চট্টগ্রামে প্রার্থীর গাড়ি থেকে পেট্রোল বোমা-অস্ত্র উদ্ধার
অনলাইন ডেস্ক: সীতাকুণ্ড থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. দেলোয়ার হোসেন বলেন, পাজেরো গাড়িটিতে তল্লাশি করে ১৯টি পেট্রোল বোমা ও একটি কাটা বন্দুক পাওয়া গেছে। গাড়িটিতে ভালোভাবে তল্লাশি করা হচ্ছে। আরও অস্ত্র-গুলি, বিস্ফোরক আছে কি-না দেখা হচ্ছে। ওসি জানান, মেহেদি হাসান আগে প্রার্থী ইসহাক কাদের চৌধুরীর ভাই বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব আসলাম চৌধুরীর গাড়ি চালাতেন। আসলাম চৌধুরী জেলে যাবার পর এই গাড়িতে ইসহাক কাদের চৌধুরী যাতায়াত করেন। স্থানীয়রা জানান, বুধবার বেলা ১২টার দিকে ইসহাক কাদের চৌধুরী বাসায় নেতাকর্মীদের সঙ্গে বৈঠক করেন। এসময় তার বাড়ির সামনে পুলিশ অবস্থান নেয়। পাজেরো গাড়িটি ওই বাসা থেকে বের হওয়ার সময় সেটি আটকে তল্লাশি করে পুলিশ। তল্লাশিতে পেট্রোল বোমা ও অস্ত্র পাওয়া যায়। এর আগে মঙ্গলবার চট্টগ্রাম-৪ (সীতাকুণ্ড) আসনে উপজেলার ভাটিয়ারি ইউনিয়নের জাহানাবাদ গ্রামে আওয়ামী লীগের প্রার্থী দিদারুল আলম গণসংযোগে গেলে তাদের উপর পেট্রোল বোমা হামলার ঘটনা ঘটে। এতে তিনগন দগ্ধসহ অন্ততঃ ১০ জন আহত হয়।
সীতাকুণ্ডে নৌকার মিছিলে পেট্রোল বোমা, দগ্ধ ৩
সুজন আশ্চ্যার্য :চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে নৌকা প্রার্থীর নির্বাচনী প্রচারণা মিছিলে পেট্রোল বোমা ছুঁড়ে হামলার ঘটনা ঘটেছে। এতে ৩ জন দগ্ধ হয়েছেন। হামলায় উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহেদুল ইসলাম শাহেদ দগ্ধ হয়েছেন। মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে সীতাকুণ্ড উপজেলার মাদাম বিরিহাটে চট্টগ্রাম-৪ আসনে আ. লীগের প্রার্থী আলমের প্রচারের মধ্যে এ হামলা হয়। আহত ৪ জনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ বিষয়ে মেডিকেল পুলিশ ফঁড়ির এএসআই আলাউদ্দিন তালুকদার বলেন, তাদের মধ্যে ৩ জন দগ্ধ। আরেকজন শরীরে কিছুটা আঘাত পেয়েছেন। এদিকে ভাটিয়ারী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি চেয়ারম্যান মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন বলেন, মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে বিএনপি-জামায়াতের লোকজন অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে আমাদের লোকদের ওপর হামলা করে। এ সময় তারা আমাদের নেতা-কর্মীদের ওপর ২০১৩-১৪ সালের মতো পেট্রোল বোমা ছুঁড়ে মারে। এতে তিনজন দগ্ধসহ ১০ জন আহত হয়। দগ্ধদের মধ্যে একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। হামলার ব্যাপারে চট্টগ্রাম-৪ আসনের বর্তমান সাংসদ দিদার বলেন, দুপুরে তিনি যখন সমর্থকদের নিয়ে প্রচারণা চালাচ্ছিলেন, তখনই তার কর্মীদের ওপর হামলা করে পেট্রোল বোমা ছোড়া হয়। আমার বিপক্ষের প্রার্থীর লোকজন এ হামলা চালিয়েছে। আমার কর্মীদের মধ্যে অন্তত ১০ জন আহত হয়েছে। সীতাকুণ্ড আসনে আ. লীগের প্রার্থী দিদারুল আলমের মূল প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির উত্তর জেলা কমিটির আহ্বায়ক আসলাম চৌধুরীর বড়ভাই ইসহাক কাদের চৌধুরী। সীতাকুণ্ড মডেল থানার ওসি দেলওয়ার হোসেন বলেন, দুপক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। আমরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসি।
মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সরকারকে আবারও ক্ষমতায় আনতে সাংবাদিকরা ঐক্যবদ্ধ হয়েছে
অনলাইন ডেস্ক: প্রগতিশীল সাংবাদিকরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী। মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার পক্ষে তারা। মুক্তিযুদ্ধের সরকার নির্বাচিত না হলে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হতো না। দেশের উন্নয়ন ও অগ্রযাত্রার জন্য সরকারের ধারাবাহিকতা দরকার। অপশক্তি ক্ষমতায় এলে দেশের অগ্রযাত্রা বন্ধ হয়ে যাবে। তাই এই ক্রান্তিলগ্নে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সরকারকে আবারও ক্ষমতায় আনতে সাংবাদিকরা ঐক্যবদ্ধ হয়েছে। সোমবার (২৪ ডিসেম্বর) চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের বঙ্গবন্ধু হলে 'মুক্তিযুদ্ধের আদর্শে লালিত চট্টগ্রামের সাংবাদিক সমাজ আয়োজিত অনুষ্ঠানে সিনিয়র সাংবাদিকরা এসব কথা বলেন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রার্থীদের সমর্থন দিতে এ অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়। বক্তব্য দেন চসিক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন।প্রধান অতিথির বক্তব্যে চসিক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, জিয়াউর রহমান মুক্তিযুদ্ধ করলেও বিএনপি মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণ করে না। গোলাম আজমকে নাগরিকত্ব ফিরিয়ে দিয়েছে তারা। মুক্তিযুদ্ধের চেতনাধারীরা কখনো বিএনপির নেতৃত্বাধীন জোটকে সমর্থন দিতে পারে না। তিনি আরও বলেন, বিএনপি-জামায়াতের মিডিয়ায় তাদের দলের বিরুদ্ধে, তাদের ক্যাডারদের নিয়ে লেখে না। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের মিডিয়াকে বিষয়টি বিবেচনায় নিতে হবে। সাংবাদিকরা এ দেশের নাগরিক। আপনাদের সমর্থন সমাজে অনেক প্রভাব ফেলবে। চট্টগ্রামের ১৬টি আসনের প্রার্থীদের সমর্থন দেয়ায় সরকার গঠন সহজ হবে। বক্তব্য দেন চট্টগ্রাম-১০ আসনের প্রার্থী ডা. মো. আফছারুল আমীন,অনুষ্ঠানে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব ও চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের আয়োজনে মেয়র আ জ ম নাছির সহ একমঞ্চে বসেন চট্টগ্রাম-৯ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী, চট্টলবীর এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর ছেলে ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, চট্টগ্রাম-১০ আসনের প্রার্থী ডা. মো. আফছারুল আমীন, চট্টগ্রাম-১১ আসনের প্রার্থী এমএ লতিফ। সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সভাপতি কলিম সরওয়ার। চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শুকলাল দাশের সঞ্চালনায় স্বাগত বক্তব্য দেন চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের (সিইউজে) সভাপতি নাজিমুদ্দীন শ্যামল। বক্তব্য দেন চট্টগ্রাম-৯ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল। মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল সাংবাদিকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলেন, সাংবাদিকরা এ আয়োজনের মধ্য দিয়ে জানিয়ে দিলেন-দেশ কোন পথে যাবে। বঙ্গবন্ধু কন্যা গণমাধ্যমকে শিল্পে পরিণত করেছেন। রাজনৈতিক সৎ সাহস আছে বলেই এতগুলো গণমাধ্যমের অনুমতি দিয়ে সমালোচনাকে উন্মুক্ত করে দিয়েছেন। একজন রাজনৈতিক দার্শনিক হিসেবে তিনি নির্বাচন নিয়ে চিন্তা করছেন না, তিনি আগামি কয়েকটি প্রজন্মের কথা চিন্তা করছেন। বক্তব্য দেন চট্টগ্রাম-১১ আসনের প্রার্থী এমএ লতিফ।ডা. মো. আফছারুল আমীন বলেন, বার আউলিয়ার চট্টগ্রাম, বীরের দেশ চট্টগ্রামের সাংবাদিকরা যে সমর্থন দিলেন তা বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার প্রতীক নৌকাকে এগিয়ে নেবে। সাংবাদিক বন্ধুদের রাজপথে দেখলে ভোটাররা উদ্বুদ্ধ হবে কেন্দ্রে আসবে। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চূড়ান্ত কবর রচিত হবে প্রতিক্রিয়াশীলদের। এমএ লতিফ বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মৌলবাদীরা অঘোষিত যুদ্ধ ঘোষণা করেছে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তির বিরুদ্ধে। নৌকার বিজয়ে সাংবাদিকদের সমর্থন বড় ভূমিকা রাখবে। তিনি বলেন, যারা রাজনীতি করি, স্বাধীনতার পক্ষের শক্তির প্রতিনিধিত্ব করি, রাষ্ট্রক্ষমতার সঙ্গে সাধারণ মানুষের যোগসূত্র স্থাপন করি। বঙ্গবন্ধু কন্যা দেশের অবকাঠামোগত উন্নয়ন করে দিয়েছেন। বন্দরের সক্ষমতা বেড়েছে। পতেঙ্গা টার্মিনাল, বে-টার্মিনাল ও সীতাকুণ্ড-মিরসরাইয়ে টার্মিনাল নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। অনুষ্ঠানে তিন প্রার্থীকে সমর্থন জানিয়ে বক্তব্য দেন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি রিয়াজ হায়দার চৌধুরী, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি আবু সুফিয়ান, আলী আব্বাস, সিনিয়র সাংবাদিক মোস্তাক আহমেদ, হেলাল উদ্দিন চৌধুরী, জসিম চৌধুরী সবুজ, মোয়াজ্জেমুল হক, স্বপন দত্ত, পঙ্কজ কুমার দস্তিদার, রফিকুল বাহার, এজাজ ইউসুফী প্রমুখ।
আমার পরিবার মানুষের কল্যাণে নিবেদিত: দিদারুল আলম
অনলাইন ডেস্ক: সীতাকুণ্ডের মানুষের ভালোবাসা ও আস্থাকে পুঁজি করে এখানকার সর্বস্তরের মানুষের কল্যাণে, উন্নয়নে সকাল থেকে গভীর রাত অবধি বিরামহীন কাজ করছি। বংশ পরম্পরায় আমার পরিবার মানুষের কল্যাণে নিবেদিত। আমিও নিজের কষ্টার্জিত অর্থ-সম্পদ সীতাকুণ্ডের দুখী, অসহায়, দরিদ্র মানুষের জন্য অকাতরে ব্যয় করছি। রোববার (২৩ ডিসেম্বর) বিকাল ৩টায় পৌরসদরের দক্ষিণ বাইপাসে পৌর আওয়ামী লীগ আয়োজিত কর্মী সমাবেশে নৌকার প্রার্থী দিদারুল আলম এসব কথা বলেন। সীতাকুণ্ডে পৌর আওয়ামী লীগ আয়োজিত কর্মী সমাবেশপৌর মেয়র