মঙ্গলবার, জানুয়ারী ১৯, ২০২১
প্রকাশ : 2020-11-30

তামিমদের হারিয়ে চট্টগ্রামের হ্যাটট্রিক জয়

৩০নভেম্বর,সোমবার,স্পোর্টস ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চলমান বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপে হ্যাটট্রিক জয়ের স্বাদ নিলো গাজী গ্রুপ চট্টগ্রাম। আজ সোমবার দুপুরে অনুষ্ঠিত টুর্নামেন্টের সপ্তম ও নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে তামিম ইকবালের ফরচুন বরিশালকে ১০ রানে হারিয়েছে চট্টগ্রাম। এ নিয়ে তিন ম্যাচের সব কটিতে জিতলো চট্টগ্রাম। অন্যদিকে তিন ম্যাচে ১ জয় ও ২ হার বরিশালের। এদিন প্রথমে ব্যাট করে ২০ ওভারে ৭ উইকেটে ১৫১ রান করে চট্টগ্রাম। জবাবে মুস্তাফিজ ও শরিফুলের বোলিং তোপে ২০ ওভারে ৮ উইকেটে ১৪১ রানে থামে বরিশাল। মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত এ ম্যাচে টস জিতে প্রথমে বোলিং করতে নামে তামিমের বরিশাল। শুরুটা ভালো না হলেও ওপেনার লিটন দাস ও মিডল-অর্ডারের দুই ব্যাটসম্যান শামসুর রহমান ও মোসাদ্দেক হোসেনের ছোট ছোট ইনিংসের কল্যাণে সম্মানজনক স্কোর পায় চট্টগ্রাম। ওপেনার সৌম্য সরকার ৫ রানে ও অধিনায়ক মোহাম্মদ মিঠুন ১৭ রান করে ফিরলেও আরেক ওপেনার লিটন দাসের ব্যাট থেকে আসে ৪টি চারে ২৫ বলে ৩৫ রান। আর মিডল-অর্ডারে শামসুর ২৬ ও মোসাদ্দেক ২৮ রান করেন। তবে শেষদিকে সৈকত আলির ১১ বলে ঝড়ো ২৭ রানে লড়াকু স্কোর পায় চট্টগ্রাম। সৈকতের ইনিংসে ১টি চার ও ৩টি ছক্কা ছিলো। ২০ ওভারে ৭ উইকেটে ১৫১ রান করে চট্টগ্রাম। বরিশালের পেসার আবু জায়েদ ৪২ রানে ২টি উইকেট নেন। ১৫২ রানের জয়ের টার্গেটে ভালো শুরুর চেষ্টা করেছিলেন বরিশালের দুই ওপেনার মেহেদি হাসান মিরাজ ও অধিনায়ক তামিম ইকবাল। ১টি করে চার ও ছক্কায় মিরাজ ১৩ রানে থামলেও, আগের ম্যাচের মতো নিজের ইনিংসকে টেনে নিয়েই যাচ্ছিলেন তামিম। তবে ১টি চার ও ২টি ছক্কায় ৩২ বলে ৩২ রান করা তামিমকে থামান মোসাদ্দেক হোসাইন। আগের ম্যাচে অবশ্য ৭৭ রানে অপরাজিত ছিলেন তামিম। দলও জয় পায় তার। দলীয় ৬৭ রানে তামিমের বিদায়ের পর মিডল-অর্ডারে দলের হাল ধরতে পারেননি বরিশালের অন্য ব্যাটসম্যানরা। পারভেজ হোসেন ইমন ১১, আফিফ হোসেন ২৪, তৌহিদ হৃদয় ১৭ ও ইরফান শুক্কুর ২ রান করে আউট হন। শেষদিকে সুমন খানের ৮ বলে অপরাজিত ১২ রানেও হার এড়াতে পারেনি বরিশাল। শেষ ওভারে ১৯ রানের প্রয়োজনে ১টি ছক্কায় ৮ রান নিতে পারেন সুমন। ফলে ২০ ওভারে বরিশাল করে ৮ উইকেটে ১৪১ রানেই থেমে যায় তামিমদের ইনিংস। চট্টগ্রামের শরিফুল ২৭ রানে ও মুস্তাফিজুর ২৩ রানে ৩টি করে উইকেট নেন। তবে ম্যাচ সেরা হয়েছেন তরুণ শরিফুলই।