সোমবার, মার্চ ৩০, ২০২০
বেতন নিয়ে প্রাথমিক শিক্ষকদের জন্য দারুণ সুখবর
০৭জানুয়ারী,মঙ্গলবার,শিক্ষা ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষকদের যারা চলতি দায়িত্বে আছেন, তাদের জন্য সুখবর আসছে। দ্রুতই তাদের প্রধান শিক্ষক পদে পদোন্নতি দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। এ কারণে নতুন করে আর এ পদে নিয়োগ দেয়া হবে না। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন মন্ত্রণালয়ের সচিব আকরাম-আল-হোসেন। এ বিষয়ে সচিব বলেন, আদালতে মামলাজনিত কারণে দীর্ঘদিন ধরে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ কার্যক্রম স্থগিত রয়েছে। এ কারণে জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে দেশের বিভিন্ন জেলায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শূন্য আসনের বিপরীতে সহকারী শিক্ষকদের প্রধান শিক্ষদ পদে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। বর্তমানে চলতি দায়িত্বে থাকা এসব শিক্ষকদের মূল বেতনের অতিরিক্ত আরও এক হাজার ৫০০ টাকা দেয়া হচ্ছে। এর বাইরে আর কোনো সুবিধা দেয়া হচ্ছে না। বর্তমানে এসব শিক্ষকদের প্রধান শিক্ষক পদে পদোন্নতি দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তাদের ১১তম গ্রেডে বেতন-ভাতা সুবিধা দেয়া হবে। ইতোমধ্যে বিসিএস পরীক্ষায় নন-ক্যাডার থেকে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক নিয়োগ না দিতে মন্ত্রণালয় থেকে পিএসসিকে লিখিতভাবে জানানো হয়েছে। পাশাপাশি মন্ত্রণালয়ের আওতায় এ পদে নিয়োগ ও পদোন্নতি হস্তান্তর করার সুপারিশ করা হয়েছে। নিয়োগবিধি অনুযায়ী দশম গ্রেড পর্যন্ত নিয়োগ পিএসসির আওতাভুক্ত। এ কারণে প্রাথমিক শিক্ষকদের নিয়োগ প্রদানকারী এ প্রতিষ্ঠান নিয়োগ কার্যক্রম তাদের কাছে হস্তান্তর করতে যৌক্তিক কারণ জানতে চেয়েছে পিএসসির কাছে। সচিব আকরাম-আল-হোসেন বলেন, আমরা অন্যান্য সংস্থার মতো প্রধান শিক্ষক নিয়োগের যথাযথ ব্যাখ্য প্রদান করব। পিএসসি থেকে হস্তান্তর করা হলে পর্যায়ক্রমে চলতি দায়িত্বে থাকা শিক্ষকদের প্রধান শিক্ষক পদে পদোন্নতি দেয়া হবে। নতুন করে সরাসরি নিয়োগ বাতিল করে জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে সহকারী শিক্ষকদের পদোন্নতির মাধ্যমে প্রধান শিক্ষক পদে বসানো হবে। এ লক্ষ্যে শিক্ষক নিয়োগ বিধিমালা সংশোধন করা হয়েছে। জানা গেছে, আগে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে সহকারী শিক্ষদের পদোন্নতি দিয়ে ৬০ শতাংশ প্রধান শিক্ষক এবং ৪০ শতাংশ পিএসসি থেকে নিয়োগ দেয়া হতো। পিএসসি থেকে প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ পাওয়া শিক্ষকরা ১০তম গ্রেডে বেতন-ভাতা সুবিধা পান আর সহকারী শিক্ষদের মধ্যে পদোন্নতি পেয়ে এ পদে আসলে ১২তম গ্রেডে বেতন-ভাতা পান। এ বৈষম্য দূরীকরণে আদালতে মামলা দায়ের করেন ভুক্তভোগীরা। এরপর থেকে প্রধান শিক্ষক পদে পদোন্নতি কার্যক্রম স্থগিত রাখা হয়। শূন্য আসন পূরণে জ্যেষ্ঠ সহকারী শিক্ষকদের চলতি দায়িত্বে এ পদে বসানো হয়।
প্রাথমিক ও ইবতেদায়িতে পাসের হার ৯৫.৫০ শতাংশ
