সোমবার, জুলাই ১৩, ২০২০
প্রকাশ : 2020-05-29

যাত্রী পরিবহণে শৃঙ্খলা ফিরাতে অভিযান অব্যাহত রেখেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত

২৯মে,শুক্রবার,কমল চক্রবর্তী,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনার সংক্রমণ প্রতিরোধে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে সচেতনতা বৃদ্ধি ও বাজার মনিটরিং এর লক্ষ্যে জেলা প্রশাসন নিয়মিত ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করছে। এদিকে লক ডাউন কিছুটা শিথিল হলে রাস্তায় পরিবহনের সংখ্যা ক্রমেই বাড়াতে থাকে। তাছাড়া সরকারি নির্দেশনা অমান্যকরে ও স্বাস্থ্যবিধি না মেনে যাত্রী পরিবহণ করছে ভাড়ায়চালিত মাইক্রো, মোটরসাইকেল ও সিএনজি চালকরা । তাই যাত্রী পরিবহনে শৃঙ্খলা ফিরাতে অভিযান অব্যাহত রেখেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। এর প্রেক্ষিতে আজ নগরীর বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়েছে জেলা প্রশাসনের ম্যাজিস্ট্রেটগণ। আজ শুক্রুবার ২৯ মে সকাল ১০ টা থেকে বেলা ৩ টা পর্যন্ত জেলা প্রশাসনের তিনটি টিম ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে। এসময় ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনায় নেতৃত্ব দেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট গালিব চৌধুরী, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সুরাইয়া ইয়াসমিন এবং নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ জিল্লুর রহমান। নগরীর বাকলিয়া, সদরঘাট, কোতোয়ালী, ডবলমুরিং ও হালিশহর থানাধীন বিভিন্ন জায়গায় করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধের উদ্দেশ্যে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান পরিচালনায় নেতৃত্ব দেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট গালিব চৌধুরী। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট গালিব চৌধুরী জানান, অভিযান চলাকালে বাকলিয়া থানাধীন কর্ণফুলী নতুন ব্রিজে ১০ জন যাত্রীসহ ভাড়ায় চালিত একটি মাইক্রোবাসকে আটক করে স্বাস্থ্যবিধি না মানায় চালককে ২৫০০ টাকা অর্থদণ্ড প্রদান করা হয়। একই স্থানে একজন সিএনজি চালককে ৫০০ টাকা এবং কোতোয়ালী থানাধীন ফিরিঙ্গিবাজার এলাকায় ৩ জন মোটরসাইকেল আরোহীকে শারীরিক দূরত্ব না মানায় ১৫০০ টাকা অর্থদণ্ড প্রদান করা হয়। এছাড়া সবাইকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য সতর্ক করা হয়। এদিকে আকবর শাহ, পাহাড়তলী, বন্দর, ইপিজেড, পতেঙ্গা এলাকায় দায়িত্বরত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সুরাইয়া ইয়াসমিন জানান, আজকের অভিযানে দেখা গেছে অন্যদিনের তুলনায় লোক সমাগম তুলনামূলক কম ছিল । তবে মাইক্রোবাস ও মোটর সাইকেলে করে শারীরিক দূরত্ব বজায় না রেখে যাত্রী পরিবহন করছিল। তাই অভিযান পরিচালনাকালে সিটি গেট এলাকায় স্বাস্থবিধি না মেনে অতিরিক্ত যাত্রী পরিবহন করায় ৭ টি মাইক্রোবাসের চালককে ১১,০০০ টাকা এবং একজন মোটর সাইকেল আরোহীকে ৫০০ টাকা অর্থদণ্ড প্রদান করা হয়। অন্যদিকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ জিল্লুর রহমান মহানগরীর পাঁচলাইশ, খুলশী, বায়েজিদ, চান্দগাঁও , চকবাজার এলাকায় অভিযান পরিচালনা করেন। তিনি জানান, অভিযানে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা,মাস্ক ও গ্লাভস ব্যবহারের বিষয়ে সাধারণ জনগণ, দোকানদার ও ব্যবসায়ীদের সচেতন করা হয়। এছাড়া অতিরিক্ত দামে ফল বিক্রির অভিযোগে তিনটি ফলের দোকানকে ১০০০ টাকা করে মোট ৩০০০ টাকা অর্থদণ্ড প্রদান করা হয়। একই সাথে অন্যান্য ফল ব্যবসায়ীকে সঠিক মূল্যে ফল বিক্রি করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে জানান নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ জিল্লুর রহমান।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর