মঙ্গলবার, আগস্ট ২০, ২০১৯
কক্সবাজারে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে একই পরিবারের ৩ জনকে গুলি
অনলাইন ডেস্ক: কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার নয়াপাড়া রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্পে একই পরিবারের ৩ জন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। গতকাল সোমবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। আহতরা হলেন- নয়াপাড়া শরণার্থী শিবিরের আই ব্লকের ৫৫৮ নম্বর শেডের ১ নম্বর রুমের বাসিন্দা মো. হোছনের ছেলে আজিজুল হক (৪৫), তাঁর স্ত্রী তৈয়ুবা খাতুন (৩৫) এবং তাঁদের ছেলে হোসেন জোহার (১৪)। নয়াপাড়া শরণার্থী শিবিরে পুলিশের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রেদোয়ান গণমাধ্যমকে বলেন, আহতদের উদ্ধার করে প্রথমে স্থানীয় একটি বেসরকারি সংস্থার হাসপাতালে পাঠানো হয়। পরে তাঁদের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। তাঁদের কোমর, বুক ও ডান হাতে গুলি লেগেছে। নয়াপাড়া শরণার্থী শিবিরের রোহিঙ্গা নেতা শামীম হোসেন দাবি করেন, গত ৩০ অক্টোবর গুলিবিদ্ধ আজিজুল হকসহ ক্যাম্পের বাসিন্দারা জিয়াউর রহমান নামের এক ডাকাতকে আটক করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে তুলে দেয়। এর জের ধরে এ হামলার ঘটনা ঘটতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
ট্রাকের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত গাজীপুরে
অনলাইন ডেস্ক: গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলার বালিগাঁও এলাকায় ট্রাকের ধাক্কায় লাল মিয়া (৪০) নামে এক মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন। ‍ নিহত লাল মিয়া উপজেলার চৈতারপাড়া এলাকার মৃত আব্দুল বারেকের ছেলে। আজ সোমবার দুপুর ১২টার দিকে কালীগঞ্জ-ঘোড়াশাল বাইপাস সড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে। কালীগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সুলতান উদ্দিন খান গণমাধ্যমকে জানান, দুপুরে বাড়ি থেকে মোটরসাইকেল চালিয়ে কালীগঞ্জের দিকে যাচ্ছিলেন লাল মিয়া। পথে বালিগাঁও এলাকায় পৌঁছালে একটি ট্রাক মোটরসাইকেলটিকে ধাক্কা দিয়ে পালিয়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। খবর পেয়ে লাশ উদ্ধার করা হয়। পরে নিহতের পরিবারের আবেদনের প্রেক্ষিতে লাশ ময়নাতদন্ত ছাড়া হস্তান্তর করা হয়েছে।
কক্সবাজারে কিশোরকে পিটিয়ে-বৈদ্যুতিক শক দিয়ে হত্যা
অনলাইন ডেস্ক: কক্সবাজারের খুরুশকুলে মুহাম্মদ মামুন উদ্দিন (১৪) নামে এক কিশোরকে পিটিয়ে ও বৈদ্যুতিক শক দিয়ে হত্যা করা হয়েছে। মৃত. মামুন খুরুশকুল ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ডের কোনারপাড়া এলাকার জেলে রবিউল হকের ছেলে। সে পেশায় একজন হোটেল বয় ছিলো। রোববার রাতে খুরুশকুলের কোনারপাড়ার পালপাড়া বাজারের জাকের হোসেন বাক্কুর গ্যারেজে এ ঘটনা ঘটে। নিহত মামুনের মা হাজেরা বেগম গণমাধ্যমকে জানান, মামুন কক্সবাজার শহরের বাজারঘাটা এলাকার একটি হোটেলে বয়ের কাজ করতো। কাজ শেষে রোববার দুপুর ২টার দিকে