রবিবার, আগস্ট ১৮, ২০১৯
ফেসবুকের দীর্ঘ স্ট্যাটাসে যে দাবি জানালেন অভিনেত্রী মেহজাবীন চৌধুরী
নিজের ফেসবুকে দীর্ঘ স্ট্যাটাস লিখেছেন জনপ্রিয় অভিনেত্রী মেহজাবীন চৌধুরী। এই অভিনেত্রী লিখেছেন, সম্মানিত সকল পরিচালক ও সংশ্লিষ্ট সবার দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। আমরা যারা অভিনয় ও পরিচালনার সঙ্গে জড়িত তারা যেন সকাল ১০টা থেকে রাত ১০টা অবধি শুটিং করার যে নিয়মটা আছে সেটা মেইনটেইন করি। এছাড়া যদি আমাকে সকাল ৬টায় দরকার হয় তাহলে বিকাল ৬টার মধ্যে আমাকে ছেড়ে দিতে হবে। আপনারা নিশ্চয় জানেন, অনেক রাত পর্যন্ত কাজ করাটা মানসিক এবং শারীরিক দুইভাবেই হ্যাম্পার করে আমাদের। এবং পরের দিন যে শিডিউলটি আমি অলরেডি লক করেছি এবং নিজের শতভাগ দেওয়ার কথা দিয়েছি, সেটি আগের দিনের ‘লেট নাইট’-এর জন্য নানাভাবে হ্যাম্পার হয়। এতে করে আমার সাথে কাজ করা অন্য ডিরেক্টর, টিম বা কোআর্টিস্টও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে, কাজটি শতভাগ হচ্ছে না একই সঙ্গে, আমরা বেস্ট আউটপুট দিতে পারছি না। একজন শিল্পীর ঘুমের স্বল্পতা, বিশ্রামের ঘাটতি, অসুস্থতা সবই অন-স্ক্রিনে ধরা পড়ে। একই ব্যাপার ঘটে লাইট ক্রু প্রোডাকশন টিম, ডিরেক্টরের টিম সবার সাথেই। আমরা সবাই মানুষ এবং একটা মানসিক আর শারীরিক বিশ্রাম প্রয়োজন। মনে রাখবেন, পরের দিন নিজেদের সেরাটা দেওয়ার চেষ্টা আমাদের সবারই সমান থাকে, কিন্তু বিশ্রামের অভাবে সেই চেষ্টা ধীরে ধীরে কমে যায়। অভিনয় বা পরিচালনা সৃজনশীল কাজ। প্রচণ্ড সম্মান আর ভালোবাসার জায়গা থেকে, সবটুকু মন দিয়ে এটা করতে হয়। আমি আশা করবো সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় প্রত্যেক দিনের কাজগুলো, অভিজ্ঞতাগুলো আরো বেশি সুন্দর হবে। সবার জন্য শুভকামনা।
সম্মান এবং শ্রদ্ধা জানিয়ে আইয়ুব বাচ্চুর প্রতি গাইবেন আসিফ
অনলাইন ডেস্ক: দেশীয় সংগীত জগতের জনপ্রিয় সংগীত শিল্পী আসিফ আকবর এবার গান গাইতে যাচ্ছেন সদ্য প্রয়াত দেশের ব্যান্ড সংগীতের কিংবদন্তি শিল্পী আইয়ুব বাচ্চুর প্রতি সম্মান এবং শ্রদ্ধা জানিয়ে। আরেক জনপ্রিয় শিল্পী ও গীতিকার-সংগীত পরিচালক তরুণ মুন্সীর কথা-সুর ও সংগীতে এই গানটিতে আইয়ুব বাচ্চু ও এল.আর.বি-র গাওয়া বেশকিছু জনপ্রিয় গানের শিরোনাম ব্যবহার করা হয়েছে। আর এই গানটি প্রকাশিত হবে দেশের অন্যতম আলোচিত প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ধ্রুব মিউজিক স্টেশন এর ব্যানারে। এ প্রসঙ্গে আসিফ আকবর বললেন,বাচ্চু ভাই একজন কিংবদন্তি ছিলেন,আছেন এবং থাকবেন। আমি এই গানটি গাইতে যাচ্ছি তাঁর প্রতি সম্মান,শ্রদ্ধা আর ভালবাসা জানিয়ে। আমরা সংগীত জগতে তাঁর পরবর্তী প্রজন্ম যারা আমরা তাঁর গান আমাদের পরবর্তী,তার পরবর্তী অর্থাৎ প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম যেন বেঁচে থাকে সবসময় সেই চেষ্টা করে যাবো সবসময়। আর এই গানটির কথায় বাচ্চু ভাই ও এল.আর.বির গাওয়া বেশকিছু জনপ্রিয় গানের শিরোনাম ব্যবহার করা হয়েছে। যে গানগুলোর শিরোনাম ব্যবহার করা হয়েছে তা তাঁর স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা এবং ভালোবাসা জানিয়ে করা হয়েছে। গানটির গীতিকার-সুরকার-সংগীত পরিচালক তরুণ মুন্সী বললেন, আমাদের প্রজন্মের বেড়ে উঠা,ব্যান্ড সংগীতের প্রতি ভালোবাসার জন্মটা তাঁকে দেখে দেখেই,তাঁর গান শুনে শুনেই। ব্যক্তিগতভাবে প্রায় ২০/২১ সম্পর্কে উনার প্রতি আমার ভালোবাসা বা সম্মানের-শ্রদ্ধার জায়গাটা কখনোই কমেনি। আমার সেই ভালোবাসা-শ্রদ্ধা-সম্মানের জায়গাটা থেকেই গানটি আমি লিখেছি তারই গাওয়া বেশকিছু জনপ্রিয় গানের শিরোনাম ব্যবহার করে। এটা একান্তভাবেই তাঁর মতো একজন কিংবদন্তিকে আমাদের সম্মান দেখানোর একটি প্রচেষ্টা। জানা গেছে,খুব শীগ্রই এই গানটির কাজ সম্পন্ন করে তা প্রকাশ করা হবে।
ট্রেলারেই বাজিমাত করল -২.০
অনলাইন ডেস্ক: মুক্তি পেলো সুপারস্টার রজনীকান্ত ও অক্ষয় কুমারের বহু প্রতীক্ষিত ছবি ২.০-র ট্রেলার। শনিবার আলোচিত এই ছবির ট্রেলার মুক্তি পেয়েছে। অ্যাকশন-প্রযুক্তি ও গ্রাফিক্সের মিশেলে প্রকাশের প্রথম দিনেই রীতিমতো হিট ২.০-র ট্রেলার। মোবাইল এখন সত্যিই মানুষকে প্রযুক্তির দাসে পরিণত করছে। যত দিন যাচ্ছে তত বাড়ছে প্রযুক্তির উপরে মানুষের নির্ভরশীলতা। কিন্তু হঠাৎ যদি আপনার হাতের ফোনটি চোখের সামনে হারিয়ে যায়। কী হবে ভাবতে পারছেন? বহু প্রতীক্ষিত ছবি ২.০-র ট্রেলারে এমনই ঘটনা তলে ধরলেন পরিচালক এস শংকর। রজনীকান্তের আগের ছবি ভিলেনের সিক্যুয়েল হল ২.০। এখানেও দেখা মিলবে রোবট রজনীকান্তের। বৈজ্ঞানিক পরীক্ষা করতে গিয়ে বিপত্তি ঘটান রিচার্ড। আর এই বিপত্তি সামাল দিতেই ফের ত্রাতার ভূমিকায় অবতীর্ণ হন 'চিট্টি'। কেমন ভাবে চলবে চিট্টির এই উদ্ধার কার্য? তারই কিছু ঝলক তুলে ধরা হয়েছে ট্রেলারে। বাকিটার জন্য অপেক্ষা করতে হবে ছবি মুক্তি পর্যন্ত। সিনেমার ভিলেন বা খলনায়ক হল একটি পাখি। মোবাইল ব্যবহারের ফলে মানুষ পক্ষীসমাজের যে চরম ক্ষতি করছে তারই প্রতিশোধ নিতে এই ভিলেন পাখির আবির্ভাব হয়। মানুষের ফোনেই তার শক্তির উৎস। ফোনের ব্যবহারের চরম বিরোধী সে। এই খলনায়ক পাখিরই মোকাবিলা করতে দেখা যাবে সুপারস্টার রজনীকে। ছবিতে প্রযুক্তির সঙ্গে গ্রাফিক্স ও ভিএফএক্সের ব্যাপক ব্যবহার হয়েছে। এখনও ভারতের সবচেয়ে বিগ বাজেটের সিনেমা বলে ২.০-কে উল্লেখ করছেন সিনেমা বিশেষজ্ঞরা। ছবি তৈরিতে খরচ হয়েছে প্রায় ৫০০ কোটি টাকা। ছবিতে নায়িকার ভূমিকায় রয়েছেন অ্যামি জ্যাকশন। ছবির সংগীত পরিচালনা করেছেন এ আর রহমান। ২৯ নভেম্বর মুক্তি পাচ্ছে ছবিটি।
শাহরুখ খানের জন্মদিনেই মুক্তি পেল জিরো ছবির ট্রেলার
অনলাইন ডেস্ক: শাহরুখ খানের জন্মদিন মুক্তি পেল জিরো ছবির ট্রেলার। ২ নভেম্বর ৫৩ বছরে পা রেখেছেন তিনি। কিং খানের জন্মদিনেই মুক্তি পাওয়ার কথা ছিল- জিরো ট্রেলারের ৷ এদিন সকাল থেকেই ছবির ট্রেলার দেখার জন্য অধীর আগ্রহে বসে ছিলেন শাহরুখের ফ্যানেরা ৷ অপেক্ষার অবসান ঘটলো৷ ইন্টারনেটে ট্রেলার মুক্তি পেতেই হল ভাইরাল ৷ বামন অবতারে শাহরুখে দুর্দান্ত অভিনয়ের ঝলক উঠে হল ট্রেলারেই ৷ অন্যদিকে আনুষ্কা ও ক্যাটরিনা ট্রেলারের অল্প পরিসরেই জানিয়ে দিলেন, গোটা ছবিতে তিনজনে মিলে একেবারে ধামাকা করতে চলেছেন ৷ ছবিটি পরিচালনা করেছেন আনন্দ এল রায়৷ প্রযোজক শাহরুখ স্ত্রী গৌরী খান৷ ২১ ডিসেম্বর সারা বিশ্বে মুক্তি পেতে চলেছে শাহরুখের জিরো ! বার্থ ডে বয় যদিও সকাল থেকে খুব একটা টেনশনে ছিলেন না। জন্মদিন পালন করেছেন ফুরফুরে মেজাজে। সকালেই কেক কেটে স্ত্রী গৌরীকে এক টুকরো কেক খাইয়েছেন বাদশা। এমন একটি ছবিও পোস্ট করেছেন করন জোহর। আমির প্রিয় শাহকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। শাহরুখ ও ক্যাটরিনার প্রথম পোস্টারটি রোমান্টিক হলেও দ্বিতীয় পোস্টারে খোশমেজাজে কিং খান-আনুষ্কা। নিজেই ছবির পোস্টার টুইট করেছিলেন শাহরুখ খান। পোস্টারগুলো দেখেই খানিকটা আঁচ করা গিয়েছিল ছবির ভাই বস। এবার ট্রেলার সামনে আসতেই তা ভাইরাল হল। একেই বলে জন্মদিনে কর্মসিদ্ধ। তবে শাহরুখ ভক্তরা বলছেন, এবার বড়দিন পালন করবেন দিন চারেক আগে। ওইদিন যে মুক্তি পাচ্ছে জিরো।
প্রিয়াঙ্কার বিয়ের দাওয়াত পাবেন না শাহরুখ!
অনলাইন ডেস্ক: প্রিয়াঙ্কা চোপড়া ও নিক জোনাসের বিয়ের সময় এরইমধ্যে নির্ধারিত হয়েছে। এখন চলছে বিয়ের প্রস্তুতি। পারিবারিক আত্মীয় ছাড়াও বলিউডের কারা বিয়েতে দাওয়াত পাবেন সেই তালিকাও তৈরি হচ্ছে। ভারতের এক গণমাধ্যম সংবাদ প্রকাশ করেছে যে, বিয়ের পিঁড়িতে বসে কোনোরকম অস্বস্তির মধ্যে পড়তে চান না প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। আর সেই কারণেই নাকি প্রাক্তন প্রেমিকদের সবাইকে বিয়ের নিমন্ত্রণপত্র থেকে ছেঁটে ফেলতে চাইছেন তিনি। আর সেই কারণেই প্রিয়াঙ্কার বিয়ের আমন্ত্রণপত্র থেকে বাদ পড়তে পারেন অক্ষয় কুমার, শহীদ কাপুররা। বাদ পড়তে পারেন শাহরুখ খানও। এ বিষয়ে এখনো স্পষ্ট করে কিছু জানা না গেলেও নিক-প্রিয়াঙ্কার বিয়েতে আমন্ত্রিতদের তালিকা নিয়ে নাকি এরইমধ্যে ঝাড়াই-বাছাই শুরু করে দিয়েছে চোপড়া পরিবার।শীর্ষ নিউজ
ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে পূর্ণিমা
অনলাইন ডেস্ক: ঢাকাই সিনেমার জনপ্রিয় নায়িকা পূর্ণিমা। ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে রাজধানীর একটি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন তিনি। বুধবার দিবাগত রাতে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন পূর্ণিমার স্বামী আহমেদ ফাহাদ জামাল। তিনি বলেন, কয়েকদিন ধরেই জ্বরে ভুগছিল পূর্ণিমা। চিকিৎসকের শরণাপন্ন হলে জানা যায় ডেঙ্গু ভাইরাসে আক্রান্ত সে। চিকিৎসকের পরামর্শে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। দুইদিন আইসিইউতেও ছিল। স্ত্রী পূর্ণিমার জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন ফাহাদ জামাল। বুধবার রাতে তিনি ফেসবুকে এক স্ট্যাটাসে আরও জানান, চিকিৎসকরা ভয়ের কিছু নেই বলে জানিয়েছেন। তবে দুই সপ্তাহ তাকে পূর্ণ বিশ্রামে থাকার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। ১৯৯৭ সালে মুক্তি পাওয়া এ জীবন তোমার আমার ছবি দিয়ে চলচ্চিত্রে আসেন পূর্ণিমা। এরপর তিনি কাজ করেছেন নিঃশ্বাসে তুমি বিশ্বাসে তুমি, যোদ্ধ, হৃদয়ের কথা, মনের মাঝে তুমি, আকাশ ছোঁয়া ভালোবাসা, শাস্তি, শোভা, মেঘের পর মেঘ সহ বহু ব্যবসাসফল ও প্রশংসিত সিনেমায়। কাজী হায়াৎ পরিচালিত ওরা আমাকে ভালো হতে দিল না ছবির জন্য ২০১০ সালে সেরা অভিনেত্রী হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেন গুণী এ অভিনেত্রী। বর্তমানে সিনেমার অভিনয় থেকে বিরতিতে রয়েছেন। তবে সরব রয়েছেন উপস্থাপনা ও ছোট পর্দার অভিনয়ে। ২০০৭ সালের ৪ নভেম্বর পারিবারিকভাবে আহমেদ ফাহাদ জামালের সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন ঢাকাই চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় তারকা অভিনেত্রী পূর্ণিমা। তাদের সুখের দাম্পত্য জীবন আলোয় ভরিয়ে রেখেছে একমাত্র কন্যা আরশিয়া উমাইজা।শীর্ষনিউজ
তবে কি বন্ধ হচ্ছে- সিআইডি?
অনলাইন ডেস্ক: সনি টিভির জনপ্রিয় গোয়েন্দাধর্মী সিরিজ সিআইডি চলছে গত ২১ বছর ধরে। দীর্ঘ সময়ে দেড় হাজার পর্বের ধারাবাহিকতায় তৈরী হয়েছে এর নিজস্ব দর্শক। তবে দর্শকদের জন্য খারাপ সংবাদ হলো আপাতত বন্ধ হচ্ছে এই টিভি সিরিয়াল। এমনই সংবাদ ভারতীয় সংবাদ সংস্থা আইএনএনএস-এর। ১৯৯৭ সাল থেকে শুরু হওয়া এই টিভি সিরিয়ালটি আগামী ২৭ অক্টোবর সনি টিভিতে শেষ পর্ব প্রচারিত করবে। তবে চিরকালের জন্য বন্ধ হচ্ছে না এই সিরিয়ালটি। প্রযোজকের ভাষ্যমতে তিনমাসের বিরতি দিয়ে পুনরায় নতুন চেহারায় আসবে সিআইডি। ভারতের বার্তা সংস্থা টাইমস অব ইন্ডিয়া সিআইডি-র জনপ্রিয় কয়েকটি সংলাপ নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। এগুলো হলো, দয়া, দরজা তোড় দো -আখির লাশ গ্যায়ে কাহা, দয়া, গুলি সিনে মে লাগি হ্যায় মতলব কিসি নে সামনে সে গুলি চালায়ি হ্যায়, কুছ তো গড়বড় হ্যায় দয়া, দয়া, পাতা লাগাও, কোই না কোই সুরাগ তো জরুর মিলেগা’ প্রভৃতি। দুই দশকেরও বেশি সময় ধরে একের পর এক খুনের রহস্য উন্মোচন করে দর্শকদের মন কেড়েছে সিআইডি। এতে মূল তিনটি চরিত্রে অভিনয় করেছেন শিবাজি সাতাম (এসিপি প্রদ্যুমান), আদিত্য শ্রীবাস্তব (সিনিয়র ইন্সপেক্টর অভিজিৎ) ও দয়ানন্দ শেঠি (সিনিয়র ইন্সপেক্টর দয়া)। আনুষ্ঠানিক ঘোষণায় ওপরের তথ্যগুলো জানিয়েছে সনি টিভি কর্তৃপক্ষ। ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে সিআইডি-র একটি সূত্রের দাবি, ‌সিআইডি বন্ধ হচ্ছে না। সৃজনশীল কারণে নির্মাতা ও চ্যানেল যৌথ সম্মতিতে স্বল্প সময়ের বিরতিতে যাচ্ছে। তাদের মনে হচ্ছে, অনুষ্ঠানটি ঢেলে সাজানো দরকার। এদিকে মুম্বাই মিররকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে অভিনেতা দয়ানন্দ শেঠি বলেন, আমরা শুটিং করছিলাম। হঠাৎ প্রযোজক (বিপি সিং) জানালেন, চ্যানেল থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য শুটিং বন্ধ রাখতে বলা হয়েছে। এটা আমাদের জন্য হতাশার খবর। সিআইডি বন্ধ হয়ে যাওয়ার খবরে টুইটারে ভক্তরা হতাশা প্রকাশ করছেন। তাদের মন্তব্য, এই সিরিজ কয়েক প্রজন্মের বেড়ে ওঠার অংশ। এভাবে বন্ধ না করার জন্য তারা চ্যানেলকে অনুরোধ করেছেন। সেভ সিআইডি ও ডোন্ট এন্ড সিআইডি হ্যাশট্যাগ জুড়ে দিচ্ছেন অনেকে।
মায়ের বামপাশেই আইয়ুব বাচ্চুর শেষ ঠিকানা
অনলাইন ডেস্ক: দেশবরেণ্য সঙ্গীতশিল্পী আইয়ুব বাচ্চু মায়ের কবরের পাশেই চট্টগ্রাম নগরীর বাইশ মহল্লা কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত হবেন। এ বিষয়ে কিংবদন্তি ব্যান্ড সঙ্গীতশিল্পী আইয়ুব বাচ্চুর ভগ্নিপতি ওমর উদ্দিন আনসারী জানিয়েছেন, শনিবার (২০ অক্টোবর) সকালে মরদেহ চট্টগ্রামে আনা হবে। এরপর আইয়ুব বাচ্চুর নানাবাড়ি মাদারবাড়িতে নিয়ে যাওয়া হবে। ওমর উদ্দিন আনসারী আরও জানান, পরে বাদ আসর চট্টগ্রামের জমিয়াতুল ফালাহ মসজিদ প্রাঙ্গণে একটি জানাজা হবে। তারপর মায়ের কবরের পাশে তাকে সমাহিত করা হবে। জানা যায়, গত ১৩ বছর ধরে বাইশ মহল্লা কবরস্থানে আইয়ুব বাচ্চুর মায়ের কবরটি দেখভাল করেন জাফর আহমদ। তিনি বলেন, আইয়ুব বাচ্চু ভাই যতবারই চট্টগ্রামে আসতেন, তিনি ততবারই মায়ের কবর জিয়ারত করতেন। এরপর আমার সঙ্গে কিছুক্ষণ কথা বলে চলে যেতেন তিনি। জাফর আহমদ আরও বলেন, তার মায়ের কবরের বামপাশে জায়গাটি নির্বাচন করেছে বাচ্চুর মামারা। শনিবার (২০ অক্টোবর) জানাজা শেষে আইয়ুব বাচ্চুকে এখানেই দাফন করা হবে বলে জেনেছি। বৃহস্পতিবার (১৮ অক্টোবর) সকাল ১০টার দিকে হৃদযন্ত্রে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন এই কিংবদন্তী সঙ্গীতশিল্পী। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৫৬ বছর। তার মৃত্যুতে দেশের সঙ্গীত অঙ্গনে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।
রুপালি গিটার- ছেড়ে চলে গেলেন আইয়ুব বাচ্চু
অনলাইন ডেস্ক: কিংবদন্তী ব্যান্ড সঙ্গীতশিল্পী আইয়ুব বাচ্চু আর নেই। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজেউন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬০ বছর। বৃহস্পতিবার সকালে নিজ বাসায় তাকে অচেতন অবস্থায় পাওয়া যায়। পরে স্কয়ার হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। স্কয়ার হাসপাতালের একটি সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। ওই সূত্র বলছে, সকাল ৯টা ৩০ মিনিটের দিকে আইয়ুব বাচ্চু শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তার মরদেহ এখনও সেখানেই আছে। তবে তার মৃত্যুর কারণ এখনও জানা যায়নি। আইয়ুব বাচ্চু একাধারে গায়ক, লিডগিটারিস্ট, গীতিকার, সুরকার, প্লেব্যাক শিল্পী। এল আর বি ব্যান্ড দলের লিড গিটারিস্ট এবং মেইন ভোকাল বাচ্চু বাংলাদেশের ব্যান্ড জগতের সবচেয়ে জনপ্রিয় ও সম্মানিত ব্যক্তিত্বদের অন্যতম। তিনি দশ বছর সোলস ব্যান্ডের সঙ্গে লিড গিটারিস্ট হিসেবে যুক্ত ছিলেন। সঙ্গীতজগতে তার যাত্রা শুরু হয়েছিল ১৯৭৮ সালে ফিলিংস ব্যান্ডদলের মাধ্যমে। অত্যন্ত গুণী শিল্পী আইয়ুব বাচ্চু তাঁর ভক্ত-শ্রোতাদের কাছে এবি নামেও পরিচিত। তার ডাক নাম রবিন। মূলত রক ঘরানার কন্ঠের অধিকারী হলেও আধুনিক গান, ক্লাসিকাল সঙ্গীত এবং লোকগীতি দিয়েও শ্রোতাদের মুগ্ধ করেছেন। ১৯৬২ সালের ১৬ আগস্ট তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের (বর্তমান বাংলাদেশ) চট্টগ্রাম জেলায় তিনি জন্মগ্রহণ করেন। সদ্য প্রয়াত এ শিল্পীর কণ্ঠ দেয়া প্রথম গান হারানো বিকেলের গল্প। গানটির কথা লিখেছিলেন শহীদ মাহমুদ জঙ্গী। ১৯৮০ থেকে ১৯৯০ সালে তিনি সোলস ব্যান্ডের সাথে যুক্ত ছিলেন। ১৯৮৬ সালে প্রকাশিত রক্তগোলাপ আইয়ুব বাচ্চুর প্রথম প্রকাশিত একক অ্যালবাম। এই অ্যালবামটি তেমন একটা সাফল্য পায়নি। আইয়ুব বাচ্চুর সফলতার শুরু তার দ্বিতীয় একক অ্যালবাম ময়না-র মাধ্যমে। ১৯৯১ সালে বাচ্চু এল আর বি ব্যান্ড গঠন করেন। এই ব্যান্ডের সঙ্গে তার প্রথম ব্যান্ড অ্যালবাম এল আর বি প্রকাশিত হয় ১৯৯২ সালে। এটি বাংলাদেশের প্রথম দ্বৈত অ্যালবাম। এই অ্যালবামের শেষ চিঠি কেমন এমন চিঠি ঘুম ভাঙ্গা শহরে হকার গানগুলো জনপ্রিয়তা লাভ করে। পরে ১৯৯৩ ও ১৯৯৪ সালে তার দ্বিতীয় ও তৃতীয় ব্যান্ড অ্যালবাম সুখ ও তবুও বের হয়। সুখ অ্যালবামের -সুখ, চলো বদলে যাই, রূপালি গিটার গতকাল রাতে উল্লেখযোগ্য গান। চলো বদলে যাই বাংলাদেশের সঙ্গীত জগতে অন্যতম জনপ্রিয় একটি গান। গানটির কথা লিখেছেন ও সুর করেছেন বাচ্চু নিজেই। ১৯৯৫ সালে তিনি বের করেন তৃতীয় একক অ্যালবাম কষ্ট। সর্বকালের সেরা একক অ্যালবামের একটি বলে অবিহিত করা হয় এটিকে। এই অ্যালবামের প্রায় সবগুলো গানই জনপ্রিয়তা পায়। বিশেষ করে কষ্ট কাকে বলে, কষ্ট পেতে ভালোবাসি, অবাক হৃদয়, ও আমিও মানুষ। একই বছর তার চতুর্থ অ্যালবাম ঘুমন্ত শহরে প্রকাশিত হয়। তিনি অনেক চলচ্চিত্রেও প্লেব্যাক করেছেন। অনন্ত প্রেম তুমি দাও আমাকে বাংলা ছবির অন্যতম একটি জনপ্রিয় গান। এটি তাঁর গাওয়া প্রথম চলচ্চিত্রের গান। ২০০৯ সালে তার একক অ্যালবাম বলিনি কখনো প্রকাশিত হয়। ২০১১ সালে এল আর বি ব্যান্ড থেকে বের করেন ব্যান্ড অ্যালবাম -যুদ্ধ। এই অ্যালবামে ১০টি গান রয়েছে। ছয় বছর পর তার পরবর্তী একক অ্যালবাম জীবনের গল্প বাজারে আসে। এতেও ১০টি গান রয়েছে। গানের কথা লিখেছেন সাজ্জাদ হোসাইন এবং সুর ও সঙ্গীত পরিচালনা করেছেন আইয়ুব বাচ্চু নিজে। গিটারে তিনি সারা ভারতীয় উপমহাদেশে বিখ্যাত। জিমি হেন্ড্রিক্স এবং জো স্যাট্রিয়ানীর বাজনায় তিনি দারুনভাবে অণুপ্রাণিত। আইয়ুব বাচ্চুর নিজের একটি স্টুডিও আছে। ঢাকার মগবাজারে অবস্থিত এই মিউজিক স্টুডিওটির নাম এবি কিচেন। তিনি ২০১০ সালে ঈদের জন্য নির্মিত ট্রাফিক সিগন্যাল ও হলুদ বাতি শিরোনামের নাটকে অভিনয় করেন। এর আগে ২০১২ সালের ২৭ নভেম্বর আইয়ুব বাচ্চু ফুসফুসে পানি জমার কারণে ঢাকার স্কয়ার হাসপাতালে করোনারি কেয়ার ইউনিটে (সিসিইউ) ভর্তি হয়েছিলেন। সেখানে চিকিৎসা গ্রহণের পর তিনি সুস্থ হন।