নারায়ণগঞ্জে করোনায় আরোও ২ জনের মৃত্যু, ২৪ ঘন্টায় আক্রান্ত ১২
0৬এপ্রিল,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: নারায়ণগঞ্জে ২৪ ঘন্টায় করোন আক্রান্ত হয়ে আরও দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় মৃতের সংখ্যা দাড়িয়েছে চারজনে। সোমবার (৬ এপ্রিল) দুপুরে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলা করোনা বিষয়ক ফোকাল পারসন সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. জাহিদুল ইসলাম। এদিকে গত চব্বিশ ঘন্টায় ১২ জনের নমুনা পরীক্ষায় করোনা পজেটিভ শনাক্ত হয়েছেন। জেলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২৩। করোনায় মৃতরা হলেন- দেওভোগ আখড়া মোড়ের বাসিন্দা চিত্তরঞ্জন ঘোষ (৫৮) এবং জামতলা হাজী ব্রাদার্স রোডের বাসিন্দা গিয়াসউদ্দিন (৬০) তারা দুজনই রাজধানীর কুর্মিটোলা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। চিত্ত ঘোষের ভাতিজা সঞ্জয় ঘোষ জানান, গত ২৭ মার্চ থেকে জ্বর, কাশি ছিল তার চাচার। পরে শ্বাসকষ্ট শুরু হয়। শুক্রবার সারাদিন নারায়ণগঞ্জ ও রাজধানীর বিভিন্ন হাসপাতালে ঘোরাঘুরি করলেও কোনো হাসপাতালেই তাকে ভর্তি নিতে রাজি হয়নি। উপায় না দেখে রাতে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে তাকে ভর্তি করা হয়। করোনা উপসর্গ থাকায় পরদিন সকালে তার নমুনা সংগ্রহ করে আইইডিসিআর। শনিবার রাত ১০টায় চিত্ত ঘোষ মারা যান। নমুনা পরীক্ষায় তার শরীরে করোনা পজেটিভ আসে। সঞ্জয় ঘোষ বলেন, তাদের পরিবারের কেউই বিদেশ ফেরত কিংবা প্রবাসী নন। সম্প্রতি কেউ বিদেশেও জাননি। কীভাবে তিনি সংক্রমিত হলেন তা জানেন না। তবে তিনি শহরের বর্ষণ সুপার মার্কেটের বিনিময় বস্ত্র বিতান নামে একটি দোকানে কাজ করতেন। ওই মার্কেটেরই এক ব্যবসায়ী সম্প্রতি করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন। এদিকে গিয়াসউদ্দিনের মৃত্যুর বিষয়ে নাসিক ১৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ বলেন, পরিবারের সঙ্গে কথা বলে জানতে পেরেছি গত ৪ এপ্রিল অসুস্থবোধ করায় তাকে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ৫ এপ্রিল বিকেল ৪টার দিকে তিনি মারা যান। হাজী ব্রাদার্স রোডের একটি বহুতল ভবনের ৮টি পরিবারকে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কাউকে ওই বাড়িতে প্রবেশ না করার জন্য বলে দেওয়া হয়েছে। এদিকে জেলা করোনা বিষয়ক ফোকাল পারসন সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. জাহিদুল ইসলাম বলেন, নারায়ণগঞ্জে করোনায় আক্রান্ত হয়ে আরও দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় মৃত্যুর সংখ্যা ৪। উল্লেখ্য গত ৩০ মার্চ বন্দর রসুলবাগ এলাকার বাসিন্দা শিউলী ওরফে পুতুল (৫০) নামে এক নারী করোনা উপসর্গ নিয়ে প্রথম মারা যান। পরে আইইডিসিআর ওই নারীর নমুনা সংগ্রহ করলে ২ এপ্রিল করোনাভাইরাস পজিটিভ আসে। এ ঘটনায় রসুলবাগ এলাকা লকডাউন করে প্রশাসন। এখানে শতাধিক পরিবার রয়েছে। এছাড়াও তার সংস্পর্শে আসায় এক চিকিৎসক, নার্স ওয়ার্ডবয়, ল্যাব টেকনিকশিয়ান