্রী আরও বলেন, নতুন শিক্ষাক্রমের রূপরেখায় নবম-দশম শ্রেণিতে বিজ্ঞান, মানবিক, বাণিজ্য বিভাগ থাকবে না। সবাইকে একই বিষয় পড়তে হবে। তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত কোনও বার্ষিক পরীক্ষা থাকছে না। শিক্ষামন্ত্রী জানান, পরিমার্জিত শিক্ষাক্রমের পাইলটিং চলবে ২০২২ সালে। আর শিক্ষাক্রম বাস্তবায়ন শুরু হবে ২০২৩ সাল থেকে। ২০২৫ সালের মধ্যে পর্যায়ক্রমে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষাক্রম বাস্তায়ন করা হবে। প্রাথমিক থেকে মাধ্যমিক পর্যন্ত শিক্ষাব্যবস্থায় বড় ধরনের সংস্কার আসছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, নবম ও দশম শ্রেণিতে মানবিক, বিজ্ঞান, ব্যবসায় শিক্ষা নামে বিভাগ তুলে দেওয়া হচ্ছে। একটি সমন্বিত পাঠ্যক্রম থাকবে এই পর্যায়ে। দশম শ্রেণি পর্যন্ত ১০টি বিষয় ঠিক করা হয়েছে। সেগুলোই সবাই পড়বে। একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণিতে গিয়ে ঐচ্ছিক বিষয়গুলো পড়বে শিক্ষার্থীরা। অর্থাৎ বিজ্ঞান, মানবিক, বাণিজ্যে বিভাজন হবে উচ্চ মাধ্যমিক থেকে। শিক্ষামন্ত্রী বলেন, দক্ষতা অর্জনের বিভিন্ন কৌশল এই পরিমার্জিত কারিকুলামে বলা আছে। শিখন সময় প্রাথমিকে কতটা, মাধ্যমিকে কতটা হবে তা বলা আছে। আমরা সামষ্টিক মূল্যায়নের পাশাপাশি ধারাবাহিক মূল্যায়নের ওপর গুরুত্ব দিয়েছি। শিক্ষাক্রমে অন্তর্ভুক্তিমূলক যে বিষয়টি এনেছি, সেখানে ফ্লেক্সিবিলিটি নিয়ে আসা হয়েছে। শারীরিক, মানসিক, সুবিধাবঞ্চিত, প্রান্তিক শিক্ষার্থী সবাইকে নিয়ে আসার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। শিক্ষাক্রম বাস্তবায়ন সম্পর্কে দীপু মণি বলেন, ২০২৩ সালে পরিমার্জিত নতুন শিক্ষাক্রম বাস্তবায়ন শুরু করতে পারবো। ২০২৩ সালে প্রাথমিকে দ্বিতীয় শ্রেণিতে এটি চালু হবে এবং মাধ্যমিকের ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণিতে করবো। ২০২৪ সালে প্রাথমিকের তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণি এবং অষ্টম ও নবম শ্রেণি। ২০২৫ সালে পঞ্চম শ্রেণি ও মাধ্যমিকের দশম শ্রেণিতে বাস্তবায়ন করবো। নিউজ একাত্তর/বিল্পব...

শ্রীলংকার বিপক্ষে জয় দিয়ে টি-টুয়েন্টি সিরিজ শুরু করলো দক্ষিণ আফ্রিকা

১১সেপ্টেম্বর ২০২১, স্পোর্টস ডেস্ক , নিউজ একাত্তর : জয় দিয়ে শ্রীলংকার বিপক্ষে টি-টুয়েন্টি সিরিজ শুরু করলো সফরকারী দক্ষিণ আফ্রিকা। গতরাতে সিরিজের প্রথম ম্যাচে প্রোটিয়ারা ২৮ রানে হারিয়েছে শ্রীলংকাকে। এই জয়ে তিন ম্যাচের সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল দক্ষিণ আফ্রিকা। কলম্বোর আর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিং বেছে নেয় দক্ষিণ আফ্রিকা। উপরের সারির তিন ব্যাটসম্যানের ছোট-ছোট ইনিংসের সুবাদে লড়াই করার পুঁিজ পায় প্রোটিয়ারা। ২০ ওভারে ৫ উইকেটে ১৬৩ রান করে দক্ষিণ আফ্রিকা। ৫৯ বল মোকাবেলা করে উদ্বোধনী জুটিতে ৭৩ রান করেন দক্ষিণ আফ্রিকার দুই ওপেনার কুইন্টন ডি কক ও রেজা হেনড্রিকস। ডি কক ৩৬ ও হেনড্রিকস ৩৮ রান করেন। তিন নম্বরে নামা আইডেন মার্করাম ৩৩ বলে ১টি চার ও ২টি ছক্কায় ৪৮ রানে থামেন। শেষদিকে ডেভিড মিলারের ১৫ বলে ২৬ রান দলকে ভালো অবস্থায় নিয়ে যায়। শ্রীলংকার হাসারাঙ্গা ডি সিলভা ২৩ রানে ২ উইকেট নেন। জয়ের জন্য ১৬৪ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে সুবিধা করতে পারেনি শ্রীলংকা। দক্ষিণ আফ্রিকার বোলারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে দ্রুত রান তুলতে ব্যর্থ হয় লংকান ব্যাটসম্যানরা। এক পর্যায়ে দলের সংগ্রহ দাঁড়ায় ১৫ ওভার শেষে ৪ উইকেটে ছিলো ৯৫ রান। এক প্রান্ত আগলে রাখলেও টি-টুয়েন্টি মেজাজে ব্যাট করতে পারেননি ওপেনার দিনেশ চান্ডিমাল। টি-টুয়েন্টি ক্যারিয়ারের ষষ্ঠ হাফ-সেঞ্চুরি করা চান্ডিমাল শেষ পর্যন্ত ৬৬ রানে অপরাজিত থাকেন। তার ৫৪ বলের ইনিংসে ৫টি চার ও ২টি ছক্কা ছিলো। ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ১৩৫ রান করে শ্রীলংকা। ম্যাচ সেরা হন দক্ষিণ আফ্রিকার মার্করাম। আগামীকাল একই ভেন্যুতে হবে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচ। নিউজ একাত্তর/বিল্পব...

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ঐতিহাসিক টি-টোয়েন্টি সিরিজ জয়

৮সেপ্টেম্বর ২০২১, স্পোর্টস ডেস্ক , নিউজ একাত্তর : নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথমবারের মতো টি-টোয়েন্টি সিরিজ জিতল বাংলাদেশ। পাঁচ ম্যাচ টি-টোয়েন্টির চতুর্থটিতে ৬ উইকেটের বড় ব্যবধানে জয় পায় টাইগাররা। এর আগে প্রথম দুই ম্যাচ জয়ের পর তৃতীয় ম্যাচে কিউইরা জিতেছিল। এনিয়ে টানা তিনটি টি-টোয়েন্টি সিরিজ ঘরে তুললো বাংলাদেশ। জিম্বাবুয়ে সফরে জিতে আসার পর ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়াকে বিধ্বস্ত করেছিল স্বাগতিকরা। এদিন ম্যাচে জয়ে নাসুম আহমেদ ও মোস্তাফিজুর রহমানের দারুণ বোলিংয়ের পর, ব্যাটিংয়ে অসাধারণ করে দলকে জিতিয়েই মাঠ ছাড়েন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ। বুধবার (০৮ সেপ্টেম্বর) মিরপুর শেরে বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হয় দুদল। যেখানে প্রথমে ব্যাট করে ১৯.৩ ওভারে ৯৩ রানে অলআউট হয় নিউজিল্যান্ড। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ৪ উইকেট হারিয়ে ও ৫ বল বাকি থাকতে ৯৬ করে জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় মাহমুদউল্লাহ বাহিনী। ৯৪ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করে নামা বাংলাদেশের হয়ে এদিনও ব্যর্থ হন ওপেনার লিটন দাশ। দলীয় তৃতীয় ওভারে ব্যক্তিগত ৬ রানে কোল ম্যাককোঞ্চির বলে বিদায় নেন তিনি। তবে দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে সাকিব আল হাসানের সঙ্গে ২৪ রানের পার্টনারশিপ গড়েন আরেক ওপেনার নাঈম শেখ। কিন্তু মারমুখী খেলতে যাওয়া সাকিব ষষ্ঠ ওভারে আজাজ প্যাটেলের শিকার হন। ব্যক্তিগত ৮ রানে তিনি উইকেটরক্ষক টম ল্যাথামের কাছে স্টাম্পিং হন। একই ওভারের শেষ বলে অভিজ্ঞ মুশফিকুর রহিমেরও বিদায় হয়। বোল্ড হয়ে শূন্য রানে ফেরেন তিনি। চতুর্থ উইকেট জুটিতে অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের সঙ্গে ৫০ বলে ৩৪ রান করেন নাঈম। এই জুটি দলকে জেতানোর লক্ষ্যেই এগিয়ে যাচ্ছিলেন। তবে রান আউটে কাঁটা পড়ে মাঠ ছাড়তে হয় নাঈমকে। ১৫তম ওভারে দলীয় ৬৭ রানে দুই রান নিতে গিয়ে আউট হন নাঈম। ৩৫ বলে ১টি চার ও ১টি ছক্কায় ২৯ রান করেন এই বাঁহাতি। নাঈম বিদায় নিলেও পঞ্চম উইকেট জুটিতে আফিফ হোসেনের সঙ্গে ২৮ বলে ২৯ করে ম্যাচ জেতান মাহমুদউল্লাহ। এই জুটিতে অবশ্য আফিফের অবদান ছিল মাত্র ৬ রান। দলকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়ে জয় নিশ্চিত করে সাইলেন্ট কিলার খ্যাত মাহমুদউল্লাহ। তিনি শেষ অবধি ৪৮ বলে একটি চার ও ২টি বিশাল ছক্কায় ৪৩ রানে অপরাজিত থাকেন। কিউই বোলারদের মধ্যে আজাজ দুটি ও ম্যাককোঞ্চি একটি উইকেট লাব করেন। টস জিতে এর আগে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে প্রথম ওভারেই উইকেট হারায় নিউজিল্যান্ড। নাসুম আহমেদের বল তুলে মারতে গিয়ে মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের ক্যাচে পরিণত হন রচিন রবীন্দ্র। দলীয় তৃতীয় ওভারে আরেক ওপেনার ফিন অ্যালেনকেও সাইফের ক্যাচে ফেরান নাসুম। ব্যাক্তিগত ১২ রানে মাঠ ছাড়েন তিনি। তৃতীয় উইকেট জুটিতে উইল ইয়ংকে নিয়ে ৩৫ রান করে বিপদ সামাল দেওয়ার চেষ্টা করেন অধিনায়ক টম ল্যাথাম। তবে মেহেদী হাসানের ঘূর্ণিতে ইনিংস বড় করা হয়নি ল্যাথামের। উইকেটরক্ষক নুরুল হাসান সোহান স্টাম্পিং করে বিদায় করেন ২১ রান করা এই ব্যাটসম্যানকে। কিউইদের ইনিংসে এরপর ঘূর্ণির জাদু দেখান নাসুম। ১২তম ওভারের দ্বিতীয় ও তৃতীয় বলে হেনরি নিকোলস ও কলিন ডি গ্র্যান্ডহোমকে ফিরিয়ে হ্যাটট্রিকের সম্ভাবনাও জাগান এই বাঁহাতি। সফরকারীদের ব্যাটিংয়ে একাই লড়ে যান উইল ইয়ং। তবে মোস্তাফিজুর রহমানের কাটারের সামনে বাকিরা আর কেউ দাঁড়াতেই পারেননি। তার শিকারে মাঠ ছাড়েন টম ব্লান্ডেল, কোল ম্যাককোঞ্চি, ব্লাইর থিকনার ও ইয়ং। ম্যাককোঞ্চিকে তো নিজেরই করা বলের ফিরতি শটে দারুণ এক ক্যাচে ফেরান। কিউই ইনিংসে ব্যাক্তিগত সর্বোচ্চ ৪৬ রান করা ইয়ংও তার বলে মাহমুদউল্লাহকে ক্যাচ দেন। মাঝে আজাজ প্যাটেলকে ফিরিয়ে উইকেটে ভাগ বসান সাইফ। বাংলাদেশি বোলারদের মধ্যে নাসুম ও মোস্তাফিজ ৪টি করে উইকেট দখল করেন। একটি করে উইকেট পান মেহেদী ও সাইফ। ৪ ওভারে ১০ রানের বিনিময়ে ৪ উইকেট নেওয়া নাসুম ম্যাচ সেরা নির্বাচিত হন। নিউজ একাত্তর/ভুঁইয়া...

সেন্সর ছাড়পত্র পেয়েছে চলচ্চিত্র- চরিত্র

১৭সেপ্টেম্বর ২০২১, শিল্প ও সংস্কৃতি অঙ্গন ডেস্ক , নিউজ একাত্তর : বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ডের ছাড়পত্র পেয়েছে মৌলিক গল্পের চলচ্চিত্র- চরিত্র। সিনেমাটির কাহিনী, সংলাপ, চিত্রনাট্য, প্রযোজনা ও পরিচালনা করেছেন মোঃ দ্বীন ইসলাম। গত ১৩ সেপ্টেম্বর সিনেমাটির সেন্সর ছাড়পত্রের সনদ দেয়া হয়। পরিচালক দ্বীন ইসলাম বলেন, এটি আমাদের দেশীয় মৌলিক গল্পের চলচ্চিত্র। এই চলচ্চিত্রটিতে আবহমান গ্রামবাংলা ও সমাজের প্রতিচ্ছবি তুলে ধরা হয়েছে। চরিত্র: চলচ্চিত্রটি আগামী অক্টোবর মাসে প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি দেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে। চরিত্র: চলচ্চিত্রটিতে অভিনয় করেছেন, ফরহাদ হোসেন, কান্তানুর, মিষ্টি মারিয়া, সমু চৌধুরী, ফারুক আহমেদ, মাহমুদুর রহমান মিঠু (বড়দা মিঠু), মাসুম আজিজ, আমির সিরাজী, গুলশানারা পপি, শম্পা নিজামসহ আরও অনেকে। চলচ্চিত্রটির চিত্রধারণে ছিলেন শ্রাবণ চৌধুরী সুমন, এস এম রনি, সোহাগ। সিনেমাটিতে গানে কণ্ঠ দিয়েছেন ফজলুর রহমান বাবু, রিংকু ও চঞ্চল। এর সঙ্গীত পরিচালনা করেছেন চঞ্চল। আবহ সঙ্গীত আশরাফুল। শিল্প নির্দেশক হিসেবে ছিলেন আরিফুল ইসলাম। নিউজ একাত্তর/বিল্পব...