সে বাড়িতে আসে। এরপর মামুন তার সমবয়সী প্রতিবেশী মো. আলম মাঝির ছেলে আব্বাস উদ্দিন, নবাব মিয়া, মৃত সোলতান আহমদের ছেলে কাজল ও ফরিদ আলমের ছেলে নুরুল হুদা মিলে একটি টমটম নিয়ে পার্শবর্তী পিএমখালীতে বেড়াতে যায়। সেখানে তারা শিবুল ডাকাত বাহিনীর কবলে পড়ে। ওই বাহিনী তাদের টমটমসহ আটকে রাখে। একপর্যায়ে মামুন কৌশলে বাঁধন খুলে পালিয়ে আসে। পরে ডাকাতরা টমটমটি রেখে দিয়ে বাকিদেরও ছেড়ে দেয়। পরে তারা ফিরে এসে মামুনকে ঘটনার জন্য দায়ী করে এবং তাকে ধরে টমটম মালিক জাকের হোসেন বাক্কুর গ্যারেজে নিয়ে গিয়ে বেঁধে রেখে অমানুষিক নির্যাতন চালায়। মারধরের একপর্যায়ে মামুন অজ্ঞান হয়ে গেলে তাকে বৈদ্যুতিক শক দেয়া হয়। ছেলেকে বাঁচাতে এগিয়ে গেলে তাকেও লাথি-ঘুষি দিয়ে মাটিতে ফেলে দেয় মারধরকারীরা। এরপরও তাদের হাতপায়ে ধরে মামুনকে স্থানীয়দের সহযোগিতায় কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নেয়া হয়। হাসপাতালের চিকিৎসক তাকে দেখে মৃত ঘোষণা করেন। খুরুশকুল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন বলেন, ঘটনাটি অমানবিক ও দুঃখজনক। অন্য এলাকার একজন অপরাধী কারও একটি টমটম আটকে রাখার অপরাধে একজন কিশোরকে দায়ী করে এভাবে প্রহার ও মেরে ফেলা কোনো মতেই সমর্থনযোগ্য নয়। আমরা চাই হত্যায় জড়িতদের উপযুক্ত শাস্তি হউক। কক্সবাজার সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফরিদ উদ্দিন খন্দকার গণমাধ্যমকে জানান, খবর পেয়ে রাতে লাশটি উদ্ধার করে ময়না-তদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িতদের ধরতে পুলিশি অভিযান চলছে।
সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মাণে নৌকা মার্কায় ভোট দিন :৮নং শুলকবহর ওয়ার্ড যুবলীগ
অনলাইন ডেস্ক : ৪ নভেম্বর বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ চট্টগ্রাম মহানগরীর আওতাধীন ৮নং শুলকবহর ওয়ার্ড যুবলীগের উদ্যোগে এক বিশাল মিছিল ষোলশহর থেকে জিইসি মোড়, মুরাদপুর হয়ে পুনরায় ষোলশহর স্টেশনে ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি যুব সংগঠক আবুল বশরের সভাপতিত্বে সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলামের সঞ্চালনায় সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি আবুল বশর বলেন, সফল রাষ্ট্রনায়ক জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকারের আমলে স্বপ্নের পদ্মা সেতু বিনির্মাণ, ছিটমহল বিনিময়, ইউনিয়ন পরিষদের অফিস থেকে তথ্য ই-সেবা কেন্দ্র প্রদান, ঢাকা-চট্টগ্রামের রেলওয়ে রাস্তার (ডাবল) দুই লাইনের উন্নীতকরণ, বছরের প্রথম দিনে কোমলমতি শিশুদের হাতে পাঠ্যপুস্তক বিতরণের মধ্য দিয়ে প্রমাণ করেছেন আওয়ামী লীগ সরকারের বিকল্প নাই। আবারো নৌকায় ভোট দিয়ে- রামপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প, মাতারবাড়ী বিদ্যুৎ প্রকল্প, কর্ণফুলী টানেল, দোহাজারী-রামু-কক্সবাজার-ঘুমধুম রেল সংযোগ প্রকল্প, সোনাদিয়া গভীর সমুদ্র এবং মহেশখালীতে ভাসমান এল এন জি টার্মিনাল সহ ১০টি প্রকল্পের কাজ সমাপ্ত করতে আওয়ামী লীগকে জয়যুক্ত করুন। সভায় বক্তব্য রাখেন ওয়ার্ড যুবলীগের সহ-সভাপতি খোরশেদ আলম বাপ্পী, হাসানুর রহমান হাসান, উৎপল দাশ, শহিদুল ইসলাম টিপু, আফতাব উদ্দিন, আবু তাহের মুন্সী, এনামুল হক এনাম, সম্পাদকমন্ডলীর সদস্য লুৎফুর রহমান, তারেকুল ইসলাম, কবির আহমদ, জসিম উদ্দিন, মো: ইসমাইল, মো: ইউসুফ, সাইফুল ইসলাম জুম্মান, সবুজ মিয়া, মো: রিপন, আবদুল কুদ্দুস, মিঠু দাশ, টিটু দাশ, জালাল উদ্দিন, মো: হানিফ, রুবেল দাশ, মো: ইয়াছিন আরাফাত, মো: মহিউদ্দিন, সাইফুল ইসলাম বাপ্পা, দেলোয়ার হোসেন, মো: আলী, জিকরুল হোসেন জিকু, জানে আলম, সালমানুর রহমান, জাহিদুল ইসলাম, ফয়সাল ইকবাল, ইমন হোসেন, মো: রনি, মো: অপু, মো: রবিন, মো: সোহেল, মো: নাদিম, মো: নাঈম, ছোটন, মো: চাচ্চু প্রমুখ। সভাশেষে জেল হত্যা দিবস উপলক্ষে জাতীয় চারনেতার প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা নিবদনের মধ্য দিয়ে মিছিলের সমাপ্তি করা হয়।
জেল হত্যা দিবস উপলক্ষে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের আলোচনা সভা
অনলাইন ডেস্ক :৩ নভেম্বর বাংলাদেশের ইতিহাসে আরেকটি কলঙ্কময় অধ্যায় জেল হত্যা দিবস উপলক্ষে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের উদ্যোগে মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান আহম্মেদ ইমু’র সভাপতিত্বে এবং ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক জাকারিয়া দস্তগীরের সঞ্চালনায় দারুল ফজল মার্কেটস্থ দলীয় কার্যালয় প্রাঙ্গণে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন মহানগর ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি একরামুল হক রাসেল, নাঈম রনি, শাহিন মোল্লা, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সুজন বর্মন, সম্পাদকমন্ডলীর সদস্য এম.এ. হালিম সিকদার মিতু, আবুল মনসুর টিটু, শাহরিয়ার হাসান, শাহাদাত হোসেন বুলু, জেরিনা ইয়াসমিন চুমকী, সহ-সম্পাদকমন্ডলীর সদস্য কায়সার মাহমুদ রাজু, মাহমুদুর রশিদ বাবু, সদস্য শেখর দাশ, মোশরাফুল হক পাভেল, আরাফাত রুবেল, সালাউদ্দীন বাবু, ইকবাল হোসেন নয়ন, মিজানুর রহমান মিজান, মহানগর ছাত্রলীগের দপ্তর সেলের সদস্য বিকাশ দাশ, চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি মাহমুদুল করিম, এমইএস কলেজ ছাত্রলীগ নেতা সৈয়দ আনিসুর রহমান, হাসান আলী, তোফায়েল আহমেদ মামুন, সিটি কলেজ ছাত্রলীগ নেতা হাসান হাবিব সেতু, আকবর হোসেন রাজন, সাইফুল সাইফ, আশীষ সরকার, মহসীন কলেজ ছাত্রলীগ নেতা মিজানুর রহমান মিজান, আনোয়ার হোসেন পলাশ, কমার্স কলেজ ছাত্রলীগ নেতা মো: মোরশেদ, ইকবাল হোসেন নয়ন, বিকি বড়–য়া, ইসলামিয়া কলেজ ছাত্রলীগ নেতা ইবনে জামান ডায়মন্ড, মো: আরিফ, ৩১নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগ নেতা মো: সাজেদ, ১১নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগ নেতা তারেকুল হক, ৩৬নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগ নেতা অঙ্কন শীল, নুরুজ্জামান, ২নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি এম.এ. ওয়াহিদ টিটু, ১০নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগ নেতা জুনায়েদ হোসেন, জুয়েল সিদ্দিক, ১৫নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগ নেতা জাহিদুল আলম, ১৭নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগ নেতা আহমেদ শুভ, ২১নং জামালখান ওয়ার্ড ছাত্রলীগ নেতা আরাফাত জাহেদ অনিক, ৩নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগ নেত্রী রুপা আক্তার, ৮নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগ নেতা আবদার করিম ফাহিম, ১৯নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগ নেতা মো: ইমরান, শাহাদাত নুর তুষার প্রমুখ।
কিডস কালচারাল ইন্সিটিটিউট এর ২৫ বছরপুর্তিতে ২দিনব্যাপী শিশু উৎসব ও মিলনমেলার সমাপনীতে সিটি মে
অনলাইন ডেস্ক :এসো সবাই হাসতে শিখি, দেশকে ভালোবাসতে শিখি এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে কিডস কালচারাল ইন্সিটিটিউট এর ২৫ বছরপূর্তিতে ২দিনব্যাপী শিশু উৎসব ও মিলনমেলার সমাপনী অনুষ্ঠান গতকাল ০৩ নভেম্বর বিকেল ৫টায় চট্টগ্রাম জেলা শিল্পকলা একাডেমীর মুক্তমঞ্চে কাউন্সিলর রোটারিয়ান আনজুমান আরা বেগমনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মাননীয় মেয়র আলহাজ্ব আ.জ.ম নাছির উদ্দীন। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রোটারি ডিস্ট্রিক্ট ৩২৮২ বাংলাদেশ এর গভর্নর রোটারিয়ান দিলনাশি মোহসেন, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও সংগীতজ্ঞ প্রফেসর হাসিনা জাকারিয়া বেলা, রোটারি ডিস্ট্রিক্ট ৩২৮২ বাংলাদেশ কর্ণফুলী জোনের জোনাল কো-অর্ডিনেটর রোটারিয়ান রিজোয়ান সিদ্দিকী, রোটারি ডিস্ট্রিক্ট ৩২৮২ বাংলাদেশ এর ডেপুটি গভর্নর রোটারিয়ান ওমর আলী ফয়সাল, রোটারি ডিস্ট্রিক্ট ৩২৮২ বাংলাদেশ এর এসিটেন্ট গভর্নর রোটারিয়ান নজরুল ইসলাম নান্টু, রোটারি ডিস্ট্রিক্ট ৩২৮২ বাংলাদেশ এর ডেপুটি গভর্নর মো: শাহ জাহান, চট্টগ্রাম জেলা শিল্পকলা একাডেমীর সাধারণ সম্পাদক সাইফুল আলম বাবু, রিভার হালদার আইপিপি খোরশেদ আলম, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী হাজী মো: শাহাব উদ্দিন, অপর্ণাচরণ সিটি কর্পো: স্কুল এন্ড কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ জারেখা বেগম, বন্দর কর্তৃপক্ষ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রাফিয়া খাতুন, সাবেক জাতীয় ফুটবলার আবদুল মান্নান। স্বাগত বক্তব্য রাখেন কিডস কালচারাল ইনস্টিটিউটের নির্বাহী পরিচালক ড. সৌরভ সাখাওয়াত। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন প্রবীর পাল ও শুভাশীষ শুভ। বিকেল ৩টায় প্রথম অধিবেশনে আন্তঃ শিশু বান্ধব সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা পর্বে প্রধান আলোচক ছিলেন বাংলাদেশ বেতারের আঞ্চলিক পরিচালক এস.এম. আবুল হোসেন। আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ মহিলা সমিতি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা আনোয়ারা বেগম, সেন্ট স্কলাস্টিকাস্ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সিস্টার রেনু মারিয়া পালমা, চট্টগ্রাম রেসিডেন্সিয়াল স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ ড. মো: কামাল উদ্দিন, সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় অংশ নেন ফ্রোবেল একাডেমী, ফ্রোবেল স্কুল, উইলিয়াম কেরি ইন্টারন্যাশনাল স্কুল, রেডিয়ান স্কুল এন্ড কলেজ, টেকনোসাইডার ইন্টারন্যাশনাল, বাংলাদেশ মহিলা সমিতি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, সেন্ট স্কলাস্টিকাস্ গার্লস্ স্কুল এন্ড কলেজ, সিলভার বেলস্ উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়, অপর্ণাচরণ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, বন্দর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ। ছোটদের সাংস্কৃতিক পরিবেশনায় ছিল- শিশু সমাবেশ, শিশু সাহিত্যিক সম্মিলন, অন্তর শিশু বান্ধব স্কুল সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা, নাটক, পাপেট শো, ম্যাজিক, ফ্যাশন শো ও কিডস্ কালচার ইনস্টিটিউট প্রযোজিত সৌরভ সাখাওয়াত রচিত দেবাংশু হোর উড়াল পাখি। দ্বিতীয় পর্বে প্রাক্তন প্রশিক্ষক ম-লীর পরিচালনায় সাংস্কৃতিক পরিবেশনায় অংশগ্রহণ করেন নাট্য নির্দেশক বাপ্পী চৌধুরী পরিচালিত বিটা পাপেট দল পরিবেশিত ‘পাপেট শো-ম্যমনা, সংগীত ঝুলন দত্ত পরিচালিত কাপ্তাই সাংস্কৃতিক একাডেমী পরিবেশিত জারি গান ও সংগীত পরিবেশনা, নৃত্য প্রশিক্ষক সোমা বোস পরিচালিত শিশু একাডেমী নৃত্য পরিবেশনা, নৃত্য প্রশিক্ষক অনন্য বড়–য়া পরিচালিত প্রাপন একাডেমী নৃত্য পরিবেশনা, নৃত্য প্রশিক্ষক স্বপন বড়–য়া পরিচালিত সঞ্চারী নৃত্যকলা একাডেমী, নৃত্য প্রশিক্ষক তরুণ চক্রবর্ত্তী পরিচালিত দি ক্লাসিক এন্ড ফোক ডান্স পরিবেশিত, নৃত্য প্রশিক্ষক ফজল আমিন শওন পরিচালিত চারুতা সংগীত একাডেমী, নৃত্য প্রশিক্ষক তন্ময় বড়–য়া পরিচালিত নৃত্যরঙ পরিবেশিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, প্রবীর পাল পরিচালিত মমতা কালচার ইনস্টিটিউটের পরিবেশনা, সুস্মিতা কর পরিচালিত দ্বীপশিখা খেলাঘর পরিবেশনা, মুজাহিদুল ইসলামের পরিচালনায় তারুণ্যের উচ্ছ্বাসের আবৃত্তি পরিবেশন, ওটু স্ট্রিট ডান্স ক্লু পরিবেশিত আধুনিক নৃত্য। ফ্যাশন কোরিওগ্রাফার লিটন দাশ লিটু পরিচালিত কিডস্ কালচারাল ইনস্টিটিউট ছোটদের মজার মজার যাদু পরিবেশিত হয়। সভায় প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, শিশুদেরকে মানসিকভাবে উন্নতমনস্ক করার জন্য সৃজনশীল চর্চার কোনো বিকল্প নেই। প্রত্যেক শিশুকে শিক্ষার পাশাপাশি সহশিক্ষা কার্যক্রমে আরো অধিক মনোনিবেশ করতে হবে। তিনি বলেন, অভিভাবকদের খেয়াল রাখতে হবে যাতে করে শিশুরা কোনো রকম ঝুঁকিপূর্ণ কিংবা কুসংস্কৃতি গ্রহণ করতে না পারে। প্রত্যেক শিশুকে আনন্দ, উৎসাহ ও পরম মমতায় শিক্ষাদান করতে হবে। সভাশেষে প্রধান অতিথি ইচ্ছেমত ছবি আঁকা, আবৃত্তি, অভিনয়, লোকনৃত্য, দেশের গান, যেমন খুশি তেমন সাজো, মুক্তিযুদ্ধ ও বাংলাদেশ বিষয়ক কুইজ প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে ক্রেস্ট তুলে দেন।
মিথ্যা মামলা হইতে অব্যহতি পেয়েছেন সাংবাদিক নাছির উদ্দিন চৌধুরী
