ডাবল সেঞ্চুরি মুশফিকের
অনলাইন ডেস্ক: নির্ভরতার অপর নাম মুশফিকুর রহিম। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টেও সেই পরিচয় দিচ্ছেন তিনি। বুক চিতিয়ে লড়ছেন মিস্টার ডিপেন্ডেবল। ইতিমধ্যে ডাবল সেঞ্চুরি করে ফেলেছেন এ উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান। এ নিয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেটে অনন্য নজির গড়লেন মুশি। বিশ্বের প্রথম উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান এবং দেশের প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে টেস্টে দুইবার দ্বিশতক করার কীর্তি গড়লেন তিনি। এর আগে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ২০১৩ সালে গলে কাঁটায় ২০০ রান করেন তিনি। সেটিও ছিল দেশের টেস্ট ইতিহাসে প্রথম ডাবল সেঞ্চুরি। বাংলাদেশের হয়ে ক্রিকেটের আদি ফরম্যাটে ডাবল সেঞ্চুরি আছে কেবল দুজনের-সাকিব আল হাসান ও তামিম ইকবালের। টাইগারদের হয়ে সর্বোচ্চ ২১৭ রানের ইনিংসটি সাকিবের। ২০১৭ সালে ওয়েলিংটনে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে এ ইতিহাস গড়েন। আর ২০১৫ সালে পাকিস্তানের বিপক্ষে খুলনায় ২০৬ রানের অনিন্দ্যসুন্দর ইনিংস খেলেন তামিম। বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার ও ড্যাশিং ওপেনার দুজনকেই ছাড়িয়ে যাওয়ার সুযোগ থাকছে মুশফিকের সামনে। শেষ খবর পর্যন্ত দ্বিতীয় সেশন শেষে ১৬০ ওভারে ৭ উইকেটে ৫২২ রান করেছে বাংলাদেশ। ২১৯ রান নিয়ে ক্রিজে আছেন মুশফিক। মিস্টার পার্টনারকে দারুণ সঙ্গ দিচ্ছেন মেহেদী হাসান মিরাজ। তিনিও ফিফটি তুলে নিয়েছেন। তার সংগ্রহ ৬৮ রান। আগের দিনের ৫ উইকেটে ৩০৩ রান নিয়ে দ্বিতীয় দিন ব্যাট করতে নামে বাংলাদেশ। মুশফিকুর রহিম ১১১ এবং মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ শূন্য রান নিয়ে খেলা শুরু করেন। প্রথম ইনিংসে চারশ, সাড়ে চারশ ছাড়ানোর লক্ষ্য নিয়ে ব্যাটিং শুরু করেন তারা। তাদের অসাধারণ নৈপুণ্যে দুর্দান্ত গতিতে সেই পথে এগিয়ে যায় স্বাগতিকরা। দারুণ মেলবন্ধন গড়ে উঠে তাদের মধ্যে। কোনো উইকেট না দিয়ে প্রথম সেশনে ৬২ রান যোগ করেন তারা। উইকেটশূন্য সেশনে বড় একটা ধাক্কা খায় জিম্বাবুয়ে। স্ট্রেচারে করে মাঠ ছাড়েন দারুণ বোলিং করা টেন্ডাই চাতারা। টানা পঞ্চম ওভার করছিলেন তিনি। কিন্তু ওভার শেষ করতে পারেননি। তৃতীয় বল করার পর বাম পায়ের পেশিতে টান পান। স্ট্রেচারে দ্রুত মাঠের বাইরে নেয়া হয়। ম্যাচে তাকে পাওয়ার সম্ভাবনা খুবই ক্ষীণ। ওভারের বাকি চার বল করেন ডোনাল্ড তিরিপানো। সাবলীল ব্যাটিংয়ে নির্বিঘ্নে কঠিনতম সেশনটা কাটিয়ে দেন মুশফিক-মাহমুদউল্লাহ। কিন্তু লাঞ্চ বিরতির পর হঠাৎই কক্ষচ্যুত হন মাহমুদউল্লাহ। কাইল জার্ভিসের বলে রেজিস চাকাভাকে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক (৩৬)। এর আগে মিস্টার পার্টনারের সঙ্গে ৭৩ রানের জুটি গড়েন তিনি। খানিক বাদেই তার পথ অনুসরণ করেন আরিফুল হক। ফের শিকারী কাইল জার্ভিস। তার বলে ব্রায়ান চারির হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন গেল টেস্টে বাংলাদেশের সেরা পারফরমার। তাকে শিকার বানানোর বদৌলতে ক্রিকেটের অভিজাত সংষ্করণে তৃতীয়বারের মতো ৫ উইকেট ঝুলিতে ভরেন জার্ভিস।
শুরুটা ভালোই করেছেন মুশফিক-রিয়াদ
অনলাইন ডেস্ক: রোববার মিরপুরের সকালটা ছিল দুঃস্বপ্নময়। প্রথম ঘণ্টায় ৩ উইকেট হারিয়ে ধুঁকছিল বাংলাদেশ। কিন্তু মুমিনুল হক ও মুশফিকুর রহীমের দুইটি ধ্রুপদী ইনিংসে দিনটা চালকের আসনে থেকেই শেষ করতে পেরেছিল স্বাগতিকরা। প্রথম দিন শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৫ উইকেটে ৩০৩ রান। আজ সোমবার দ্বিতীয় দিনের খেলা ৯টা ৩০ মিনিটে শুরু হয়েছে।এরিপোর্ট লেখা পর্যন্ত বাংলাদেশের সংগ্রহ ১১১ ওভারে ৩৪১/৫ উইকেট। মুশফিক(১১৮) ও মাহমুদউল্লাহ (২৯) রান নিয়ে মাঠে আছে। গতকাল দিনটা বাংলাদেশের হলেও মুমিনুলের ডাবল সেঞ্চুরি না হওয়ার আক্ষেপ ছিল কিছুটা। দিনের চতুর্থ সেশনের শেষ দিকে ব্যক্তিগত ১৬১ রানে টেন্ডাই চাতারার বলে আউট হয়ে যান মুমিনুল। এরপর নাইট ওয়াচ ম্যান তাইজুলও খুব বেশিক্ষণ স্থায়ী হননি ক্রিজে। কাইল জার্ভিস ফিরিয়ে দেন তাইজুলকে (৪)। তাপরই প্রথম দিনের খেলা শেষের ঘোষণা দেন আম্পায়ার।
সিরিজ বাঁচাতে টস জিতে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ
অনলাইন ডেস্ক: টেস্টে জয় ছাড়া কোনো উপায় নেই বাংলাদেশের। এরই লক্ষ্যে সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন টাইগার অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। এর আগে সিলেট টেস্টে ১৫১ রানের বড় ব্যবধানে হেরে পিছিয়ে পড়ে বাংলাদেশ। মিরপুর শের ই বাংলায় ম্যাচটি শুরু হবে সকাল ৯ টা ৩০ মিনিটে। বাংলাদেশ একাদশ (সম্ভাব্য): ইমরুল কায়েস, লিটন দাস, মুমিনুল হক, মোহাম্মদ মিঠুন/নাজমুল হোসেন শান্ত, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ (অধিনায়ক), মুশফিকুর রহিম, আরিফুল হক, মেহেদি হাসান মিরাজ, তাইজুল ইসলাম, মোস্তাফিজুর রহমান, নাজমুল ইসলাম/আবু জায়েদ রাহি। জিম্বাবুয়ে একাদশ (সম্ভাব্য): হ্যামিল্টন মাসাকাদজা (অধিনায়ক), ব্রায়ান চারি, ব্র্যান্ডন টেইলর, শেন উইলিয়ামস, সিকান্দার রাজা, পিটার মুর, রেগিস চাকাভা, ব্র্যান্ডন মাভুতা, ওয়েলিংটন মাসাকাদজা, কাইল জারভিস, তেন্দাই চাতারা।
হার দিয়ে শুরু সালমাদের
অনলাইন ডেস্ক: প্রত্যাশার সঙ্গে প্রাপ্তির দেখা হল না। আইসিসি নারী টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপ ক্রিকেটের শুরুতেই হোঁচট খেলো বাংলাদেশের মেয়েরা। উদ্বোধনী ম্যাচে শনিবার টাইগ্রেসদের অনায়াসে হারাল স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ২০ ওভারের বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে ব্যাট হাতে ব্যর্থ বাংলাদেশের মেয়েরা। দুঃখজনক হলেও সত্য দলের কোন ব্যাটসম্যানই দুই অঙ্কের স্কোরের দেখা পাননি। যার পথ ধরে দল অলআউট মাত্র ৪৬ রানে। গায়ানায় শনিবার ভোরে অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপের গ্রুপ এ-এর ম্যাচে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে উইন্ডিজের মেয়েরা ২০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে করে ১০৬ রান। জবাব দিতে নেমে টাইগ্রেসরা শুধু উইকেটে আসা-যাওয়ার খেলায় মেতেছেন। আর দল হেরেছে ৬০ রানের বড় ব্যবধানে। ম্যাচটা হারলেও টস ভাগ্য ঠিকই সঙ্গে ছিল বাংলাদেশের মেয়েদের। এমন কী বল হাতেও সফল ছিলেন সালমা খাতুনরা। তারই পথ ধরে স্বাগতিক দলকে মাত্র ১০৬ রানে আটকে রাখতে পেরেছিল দল। উইন্ডিজের কার্সিয়া নাইট করেন ৩২ রান। জাহানারা আলম ৩ উইকেট নেন মাত্র ২৩ রানে। রুমানা আহমেদ ১৬ রানে তুলেছেন ২ উইকেট। একটি করে উইকেট নিয়েছেন সালমা খাতুন ও খাদিজাতুল কুবরা। কিন্তু জবাব দিতে নেমে উইন্ডিজের বোলারদের সামনে একেবারে অসহায় ছিল মেয়েরা। কেউই দুই অঙ্কে যেতে পারলেন না। দলীয় সর্বোচ্চ ৮ রান করেন ফারজানা আলম। ১৪.৪ ওভারে অলআউট টাইগ্রেসরা। ৬ রানে ৫ উইকেট নেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের দেবান্দ্রা ডোটিন।
বিশ্বকাপের প্রস্তুতি ম্যাচে পাকিস্তানের বিপক্ষে আট রানে হেরেছে বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দল
অনলাইন ডেস্ক: আইসিসি নারী টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রস্তুতি ম্যাচে বুধবার পাকিস্তানের বিপক্ষে আট রানে হেরেছে বাংলাদেশ জাতীয় নারী ক্রিকেট দল। পাকিস্তানের দেয়া ১০৭ রানের জয়ের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে নয় উইকেটে ৯৮ রান সংগ্রহ করে সালমা খাতুনের দল। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ২৮ রান করেন ফারজানা হক। অন্যদের মধ্যে রুমানা আহমেদ ১০ ও লতা মন্ডল ১০ রান করেন। অধিনায়ক সালমা খাতুন ৯ রান করে অপরাজিত থাকেন। পাকিস্তানের বোলারদের মধ্যে আইম্যান আনোয়ার ২টি, আনাম আমিন ১টি, সানা মীর ২টি ও বিসমাহ মারুফ ২টি করে উইকেট শিকার করেন। গায়ানাতে অনুষ্ঠিত ম্যাচটিতে এর আগে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে সাত উইকেটে ১০৬ রান সংগ্রহ করে পাকিস্তান। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ২২ রান করেন বিসমাহ মারুফ। ২১ রান করেন জাভেরিয়া খান। বাংলাদেশের বোলারদের মধ্যে সালমা খাতুন ২টি, খাদিজা তুল কুবরা ২টি, রুমানা আহমেদ ১টি ও ফাহিমা খাতুন ১টি করে উইকেট শিকার করেন। আগামী ৯-২৪ নভেম্বর ওয়েস্ট ইন্ডিজে অনুষ্ঠিত হবে আইসিসি নারী টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ষষ্ঠ আসর। টুর্নামেন্টে অংশ নিবে দশটি দল। এই আসরে বাংলাদেশ খেলবে এ- গ্রুপে। এই গ্রুপে অন্য চারটি দল হচ্ছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ, ইংল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা ও শ্রীলঙ্কা। বি গ্রুপে খেলবে অস্ট্রেলিয়া, ভারত, নিউজিল্যান্ড, পাকিস্তান ও আয়ারল্যান্ড।
ক্রিকেটার বিরাট কোহলির জন্মদিন আজ
অনলাইন ডেস্ক: আজ ভারতীয় ক্রিকেটার বিরাট কোহলির জন্মদিন। আনুষ্কা শর্মার সঙ্গে বিয়ের পর এটাই তার প্রথম প্রথম জন্মদিন। দীর্ঘদিনের বিয়ের পর বিরুষ্কা জুটির বিয়ে হয়েছে। সেক্ষেত্রে তাদের জুটির দিকে ভক্তরা খুঁজে ভালো এক রসায়ন। আর স্বাভাবিকভাবে জানতেও মন চায় একজন স্টার তার সঙ্গীর জন্ম দিনে কি দিতে পারে উপহার। ভক্তদের নিরাশ করেননি বিরুষ্কা দম্পত্তি। ৩০ বছরের জন্মদিনে গোটা দেশ যেমন শুভেচ্ছা ক্যাপ্টেনকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানিয়েছে, তেমনি নিজের মানুষটাকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন অনুষ্কাও। তবে শুভচ্ছোটা একদম অন্যভঙ্গিতে। তবে ভক্তদের হৃদয় জিতে নিয়েছে অনুষ্কা শর্মার শুভেচ্ছা জানানোর সেই পোস্ট। টুইটে অনুষ্কা শর্মা ঈশ্বরকে ধন্যবাদ দেন। বলেন, ওকে জন্ম দেওয়ার জন্য ঈশ্বরকে ধন্যবাদ। বিরাটের জন্মদিনে বিরুষ্কা দম্পত্তি অনন্তধাম আত্মবোধ আশ্রমে গিয়েছিলেন। মহারাজ অনন্ত বাবা অনুষ্কার পারিবারিক গুরু। তাঁর আশীর্বাদ নিয়েই নতুন বছর শুরু করলেন ভারত অধিনায়ক। এছাড়া মাইলস্টোন ম্যান বিরাটের জন্মদিনে এদিন শুভেচ্ছা বার্তা টুইট করেন সচিন তেণ্ডুলকর। রসিকতা করে সহবাগ নিজের টুইটে লেখেন, ধনতেরাসের দিনে রানতেরাস(রানবৃষ্টি)-এর শুভেচ্ছা তোমার জন্য। প্রসঙ্গত, প্রিয় ক্যাপ্টেনের জন্মদিনে শুভেচ্ছা টুইট এসেছে সুরেশ রায়না, ভিভিএস লক্ষ্মণ, মহম্মদ সামির কাছ থেকে। টিম মেম্বারদের পাশাপাশি দেশের বাইরে থেকেও বিরাট শুভেচ্ছা পেয়েছেন কোহলি।
এবারের বিপিএলে প্রথমবারের মত সুযোগ পেলো তরুণ ক্রিকেটার সানজিত-ফারদিন
অনলাইন ডেস্ক: এবারের বিপিএলে প্রথমবারের মত সুযোগ পেয়েছেন স্পিনার সানজিত সাহা দ্বীপ ও ব্যাটসম্যান ফারদিন হাসান। সানজিত খেলবেন কুমিল্লায় ও ফারদিনকে দলে নিয়েছে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন রংপুর রাইডার্স। ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক লিগে খেলার সুযোগ পেয়ে দু-জনই দারুণ খুশি। বিপিএলের মঞ্চকে কাজে লাগিয়ে নিজেদের পরিনত করতে চান এই দুই তরুণ ক্রিকেটার। দেশের ক্রিকেটে সানজিত সাহা পরিচিত, কিন্তু ফারদিনের নামটা অজানা। প্রিমিয়ার লিগে গেলো মৌসুম খেলেছেন শাইন পুকুর ক্রিকেটার্সে। পারফরম্যান্সে খুব একটা আলোচিত হন নি। কিন্তু রংপুর রাইডার্স ঠিকই খুজে নিয়েছে প্রতিভা। তারকাদের ভিড়েও বর্তমান চ্যাম্পিয়নদের দলে জায়গা করে নিয়েছেন ফারদিন। সানজিতের বিপিএল অভিজ্ঞতাটা আরো আগেই হতো। ছিলেন জাতীয় দলের সাবেক কোচ হাতুরুসিংহের রাডারেও। কিন্তু বোলিং অ্যাকশন নিয়ে জটিলতা থাকায় গেলো আসরে খেলা হয়নি বিপিএলে। তবে এবার আরেক তারকাখচিত দল কুমিল্লায় আছেন সানজিত। দু'জনের জন্যই নতুন অভিজ্ঞতা হবে বিপিএল। দেশ-বিদেশের তারকা ক্রিকেটারদের সঙ্গে খেলতে মুখিয়ে আছেন দুই তরুণ তুর্কী। নড়াইলে জন্ম হলেও এবার জাতীয় ক্রিকেট লিগে সানজিতের সঙ্গে রংপুরের হয়ে খেলছেন ফারদিন। সানজিত অনূর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপে খেললেও, ফারদিনের হয়নি সেই সুযোগ। তবে বিপিএলকে দু'জনই দেখছেন নিজেদের গড়ে তোলার মঞ্চ হিসেবে। তাসকিন, আরিফুল, আবু হায়দার রনি কিংবা সম্প্রতি খালেদ। সবার উত্থানটা বিপিএল দিয়েই। পরের গল্পটাও জানা। সানজিত-ফারদিনরাও অগ্রজদের মত জাতীয় দলে খেলার স্বপ্ন বোনা শুরু করছে বিপিএল দিয়েই।
টেস্ট অভিষেক ঘোষণা করা হলো সিলেট স্টেডিয়ামের
অনলাইন ডেস্ক: আরও একটি টেস্ট ভেন্যুর অভিষেক হয়ে গেলো বাংলাদেশে। সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সকালে দুই প্রতিদ্বন্দ্বী দলের অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ এবং হ্যামিল্টন মাসাকাদজার হাতে স্মারক তুলে দেয়ার মাধ্যমে টেস্ট অভিষেক ঘোষণা করা হলো সিলেট স্টেডিয়ামের। ইতিহাসের পাতায় প্রবেশ করলেন রিয়াদ এবং মাসাকাদজা। এরপরই প্রথম টেস্টের টস করার পালা। কয়েন নিক্ষেপ করলেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। হেড না টেল- বললেন মাসাকাদজা। তাতে জয় এলো মাসাকাদজারই। টস জিতে প্রথমে ব্যাট করার ঘোষণা দিলেন তিনি। নিয়মিত অধিনায়ক সাকিব আল হাসান নেই। নেই তামিম ইকবালও। মাশরাফি তো আগে থেকেই টেস্ট ক্রিকেটে নেই। সুতরাং, পঞ্চপাণ্ডবের তিনজনই নেই। রয়েছেন কেবল মুশফিকুর রহীম আর মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। বাকিরা সবাই নতুন। এই নতুনের আবাহন নিয়ে এবার সিলেটে জিম্বাবুইয়ানদের মুখোমুখি হচ্ছে বাংলাদেশ। সাকিব আল হাসান না থাকার কারণে জিম্বাবুয়ে সিরিজে নেতৃত্বের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের কাঁধে। চলতি বছরের শুরুর দিকে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষেও টেস্টে বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন রিয়াদ। সে ধারাবাহিকতায় এবারও তিনি অধিনায়ক। বাংলাদেশ একাদশ লিটন দাস, ইমরুল কায়েস, নাজমুল হোসেন শান্ত, মুমিনুল হক, মুশফিকুর রহীম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ (অধিনায়ক), আরিফুল হক, মেহেদী হাসান মিরাজ, তাইজুল ইসলাম, নাজমুল ইসলাম অপু এবং আবু জায়েদ রাহী।
সিলেটে অভিষেক টেস্ট শুরু হবে ঘণ্টা বাজিয়ে
অনলাইন ডেস্ক: সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম টেস্ট ভেন্যু হিসেবে যাত্রা শুরু করবে শনিবার। টেস্ট ভেন্যুর অভিষেকলগ্ন রাঙিয়ে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থা। আজ বৃহস্পতিবার বিকেল ৩টায় নগরীর রেজিস্ট্রি মাঠ থেকে র;্যালি বের করা হবে। র;্যালিতে অংশ নেবেন জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা। বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজের প্রথম ম্যাচ সিলেটে শুরু হবে ৩ নভেম্বর। এই ম্যাচ দিয়েই টেস্ট ভেন্যু হিসেবে আত্মপ্রকাশ করতে যাচ্ছে এই স্টেডিয়াম। বাংলাদেশ জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা এখন সিলেটে অনুশীলন করছেন। স্থানীয় দুই ক্রিকেটার সৈয়দ খালেদ আহমদ ও আবু জায়েদকে নিয়ে রয়েছে বাড়তি উদ্দীপনা। সিলেট স্টেডিয়ামের সঙ্গে খালেদেরও টেস্টে অভিষেক হতে পারে, এমন প্রত্যাশা স্থানীয় ক্রীড়া সংগঠকদের। এদিকে সিলেটের অভিষেক টেস্ট ম্যাচকে সামনে রেখে বুধবার নগরীর একটি হোটেলে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে সিলেট বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থা। সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) পরিচালক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল বলেন,সিলেটে অভিষেক টেস্টকে স্মরণীয় করে রাখতে চাই আমরা। তিনি বলেন, ক্রিকেটের রীতিনীতি অনুসারে খুব বেশি কিছু আয়োজনের সুযোগ নেই। টেস্ট ক্রিকেটের চিরায়ত ঐতিহ্যের কাছে আমরা ফিরে যেতে চাই। এজন্য সিলেটে অভিষেক টেস্ট উপলক্ষে ঘণ্টা নিয়ে এসেছি। এই ঘণ্টা বাজিয়ে রেফারি ম্যাচ শুরু করবেন। অভিষেক ম্যাচকে স্মরণীয় করে রাখতে স্যুভেনির বের করা হবে। সিলেটের ক্রিকেটের ইতিহাস, ঐতিহ্যসহ নানা বিষয় নিয়ে থাকছে বিশেষ প্রকাশনা। থাকছে স্মারক মুদ্রা, যা দিয়ে ম্যাচের টস হবে। দু দলের জন্য থাকছে বিশেষ স্মারক। নাদেল বলেন, ২০১৪ টি ২০ বিশ্বকাপের আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামের উদ্বোধন করেন। শুধু ক্রিকেটের কথা মাথায় রেখেই নির্মাণ করা হয়েছে এই স্টেডিয়াম। অন্যান্য ভেন্যুর তুলনায় এ স্টেডিয়ামের সুযোগ-সুবিধা অনেক বেশি। সাংবাদিকরাও শুরু থেকেই এ স্টেডিয়ামের বিষয়ে ইতিবাচক ভূমিকা রেখেছেন। সিলেট বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থার অধীনে একটি ক্রিকেট একাডেমির কার্যক্রম শুরু হবে বলে জানান নাদেল। সেই লক্ষ্যে সিলেট বিভাগের চার জেলায় ক্রিকেটার অন্বেষণ কার্যক্রম শেষ হয়েছে। তাদের নিয়ে এক মাসের ক্যাম্প হবে। শনিবার ক্রিকেট একাডেমির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন সিলেট বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মারিয়ান চৌধুরী মাম্মি, সহ-সভাপতি হেলাল উদ্দিন, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মাহি উদ্দিন আহমদ সেলিম, বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থার কোষাধ্যক্ষ তকরিমুল হাদী কাবী, সাবেক কোষাধ্যক্ষ শহীদ আহমদ জুয়েল, সদস্য ইমরান আহমদ, পাপলু দত্ত, বিভাগীয় ব্যাডমিন্টন কমিটির চেয়ারম্যান কামরান আহমদ, সিলেট ক্রিকেট স্টেডিয়ামের ভেন্যু ম্যানেজার জয়দ্বীপ দাস সুজক, ভেন্যু মিডিয়া ইনচার্জ ফরহাদ কোরেশী।