প্রকাশ : 2019-03-16

নিখোঁজ হওয়ার ১৫ মাস পর বাসায় ফিরলেন সাবেক রাষ্ট্রদূত মারুফ

১৬মার্চ,শনিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: রাজধানীর ধানমণ্ডির বাসা থেকে বিমানবন্দর যাওয়ার পথে হঠাৎ নিখোঁজ হওয়ার সাড়ে ১৫ মাস পর পরিবারের কাছে ফিরেছেন সাবেক রাষ্ট্রদূত মারুফ জামান। শনিবার (১৬ মার্চ) সন্ধ্যায় তার এক স্বজনের বরাত দিয়ে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন ধানমণ্ডি থানার ওসি আবদুল লতিফ। ২০১৭ সালের ৪ ডিসেম্বর রাজধানীর ধানমণ্ডির বাসা থেকে বিমানবন্দর যাওয়ার পথে রহস্যজনক নিখোঁজ হয়েছিলেন তিনি। বিষয়টি সে সময় ব্যাপক আলোচিত হয় দেশজুড়ে। তার নিখোঁজের ঘটনায় পরিবারের সদস্যরা ধানমণ্ডি থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছিলেন। পরে তার ব্যবহৃত গাড়িটি পরিত্যক্ত অবস্থায় উদ্ধার করা হয় খিলক্ষেতের তিনশ' ফুট সড়কের পাশ থেকে। কিন্তু তাকে পাওয়া যায়নি। প্রায় সাড়ে ১৫ মাস পর শুক্রবার গভীর রাতে বাসায় ফিরেছেন সাবেক এই রাষ্ট্রদূত। পুলিশের ধানমণ্ডি জোনের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার আব্দুল্লাহহেল কাফি সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, শুক্রবার রাত দেড়টার দিকে ধানমণ্ডির ৯/এ সড়কে ঘোরাফেরা করছিলেন মারুফ জামান। ওই সড়কের ৮৯ নম্বর বাড়ির তৃতীয় তলার বাসিন্দা তিনি। তার বাসার আশপাশের ভবনের দারোয়ান তাকে চিনতে পেরে বাসায় নিয়ে যায়। তার নিখোঁজ থাকার বিষয়টি জানার জন্য বাসায় পুলিশ পাঠানো হয়েছিল। কিন্তু তিনি অসুস্থ থাকায় বিশ্রামে আছেন বলে জানিয়েছেন তার মেয়ে। তার পরিবারের কেউ কথা বলতে রাজি হয়নি। মারুফ জামানের দুই মেয়ে। ২০১৭ সালের ৪ ডিসেম্বর রাতে তার ছোটো মেয়ে সামিহা জামান বেলজিয়াম থেকে দেশে ফেরেন। মেয়েকে আনার জন্য মারুফ জামান ধানমণ্ডির বাসা থেকে সন্ধ্যা ৬টার দিকে বের হন নিজের গাড়ি নিয়ে। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে তিনি বাসার ল্যান্ডফোনে গৃহকর্মীকে ফোন করে বলেছিলেন, তিনজন লোক বাসায় যাবে নষ্ট কম্পিউটার মেরামতের জন্য। এরপরই রাত ৮টা ৫ মিনিটের দিকে তিন ব্যক্তি বাসায় যান এবং মারুফের ব্যবহৃত একটি ল্যাপটপ, কম্পিউটার, মোবাইল ফোন ও ক্যামেরা নিয়ে বের হয়ে যান। মারুফের গাড়িটি ৫ ডিসেম্বর খিলক্ষেত থানা পুলিশ তিনশ' ফুট সড়কের পাশে পরিত্যক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে। এ ঘটনায় তার মেয়ে সামিহা ধানমণ্ডি থানায় জিডি করেন। সে সময় পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল, অনেক খোঁজাখুঁজি করে মারুফ জামানকে পাওয়া যাচ্ছে না। দীর্ঘ প্রায় সাড়ে ১৫ মাস পর সেই মারুফ জামানই শুক্রবার রাতে হঠাৎ করেই ফিরলেন বাড়িতে।

জাতীয় পাতার আরো খবর