বদিউল আলমের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক এ জে এম হোসেন লিটনের পরিচালনায় কর্মী সভায় বক্তব্য দেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এস এম আল মামুন, উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মো. ইসহাক, সহ-সভাপতি গোলাম রব্বানী, উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা কাউন্সিলর জুলফিকার আলী শামীম, শফিউল আলম মুরাদ, মাঈমুন উদ্দিন মামুন, মেজবাহ উদ্দিন চৌধুরী, মফিজুর রহমান, নাজিম উদ্দিন কনক, পৌর কাউন্সিলর হারাধন চৌধুরী বাবু, আনোয়ার হোসেন ভূঁইয়া, মাসুদ হোসেন, আওয়ামী লীগ নেতা ইঞ্জিনিয়ার জাহাঙ্গীর, দিদারুল আলম এপোলো, মোফাক্কর চৌধুরী, মো. শাহজাহান, জাহেদ চৌধুরী ফারুক, ইব্রাহীম বাবুল প্রমুখ।
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা বিপুল ভোটে জয়ী হবে :আ জ ম নাছির
অনলাইন ডেস্ক : দেশে মুষ্টিমেয় কিছু কুলাঙ্গার ছাড়া সবাই মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে বলে মন্তব্য করেছেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন।রোববার (২৩ ডিসেম্বর) সকালে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে নগর আওয়ামী লীগের আনুষ্ঠানিক প্রচারণা উদ্বোধন অনুষ্ঠানে মেয়র এ মন্তব্য করেন।তিনি বলেন, ৩০ ডিসেম্বর বহুল প্রত্যাশিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। দেশ কোন পথে অগ্রসর হবে তা এ নির্বাচনে নির্ধারণ হবে। তাই নির্বাচন অতীব গুরুত্বপূর্ণ। স্বাধীনতার সুফল ঘরে ঘরে পৌঁছে দেওয়া প্রতিটি নাগরিকের দায়িত্ব। এর জন্য নৌকা প্রতীকের প্রার্থীদের বিজয়ী করা ছাড়া বিকল্প নেই।নগর আওয়ামী লীগের নির্বাচনী প্রচারণা। ছবি: সোহেল সরওয়ারতিনি বলেন, নগর আওয়ামী লীগ ঐক্যবদ্ধভাবে নগর সংশ্লিষ্ট ৬টি আসনে জয়ের লক্ষ্যে প্রচারণা চালাচ্ছে। নওফেল, লতিফ, আফছারুল আমীন, ব্যারিস্টার আনিস, মইনউদ্দিন খান বাদল, দিদারুল আলমের পক্ষে ২৮ ডিসেম্বর সকাল আটটা পর্যন্ত প্রচারণা চলবে।২৭ ডিসেম্বর সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে নগর আওয়ামী লীগ গত ১০ বছরে শেখ হাসিনা চট্টগ্রামের জন্য কী করেছেন, কী করবেন তা নগরবাসীর সামনে তুলে ধরা হবে বলে জানান নাছির।নগর আওয়ামী লীগের আনুষ্ঠানিক প্রচারণায় চসিক মেয়র। ছবি: সোহেল সরওয়ারসকালে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে নগর আওয়ামী লীগের আনুষ্ঠানিক প্রচারণা উদ্বোধন করেন ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী।তিনি বলেন, আমাদের প্রতিপক্ষ কান্নাকাটি করে লাভ হবে না, নৌকা বিপুল ভোটে জয়ী হবে।এসময় উপস্থিত ছিলেন সহ-সভাপতি খোরশেদ আলম সুজন, যুগ্ম সম্পাদক আবদুর রশীদ, বদিউল আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক প্যানেল মেয়র চৌধুরী হাসান মাহমুদ চৌধুরী, নোমান আল মাহমুদ, তথ্য সম্পাদক চন্দন ধর, বন সম্পাদক মশিউর রহমান চৌধুরী, মুক্তিযোদ্ধা সম্পাদক আবদুল আহাদ, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক মো. হোসেন, প্রচার সম্পাদক শফিকুল ইসলাম ফারুক, স্বাস্থ্য সম্পাদক ডা. ফয়সাল ইকবাল চৌধুরী, উপ প্রচার সম্পাদক শহীদ উল আলম, মহিলা সম্পাদক জোবাইরা নার্গিম খান, সদস্য অমল মিত্র, কামাল উদ্দিন, সাইফুদ্দিন খালেদ বাহার, রোটারিয়ান মো. ইলিয়াস, জাফর আলম, বেলাল আহমদ, শেখ শহীদুল আনোয়ার, মানস রক্ষিত, দক্ষিণ জেলা যুগ্ম সম্পাদক শাহজাদা মহিউদ্দিন, গণতন্ত্রী পার্টির জেলা সহ-সভাপতি স্বপন সেন, জেপির আজাদ দোভাষ, ন্যাপের মিঠুল দাশগুপ্ত প্রমুখ।বিএফইউজের সহসভাপতি রিয়াজ হায়দার চৌধুরী, পেশাজীবী সমন্বয় পরিষদের নেতা ডা. একিউএম সিরাজুল ইসলামসহ বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতারাও এসময় উপস্থিত ছিলেন।
উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে নৌকায় ভোট দিন :জাবেদ
চট্টগ্রাম-১৩ সংসদীয় আসন হতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আলহাজ্ব সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ নৌকা প্রতীকের নির্বাচনী প্রচারণায় আনোয়ারা ৮নং চাতরী ইউনিয়নের কৈনপুরা ও মহতরপাড়া ওয়ার্ডের জনগণের সাথে উঠান এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন আনোয়ারা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যাপক এম.এ. মান্নান চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক এম.এ. মালেক, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইয়াছিন হিরো, বিশিষ্ট সমাজসেবক রঘুপতি সেন, সাবেক ছাত্রনেতা ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ উপ কমিটির সহ-সম্পাদক, আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সুরজিৎ দত্ত সৈকত, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি নুরুছাফা মেম্বার, সাধারণ সম্পাদক আশীষ কান্তি নাথ, আনোয়ারা থানা যুবলীগ নেতা মো: আব্বাস, পীযুষ দত্ত, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি রণধীর দত্ত, সহ-সভাপতি বাবু প্রণোতোষ দত্ত, সাধারণ সম্পাদক বিশ্বনাথ দত্ত, মহতর পাড়া ওয়ার্ড নির্বাচনী কমিটির সভাপতি শরিফ মেম্বার (বাডু), সাধারণ সম্পাদক মো: ইসহাক, ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা মো: শফি, দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগ নেতা আবদুল মাজেদ, সুশান্ত দত্ত, নিরোদ বরণ সেন, সজল সেনগুপ্ত, শ্রীকান্ত দত্ত, ভবতোষ দত্ত, সঞ্জিত পাল, দিবাকর দত্ত, সজল দাশ, কাজল দাশ, লিটন দাশ, অবিনাশ দাশ, যদু দাশ, ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা সুমন দাশ, ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগ সুশান্ত দে, রতন দাশ, ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা নন্দন ঘোষ, দেবাশীষ দাশ, পলাশ দে, শক্তিম চৌধুরী (তুলতুল) প্রমুখ। জাবেদ বলেন, এই কৈনপুরা ও মহতর পাড়া আনোয়ারা-কর্ণফুলী ও সারা বাংলাদেশে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সর্বোচ্চ উন্নয়ন হয়েছে। ভবিষ্যতে আরো উন্নয়ন হবে। আমার বিশ্বাস আপনারা আমাকে নৌকা প্রতীকে বিপুল ভোটে নির্বাচিন করবেন। আমি নির্বাচিত হলে অসমাপ্ত কাজগুলো সম্পন্ন করে গ্রামকে শহরের মত রূপান্তরিক করবো। তাই আগামী ৩০ ডিসেম্বর নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে আমাকে পুনরায় আপনাদের সেবার করার সুযোগ দিন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি
পটিয়ায় নৌকার প্রার্থী আলহাজ্ব সামশুল হক চৌধুরীর ব্যাপক গণসংযোগ
চট্টগ্রাম ১২ পটিয়া আসন থেকে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ তথা মহাজোট মনোনিত প্রার্থী, ২ বারের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সামশুল হক চৌধুরী ৭নং জিরি ইউনিয়নের জিরি ৫নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ নির্বাচন পরিচালনা কমিটির এক মতবিনিময় সভা ও গণসংযোগ ৫নং ওয়ার্ড নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব লোকমান হাকিমের সভাপতিত্বে জিরি আমানিয়া লোকমান হাকিম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বিকেল ৪টায় অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম ১২ পটিয়া থেকে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ মনোনিত নৌকার প্রার্থী আলহাজ্ব শামসুল হক চৌধুরী এমপি। ৫ নং ওয়ার্ড নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সচিব আমিনুল ইসলাম টিপুর পরিচালনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, দক্ষিণজেলা আওয়ামীলীগের সাংগাঠনিক সম্পাদক বাবু প্রদীপ দাশ, চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান বাবু দেবব্রত দাশ, দক্ষিণজেলা আওয়ামীলীগের স্বাস্থ্যবিষয়ক সম্পাদক ডাঃ তিমির বরণ চৌধুরী, সদস্য নাছির চেয়ারম্যান, চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান, ওয়াকার্স পার্টি চট্টগ্রাম জেলার সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক শরীফ চৌহান, পটিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সহ সভাপতি আজিমুল হক, চট্টগ্রাম দক্ষিণজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সিনিয়র সহ সভাপতি চেয়ারম্যান এম,এ,হাশেম, সাংগাঠনিক সম্পাদক এম,এজাজ চৌধুরী, আওয়ামীলীগনেতা নবাব চৌধুরী, পটিয়া উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগনেতা সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মাজেদা বেগম শিরু, পটিয়া উপজেলা শ্রমিকলীগের সাবেক সভাপতি নুরুল আবছার, পটিয়া উপজেলা যুবলীগের সভাপতি এম,বেলাল উদ্দীন, সাধারণ সম্পাদক এম,এ,রহিম, জিরি ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি, সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আমানউল্লাহ আমান, বর্তমান সভাপতি আবদুল্লাহ আল হারুন সাধারণ সম্পাদক রবিউল আলী, জিরি ইউনিয়ন আওয়ামীলীগনেতা আলহাজ্ব ফরিদুল আলম সওদাগর, ইসহাক চৌধুরী, শাহ মোঃ ইব্রাহিম, আলহাজ্ব মোঃ আলী পাশা, জহুরুল আলম মন্টু, আলহাজ্ব আবুল মনসুর চৌধুরী তাহের, নজরুল ইসলাম, পেয়ার মোঃ পেয়ারু, মোঃ হাসান মেম্বার, এহসানুল