৩১ডিসেম্বর,মঙ্গলবার,শিক্ষা ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষার (পিইসি) ফল প্রকাশ করা হয়েছে। এবার পরীক্ষায় পাসের হার ৯৫ দশমিক ৫০ শতাংশ। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩ লাখ ২৬ হাজার ৮৮ জন। আজ মঙ্গলবার দুপুরে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে ফলাফলের এ তথ্য জানান প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন। এবারের প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় মোট ২৪ লাখ ৫৪ হাজার ১৫১ জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে। উত্তীর্ণদের মধ্যে ১০ লাখ ৭২ হাজার ১৫৪ জন ছাত্র এবং ১২ লাখ ৭১ হাজার ৫৮৯ জন ছাত্রী রয়েছে। ফলাফলে ছাত্রদের পাসের হার ৯৫ দশমিক ৩৭ শতাংশ এবং ছাত্রীদের পাসের হার ৯৫ দশমিক ৬১ শতাংশ। অর্থাৎ প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় গড় পাসের দিক থেকে মেয়েরা এগিয়ে আছে। এবার পাসের হার বিবেচনায় আট বিভাগের মধ্যে বরিশাল শীর্ষে রয়েছে। উক্ত বিভাগের পাসের হার ৯৬ দশমিক ৯৩ শতাংশ। আর ৬৪ জেলার মধ্যে গাজীপুর জেলা প্রথম স্থানে রয়েছে, উক্ত জেলায় পাসের হার ৯৯ দশমিক ১৪ শতাংশ। এ ছাড়া ৫১০ উপজেলার মধ্যে একটি উপজেলা ভোলার দৌলতখানে শতভাগ পাস করেছে। এর আগে গণভবনে সকাল ১০টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে পঞ্চম ও অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার ফলাফলের অনুলিপি তুলে দেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন। এরপর বিভিন্ন বোর্ডের চেয়ারম্যানরা নিজ নিজ বোর্ডের ফলাফল প্রধানমন্ত্রীর হাতে তুলে দেন। দুপুর ১২টার কিছু আগে জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয়। এরপর দুপুরে ঘোষণা করা হয় প্রাথমিক সমাপনী ও ইবতেদায়ি পরীক্ষার ফল।
জেএসসিতে পাসের হার ৮৭ দশমিক ৯০ শতাংশ
৩১ডিসেম্বর,মঙ্গলবার,শিক্ষা ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: এবার অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের সমাপনী পরীক্ষা জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি)পরীক্ষায় পাসের হার ৮৭ দশমিক ৯০ শতাংশ। যা গত বছর ছিল ৮৫ দশমিক ৮৩ শতাংশ। গতবারের চাইতে এ বছর ২ দশমিক ০৭ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। এবার জিপিএ-৫ পেয়েছে মোট ৭৮ হাজার ৪২৯ জন, যা গত বছর ছিল ৬৮ হাজার ৯৫ জন। ফলে এবার জিপিএ-৫ বেড়েছে ১০ হাজার ৩৩৪ জন। দুই স্তরে পাস করেছে মোট ২২ লাখ ৭৮ হাজার ২৭১ জন পরীক্ষার্থী। এবার পাসের হার ও জিপিএ-৫ দুটোই বেড়েছে। মঙ্গলবার সচিবালয়ে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি সংবাদ সম্মেলন করে জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষার ফল প্রকাশ করেন। এবছর জেএসসিতে পরীক্ষা দিয়েছে মোট ২২ লাখ ২১ হাজার ৫৯১ জন শিক্ষার্থী। তার মধ্যে পাস করেছে ১৯ লাখ ৪৫ হাজার ৭১৮ জন। অপরদিকে জেডিসেতে মোট পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৩ লাখ ৮০ হাজার ৪৪২ জন। তার মধ্যে পাস করেছে ৩ লাখ ৪১ হাজার ৫৫৩ জন। দেশের বাইরের ৯টি কেন্দ্রে এবার জন জেএসসি পরীক্ষায় ৪২৩ অংশ নিয়ে পাস করেছে ৪১৯ জন। উল্লেখ্য, এবার এই দুই পরীক্ষায় মোট পরীক্ষার্থী ২৬ লাখ ৬১ হাজার ৬৮২ জন। এর মধ্যে জেএসসি পরীক্ষার্থী ২২ লাখ ৬০ হাজার ৭১৬ জন পাস করেছে।
শিক্ষকদের গবেষণার কাজে মনোযোগী হতে হবে :শিক্ষামন্ত্রী
২৭ ডিসেম্বর,শুক্রবার,অনলাইন ডেস্ক ,নিউজ একাত্তর ডট কম: শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি জানিয়েছেন, দেশের ১৩টি শতবর্ষী সরকারি কলেজ হবে সেন্টার অব এক্সিলেন্স। শুক্রবার (২৭ ডিসেম্বর) রাজশাহী কলেজে এইচএসসি অ্যালামনাইয়ের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা জানান। শিক্ষার মানের দিকে নজর দেয়ার আহ্বান জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, শিক্ষার উন্নয়নে শিক্ষকদের পিছনে বিনিয়োগ করতে হবে। শিক্ষকদের গবেষণার কাজে মনোযোগী হতে হবে। আগামী বিশ্বের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় মানব সম্পদের উন্নয়ন জরুরি। এ জন্য সরকার সবধরনের সহযোগিতা দেবে। প্রচীনতম এ কলেজে ১০ তলা বিশিষ্ট ছাত্রী নিবাস ও প্রশাসনিক ভবন নির্মাণসহ সকল সমস্যা সমাধানে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হবে বলেও আশ্বাস দেন মন্ত্রী। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মু. হবিবুর রহমান। বক্তব্য রাখেন, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, তথ্য যোগাযোগ ও প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, নাটোর-৪ আসনের সাংসদ আব্দুল কুদ্দুস, রাজশাহী-৩ আসনের সংসদ সদস্য আয়েন উদ্দিন, সংরক্ষিত আসনের সাংসদ আদিবা আনজুম মিতা। দুইদিন ব্যাপী এই অ্যালামনাই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। উদ্বোধনী দিনে বেলা ১১টার দিকে ক্যাম্পাস থেকে RAILLY বের করা হয়। RAILLYতে প্রতিটি ব্যাচের সাবেক শিক্ষার্থীরা অংশ নেন। এটিই দেশের সর্বপ্রথম এইচএসসি এবং সর্ববৃহৎ অ্যালামনাই বলে দাবি করেছেন আয়োজকরা। অ্যালামনাই পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে যোগ দিতে নিবন্ধন করেন নয় হাজার সাবেক শিক্ষার্থী। এর মধ্যে রয়েছে ১৯৪৭ থেকে ২০২১ সালের ব্যাচ। ১৯৪৭ থেকে ১৯৬০ সালের ব্যাচের ৪৩ জন নিবন্ধন করেন। যার মধ্যে ৪৭ সালের একজন। উল্লেখ্য, ১৮৭৩ সালে কলেজটি প্রতিষ্ঠিত হয়।
ডাকসুতে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের ভাঙচুর,ভিপি নুরকে মারধর
২২ডিসেম্বর,রবিবার,শিক্ষা ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সহ-সভাপতি নুরুল হক নুরের রুমসহ ডাকসু ভবনে ভাঙচুর চালিয়েছে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ। রোববার (২২ ডিসেম্বর) দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। এসময় নুরসহ বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম-আহ্বায়ক রাশেদ খান, ফারুক হাসানসহ তিনজনকে কক্ষে আটকে মারধর করা হয়। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের একাংশের সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুল, সাধারণ সম্পাদক আল মামুন, ঢাবি শাখার সভাপতি সনেটের নেতৃত্বে অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী এ হামলায় অংশ নেন। পরে তাদের সঙ্গে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরাও যোগ দেয়। ছাত্রলীগের ঢাবি শাখার সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস, সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেনও ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন। ডাকসু ভবনে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের হামলায় আহত বহু শিক্ষার্থী। ছবি: শাকিল আহমেদ ডাকসু ভবনের মূল ফটক বন্ধ করে নুরসহ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের নেতাকর্মীদের ওপর দেশীয় অস্ত্র (লাঠিসোটা, ইট) নিয়ে হামলা করা হয়। এসময় হেলমেট পরিহিত বহিরাগতদের অংশ নিতে দেখা যায়। হামলায় ডাকসু ভবনের মূল ফটকসহ জানালার গ্লাস ভেঙে যায়। ঘটনাস্থলে এসেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. একেএম গোলাম রব্বানী। এদিকে এ ঘটনায় আহত ২০ জনকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। এদের মধ্যে ১ জন ছাড়া বাকিদের অবস্থা স্বাভাবিক। ঢাকা মেডিক্যাল পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ ইন্সপেক্টর বাচ্চু মিয়া সোয়া দুইটার দিকে জানিয়েছিলেন, এ পর্যন্ত ৮ জন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। এদের মধ্যে একজনের অবস্থা গুরুতর। বাকিদের শরীরে কিল ঘুষির আঘাত দেখা গেছে। ঢামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে এম নাসির উদ্দিন সাংবাদিকদের জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের ঘটনায় ১৫ থেকে ২০ জন আহত হয়ে আমাদের হাসপাতালে চিকিৎসা নেওয়ার জন্য এসেছে। তাদের জরুরি বিভাগে পর্যবেক্ষণে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। আমাদের চিকিৎসকরা তাদের দেখভাল করছেন। এদের মধ্যে কারও অবস্থাই তেমন গুরুতর নয়।- বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর
প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার ফল চলতি মাসেই
০২ডিসেম্বর,সোমবার,শিক্ষা ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার ফল ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে প্রকাশ হতে পারে বলে জানিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্র। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব আকরাম আল হোসেন বলেছেন, এর মাধ্যমে সারাদেশে সাড়ে ১৮ হাজার সহকারী শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হবে। সারাদেশে শূন্য আসনের ভিত্তিতেই সংখ্যা নির্ধারণ করা হয়েছে। আগামী জানুয়ারি থেকে এসব শিক্ষকরা পাঠদান শুরু করবে। সচিব বলেন, নিয়োগ কার্যক্রম শেষে নতুন করে সারাদেশে প্রাক প্রাথমিক পর্যায়ে ২৬ হাজার শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হবে। এ প্রস্তাব সচিব কমিটিতে পাঠানো হবে। সেখান থেকে অনুমোদন পেলে প্রজ্ঞাপন জারি করে নিয়োগ কার্যক্রম শুরু হবে। নিয়োগ কার্যক্রম শুরু করতে ইতোমধ্যে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরকে প্রস্তুতি শুরুর নির্দেশনা দেয়া হয়েছে বলেও তিনি জানান তিনি।
৪১তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ
২৭নভেম্বর,বুধবার,শিক্ষা ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ৪১তম বিসিএসের জন্য ৫ ডিসেম্বর থেকে আবেদন করা যাবে। বুধবার (২৭ নভেম্বর) বিকেলে বাংলাদেশ সরকারি কর্মকমিশনের (পিএসসি) ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। বিসিএসে ২ হাজার ১৬৬ জনকে নেওয়া হবে। প্রার্থীর বয়স ১ নভেম্বর থেকে গণনা করা হবে। প্রার্থীকে অনলাইনে আবেদন জানুয়ারির ৪ তারিখের মধ্যে করতে বলা হয়েছে। এবার সবচেয়ে বেশি নেওয়া হবে শিক্ষা ক্যাডারে। এই ক্যাডারে ৯০৫ জনকে নিয়োগ দেওয়া হবে। এর মধ্যে বিসিএস শিক্ষায় ৮৯২ জন প্রভাষক, কারিগরি শিক্ষা বিভাগে ১০ জন প্রভাষক নেওয়া হবে। শিক্ষার পর বেশি নিয়োগ হবে প্রশাসন ক্যাডারে। প্রশাসনে ৩২৩ জনকে নিয়োগ দেওয়া হবে। পুলিশে ১০০ জন, বিসিএস স্বাস্থ্যতে সহকারী সার্জন পদে ১১০ জন ও সহকারী ডেন্টাল সার্জন পদে ৩০ জনকে নেওয়া হবে। পররাষ্ট্রে ২৫ জন, আনসারে ২৩ জন, অর্থ মন্ত্রণালয়ে সহকারী মহা হিসাবরক্ষক (নিরীক্ষা ও হিসাব) ২৫ জন, সহকারী কর কমিশনার (কর) ৬০ জন, সহকারী কমিশনার (শুল্ক ও আবগারি) ২৩ জন ও সহকারী নিবন্ধক ৮ জন নেওয়া হবে। পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগে পরিসংখ্যান কর্মকর্তা ১২ জন, রেলপথ মন্ত্রণালয়ে সহকারী যন্ত্র প্রকৌশলী ৪ জন, সহকারী ট্রাফিক সুপারিনটেনডেন্ট ১ জন, সহকারী সরঞ্জাম নিয়ন্ত্রক ১ জন, সহকারী প্রকৌশলী (সিভিল) ২০ জন, সহকারী প্রকৌশলী (যান্ত্রিক) ৩ জন নেওয়া হবে। তথ্য মন্ত্রণালয়ে সহকারী পরিচালক বা তথ্য কর্মকর্তা বা গবেষণা কর্মকর্তা পদে ২২ জন, সহকারী পরিচালক (অনুষ্ঠান) পদে ১১ জন, সহকারী বার্তা নিয়ন্ত্রক পদে ৫ জন, সহকারী বেতার প্রকৌশলী পদে ৯ জন, স্থানীয় সরকার বিভাগে বিসিএস জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলে সহকারী প্রকৌশলী পদে ৩৬ জন, সহকারী বন সংরক্ষক পদে ২০ জন। সহকারী পোস্ট মাস্টার জেনারেল পদে ২ জন, বিসিএস মৎস্যে ১৫ জন, পশুসম্পদে ৭৬ জন, কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা ১৮৩ জন ও বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ৬ জন, বিসিএস বাণিজ্যে সহকারী নিয়ন্ত্রক ৪ জন। পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ৪ জন, বিসিএস খাদ্যে সহকারী খাদ্যনিয়ন্ত্রক ৬ জন ও সহকারী রক্ষণ প্রকৌশলী ২ জন, বিসিএস গণপূর্তে সহকারী প্রকৌশলী (সিভিল) ৩৬ জন ও সহকারী প্রকৌশলী (ই/এম) ১৫ জনসহ মোট ২ হাজার ১৩৫ জন কর্মকর্তাকে এই বিসিএসে নিয়োগ করা হবে।
গ্র্যাজুয়েটদের উদ্যোক্তা হিসেবে তৈরি করতে হবে: শিক্ষামন্ত্রী
২৩নভেম্বর,শনিবার,শিক্ষা ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: গ্র্যাজুয়েটদের শুধু চাকরির জন্য নয়, উদ্যোক্তা হিসেবে তৈরি করা প্রয়োজন বলে মন্তব্য করেছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। শনিবার দুপুরে রাজধানীর একটি হোটেলে ১৮তম এশিয়ান ইউনিভার্সিটি প্রেসিডেন্টস ফোরামের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। শিক্ষামন্ত্রী আরও বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোকে এমন পরিবেশ তৈরি করতে হবে যার মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা উদ্যোক্তা হওয়ার দক্ষতা অর্জন করতে পারে। এজন্য বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনকে আরও শক্তিশালী করা দরকার বলে জানান তিনি। কর্মসংস্থান ও দক্ষ জনশক্তি গড়তে শিক্ষা ও শিল্পপ্রতিষ্ঠানকে পরস্পরের সহায়ক হওয়া জরুরি বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

শিক্ষা পাতার আরো খবর