মঙ্গলবার, আগস্ট ২০, ২০১৯
গণধর্ষণ মামলার আসামি ঢাকা থেকে গ্রেফতার
১০ মে,শুক্রবার ,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম : ঢাকার দক্ষিণ মুগদা থানার মান্দা এলাকা থেকে বরগুনা জেলার বেতাগী থানায় দায়ের করা গণধর্ষণ মামলার পলাতক আসামি তুরাগ পরিবহনের চালক মানিককে গ্রেফতার করেছে বরিশাল RAB-৮ এর সদস্যরা। শুক্রবার বেলা ১১টায় নগরীর রূপাতলীস্থ RAB-৮ এর হেডকোয়াটারে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে বিভিন্ন তথ্য তুলে ধরেন RAB উপ-অধিনায়ক মেজর সজিবুল ইসলাম খান।সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, গত ২৭ এপ্রিল রাত আনুমানিক আটটার দিকে ভিকটিম (৩২) তার চাচা ও চাচাতো ভাইকে নিয়ে মোটরসাইকেলযোগে গান গাওয়ার জন্য মহেশপুরের উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেয়। রাত আটটা ২০মিনিটের দিকে বেতাগী থানাধীন বিবিচিনি স্কুল এন্ড কলেজের দক্ষিণ পার্শ্বে পৌঁছলে গণধর্ষন মামলার আসামি মো. মানিক (৩৫) ও আলমগীর হোসেন তাদের গতিরোধ করে ভিকটিমের চাচা ও চাচাতো ভাইকে মারধর করে গুরুত্বর আহত করে। একপর্যায়ে আসামি মানিক ও আলমগীর ভিকটিমকে জোরপূর্বক মোটরসাইকেলে তুলে বেতাগী থানার পুটিয়াখালী সুইজগেট নামকস্থানের একটি বাগানে নিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। এ ঘটনায় ভিকটিমের চাচাতো ভাই বাদি হয়ে গত ১ মে বেতাগী থানায় মামলা দায়ের করেন।বিষয়টি ব্যাপকভাবে মিডিয়ায় প্রচার পেলে RAB ৮ ঘটনাটি ছায়া তদন্ত শুরু করে। পরবর্তীতে গোয়েন্দা তৎপরতার ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার রাত নয়টার দিকে গণধর্ষণ মামলার আসামি মো. মানিককে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত মানিক ঢাকায় তুরাগ পরিবহনের চালক ছিলেন। ঘটনার পরপরই সে এলাকা ছেড়ে আত্মগোপন করে। শুক্রবার বিকেলে গ্রেফতারকৃতকে বেতাগী থানায় সোর্পদ করা হয়েছে।
হিযবুত তাহরীরের আইটি বিশেষজ্ঞ গ্রেফতার
১০ মে,শুক্রবার ,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম : গ্রেফতারনিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন হিযবুত তাহরীরের আইটি বিশেষজ্ঞ রিয়াজ উদ্দিন সিপাইকে গ্রেফতার করেছে বাংলাদেশ পুলিশের এন্টি টেররিজম ইউনিট। বৃহস্পতিবার (৯ এপ্রিল) দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের শুভাড্যা এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়ে।নিজস্ব গোয়েন্দা নজরদারি ও প্রযুক্তির সহায়তায় রিয়াজ উদ্দিন সিপাইকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন এন্টি টেররিজম ইউনিটের পুলিশ সুপার(লিগ্যাল এন্ড মিডিয়া) মো. মাহিদুজ্জামান।তিনি জানান, গত তিন বছর ধরে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ, শ্যামপুর, ধনিয়া ও গেন্ডারিয়া এলাকায় হিযবুত তাহরীরের একজন সমন্বয়ক হিসেবে কাজ করছিল রিয়াজ উদ্দিন। মাঠ পর্যায়ে সংগঠকের ভূমিকা পালনের পাশাপাশি অনলাইন ভিত্তিক সদস্য সংগ্রহ, প্রচারণাসহ বিভিন্ন কাজ করে আসছিল সে।রিয়াজের বিরুদ্ধে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানায় সন্ত্রাস বিরোধী আইনে মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে জানিয়েছেন মো. মাহিদুজ্জামান।তবে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার ওসি শাহ জামান জানান, তিনি গ্রেফতারের বিষয়ে কিছু জানেন না।বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট।
তানিয়ার খুনীদের দ্রুত গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন
১০ মে,শুক্রবার ,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম : চলন্ত বাসে ঢাকার ইবনে সিনা হাসপাতালের সেবিকা শাহিনুর আক্তার তানিয়াকে গণধর্ষণের পর হত্যার ঘটনায় বিক্ষোভে ফেটে পড়েছে কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীবাসী। এই বর্বরোচিত ঘটনার প্রতিবাদ জানাতে করেছে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন।আজ শুক্রবার সকাল ১০টা থেকে শত শত এলাকাবাসী মিছিল নিয়ে কটিয়াদী বাসস্ট্যান্ডে হাজির হন। সেখানে বিক্ষোভ শেষে এক মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এতে সমাজের বিভিন্ন শ্রেণীপেশার লোকজন অংশ নেন।প্রায় দুই ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধন থেকে তানিয়ার ধর্ষক ও হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেফতার ও বিচার দাবি করা হয়। একই সাথে অবৈধ স্বর্ণলতা পরিবহনের রুট পারমিট বাতিল, ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারটিকে পুনর্বাসনেরও দাবি জানানো হয়।মানববন্ধনে নিহত তানিয়ার ভাই কফিল উদ্দিন সুমন উপস্থিত হয়ে তার বোনের হত্যাকারীদের ফাঁসি দাবি করে বিচার কাজ দ্রুত শেষ করার আহ্বান জানান।কর্মসূচির মূল উদ্যোক্তা কটিয়াদী রক্তদান সমিতি হলেও এতে উপজেলার বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন উপস্থিত হয়ে একাত্মতা প্রকাশ করে।মানববন্ধনে কটিয়াদী রক্তদান সমিতির সমন্বয়ক বদরুল আলম নাঈমের সঞ্চালনায় বক্তৃব্য রাখেন, কিশোরগঞ্জের পাবলিক প্রসিকিউটর শাহ আজিজুল হক, কটিয়াদীর উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল ওয়াহাব আইন উদ্দিন, শ্রমিকনেতা আব্দুর রহমান রুমী, কেন্দ্রীয় যুব মহিলা লীগের সহ-তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক তানিয়া সুলতানা হ্যাপি, জেলা সিপিবি সভাপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম, ডা: মোস্তাকুর রহমান মোস্তাক, মুন্সী আবদুল হেকিম কারিগরি কলেজের অধ্যক্ষ ফজলুল হক জোয়ারদার আলমগীরসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।
ভাতিজার প্রেমে চাচি উধাও
১০ মে,শুক্রবার ,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম : ফরিদপুরের সালথা উপজেলায় ৩৮ বছর বয়সী ভাতিজার প্রেমে পড়ে ৫০ বছর বয়সী তিন সন্তানের জননী চাচি উধাও হয়েছেন। পালিয়ে যাওয়ার সময় নগদ সাড়ে তিন লাখ টাকা ও সাড়ে তিন ভরি স্বর্ণ নিয়ে গেছেন তিনি। উপজেলার খারদিয়া ইউনিয়নের উজিরপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে।এদিকে, ভাতিজার হাত ধরে ৫০ বছর বয়সী চাচি উধাও হওয়ার ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে এলাকায় চলছে আলোচনা-সমালোচনা।স্থানীয় সূত্র জানায়, মালয়েশিয়া প্রবাসী উজিরপুর গ্রামের জিয়ারুল শেখের স্ত্রী হেমা বেগমের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে একই গ্রামের মৃত আ. মাজেদ ফকিরের ছেলে সোহেল রানা ফকিরের পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক চলছিল। সম্পর্কে তারা চাচি-ভাতিজা। ১ মে কাউকে কিছু না জানিয়ে পালিয়ে যান হেমা। অনেক খোঁজাখুঁজির পর জানা যায় ভাতিজা সোহেল রানা ফকিরের সঙ্গে পালিয়ে গেছেন হেমা। সেই সঙ্গে সোহেল রানাকে বিয়ে করে তার বাড়িতে রয়েছেন তিনি।স্থানীয়রা জানান, হেমা বেগমের প্রথম সন্তান অর্থাৎ মেয়ে সুমি আক্তার বিবাহিত এবং এক সন্তানের জননী, বড় ছেলে নাজমুল শেখ এবার এসএসসি পরীক্ষা দিলেও পাস করতে পারেনি আর তৃতীয় ছেলে সালাউদ্দীন জেএসসি পরীক্ষার্থী।এদিকে, সোহেল রানা স্থানীয় এক হাফেজের মেয়েকে বিয়ে করলেও পরকীয়ার জালে আটকে যান। এ অবস্থায় আগের স্ত্রীকে তালাক দিয়ে হেমাকে বিয়ে করেন সোহেল রানা।বিষয়টি স্বীকার করে সোহের রানা ফকির বলেন, আমরা কোর্ট ম্যারেজ করেছি। আমাদের দুইজনের সম্মতিতে আমরা সব কিছু করেছি। স্ত্রী হিসেবে হেমা বেগম এখন আমার বাড়িতেই রয়েছে। আমরা ভালো আছি।এদিকে হেমা বেগমের বড় ছেলে নাজমুল শেখ জানায়, মায়ের কারণে আমি লেখাপড়া ঠিকমতো করতে পারিনি। আমার বাবার এত কষ্টের অর্জিত সম্পদ নিয়ে অন্যের হাত ধরে চলে গেছে মা। আমরা লজ্জায় কাউকে মুখ দেখাতে পারছি না।
সোনাগাজীর সেই ওসি বরখাস্ত
১০ মে,শুক্রবার ,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম : মাদরাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে গতকাল বৃহস্পতিবার ফেনীর সোনাগাজী থানার সাবেক ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। তাকে রংপুর রেঞ্জ ডিআইজি অফিসে সংযুক্ত করা হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পুলিশ সদর দফতরের এআইজি মো. সোহেল রানা।পুলিশ সদর দফতর সূত্র জানায়, নুসরাতকে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় পুলিশের ভূমিকা খতিয়ে দেখতে গঠিত তদন্ত টিমের প্রতিবেদনের সুপারিশ অনুসারে এ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। গত ২ মে তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন পুলিশের আইজিপির কাছে জমা দেয় পুলিশ সদর দফতরের সংশ্লিষ্ট শাখা।এদিকে ঘটনার ৩৩ দিন পর বুধবার রাতে নুসরাতের শরীরের আগুন দেওয়ার সময় ব্যবহৃত কেরোসিনের গ্লাস উদ্ধার করেছে মামলার তদন্তকারী সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।নুসরাত হত্যার ঘটনায় পুলিশের গাফিলতি তদন্তে গঠিত কমিটি ফেনীর পুলিশ সুপার জাহাঙ্গীর আলম সরকার এবং সোনাগাজী থানার সাবেক ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন, এসআই ইকবাল ও এসআই ইউসুফের গাফিলতির কথা উল্লেখ করে তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সুপারিশ করেছে।
কক্সবাজারে বন্দুকযুদ্ধ, ২ মাদক ব্যবসায়ী নিহত
৯মে,বৃহস্পতিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: কক্সবাজারে Rabর সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে দুজন নিহত হয়েছেন। Rab জানিয়েছে, নিহতরা মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত ছিল। এ সময় একটি একনলা বন্দুক, দুই রাউন্ড গুলি ও ১০ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। আজ বৃহস্পতিবার ভোরে সমুদ্রসৈকতের ঝাউবনে এ ঘটনা ঘটে। তাৎক্ষণিকভাবে নিহতদের নাম-পরিচয় পাওয়া যায়নি। তবে Rabর দাবি, তারা দীর্ঘদিন ধরে মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। কক্সবাজার Rab-১৫-এর ক্যাম্প কমান্ডার মেজর মেহেদী হাসান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, সাগরপথে একটি ইয়াবার চালান আসবে;এমন খবরে ওই স্থানে অবস্থান নেয় Rabর একটি টিম। এ সময় অবস্থান টের পেয়ে Rab কে লক্ষ্য করে গুলি করে মাদক কারবারিরা। আত্মরক্ষার্থে Rabও পাল্টা গুলি চালায়। গোলাগুলি থেমে গেলে ঝাউবন তল্লাশি করে এসব অস্ত্র ও ইয়াবাসহ ওই দুজনের মৃতদেহ পাওয়া যায়। মেজর মেহেদী হাসান আরো জানান, Rabর অভিযানের মুখে অনেকে পালিয়ে যায়। নিহত ব্যক্তিদের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
পাহাড়তলী থানা পুলিশের অভিযান,৩৫ লক্ষ টাকার টি শার্ট উদ্দার,গ্রেফতার ২
৮মে,বুধবার,নিজেস্ব প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম, চট্টগ্রাম:ধামরাইয়ের গ্রাফিক্স টেক্সটাইলস লি:এর ১৬০০০ পিস টি শার্ট নিয়ে বন্দরের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসা কভার্ড ভ্যানের ড্রাইভার মো:মহিন উদ্দিন মিরসরাই এসে কভার্ড ভ্যান খুলে ৮০০০পিস টি শার্ট চুরি করে বাকী ৮০০০ পিস সহ চট্টগ্রাম শহরে এসে ট্রাক রেখে পালিয়ে যায়। মাত্র তিন দিনের অক্লান্ত পরিশ্রম, এই সিন্ডিকেটের দুইজন গ্রেফতার, উদ্ধার হয়েছে ৩৫ লক্ষ টাকা মূল্যের সব টি শার্ট।পাহাড়তলী থানার অফিসার ইনর্চাজ মোঃ মঈনুর রহমানের নেতৃতে অফিসার তদন্ত মোঃ ইমাম হাসান, অপারেশন অফিসার এস.আই রানা প্রতাপ বনিক,এস আই. মোঃ মনির হোসেন, এস .আই শাহাদাৎ, এ. এস .আই ফজলুল বারী, এ.এস.আই. জিন্টু বড়য়াগনে অভিযান পরিচালনা করে উক্ত চুরির মালামাল উদ্ধার ও ঘটনার সাথে জরিত দুজন কে দ্রুত সময়ের মধ্যে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।পাহাড়তলী থানার অফিসার ইনর্চাজ মঈনুর রহমান জানান, রপ্তানিপণ্য চুরির ঘটনায় ট্রান্সপোর্ট এজেন্সি কর্তৃপক্ষ পাঁচজনকে এজাহারভুক্ত আসামি করে থানায় মামলা দায়েল করেছে। আমরা দুইজনকে গ্রেপ্তার করেছি। চুরি যাওয়া অধিকাংশ পণ্যও উদ্ধার করেছি। চুরির সাথে জড়িত পলাতকদের আইনের আওতায় আনা হবে।পণ্যবহনকারী ট্রান্সপোর্ট এজেন্সির ম্যানেজার জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, গত ২৯ এপ্রিল ঢাকার সাভারের ধামরাইল থেকে কাভার্ডভ্যানে ৪২৯ কার্টন রপ্তানির গ্যার্মেন্টস পণ্য পাঠানো হয় নগরীর সফি মোটরস অফডকে। অপডকে পণ্য বুঝে নেয়ার সময় কিছু ওজনে হালকা মনে হলে সংশ্লিষ্ট সিএন্ডএফ এজেন্ট কার্টনগুলো যাছাই করে দেখে। এরমধ্যে পণ্যবহন করে আনা কাভার্ডভ্যানের চালক মহিউদ্দিন ও হেলপার পালিয়ে যায়। পরে সিএন্ডএফ এজেন্টের লোকজন কাভার্ডভ্যান থেকে কার্টনগুলো খুলে গণনা করে দেখেন, ৪২৯ কার্টনে থাকা ১৬ হাজার ৬৯ পিস লেডিস ও জেন্টস টি শার্টের মধ্যে আট হাজার দুইশ ৫৮টি টি শার্ট চুরি করা হয়েছে। চুরি যাওয়া টি শার্টের বাজার মূল্য প্রায় ৩৫ লাখ টাকা।
নোয়াখালীতে যাত্রীবাহি বাস উল্টে নিহত ৩