এবং ওই নারীর আত্মীয় সজনসহ তাকে গোসল করানো দুই নারী নিয়ে মোট ৪১ জনকে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। এরমধ্যে ওয়ার্ডবয় রয়েছেন আইসোলেশনে। এছাড়া শনিবার সকালের দিকে করোনা আক্রান্ত হয়ে ঢাকার কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে মারা যান কাশিপুর বড় আমবাগান এলাকার বাসিন্দা হাজী আবু সাঈদ (৬০)। তাকে আগের দিন মিটফোর্ড ঘুরে, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হয়ে সন্ধ্যায় কুর্মিটোলায় ভর্তি করা হলে শনিবার সকাল ৯টার দিকে তিনি মারা যান। পরে সরকারি ব্যবস্থাপনায় খিলগাঁও তালতলা এলাকায় নিহতের দাফন সম্পন্ন করা হয়। এ ঘটনায় বাংলাবাজার বড় আম বাগান এলাকা লকডাউন ঘোষণা করেছে প্রশাসন।
জামালপুরে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত
0৬এপ্রিল,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: জামালপুরের মেলান্দহ উপজেলায় ঢাকাফেরত প্লাস্টিক কারখানার কর্মচারী এক যুবকের নমুনা পরীক্ষায় করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। রোববার রাতে ময়মনসিংহের করোনা পরীক্ষাগার থেকে বিষয়টি নিশ্চিত হয়েছে জামালপুর জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। রাতেই ওই যুবককে তার বাড়ি থেকে নিয়ে এসে জামালপুরে নির্মাণাধীন শেখ হাসিনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের অস্থায়ী করোনা ইউনিটের আইসোলেশনে রাখা হয়েছে। এ ঘটনায় জেলার মেলান্দহ উপজেলার ঘোষেরপাড়া ইউনিয়ন লকডাউন ঘোষণা করেছে উপজেলা প্রশাসন। এ জেলায় ১৬ জন রোগীর নমুনা পরীক্ষা করে এই প্রথম একজন করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হলো।
গাইবান্ধায় একজনের মৃত্যু
0৬এপ্রিল,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় জ্বর, সর্দি-কাশিতে আক্রান্ত হয়ে এক ব্যক্তি (৭০) মারা গেছেন। রোববার দুপুরে উপজেলার গুমানিগঞ্জ ইউনিয়নের অনন্তপুর গ্রামে তার মৃত্যু হয়। সূত্র জানায়, কিছু দিন আগে গলাব্যথা নিয়ে স্থানীয় এক চিকিৎসকের কাছে যান ওই বৃদ্ধ। তার দেওয়া ঔষধ খেয়ে সুস্থ না হয়ায়, গত বৃহস্পতিবার পরিবারের লোকজন জ্বর, সর্দি-কাশির ওষুধ নিতে আবারো ওই পল্লী চিকিৎসকের বাড়িতে যায়। চিকিৎসক তখন তাদেরকে উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা নিতে বলেন। এরপরও পরিবারের সদস্যরা বাড়িতে রেখেই ওই ব্যক্তিকে চিকিৎসা করতে থাকে। এর দু’দিনের মাথায় রোববার দুপুরে তার মৃত্যু হয়। তার মৃত্যুতে স্থানীয়দের মাঝে করোনা ভাইরাসের আতঙ্ক বিরাজ করছে । এবিষয়ে গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মজিদুল ইসলাম বলেন, মৃত ব্যক্তির পরিবারের কাছ থেকে জানা গেছে তিনি অ্যাজমা রোগে ভুগছিলেন। তার শরীরে করোনার লক্ষণ ছিল না। তারপরও আমরা খোঁজখবর নেব। গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রামকৃষ্ণ বর্মন বলেন, অন্য কোনো রোগে ওই ব্যক্তির মৃত্যু হতে পারে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে। আতঙ্কিত হওয়ার কারণ নেই।
ময়মনসিংহে কর্মহীন অসহায়দের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ
0৫এপ্রিল,রবিবার,কামরুজ্জামান মিন্টু,ময়মনসিংহ ব্যুরো,নিউজ একাত্তর ডট কম: প্রাণঘাতি করোনাভাইরাস মোকাবেলায় কর্মহীন,অসহায়, দুস্থ ও দরিদ্রের মাঝে ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোঃ ইকরামুল হক টিটুর দেয়া খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছেন জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য মাসুদ রানা রকিব। রোববার নিজ এলাকার ৩২নং ওয়ার্ডে ঘুরে ঘুরে বিভিন্ন খাদ্য সামগ্রী নিম্নবিত্তদের হাতে তুলে দেন তিনি। সাবেক ছাত্রলীগ নেতা রকিব জানান, চলমান পরিস্থিতিতে বিভিন্ন সংগঠন, সংস্থা সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিলেও অনেক নিম্ন আয়ের পরিবার বঞ্চিত থাকছেই। সকল অসহায়দের পাশে বিত্তবানদের সহযোগিতার হাত বাড়ানো প্রয়োজন। এদিকে খাদ্যসামগ্রী পেয়ে ছাত্রলীগ নেতা রকিবকে ধন্যবাদ জানিয়ে ৩২নং ওয়ার্ডের আব্দুল খালেক বকুল বলেন, গত দশ দিন থেকে কাজ-কর্ম না থাকায় পরিবার নিয়ে হতাশায় ছিলাম। আজকে রকিবের সহায়তা পেয়ে অনেক ভালো লাগছে। অত্র এলাকার মোতালেব মিয়া বলেন, এই পরিস্থিতিতে যারা আমাদের কথা মনে রেখেছেন তাদের কথা কখনো ভুলবনা। লিটন মিয়া বলেন, সবাই যদি নিজ উদ্যোগে সমাজের গরীব ও অসহায়দের পাশে দাড়ান তাহলে এই পরিস্থিতি মোকাবিলা সহজ হবে।
ভালুকা মানবসেবা সামাজিক সংগঠনের উদ্যেগে কর্মহীনদের খাদ্য সহায়তা প্রদান
0৫এপ্রিল,রবিবার,মোঃমোকছেদুর রহমান মামুন,ভালুকা প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম:করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে কুয়েত প্রবাসীদের আর্থিক সহযোগীতায়, ঘরে থাকা দরিদ্র মানুষদের মাঝে বাড়ী বাড়ী গিয়ে খাদ্যসামগ্রী বিতরন করেছেন ভালুকা মানবসেবা সামাজিক সংগঠন নামে একটি সেচ্ছাসেবী সংগঠন। আজ ৫ এপ্রিল রবিবার সকালে ভালুকা পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ডে, প্রায় ১শত অসহায় পরিবারকে চাল, ডাল, আলু, লবন, তৈল,সাবান তুলে দেন।৷ এসময় উপস্থিত ছিলেন,ভালুকা মানব সেবা সামাজিক সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক জনাব সাইফুল ইসলাম।এ সময় তিনি অসহায় মানুষের পাশে দাড়ানোর জন্য সমাজের বিত্তবানদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। তিনি আরও বলেন আমরা নিয়ম মেনে চললে ইনশাআল্লাহ এটা প্রতিরোধ করতে পারব। করোনা ভাইরাস যেভাবে ছড়িয়ে পড়ছে একে প্রতিরোধ করতে হলে নামাজ পড়ে আল্লাহর নিকট দোয়া করতে হবে। সেই সাথে আমাদের সকলকে নিয়ম মেনে ঘরে থাকতে হবে। এ সময় অন্যান্নদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন,ভালুকা মানবসেবা সামাজিক সংগঠনের সদস্য হুমায়ুন কবির,আতিকুল ইসলাম,ইমরুল হাসান মিশু,নাজমুল হাসান নাঈম,এনামুল ইসলাম প্রমুখ।
মাদারীপুরে জ্বর ও গলাব্যাথা নিয়ে এক ব্যক্তির মৃত্যু
0৫এপ্রিল,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: মাদারীপুরে জ্বর ও গলাব্যাথা নিয়ে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। শনিবার দিনগত রাত ১২টার দিকে মারা যান তিনি। মৃত ওই ব্যক্তির নাম আবদুস সালাম ফকির (৪৮)। তিনি কালকিনি উপজেলার কয়ারিয়া ইউনিয়নের চরআলিমাবাদ গ্রামের সদর আলী ফকিরের ছেলে। কয়ারিয়া ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের মেম্বার শহিদুল ইসলাম জানান, রাত ৩টার দিকে কালকিনি থানার ওসির ফোন পেয়ে ওই ব্যক্তির বাড়িতে গিয়ে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে জানতে পারি, বিকেলে তিনি বাড়ির পাশে দোকান ছিলেন। সন্ধ্যার কিছুক্ষণ পর বাড়িতে আসলে শরীরে জ্বর শুরু হয় ও গলা ফুলে যায়। এসময় তারা স্থানীয় একজন চিকিৎসকে ডেকে আনলে তিনি কিছু ওষুধ দেন। পরবর্তীতে রাত ১২টার দিকে সালাম ফকির মারা যান। কালকিনি থানার অফিসার ইনচার্জ মো. নাসিরউদ্দিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে সাংবাকিদের জানান, আজ রোববার সকালে কালকিনি থানার একটি টিম মৃত ওই ব্যক্তির বাড়িতে গিয়েছে। কি কারণে তিনি মারা গেছেন তা চিকিৎসকরা বলতে পারবেন। মাদারীপুর সিভিল সার্জন ডা. শফিকুল ইসলাম জানান, মৃত্যুর খবর পেয়েছি। কিভাবে তার মৃত্যু হয়েছে তা জানতে কালকিনি উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
লক্ষ্মীপুরে ৩ বাড়ি লকডাউন
0৪এপ্রিল,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে শ্বাসকষ্ট, খিঁচুনি নিয়ে দুই বছরের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় কমলনগর উপজেলার তোরাবগঞ্জ গ্রামে নিহতের বাড়ীসহ ৩টি বাড়ি লকডাউনে রাখা হয়েছে।জেলা সিভিল সার্জন ডা. আবদুল গফ্ফার জানান, দুদিন আগে ওই শিশুর শ্বাসকষ্ট দেখা দেয়। শুক্রবার সন্ধ্যার আগ মূহুর্তে খিঁচুনি, শ্বাস কষ্টে সে মারা যায়। কভিড উপসর্গ সন্দেহে এলাকাবাসী প্রশাসনকে খবর দেয়। পরে ওই শিশুর নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয় আইইডিসিআরে।এদিকে, এ ঘটনায় ওই এলাকার ৩টি বাড়ি লকডাউনে রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ।
ভালুকায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে নির্মাণ শ্রমিক নিহত
0৩এপ্রিল,শুক্রবার,মোঃমোকছেদুর রহমান মামুন,ভালুকা প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: ময়মনসিংহের ভালুকায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে খোকন মিয়া (২২) নামে এক নির্মাণ শ্রমিক নিহত হয়েছে। সকাল ১১ টার দিকে উপজেলার হবিরবাড়ি ইউনিয়নের বড়চালা গ্রামের রানার অটোমোবাইল কারখানার সামনে এই ঘটনা ঘটে।ভালুকা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ মাইন উদ্দিন জানান, 'সকালে ওই শ্রমিক স্থানীয় বায়তুল মাকাম জামে মসজিদের তিন তলায় লোহার রড তোলার কাজ করছিলো। রড তোলার এক পর্যায়ে পাশে থাকা বিদ্যুতের লাইনে লোহার রড জড়িয়ে পড়ে। এতে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে তিনতলার ছাদ থেকে নিচে পড়ে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। নিহত খোকন মিয়া নেত্রকোণার পূর্বধলা উপজেলার মো. ফজল হকের ছেলে।

সারা দেশ পাতার আরো খবর