হক, শাহজাহান বাহাদুর, রিটন নাথ, নুরুল আজিম হিরু, দীপক নাথ, মোঃ সেলিম, কাজী আনোয়ার হোসেন, ইদ্রিস ইমু, আজিজুল হক, মোঃ কায়সার, খলিলুর রহমান, মোঃ এয়াকুব, হারুন মাঝি, জামাল উদ্দীন, শাহ আজিজ, চট্টগ্রাম দক্ষিণজেলা কৃষকলীগনেতা আসিফ ইকবাল, মঞ্জুরুল আলম, জিরি ৫নং আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মনজুর আলম নসরুল্লাহ রাসেদ, জসিম উদ্দীন, এজাজুল হক, সাজ্জাদ মাহমুদ রাসেল, বদিউল আলম, আরিফ নোমান চৌধুরী, ফরিদুল আলম নোবেল, আবদুল হক, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য মোঃ আরিফ, পটিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি কোরবান আলী, জিরি ইউনিয়ন মহিলা আওয়ামীলীগনেত্রী ফেরদৌস আকতার, জোলেখা বেগম, রোজি আলম, দিলুয়ারা বেগম, মঞ্জুরা বেগম, রিমা আকতার, ঋতু আকতার, রতœা দাশ, সাবেক চট্টগ্রামদক্ষিণ ছাত্রলীগনেতা হাবিবুর রহমান, জিরি ইউনিয়ন যুবলীগনেতা জমির উদ্দীন, মোঃ মামুন, মোঃ এমরান, সাংবাদিক অরুণ নাথ, পটিয়া উপজেলা ছাত্রলীগনেতা মোঃ ইদ্রিস, মোঃ মহিউদ্দীন, মোঃ আহসান হাবিব, প্রমুখ। সভায় প্রধান অতিথি সামশুল হক চৌধুরী তার বক্তব্যে বলেন পটিয়ার বিগত ১০ উন্নয়নে সকল রকম উন্নয়ন কর্মকান্ড কান্ড সম্পন্ন করেছি। পটিয়ার মানুষের সকল রকম সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত করে চলেছি। আগামীতে পটিয়াতে আরো যুগোপযোগী কর্মকান্ড বাস্তবায়ন করা হবে। তিনি বলেন পটিয়ায় গত ১০ বছরে হাজার কোটি টাকার অধিক উন্নয়ন কাজ সম্পন্ন হয়েছে। জিরি ইউনিয়নেও ১০০ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ সম্পন্ন হয়েছে। পটিয়ায় উন্নয়নে যোগাযোগ, স্বাস্থ্য, শিক্ষা, নারী শিক্ষা, মাদ্রাসা শিক্ষা, প্রযুক্তি, বিধবা ভাতা, বয়স্ক ভাতা, সমাজ উন্নয়ন, কর্মসংস্থান, ব্যবসা বাণিজ্যসহ সকল ক্ষেত্রে অভূতপুর্ব উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। তিনি বলেন এখনো কিছু কাজ চলমান রয়েছে। পটিয়ার উন্নয়নে প্রায় সকল কাজ সুসম্পন্ন হলেও আবারো ক্ষমতায় আসলে আরো নতুন নতুন প্রকল্প গ্রহণ করা হবে। তিনি বলেন এই পটিয়া হবে আগামীদিনে বাংলাদেশের একটি মডেল উপজেলা। তিনি আগামী ৩০ ডিসেম্বর পটিয়ার উন্নয়ন ধারাবাহিকতা বজায় রাখার জন্য নৌকা প্রতীকে ভোট দেওয়ার আহ্বান জানান।প্রেস বিজ্ঞপ্তি
আবারও সীতাকুণ্ডবাসীকে নৌকায় ভোট দেয়ার আহবান দিদারুল আলমের
নিজেস্ব প্রতিনিধি,চট্টগ্রামঃ সীতাকুণ্ডের উন্নয়নে আমৃত্যু কাজ করে যাওয়ার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করে আবারও সীতাকুণ্ডবাসীকে নৌকায় ভোট দেয়ার আহবান জানিয়েছেন দিদারুল আলম। শুক্রবার (২১ ডিসেম্বর) সকাল থেকে দিনব্যাপী কয়েক হাজার নেতা-কর্মী ও সমর্থক নিয়ে ১ নম্বর সৈয়দপুর ইউনিয়নের মিরেরহাট বাজার, শেখেরহাট বাজার, দোয়াজিপাড়া মধ্যের ধারি, হাজারি হাট, মহানগর বাজার, আইয়ুব আলী মার্কেট, ভুঁইয়ার হাটসহ বিভিন্ন স্থানে নৌকা প্রতিকের সমর্থনে গণসংযোগকালে এ আহবান জানান তিনি। গণসংযোগকালে উপস্থিত ছিলেন মহিউদ্দিন বাবলু, ইউপি চেয়ারম্যান তাজুল ইসলাম নিজামী, হাসেম ভুঁইয়া, সিরাজদৌলা বিএসসি, নিজাম উদ্দীন, মহিউদ্দিন মনজু, বোরহান উদ্দিন, মীর জুয়েল, আকবর হোসেন, হারুন ভুইয়া, আবু বক্কর মাস্টার, জাহাঙ্গির, প্রতাপ নাথ, মেজবা উদ্দিন রানা, আকতারউজ্জামান বুলবুল প্রমুখ।
শীতাকুন্ড আসনে নির্বাচনি প্রচারনা
নিজেস্ব প্রতিনিধি,চট্টগ্রামঃ শিল্পাঞ্চল নামে খ্যাত চট্টগ্রামের ৪ সং সীতাকুন্ড সংসদীয় আসনে (আকবরশাহ ও পাহাড়তলী আংশিক) আগামী একাদশ সংসদ নির্বাচনে বর্তমান একই আসনের সংসদ সদস্য ও আওয়ামীলীগ প্রার্থী আলহাজ্ব দিদারুল আলম এম.পি সহ প্রার্থীরা দিন রাতে নির্বাচনি প্রচারনায় ব্যস্ত সময় পার করছেন। একই আসন থেকে ৬ টি দল নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। স্থানীয় ভোটারেরা ও তাদের পছন্দের প্রার্থীর পক্ষে এলাকায় এলাকায় জোর প্রচারনা চালাচ্ছেন। উক্ত আসনে আওমীলীগের দ্বিধাবিভক্ত সকল নেতাকর্মী একই সাথে প্রচারনা শুরু করায় তাদের কর্মী সমর্থকরা অনুপস্থিত হয়ে এই আসনের প্রত্যেকটি ওয়ার্ড ব্যাপক নির্বাচর্নী প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছে। সেই সাথে উক্ত আসনের সংসদ সদস্য আলহ্জ্ব দিদারুল আলম মানবাধিকার সংস্থার মিলেনিয়াম হিউম্যান রাইটস্ এন্ড জার্নালিস্ট ফাউন্ডেশন (এমজেএফ) চট্টগ্রাম জেলা কমিটির উপদেষ্টা হওয়ায় উক্ত সংস্থার নেতৃবৃন্দরাও বিভিন্ন ভাবে নৌকা প্রতিকের পক্ষে প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছেন। সংস্থার পক্ষ থেকে ভিবিন্ন বার্তায় আলহাজ্ব দিদারুল আলমকে আবোরা নির্বাচিত করার জন্য সিতাকুন্ড বাসীর প্রতি আহ্বান জানান। উল্লেখ্য যে সিতাকুন্ড আসনে উক্ত মানবাধিকার সংস্থার প্রায়তিন হাজার সদস্য রয়েছে। এই দিকে আওয়ামীলীগের প্রার্থীর প্রচারনায় ও তার পক্ষে সংস্থার বিভিন্ন ভাবে প্রচারনায় আক্রোশ বশত গত বৃহস্পতিবার রাতে একদল দুবৃর্ত্ত সীতাকুন্ড পৌর সদরের ৪ নং ওয়ার্ডের গজারিয়া দীঘির পাড় এলাকায় অবস্থিত আওয়ামীলীগের নির্বাচনি পরিচালনার অস্থায়ী ক্যম্পে হামলা চালায়। এ সময় তারা সেখানে কয়েকটি ককটেলের বিস্ফোরন ঘটায়। অফিসে থাকা বঙ্গঁবন্ধুর ছবি,টেবিল চেয়ার ভেঙ্গে চলে যায়। একই সময়ে ভূঁইয়াপড়া রাসেল সৃতি সংসদে আগুন লাগিয়ে দেয়। উক্ত ঘটনার সত্যতা সিকার করেছেন, সীতাকুন্ড ফায়ার সাভির্সের অফিসার ইনচার্জ ওয়াসি আজাদ। উক্ত ঘটনার বিষয়ে মানবাধিকার সংস্থা (এমজেএফ) চট্টগ্রাম জেলা কমিটির কমিটির চেয়ারম্যান ও আকবরশাহ্ থানা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি প্রবিন আওয়ামীলীগ নেতা লোকমান আলী বলেন, আমাদের সংস্থার বশবুত হয়ে এই হামলা চালিয়েছে। আমাদের সংস্থার নেতৃবৃন্দ ও একত্রিত ভাবে মাঠে কাজ করছি নৌকা প্রতিকের সমর্থনে। যে কোন বাধা মোকাবিলা করার মত সাহস ও মনোবল আমাদের রয়েছে। নিরপেক্ষ ভোট হলে উক্ত আসনে আলহাজ্ব দিদারুল আলম নৌকা প্রতিকে এক থেকে দের লক্ষ ভোটের ব্যবধানে জয় পাবে বলে আশা রাখি।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর