বিনোদন জগতে ফের আত্মহত্যা, চলে গেলেন সিয়া কক্কর
২৫,জুন,বৃহস্পতিবার,বিনোদন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বিনোদন জগতে আবার আত্মহত্যা। বৃহস্পতিবার (২৫ জুন) আত্মঘাতী হলেন নৃত্যশিল্পী তথা টিকটক শিল্পী সিয়া কক্কর। দিল্লিতে নিজের বাড়িতে আত্মঘাতী হয়েছেন ১৬ বছরের এই টিক টক শিল্পী। সিয়ার মৃত্যুর খবর প্রকাশ্যে এনেছেন তার ম্যানেজার অর্জুন সারিন। অর্জুন ই তাঁর সমস্ত কাজের খবরাখবর রাখতেন এবং সমস্তটাই সামলাতেন। বিভিন্ন প্রোডাক্টের এনডোর্সমেন্টের বিষয় দেখতেন অর্জুন। তিনি সংবাদ মাধ্যমের কাছে জানিয়েছেন, এটা নিশ্চয়ই ব্যক্তিগত কারণে হয়ে থাকবে। কাজের দিক থেকে ওর সমস্ত কিছুই ভাল যাচ্ছিল। কাল রাতেও ওর সঙ্গে আমার কথা হয়েছে একটি নতুন কাজের বিষয়। ওর কথা শুনে সমস্ত কিছু স্বাভাবিক মনে হয়েছিল। আমি এবং আমার কোম্পানি বহু শিল্পীদের ম্যানেজ করে। তাদের মধ্যে সিয়া খুব গুণী ছিল। প্রীত বিহারে ওর বাড়ির দিকে আমি রওনা হয়েছি। জনপ্রিয় পাপারাজ্জি ভাইরাল ভিয়ানির ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টেও এই খবর প্রকাশ করা হয়। ছবি সমেত সেখানে লেখা হয়, খুব দুঃখের সঙ্গে জানাচ্ছি মাত্র ১৬ বছরের টিকটক শিল্পী সিয়ার আত্মহত্যায় মৃত্যু হয়েছে। আমি ওর ট্যালেন্ট ম্যানেজার অর্জুন সারিনের সঙ্গে কথা বলেছি যার এই ব্যাপারে কোনো ধারণা ছিল না। কাল রাতেই তিনি একটি নতুন প্রজেক্ট এর জন্য সিয়ার সঙ্গে কথা বলেছিলেন এবং তাকে স্বাভাবিক মনে হয়েছিল। আপনারা ওর ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট দেখলেই বুঝতে পারবেন ওর কনটেন্ট কত ভাল ছিল। খুব দুঃখজনক যে সে এমন একটি রাস্তা বেছে নিয়েছে। আপনিও যদি অবসাদগ্রস্ত হন দয়া করে এটা করবেন না। সিয়া কক্কর দিল্লির প্রীত বিহারের বাসিন্দা। টিকটক, ইনস্টাগ্রম, ইউটিউব, স্ন্যাপচ্যাট এই সমস্ত অনলাইন প্লাটফর্মে সক্রিয় ছিলেন তিনি। বিভিন্ন নাচের পোস্ট শেয়ার করতেন সিয়া। প্রত্যেকটি প্ল্যাটফর্মেই বহু সংখ্যক ফলোয়ার ছিল তাঁর। এই খবরে সিয়ার বন্ধু মহলে ও পরিবারে নেমে এসেছে শোকের ছায়া।-
মাইকেল জ্যাকসনের মৃত্যুবার্ষিকী আজ
২৫,জুন,বৃহস্পতিবার,বিনোদন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: পপ কিং মাইকেল জ্যাকসনের মৃত্যুবার্ষিকী আজ। স্নায়ু শিথিল করতে মাত্রাতিরিক্ত প্রপোফল সেবনে ২০০৯ সালের ২৫ জুন ৫০ বছর বয়সে তার মৃত্যু হয়েছিল। বিশ্বের সবচেয়ে সফল সেলিব্রেটি মাইকেল জ্যাকসন একজন মার্কিন সংগীতশিল্পী, গীতিকার, নৃত্যশিল্পী, অভিনেতা, সমাজসেবক ও ব্যবসায়ী। ব্যক্তিজীবনে বিতর্কিত পপসম্রাট বিভিন্ন ঘটনার প্রেক্ষাপটে চার দশকেরও বেশি সময় সাংস্কৃতিক অঙ্গনে বৈশ্বিক ব্যক্তিত্ব হিসেবে চিহ্নিত হয়ে আছেন। ১৯৫৮ সালের ২৯ আগস্ট যুক্তরাষ্ট্রে আফ্রিকান-আমেরিকান একটি পরিবারে জন্ম হয়েছিল মাইকেল জ্যাকসনের। মাইকেলের বাবার নাম জোসেফ ওয়াল্টার জ্যাকসন। জ্যাকসন পরিবারের ৭ম সন্তান মাইকেল। চার ভাইকে সঙ্গে নিয়ে মাত্র ৬ বছর বয়সে পেশাদার জগতে পা রাখেন তিনি। এককভাবে কাজ করেন ৭১ সালে। তবে বিশ্বজুড়ে উন্মাদনা ছড়ান আরও এগার বছর পর। ১৯৮২ সালে তার থ্রিলার অ্যালবাম ভেঙে দেয় পৃথিবীর সব রেকর্ড। অলটাইম হিটসের তালিকায় আছে - অফ দ্য ওয়াল (১৯৭৯), ব্যাড (১৯৮৭), ডেঞ্জারাস (১৯৯১) এবং হিস্টরি (১৯৯৫)। সর্বকালের সবচেয়ে সফল বিনোদন তারকা হিসেবে গিনেস বুকেও জায়গা পেয়েছেন তিনি। প্রায়শই তাকে পপ সঙ্গীতের রাজা হিসেবে আখ্যায়িত করা হয় অথবা, সংক্ষেপে তাকে এমজে নামে অভিহিত করা হয়। ২০০৯ খ্রিস্টাব্দের ২৫ জুন মাইকেল জ্যাকসন মৃত্যুবরণ করেন। তার মৃত্যুর জন্য দায়ী করা হয় তারই ব্যক্তিগত চিকিৎসক ডা. কনরাড মারেকে এবং সে কারণে তাকে চার বছরের জন্য কারাদণ্ডও দেয়া হয়। ২০০৯ সালের ২৫ জুন পৃথিবীর মায়া কাটিয়ে চলে যাওয়ার পর সে বছর সর্বাধিক বিক্রীত অ্যালবামের শিল্পী হিসেবে আবির্ভূত হন জ্যাকসন। মৃত্যুর এক বছরের মাথায় কেবল আমেরিকাতেই তার অ্যালবাম বিক্রি হয় ৮.২ মিলিয়ন কপি; আর বিশ্বজুড়ে বিক্রি হয় ৩৫ মিলিয়ন। মৃত্যুর পর গান ডাউনলোডের ইতিহাসেও রেকর্ড গড়েন পপ কিং। মাত্র এক সপ্তাহে পয়সা খরচ করে জ্যাকসনের ১০ লাখ গান ডাউনলোড করে তার ভক্তরা।
রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা করোনায় আক্রান্ত
২২,জুন,সোমবার,বিনোদন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন রবীন্দ্রসংগীত শিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা। ১২ দিন আগে নমুনা পরীক্ষায় তার সংক্রমণ ধরা পড়ে। বর্তমানে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী বাসায় থেকেই তিনি চিকিৎসা নিচ্ছেন। এ কথা বন্যা নিজেই জানিয়েছেন। গণমাধ্যমকে তিনি বলেন, আমার শারীরিক অবস্থা ভালো আছে। রিপোর্ট পজিটিভ আসার পর থেকে বাসাতেই আছি। এই সংগীতশিল্পী জানান, মঙ্গলবার দ্বিতীয়বারের মতো নমুনা নেওয়া হবে। এবারের রিপোর্ট নেগেটিভ আসবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃত্যকলা বিভাগের চেয়ারপারসন বন্যা রবীন্দ্রসংগীতের জন্য দেশে-বিদেশে খ্যাতি পেলেও ধ্রুপদী, টপ্পা ও কীর্তনও গেয়েছেন। ১৯৫৭ সালের ১৩ জানুয়ারি রংপুর জেলায় জন্ম নেওয়া বন্যা প্রথমে ছায়ানট এবং পরে ভারতের বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ালেখা করেছেন। সেখানে শান্তিদেব ঘোষ, কণিকা বন্দ্যোপাধ্যায়, নীলিমা সেন ও আশীষ বন্দ্যোপাধায়ের মতো সংগীতজ্ঞদের সান্নিধ্যে আসেন তিনি। সংগীত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সুরের ধারার প্রতিষ্ঠাতা বন্যা রবীন্দ্রসংগীত নিয়ে কয়েকটি বইও লিখেছেন। সংগীতে অবদানের জন্য ২০১৬ সালে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ বেসামরিক পুরস্কার স্বাধীনতা পুরস্কার পান বন্যা। এ ছাড়া পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারের বঙ্গভূষণ ফিরোজা বেগম স্মৃতি স্বর্ণপদকসহ বিভিন্ন সম্মাননায় ভূষিত হয়েছেন এ শিল্পী।
ইসলামে ফিরতে মিডিয়া ছাড়লেন টিভি অভিনেত্রী অ্যানি খান
২১,জুন,রবিবার,বিনোদন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: শিশুশিল্পী হিসেবে মিডিয়াতে কাজ শুরু করেছিলেন মডেল-অভিনেত্রী অ্যানি খান। দীর্ঘ ২৩ বছরের পথচলা শেষে মিডিয়া থেকে নিজেকে সরিয়ে নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন ছোট পর্দার পরিচিত এই মুখ। ইসলামিক জীবনে মনোনিবেশ এবং ধর্মীয় বিধানে বাকি জীবন চলতেই মিডিয়াকে বিদায় জানিয়েছেন অ্যানি। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আল্লাহ যেন আমাকে আর কাজে না ফেরান। ঘরে থাকবো, ইবাদত করবো। আল্লাহ চাইলে সব কিছুই সম্ভব। অভিনেত্রী ফেসবুক লাইভে এসে বলেন, এক বছর আগে থেকেই মনে হচ্ছিল, মিডিয়া থেকে দূরে সরে যাবো। চলতি বছরের জানুয়ারির ২৬ তারিখ থেকে নিজের মধ্যে সিদ্ধান্তটা বেশি করে নাড়া দিতে থাকে। মার্চের ১৯ তারিখ শেষবার শুটিং করেছি। তারপর তো করোনায় সবকিছু বন্ধ হলো। কারও দ্বারা প্রভাবিত হয়ে মিডিয়া ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিইনি। এ সিদ্ধান্ত আমার একান্তই ব্যক্তিগত। কারণ মৃত্যুর পর আমার হিসেব আমাকেই দিতে হবে। তাই আত্মোপলব্ধি থেকেই আমি মিডিয়ার কাজ থেকে সরে যাচ্ছি। অ্যানি আরও বলেন, শৈশব থেকেই টিভিতে বিভিন্ন অনুষ্ঠান করতাম। ২০১৫ সাল পর্যন্ত অভিনয়ে অনিয়মিত ছিলাম। তারপর থেকে এ পর্যন্ত টানা নাটকে কাজ করে মানুষের অনেক ভালোবাসা পেয়েছি। তবে, এবার একেবারেই মিডিয়ার কাজ থেকে নিজেকে সরিয়ে নিচ্ছি। সার্বক্ষণিক নামাজ ইবাদতে মগ্ন আছি। প্রতিনিয়ত অহরহ মৃত্যুর খবরগুলো যেভাবে শুনছি, আগে সেভাবে শোনা যেতো না, শুনলেও নাড়া দিত না। বাবাকে হারালাম, চোখের সামনে কাছের মানুষগুলো ছেড়ে চলে যাচ্ছে। এগুলোর কারণে ধর্মীয়বোধ জাগ্রত হয়েছে। আমি একজন মুসলিম। এ পরিচয়ে ধর্মীয় বিষয়গুলো যতোই জানার চেষ্টা করছি, ততই ধর্ম বিষয়ক জ্ঞান বাড়ছে। এতে করে অনেক কিছুতে বিধিনিষেধ চলে আসছে। অভিনেত্রী বলেন, চলমান করোনাকালে দেখছি, অনেকেরই সময় কাটছে না বা হতাশামূলক কথাবার্তা বলে যাচ্ছে। কিন্তু আমি নিজে কোনো সময়ই পাচ্ছি না। জীবনে সময় এতো স্বল্প অনুভব করছি যে, মনে হচ্ছে দিনরাত ৪৮ ঘণ্টা হলে ভালো হতো। পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ আদায় করছি, নফল নামাজ পড়ছি, কোরআন হাদিস পড়ছি। অনেক কিছু থেকে পিছিয়ে ছিলাম। সবকিছু আমাকে শিখতে হচ্ছে। এসব জানতে-শিখতে কখন যে সময় চলে যাচ্ছে, নিজেও বুঝতে পারছি না। দু মিনিট পরে আমি বাঁচবো কিনা জানি না। মৃত্যুর পরে অনন্ত কালের জন্য আমি কি সঞ্চয় করলাম? এ সবকিছু চিন্তা-ভাবনা মিলিয়ে আমি আর মিডিয়ার কাজে ফিরতে চাইছি না। এজন্য কেউ আমাকে ভণ্ড বলতে পারেন, খারাপ বলতে পারেন। তাতে আমার কিছু যায় আসে না। আমার রিয়ালাইজেশনগুলো কেমন, সেটা একমাত্র আল্লাহই ভালো জানেন। বিয়ে প্রসঙ্গে অ্যানি বলেন, এই শহরে নিজেদের থাকার একটা জায়গা আছে। বেঁচে থাকলে আগামী বছর বিয়ে করে ফেলবো। একজন সাধারণ মেয়ে বিয়ের পর যেভাবে সংসার করে, আমিও তাই করতে চাই। আমার ব্যক্তিগত বিষয়গুলো আর সামনে আনছি না।
মিথ্যা গল্প তৈরি করে ধ্বংস করা হয় সুশান্তর ক্যারিয়ার
১৬জুন,মঙ্গলবার,বিনোদন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যু নিয়ে উঠতে শুরু করেছে একাধিক প্রশ্ন। কেন সুশান্ত আত্মহত্যা করলেন? এই প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে বলিউডের একাংশের দিকে আঙুল তোলেন কঙ্গনা রানাউত। সুশান্তের মর্মান্তিক পরিণতির জন্য বলিউডে কাঁদের দিকে আঙুল তোলেন কঙ্গনা, তা নিয়ে গুঞ্জন শুরু করে দিয়েছেন নেটিজেনদের একাংশ। কঙ্গনা যখন বলিউডের একাংশকে দায়ী করছেন সুশান্তের মৃত্যুর জন্য, সেই সময় রাবিনা ট্যান্ডনও বিস্ফোরক মন্তব্য করেন। তিনি সুশান্তের মৃত্যুর পরও বলিউডের 'গার্লস গ্যাঙ' কোনও মন্তব্য করছে না। এই 'গার্লস গ্যাঙ' কখনও নিজেদের ছবির জন্য তাঁদের বন্ধুদের নির্বাচিত করে সেখান থেকে 'গড ফাদার'-বিহীন অভিনেতাদের বের করে দেয়। এমনকী, চামচাদের দিয়ে মিথ্যে গল্প তৈরি করে ক্যারিয়ারও ধ্বংস করে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ করেন অভিনেত্রী। ফলে কেউ লড়াই করতে পারেন আর কেউ পারেন না, হেরে যান বলে মন্তব্য করেন রাবিনা। শুধু তাই নয়, ইচ্ছে করে অভিনেতাদের সিনেমা থেকে কোনও কোনও অভিনেতা, অভিনেত্রী বের করে দেন বলেও ক্ষোভ প্রকাশ করেন রাবিনা। পাশাপাশি বলিউডে বিভিন্ন ধরনের 'ক্যাম্প' রয়েছে। সেই 'ক্যাম্পে'-র সঙ্গে যুক্ত হলে তবেই কেউ ছবির প্রস্তাব পান বা রোজগার করতে পারেন বলেও বিস্ফোরক অভিযোগ করেন রাবিনা ট্যান্ডন। তবে কার কার দিকে এই অভিযোগের আঙুল তোলেন রাবিনা, সে বিষয়ে তিনি কোনও মন্তব্য করেননি। তবে রাবিনার অভিযোগ নিয়ে শুরু হয়েছে জোর শোরগোল। পাশপাশি বলিউডের কাউকে কাউকে 'চামচা' বলেও বিস্ফোরক অভিযোগ করেন রবিনা ট্যান্ডন। সূত্র: জিনিউজ
ধর্মের টানে অভিনয় ছেড়ে দিলেন সুজানা !
১৫জুন,সোমবার, বিনোদন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: অভিনয় থেকে সরে দাঁড়ালেন মডেল ও অভিনেত্রী সুজানা জাফর। গত কয়েক বছর অভিনয়ে অনিয়মিত ছিলেন তিনি। কিন্তু এবার ঘোষণা দিয়েই অভিনয় ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন সুজানা। গত শবিবার রাতে দুবাই থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তিনি তার সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন। সুজানা বলেছেন, করোনা না এলে জীবনের উদ্দেশ্য কী? তা হয়তো সঠিকভাবে জানাই হতো না। গত চার মাসে ইসলামকে গভীরভাবে উপলব্ধি করেছি। জেনেছি, এটাই আসল জীবন। তাই সিদ্ধান্ত নিয়েছি, মিডিয়ায় আর কাজ করব না। আমার পরিবারও চায় না এখানে কাজ করি। এখন থেকে বুটিক ব্যবসা আর ধর্মকর্ম নিয়েই থাকতে চাই। সমাজের কিছু অবহেলিত মানুষের দায়িত্ব নিয়েছি। সমাজসেবামূলক কয়েকটি সংগঠনের সঙ্গেও আছি। সেগুলোতেও সময় দিতে চাই। সব সময় সাধারণ মানুষ হয়ে থাকতে চেয়েছি। ভক্তরা যে ভালোবাসা দিয়েছেন সেটা মাথায় নিয়েই বাকি জীবন পার করব। আমার জন্য সবাই দোয়া করবেন। সুজানা এখন দুবাইয়ে স্বজনদের সঙ্গে রয়েছেন। সাময়িক সময়ের জন্য গেলেও সেখানে লকডাউনে আটকা পড়েন তিনি। দুবাই থেকে দেশের মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন সুজানা। সহযোগিতা করেছেন আরব আমিরাতের প্রবাসী বাংলাদেশিদের। প্রসঙ্গত, ১৬ বছরের ক্যারিয়ারে অসংখ্য বিজ্ঞাপন, মিউজিক ভিডিও, নাটকে কাজ করছেন সুজানা। তিন বছর আগে তিনি বুটিকের ব্যবসা শুরু করেন। ওই সময় তিনি জানিয়েছিলেন বছরে দু-একটির বেশি কাজ করবেন না। তাই গত দুই বছরে মাত্র একটি নাটক ও মিউজিক ভিডিও করেছেন। এবার পুরোপুরিই মিডিয়া ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিলেন সুজানা।
আত্মহত্যা করেছেন সুশান্ত সিং রাজপুত
১৪জুন,রোববার,বিনোদন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: মাত্র ৩৪ বছর বয়সেই চলে গেলেন বলিউডের জনপ্রিয় অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুত। রোববার (১৪ জুন) মুম্বাইয়ের বান্দ্রাতে তার বাড়ি থেকে সুশান্তর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। প্রাথমিকভাবে জানা গেছে, তিনি আত্মহত্যা করেছেন। এর আগে চলতি মাসের শুরুতে সুশান্ত সিং রাজপুতের সাবেক ম্যানেজার দিশা সালিয়ান তার এক বন্ধুর বাড়ির জানালা থেকে পড়ে গিয়ে মৃত্যুবরণ করেন। এবার আত্মহত্যার পথ বেছে নিলেন সুশান্ত সিংও। বলিউডে সুশান্ত পদার্পণ করেন ২০১৩ সালে। মাত্র ৩৪ বছর বয়সী এই অভিনেতার ঝুলিতে এম এস ধোনি: দ্য আনটোল্ড স্টোরি, শুদ্ধ দেশি রোমান্স, পিকে, ডিটেকটিভ ব্যোমকেশ বকশী, রাবতা, কেদারনাথ এবং সবশেষ ছিছোরের মতো জনপ্রিয় অনেক সিনেমা রয়েছে। এর আগে টেলিভিশনে তিনি অত্যন্ত জনপ্রিয় অভিনেতা ছিলেন। স্টার প্লাসে- কিস দেশ মেঁ হ্যায় মেরা দিল এবং জি টিভিতে- পবিত্র রিশতা ধারাবাহিকের জন্য দর্শকদের মণিকোঠায় স্থান করে নিয়েছিলেন সুশান্ত।
ডিসলাইকের সমুদ্রে ভাসছেন নোবেল
৮জুন,সোমবার,বিনোদন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: শেষের শুরু নাকি শুরুর শেষ? প্রচারের এত ঢক্কানিনাদ যেন এক লহমাতেই ম্লান। সারেগামাপা থেকে উঠে আসা গায়ক নোবেলের গানের অবস্থা কিছুটা এরকমই। জীবনের প্রথম মৌলিক গানে লাইকের থেকে ডিসলাইক বেশি পেয়েছেন নোবেল। 'সারেগামাপা' খ্যাত গায়কের 'তামাশা' গানটিকে ঘিরে ইউটিউবে এখন বিস্তর রঙ্গতামাশা। সারেগামাপা থেকে উঠে আসা গায়ক মইনুল হাসান নোবেল দুই বাংলার মানুষের মনের মনিকোঠায় জায়গা করে নিয়েছিলেন। তাবড় বিচারক থেকে দর্শককূল সকলেরই সমর্থনের সঙ্গে ভালোবাসাও কুড়িয়েছিলেন নোবেল। কিন্তু রিয়্যালিটি শো শেষ হতেই যেন চূড়ান্ত দম্ভ গ্রাস করে ফেলে নোবেলকে। ধরাকে সরা জ্ঞান করতে শুরু করেছিলেন নিমেষে। একের পর এক বিতর্ক। স্ত্রী-কে মারধরের অভিযোগ, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে আকথা-কুকথার ফুলঝুড়ি! এসবরেই উত্তর বোধ হয় দিচ্ছেন ভক্তরা।যার প্রমাণ মিলছে নোবেলের মুক্তি পাওয়া নোবেলের প্রথম মৌলিক গানে। রবিবার গায়কের গান 'তামাশা' মুক্তি পেয়েছে। গানটির একটি ভিডিও ইউটিউবে প্রকাশ করেছেন মইনুল হাসান। কিন্তু সেখানেই দর্শকদের পছন্দের তুলনায় অপছন্দের তালিকা দেখে যেন বড্ড বেমানান লাগছে। ইউটিউবে প্রকাশিত হবার ২৩ ঘন্টা পর এখন পর্যন্ত নোবেলের এই গানে লাইক ২৪ হাজার আর ডিসলাইক ১৯০ হাজারও ছাপিয়ে গিয়েছে। অর্থাৎ ২৪ হাজার মানুষ সেই তামাশা গানটি পছন্দ করছেন, আর ১৯০ হাজারের বেশি কিছু মানুষ এক্কেবারেই অপছন্দ করছেন নোবেলের সেই গান। এই গান নিয়ে মার্কেটিং পলিসির অনেক কিছুই করেছিলেন গায়ক। কিন্তু আদতে সেই নেগেটিভ পাবলিসিটিতে লাভ তো কিছুই হয়নি, বরং ফের নেটিজেনদের রোষানলে পড়তে হয়েছে তাঁকে। এখানেই তার উপরে বেজায় খাপ্পা ভক্তরা। এমনকী বিশেষজ্ঞ মহল তো একপ্রকার ধরেই নিয়ে বলছেন, 'দম্ভই শেষ করল নোবেলকে।' রাহাত নামে নোবেলেরই এক ভক্ত লিখছেন, ভাবছিলাম তামাশা গানটা খুবই সুন্দর হবে। আর তার জন্য নোবেলের পক্ষে থেকে সবার বিরুদ্ধে লড়াই করেছি। এখন দেখছি, সবাই ঠিক, নোবেল ভুল। আমাকে ক্ষমা করে দাও! প্রসঙ্গত এই গানের মিউজিক ভিডিওতে নোবেলের স্ত্রী মেহেরুবা সালসাবিলকেও দেখা গিয়েছে। নোবেল নিজেও ছিলেন। নব্যবিবাহিত স্বামী-স্ত্রীর ঘরকন্যার ঝলক ফুটে উঠেছে ‘তামাশা’র মিউডিক ভিডিওতে। তবে এতকিছু মন ভোলাতে পারেনি দর্শকদের।- ঢাকাটাইমস
করোনায় মারা গেলেন চলচ্চিত্র প্রযোজক মোজাম্মেল হক
২জুন,মঙ্গলবার,বিনোদন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন চলচ্চিত্র প্রযোজক হাজি মোজাম্মেল হক সরকার। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ভাইরাস ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার রাত ১১টায় তার মৃত্যু হয়। বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রযোজক পরিবেশক সমিতির সভাপতি খোরশেদ আলম খসরু এ খবর নিশ্চিত করেছেন। চারদিন আগে ৫৫ বছর বয়সি হাজি মোজাম্মেল হক সরকারের করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়। পরে তাকে গাজীপুরের একটি হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়। অবস্থার অবনতি হলে সোমবার তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে সেখানেই রাতে তার মৃত্যু হয়। খসরু বলেন,করোনা ভাইরাসে এই প্রথম চলচ্চিত্র ইন্ডাস্ট্রির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কারো মৃত্যু হলো। তার মৃত্যুতে আমরা শোক জানাচ্ছি। উল্লেখ্য, মোজাম্মেল হক বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রযোজক পরিবেশক সমিতির সদস্য ছিলেন। নিজের মালিকানায় মেসার্স ভাওয়াল পিকচার্সের ব্যানারে বেশ কিছু দর্শকপ্রিয় চলচ্চিত্র প্রযোজনা করেছেন তিনি। তার প্রযোজিত শেষ সিনেমা শাকিব খান-অপু বিশ্বাস জুটির চলচ্চিত্র- পাংকু জামাই মুক্তি পায় ২০১৮ সালে। মোজাম্মেল হক সরকারের মরদেহ তার গ্রামের বাড়ি গাজীপুরে নেওয়া হয়েছে। সরকারি নির্দেশনা মেনে মঙ্গলবার সেখানে তার দাফন হবে বলে জানান খসরু।

বিনোদন পাতার আরো খবর