নির্বাহী সম্পাদকের দায়িত্ব নিলেন মৌসুমী

২৬আগষ্ট ২০২১, শিল্প ও সংস্কৃতি অঙ্গন ডেস্ক , নিউজ একাত্তর : সাপ্তাহিক ম্যাগাজিন ভিশন ২০২১-এর নির্বাহী সম্পাদকের দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন বাংলা চলচ্চিত্রের প্রিয়দর্শিনীখ্যাত অভিনেত্রী আরিফা পারভীন জামান মৌসুমী। এ সময় তিনি জানান, সাংবাদিকতার প্রতি অনেক আগে থেকেই আগ্রহ ছিল। পেশাজীবনে অনেক সাংবাদিকের সঙ্গে মিশেছি। সেই জন্য এই পেশার প্রতি ভালোলাগা আরও বেশি। আর মিডিয়া সমাজের আয়না। আমরা নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করে যেতে চাই। এর আগে ইয়েসনিউজবিডিডটকম নামে একটি নিউজ পোর্টালের সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব নিয়েছিলেন তিনি। সাপ্তাহিক ম্যাগাজিন ভিশন ২০২১ সম্পাদক ও প্রকাশক মো. জসিম উদ্দিন মঙ্গলবার মৌসুমীর হাতে নিয়োগপত্র তুলে দিয়ে বলেন, চিত্র নায়িকা মৌসুমীর দায়িত্ব গ্রহণের মধ্য দিয়ে সাপ্তাহিক ম্যাগাজিন ভিশন ২০২১ একটি মাইলফলক অতিক্রম করতে চলেছে। আশাকরি, আমাদের সাপ্তাহিক ম্যাগাজিনটি মানুষ নতুনভাবে চিনবে। চিত্রনায়িকা আরিফা পারভীন জামান মৌসুমীর হাতে নিয়োগপত্র তুলে দেওয়ার সময় তাঁর বাসভবনে উপস্থিত ছিলেন বিশেষ প্রতিবেদক আবদুল্লাহ আল মামুন খান, সিনিয়র সাংবাদিক মো. শাহ্ মহিউদ্দীন (শাহীন), অনলাইন ইনচার্জ বখতিয়ার উদ্দিন জন ও প্রযোজক পরিচালক জাহিদ হোসেনসহ আরো অনেকে। মৌসুমীকে শুভেচ্ছা জানিয়ে ওমর সানী বলেন, মৌসুমীর সঙ্গে পরিচয় হবার পর থেকেই দেখেছি সাংবাদিকতা নিয়ে ওর অনেক আগ্রহ। আমি খুব আনন্দিত। ওকে আমার পক্ষ থেকে অনেক অভিনন্দন। নিউজ একাত্তর/বিপ্লব...

হাতিরঝিলে কিশোরদের উপদ্রব আটক ৫৫

২৮,জানুয়ারী,বৃহস্পতিবার,ক্রাইম প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ঘিঞ্জি ঢাকায় একটু মুক্তভাবে হেঁটে বেড়ানোর জায়গা নেই বললেই চলে। তবে এই অভাবটা কিছুটা হলেও পূরণ করেছে হাতিরঝিল। কিন্তু দিন দিন সেটাও হয়ে পড়েছে অরক্ষিত। কোলাহল তো বেড়েছেই, সেই সঙ্গে বেড়াতে আসা মানুষকে নানাভাবে উত্যক্ত করছে কিশোরদের কয়েকটি দল। এমন অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে অভিযান চালিয়ে ৫৫ জন কিশোরকে আটক করেছে পুলিশ। পুলিশের (মিডিয়া এন্ড পাবলিক রিলেশন্স) এআইজি মো. সোহেল রানা এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, হাতিরঝিলে বেড়াতে আসা একজন গতকাল (২৭ জানুয়ারি) পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের মিডিয়া এন্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগে হয়রানির শিকার হওয়ার একটি অভিযোগ দেন। সেই পরিপ্রেক্ষিতে হাতিরঝিল লেক ও লেক সংলগ্ন পার্শ্ববর্তী এলাকায় বিকেল ৪টা থেকে রাত সাড়ে ৮টা পর্যন্ত ব্যাপক অভিযান চালায় পুলিশ। এসময় বিভিন্ন অপরাধে জড়িত থাকায় ৫৫ জনকে আটক করা হয়। আটকদের মধ্যে ৩ জনের কাছে ৮ পিস, ১২ পিস ও ২৫ পিস ইয়াবা পাওয়া গেছে। এমনকি তাদের বিরুদ্ধে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। এছাড়াও গণ-উপদ্রব ও অহেতুক হৈচৈ করার কারণে ১৬ জনের বিরুদ্ধে ডিএমপি অর্ডিন্যানস অনুযায়ী ব্যবস্থাও নেয়া হচ্ছে। অবশিষ্ট ৩৬ জনকে শর্তসাপেক্ষে অভিভাবকের জিম্মায় দেয়া হয়েছে। এআইজি আরো বলেন, সন্তান যেনো কোনো অপরাধে জড়িয়ে না পড়ে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। দরকার পড়লে পুলিশের সহায়তা নিতে হবে। ...

কৃষক, শ্রমিক, মেহনতি মানুষের জন্য আজীবন সংগ্রমী মোস্তফা ভুঁইয়া

২২সেপ্টেম্বর,মঙ্গলবার,বিশেষ প্রতিবেদন,নিউজ একাত্তর ডট কম: মোঃ মোস্তফা ভুঁইয়া ১৯৫০ সালের মার্চ মাসের ৪ তারিখে নরসিংদী জেলার পলাশ উপজেলার বাস গ্রামে সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম মরহুম ডাঃ মনিরুজ্জামান ভুঁইয়া, মাতার নাম মরহুমা রৌশনারা বেগম। তিনি তিন সন্তানের জনক। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, এক পুত্র, এক কন্যা, আত্মীয়স্বজন সহ অসংখ্য সহকর্মী ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। তিনি একসময় খাদ্য অধিদপ্তরে সরকারি কর্মকর্তা ছিলেন। তিনি ১৯৭০ সালে ২১ শে ফেব্রুয়ারিতে চাকুরিতে যোগদান করেন। তার চাকুরি জীবন শুরু হয় পাকিস্তানের করাচিতে। তিনি ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় তৎকালিন পূর্ব পাকিস্তান যা বর্তমানে বাংলাদেশে ফিরে আসেন। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর তিনি পুনরায় খাদ্য অধিদপ্তরে যোগদান করেন। ২০০৮ সালে তিনি খাদ্য অধিদপ্তরে সহকারী পরিচালক হিসেবে অবসর গ্রহন করেন। তিনি প্রগতিশীল রাজনীতির সাথে সক্রিয়ভাবে জড়িত ছিলেন। ২০১১ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারী স্বদেশ পার্টিতে যাত্রা শুরু করেন। তিনি আমৃত্যু স্বদেশ পার্টির সহ-সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি সমাজসেবা, জনকল্যাণ, কৃষক, শ্রমিক, মেহনতি মানুষের অধিকার সংগ্রামে জড়িত ছিলেন। তিনি অন্যায়, অত্যাচার, শোষণ, নিপীড়ন, বঞ্চনা- লাঞ্ছনার বিরুদ্ধে একজন বলিষ্ট প্রতিবাদী ছিলেন। তিনি গত ২০২০ সালের ৮ আগস্ট জাতীয় হৃদরোগ হাসপাতালে রাত ৯টা ৪০ মিনিটে সবাইকে ছেড়ে না ফেরার দেশে পারি জমান। তার অসংখ্য রাজনৈতিক, সামাজিক, সহকর্মী শোকাহিত হৃদয়ে তাকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেছে। তার অভাব পূরণ হবার নয়। তার কর্মীরা এক মূহূর্তের জন্য তাকে ভুলতে পারে না। আমরা তার বিদেহী আত্মার মাগফিরাত, শান্তি, এবং জান্নাতুল ফেরদৌস কামনা করছি। ...

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সমীপে আকুল আবেদন

২০সেপ্টেম্বর,রবিবার,বিশেষ প্রতিবেদন,নিউজ একাত্তর ডট কম: সকল শিক্ষারর্থীদের কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন নিশ্চিত করার আগে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা হতে বিরত থাকুন। মার্চ ২০২০ হতে কোভিড-১৯ (করোনা) সংক্রমণ শুরু হয়। পর্যবেক্ষণ দেখা যায় শীত প্রধান অঞ্চলে কোভিড-১৯ সংক্রমণ অধিক। আমাদের প্রতিবেশী দেশ ভারতে সংক্রমণ বেড়েই চলছে। আমাদের দেশ ঘনবসতি পূর্ণ জনবহুল দেশ। স্বাস্থ্য সুরক্ষায় সংক্রমণ প্রতিরোধে সরকারি বেসরকারি ব্যাক্তি সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানের প্রচার প্রচারণায় দেশবাসী সচেতন হয়েছে। দেশের মানুষ সতর্ক হয়েছে। স্বাস্থ্য সুরক্ষাবিধি মেনে চলছে। যার ফল আমরা প্রত্যক্ষ করছি। সামনে শীত মৌসুম। এ অবস্থায় কোভিড-১৯ সংক্রমণ বাড়ার আশঙ্কা একেবাড়ে উড়িয়ে দেওয়া যায় না। বিভিন্ন মহল বিশিষের দাবীর মুখে একাধিক ব্যাক্তি ও প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে জানা যায় সদাসয় সরকার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন শ্রেণির পরিক্ষা ও ক্লাস শুরু করার তথ্য। অবশ্যই এই উদ্যেগ ভাল। কিন্তু এ মুহূর্তে তা কতটুকু যুক্তিযুক্ত। কোভিড-১৯ একটি সংক্রামক ও ছোঁয়াছে রোগ। এর চিকিৎসা ও প্রতিরোধ ব্যাবস্থা অত্যন্ত জটিল। তাই এর সংক্রমণ ঠেকাতে আমাদের দেশের সরকার শত চেষ্ঠার পর সম্পূর্ণ সফল হতে পারেনি। অবশ্য আংশিক সফলতা, যথাপোযুক্ত পদক্ষেপ গ্রহণ করার জন্য অবশ্যই সরকারের সাধুবাদ। ধন্যবাদ পাওয়ার যোগ্য। কৃতজ্ঞতাচিত্তে ধন্যবাদ জানাচ্ছিও। আমাদের দেশে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রতিটি শ্রেণিতে ছাত্র-ছাত্রী অনেক। এ অবস্থায় স্বাস্থ্য বিধি মেনে ক্লাস করা কোন অবস্থাতেই সম্ভব নয়। তাই সকল দিকে বিবেচনা করে, প্রতিটি ছাত্র-ছাত্রীর কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন নিশ্চিত না করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও ক্লাস শুরু না করার জন্য বিনীত অনুরোধ করছি।- ...

আগামী দিনের ছাত্র রাজনীতি হতে হবে জ্ঞান নির্ভর: ওবায়দুল কাদের

১৭সেপ্টেম্বর ২০২১, নিজেস্ব সংবাদদাতা , নিউজ একাত্তর : আগামী দিনের রাজনীতি হতে হবে জ্ঞান নির্ভর, সেজন্য ছাত্র রাজনীতিকে জ্ঞান এবং মূল্যবোধের মডেল হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর) সকালে বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে শিক্ষা দিবস উপলক্ষে দলটির শিক্ষা ও মানবসম্পদ উন্নয়ন কমিটি আয়োজিত শিক্ষা: ২০৪১ সালের লক্ষমাত্রা অর্জনের বাস্তবিক কৌশল শীর্ষক সেমিনারে ভার্চ্যুয়ালি যুক্ত হয়ে এ আহ্বান জানান তিনি। পরীক্ষার্থী নয়, চাই শিক্ষার্থী, জীবিকা নয়, জীবনের জন্যই শিক্ষা প্রয়োজন উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, এ বাস্তবতা শিক্ষক, অভিভাবক, শিক্ষার্থী ও নীতিনির্ধারকদের সবার আগে উপলব্ধি করতে হবে। শিক্ষা দিবস নিয়ে ছাত্র সংগঠনের কোনো কর্মসূচি না থাকায় দুঃখ প্রকাশ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, আজকের দিবসটা ছাত্র সমাজের জন্য অপরিহার্য, ৬২র শিক্ষা আন্দোলন নিয়ে আজ কয়জন জানে? তা জানা নেই। ছাত্রনেতারা এখন তাদের ক্যাম্পাস, শিক্ষা, শিক্ষার সমস্যা এমনকি কোনো সংগঠন এই দিবসের তাৎপর্য নিয়ে কোনো সেমিনারও করে না। এ ধারা চলতে থাকলে ছাত্র সংগঠনগুলোর জৌলুস হারিয়ে যাবে। তিনি আরও বলেন, এই মুহূর্তে জরুরি হচ্ছে গবেষণা নির্ভর হয়ে শিক্ষার মান বৃদ্ধিতে নতুন কলাকৌশলে এগিয়ে যাওয়া। মেধাবীদের মেধার মূল্যায়ন করতে হবে। শিক্ষার মান যেমন বাড়াতে হবে, তেমনি শিক্ষকতার মানও বাড়াতে হবে। করোনার এই অতিমারিতে অনেক ছাত্রছাত্রী ঝরে গেছে, স্কুলে যাওয়া বন্ধ করে দিছে, তাদের খুঁজে বের করে আবারও শিক্ষাঙ্গনমুখী করতে হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পরবর্তী নির্বাচন নিয়ে ভাবেন না, তিনি ভাবেন আগামী প্রজন্ম নিয়ে, আর এটাই হওয়া উচিত জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, পরবর্তী প্রজন্মের কথা মাথায় আছে বলেই তিনি আজ রাষ্ট্রনায়ক। এ মাসের শেষেই বিশ্ববিদ্যালয় খুলবে, হলগুলোতে জীবনযাত্রা কেমন তা দেখতে হবে। হলগুলোতে অছাত্ররা অবস্থান করে, তাদের লিখিতভাবে হলে থাকা বন্ধ করতে হবে। এ নিয়ে কে খুশি হলো, কে অখুশি হলো তাতে কিছু যায় আসে না। শিক্ষাকে গুণগত গভীরতায় আনতে হলে এসব সিদ্ধান্ত নিতেই হবে। প্রতিযোগিতাময় গ্লোবাল ভিলেজে শিক্ষার্থীদের ক্যারিয়ার হতে হবে আন্তর্জাতিক মানের, এ কথা উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, মুক্তিযুদ্ধের অবিনাশী চেতনা আর প্রযুক্তি মনস্কতায় গড়ে তুলতে হবে নতুন প্রজন্মকে। দেশের উদ্যমী তরুণদের যোগ্য করে গড়ে তুলতে হবে সমৃদ্ধ আগামীর জন্য, বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলার জন্য, শেখ হাসিনার সমৃদ্ধ ও আত্মনির্ভরশীল বাংলাদেশের জন্য এবং সজিব ওয়াজেদ জয়ের ডিজিটাল বাংলাদেশের জন্য। শিক্ষা ও মানবসম্পদ উন্নয়ন উপকমিটির চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবদুল খালেকের সভাপতিত্বে সেমিনারে আরও বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও শিক্ষামন্ত্রী ডাক্তার দীপু মনি, বঙ্গবন্ধু ডিজিটাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মুনাজ আহমেদ নুর, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল, সেমিনারে মূল প্রবন্ধ পাঠ করেন সাবেক সচিব মো. নজরুল ইসলাম খান, আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডাক্তার রোকেয়া সুলতানা। অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেন শিক্ষা ও মানবসম্পদ উন্নয়ন বিষয়ক উপকমিটির সদস্য সচিব শামসুন্নাহার চাঁপা। নিউজ একাত্তর/বিল্পব...

দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করায় আ.লীগের ১১ বিদ্রোহী প্রার্থী বহিষ্কার

১৫সেপ্টেম্বর ২০২১, নিজেস্ব সংবাদদাতা , নিউজ একাত্তর : দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করায় দল থেকে ১১ বিদ্রোহী প্রার্থীকে সাময়িক বহিষ্কার করছে কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগ। আগামী ২০ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠেয় কক্সবাজার জেলার ১৪টি ইউনিয়ন ও ২টি পৌরসভার নির্বাচনে দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নেন তারা। তাই আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নির্দেশনা মোতাবেক সাময়িকভাবে তাদের দল থেকে বহিষ্কার করা হয়। দলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অ্যাডভোকেট ফরিদুল ইসলাম চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক মেয়র মুজিবুর রহমান এ বিষয়টি নিশ্চিত করেন। বহিষ্কৃত বিদ্রোহী প্রার্থীরা হলেন, টেকনাফ উপজেলার সাবরাং ইউনিয়নের নুর হোসেন, হ্নীলা ইউনিয়নের কামাল উদ্দিন আহমদ, পেকুয়া উপজেলার টইটং ইউনিয়নের মোহাম্মদ শহিদুল্লাহ বিএ. মহেশখালী উপজেলার কুতুবজোম ইউনিয়নের মোশারফ হোসেন খোকন, মাতারবাড়ী ইউনিয়নের এনামুল হক রুহুল, মাস্টার মোহাম্মদ উল্লাহ, মাস্টার রুহুল আমিন, আবদুস সাত্তার, হোয়ানক ইউনিয়নের মীর কাসেম চৌধুরী, ওয়াজেদ আলী মুরাদ ও কুতুবদিয়া উপজেলার উত্তর ধুরুং ইউনিয়নের সিরাজদৌল্লাহ। এছাড়া দলীয় প্রার্থীদের বিপক্ষে অবস্থান নেয়ায় টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি জাফর আহমদ (সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান), মহেশখালীর হোয়ানক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক জাফর আলম জহুরকেও সাময়িকভাবে বহিষ্কার করা হয়। তাদেরকে চূড়ান্তভাবে কেন বহিষ্কার করা হবে না তা জানতে চেয়ে আগামী ১৭ সেপ্টেম্বরের মধ্যে কারণ দর্শানোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে। অন্যথায় তাদেরকে চূড়ান্তভাবে বহিষ্কারের জন্য আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ বরাবর সুপারিশ পাঠাবে জেলা আওয়ামী লীগ। নিউজ একাত্তর/বিল্পব...

নম্র ও বিনয়ীকে আল্লাহ পছন্দ করেন

২৯,মে,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: রাব্বুল আলামিনের শ্রেষ্ঠ সৃষ্টি যেন শান্তিপূর্ণভাবে জীবন যাপন করে, এটাই তার প্রত্যাশা। পরস্পর মতভেদ এবং বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকে তিনি মোটেও পছন্দ করেন না। তাই আচার-ব্যবহারে অযথা রাগ ও ক্রোধ থেকে আমাদের দূরে থাকতে হবে। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সবসময় রাগ ও ক্রোধ থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দিতেন। তিনি মানুষকে সাবধান করে দিয়ে বলেছেন- যে ব্যক্তি নম্র-বিনয়ী হয়, আল্লাহ তাকে উচ্চাসনে আসীন করেন আর যে অহংকারী হয়, আল্লাহ তাকে অপদস্থ করেন। আমাদের ভেবে দেখতে হবে আমরা কি আল্লাহ পাকের ইচ্ছা অনুযায়ী নিজেদের জীবন পরিচালনা করছি কি ন। পবিত্র কুরআনে আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেছেন- তুমি প্রজ্ঞা ও সদুপদেশের মাধ্যমে তোমার প্রভু-প্রতিপালকের পথের দিকে আহ্বান জানাও। আর তুমি উত্তম যুক্তিপ্রমাণের মাধ্যমে তাদের সাথে তর্ক কর যা সর্বোত্তম। নিশ্চয় আপনার পালনকর্তাই ওই ব্যক্তি সম্পর্কে বিশেষভাবে জ্ঞাত রয়েছেন, যে তাঁর পথ থেকে বিচ্যুত হয়ে পড়েছে এবং তিনিই ভাল জানেন তাদেরকে, যারা সঠিক পথে আছে। (সুরা আন-নাহল: আয়াত ১২৫)। ইসলাম হলো শান্তির ধর্ম। ইসলাম কল্যাণের ধর্ম। একজন প্রকৃত মুসলমান সে কখনই সন্ত্রাসী এবং নৈরাজ্যকারী হতে পারে না। ইসলামের নামে যারা বিভিন্ন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড পরিচালনা করে, তারা মূলত সন্ত্রাসী, প্রকৃতপক্ষে তাদের কোনো ধর্ম নেই। তাই আমরা যে যেখানে যেভাবেই থাকি না কেন বা যে কর্মই করি না কেন, আমাদের সবাইকে নিজ নিজ স্থানে প্রকৃত ইসলামের শিক্ষা তুলে ধরতে হবে এবং নিজেদের আদর্শবান হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। আমাদের কাজ-কর্মে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের আদর্শ ফুটিয়ে তুলতে হবে। তবেই মহান আল্লাহ তাআলা আমাদের ভালোবাসবেন। আল্লাহ তাআলা আমাদের সবাইকে ইসলামের প্রকৃত শিক্ষা অনুযায়ী নিজেদের জীবন পরিচালনা করার তাওফিক দান করুন। আমিন। সূত্রঃ জাগো নিউজ ...

চাঁদ দেখা গেছে, রোজা বুধবার

১৩,এপ্রিল,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বাংলাদেশের আকাশে মঙ্গলবার (১৩ এপ্রিল) চাঁদ গেছে। বুধবার (১৪ এপ্রিল) থেকে ১৪৪২ হিজরি সালের রমজান মাস শুরু হবে। মঙ্গলবার রাতে তারাবি নামাজ আদায় ও শেষ রাতে সেহরি খেয়ে বুধবার প্রথম দিনের রোজা পালন করবেন ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সভাকক্ষে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত জানানো হয়। সন্ধ্যায় অনুষ্ঠিত এ বৈঠকে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ও চাঁদ দেখা কমিটির সভাপতি ফরিদুল হক খান সভাপতিত্ব করেন। সভা থেকে ঘোষণা করা হয় ১৪৪২ হিজরি সালের রমজান মাস ও লাইলাতুল কদরের তারিখ। এদিকে মালয়েশিয়া, সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশের আকাশে গত সোমবার (১২ এপ্রিল) পবিত্র রমজান মাসের চাঁদ দেখা গেছে। ফলে দেশগুলোতে মঙ্গলবার থেকে রোজা শুরু হয়েছে। ইসলামিক বিধান অনুযায়ী রমজানের চাঁদ দেখা যাওয়ায় গত সোমবার দিনগত রাতে সেহরি খেয়ে মঙ্গলবার রোজা রাখছেন ওইসব দেশের ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা। সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর একদিন পর বাংলাদেশের আকাশে চাঁদ দেখা যায়। ওইসব দেশের পরদিনই বাংলাদেশে রোজা ও ঈদ পালন করা হয়। সে হিসাবে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বাংলাদেশের আকাশে চাঁদ দেখা যাবে বলে ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা আগে থেকে রোজা পালন ও তারাবি নামাজের প্রস্তুতি নিয়েছেন। ...

একই রোগী কোভিড এবং ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হতে পারেন?

২৩ জুলাই ২০২১,অনলাইন ডেস্ক, নিউজ একাত্তর ঃবাংলাদেশে করোনাভাইরাসে সংক্রমণ এবং মৃত্যু যখন গুরুতর আকার ধারণ করেছে ঠিক তখনই ডেঙ্গু জ্বরের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে।স্বাস্থ্য অধিদফতরের সর্বশেষ হিসাবে দেখা যাচ্ছে, ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে ঢাকা শহরের বিভিন্ন হাসপাতালে বর্তমানে ১৫১ জন রোগী ভর্তি রয়েছেন।চিকিৎসকরা বলছেন, একজন ব্যক্তি একই সাথে কোভিড-১৯ এবং ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হতে পারেন।মশা নিধনের কার্যক্রম জোরদার করতে না পারলে পরিস্থিতি গুরুতর আকার ধারণ করতে পারে বলে আশংকা করছেন চিকিৎসকরা।দেশে জুন থেকে সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত ডেঙ্গুজ্বরের প্রাদুর্ভাব বেশি দেখা যায়। লক্ষণ এক হলেও পার্থক্য আছে-চিকিৎসকরা বলছেন, কিছু লক্ষণ এবং উপসর্গ আছে যেগুলা শুরুর দিকে ডেঙ্গু জ্বর এবং কোভিড-১৯-এর ক্ষেত্রে একই রকম।সেক্ষেত্রে অনেক রোগীকে ডেঙ্গু জ্বর এবং কোভিড-১৯ - দুটোর পরীক্ষা একসাথে করা হচ্ছে। ঢাকার বাংলাদেশ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের সহযোগী অধ্যাপক শর্মিলা হুদা বলেন, ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত বেশিরভাগ রোগীর জ্বর, গায়ে ব্যথা, মাথা ব্যথা এবং চোখের পেছনে ব্যথা থাকে।তিনি বলেন, সাধারণত এ ধরনের লক্ষণ থাকলে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়না, কারণ হাসপাতালগুলো এখন কোভিড রোগীতে পরিপূর্ণ।তবে পরিস্থিতি যদি জটিলতার ইঙ্গিত দেয় তাহলে হাসপাতালে ভর্তি হতেই হবে। সেক্ষেত্রে অন্য কোনো বিকল্প নেই।একই রোগী কি কোভিড এবং ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হতে পারেন?বাংলাদেশের একজন মেডিসিন বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক এ বি এম আবদুল্লাহ বলছিলেন, ডেঙ্গু জ্বর এবং কোভিড-১৯- দুটোই ভাইরাসজনিত রোগ হলে দুটোর মধ্যে কিছু পার্থক্য আছে।একই রোগী কোভিড এবং ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হতে পারে বলে উল্লেখ করেন অধ্যাপক আবদুল্লাহ। দুইটার ক্ষেত্রেই জ্বর, গলা ব্যথা, সর্দি, কাশি এবং স্বাদ না থাকা হতে পারে। করোনার ক্ষেত্রে এসব লক্ষণের সাথে নাকে ঘ্রাণ পায় না এবং কারো কারো পাতলা পায়খানা হয়,বলেন অধ্যাপক আবদুল্লাহ।এছাড়া করোনাভাইরাসের ক্ষেত্রে শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা হতে পারে, যেটি ডেঙ্গু জ্বরের ক্ষেত্রে হয় না বলে উল্লেখ করেন অধ্যাপক আবদুল্লাহ।চিকিৎসকরা বলছেন, ডেঙ্গু জ্বরের ক্ষেত্রে চার-পাঁচ দিন পরে শরীরে লাল অ্যালার্জির মতো হতে পারে। তখন রক্তে প্ল্যাটিলেটের মাত্রা কমে যেতে পারে।ডেঙ্গু জ্বরের ক্ষেত্রে শক সিন্ড্রোম হতে পারে যেটি রোগীর মৃত্যুর কারণ হয়।কিছু লক্ষণ আছে যেগুলো থাকলে রোগীকে অবশ্যই হাসপাতালে ভর্তি হতে হবে। সেগুলোর মধ্যে যদি দেখা যায় যে রোগীর নাক দিয়ে রক্ত পড়ছে। অথবা তার কালো পায়খানা হচ্ছে।শর্মিলা হুদা বলছেন, গুরুতর ডেঙ্গু জ্বরের ক্ষেত্রে নারীদের মাসিকের সময় অতিরিক্ত রক্তচাপ কিংবা হঠাৎ করে মাসিক হতে পারে।ডেঙ্গু প্রতিরোধে কী ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে?বিশেষজ্ঞরা বলছেন, জমে থাকার বৃষ্টির পানিতে এডিস মশার বংশ বিস্তার হয়, যেটি ডেঙ্গু জ্বরের জন্য দায়ী। ডেঙ্গু জ্বর প্রতিরোধ করার জন্য একমাত্র উপায় হচ্ছে এডিস মশার বংশ বিস্তার রোধ করা।এটি করতে না পারলে চিকিৎসা দিয়ে কুলানো সম্ভব হবে না বলে সতর্ক করে দিচ্ছেন চিকিৎসকরা।এডিস মশার লার্ভা--সেসব ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে চলতি বছর এপ্রিল মাসে মোবাইল ফোনে বার্তা পাঠিয়ে সতর্ক করে বলা হয়েছে, চলতি বছরও যদি তাদের স্থাপনায় এডিস মশার লার্ভা পাওয়া যায়, তাহলে গতবারের চেয়ে বেশি জরিমানা করা হবে।স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলাম বৃহস্পতিবার বলেছেন, এডিস মশার বংশ বিস্তার ঠেকাতে বিভিন্ন স্থাপনায় যাতে বৃষ্টির পানি জমে না থাকে সেজন্য শুক্রবার থেকে ঢাকায় ২০টি মোবাইল টিম কাজ শুরু করবে। সূত্র : বিবিসি...

রান্নায় স্বাদ বাড়ায়, ডায়াবেটিসও কমায় ধনে পাতা

২৩,মার্চ,মঙ্গলবার,স্বাস্থ্য ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বাজারে সবসময় পাওয়া যায় ধনেপাতা। অনেকেই তরকারির স্বাদ বাড়াতে ধনেপাতা ব্যবহার করেন। আবার ভর্তায়ও জায়গা করে নেয় এই সুগন্ধি পাতা। এতো গেল রসনাবিলাসের কথা। কিন্তু জানেন কি, খাবারে স্বাদ বাড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে ধনেপাতার রয়েছে একগুচ্ছ ঔষধি গুণ। বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, ধনেপাতা ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য অনেক উপকারী। ফ্লোরিডা রিসার্চ ইনস্টিটিউট জানাচ্ছে, ধনেপাতা কিংবা বীজ রক্তে শর্করার মাত্রা কমাতে সাহায্য করে। ফলে ডায়াবেটিসও নিয়ন্ত্রণে থাকে। ধনেপাতা বীজের মধ্যে থাকে ইথানল। যা ব্লাড সুগার লেভেল কমাতে সাহায্য করে। প্যানক্রিয়াসের বিটা সেল থেকে ইনসুলিন নিঃসরণের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়। তাছাড়া ধনেপাতা হজম শক্তি বাড়াতেও সাহায্য করে। খাদ্যাভ্যাসের দরুণ আমাদের শরীরে রোজ তিলে তিলে জমা হতে থাকে বেশ কিছু ভারী ধাতু এবং বিষাক্ত দূষণকারী পদার্থ। এর থেকে শরীরে বহু দূরারোগ্য অসুখ যেমন ক্যান্সার, হৃদরোগ, মস্তিষ্কের বিভ্রাট, মানসিক রোগ, কিডনি ও ফুসফুসের অসুখ এবং হাড়ের দুর্বলতা তৈরি হতে পারে। ধনেপাতা রক্তপ্রবাহ থেকে এই সমস্ত ক্ষতিকর উপাদান দূর করে শরীরকে সুস্থ ও সতেজ রাখতে সাহায্য করে। ধনেপাতায় রয়েছে পটাশিয়াম, ক্যালসিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ, লোহা ও ম্যাগনেশিয়ামের মতো বেশ কয়েকটি উপকারী খনিজ। এছাড়া ভিটামিন এ এবং ভিটামিন কে'র জোগান দেয় এই পাতা। শুধু তাই নয়, এই উদ্ভিদ অ্যান্টিসেপ্টিক, অ্যান্টিফাংগাল এবং যে কোনও চুলকানি ও চামড়ার জ্বলনে অব্যর্থ ওষুধ। দিল্লির এইমস-এর গবেষণাগারে রিউম্যাটিক আর্থারাইটিস রোগে আক্রান্ত ইঁদুরের পায়ে ধনেপাতার রস প্রবেশ করালে তার শরীরের জ্বলন ও ফোলা ভাব দূর হতে দেখা গিয়েছে। ...

কৃষক, শ্রমিক, মেহনতি মানুষের জন্য আজীবন সংগ্রমী মোস্তফা ভুঁইয়া

২২সেপ্টেম্বর,মঙ্গলবার,বিশেষ প্রতিবেদন,নিউজ একাত্তর ডট কম: মোঃ মোস্তফা ভুঁইয়া ১৯৫০ সালের মার্চ মাসের ৪ তারিখে নরসিংদী জেলার পলাশ উপজেলার বাস গ্রামে সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম মরহুম ডাঃ মনিরুজ্জামান ভুঁইয়া, মাতার নাম মরহুমা রৌশনারা বেগম। তিনি তিন সন্তানের জনক। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, এক পুত্র, এক কন্যা, আত্মীয়স্বজন সহ অসংখ্য সহকর্মী ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। তিনি একসময় খাদ্য অধিদপ্তরে সরকারি কর্মকর্তা ছিলেন। তিনি ১৯৭০ সালে ২১ শে ফেব্রুয়ারিতে চাকুরিতে যোগদান করেন। তার চাকুরি জীবন শুরু হয় পাকিস্তানের করাচিতে। তিনি ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় তৎকালিন পূর্ব পাকিস্তান যা বর্তমানে বাংলাদেশে ফিরে আসেন। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর তিনি পুনরায় খাদ্য অধিদপ্তরে যোগদান করেন। ২০০৮ সালে তিনি খাদ্য অধিদপ্তরে সহকারী পরিচালক হিসেবে অবসর গ্রহন করেন। তিনি প্রগতিশীল রাজনীতির সাথে সক্রিয়ভাবে জড়িত ছিলেন। ২০১১ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারী স্বদেশ পার্টিতে যাত্রা শুরু করেন। তিনি আমৃত্যু স্বদেশ পার্টির সহ-সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি সমাজসেবা, জনকল্যাণ, কৃষক, শ্রমিক, মেহনতি মানুষের অধিকার সংগ্রামে জড়িত ছিলেন। তিনি অন্যায়, অত্যাচার, শোষণ, নিপীড়ন, বঞ্চনা- লাঞ্ছনার বিরুদ্ধে একজন বলিষ্ট প্রতিবাদী ছিলেন। তিনি গত ২০২০ সালের ৮ আগস্ট জাতীয় হৃদরোগ হাসপাতালে রাত ৯টা ৪০ মিনিটে সবাইকে ছেড়ে না ফেরার দেশে পারি জমান। তার অসংখ্য রাজনৈতিক, সামাজিক, সহকর্মী শোকাহিত হৃদয়ে তাকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেছে। তার অভাব পূরণ হবার নয়। তার কর্মীরা এক মূহূর্তের জন্য তাকে ভুলতে পারে না। আমরা তার বিদেহী আত্মার মাগফিরাত, শান্তি, এবং জান্নাতুল ফেরদৌস কামনা করছি।


একই রোগী কোভিড এবং ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হতে পারেন?

২৩ জুলাই ২০২১,অনলাইন ডেস্ক, নিউজ একাত্তর ঃবাংলাদেশে করোনাভাইরাসে সংক্রমণ এবং মৃত্যু যখন গুরুতর আকার ধারণ করেছে ঠিক তখনই ডেঙ্গু জ্বরের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে।স্বাস্থ্য অধিদফতরের সর্বশেষ হিসাবে দেখা যাচ্ছে, ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে ঢাকা শহরের বিভিন্ন হাসপাতালে বর্তমানে ১৫১ জন রোগী ভর্তি রয়েছেন।চিকিৎসকরা বলছেন, একজন ব্যক্তি একই সাথে কোভিড-১৯ এবং ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হতে পারেন।মশা নিধনের কার্যক্রম জোরদার করতে না পারলে পরিস্থিতি গুরুতর আকার ধারণ করতে পারে বলে আশংকা করছেন চিকিৎসকরা।দেশে জুন থেকে সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত ডেঙ্গুজ্বরের প্রাদুর্ভাব বেশি দেখা যায়। লক্ষণ এক হলেও পার্থক্য আছে-চিকিৎসকরা বলছেন, কিছু লক্ষণ এবং উপসর্গ আছে যেগুলা শুরুর দিকে ডেঙ্গু জ্বর এবং কোভিড-১৯-এর ক্ষেত্রে একই রকম।সেক্ষেত্রে অনেক রোগীকে ডেঙ্গু জ্বর এবং কোভিড-১৯ - দুটোর পরীক্ষা একসাথে করা হচ্ছে। ঢাকার বাংলাদেশ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের সহযোগী অধ্যাপক শর্মিলা হুদা বলেন, ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত বেশিরভাগ রোগীর জ্বর, গায়ে ব্যথা, মাথা ব্যথা এবং চোখের পেছনে ব্যথা থাকে।তিনি বলেন, সাধারণত এ ধরনের লক্ষণ থাকলে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়না, কারণ হাসপাতালগুলো এখন কোভিড রোগীতে পরিপূর্ণ।তবে পরিস্থিতি যদি জটিলতার ইঙ্গিত দেয় তাহলে হাসপাতালে ভর্তি হতেই হবে। সেক্ষেত্রে অন্য কোনো বিকল্প নেই।একই রোগী কি কোভিড এবং ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হতে পারেন?বাংলাদেশের একজন মেডিসিন বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক এ বি এম আবদুল্লাহ বলছিলেন, ডেঙ্গু জ্বর এবং কোভিড-১৯- দুটোই ভাইরাসজনিত রোগ হলে দুটোর মধ্যে কিছু পার্থক্য আছে।একই রোগী কোভিড এবং ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হতে পারে বলে উল্লেখ করেন অধ্যাপক আবদুল্লাহ। দুইটার ক্ষেত্রেই জ্বর, গলা ব্যথা, সর্দি, কাশি এবং স্বাদ না থাকা হতে পারে। করোনার ক্ষেত্রে এসব লক্ষণের সাথে নাকে ঘ্রাণ পায় না এবং কারো কারো পাতলা পায়খানা হয়,বলেন অধ্যাপক আবদুল্লাহ।এছাড়া করোনাভাইরাসের ক্ষেত্রে শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা হতে পারে, যেটি ডেঙ্গু জ্বরের ক্ষেত্রে হয় না বলে উল্লেখ করেন অধ্যাপক আবদুল্লাহ।চিকিৎসকরা বলছেন, ডেঙ্গু জ্বরের ক্ষেত্রে চার-পাঁচ দিন পরে শরীরে লাল অ্যালার্জির মতো হতে পারে। তখন রক্তে প্ল্যাটিলেটের মাত্রা কমে যেতে পারে।ডেঙ্গু জ্বরের ক্ষেত্রে শক সিন্ড্রোম হতে পারে যেটি রোগীর মৃত্যুর কারণ হয়।কিছু লক্ষণ আছে যেগুলো থাকলে রোগীকে অবশ্যই হাসপাতালে ভর্তি হতে হবে। সেগুলোর মধ্যে যদি দেখা যায় যে রোগীর নাক দিয়ে রক্ত পড়ছে। অথবা তার কালো পায়খানা হচ্ছে।শর্মিলা হুদা বলছেন, গুরুতর ডেঙ্গু জ্বরের ক্ষেত্রে নারীদের মাসিকের সময় অতিরিক্ত রক্তচাপ কিংবা হঠাৎ করে মাসিক হতে পারে।ডেঙ্গু প্রতিরোধে কী ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে?বিশেষজ্ঞরা বলছেন, জমে থাকার বৃষ্টির পানিতে এডিস মশার বংশ বিস্তার হয়, যেটি ডেঙ্গু জ্বরের জন্য দায়ী। ডেঙ্গু জ্বর প্রতিরোধ করার জন্য একমাত্র উপায় হচ্ছে এডিস মশার বংশ বিস্তার রোধ করা।এটি করতে না পারলে চিকিৎসা দিয়ে কুলানো সম্ভব হবে না বলে সতর্ক করে দিচ্ছেন চিকিৎসকরা।এডিস মশার লার্ভা--সেসব ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে চলতি বছর এপ্রিল মাসে মোবাইল ফোনে বার্তা পাঠিয়ে সতর্ক করে বলা হয়েছে, চলতি বছরও যদি তাদের স্থাপনায় এডিস মশার লার্ভা পাওয়া যায়, তাহলে গতবারের চেয়ে বেশি জরিমানা করা হবে।স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলাম বৃহস্পতিবার বলেছেন, এডিস মশার বংশ বিস্তার ঠেকাতে বিভিন্ন স্থাপনায় যাতে বৃষ্টির পানি জমে না থাকে সেজন্য শুক্রবার থেকে ঢাকায় ২০টি মোবাইল টিম কাজ শুরু করবে। সূত্র : বিবিসি

