ডাঃ আফছারুল আমীনের ২৪ ও ২৫ নং ওয়ার্ডে নির্বাচনী গণসংযোগ
চট্টগ্রাম-১০ আসনে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী ডাঃ আফছারুল আমীন নৌকা প্রতীকের সমর্থনে সংসদীয় আসন চট্টগ্রাম-১০ আসনের আওতাধীন ২৪ নং উত্তর আগ্রাবাদ ও ২৫ নং রামপুর ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগ করেন এবং সাধারন জনগণের সাথে কথা বলেন, এই সময় ডাঃ আফছারুল আমীন জন সাধারণের বিভিন্ন সমস্যার কথা শুনেন এবং আগামী দিনে তাদের পাশে থাকার নিশ্চয়তা দিয়ে বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকারের গণতন্ত্র, উন্নয়ন ও অগতির ধারাকে অব্যাহত রাখার জন্য আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগ প্রধান শেখ হাসিনার মনোনীত প্রার্থী হিসেবে উনাকে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করার উদাত্ত আহবান জানান। গণ সংযোগকালে উপস্থিত ছিলেন হালিশহর থানা আওয়ামীলী আহবায়ক ফয়েজ আহম্মদ, ২৪ নং উত্তর আগ্রাবাদ ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ সভাপতি মোঃ জাকারিয়া সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম, ২৫ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ আহবায়ক আবুল কাসেম, যুগ্ম আহবায়ক দিলদার খান দিলু, ২৪ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর নাজমুল হক ডিউক, ২৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর এরশাদ উল্লাহ, যুবলীগ নেতা সুমন দেবনাথ সহ স্থানীয় আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ,প্রেস বিজ্ঞপ্তি
চট্টগ্রাম উত্তরজেলা মহিলা আওয়ামীলীগের ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন
মহান বিজয় দিবসে চট্টগ্রাম কেন্দীয় শহীদ মিনারে গত ১৬ সকাল ৮টায় ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন করেন চট্টাম উত্তরজেলা মহিলা আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ। এসময় উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম উত্তরজেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভানেত্রী দিলোয়ারা ইউছুফ, সাধারণ সম্পাদিকা বাসন্তী প্রভা পালিত, সহ-সভাপতি রোমানা নাসরিন, রওশন আরা বেগম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক লিপি আজাদ, সাংগাঠনিক সম্পাদিকা জাহান আরা নাজনীন কার্যনির্বাহী সদস্য লিপি দেওয়ানজী, এড.লক্ষীরাণী চক্রবর্তী ইলা, পারভিন আকতার, নুরনাহার বেগম প্রমুখ। নেতৃবৃন্দরা সকল শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা জানান এবং ৩০ ডিসেম্বর স্বাধীনতার স্বপক্ষ তথা বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের মনোনিত প্রার্থীকে বিজয়ী করার আহবান জানান।প্রেস বিজ্ঞপ্তি
চট্টগ্রাম দক্ষিণজেলা মহিলা আওয়ামীলীগের ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন
মহান বিজয় দিবসে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে গতকাল ১৬ ডিসেম্বর সকাল সাড়ে ৮টায় ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন করেন চট্টগ্রাম দক্ষিণজেলা মহিলা আওয়ামীলীগের নেত্রীবৃন্দ। এসময় উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম দক্ষিণজেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সাবেক এমপি চেমন আরা তৈয়ব, সাধারণ সম্পাদিকা শামীমা হারুন লুবনা, সহ-সভাপতি কল্পনা লালা, দীপিকা বড়ুয়া, জান্নাত আরা মঞ্জু, যুগ্ম সম্পাদক খালেদা আকতার চৌধুরী, সম্পাদকমন্ডলীর সদস্য দিলওয়ারা বেগম, নুরমীন আকতার, তামান্না সুলতানা, ফৌজিয়া খানম, লুৎফুন্নেসা লুৎফা, জেবুন্ননেসা জেবু সঞ্চিতা বড়ুয়া, নিলুফার জাহান বেবী, সদস্য তিষণ সেনগুপ্ত, রওশন আকতার হেলেন প্রমুখ। নেতৃবৃন্দরা সকল শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা জানান এবং ৩ ডিসেম্বর স্বাধীনতার স্বপক্ষ তথা নৌকা প্রতীককে বিজয়ী করার আহবান জানান। প্রেস বিজ্ঞপ্তি
জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের প্রতি শ্রদ্ধা ও আলোক প্রজ্জ্বলন
আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান বৃহত্তর চট্টগ্রামের উদ্যোগে আজ বিকাল ৫টায় চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তানের বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক ছাত্র নেতা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপ কমিটির সহ-সম্পাদক সুরজিত দত্তের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন চবি শিক্ষক সমিতির সাবেক সভাপতি প্রফেসর ড. বেণু কুমার দে। আলোক প্রজ্জ্বলন উদ্বোধন করেন চট্টর শার্দুল জননেতা এম.এ. আজিজ এর সুযোগ্য উত্তরসূরি ও মহানগর আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সদস্য ও আমুস উপদেষ্টা সাইফুদ্দিন খালেদ বাহার। বিশেষ অতিথি ছিলেন সাবেক ছাত্রনেতা আবুল হাসনাত বেলাল, কাবেরী আইচ, সালমা জাহান মিলি, লিজা মরিয়ম, মো: ফারুক, মো: সাজ্জাদ হোসেন, শাহাদাত নবী খোকা, সাবেক ছাত্রনেতা শেখ মহিউদ্দিন বাবু, মো: ইউসুফ, দপ্তর সম্পাদক খোরশেদ আলম বাবলু, রূপন নাথ, লিটন কান্তি দাশ, আমুস চট্টগ্রাম গ্যাস ডিস্ট্রিভিশন লি: আহ্বায়ক মো: নাজমুল, কবি সজল দাশ, আসিফ ইকবাল, মহানগর ছাত্রলীগ নেতা মো: সাইদুল, আওয়ামী নির্মাণ শ্রমিক পরিষদের সভাপতি মো: দুলাল, মো: ছগির, মো: শিপন আহমেদ, জলছবি খেলাঘরের সাধারণ সম্পাদক মনোয়ার জাহান মনি, খেলাঘরের মহানগরী কমিটির নেতৃবৃন্দ, জলছবি খেলাঘর আসরের নেতৃবৃন্দ। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন মো: মঈনুল ইসলাম। ১৯৭১ সালের ১৪ ডিসেম্বর পাকিস্তানি দখলদার বাহিনীর সদস্যরা তাদের স্থানীয় দোসরদের সহায়তায় শিক্ষক, সাংবাদিক, চিকিৎসক, শিল্পী, প্রকৌশলী ও লেখকসহ দুই শতাধিক বৃদ্ধিজীবীদের ধরে নিয়ে যায়। পাকিস্তানী সৈন্যরা বুদ্ধিজীবীদের ধরে মিরপুর, মোহাম্মদপুর, নাখালপাড়া, রাজারবাগসহ বিভিন্নস্থানে হানাদার বাহিনীর নির্যাতন কেন্দ্রে নিয়ে নির্যাতন করে তাদের ওপর হত্যাযজ্ঞ চালায়। হত্যাযজ্ঞের মধ্যে শহীদ হয়েছেন শিক্ষাবিদ- ৯৯১, সাংবাদিক-১৩, চিকিৎসক-৪৯, আইনজীবী- ৪২জন ও অন্যান্য ১৯ জন। ওরা ভেবেছিল বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করলে দেশ হয়ে যাবে পাকিস্তানীদের দেশ। ওরা ভাবেনি এদের রক্তের বিনিময়ে এদেশ হবে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলাদেশ। বুদ্ধিজীবীদের আত্মত্যাগের প্রতিদান দিতে আগামী ৩০ ডিসেম্বর নৌকা প্রতীককে বিজয়ী করাই হবে সত্যিকারের শ্রদ্ধা। প্রেস বিজ্ঞপ্তি
সাতকানিয়ার পৌরসভা এলাকায় মহাজোট প্রার্থী ড. আবু রেজা নদভীর ব্যাপক গণসংযোগ
সাতকানিয়া পৌরসভার ছমদর পাড়া, ভোয়ালিয়া পাড়া, ছিটুয়া পাড়া, সামিয়ার পাড়া এলাকায় ১৪ ডিসেম্বর ২০১৮ ইং মহাজোট মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ড. আবু রেজা নদভী বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ও সাতকানিয়া উপজেলার সিনিয়র নেতৃবৃন্দদের সাথে নিয়ে দিনব্যাপী ব্যাপক গণসংযোগ করেন এবং বিভিন্ন পথসভায় বক্তব্য রাখেন। চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি মোহাম্মদ ইদ্রিস, সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট জহির উদ্দিন, আইন বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট মির্জা কছির উদ্দিন, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক নুরুল আবছার চৌধুরী, যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক গোলাম ফারুক ডলার, বিশিষ্ট মিডিয়া ব্যক্তিত্ব আসিফ ইকবাল, সাতকানিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি মাস্টার ফরিদুল আলম, মোজাম্মেল হক, হাজ্বী দেলোয়ার হোসেন, বশির আহমদ চৌধুরী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফয়েজ আহমদ লিটন, জসিম উদ্দিন, হোসেন কবির, সাংগঠনিক সম্পাদক জসিম উদ্দিন, মোহাম্মদ শাহজাহান, দপ্তর সম্পাদক সাইদুর রহমান দুলাল, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক নজরুল সিকদার, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল মোনাফ, লায়ন ওসমান গনি চৌধুরীর, পৌর মেয়র মোহাম্মদ জোবায়ের, সাতকানিয়া ইউপি চেয়ারম্যান নেজাম উদ্দিন, নলুয়া ইউপি চেয়ারম্যান তসলিমা আকতার, কাঞ্চনা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি মোখলেছ উদ্দিন জাকের, আওয়ামীলীগ নেতা গোলাম ফারুক রুবেল, উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক হারেজ মোহাম্মদ, উপজেলা কৃষকলীগের সভাপতি লুৎফুর রহমান, তাঁতীলীগের সভাপতি অধ্যাপক সোহরাব হোসেন মিন্টু। পথসভায় বক্তব্যে ড. আবু রেজা নদভী সাতকানিয়া লোহাগাড়ায় তাঁর ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় বিভিন্ন উন্নয়ন ফিরিস্তি তুলে বলেন, সন্ত্রাসের জনপথের বদনাম ঘুচিয়ে শান্তির নীড়ে পরিণত হয়েছে আজকের সাতকানিয়া লোহাগাড়া। তিনি এলাকার শান্তি, নিরাপত্তা ও উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষার স্বার্থে নৌকার প্রতীকে রায় প্রদানের জন্য জনগনের প্রতি উদাত্ত আহবান জানান।প্রেস বিজ্ঞপ্তি
পটিয়াকে মাদকমুক্ত করতে চাইলে ধানের শীষে ভোট দিন :এনাম
পটিয়ার সাবেক এমপি শাহনাজ চৌধুরী মন্টুর কবর জেয়ারতের মাধ্যমে পটিয়া বিএনপির ধানের শীষের প্রার্থী ও দক্ষিণ জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি এনামুল হক এনাম বলেছেন পটিয়াকে মাদকমুক্ত করতে ও উন্নয়ন চাইলে ধানের শীষে ভোট দিন। উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন ও পৌর এলাকার অলি গলিতে মাদক বেড়েছে। এর থেকে যুব সমাজ পরিত্রান পেতে চান। ১৪ ডিসেম্বর (শুক্রবার) বাদে আছর পটিয়ার সাবেক এমপি শাহনাজ চৌধুরী মন্টুর কবর জেয়ারত শেষে বিএনপির প্রার্থী এনামুল হক এনাম এই কথা বলেন। হুলাইন এয়াছিন আউলিয়া মাদ্রাসার মাঠে সংক্ষিপ্ত এক আলোচনায় বক্তব্য রাখেন, ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী এনামুল হক এনাম, পটিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ চৌধুরী টিপু, উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক খোরশেদ আলম, নুরুল আমিন এমএসসি, আবুল কালাম আজাদ, চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম, চেয়ারম্যান আবদুর রশিদ দৌলতী, ফজলুল কাদের, মো. হাসান, এডভোকেট শাহাদাত হোসেন, এডভোকেট আহমদুর রহমান, স্বেচ্ছাসেবক দলের দক্ষিণ জেলার সভাপতি সাইফুদ্দিন শালা মিঠু, ছাত্রদল নেতা শাহ আলম, নাজিম, পারভেজ, রবি, পটিয়া পৌরসভা ছাত্রদল নেতা হাবিবুর রহমান রিপন, রবিউল হাসান সৌরভ, রিদোয়ান, সায়মন, রনি, শাকিল। বিএনপির প্রার্থী এনামুল হক এনাম উপজেলার হাবিলাসদ্বীপ, হুলাইন, পাচুরিয়া, সফর আলী মুন্সির হাটসহ বিভিন্ন এলাকায় ব্যাপক গণসংযোগ করেন। এসময় দলের শত শত নেতাকর্মী গণসংযোগে অংশগ্রহণ করেন। আগামী ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিতব্য একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চট্টগ্রাম-১২ (পটিয়া) আসনে ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী এনামুল হক এনামকে বিজয়ী করার আহবান জানান। প্রেস বিজ্ঞপ্তি
মোস্তফা-হাকিম ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশন এর উদ্যোগে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালন
আলহাজ্ব মোস্তফা-হাকিম ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশন এর উদ্যোগে বাদ জুমা উত্তর কাট্টলী আলহাজ্ব মোস্তফা-হাকিম বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ত্বরে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালন করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র ও আলহাজ্ব মোস্তফা-হাকিম ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশন এর নির্বাহী পরিচালক এম মনজুর আলম।অনুষ্ঠানে মনজুর আলম বলেন, আজ ১৪ ডিসেম্বর শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস। এটি ইতিহাসের আরেকটি শোকের দিন।১৯৭১ সালের এই দিনে পাকিস্তানি ঘাতক বাহিনী চূড়ান্তভাবে নিজেদের পরাজয় নিশ্চিত জেনে এক ঘৃণ্য ষড়যন্ত্রে এক ন্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটিয়েছিল। এ দেশকে মেধা শূন্য করতে দেশের বুদ্ধিজীবীদের নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছিল। ১৯৭১ সালের ১৪ ডিসেম্বর মহান মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ের মাত্র দুই দিন আগে ঘৃণ্যতম হত্যাযজ্ঞ ঘটিয়েছিল পাকিস্তানি ঘাতকরা। এদেশের শ্রেষ্ঠ সন্তান হাজার হাজার চিকিৎসক, প্রকৌশলী, সাংবাদিক, শিক্ষাবিদ, গবেষক, কবি ও সাহিত্যিকদের চোখ বেঁধে বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে তাদের ওপর চালায় নির্মম-নিষ্ঠুর নির্যাতন, তারপর চালায় নারকীয় হত্যাযজ্ঞ। আজ আমরা গভীরভাবে তাঁদেরকে স্মরণ করছি।অনুষ্ঠানে বুদ্ধিজীবীদের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনায় কুরআন খতম, মিলাদ মাহফিল, দোয়া-মুনাজাত তাঁদের স্মৃতি ও অবদানের উপর আলোচনা করা হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, উত্তর কাট্টলী আলহাজ্ব মোস্তফা-হাকিম বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের অধ্যক্ষ মোহাম্মদ আলমগীর, উপাধ্যক্ষ বাদশা আলম, মোস্তফা-হাকিম কেজি এন্ড হাই স্কুলের পরিচালনা পর্ষদের সদস্য নেছার আহমদ প্রমুখ। অনুষ্ঠান শেষে উপস্থিত সকলের মাঝে খাবার বিতরণ করা হয়।প্রেস বিজ্ঞপ্তি
চট্টগ্রাম-৯ সংসদীয় আসনে নৌকার সমর্থনে কর্মী সভা
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নত বাংলাদেশ গড়তে সৎ, মেধাবী তরুণ শিক্ষিত যুবকরাই অগ্রণী ভূমিকা রাখবে। বিএনপি-জামাত জোটের আমলে বাংলাদেশ ২৮০০ মেগাওয়াট হতে প্রায় ২০ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করে বাংলাদেশের মানুষকে ৯৩ ভাগ বিদ্যুতের সুবিধা দিয়েছে, ডিজিটাল সেবায় ঘরে বসে বিদ্যুৎ, গ্যাস, পানি, স্কুলের ভর্তি সহ নানা কাজে ইন্টারনেটের মাধ্যমে সুবিধা ভোগ করছে, যোগাযোগ ব্যবস্থার বৈপ্লবিক উন্নতি ঘটেছে, কমিউনিটি ক্লিনিকের মাধ্যমে গ্রামাঞ্চলে দ্রুত স্বাস্থ্য সেবা নিতে পারছে সাধারণ জনগণ, সামাজিক নিরাপত্তা ভাতা, বিধবা ভাতা, মাতৃকালিন ভাতা, মুক্তিযোদ্ধা ভাতা, মুক্তিযোদ্ধা উৎসব ভাতা, শিক্ষা উপবৃত্তি, মেয়েদের বিনামূল্যে ডিগ্রী পর্যন্ত পড়ালেখার সুযোগ, বছরের প্রথমদিন কোমলমতি শিশুদের হাতে পাঠ্যপুস্তক তুলে দেওয়া, নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতুর মত বেশ কয়েকটি মেগা প্রকল্প হাতে নেওয়া, দোহাজারী হতে রামু পর্যায়ক্রমে দুমদুম রেল লাইন সম্প্রসারিত করা, বাংলাদেশের সমপরিমাণ মায়ানমার ও ভারত থেকে সমুদ্র সীমানা বিজয়, জঙ্গিবাদ, মৌলবাদ, সন্ত্রাসবাদ নির্মূল, বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার গণমানুষের মৌলিখ চাহিদা মিটিয়ে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে প্রায় ১০ লক্ষ রোহিঙ্গা শরণার্থীদেরকে আশ্রয় এবং পুনর্বাসন। এসব বিশাল কর্মযজ্ঞে বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা নেতৃত্ব দিয়েছেন। তাই উন্নত রাষ্ট্র গঠন করতে আরেকবার বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনাকে ৩০ ডিসেম্বর নৌকা প্রতীকে ভোট দিয়ে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত করতে হবে, এক্ষেত্রে চট্টগ্রাম-৯ সংসদীয় আসনের নৌকার প্রার্থী তরুণ, সৎ, মেধাবী, যোগ্যতা সম্পন্ন ব্যক্তিত্ব চট্টল বীর আলহাজ্ব এ.বি.এম. মহিউদ্দিন চৌধুরীর সুযোগ্য পুত্র, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান নওফেলর বিকল্প নেই। তাকেও আমরা যদি নির্বাচিত করি চট্টগ্রামের অসমাপ্ত কাজগুলো সম্পাদন করতে পারবে। কাজির দেউরী বালক-বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে সেন্টার কমিটির কর্মী সভায় প্রধান অতিথি বক্তব্য রাখতে গিয়ে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি, কাউন্সিলর, নির্বাচন পরিচালনা কমিটির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন। ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এড. সাজ্জাদুর রহমান বাচ্চুর সভাপতিত্বে এবং যুবনেতা শেখ বশির আহমেদ এর পরিচালনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল বশর। প্রধান বক্তা ছিলেন ছাত্রলীগ মহানগর শাখার সাবেক সভাপতি এম.আর. আজিম, বিশেষ অতিথি থানা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি জাকির উদ্দিন সর্দ্দার, শেখ হারুনুর রশিদ, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ যুগ্ম সম্পাদক শাহজাহান রতন, নগর যুবলীগ সদস্য হাবিব উল্লাহ নাহিদ, শেখ নাছির আহমেদ। আলোচনায় অংশ নেন- মুক্তিযোদ্ধা মো: রফিক, আবদুল জলিল সর্দ্দার, যুবনেতা আবু তাহের, শওকত উল্লাহ সোহেল, এস.এম. সিরাজ, মো: রফিকুল ইসলাম, মো: কফিল উদ্দিন, নারী নেত্রী নুর বেগম, পেয়ারী বেগম, যুবনেতা জহির উদ্দিন রাজু, মো: জুয়েল, আবদুর রকি, রুবেল আহমেদ। উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা মাহবুব আলম, আওয়ামী লীগ নেতা আবদুল মালেক, ছাত্রনেতা খোরশেদ আলম জুয়েল, মো: সাজ্জাদ গণি, শহিদুল ইসলাম রানা, আহমেদ জুয়েল, নুর মোহাম্মদ ইলিয়াছ, বিশ্বনাথ দাশ বিশু, ফরিদ আলম, আজাদ হোসেন, আবদুল হান্নান, জাহাঙ্গীর আলম, আসাদ হোসেন, মাহবুব আলম, মো: আনোয়ার আনু, হাজী জসিম মিয়া, মো: সুমন প্রমুখ। কাজির দেউরী বালক-বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে সেন্টার কমিটির ক্যাম্প উদ্বোধন, মিছিল ও প্রচারণায় অংশ নেন সম্মানিত অতিথিবৃন্দ। প্রেস বিজ্ঞপ্তি

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর