রবিবার, আগস্ট ১৮, ২০১৯
বাংলাদেশের ফাইনালে ওঠার লড়াই আজ
১৩মে,সোমবার,ক্রীড়া ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচটা বৃষ্টিতে ভেসে না গেলে আগেই ফাইনাল নিশ্চিত হয়ে যেতে পারতো বাংলাদেশের। সে আফসোস না করে আজই অবশ্য সেই টিকিট কেটে ফেলতে পারে মাশরাফি বিন মুর্তজার দল। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ইতিমধ্যে আয়ারল্যান্ডকে দুইবার হারিয়ে ফাইনালে উঠে গেছে। আজ সেই ওয়েস্ট ইন্ডিজকে এই টুর্নামেন্টে দ্বিতীয়বার হারালেই ফাইনাল নিশ্চিত হবে বাংলাদেশের। সে ক্ষেত্রে বুধবার আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশের ম্যাচটা আনুষ্ঠানিকতায় পরিণত হবে। ফাইনালে ওঠার লক্ষ্য নিয়ে আজ বাংলাদেশ সময় দুপুর ৩টা ৪৫ মিনিটে ওয়েস্ট ইন্ডিজের মুখোমুখি হবে মাশরাফির দল। এখন পর্যন্ত টুর্নামেন্টে বাংলাদেশ একটিমাত্র ম্যাচ খেলতে পেরেছে। আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচ পরিত্যক্ত হয়েছে বৃষ্টিতে। যে ম্যাচ হয়েছে, সেখানে বাংলাদেশ দারুণভাবে হারিয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে। ৮ উইকেটের সাবলীয় জয় পেয়েছিলো তারা। ওই ম্যাচে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় প্রাপ্তি ছিলো তামিম ইকবালের সাথে সৌম্য সরকারের ১৪৪ রানের উদ্বোধনী জুটি। এই টুর্নামেন্টে যদি এই জুটিটা স্থায়ী হতে পারে, সেটা বিশ্বকাপের জন্যই বাংলাদেশের বড় একটা প্রাপ্তি হবে। ম্যাচের পরের দিকে সাকিব আল হাসানের ব্যাট হাতে ম্যাচ নিয়ন্ত্রণ করাটা দর্শকদের ভরসা দিয়েছে। এর সাথে বল হাতেও মাঝের দিকে ম্যাচ নিয়ন্ত্রণ করেছেন সাকিব। বল হাতে ভালো করেছেন মাশরাফি ও সাইফউদ্দিন। সবমিলিয়ে মুস্তাফিজুর রহমানের দারুণ খরুচে বোলিং বাদ দিলে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে বাংলাদেশের ম্যাচটা ছিলো আত্মবিশ্বাস জোগানোর দারুণ একটা উপলক্ষ। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে শেষ ৫ ম্যাচের ৪টিতেই বাংলাদেশ জিতেছে। ফলে আজ আরেকবার এই দলটিকে হারানোর আশা মাশরাফিরা করতেই পারেন। ওয়েস্ট ইন্ডিজ অবশ্য এই ম্যাচে বিশ্বকাপের আগে বেশ কিছু পরীক্ষা নিরীক্ষা করে নিতে চাইবে। বাংলাদেশের অবশ্য আজ অন্তত সে সুযোগ নেই। ফাইনাল নিশ্চিত করার আগ পর্যন্ত বাংলাদেশ একাদশ নিয়ে কোনো পরীক্ষা করতে চায় না। ফলে আজ আগের ম্যাচের একাদশই মাঠে নামার কথা। উইকেট যথারীতি রান বন্যার উইকেট হওয়ার কথা। ডাবলিনে আগের ম্যাচেও আয়ারল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ, দুই দলই তিন শতাধিক করে রান করেছে। বাংলাদেশকেও তাই রানবন্যার জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে।
বিশ্বকাপের থিম সং আসছে ১৭ মে
৮মে,বুধবার,ক্রীড়া ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চোয়াল শক্ত করে হেঁটে যাচ্ছেন মিচেল জনসন আর ব্যাট হাতে ঝড় তোলার জন্য নামছেন ব্রেন্ডন ম্যাককুলাম, ব্যাকগ্রাউন্ডে বাজছে ইটস টাইম ফর আস, টেল মি ইউ গট দ্য পাওয়ার। ২০১৫ বিশ্বকাপের এই বিখ্যাত থিম সংয়ের কথা মনে পড়ে? অথবা ভারত, বাংলাদেশ, শ্রীলঙ্কায় অনুষ্ঠিত ২০১১ বিশ্বকাপের দে ধুমাকে? বাংলাদেশের ক্রিকেটভক্তদের কাছে অবশ্য বাংলা ভাষায় মার ঘুরিয়ে গানটাই বেশি জনপ্রিয় হয়েছিল। কিন্তু আরেকটা বিশ্বকাপ দরজায় এসে কড়া নাড়তে থাকলেও অফিশিয়াল থিম সংটাই এখনো প্রকাশিত হয়নি। কবে প্রকাশিত হবে, এমন জল্পনা-কল্পনা যখন তুঙ্গে, তখন জানা গেল আগামী ১৭ মে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকাশিত হবে এবারের ইংল্যান্ড বিশ্বকাপের থিম সং। আনুষ্ঠানিক এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে সম্প্রতি ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক এবং বিশ্বকাপের আয়োজক সংস্থা আইসিসি জানিয়েছে, স্ট্যান্ড বাই শীর্ষক এবারের বিশ্বকাপের থিম সংটি আগামী ১৭ মে থেকে বিশ্বব্যাপী ভক্তরা শুনতে পারবে। টেলিভিশনে প্রচার করা ছাড়াও ইউটিউব এবং অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ক্রিকেটভক্তরা গানটি শুনতে পারবে। খ্যাতনামা ব্রিটিশ ব্যান্ড রুডিমেন্টালের সঙ্গে নবাগত গায়ক লরিনের যৌথ প্রচেষ্টায় তৈরি করা হয়েছে গানটি। ২০১১ সালে রুডিমেন্টাল ব্যান্ডটি প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর এখন পর্যন্ত তাদের প্রকাশিত অ্যালবাম ২০ লক্ষের অধিক বিক্রি হয়েছে। প্রতিভাবান নতুন শিল্পীদের খুঁজে বের করতেও তাদের জুড়ি নেই। বিশ্বকাপের থিম সংয়ে তাদের সহযোগী শিল্পী লরিনকেও উত্তর কানাডা থেকে খুঁজে বের করেছে তারাই। রুডিমেন্টাল ব্যান্ডের অন্যতম সদস্য লকস্মিথ থিম সং নিয়ে বলেন, গানটির মূল বার্তা হচ্ছে ঐক্য। সব শ্রেণি-পেশার মানুষকে আমাদের তৈরি করা সুরের মাধ্যমে এককাতারে নিয়ে আসাই ছিল আমাদের লক্ষ্য। বিশ্বকাপের আয়োজক কমিটির নির্বাহী পরিচালক স্টিভ এলওয়ার্থি আনুষ্ঠানিক থিম সং নিয়ে বলেন, খেলাধুলার মঞ্চে সংগীতের যে প্রভাব ও গুরুত্ব তা মেনে নেওয়া ছাড়া উপায় নেই। খেলোয়াড় ও দর্শকদের উজ্জীবিত করা এবং আনন্দময় মুহূর্তগুলো একসঙ্গে উদযাপনের একটা পরিচিত সুর প্রয়োজন হয়। আমি আশাবাদী যে, এবারের থিম সংটা বিশ্বকাপের প্রাণ হয়ে থাকবে।
বঙ্গমাতার দুদলই চ্যাম্পিয়ন
৩ মে শুক্রবার, অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: ঘূর্ণিঝড় ফণীর কারণে বাতিল হয়েছে বঙ্গমাতা অনূর্ধ্ব-১৯ আন্তর্জাতিক নারী গোল্ডকাপের ফাইনাল ম্যাচ। ফলে বাংলাদেশ ও লাওসকে যৌথভাবে চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন।ঘূর্ণিঝড় ফণীর প্রভাবে পুরো দেশেই বৃষ্টিসহ ঝড়ো হাওয়া বইছে। যার প্রভাব থেকে বাদ যায় নি রাজধানী ঢাকা। আজ সন্ধ্যা ৬টায় প্রথমবারের মতো আয়োজিত বঙ্গমাতা অনূর্ধ্ব ১৯ নারী গোল্ডকাপের টুর্নামেন্টের ফাইনালে লাওসের মুখোমুখি হবার কথা ছিল ফেভারিট বাংলাদেশের। তবে বৈরী আবহাওয়ার কারণে কোনো ঝুঁকি নেয় নি বাফুফে। পরে লোকাল অর্গানাইজিং ও টুর্নামেন্ট কমিটির সর্বসম্মতিক্রমে নেয়া সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ফাইনাল বাতিল করে যৌথভাবে দুদলকে চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করা হয়।
বিশ্বকাপ ও ত্রিদেশীয় সিরিজ খেলতে দেশ ছাড়লো টাইগাররা
০১মে,বুধবার,ক্রীড়া ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিত দ্বাদশ বিশ্বকাপ ও আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় ওয়ানডে সিরিজকে সামনে রেখে দেশ ছেড়েছে বাংলাদেশ দল। বুধবার সকাল সাড়ে ১০টায় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে মাশরাফিদের বহনকারী বিমানটি ডাবলিনের উদ্দেশে বাংলাদেশ ত্যাগ করে। ডাবলিনগামী দলের সঙ্গে ছিলেন না সহ অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। তিনি আজ সন্ধ্যা ৭ টা ৪০ মিনিটে কাতার এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে দেশ ছাড়বেন। আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজের জন্য ঘোষিত ১৯ সদস্যের মধ্যে এই বহরে যাচ্ছেন ১৭ জন। এর আগে গতকাল রাতেই আয়ারল্যান্ডের পথে পাড়ি জমিয়েছেন ফরহাদ রেজা। বাংলাদেশ, উইন্ডিজ এবং স্বাগতিক আয়ারল্যান্ডের সাথে ত্রিদেশীয় ওয়ানডে সিরিজে অংশ নেবেন মাশরাফি-মুশফিকরা। বিশ্বকাপের আগে এই সিরিজই বাংলাদেশের শেষ প্রস্তুতি সিরিজ। ৭ মে ডাবলিনে উইন্ডিজের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে শুরু হবে বাংলাদেশের আয়ারল্যান্ড সফর। এরপর ৯ মে স্বাগতিক আয়ারল্যান্ড, ১৩ মে উইন্ডিজ এবং ১৫ মে স্বাগতিক আয়ারল্যান্ডের মোকাবিলা করবে বাংলাদেশ। টুর্নামেন্টটির ফাইনাল হবে ১৭ মে। এরপরই বাংলাদেশ দল সেখান থেকে বিশ্বকাপকে সামনে রেখে ইংল্যান্ডে পাড়ি জমাবে। ২৬ তারিখ কার্ডিফে পাকিস্তানের বিপক্ষে প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচ আর ২৮ মে দ্বিতীয় ও শেষ প্রস্তুতি ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে লড়বে মাশরাফিরা। বিশ্বকাপ ৩০ মে থেকে শুরু হলেও বাংলাদেশের বিশ্বকাপ যাত্রা শুরু হবে ২ জুন দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে। এরপর ৫ জুন কিউইদের বিপক্ষে, ৮ জুন স্বাগতিক ইংল্যান্ড, ১১ জুন শ্রীলঙ্কা, ১৭ জুন উইন্ডিজ, ২০ জুন অস্ট্রেলিয়া, ২৪ জুন আফগানিস্তান, ২ জুলাই ভারত এবং ৫ জুলাই পাকিস্তানের বিপক্ষে খেলবে বাংলাদেশ। রাউন্ড রবিন লিগ পদ্ধতিতে হওয়ায় প্রথম পর্ব উৎরাতে পারলে ৯ই জুলাই থেকে শুরু হওয়া সেমিফাইনালেও দেখা যেতে পারে বাংলাদেশকে। বিশ্বকাপে বাংলাদেশ স্কোয়াড: তামিম ইকবাল, লিটন কুমার দাশ, সৌম্য সরকার, মোহাম্মদ মিথুন, সাব্বির রহমান, সাকিব আল হাসান, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মুশফিকুর রহিম, মাশরাফি বিন মুর্তজা, মুস্তাফিজুর রহমান, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, মেহেদী হাসান মিরাজ, রুবেল হোসেন, আবু জায়েদ রাহী ও মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। ত্রিদেশীয় সিরিজের স্কোয়াড: তামিম ইকবাল, লিটন কুমার দাশ, সৌম্য সরকার, মোহাম্মদ মিথুন, সাব্বির রহমান, সাকিব আল হাসান, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মুশফিকুর রহিম, মাশরাফি বিন মুর্তজা, মুস্তাফিজুর রহমান, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, মেহেদী হাসান মিরাজ, রুবেল হোসেন, আবু জায়েদ রাহী, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, নাঈম হাসান, ইয়াসির আলী রাব্বী, ফরহাদ রেজা ও তাসকিন আহমেদ।
পরিবর্তন আসছে বিশ্বকাপের জার্সিতে
৩০এপ্রিল,মঙ্গলবার,ক্রীড়া ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বিশ্বকাপের ফটোসেশনের ২৪ ঘণ্টা না পেরোতেই বাংলাদেশ জাতীয় দলের জার্সির রঙ পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত নিলো ক্রিকেট বোর্ড। বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের সিদ্ধান্তেই বিশ্বকাপের সবুজ জার্সিতে রঙের সমন্বয় করা হচ্ছে। ইংল্যান্ড বিশ্বকাপকে সামনে রেখে টাইগারদের দুই ধরনের জার্সি উন্মোচন করা হয়। সোমবার (২৯ এপ্রিল) মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে আনুষ্ঠানিক ফটোসেশনে অংশ নেন আয়ারল্যান্ড সিরিজ ও বিশ্বকাপ স্কোয়াডে থাকা ক্রিকেটাররা। তবে মাশরাফি-মুশফিকদের জার্সির রঙ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সমালোচনার ঝড় ওঠে। অনেকের মতেই, জার্সিতে লাল রঙের উপস্থিতি না থাকায় তা বাংলাদেশ দলকে যথাযথভাবে উপস্থাপন করছেনা। এদিকে নানা আলোচনা-সমালোচনার মাঝেই জার্সির রঙে কিছুটা পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে ক্রিকেট বোর্ড। বিসিবি সভাপতির সিদ্ধান্তে মূল ডিজাইন ঠিক রেখে জার্সিতে সবুজ ও লাল রঙের সমন্বয় করা হবে। তবে লাল রঙের জার্সিতে কোনো পরিবর্তন আসবেনা।
সানরাইজার্সের হয়ে মাঠে নামার সুযোগ ছিল না
২৪এপ্রিল,বুধবার,ক্রীড়া ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) দু‌ই মৌসুম যাবত সানরাইজার্স হায়দরাবাদ দলের হয়ে খেলেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। গত আসরে রানার্সআপ হওয়া হায়দরাবাদের হয়ে সবকয়টি ম্যাচে মাঠে নামলেও, এবারের আসরে মাঠে নামার সুযোগই পাচ্ছেন না এই অলরাউন্ডার। এবার মৌসুমের প্রথম ম্যাচে সানরাইজার্সের হয়ে খেলার সুযোগ পেলেও পরের আট ম্যাচ টানা বেঞ্চে বসে থাকতে হয় বাংলাদেশের এই তারকা খেলোয়াড়কে। অবশেষে গতকাল চেন্নাই সুপার কিংসের বিপক্ষে মাঠে নামার সুযোগ হয় তার। ম্যাচেশেষে সাকিব জানালেন, দলে থাকা বিদেশি ক্রিকেটারদের দারুণ পারফরম্যান্স এবং কম্বিনেশনের কারণেই এতদিন দলে সুযোগ পাননি তিনি। তাঁর দলে ফেরার ম্যাচটাও হেরে গেছে সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। ম্যাচশেষে দলের হয়ে সংবাদ সম্মেলনে আসেন বাঁহাতি অলরাউন্ডার। খুব স্বাভাবিকভাবেই দলে সুযোগ না পাওয়া নিয়ে প্রশ্ন করা হয় তাকে। উত্তরে সাকিব জানান, দলে সুযোগ পেতে লম্বা সময় বেঞ্চে বসে থাকতে হতে পারে, এমন মানসিক প্রস্তুতি আগে থেকেই ছিল তার। সাকিব বলেন, যেভাবে আমাদের বিদেশি ক্রিকেটাররা পারফর্ম করেছে, আমি জানতাম এমনটা হবে। ওয়ার্নার, বেয়ারস্টোরা দলের ৬০-৭০ ভাগ রান করে দিচ্ছে। বিদেশি ক্রিকেটারদের এমন পারফরম্যান্সের কারণে আসলে আমাকে দলে নেওয়ার কোনো সুযোগই ছিল না। সানরাইজার্স দলটির অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করছেন কেন উইলিয়ামসন। দলে আছেন রশিদ খান, ডেভিড ওয়ার্নার, জনি বেয়ারস্টো, বিলি স্টেনলেক, মার্টিন গাপটিলের মতো খেলোয়াড়। এমন দলে সুযোগ পাওয়ার ক্ষেত্রে কঠিন প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে, এটাই স্বাভাবিক। তবে সুযোগ পেলে নিজেকে মেলে ধরতে সবসময় প্রস্তুত আছেন জানিয়ে সাকিব বলেন, পেশাগত দিক থেকে আমরা সবাই আমাদের দায়িত্ব সম্পর্কে সচেতন থাকি। দলের অনুশীলনে আমি কঠোর পরিশ্রম করছি এবং সুযোগ পেলে দলের হয়ে সেরাটা দেওয়ার জন্য সবসময় প্রস্তুত আছি। এবারের মৌসুমে প্রথম ম্যাচে কলকাতা নাইট রাইডার্সের বিপক্ষে মাঠে নামেন সাকিব আল হাসান। সেই ম্যাচে ব্যাট করার সুযোগ হয়নি এই অলরাউন্ডারের। পরে বল হাতে চার ওভারে ৪২ রান দিয়ে একটি উইকেট নেন তিনি। গতকাল চেন্নাইয়ের বিপক্ষে ম্যাচেও ব্যাট হাতে মাঠে নামার সুযোগ পাননি সাকিব। তবে নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে চার ওভারে মাত্র ২৭ রান দেন বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডার।
ব্যাংকার্স ক্রিকেট ফেস্টে চ্যাম্পিয়ন বিসিসি কোবরা
৭এপ্রিল,রবিবার,ক্রীড়া ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: দুদিনব্যাপী ব্যাংকার্স ক্রিকেট ফেস্টের তৃতীয় আসরের পর্দা নেমেছে গতকাল সাগরিকাস্থ মহিলা কমপ্লেক্স মাঠে। চূড়ান্ত খেলায় বিসিসি কোবরা ৬ রানে বিসিসি ওয়ারিয়রসকে পরাজিত করে এবারের আসরে চ্যাম্পিয়ন হয়। বিসিসি কোবরার সাদ্দাম ম্যান অফ দা ফাইনাল নির্বাচিত হন। এছাড়াও সাদ্দাম মোট ৪ উইকেট নিয়ে সেরা বোলার এবং ব্যাট হাতে ১২০ রান ও বল হাতে ৪ উইকেট নিয়ে ম্যান অফ দা টুর্নামেন্ট হন। ১৩১ রান করে ওয়ারিয়স এর জাহেদ সেরা ব্যাটসম্যান হন। খেলা শেষে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন স্পন্সর প্রতিষ্ঠান টেরাকোট্টার স্বত্বাধিকারি সাদমান ইসলাম, ডিজিএম ফারুক আহমেদ ইসি কমিটি ব্যাংকার্স ক্লাব, জহির আহমেদ মো. বাবর, এসইভিপি এবি ব্যাংক, নুরুল আরশাদ চৌধুরী ইভিপি ও নির্বাহী সদস্য ব্যাংকার্স ক্লাব, ফারুক আহমেদ নির্বাহী সদস্য, রাশেদুল আমিন যুগ্ম সম্পাদক ব্যাংকার্স ক্লাব, এস এম সোহেল নির্বাহী সদস্য, কায়েস চৌধুরী নির্বাহী সদস্য, আলি নেওয়াজ চৌধুরী সদস্য, মো. রফিক সদস্য, মেজবাহ উদ্দিন সদস্য, মো. মহিউদ্দিন সদস্য, মিসেস নাসরিন সদস্য, এস এম ওয়াহিদ সাদেক, সদস্য ব্যাংকার্স ক্লাব। উপস্থিত ছিলেন ব্যাংকার্স ক্রিকেট ফেস্টের আহবায়ক ও ব্যাংকার্স ক্লাবের ক্রীড়া সম্পাদক মো. তৌফিকুল ইসলাম বাবু, যুগ্ম আহবায়ক ফেরদৌস হাসান ও শাহজাহান হায়দার এবং ক্রিকেট কমিটির সদস্য ইকরাম পাশা।
বিশ্বকাপের জন্য দল ঘোষণা করল নিউজিল্যান্ড
৩এপ্রিল,বুধবার,ক্রীড়া ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সবার আগে বিশ্বকাপের দল ঘোষণা করল নিউজিল্যান্ড। ১৫ সদস্যের স্কোয়াডে একমাত্র বিস্ময় ব্যাকআপ উইকেট রক্ষক হিসেবে টম ব্লনডেলের অন্তর্ভুক্তি। এছাড়া স্পিনার ইস শোধিকেও রাখা হয়েছে স্কোয়াডে। ছয়বার সেমিফাইনাল এবং একবার ফাইনাল খেলা নিউজিল্যান্ড ইংল্যান্ডে ভাগ্যের সিকে ছিড়তে মরিয়া। কোচ গ্যারি স্টিড জানিয়েছেন ইংল্যান্ড এন্ড ওয়েলসে হতে যাওয়া এবারের আসরে নিউজিল্যান্ডকে নেতৃত্ব দেবেন কেন উইলিয়ামসন। তিনি বলেন,আমারা ১৫ সদস্যের স্কোয়াড দিয়েছি। আমরা সত্যিই মনে করি, এই দল টুর্নামেন্টে আমাদের অনেক দূর নিয়ে যাবে। আমরা যদি আমাদের সামর্থ্যের কাছাকাছি খেলতে পারি তাহলেই নিউজিল্যান্ডকে গর্বিত করতে পারবো। গত মাসে নিয়মিত উইকেট কিপার টম লাথাম ঘরোয়া ম্যাচে খেলতে গিয়ে আঙুলে চোট পাওয়ায় ব্যাকআপ উইকেটকিপার ব্লুন্ডেলকে রাখা হয়েছে। মিচেল স্যাটনারের সঙ্গে স্পিন আক্রমণে থাকছেন ইস শোধি এবং টোড অ্যাশলে। পেস আক্রমণে টিম সাউদি, ট্রেন্ট বোল্ট, লকি ফার্গুসন এবং ম্যাট হেনরির সঙ্গে অলরাউন্ডার জিমি নিশাম এবং কলিন ডি গ্রান্ডহোমরা তো থাকছেনই। অভিজ্ঞ মার্টিন গাপটিলের সঙ্গে ওপেনিংয়ে হয়তো দেখা যাবে হেনরি নিকোলসকে। এছাড়া কেন উইলিয়ামসনের সঙ্গে নিজেদের চতুর্থ বিশ্বকাপে ব্লাকক্যাপদের ব্যাটিং লাইনআপের মেরুদন্ড হিসেবে কাজ করবেন রস টেইলর। নিউজিল্যান্ডের বিশ্বকাপ স্কোয়াড: কেন উইলিয়ামসন (অধিনায়ক), টম ব্লুন্ডেল, ট্রেন্ট বোল্ট, কলিন ডি গ্রান্ডহোম, লকি ফার্গুসন, মার্টিন গাপটিল, ম্যাট হেনরি, টম লাথাম, কলিন মুনরো, জিমি নিশাম, হেনরি নিকোলস, মিচেল স্যাটনার, ইস শোধি, টিম সাউদ এবং রস টেইলর।
বিশ্বসেরা ক্রীড়াবিদের তালিকায় সাকিব-মুশফিক-মাশরাফি
১৮মার্চ,সোমবার,ক্রীড়া ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ইএসপিএনের তৈরি করা বিশ্বের বিখ্যাত ১০০ ক্রীড়াবিদের তালিকায় স্থান পেয়েছেন বাংলাদেশের তিন তারকা ক্রিকেটার- সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম ও মাশরাফি বিন মুর্তজা। এই তালিকার এক নম্বরে আছেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। এতে সাকিবের অবস্থান ৯০, মুশফিকের ৯২ আর মাশরাফির ৯৮। বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা এই প্রথমবারের মতো ইএসপিএনের বিখ্যাত ১০০ ক্রীড়াবিদের তালিকায় স্থান করে নিলেন। এতে বিশ্বের অন্য ক্রিকেটারদের মধ্যে আছেন বিরাট কোহলি (৭), মহেন্দ্র সিং ধোনি (১৩), যুবরাজ সিং (১৮), সুরেশ রায়না (২২), রোহিত শর্মা (৪৬), রবিচন্দ্রন অশ্বিন (৪২), হরভজন সিং (৭৪) ও শিখর ধাওয়ান (৯৪)। আর্জেন্টাইন তারকা লিওনেল মেসি আছেন তিন নম্বরে। রোনালদোর পরেই আছেন যুক্তরাষ্ট্রের বাস্কেটবল তারকা লেবর্ন জেমস। চার নম্বরে আছেন ব্রাজিলীয় ফুটবল তারকা নেইমার জুনিয়র। ৭৮টি দেশের প্রায় ৮০০ ক্রীড়াবিদের মধ্য থেকে এই তালিকা তৈরি করা হয়েছে। মূলত, তিনটি বিষয়কে এই তালিকা তৈরির সময় জোর দেয়া হয়েছে- গুগলে ওই নির্দিষ্ট খেলোয়াড়কে খোঁজার সংখ্যা, ফেসবুক-টুইটারে তাদের অনুসারীর সংখ্যা আর বিজ্ঞাপন ও পণ্যের দূতিয়ালি থেকে করা আয়।