সোমবার, সেপ্টেম্বর ২৮, ২০২০
প্রকাশ : 2020-01-20

সর্বোত্তম নাগরিক সেবা প্রদান করাই আমার লক্ষ্য: কাউন্সিলর হাসান মুরাদ বিপ্লব

২০জানুয়ারী,সোমবার,কমল চক্রবর্তী, বিশেষ প্রতিনিধি,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের ৩৩ নং ফিরিঙ্গী বাজার ওয়ার্ডের বর্তমান কাউন্সিলর আলহাজ্ব হাসান মুরাদ বিপ্লব এলাকার উন্নয়ন ও আগামী নির্বাচন নিয়ে তার পরিকল্পনার কথা তুলে ধরেন। সোমবার ২০শে জানুয়ারি বিকালে তার নিজ কার্যালয়ে নিউজ একাত্তরকে দেয়া একান্ত এক সাক্ষাৎকারে তিনি তার নানা কর্মকাণ্ড ও এলাকার উন্নয়ন চিত্র তথা আগামী নির্বাচনে বিজয়ী হলে তিনি এলাকা উন্নয়নে কি কি কাজ করবেন তা সবিস্তর তুলে ধরেন। তিনি জানান, তিনি জনগনের প্রত্যাশিত ভোটে কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি দায়িত্ব গ্রহনের পর থেকে বিগত পাঁচ বছরে তিনি জনগণকে যে ওয়াদা করেছেন তা পুরন করেছেন এবং আগামীতে ও সেই ধারা অব্যাহত রাখবেন। জনগন চায় একজন কাউন্সিলর তাদের সুখে দুখে পাশে থাকবে আমি সেই প্রত্যাশা পুরন করতে পেরেছি। কাউন্সিলর আলহাজ্ব হাসান মুরাদ বিপ্লব জানিয়েছেন, তিনি জনগনের প্রত্যাশা অনুসারে আগামী নির্বাচনে আবারও প্রার্থী হবেন এবং তিনি আশাবাদী এলাকায় যে সকল কাজ করেছেন তাতে এলাকার জনগন তাকে পুনরায় আবার কাউন্সিলর হিসাবে নির্বাচিত করবে। তিনি আরো জানান, তিনি দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে এলাকার উন্নয়নের জন্য মেয়রের সহযোগিতায় সবচেয়ে বেশি বরাদ্দ নিয়ে কাজ করা হচ্ছে। তার এলাকায় বিভিন্ন প্রকল্পে মোট ১২৩ কোটি টাকার এডিবির বরাদ্ধের কাজ চলছে। তারমধ্যে উল্লেখ যোগ্য কাজ গুলোর মধ্যে কোতয়ালী মোড়ের হজরত শাহ সুন্দর মাজার সজ্বিতকরন কাজ করেছেন। এলাকার প্রতিটি রাস্তা পাকাকরনের কাজ করেছেন। এখন কাজ চলমান আছে আলকরন-১,২,৩ নং গলি ও বাটা গলি পাকা করনের কাজ। ডাঃ মান্নান গলিতে প্রায় ৩ কোটি টাকা ব্যায়ে কাঁচা রাস্তা পাকাকরনের কাজ চলছে। কবি নজরুল সড়ক, হাজী কলোনি, এয়াকুব নগর, শিব বাড়ি এগুলুতে এডিবির রাস্তা পাকাকরনের কাজ চলছে এবং অনেকটা শেষ পর্যায়ে। কোতয়ালী থেকে মেরিনার্স রোড পর্যন্ত মিড আইল্যান্ড সজ্জিতকরণ ও সম্প্রসারণ। কোতয়ালী থেকে মেরিনার্স ও অভয়মিত্র ঘাট পর্যন্ত রোড কারপেটিং এর কাজ চলছে। যাতে ব্যয় হচ্ছে প্রায় ৪ কোটি টাকা। ব্রিজ ঘাট এলাকার রাস্তা পাকাকরনের কাজ চলছে। রাস্তায় ব্যপক এলইডি বাল্ব স্থাপন করেছেন। বান্ডেল খালের উপর দুটি রিটাইনিং ওয়াল নির্মাণ করা হচ্ছে যা এখনো চলমান আছে। এলাকার ময়লা আবর্জনা অপসারনের ডাস্টবিন বসানো হয়েছে। সেইসাথে ডোর টু ডোর ময়লা অপসারনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। তাছাড়া ডাঃ জাকির হোসেন হোমিও কলেজের দশ তলা ভবনের মধ্যে ৬ তলা ভবন নির্মাণ করা হয়েছে। ইতিমধ্যে কলেজটিতে শিক্ষা কার্যক্রম চালু হয়েছে। হরিজন সেবক ভাইদের জন্য একটি অত্যাধুনিক বহুতল ভবন নির্মাণ করা হচ্ছে। যাতে করে ওরা সমাজের অন্যন্য নাগরিকের মত বসবাস করতে পারে। ইতিমধ্যে এর ভিতিপ্রস্তর স্তাপন করা হয়েছে এবং দরপত্র চুরান্ত পর্যায়ে আছে। দ্রুত কাজ শুরু হবে। তিনি জানান, তার ১ বর্গ কিলোমিটারের এলাকার মোট জনসংখ্যা প্রায় এক লক্ষ ও মোট ভোটারের সংখ্যা প্রায় বিশ হাজার। কিন্তু এই ওয়ার্ড একটি সমৃদ্ধ ওয়ার্ড। এখানে প্রাইমারী স্কুল আছে পাঁচটি। তাছাড়া এখানে আছে হাইস্কুল, কলেজ, মসজিদ, মাদ্রাসা , হোমিও কলেজ সব মিলিয়ে এটাকে একটি শিক্ষা নগরী বলা চলে। এখানে চালু হচ্ছে ডিপ্লোমা ইন নার্স কোর্স । এটা ইতিমধ্যে অনুমোদন হয়েছে এবং এই বছরই ভর্তি কার্যক্রম শুরু হচ্ছে। তাছাড়া, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন পরিচালিত তিন বছর মেয়াদী ম্যাটস কোর্স চালু হয়েছে। তিনি জানান, মাননীয় মেয়র চট্টগ্রামের ৪১টি ওয়ার্ডকে মাদক মুক্ত ঘোষণা করছেন। সেই লক্ষ্যে তিনি কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি মাদক ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স। আমাদের এলাকায় মাদক ও সন্ত্রাস বিরোধী সমাবেশ করা হয়েছে। এতে এলাকার জনগনের স্বতস্পুত অংশগ্রহণ ছিল। জনগন ওয়াদা করেছে তারা মাদককে ঘৃণা করবে এবং মাদক কারবারীকে আইনের আওতায় নিয়ে আসবে। সুতরাং আমার ওয়ার্ডে মাদক ও সন্ত্রাস এর কোন সুযোগ নেই। তার এলাকায় চাঁদাবাজি নেই বললেই চলে। তিনি জানান তার এলাকায় জলাবদ্ধতার সমস্যা তেমন নেই। তিনি তার এলাকার ড্রেন গুলোকে সম্প্রসারণ করেছেন। যাতে করে এলাকায় জলাবদ্ধতা তৈরি না হয়। আগামী নির্বাচনে বিজয়ী হলে তিনি অসমাপ্ত কাজ গুলো অগ্রাধিকার ভিত্তিতে শেষ করবেন। তিনি তার এলাকায় একটি কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলবেন। যাতে করে এলাকার বেকার যুবক ও মহিলারা কর্মমুখী হয় এবং কাজ শিখে আত্মকর্মসংস্থান করতে যাবেন । তাছাড়া মাদক ও সন্ত্রাস নির্মূলে কাজ করে যাবেন। প্রতিবেদকের সাথে কথা হয় ৩৩ নং ফিরিঙ্গী বাজার ওয়ার্ডের কয়েকজন এলাকাবাসীর সাথে এখানে তাদের মতামত তুলে ধরা হলঃ ৩৩ নং ফিরিঙ্গী বাজার ওয়ার্ডের ফিরিঙ্গী বাজার মোড় এলাকার স্থানীয় এক বাসিন্দা সচিন দাশ(৫৪) জানান, বর্তমান কাউন্সিলর এলাকায় অনেক উন্নয়ন করেছেন। রাস্তা ঘাটেরও অনেক উন্নয়ন করেছেন। এলাকার প্রতিটি রাস্তা পাকাকরনের কাজ করছেন। ব্যক্তি হিসাবে এলাকায় ভালো গ্রহণযোগ্যতাও আছে। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ও বেশ ভালো। আগামী নির্বাচনে আবার নির্বাচিত হবে বলে আশা করি। ৩৩ নং ফিরিঙ্গী বাজার ওয়ার্ডের ফিরিঙ্গী বাজার মোড় এলাকার পাইকারী ব্যবসায়ী মোঃ আব্দুল হাই (৪৭) জানান,বর্তমান কাউন্সিলর হাসান মুরাদ বিপ্লব ভাই ব্যক্তি হিসাবে ভালো। এলাকায় ওনার গ্রহণযোগ্যতা আছে। আমি আশা করি তিনি আবার নির্বাচিত হবেন। ৩৩ নং ফিরিঙ্গী বাজার ওয়ার্ডের ব্রিজ ঘাট মোড় এলাকার এক ফল ব্যবসায়ী সাইফুল আলম জানান, শুনছি বর্তমান কাউন্সিলর হাসান মুরাদ বিপ্লব ভাই আবার নির্বাচন করবে। ব্যক্তি হিসাবে ওনার ভালো গ্রহনযোগ্যতা আছে। আমি মনে করি তিনি আবার নির্বাচিত হবেন।

সাক্ষাৎকার পাতার আরো খবর