পতাকায় রক্তের ছিটেঁ

১৪আগষ্ট ২০২১, নিউজ একাত্তর : শোষণ-বঞ্চনা,দাবী,সংগ্রাম,জেল-জুলুম পথ ধরে মুক্তিযুদ্ধের সূচনা। নিরস্ত্র বাংগালী প্রাণ গুলো একান্ত তাদের দাবীর সমর্থনে এককাতারে দাঁড়িয়ে জানকে হাতের মুঠোয় নিয়ে শহর থেকে গ্রাম,পাড়া থেকে ঘর,ঘর থেকে প্রতিটি জন একটি শপথে ইস্পাত দৃঢ় মরন কামড় হানে পাকিস্তানি অবিবেচক শাসক গোষ্ঠীর ক্ষমতায় এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম সেই সময় পৃথিবী ভাগ ছিল শোষক আর শোষিত শ্রেণিতে। মানুষের বেচেঁ থাকার অধিকার,দেশের সার্বভৌমত্ব, মানুষের কৃষ্ঠি সংস্কৃতি, ধর্ম সবই শাসক শ্রেণী তাদের মর্জি মাফিক চলতে মানুষের উপর তাদের প্রভুত্ব কায়েম করে ছিল।মানুষ যখন মুক্তির জন্য এদিক ওদিক ছুটাছুটি আর হাহাকার করছিল।ঠিক তখনই মানুষের প্রাণের মানুষ তাদের অতিআপন,বন্ধুরূপে হাজির হলেন হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাংগালী দাবী আদায়ে অটল,যাকে জুলুম-নির্যাতনে রক্তচক্ষু টলাতে পারে না। বাংলার মানুষকে একটি সোনার দেশ উপহার দিতে জীবন উৎসর্গ করেছিলেন ইতিহাসের রাজনৈতিক ভাগ্যাকাশের মহানায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। পৃথিবী যখন দু'ভাগে বিভক্ত শোষক আর শোষিত ঠিক তখনই বঙ্গবন্ধু শানিত কন্ঠে শোষিতের পক্ষে উচ্চারণ করেছিলেন মানুষের বেচেঁ থাকার কালজয়ী বাসনা স্বাধীনতা। মানুষ যখন তার ন্যায্য অধিকার,বেচেঁ থাকার নূন্যতম চাহিদা মানুষরূপী হায়নারা কেড়ে নিতে ছিলো,গণ মানুষের নেতা বাংলার পরম ভালবাসার স্ফুলিঙ্গ শহীদ শেখ মুজিবুর রহমান, বাংলার মানুষকে তার চাহিদা, বেঁচে থাকার স্বাদ ঘরে ঘরে পৌছেঁ দিতে জীবনের সুবর্ণ সময় সংগ্রাম মুখর ছিলেন। বাংলার মানুষ যখন একপেশে শোষন আর বঞ্চনার স্বীকার হন।মানুষ যখন নিজ মাতৃভূমিতে অধিকারহীন,মত প্রকাশে যখন বাধার প্রাচীর, কর্ম সংস্থান,ব্যবসা-বাণিজ্য যখন বাংলার ন্যায্যতা তলানি গিয়ে টেকে।মানুষ যখন দিশেহারা পংকপালের মত দ্বিগবিদ্বিক ছুটে চলছে ঠিক তখনই মানুষে-মানুষে বিবেদ ভুলে ঐক্য করে একই সুতায় গেথেঁ ঘরে ঘরে দূর্গ করে দীর্ঘ সংগ্রামের শপথ নিয়ে ছিলেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ১৫ ই আগস্ট ১৯৭৫।বাংগালী জাতির ইতিহাসে রক্তাক্ত স্মৃতিময় একটি দিন।মর্মান্তিক শোকে মুহ্যমান একটি দিন।যারঁ দূরদর্শী নেতৃত্ব ও উদাত্ত আহ্বানে ১৯৭১ সালে সমস্ত বাংলাদেশ উত্তাল হয়ে উঠেছিল।একটি কন্ঠস্বরের ধ্বনি-প্রতিধ্বনি তে মানুষ পাগলের মতো নিজের জীবন উৎসর্গ করছিলেন।সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে বাঙালি জাতি পরাধীনতার শৃংখল ভেঙে স্বাধীনতার সূর্যকে ছিনিয়ে এনেছিল। বাংলাদেশ বিশ্বের দরবারে একটি স্বাধীন ও সার্বভৌম জাতি হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করেছিল।বাঙালি সেই প্রানের নেতা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে এইদিন স্বপরিবারে শহীদ করে,সূচনা হয়েছিল ইতিহাস বিকৃতির। ১৯৭৫ এর ১৫ আগস্ট একটি তারিখ নয়। বঙ্গবন্ধুকে শহীদ করে যে নির্মমতা ও বর্বরতার পরিচয় দিয়েছে তা দুনিয়ার ইতিহাসে নজিরবিহীন।সেদিন সেই ক্ষনে স্তম্ভিত হয়ে গিয়েছিল পুরো দেশ ও জাতি এমনকি প্রাণিকুল পর্যন্ত। একই সাথে হতবাক হয়ে গিয়েছিল বিশ্ব বিবেক।সেদিন কেদেঁছিলো বাংগালী, কেদেঁছিলো সারাবিশ্বের সভ্য মানুষ। বিশ্ব মানব সভ্যতার ইতিহাসে এমন একজন রাজনৈতিক নেতা বঙ্গবন্ধু। যে মহান নেতা বাংগালী জাতির স্বাধিকার ও অধিকার আদায়ের দীর্ঘ আন্দোলন আর সংগ্রামে,তাঁর ৫৫ বছরের রাজনৈতিক জীবনে প্রায় ১৪ বছর কেটেছে জেলখানার অন্ধকার সেলে এবং তৎকালীন পাকিস্তানি স্বৈর শাসক গোষ্ঠীর অপরাজনীতি আর অত্যাচার নিপীড়নে কেটেছে বছরের পর বছর।কখনও এ ক্ষন জন্মা সর্বকালে সর্বশ্রেষ্ঠ বাংগালীর অহং কে গণ মানুষের কাতার থেকে বিচ্ছিন্ন করা যায়নি। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু ছিলেন এদেশের প্রতিটি মানুষের অতি আপনজন।জাতি,ধর্ম-বর্ণ,শ্রেণী, সম্প্রদায় নির্বিশেষে প্রত্যেক বাংগালীর জন্যই ছিল তারঁ অকৃত্রিম দরদ। অর্থনীতিবিদ ও মানবতাবাদী দার্শনিক অধ্যাপক অমর্ত্য সেন বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে বলেছেন, বঙ্গবনধু থেকে পৃথিবীর সব মানুষের অনেক কিছু শেখার আছে এবং তিনি পূর্বে যেমন প্রাসঙ্গিক ছিলেন,আজও তেমনই আছেন,ভবিষ্যতেও তা-ই থাকতেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে শহীদ করার মাধ্যমে এমন এক আকর্ষণীয় ব্যক্তিত্বকে বাংলাদেশের মানুষ হারালো যারঁ চিন্তা ও চেতনা জগৎ জুড়ে ছিলো এদেশের মানুষের মুখে হাসি ফোটানো, শৃংখল থেকে মুক্ত করে মানুষকে মানুষের আসনে বসানো দুর্নীতি ও অপসংস্কৃতির আর হীনমন্যতার বিষবাষ্প থেকে দেশের ভূ-খন্ডকে অন্যন্য স্থানে প্রতিষ্ঠিত করা। বঙ্গবন্ধু জাতির উত্থান পতনের সুখ-দুঃখের নিজের জীবন একাকার করেছিলেন। তারঁ শহীদের রক্তে আমাদের লাল সবুজ পতাকার ছিটেঁ পড়েছে। আজকের দিনে আমরা বলতে পারি বঙ্গবন্ধু তখনও কোটি প্রাণের মণিকোঠায় জাগ্রত। তাঁর আদর্শ, রাজনৈতিক পরিকল্পনা প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে ছড়িয়ে দিতে না পারি! তারঁ আত্মা আমাদের অভিশাপের চাদরে ঢেকে দিবে। লেখক - রাশেদুল আজীজ, সাংবাদিক, চট্টগ্রাম।

আজকের মোট পাঠক

73214

নিউজ একাত্তর ডট কম

সম্পাদক : মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন চৌধুরী

নির্বাহী সম্পাদক : আহাম্মদ হোসেন ভুইয়া

একটি পপুলার মিডিয়া পাবলিকেশন এর প্রকাশনা | রেজি নং: চ-১২৪২৭/১৭

ই-মেইল : newsekattor@gmail.com, editorekattor@gmail.com, কপিরাইট ©newsekattor.com কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত