নিষেধাজ্ঞা অমান্য করায় চাঁদপুরে ৩৬ জেলে আটক
১৮,অক্টোবর,রবিবার,চাঁদপুর প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: চাঁদপুর মেঘনা নদীতে শনিবার বিকাল থেকে বরিবার সকাল পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে ইলিশ ধরার অপরাধে ৩৬ জেলেকে আটক করেছে জেলা টাস্কফোর্স কমিটির সদস্যরা। আটককৃতদের মধ্যে ৩১ জেলেকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড ও পাঁচ জনকে জরিমানা করেছে পৃথক ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময় ২ লাখ ৭০ হাজার মিটার কারন্টে জাল জব্দের পর পুড়িয়ে ফেলা হয়। এছাড়া জব্দকৃত প্রায় সাত মণ ইলিশ এতিমখানায় বিতরণ করা হয়। আটক জেলেরা চাঁদপুরের মতলব, হাইমচর উপজেলার ও মুন্সীগঞ্জ ও শরিয়তপুর জেলার বাসিন্দা। চাঁদপুর জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. আসাদুল বাকি জানান, আটক ৩৬ জেলের মধ্যে চাঁদপুর কোস্টগার্ডের পৃথক দুটি অভিযানে ২৪ জনকে আটক করে। ২৪ জেলের মধ্যে ১৪ জনকে একমাস, ৯ জনকে ২০ দিন করে কারাদণ্ড এবং একজনকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। হাইমচর কোস্টগার্ড ও মৎস্য বিভাগ অভিযান চালিয়ে আট জেলেকে এবং মতলব উত্তর উপজেলা টাস্কফোর্স চার জেলেকে আটক করে। আটক ৪ জেলের মধ্যে একজনকে ১ মাস কারাদণ্ড এবং ৩ জনকে ৫ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়। এছাড়া হাইমচর উপজেলায় আটক আট জেলের মধ্যে ৭ জনের এক বছর করে কারাদণ্ড এবং একজনকে পাঁচশ টাকা জরিমানা করা হয়। অভিযানে পৃথক ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন হাইমচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ফেরদৌসি বেগম, জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবিদা সিফাত, অলিদুজ্জামান ও মতলব উত্তর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা স্নেহাশীষ দাশ।
রাজশাহীতে পুলিশের উদ্যোগে ধর্ষণবিরোধী সমাবেশ
১৭,অক্টোবর,শনিবার,রাজশাহী প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: রাজশাহীতে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনবিরোধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার (১৭ অক্টোবর) দুপুরে রাজশাহী মহানগরীর সাহেববাজার বড় মসজিদ চত্বরে এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। রাজশাহী নগরীর বোয়ালিয়া মডেল থানা এর আয়োজন করে। রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশের (আরএমপি) বিভিন্ন বিট পুলিশিং কমিটির সদস্যরা নারী নির্যাতনবিরোধী আলাদা আলাদা Railly নিয়ে এ সমাবেশে যোগ দেন। এসময় তারা সাহেববাজার জিরোপয়েন্টে মানববন্ধন করেন। পরে বড় মসজিদের সামনে সমাবেশ হয়। সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন আরএমপি কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিক। তিনি বলেন, আমরা গোটা রাজশাহী শহরকে সিসি ক্যামেরার আওতায় আনবো। এ শহরে ধর্ষণ, নারী নির্যাতনের ঘটনা ঘটতে দেবো না। আমরা সবার সহযোগিতা চাই। সহযোগিতা পেলে রাজশাহীকে আমরা শান্তির শহর হিসেবেই গড়ে তুলতে পারবো। তিনি বলেন, আমাদের সন্তানদের মধ্যে ধর্মীয় মূল্যবোধ জাগ্রত করতে হবে। খেলাধুলার মধ্য দিয়ে তাদের খারাপ কাজ থেকে দূরে সরিয়ে আনতে হবে। তাহলে সমাজ হবে অপরাধমুক্ত। প্রায় ঘণ্টাব্যাপী এ সমাবেশে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আরএমপির অতিরিক্ত কমিশনার সুজায়েত ইসলাম ও সালমা বেগম। সভাপতিত্ব করেন আরএমপির বোয়ালিয়া জোনের উপ-কমিশনার সাজদ হোসেন।
পুলিশের সেবা সহজ করা হচ্ছে: তথ্য প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী
১৭,অক্টোবর,শনিবার,সিংড়া প্রতিনিধি,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, দেশে প্রযুক্তি নির্ভর পুলিশ বাহিনী গড়ে তোলা হচ্ছে। এর ফলে জনগনের সেবা প্রাপ্তি সহজ হবে। প্রতিমন্ত্রী আজ শনিবার সিংড়া উপজেলা কোর্ট মাঠে বিট পুলিশিং সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। সিংড়া থানার ওসি নূরে আলম সিদ্দিকীর সভাপতিত্বে সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন সিংড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছাঃ নাসরিন বানু, সিংড়া পৌরসভার মেয়র জান্নাতুল ফেরদৌস প্রমুখ। পলক বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা এবং আইসিটি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের পরামর্শে ২০১৭ সালের ১২ ডিসেম্বর দেশে অত্যাধুনিক সেবা কেন্দ্রের হট লাইন-৯৯৯ চালু করা হয়েছিল। এ পর্যন্ত ঐ সেবা কেন্দ্র হটলাইনে ২ কোটি ১৭ লক্ষ ফোন কল গ্রহন করে বিভিন্ন নাগরিক সেবা প্রদান করেছে। তিনি বলেন, অসুস্থতা, সড়ক দুর্ঘটনা, পানিতে ডুবে যাওয়া, অগ্নিকাণ্ড, আক্রান্ত হওয়াসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস, চিকিৎসা সেবা প্রতিষ্ঠান কল সেন্টার সেবা প্রদান করেছে। সেবা প্রদানের পরিধি ক্রমশ বাড়ছে। জুনাইদ পলক বলেন, প্রযুক্তির মাধ্যমে পুলিশ বাহিনীর আধুনিকায়নে কাজ করছে সরকার। দেশের এক হাজার থানাকে দ্রুতগতির ইন্টারনেট অপটিক্যাল ফাইবার ক্যাবলের আওতায় আনার কাজ চলছে। অনলাইনে সাধারণ ডায়েরী (জিডি) দায়ের করার নাগরিক সেবা কার্যক্রম চালু করার লক্ষ্যে দেশের পাঁচটি থানাতে পাইলটিং কাজ চলছে। অচিরেই সকল থানায় এই কার্যক্রম চালু করা হবে এবং এর ফলে ঘরে বসেই মানুষ পুলিশের কাঙ্খিত সেবা পাবে জানিয়ে তিনি বলেন, দূর্নীতি ও হয়রানি বন্ধে সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। প্রতিমন্ত্রী বলেন, বিচারহীনতার সংস্কৃতি থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশ ও জাতিকে মুক্ত করেছেন। ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তির বিধান ইতোমধ্যে মন্ত্রীসভায় অনুমোদন দেয়া হয়েছে, রাষ্ট্রপতি অধ্যাদেশ জারি করেছেন। সংসদের অধিবেশন বসলেই অনুমোদন দিয়ে তা আইন হিসেবে কার্যকরি হবে। পরে প্রতিমন্ত্রী উপজেলা অডিটোরিয়ামে উপজেলার ১৭টি ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে তিন লাখ ৫৫ হাজার টাকার চেক এবং আসন্ন দুর্গা পূজা উপলক্ষ্যে উপজেলার ৯৫টি পূজা মন্ডপের অনুকূলে ৪৭ টন চালের বরাদ্দপত্র বিতরণ করেন।
ফটিকছড়িতে ইয়াবাসহ আটক ১
১৬,অক্টোবর,শুক্রবার,ফটিকছড়ি প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: ফটিকছড়ি উপজেলার দাঁতমারা হোসেনেরখীল, ইসলামপুর, সেল্ফিরোড ও সিকদারখীলের চিহ্নিত ইয়াবা ব্যবসায়ী কাসেম নিজামীকে ৫১০ পিস ইয়াবাসহ আটক করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) দিবাগত রাতে অভিযান চালিয়ে ২ নম্বর দাঁতমারা ইউনিয়নের ইসলামপুরের মৃত তোফায়েল আহাম্মদ পুত্র উক্ত মাদকসম্রাট কাশেম নিজামীকে (৪০) ইয়াবাসহ আটক করে পুলিশ। উদ্ধারকৃত ইয়াবার বাজার মূল্য একলক্ষ তিপ্পান্ন হাজার টাকা বলে পুলিশ জানিয়েছে। দাঁতমারা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ সোহরাওয়ার্দী সরোয়ার জানিয়েছেন আটককৃত কাশেম নিজামী ওরফে নিজামী কাশেম এর বিরুদ্ধে ১টি হত্যা মামলা, ১টি মাদক মামলা, ১টি মারামারি মামলা রয়েছে। আসামির বিরুদ্ধে ভূজপুর থানায় মাদক আইনে মামলা দায়ের শেষে হাজতে প্রেরণ করা হবে বলে জানা গেছে। উল্লেখ্য, দাতঁমারা ইউপির হোসেনেরখিল এবং ইসলামপুর গ্রাম দুটি মাদকের স্বর্গরাজ্য হিসেবে চিহ্নিত হয়েছে। প্রভাবশালী ব্যক্তিদের ছত্রছায়ায় থেকে ইয়াবা ব্যবসা করে যাচ্ছে একটি মহল। রাবার বাগান বেষ্টিত গ্রাম দুটিতে নিয়মিত চলছে মাদক বিকিকিনি। কাশেম নিজামী ইতিপূর্বে তক্ষক কিনতে আসা এক ব্যক্তিকে হত্যা করে লাশ রাবার বাগানের জঙ্গলে ফেলে রাখে। পরে আদালতে ১৬৪ ধারায় হত্যার দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দেয়। দীর্ঘদিন জেল খেটে জামিনে আসে কাশেম নিজামীসহ অপর আসামিরা। মামলাটি বিচার পর্যায়ে রয়েছে।
সাতক্ষীরায় ৪ জনকে হত্যার ঘটনায় মামলা, তদন্তে সিআইডি
১৬,অক্টোবর,শুক্রবার,সাতক্ষীরা প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: জেলার কলারোয়ার খলসি গ্রামে ঘরে ঢুকে স্বামী, স্ত্রী ও তাদের দুই শিশু সন্তানকে গলা কেটে হত্যার ঘটনায় মামলা হয়েছে। নিহত শাহিনুর রহমানের শাশুড়ি ময়না খাতুন বৃহস্পতিবার রাতে বাদী হয়ে এ মামলা দায়ের করেন। তবে মামলার এজাহারে কারও নাম উল্লেখ করা হয়নি। মামলাটি তদন্তের জন্য সাতক্ষীরা পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগকে (সিআইডি) দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। এদিকে, ময়নাতদন্ত শেষে বৃহস্পতিবার গভীর রাতে চারজনের লাশ দাফন করা হয়েছে। কলারোয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হারান চন্দ্র পাল মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, মামলার বাদী হয়েছেন নিহত শাহিনুর রহমানের শাশুড়ি ময়না খাতুন। মামলা নম্বর ১৪। মামলাটি তদন্ত করবে সিআইডি। তিনি আরও জানান, এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কাউকে আটক বা গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি। কলারোয়ায় বৃহস্পতিবার ভোরে একই পরিবারের চারজনকে কুপিয়ে ও গলা কেটে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। নিহতরা হলেন- খলসি গ্রামের শাহাজান আলীর ছেলে হ্যাচারি মালিক শাহিনুর রহমান (৪০), তার স্ত্রী সাবিনা খাতুন (৩০), ছেলে সিয়াম হোসেন মাহি (৯) ও মেয়ে তাসনিম (৬)। শাহিনুরের ৪ মাস বয়সী শিশু সন্তান আফরিন বাদে বাকি চারজনকেই হত্যা করা হয়। শাহিনুরের ছোট ভাই রায়হানুল ইসলাম জানান, বাড়িতে তার মা ও বড় ভাইয়ের পরিবারসহ তারা সাতজন থাকতেন। তাদের মা বুধবার এক আত্মীয়ের বাড়িতে ছিলেন। তিনি (রায়হানুল) ছিলেন পাশের ঘরে। ভোরে ভাইয়ের ঘর থেকে তিনি গোঙানির শব্দ শুনতে পান। পরে গিয়ে দেখেন ঘরের বাইরে থেকে দরজা আটকানো। দরজা খুলে দেখতে পান বীভৎস দৃশ্য। তখনও একটি শিশু বেঁচে ছিল। সে কিছুক্ষণ পর মারা যায়।
সিলেটে পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতনে মৃত্যু: কবর থেকে রায়হানের মরদেহ উত্তোলন
১৫,অক্টোবর,বৃহস্পতিবার,সিলেট প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: সিলেটের বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতনে মৃত্যু হওয়া রায়হান আহমদের মরদেহ কবর থেকে উত্তোলন করা হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) সকালে নগরীর আখালিয়া এলাকার নবাবী মসজিদের পঞ্চায়েতের গোরস্থান থেকে মরদেহটি উত্তোলন করেন পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) এর একটি দল। এসময় জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সজিব আহমেদ ও মেজবাহ উদ্দিন উপস্থিত ছিলেন। মরদেহ উত্তোলনের পর তা পুনরায় ময়নাতদন্তের জন্য সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন- রায়হান হত্যা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পিবিআইর পরিদর্শক মাহিদুল হাসান ও ৯ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মখলিছুর রহমান কামরান। পিবিআই তদন্ত কর্মকর্তা মাহিদুল হাসান জানান, পুনরায় ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহটি কবর থেকে উত্তোলনের পর সুরতহাল প্রতিবেন্দন তৈরির পর মরদেহটি সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই), সিলেটের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ খালেদুজ্জামান বলেন, হেফাজতে মৃত্যু আইনে মামলা হলে নিহত ব্যক্তির ময়নাতদন্ত নির্বাহী ম্যাজিস্টেটের উপস্থিতিতে করার বিধান রয়েছে। কিন্তু ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতি ছাড়াই ময়না তদন্ত করে রায়হানকে কবর দেওয়া হয়। এ কারণে পুনরায় ময়না তদন্তের জন্য মরদেহ কবর থেকে উত্তোলনের আবেদন করেছিলেন মামলার পূর্ববর্তী তদন্তকারী কর্মকর্তা কতোয়ালি থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আব্দুল বাতেন। তার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বুধবার রায়হান আহমদের মরদেহ কবর থেকে তোলার অনুমতি দেন জেলা প্রশাসক। এর আগে মঙ্গলবার রায়হান আহমদের মারা যাওয়া ঘটনায় হওয়া মামলা পিবিআইতে স্থানান্তরের নির্দেশ দেয় পুলিশ সদর দপ্তর। এদিন রাতেই মামলার নথি আনুষ্ঠানিকভাবে পিবিআইতে হস্তান্তর মহানগর পুলিশ। বুধবার দুপুরে পিবিআইয়ের একটি দল সিলেটের বন্দর বাজার পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতনে মারা যাওয়া রায়হান আহমদের মৃত্যুতে হওয়া হত্যা মামলার তদন্তে নামেন। উল্লেখ্য, গত ১১ অক্টোবর (রোববার) ভোরে রায়হান আহমদ (৩৩) নামে সিলেট নগরের আখালিয়ার এক যুবক নিহত হন। পুলিশের পক্ষ থেকে প্রথমে প্রচার করা হয়, ছিনতাইয়ের দায়ে নগরের কাষ্টঘর এলাকায় গণপিটুনিতে নিহত হন রায়হান। তবে বিকেলে পরিবারের বক্তব্য পাওয়ার পর ঘটনা মোড় নিতে থাকে অন্যদিনে। পরিবার দাবি করে, সিলেট মহানগর পুলিশের বন্দর বাজার ফাঁড়িতে পুলিশের নির্যাতনে প্রাণ হারান রায়হান। ওই রাতেই পুলিশকে অভিযুক্ত করে সিলেটের কোতোয়ালি থানায় হেফাজতে মৃত্যু আইনে অজ্ঞাত আসামিদের বিরুদ্ধে মামলা করেন নিহতের স্ত্রী তাহমিনা আক্তার তান্নি। পরদিন রায়হানের মৃত্যুর ঘটনায় সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ কমিশনার (উত্তর) শাহরিয়ার আল মামুনকে প্রধান করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে সিলেট মহানগর পুলিশ। তদন্তে নেমে পুলিশ হেফাজতে রায়হান উদ্দিনের মৃত্যু ও নির্যাতনের প্রাথমিক সত্যতাও পায় তদন্ত কমিটি। তদন্ত কমিটি জানতে পারে রোববার ভোর ৩টার দিকে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় করে সুস্থ অবস্থায় রায়হান আহমদকে আনা হয় বন্দরবাজার ফাঁড়িতে। সেখানে ফাঁড়ি ইনচার্জ এসআই আকবর হোসেন ভূঁইয়ার নেতৃত্বেই তার ওপর নির্যাতন চালানো হয়। নির্যাতনে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে সকাল সাড়ে ৬টার দিকে রায়হানকে ওসমানী হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে সকাল ৭টার দিকে মারা যান তিনি। প্রসঙ্গত, রায়হান নগরের আখালিয়ার নেহারিপাড়া এলাকার মৃত রফিকুল ইসলামের ছেলে। তিনি স্টেডিয়াম মার্কেট এলাকায় এক চিকিৎসকের চেম্বারে সহকারী হিসেবে কাজ করতেন।
টাঙ্গাইলে গণধর্ষণ মামলায় ৫ জনের মৃত্যুদণ্ড
১৫,অক্টোবর,বৃহস্পতিবার,টাঙ্গাইল প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে অপহরণের পর গণধর্ষণ মামলায় পাঁচ আসামিকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ১১টায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক খালেদা ইয়াসমিন এ রায় দেন। একই সঙ্গে দণ্ডিত প্রত্যেককে এক লাখ টাকা করে জরিমানাও করা হয়েছে। টাঙ্গাইলের আদালত পরিদর্শক তানভীর আহমেদ জানান, ২০১২ সালের জানুয়ারি মাসে ভূঞাপুরে এক নারীকে অপহরণ করে গণধর্ষণ করা হয়। এ ঘটনায় দায়ের করা মামলার রায় হলো বৃহস্পতিবার। রায় ঘোষণার সময় সঞ্জিত ও গোপি চন্দ্র শীল নামে দুই আসামি উপস্থিত ছিলেন। বাকি তিন আসামি জামিনে বের হয়ে আত্মগোপন করেছেন।
নাজিরহাট পৌর মেয়রের সাথে পৌরসভা দুর্গাপুজা উদযাপন পরিষদের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত
১৪,অক্টোবর,বুধবার,সজল চক্রবর্ত্তী,ফটিকছড়ি,নিউজ একাত্তর ডট কম: ফটিকছড়ি উপজেলার নাজিরহাট পৌরসভা মেয়রের সাথে বাংলাদেশ দৃর্গাপুজা উদযাপন পরিষদ নাজিরহাট পৌরসভার এক মতবিনিময় সভা আশীষ চক্রবর্তীর সভাপতিত্বে আদিত্য সৈকতের সঞ্চালনায় গত১৪ অক্টোবর মঙ্গলবার নাজিরহাট পৌরসভার হল রুমে অনুষ্ঠিত হয়। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বিশিষ্ট দানবীর, সমাজ সেবক জনাব সিরাজ - উদ- দৌলা( মেয়র নাজিরহাট পৌরসভা) । বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মোহামামদ আলী ( প্যানেল মেয়র), জয়নাল আবেদীন ( কাউন্সিলর ১ নং ওয়ার্ড), দানবীর সুমন বনিক। সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মানষ চক্রবর্তী, প্রিয়রঞ্জন ভট্টাচার্য, দিলীপ নমঃ, ভবি রঞ্জন নাথ,দয়াল শীল,প্রদীপ রায়,সঞ্চয় ধর,উজ্জ্বল নাথ,সৌরভ পাল,প্রার্থ নাথ,রবিন পাল,আকাশ চৌধুরী নান্টু, শুভ চক্রবর্তী, রবি দে,শাওন বনিক,সবুজ নমঃ,দেবাশীষ শীল টিটু,লিটন নাথ,শান্ত নাথ,কিরন ধর,প্রনব দাস( ইঞ্জিনিয়ার),মনিরাজ কর প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। মেয়র সিরিজ - উদ- দৌলা বলেন, প্রতি বছরের মতো এবারও শান্তিপূর্ণভাবে দুর্গাপুজা উদযাপন করতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে সব রকমের ব্যবস্হা গ্রহন করা হয়েছে।
মিরসরাইয়ে ইয়াবা সহ ছাত্রলীগ নেতা গ্রেফতার
১৪,অক্টোবর,বুধবার,মিরসরাই প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: মিরসরাই উপজেলাধীন জোরারগঞ্জ থানার বারইয়ারহাট পৌর বাজার থেকে ৪ লাখ ৭৭ হাজার ৫শ টাকার (৯৫৫ পিস) ইয়াবাসহ দুইজন মাদক কারবারীকে গ্রেফতার করেছে Rab-7 ফেনী ক্যাম্পের সদস্যরা। মঙ্গলবার (১৩ অক্টোবর) রাত সাড়ে ৯ টার দিকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। তারা হলো- জোরারগঞ্জ থানার হিংগুলি ইউনিয়নের রফিক উদ্দিনের ছেলে উপজেলা ছাত্রলীগের সদস্য আবদুল্লাহ আল নোমান (২৪) ও নগরীর মুরাদপুর এলাকার আবুল কালামের ছেলে মো. নজরুল ইসলাম (২৬)। Rab-7 ফেনী ক্যাম্পের সহকারী পরিচালক ও ভারপ্রাপ্ত কোম্পানি অধিনায়ক মো. জুনায়েদ জাহেদী নিউজ একাত্তরকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, Rab-7 ফেনী গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বারইয়ারহাটস্থ শাহ আমানত হোটেলের ভেতরে মাদকদ্রব্য ক্রয়-বিক্রয়ের জন্য অবস্থান করছে, এমন সংবাদের ভিত্তিতে রাত সাড়ে ৯টার দিকে Rab-7 ফেনী ক্যাম্পের একটি আভিযানিক দল ওই হোটেলে উপস্থিত হওয়া মাত্রই Rabর উপস্থিতির টের পেয়ে ২ জন ব্যক্তি দৌড়ে পালানোর চেষ্টাকালে তাদের আটক করা হয়। পরবর্তীতে উপস্থিত সাক্ষীদের সম্মুখে আটককৃত আসামিদের তল্লাশি করে তাদের নিকট হতে সর্বমোট ৯৫৫ (নয়শত পঞ্চান্ন) পিস হালকা কমলা রংয়ের ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করে আসামিদের গ্রেফতার করা হয়। তিনি বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, তারা দীর্ঘদিন যাবৎ সুকৌশলে মাদকদ্রব্য (ইয়াবা ট্যাবলেট) সীমান্তবর্তী এলাকা হতে ফেনী চট্টগ্রাম জেলার বিভিন্ন মাদক ব্যবসায়ী ও মাদক সেবনকারীদের নিকট বিক্রি করে আসছে। উদ্ধারকৃত মাদকদ্রব্যের আনুমানিক মূল্য ৪ লক্ষ ৭৭ হাজার ৫০০ শত টাকা। গ্রেফতার দুই আসামি এবং উদ্ধারকৃত মালামাল সংক্রান্তে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য চট্টগ্রাম জেলার জোরারগঞ্জ থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি রাসেল ইকবাল চৌধুরী বলেন, কারো ব্যক্তিগত অপকর্মের দায়ভার সংগঠন বহন করবে না। আমরা নোমানের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করবো এবং তাকে স্থায়ীভাবে শুধু উপজেলা ছাত্রলীগের সদস্য পদ নয়, সংগঠন থেকেও বহিস্কার করা হবে।

সারা দেশ পাতার আরো খবর