সুজন আশ্চ্যার্য, আদালত প্রতিনিধিঃ আরো একটি মিথ্যা মামলা হইতে ০৪ ই নভেম্বর ২০১৮ ইং তারিখ মাননীয় মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট ২য় আদালত চট্টগ্রাম সাংবাদিক নাছির উদ্দিন চৌধুরীকে অব্যহতি প্রদান করেন। আদালত সূত্রে জানা যায়,সাংবাদিক নাছির উদ্দিন চৌধুরী দৈনিক চৌকস পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন কালীন সময়ে একই পত্রিকায় সাংবাদিক নাছির উদ্দিন চৌধুরী কতৃক সহ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব প্রদান কারী ব্যক্তি নূরুল আবছার আনছারি,নাছির উদ্দিন চৌধুরীর নিকট টাকা পাইবে মর্মে গত ১১/০৩/২০১৩ ইং তারিখে চট্টগ্রাম বিজ্ঞ আদালতে একটি সি.আর মামলা দায়ের করেন। সি.আর মামলা নং- ৪০২/১৩। উক্ত মামলায় বাদি সহ ৫ জন স্বাক্ষীর স্বাক্ষ্য প্রদানের মাধ্যমে বিজ্ঞ আদালত উভয় পক্ষের স্বাক্ষ্য প্রমান পর্যালোচনা করিয়া সাংবাদিক নাছির উদ্দিন চৌধুরীর বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ প্রমানিত না হওয়ায় উভয়ের উপস্থিতিতে অদ্য ০৪ ই নভেম্বর উক্ত মামলা হইতে বিবাদি নাছির উদ্দিন চৌধুরী কে অব্যহতি প্রদান করেন। উক্ত বিষয়ে নাছির উদ্দিন চৌধুরী বলেন,আমাকে সমাজে হেয় প্রতিপূর্ন করার জন্য আমার সুনাম ক্ষুন্ন করার উদ্দেশ্যে নূরুল আবছার আনছারি আমার বিরুদ্ধে বিজ্ঞ আদালতে উক্ত মিথ্যা মামলা দায়ের করেন। আমি দির্ঘ দিন আইনি লড়াই শেষে আজ উক্ত মামলা হইতে নির্ধোষী হিসেবে খালাস পেয়েছি ,আমি ন্যায় বিচার পেয়েছি। আমি বিজ্ঞ আদালতের মাননীয় বিচারক ও আমার আইনজীবীদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই । নাছির উদ্দিন চৌধুরীর আইনজীবী মোঃ আলাউদ্দিন বলেন, নূরুল আবছার আনছারী আমার মক্কেল সাংবাদিক নাছির উদ্দিন চৌধুরীর সম্মান হানির উদ্যেশ্যে উক্ত মিথ্যা মামলাটি বিজ্ঞ আদালতে দায়ের করেছিলো।নূরুল আবছার আনছারী আমার মক্কেল এর বিরুদ্ধে শুধু উক্ত মামলাটি নয় সে নিজে বাদি হয়ে সি.আর ৩৯৫(এ)/১৪ (কোতোয়ালী) ও তার স্ত্রী সাজেদা বেগম সাজুকে দিয়ে সি.আর ৭৮/১৪(চান্দঁগাও) সহ আরো অনেক মিথ্যা মামলা ও অভিয়োগ বিজ্ঞ আদালত সহ বিভিন্ন স্থানে দায়ের করিলেও আমার মক্কেল সকল মামলা ও অভিয়োগ হইতে নির্ধোষ প্রমানিত হয়ে সকল মামলা হইতে অব্যাহতি পান। আমার মক্কেল একজন সুনাম খ্যাত সাংবাদিক। এখনো আমার মক্কেল উক্ত ব্যক্তি ও তার দলের অপরাপর ব্যক্তিগনের মিথ্যা মামলা ও সন্ত্রাসী হামলার হুমকির মধ্যে রয়েছেন। আমরা বিজ্ঞ আদালতে ন্যায় বিচার পেয়েছি।
মিথ্যা মামলা হইতে অব্যহতি পেয়েছেন সাংবাদিক নাছির উদ্দিন চৌধুরী
সুজন আশ্চ্যার্য, আদালত প্রতিনিধিঃ আরো একটি মিথ্যা মামলা হইতে ০৪ ই নভেম্বর ২০১৮ ইং তারিখ মাননীয় মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট ২য় আদালত চট্টগ্রাম সাংবাদিক নাছির উদ্দিন চৌধুরীকে অব্যহতি প্রদান করেন। আদালত সূত্রে জানা যায়,সাংবাদিক নাছির উদ্দিন চৌধুরী দৈনিক চৌকস পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন কালীন সময়ে একই পত্রিকায় সাংবাদিক নাছির উদ্দিন চৌধুরী কতৃক সহ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব প্রদান কারী ব্যক্তি নূরুল আবছার আনছারি,নাছির উদ্দিন চৌধুরীর নিকট টাকা পাইবে মর্মে গত ১১/০৩/২০১৩ ইং তারিখে চট্টগ্রাম বিজ্ঞ আদালতে একটি সি.আর মামলা দায়ের করেন। সি.আর মামলা নং- ৪০২/১৩। উক্ত মামলায় বাদি সহ ৫ জন স্বাক্ষীর স্বাক্ষ্য প্রদানের মাধ্যমে বিজ্ঞ আদালত উভয় পক্ষের স্বাক্ষ্য প্রমান পর্যালোচনা করিয়া সাংবাদিক নাছির উদ্দিন চৌধুরীর বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ প্রমানিত না হওয়ায় উভয়ের উপস্থিতিতে অদ্য ০৪ ই নভেম্বর উক্ত মামলা হইতে বিবাদি নাছির উদ্দিন চৌধুরী কে অব্যহতি প্রদান করেন। উক্ত বিষয়ে নাছির উদ্দিন চৌধুরী বলেন,আমাকে সমাজে হেয় প্রতিপূর্ন করার জন্য আমার সুনাম ক্ষুন্ন করার উদ্দেশ্যে নূরুল আবছার আনছারি আমার বিরুদ্ধে বিজ্ঞ আদালতে উক্ত মিথ্যা মামলা দায়ের করেন। আমি দির্ঘ দিন আইনি লড়াই শেষে আজ উক্ত মামলা হইতে নির্ধোষী হিসেবে খালাস পেয়েছি ,আমি ন্যায় বিচার পেয়েছি। আমি বিজ্ঞ আদালতের মাননীয় বিচারক ও আমার আইনজীবীদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই । নাছির উদ্দিন চৌধুরীর আইনজীবী মোঃ আলাউদ্দিন বলেন, নূরুল আবছার আনছারী আমার মক্কেল সাংবাদিক নাছির উদ্দিন চৌধুরীর সম্মান হানির উদ্যেশ্যে উক্ত মিথ্যা মামলাটি বিজ্ঞ আদালতে দায়ের করেছিলো।নূরুল আবছার আনছারী আমার মক্কেল এর বিরুদ্ধে শুধু উক্ত মামলাটি নয় সে নিজে বাদি হয়ে সি.আর ৩৯৫(এ)/১৪ (কোতোয়ালী) ও তার স্ত্রী সাজেদা বেগম সাজুকে দিয়ে সি.আর ৭৮/১৪(চান্দঁগাও) সহ আরো অনেক মিথ্যা মামলা ও অভিয়োগ বিজ্ঞ আদালত সহ বিভিন্ন স্থানে দায়ের করিলেও আমার মক্কেল সকল মামলা ও অভিয়োগ হইতে নির্ধোষ প্রমানিত হয়ে সকল মামলা হইতে অব্যাহতি পান। আমার মক্কেল একজন সুনাম খ্যাত সাংবাদিক। এখনো আমার মক্কেল উক্ত ব্যক্তি ও তার দলের অপরাপর ব্যক্তিগনের মিথ্যা মামলা ও সন্ত্রাসী হামলার হুমকির মধ্যে রয়েছেন। আমরা বিজ্ঞ আদালতে ন্যায় বিচার পেয়েছি।
যশোরে অভয়নগর উপজেলায় স্কুলছাত্রকে গলাকেটে হত্যা
অনলাইন ডেস্ক: যশোরের অভয়নগর উপজেলায় হাসিবুর রহমান (৯) নামে এক স্কুলছাত্রকে গলা কেটে হত্যার পর লাশ স্থানীয় একটি পুকুরে ফেলে গেছে দুর্বৃত্তরা। আজ রোববার সকালে অভয়নগরের একতারপুর গ্রামের পুকুরপাড় থেকে ওই ছাত্রের লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহত স্কুলছাত্র হাসিবুর রহমান উপজেলার একতারপুর গ্রামের মফিজুর রহমান মল্লিকের একমাত্র ছেলে। সে একতারপুরের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থী। অভয়নগর থানার এসআই সাইফুল আলম জানান, কে বা কারা তাকে গলা কেটে হত্যা করে পুকুরপাড়ে ফেলে রেখে গেছে। তবে আশা করছি, খুব অল্প সময়ের মধ্যে হত্যাকাণ্ডের ক্লু পুলিশ বের করতে পারবে। একতারপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শাহিনা পারভীন জানান, প্রতিদিনের ন্যায় হাসিবুর রহমান শনিবারও বিদ্যালয়ে উপস্থিত থেকে ক্লাস করেছে। রোমহর্ষক এ হত্যাকাণ্ডের খবর বিদ্যালয়ে ছড়িয়ে পড়লে ছাত্রছাত্রীরা বিক্ষোভে ফেটে পড়ে। এ মর্মান্তিক মৃত্যুর জন্য দায়ী ব্যক্তিদের গ্রেফতার করে দৃষ্ঠান্তমূলক শাস্তির দাবিতে স্কুল প্রাঙ্গণে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে ছাত্রছাত্রীরা।