৮মে,বুধবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: নোয়াখালীর চাটখিল উপজেলায় একটি যাত্রীবাহী বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খালে পড়ে তিনজন নিহত হয়েছেন। এ সময় আহত হয়েছেন কমপক্ষে ১৫ জন। বুধবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে ঢাকা-রামগঞ্জ মহাসড়ক মুন্সী রাস্তারসংলগ্ন স্থানে এ দুর্ঘটনা ঘটে। তাৎক্ষণিকভাবে হতাহতদের পরিচয় জানা যায়নি। চাটখিল থানার ওসি (তদন্ত) সাইফুল ইসলাম জানান, চৌমুহনী থেকে জননী পরিবহনের একটি বাস যাত্রী নিয়ে লক্ষ্মীপুর জেলার রামগঞ্জে যাচ্ছিল। পথে ঢাকা-রামগঞ্জ মহাসড়ক মুন্সিরাস্তারসংলগ্ন স্থানে বাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মহাসড়কের পাশে সরু খালে পড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই তিনজন নিহত এবং আহত হন কমপক্ষে ১৫ জন। আহতদের স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। নিহতদের মৃতদেহ উদ্ধার করে থানায় নেয়া হয়েছে বলে জানান পুলিশের ওই কর্মকর্তা।
সেজেছে ইফতারির পসরায়
৭ মে,সোমবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম :রমজানের প্রথম দিনেই বাহারি সব ইফতারে সেজেছে প্রাচীন ঢাকার ইতিহাস আর ঐতিহ্যের প্রাণকেন্দ্র চকবাজারসহ পুরো রাজধানী। ইফতারের আয়োজনে থাকছে লোভনীয় রসনা বিলাসের সব খাবার। কদরও বেশ। প্রকার আর কোয়ালিটি ভেদে দামেরও রয়েছে ভিন্নতা। হাক-ডাক আর কোলাহলে চলছে বেচা-বিক্রি। মানুষের ভীড়ে বিক্রেতারা গলা ছেড়ে হাক ছাড়ছে মন ভুলানো নানা কথায় ও বাক্যে। বড় বাপের পোলা খায়, ঠোঙ্গায় ভইরা লইয়া যায়।রাজধানীর চকবাজার, বেইলি রোড, আজিমপুর, সেন্ট্রাল রোড, ঝিগাতলা, কলাবাগান, গুলশান-১, বনানী সহ প্রতিটি স্থানে বাহারি ইফতারি নিয়ে বসেছে দোকানিরা। দেশীয়ও পাশ্চাত্য ধাচের খাবারও মিলছে এসব দোকানে।দেখা যায়, মঙ্গলবার বিকেলে সামিয়ানা এবং প্যান্ডেল সাজিয়ে ইফতারি বিক্রি করেছেন চকের ব্যবসায়ীরা। বাহারি ইফতারের পসরায় সাজানো হয়েছে ঢাকার প্রাচীন এ স্থানটিতে।দুপুর থেকেই চকবাজার ছাপিয়ে পুরান ঢাকার অলিগলির বাতাসে ভাসছে নানা স্বাদের মুখরোচক খাবারের মনকাড়া সুবাস।বিক্রেতারা জানায়, বংশগতভাবে দীর্ঘদিন ধরে এই জায়গায় ইফতারির ব্যবসা করছেন তারা। তাদের বাবা, দাদা, তার বাবারাও এখানে ইফতার সামগ্রী বিক্রি করতেন। ঐতিহ্য ধরে রাখতেই তাদের এই ব্যবসা। তবে, এখন অনেকেই নতুন নতুন এখানে এসেছেন বলেও জানান তারা। এখানকার খাবারের মধ্যে একটি নবাবী স্বাদ ও আমেজ থাকে।এদিকে মোহাম্মদপুর থেকে চকবাজারে ইফতারি কিনতে এসেছেন শিশির কাউসার। তিনি জানান, প্রতিবছর তিনি চকবাজার থেকে প্রথম দিন ইফতার কিনেন। এখানকার ইফতারি অন্যান্য স্থান থেকে আলাদা। তাই তিনি এখানে আসেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে চকবাজারের ইফতারি কিনতে এসেছেন জহিরুল ইসলাম। তিনি বলেন, প্রতিবছর ইফতার কিনতে চকবাজারে আসা হয়। পরিবারের সদস্যরাও চকবাজারের ইফতার পছন্দ করেন। তাই প্রথম দিনই ইফতারি কিনতে এসেছি। একই সময় গতবারের তুলনায় ইফতারির দাম কিছুটা বেড়েছে বলে অভিযোগ করেন।দাম বেশি নেয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে বিক্রেতা ইমরান খান বলেন, এবছর গরু ও খাসির মাংসের দাম বাড়তি। এ ছাড়া চিনিসহ অন্যান্য পণ্যের দামও বেশি। তাতে ইফতার বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে।বিক্রেতারা জানান, পুরান ঢাকার বাসিন্দাদের বাড়ির তৈরি ইফতারির চেয়ে দোকানে তৈরি ইফতারি দিয়েই ইফতার করতে অভ্যস্ত। যে কারণে পুরো রমজান জুড়েই চকের ইফতিারির বাজার থাকে সরগরম। তবে শুধু পুরান ঢাকার বাসিন্দাই নন। রাজধানীর অন্যান্য এলাকার বাসিন্দারা ও রমজানে চক বজার থেকে ইফতার সামাগ্রী নিতে আসেন। এবার নিত্যপণ্যের দাম বাড়ায় ইফতার সমাগ্রীর দাম বেড়েছে বলে জানান বিক্রেতারা।দেখা যায়, সুতি কাবাব, জালি কাবাব, টিকা কাবাব, ডিম চপ, কবুতর-কোয়েলের রোস্ট, ঐতিহ্যবাহী বড় বাপের পোলায় খায়, খাসির রান, গোটা মুরগি ফ্রাই, মুরগি ভাজা, ডিম ভাজা, পরোটা, শাহী কাবাব, সুতি কাবাব, সাসলিক, ভেজিটেবল রোল, চিকেন রোল, খাসির রানের রোস্ট, দইবড়া, হালিম, লাচ্ছি, পনির, পেস্তা বাদামের শরবত, লাবাং, মাঠা পাওয়া যাচ্ছে দোকানগুলোতে।আর পরিচিত খাবারের মধ্যে বেশি পাওয়া যাচ্ছে কিমা পরোটা, ছোলা, মুড়ি, ঘুগনি, সমুচা, বেগুনি, আলুর চপ, পিয়াজু, জিলাপিসহ নানা পদের খাবার।পুরান ঢাকার ঐতিহ্যবাহী বড় বাপের পোলায় খায় বিক্রি হচ্ছে ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা কেজিতে। ব্যবসায়ি সালেহ আহমেদ জানায়, এই ইফতার আইটেমটি তেরি করা হয়েছে ২৭টি পদ দিয়ে। এছাড়া খাসির রোস্ট পিস আকার ভেদে ৪৪০ থেকে ৬৫০ টাকায়, মুরগির রোস্ট পিস ৩০০ থেকে ৩৫০ টাকা, গরুর সুতি কাবাব ৫৫০ থেকে ৬০০ টাকা কেজি, দইবড়া কেজি ১৮০ থেকে ২৩০ টাকা, কবুতরের রোস্ট ১৫০ টাকা পিস বিক্রি হচ্ছে। কোয়েল প্রতি পিস ৬০ থেকে ৭০ টাকা। এ ছাড়া চিকন জিলাপি কেজি ১৫০ টাকা, বড় শাহী জিলাপি ২০০ থেকে ২৫০ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে।মন্ত্রিপাড়ার ইফতার বেইলি রোড রাজধানীর অভিজাত শ্রেণীর মানুষের ইফতারির বাজার হিসেবে খ্যাত বেইলি রোড। মন্ত্রিপাড়ার বাসিন্দা, ব্যাংকার, বিভিন্ন সরকারি আমলা ও কর্মকর্তা, বড় ব্যবসায়ি এবং শিল্পপতিরাই মূলত এখানকার ক্রেতা। তবে সাধারণ মানুষেরও ভীড় জমে এখানে। এখানে ফখরুদ্দিনের ইফতার, কাচ্চি বিরিয়ানি ও খাসির হালিমের ক্রেতাই বেশি। এছাড়াও রয়েছে স্কাইলার্ক, গোল্ডেন ফুড, আমেরিকান বার্গার, ক্যাপিটাল কনফেকশনারি, রেডকোর্ট, বুমার্স, মিস্টার বেকারস, কেএফসি, পিৎজা হাটসহ সব লোভনীয় সব ফাস্টফুডের দোকান। দোকানভেদে বেইলি রোডে রয়েছে দামেরও তারতম্য। চিংড়ি মাছের বল ৪০-৫০ টাকা, দইবড়া ১০০ থেকে ২০০ টাকা, সমুচা ১০-১৫, জিলাপি ১৬০ থেকে ২৫০ টাকা কেজি, হালিম ৫০ থেকে ৫০০, টানা পরোটা ৩০, কিমা পরোটা ৪৫, চিকেন ললি ৪৫-৬০, বিফমিনি কাবাব ৪০-৫০, চিকেন সিংগার স্টিক ৩০, আলু চপ প্রতিপিস ৫-২০, বেগুনি ও পেঁয়াজু ৫-১০, ছোলা প্রতি কেজি ২০০-২২০, প্রতিপিস শিক কাবাব ৬০, ঝালফ্রাই প্রতি কেজি ৪০০, বিফঝোল চাপ ৫৫০-৬০০ এবং ফালুদা ১৬০ থেকে ৩০০ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে। প্রতি কেজি গরুর কিমা ৬০০ টাকা, গরুর মগজ ৭০০-৮০০, জাম্প রোস্ট ৪০০-৪৫০, দেশী মুরগি প্রতিপিস ২৫০, গরুর শিক কাবাব পিস ৬০ এবং খাসি কাবাব ৮০ টাকা দরে বিক্রি হয়।