মঙ্গলবার, আগস্ট ৪, ২০২০
প্রকাশ : 2020-06-29

রাইফা খুনের বিচার না হওয়ায় স্বাস্থ্য সেবা খাতের লুটেরারা মরিয়া: রিয়াজ হায়দার চৌধুরী

২৯জুন,সোমবার,শারমিন আকতার,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: সাংবাদিক কন্যা রাইফা খুনের মামলা তদন্তের ধীর গতিতে বিস্ময় প্রকাশ করে মামলাটি তদন্তে বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠনের দাবি জানিয়েছেন বাংলাদেশের সাংবাদিকদের সর্বোচ্চ জাতীয় সংগঠন বিএফইউজে-বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সহসভাপতি ও চট্টগ্রাম নাগরিক উদ্যোগের আহ্বায়ক রিয়াজ হায়দার চৌধুরী। তিনি বেসরকারি পর্যায়ে চিকিৎসা সেবা খাতকে স্বচ্ছতার আওতায় আনার দাবি জানিয়ে বলেন, রাইফার মৃত্যু তদন্ত করে অভিযুক্ত প্রমাণের দীর্ঘসূত্রিতার কারনেই বেসরকারিখাতে স্বাস্থ্য সেবা প্রক্রিয়ায় লুটেরা শ্রেণী মরিয়া হয়ে উঠেছে। রাইফা খুনের সঠিক তদন্ত ও বিচার হলে এই চলতি করোনা সময়ে ক্লিনিকে-হাসপাতালগুলোতে মানুষের এমন হাহাকার হতো না। এই পেশাজীবী নেতা মানবিক সংগঠন মুসাফির এর উদ্যেগে সাংবাদিক কন্যা রাফিদা খান রাইফার ২য় মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে মিলাদ-মাহফিল, দোয়া ও এতিম, অসহায় শিশুকিশোর এবং ভাসমান মানুষদের মাঝে রান্না করা খাবার বিতরণ অনুষ্ঠানে এসব কথা জানান। সংগঠনটির উদ্যোগে আজ ২৯ জুন (সোমবার) দুপুর ১টায় নগরির আমানত শাহ (রা.) মাজার সংলগ্ন তনজিমুল মোছলেমিন এতিম খানায় আহ্বায়ক ও চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের নিবার্হী সদস্য মুহাম্মদ মহরম হোসাইন এর সভাপতিত্বে দোয়া ও মিলাদ মাহফিলটি অনুষ্ঠিত হয়। এতে উপস্হিত ছিলেন বিএফইউজে-বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সহসভাপতি রিয়াজ হায়দার চৌধুরী, যুগ্ম মহাসচিব মহসীন কাজী, নির্বাহী সদস্য ও রাইফার পিতা রুবেল খান, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সাবেক অর্থ সম্পাদক তাপস বড়ুয়া রুমু, এতিম খানাটির তত্বাবধায়ক হাফেজ আমান উল্লাহ, চকবাজার থানা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মুহাম্মদ নাজিম উদ্দীন, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা জিয়া আবেদীন আহসান, মহানগর যুবলীগ নেতা হুমায়ুন কবির মাসুদ, মুসাফিরের যুগ্মআহ্বায়ক ও মইনুল হাদী গাউছে মাইজভান্ডারি কেন্দ্রীয় কমিটির সমন্বয়কারী কামরুল ইসলাম রাশেদ মাইজভান্ডারি, টিভি ক্যামরা জানালিস্ট এসোসিয়েশনের নিবার্হী সদস্য অমিত দাশ, আনসার কমান্ডার (অব.) মো. হারুন, মো লিটন প্রমুখ। মিলাদ-মাহফিল পুর্ব আলোচনা সভায় পেশাজীবী নেতা রিয়াজ হায়দার চৌধুরী মামলাটির তদন্তে ধীরগতিতে বিস্ময় প্রকাশ করে দায়িত্বশীলদের এ ব্যাপারে সচেতনতা তাগাদা দেন। একই সাথে তিনি মামলাটির বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবি পুনর্ব্যক্ত করেন। রাইফার মৃত্যুর পরিপ্রেক্ষিত ও মামলা তদন্ত প্রক্রিয়া নিয়ে বক্তব্য তুলে ধরেন তার পিতা বিএফইউজে নির্বাহী সদস্য রুবেল খান। বক্তারা বলেন, রাইফা হত্যার দুই বছর অতিবাহিত হতে চললো কিন্তু মামলার কোন আগ্রগতি দেখা যাচ্ছে না। দ্রুত বিচার কাজ শেষ করে দোষীদের সাজা প্রদানের জন্য সরকারের নিকট জোরালো দাবী জানান বক্তারা। মিলাদ শেষে রাইফার আত্মার মাগফেরাত কামনা করে মোনাজাত করেন হাফেজ আমান উল্লাহ। পরে এতিম অসহায় শিশু-কিশোরদের সঙ্গে একসাথে দুপুরের খাবার খান সংগঠনের উপস্হিত নেতৃবৃন্দ। এতিম শিশুকিশোর ছাড়াও মাজারে উপস্হিত দেড়শতাধিক ভাসমান মানুষদের মাঝেও খাবার বিতরণ করা হয়।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর