প্রকাশ : 2018-08-04

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে উস্কানি দিচ্ছেন আমির খসরু?

অনলাইন ডেস্ক :নিরাপদ সড়কের দাবিতে চলমান আন্দোলনে বিএনপি নেতা আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী উস্কানি দিচ্ছেন; এমন দাবি করে সোশ্যাল মিডিয়া ও ইউটিউবে একটি অডিও ক্লিপ ছড়িয়ে পড়েছে। তবে, ওই অডিও ক্লিপটি তার নয় বলে দাবি করেছেন এই বিএনপি নেতা। অডিওটির বিষয়ে তিনি বলেন,এই আন্দোলন ছাত্রদের আন্দোলন। এরসঙ্গে বিএনপির কোনো সম্পর্ক নেই। এ ধরনের কথা বলার কোনো প্রশ্নই আসে না। এর আগে খালেদা জিয়ার সাজার পর একটি ছড়িয়ে ছিল। এগুলো বানোয়াট।খবর সময় অনলাইন। শনিবার (০৪ আগস্ট) দুপুর দেড়টার দিকে ইউটিউব ও ফেসবুকে ওই অডিওটি ছড়িয়ে পড়ে। ইউটিউবে নাফিয়া ইসলাম নামের একটি অ্যাকাউন্ট থেকে ক্লিপটি আপলোড করা হয়। অডিও ক্লিপটির শুরুতেই ফোনের রিং বাজতে শোনা যায়। এরপর মধ্যবয়সী এক ব্যক্তি ফোন রিসিভ করে হ্যালো বলেন। অপর প্রান্ত থেকে শোনা যায় এক যুবকের কণ্ঠস্বর। তিনি বলেন, জ্বি, আসসালামু আলাইকুম, আঙ্কেল। অপর ব্যক্তি বলেন, হ্যাঁ, হ্যাঁ। ওই যুবক বলেন, আঙ্কেল নওমি বলছিলাম। অপর ব্যক্তি বলেন, ভালো আছো? ফোন দেয়া ব্যক্তি বলেন, হ্যাঁ ভালো আছি। আপনি ভালো আছেন। ওই ব্যক্তি বলেন, হ্যাঁ, ভালো আছি। তোমরা কি এগুলোতে কিছুটা ইনভলবড হচ্ছো? যুবক বলেন, হ্যাঁ, আঙ্কেল আমি তো কুমিল্লা আসলাম। অপরজন বলেন, কুমিল্লা না, নামাইয়া দেও না, তোমাদের লোকজন সব নামাইয়া দেও না। মানুষজন নামাইয়া দেও ভালো করে। তোমাদের তো চিনে না। তোমাদের বন্ধু-বান্ধব নিয়ে সব নেমে পড়ো না ঢাকায়। ওই যুবক বলেন, আমরা সবার সঙ্গে কন্ট্রাক্ট করতাছি। ওই ব্যক্তি বলেন, কন্ট্রাক্ট করো, কখন আর কন্ট্রাক্ট করবা? এখনই তো টাইম। এখন নামতে না পারলে তো এটা ডাই ডাউন করে যাবে। তোমাদের তো এত পরিচিত মুখ না। তোমরা নেমে যাও না, ওদের সঙ্গে। ওই যুবক বলেন, এখানে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে একটু নেমেছিল। এমপি সাহেব গাড়ি নিয়ে সবাইকে উঠিয়ে দিয়েছে। অপরজন বলেন, হাইওয়ে-ঠাইওয়েতে অসুবিধা নেই, ঢাকায় নামাইয়া দেও। ঢাকা হইলে অন্য জায়গাতে এমনিতেই হয়ে যাবে। আমার তো কুমিল্লাতে দরকার নেই। তোমরা ঢাকায় এসে ২-৪শ বন্ধু-বান্ধব নিয়ে জয়েন করো। ওই যুবক বলেন, এমনিতে সবাই সংহতি জানাচ্ছে। তবে ওই যুবক বলেন, সংহতি-টংহতি দিয়ে কী হবে? তোমাদের মতো যারা আছে, তাদের নিয়ে নেমে যাও না। ফেসবুকে পোস্টিং-টোস্টিং করো সিরিয়াসলি। ওই যুবক বলেন, এটাতে অ্যাকটিভ আছে সবাই। আমি কাল-পরশু আসতেছি। তখন ওই ব্যক্তি বলেন, এসে এগুলো করো। কুমিল্লা বসে থেকে লাভ কী?