সোমবার, জানুয়ারী ২৭, ২০২০
হিরো আলম এমপি হতে চাইলে সবার মাথা ব্যাথা বেড়ে যায় !
অনলাইন ডেস্ক: অন্য সেলিব্রেটিরা এমপি হতে চাইলে কারও মাথা ব্যাথা হয় না, কিন্ত হিরো আলম এমপি হতে চাইলে সবার মাথা ব্যাথা বেড়ে যায়। অনেকেই আমাকে বিভিন্ন কথা বলবে। তাদের কথা শুনলে আমি এমপিও হতে পারব না মন্ত্রীও হতে পারব না। ফেসবুক লাইভে এমনটাই ক্ষোভ প্রকাশ করেন হিরো আলম বলেন, স্বপ্ন দেখা সহজ বাস্তব করা কঠিন। তিনি বলেন, আমি একদিক দিয়ে দুর্বল সেটা হলো আমার চেহারা। আমি দেখতে খারাপ। বড় বড় সেলিব্রেটিরা চেহারা সুন্দর বলেই কি তারা এই জায়গায় আসতে পারবে আমার চেহারা সুন্দর না বলে কি আমি এমপি মন্ত্রী পদে আসতে পারবনা। আমাদের মিডিয়ায় কেউ সিলিব্রেটি হলে, তাকে নিয়ে কথা হবেই। আমি হিরো এটা আমার একটা পরিচয়, আবার রাজনীতি আমার আরেকটা পরিচয়। কেউ এটা নেগেটিভলি নেবে আবার কেউ পজেটিভলি নেবে সেটা তাদের ব্যাপার। আবার অনেকে বলে হিরো আলম ঠিকমত কথা বলতে পারেনা সে কেন এমপি হবে। আমি তাদের বলতে চাই আপনারা যেভাবে সুযোগ সুবিধা পেয়েছেন হিরো আলম সেইভাবে সুযোগ সুবিধা পেলে আজ আপনাদের মত ভাল প্রতিষ্ঠানে লেখাপড়া করত। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আলোচিত হিরো আলম জাতীয় পার্টি থেকে মনোনয়ন ফরম কিনেছেন তিনি। মনোনয়নপত্র কিনে আবারো ব্যাপকভাবে আলোচনায়ে এসেছেন কেবল ব্যবসায়ী থেকে উঠে এসে বলিউড অভিনেতা বনে যাওয়া আশরাফুল হোসেন আলম ওরফে হিরো আলম। এর আগে গতকাল সোমবার তিনি বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম) আসনে সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পাটির লাঙল মার্কায় নির্বাচন করার জন্য মনোনয়নপত্র কেনেন। জানা গেছে, মঙ্গলবার দলের কেন্দ্রীয় কমিটির কাছে সেই মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন তিনি।
কঙ্কনি রীতি মেনে বিয়ে করলেন রণবীর-দীপিকা
অনলাইন ডেস্ক: ইতালির লেক কোমোয় গতকাল বুধবার কঙ্কনি রীতি মেনে বিয়ে করলেন দীপিকা পাড়ুকোন এবং রণবীর সিং। ক্যামেরার ঝলকানি রুখতে আঁটোসাঁটো নিরাপত্তা ব্যবস্থার আয়োজন করেছিলেন পাত্র-পাত্রী। তবে ফটো সাংবাদিকদের নজর এড়ায় কে? শেষমেশ সামনে এল বেশ কিছু ছবি। তাতে ফুটে উঠেছে দীপিকা-রণবীরের বিয়ের কিছু মুহূর্ত। বিয়ের মূল অনুষ্ঠানের দিকে এগিয়ে চলেছেন অতিথিরা। কড়া নিরাপত্তার মোড়কে বিয়ের অনুষ্ঠানটি সারতে স্থানীয় ইতালীয় নিরাপত্তা সংস্থাকেই বেছে নিয়েছেন দীপিকা-রণবীরের পরিবার। তবে অতিথিদের মোবাইল ফোনের ক্যামেরা স্টিকার দিয়ে আটকে দেওয়া হয়েছে, যাতে কেউ গোপনে ছবি তুলতে না পারেন। বলিউড ফোটোগ্রাফার ভাইরাল ভয়ানি একটি ছবি শেয়ার করেছেন তাঁর ইনস্টাগ্রাম প্রোফাইলে। যে ছবিতে বোট থেকে নেমেই বিয়ের আসরের দিকে হেঁটে যাচ্ছেন দীপিকার মা উজালা পাড়ুকোন এবং বোন অনিশা পাড়ুকোন। শাল মুড়ি দিয়ে বিয়ের আসরে হেঁটে-চলে বেড়াচ্ছেন কন্যার বাবা প্রকাশ পাড়ুকোন। পাত্র রণবীর সিংয়ের দিদি ঋতিকা ভবনানিকেও দেখা গিয়েছে খোশমেজাজে মূল অনুষ্ঠানের দিকে এগিয়ে যেতে। গোটা পাত্রপক্ষ বিয়ের অনুষ্ঠানের জন্য অপেক্ষায় রয়েছেন ইতালির লেক কোমোয় ভিলা দেল বালবিয়ানেলোতে। পাত্র রণবীরও রয়েছেন এ ছবিতে। রয়েছেন রণবীরের বাবা জগজিৎ সিং ভবনানিও। বিয়ের পর খোশমেজাজে নবদম্পতি। বিয়ের ঠিক পরেই দীপিকা এবং রণবীরের এই ছবিটিই সামনে এসেছে। পাত্র রণবীরের পরনে সোনার কাজ করা শেরওয়ানি। তবে পাত্রী দীপিকার একটিও ছবি এখনও পর্যন্ত চোখে পড়েনি।
জিতবে কে? ঢাকা না কলকাতা?
অনলাইন ডেস্ক :মঞ্চ একটি। ৩০ জন তারকা। দুই বাংলার দুই বিচারক। দুই উপস্থাপক। প্রতিযোগিতা শুরু হলো। জিতবে কে? ঢাকা না কলকাতা? এমনি প্রশ্ন রেখে নাগরিক টিভিতে গত মাস থেকে শুরু হয় বাজলো ঝুমুর তারার নূপুর নামের প্রতিযোগিতা মুলক তারকাদের লড়াই এর অনুষ্ঠান। এই লড়াইয়ে সামিল হয়েছে দর্শকরার। দর্শকদের মধ্যে সাড়া জাগিয়েছে নাগরিক টিভির রিয়েলিটি শো বাজলো ঝুমুর তারার নূপুর। এটি টেলিভিশন ভিওয়ার্স রিপোর্টে (টিআরপির টিভিআর) শীর্ষে অবস্থান করছে বলে জানিয়েছে চ্যানেলটি। চ্যানেলটির তথ্যমতে, গত সপ্তাহের (৪৪তম সপ্তাহ) রিপোর্টে দেখা যায়, নাচের অনুষ্ঠানগুলোর মধ্যে মোট টিভিআর ০.১৮৩১ নিয়ে শীর্ষস্থান দখল করে আছে এ অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানের এমন সাফল্যে চ্যানেলটির অনুষ্ঠান বিভাগের প্রধান কামরুজ্জামন বাবু বললেন, এ অনুষ্ঠানটি নতুন ধরনের একটি উদ্যোগ। প্রত্যাশা ছিলো দর্শক অনুষ্ঠানটি গ্রহণ করবেন। ভাল লাগছে সত্যি অনুষ্ঠানটি দর্শকপ্রিয়তা পেয়েছে দেখে। আবারো প্রমাণ হল যে, অনুষ্ঠান ভাল হলে তা দর্শক গ্রহণ করবেন। বাংলাদেশ এবং কলকাতার টেলিভিশন ও চলচ্চিত্রশিল্পীদের মধ্যে সেতুবন্ধন তৈরি করতে ও দুই বাংলার সংস্কৃতির ঐতিহ্যের ধারা দুই বাংলার টেলিভিশন দর্শকদের মাঝে তুলে ধরার জন্য বাজলো ঝুমুর তারার নূপুর প্রচার করছে নাগরিক টিভি। এর পৃষ্ঠপোষকতায় আছে ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড। পাওয়ার্ড বাই সোহানা ইলেকট্রনিক্স। এই আয়োজনে সহযোগিতায় আছে মমতাজ হারবাল লিমিটেড। বাজলো ঝুমুর তারার নূপুর-এর মূল প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশ এবং ভারত থেকে অংশগ্রহণ করেছেন ছয় জন করে মোট বারোজন তারকা। বাংলাদেশ থেকে যোগ দিয়েছেন টিভি অভিনেত্রী ইশানা, ভাবনা, জান্নাতুল ফেরদৌস পিয়া, স্পর্শিয়া, অমৃতা এবং সাফা কবির। আর কলকাতা থেকে রিমঝিম, সোহিনী, এনা সাহা, লাভলী, তিথি ও প্রীতি। এই রিয়েলিটি শোয়ে আরও প্রতিযোগিতা করেছেন বাংলাদেশ থেকে চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি, টিভি অভিনেত্রী সাদিয়া জাহান প্রভা এবং জাকিয়া বারী মম। আর কলকাতা থেকে অংশ নিয়েছেন জি বাংলার রাশি সিরিয়ালের রাশি চরিত্রের অভিনেত্রী গিতশ্রী, চিত্রনায়কা পায়েল এবং ঋ। প্রতিটি পর্বে প্রধান বিচারক হিসেবে আছেন বাংলাদেশের ইলিয়াস কাঞ্চন এবং কলকাতার এক সময়ের সাড়া জাগানো নায়িকা ও বর্তমান ভারতীয় লোকসভার সংসদ সদস্য শতাব্দী রায়। বিভিন্ন পর্বে বাংলাদেশ থেকে অতিথি বিচারক হিসেবে যুক্ত চিত্রনায়িকা মৌসুমী, চিত্রনায়ক ফেরদৗস, সংগীতশিল্পী আঁখি আলমগীর, অভিনেতা তৌকীর আহমেদ এবং সজল। অপরদিকে কলকাতা থেকে সংগীতশিল্পী জোজো, অনিন্ধ, শ্রীলেখা মিত্র এবং নৃত্যবিশারদ তনুশ্রী শংকর। বাজলো ঝুমুর তারার নূপুর-এর প্রতিটি পর্ব যৌথভাবে উপস্থাপনা করেছেন কলকাতার সৌরভ এবং বাংলাদেশের মাসুমা রহমান নাবিলা। অনুষ্ঠানটি সপ্তাহের প্রতি সোম, মঙ্গল, বুধ, এবং বৃহস্পতিবার রাত ১০টায় প্রচার হচ্ছে নাগরিক টিভিতে। জানা গেছে, সামনের পর্বগুলোতে আরো বেশি চ্যালেঞ্জিং পারফরমেন্স দেখা যাবে শিল্পীদের।
রাজনীতির মাঠে তারকারা
অনলাইন ডেস্ক: শোবিজ জগৎ থেকে অনেকে রাজনীতিতে যোগ দিয়েছেন। এটা শুধু এদেশেই নয়, দেশের বাইরেও বিভিন্ন তারকারা রাজনীতির মাঠে এসেও বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছেন। দেশের জন্য কাজের সরাসরি সুযোগ পেয়েছেন তারা। দেশের আগামী জাতীয় নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন সেই তালিকায় রয়েছেন চিত্রনায়ক ফারুক, চিত্রনায়িকা কবরী, সঙ্গীতশিল্পী মমতাজ, অভিনেত্রী রোকেয়া প্রাচী, তারানা হালিম ও নায়ক শাকিল খান। গতকাল মনোনয়নপত্র কিনেছেন চিত্রনায়ক ফারুক। গাজীপুর-৫ আসন থেকে নৌকা প্রতীক নিয়ে এমপি নির্বাচন করতে চান চলচ্চিত্রের মিঞা ভাই নামে পরিচিত এই সিনিয়র তারকা। নির্বাচন প্রসঙ্গে ফারুক বলেন, আমি বিশ্বাস করি কালিগঞ্জ এলাকাবাসী আমাকে ভোট দেবেন। সেখানে আমাদের ৪শ বছরের বসতি। ভাওয়াল ছাড়া এত পুরোনো লোক নেই ওখানে। জনগণ আমাকে চাচ্ছে। নির্বাচনে আসাকে আমিও আমার একটা দায়িত্ব মনে করি। এছাড়া আবারো আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়নে লড়বেন অভিনেত্রী সারাহ বেগম কবরী। নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র কিনেছেন তিনি। মানিকগঞ্জ-২ আসনে আওয়ামীলীগের প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র কিনেছেন সঙ্গীতশিল্পী মমতাজ বেগম। এর আগে ২০১৪ সালের ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচন করেছেন। বর্তমানে তিনি একই আসন থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। ঢাকা-১৪ (মিরপুর) আসন থেকে আওয়ামীলীগের মনোনয়নপত্র কিনেছেন চলচ্চিত্র অভিনেতা মনোয়ার হোসেন ডিপজল। ২০১৮ সালে তথ্য প্রতিমন্ত্রী হিসেবে নিযুক্ত হন অভিনেত্রী তারানা হালিম। এবার আসন্ন সংসদ নির্বাচনের জন্য আওয়ামীলীগের মনোনয়নপত্র কিনেছেন তারানা হালিম। তিনি টাঙ্গাইল-৬ আসন থেকে নির্বাচন করবেন। অভিনেত্রী রোকেয়া প্রাচী ফেনী-৩ আসন থেকে আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। এছাড়াও বাগেরহাট-৩ আসন থেকে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে লড়তে আওয়ামীলীগের মনোনয়নপত্র কিনেছেন চিত্রনায়ক শাকিল খান। এ প্রসঙ্গে শাকিল বলেন, এটি আমার জন্য অনেক সম্মানের বিষয়। কাজের মাধ্যমে এই সম্মান ধরে রাখার চেষ্টা করবো।
আগামী ১৪ ও ১৫ নভেম্বর বিয়েতে কি পরবেন দীপিকা?
অনলাইন ডেস্ক: আগামী ১৪ ও ১৫ নভেম্বর বিয়ের পিঁড়িতে বসছেন দীপিকা। রণবীরের সঙ্গে তার বিয়ে হতে যাচ্ছে। শনিবারই ইতালির উদ্দেশ্যে রওনা দেন দীপবীর। যাওয়ার আগে মুম্বাই বিমানবন্দরে ফটো সাংবাদিকদের সামনে পোজ দিয়ে ছবি তুলেছেন দুই তারকা। ইতিমধ্যেই বিয়েতে দীপিকা কী পরবেন তা ফাঁস হয়েছে। জানা যাচ্ছে ১৪ নভেম্বর কন্নড় রীতিতে বিয়ে হবে দীপিকা-রণবীরের। ওই দিন দীপিকার সোনালী ও কমলা রঙের ছোয়া। সাজের জন্য ব্যবহার করা হবে গাঁদা ফুল। আর দীপিকার পরনে থাকবে শাড়ি, যার আঁচল ছোট রাখা হবে কিংবা গুঁজে রাখা হবে। খবর জি নিউজের। অন্যদিকে ১৫ নভেম্বর সিন্ধি রীতিতে বিয়ের দিন দীপিকা নাকি লেহেঙ্গা পরবেন, যাতে থাকবে গোলাপী ও বেগুনি রঙ। গলায় থাকবে জড়োয়ার হার, মাথায় টিকলি ও নাকে নথ। পদ্মাবত ছবিতে জহর ব্রত পালনের দৃশ্যে দীপিকা যেভাবে সেজেছিলেন ওই দিন তার সাজ সেরকমই খানিকটা থাকবে। জানা যাচ্ছে, দীপিকা-রণবীরের বিয়ে উপলক্ষ্যে সিং ও পাড়ুকোন পরিবারের সদস্যরা ছাড়া বলিউডের মাত্র ৪ জন ব্যক্তিত্ব উপস্থিত থাকবেন। বিয়ের দিন দুই পরিবারের সদস্যরা সব্যসাচী মুখোপাধ্যায়ের ডিজাইন করা পোশাকেই সেজে উঠবেন।
সাংবাদিক হেনস্তায় শাকিবের বিরুদ্ধে তিন সমিতিতে অভিযোগ
অনলাইন ডেস্ক: এফডিসিতে শাহেনশাহ চলচ্চিত্রের শুটিং-এ দুই সাংবাদিককে হেনস্তা করার ঘটনায় শাকিব খানের বিরুদ্ধে তিন সমিতিতে অভিযোগ দেয়া হয়েছে। গত ৮ নভেম্বর, বৃহস্পতিবার বিকেলের দিকে চিত্রনায়ক শাকিব খানের সঙ্গে সিডাব সদস্যদের বিরোধ বাঁধে। তাদের ঝগড়া প্রায় হাতাহাতির পর্যায়ে চলে যায়। এ সময় পেশাগত দায়িত্বের কারণে সেই পরিস্থিতির ছবি ও ভিডিও ধারণ করতে গেলে ইউনিটের লোকজন সাংবাদিকদের বাধা দেন। এরপরে শাকিব খান নিজে এসে মিডিয়া ভূবনের সাংবাদিক জিয়া উদ্দীন আলম ও নিউজজি২৪.কমের বিনোদন প্রতিবেদক সুদীপ্ত সাইদ খানের উপর চড়াও হন। উপস্থিত আরো সাংবাদিকদেরকে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকেন তিনি। এ সময় তাদেরকে শারীরিক ভাবে লাঞ্ছিত ও আপমানিত করেন শাকিব খান। এক পর্যায়ে শাকিব খান তাদের মোবাইল জোরপূর্বক কেড়ে নিয়ে মোবাইল থেকে সেই ঘটনার ধারণকৃত ছবি ও ভিডিও ফুটেজসহ মোবাইলে থাকা অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ ফাইলও ডিলিট করে দেন। এ কাজে তাকে সহায়তা করেন পরিচালক শামীম আহমেদ রনি, প্রযোজক লিটন হাশমী ও সহকারি পরিচালক পূজনসহ আরও অনেকে। পেশাগত কাজ বাধা দেওয়ায় শুধু নয়, ঘটনা পরবর্তী সময়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে শাকিব খান নানা মিথ্যাচার করে ঘটনাটি অন্যদিকে প্রবাহিত করারও চেষ্টা করছেন। শাকিব খানের মতো একজন জনপ্রিয় তারকার এমন আচরণে হতবাক সাংবাদিকরা। তার এমন বাজে আচরণ কোনোভাবেই কাম্য নয় বলে জানান ভুক্তভোগীরা। এই হেনস্তা করার প্রতিবাদ জ্ঞাপন করে সুষ্ঠু বিচারের দাবিতে ভুক্তভোগী দুই সাংবাদিক চলচ্চিত্র অঙ্গনের তিন সংগঠনের কাছে নালিশ জানিয়েছেন। গতকাল দুপুরে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সাংবাদিক সমিতি (বাচসাস) এ লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন তারা। এ সময় বাচসাস সভাপতি আব্দুর রহমান জানিয়েছেন রোববার আমরা মিটিং ডেকে আমাদের করণীয় সম্পর্কে সিদ্ধান্ত নিবো। এদিকে শনিবার ভুক্তভোগী সাংবাদিকদের নিয়ে কয়েকজন সাংবাদিক নেতা বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খানের হাতে অভিযোগপত্র জমা দেন। জায়েদ খান সাংবাদিকদের আশ্বস্ত করে জানান, শিগগিরই তার সমিতি এ বিষয়ে করণীয় নির্ধারণ করবে। একই সময়ে বাংলাদেশ পরিচালক সমিতির সাধারণ সম্পাদক বদিউল আলম খোকনের কাছেও লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়। খোকন জানিয়েছেন, সমিতির সঙ্গে বসে করণীয় ঠিক করবেন। এ সময় সাংবাদিক তুষার আদিত্য, মইনুল হক রোজ, মাজহার বাবু, তুষার, নাজমুল আলম রানা,রাহাত সাইফুল, লিমন আহমেদ, কামরুল ইসলাম রিফাত, রাজন, এ এইচ মুরাদ, ফাতেমা কাউসার, সুশীল রায়, অরণ্য শোয়েব, মাসুম আওয়াল, আহমেদ জামান শিমুল, এ মিজানসহ আরও অনেকে উপস্থিত ছিলেন।
ফেসবুকের দীর্ঘ স্ট্যাটাসে যে দাবি জানালেন অভিনেত্রী মেহজাবীন চৌধুরী
নিজের ফেসবুকে দীর্ঘ স্ট্যাটাস লিখেছেন জনপ্রিয় অভিনেত্রী মেহজাবীন চৌধুরী। এই অভিনেত্রী লিখেছেন, সম্মানিত সকল পরিচালক ও সংশ্লিষ্ট সবার দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। আমরা যারা অভিনয় ও পরিচালনার সঙ্গে জড়িত তারা যেন সকাল ১০টা থেকে রাত ১০টা অবধি শুটিং করার যে নিয়মটা আছে সেটা মেইনটেইন করি। এছাড়া যদি আমাকে সকাল ৬টায় দরকার হয় তাহলে বিকাল ৬টার মধ্যে আমাকে ছেড়ে দিতে হবে। আপনারা নিশ্চয় জানেন, অনেক রাত পর্যন্ত কাজ করাটা মানসিক এবং শারীরিক দুইভাবেই হ্যাম্পার করে আমাদের। এবং পরের দিন যে শিডিউলটি আমি অলরেডি লক করেছি এবং নিজের শতভাগ দেওয়ার কথা দিয়েছি, সেটি আগের দিনের ‘লেট নাইট’-এর জন্য নানাভাবে হ্যাম্পার হয়। এতে করে আমার সাথে কাজ করা অন্য ডিরেক্টর, টিম বা কোআর্টিস্টও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে, কাজটি শতভাগ হচ্ছে না একই সঙ্গে, আমরা বেস্ট আউটপুট দিতে পারছি না। একজন শিল্পীর ঘুমের স্বল্পতা, বিশ্রামের ঘাটতি, অসুস্থতা সবই অন-স্ক্রিনে ধরা পড়ে। একই ব্যাপার ঘটে লাইট ক্রু প্রোডাকশন টিম, ডিরেক্টরের টিম সবার সাথেই। আমরা সবাই মানুষ এবং একটা মানসিক আর শারীরিক বিশ্রাম প্রয়োজন। মনে রাখবেন, পরের দিন নিজেদের সেরাটা দেওয়ার চেষ্টা আমাদের সবারই সমান থাকে, কিন্তু বিশ্রামের অভাবে সেই চেষ্টা ধীরে ধীরে কমে যায়। অভিনয় বা পরিচালনা সৃজনশীল কাজ। প্রচণ্ড সম্মান আর ভালোবাসার জায়গা থেকে, সবটুকু মন দিয়ে এটা করতে হয়। আমি আশা করবো সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় প্রত্যেক দিনের কাজগুলো, অভিজ্ঞতাগুলো আরো বেশি সুন্দর হবে। সবার জন্য শুভকামনা।
সম্মান এবং শ্রদ্ধা জানিয়ে আইয়ুব বাচ্চুর প্রতি গাইবেন আসিফ
অনলাইন ডেস্ক: দেশীয় সংগীত জগতের জনপ্রিয় সংগীত শিল্পী আসিফ আকবর এবার গান গাইতে যাচ্ছেন সদ্য প্রয়াত দেশের ব্যান্ড সংগীতের কিংবদন্তি শিল্পী আইয়ুব বাচ্চুর প্রতি সম্মান এবং শ্রদ্ধা জানিয়ে। আরেক জনপ্রিয় শিল্পী ও গীতিকার-সংগীত পরিচালক তরুণ মুন্সীর কথা-সুর ও সংগীতে এই গানটিতে আইয়ুব বাচ্চু ও এল.আর.বি-র গাওয়া বেশকিছু জনপ্রিয় গানের শিরোনাম ব্যবহার করা হয়েছে। আর এই গানটি প্রকাশিত হবে দেশের অন্যতম আলোচিত প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ধ্রুব মিউজিক স্টেশন এর ব্যানারে। এ প্রসঙ্গে আসিফ আকবর বললেন,বাচ্চু ভাই একজন কিংবদন্তি ছিলেন,আছেন এবং থাকবেন। আমি এই গানটি গাইতে যাচ্ছি তাঁর প্রতি সম্মান,শ্রদ্ধা আর ভালবাসা জানিয়ে। আমরা সংগীত জগতে তাঁর পরবর্তী প্রজন্ম যারা আমরা তাঁর গান আমাদের পরবর্তী,তার পরবর্তী অর্থাৎ প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম যেন বেঁচে থাকে সবসময় সেই চেষ্টা করে যাবো সবসময়। আর এই গানটির কথায় বাচ্চু ভাই ও এল.আর.বির গাওয়া বেশকিছু জনপ্রিয় গানের শিরোনাম ব্যবহার করা হয়েছে। যে গানগুলোর শিরোনাম ব্যবহার করা হয়েছে তা তাঁর স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা এবং ভালোবাসা জানিয়ে করা হয়েছে। গানটির গীতিকার-সুরকার-সংগীত পরিচালক তরুণ মুন্সী বললেন, আমাদের প্রজন্মের বেড়ে উঠা,ব্যান্ড সংগীতের প্রতি ভালোবাসার জন্মটা তাঁকে দেখে দেখেই,তাঁর গান শুনে শুনেই। ব্যক্তিগতভাবে প্রায় ২০/২১ সম্পর্কে উনার প্রতি আমার ভালোবাসা বা সম্মানের-শ্রদ্ধার জায়গাটা কখনোই কমেনি। আমার সেই ভালোবাসা-শ্রদ্ধা-সম্মানের জায়গাটা থেকেই গানটি আমি লিখেছি তারই গাওয়া বেশকিছু জনপ্রিয় গানের শিরোনাম ব্যবহার করে। এটা একান্তভাবেই তাঁর মতো একজন কিংবদন্তিকে আমাদের সম্মান দেখানোর একটি প্রচেষ্টা। জানা গেছে,খুব শীগ্রই এই গানটির কাজ সম্পন্ন করে তা প্রকাশ করা হবে।
ট্রেলারেই বাজিমাত করল -২.০
অনলাইন ডেস্ক: মুক্তি পেলো সুপারস্টার রজনীকান্ত ও অক্ষয় কুমারের বহু প্রতীক্ষিত ছবি ২.০-র ট্রেলার। শনিবার আলোচিত এই ছবির ট্রেলার মুক্তি পেয়েছে। অ্যাকশন-প্রযুক্তি ও গ্রাফিক্সের মিশেলে প্রকাশের প্রথম দিনেই রীতিমতো হিট ২.০-র ট্রেলার। মোবাইল এখন সত্যিই মানুষকে প্রযুক্তির দাসে পরিণত করছে। যত দিন যাচ্ছে তত বাড়ছে প্রযুক্তির উপরে মানুষের নির্ভরশীলতা। কিন্তু হঠাৎ যদি আপনার হাতের ফোনটি চোখের সামনে হারিয়ে যায়। কী হবে ভাবতে পারছেন? বহু প্রতীক্ষিত ছবি ২.০-র ট্রেলারে এমনই ঘটনা তলে ধরলেন পরিচালক এস শংকর। রজনীকান্তের আগের ছবি ভিলেনের সিক্যুয়েল হল ২.০। এখানেও দেখা মিলবে রোবট রজনীকান্তের। বৈজ্ঞানিক পরীক্ষা করতে গিয়ে বিপত্তি ঘটান রিচার্ড। আর এই বিপত্তি সামাল দিতেই ফের ত্রাতার ভূমিকায় অবতীর্ণ হন 'চিট্টি'। কেমন ভাবে চলবে চিট্টির এই উদ্ধার কার্য? তারই কিছু ঝলক তুলে ধরা হয়েছে ট্রেলারে। বাকিটার জন্য অপেক্ষা করতে হবে ছবি মুক্তি পর্যন্ত। সিনেমার ভিলেন বা খলনায়ক হল একটি পাখি। মোবাইল ব্যবহারের ফলে মানুষ পক্ষীসমাজের যে চরম ক্ষতি করছে তারই প্রতিশোধ নিতে এই ভিলেন পাখির আবির্ভাব হয়। মানুষের ফোনেই তার শক্তির উৎস। ফোনের ব্যবহারের চরম বিরোধী সে। এই খলনায়ক পাখিরই মোকাবিলা করতে দেখা যাবে সুপারস্টার রজনীকে। ছবিতে প্রযুক্তির সঙ্গে গ্রাফিক্স ও ভিএফএক্সের ব্যাপক ব্যবহার হয়েছে। এখনও ভারতের সবচেয়ে বিগ বাজেটের সিনেমা বলে ২.০-কে উল্লেখ করছেন সিনেমা বিশেষজ্ঞরা। ছবি তৈরিতে খরচ হয়েছে প্রায় ৫০০ কোটি টাকা। ছবিতে নায়িকার ভূমিকায় রয়েছেন অ্যামি জ্যাকশন। ছবির সংগীত পরিচালনা করেছেন এ আর রহমান। ২৯ নভেম্বর মুক্তি পাচ্ছে ছবিটি।