বৃহস্পতিবার, আগস্ট ১৩, ২০২০
সিএমপির উত্তর বিভাগের উদ্যোগে দরিদ্রদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ
0২এপ্রিল,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের পাচঁলাইশ থানাধীন শায়লা কমিউনিটি সেন্টারে উত্তর বিভাগের আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয় করোনার প্রাদুর্ভাবে দরিদ্রদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ কার্যক্রম। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থেকে উক্ত কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মোঃ মাহাবুবর রহমান, বিপিএম, পিপিএম। এ কার্যক্রমের আওতায় সিএমপির উত্তর বিভাগের আয়োজনে চট্টগ্রাম নগরীতে করোনার প্রাদুর্ভাবে দরিদ্র ২৫০০ (দুই হাজার পাঁচ শত) পরিবারকে ১০দিনের খাদ্য দ্রব্য ও নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী প্রত্যেকের বাসায় বাসায় গিয়ে বিতরণ করা হবে। এসময় সেখানে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) এস. এম. মোস্তাক আহমেদ খান বিপিএম, পিপিএম (বার), অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম এন্ড অপারেশন) শ্যামল কুমার নাথ, উপ-পুলিশ কমিশনার (উত্তর) বিজয় বসাক, বিপিএম, পিপিএম (বার) সহ পুলিশের অন্যান্য উধ্বর্তন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
সিএমপির বন্দর বিভাগ কর্তৃক দরিদ্রদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ
0২এপ্রিল,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের বন্দর থানায় বন্দর বিভাগের আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয় করোনার প্রাদুর্ভাবে দরিদ্রদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ কার্যক্রম। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থেকে উক্ত কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মোঃ মাহাবুবর রহমান, বিপিএম, পিপিএম । এ কার্যক্রমের আওতায় সিএমপির বন্দর বিভাগের আয়োজনে চট্টগ্রাম নগরীতে করোনার প্রাদুর্ভাবে দরিদ্র ৩০০০ (তিন হাজার) পরিবারের মাঝে চাউল ০৫ কেজি, ডাল ০১কেজি, ভোজ্য তৈল ০১লিটার, আলু ০২কেজি, পেঁয়াজ ০১কেজি, সাবান ০১টি, লবন ০১কেজি, আটা ০১কেজি সহ সর্বমোট-১৩ কেজি খাদ্য দ্রব্য ও নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী প্রত্যেকের বাসায় বাসায় গিয়ে বিতরণ করা হবে। এসময় সেখানে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) এস. এম. মোস্তাক আহমেদ খান বিপিএম, পিপিএম (বার), অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম এন্ড অপারেশন) শ্যামল কুমার নাথ, উপ-পুলিশ কমিশনার (বন্দর) মোঃ হামিদুল আলম, বিপিএম, পিপিএম সহ পুলিশের অন্যান্য উধ্বর্তন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
ঘরে ঘরে ত্রাণ পৌঁছে দিলেন আমিনুল ইসলাম আমিন
0২এপ্রিল,বৃহস্পতিবার, সাতকানিয়া প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রামের লোহাগাড়া ও সাতকানিয়া এলাকায় গরীব, শ্রমজীবী, খেটে খাওয়া, দিনমজুর, হতদরিদ্র ও নিন্ম আয়ের মানুষদের মাঝে কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিনের ব্যক্তিগত আর্থিক সহায়তায় খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। বুধবার (১ এপ্রিল) দুপুরে সাতকানিয়া সদর ইউনিয়নের বারদোনা গ্রাম থেকে এ খাদ্য সামগ্রী বিতরণ শুরু করেন স্থানীয় নেতা-কর্মীরা। এসব খাদ্যসামগ্রীর মধ্যে রয়েছে চাল ১০ কেজি, আলু ৩ কেজি, মসুরের ডাল ১ কেজি, তেল ১ লিটার, পিয়াজ ১ কেজি, লবন ১ কেজি, ১ টি সাবানসহ নানা খাদ্যসামগ্রী। এছাড়াও উপজেলাসহ বিভিন্ন স্থানে গরীবদের মাঝে পর্যায়ক্রমে আরো বিতরণ করা হবে। আমিনুল ইসলাম আমিন বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার দুরদর্শিতা ও আগাম পদক্ষেপের কারণে বাংলাদেশ অনেকটা নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। দেশের আকাশ পথ ও সড়ক যোগাযোগ বন্ধ থাকায় আমার প্রাণপ্রিয় সাতকানিয়া-লোহাগাড়ায় আসা সম্ভব না হলেও টেলিফোনে স্থানীয় নেতৃবৃন্দের মাধ্যমে লোকজনের সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ করছি। এতে ব্যক্তিগত তহবিল থেকে দলীয় নেতাকর্মীদের মাধ্যমে সাতকানিয়া-লোহাগাড়ার ঘরে ঘরে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দেয়ার চেষ্টা করেছি। দুই উপজেলায় দেয়া হয়েছে তিন হাজার মাক্স, সাবান, গ্লাভস ও হ্যন্ড স্যানিটাইজার সুরক্ষা সামগ্রীও। তিনি বলেন, সরকারী ছুটিতে আত্মীয়-স্বজনের বাড়িতে বেড়াতে না গিয়ে, দোকান-পাট, হাট-বাজার ও রাস্তাা-ঘাটে ঘুরাঘুরি না করে এই প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তি পেতে নিজ ঘরেই অবস্থান করে আল্লাহর দরবারে বেশী বেশী প্রার্থনা করুন। আমিনুল ইসলাম আমিনের পক্ষে এসব খাদ্যসামগ্রী ঘরে ঘরে পৌঁছে দিচ্ছেন সাতকানিয়া সদর ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি মো: নেজাম উদ্দিন, সাতকানিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মাষ্টার ফারুক আহমদ, সাতকানিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহবায়ক এস.এম আজিজ, স্থানীয় ইউপি সদস্য যুবলীগ নেতা মো: সেলিম উদ্দিন ও যুবলীগ নেতা জাবেদুর রশীদসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দরা। অন্যদিকে লোহাগাড়া উপজেলায়ও এসব খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছেন আমিনুল ইসলামের ব্যক্তিগত সহকারী আওয়ামী লীগ নেতা মিরান হোসেন মিজান, উপজেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক তৈয়বুল হক বেদার, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি রিহান পারভেজ চৌধুরী, জেলা ছাত্রলীগের আপ্যায়ন বিষয়ক সম্পাদক রানা বড়ুয়াসহ উপজেলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও ছাত্রলীগ নেতারা।
এবার চট্টগ্রামে আইসোলেশনে থাকা কিশোরের মৃত্যু
0১এপ্রিল,বুধবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম:এবার চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে আইসোলেশন ইউনিটে থাকা এক কিশোরের মৃত্যু হয়েছে। বুধবার (১ এপ্রিল) তার মৃত্যু হলেও কয়টার দিকে মৃত্যু হয়েছে সে ব্যাপারে কোনো কথা বলছে না চট্টগ্রামে সিভিল সার্জন সেখ ফজলে রাব্বি মিয়া। সেখ ফজলে রাব্বি মিয়া জানান, মঙ্গলবার চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে ভর্তির আগে সে কক্সবাজার সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলো। তার বাড়ি কক্সবাজারের জেলায়। তার বাবা স্থানীয় একটি এনজিও প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন।মানবজমিন । সেখ ফজলে রাব্বি মিয়া বলেন, কক্সবাজার সরকারি হাসপাতাল থেকে আসা ওই কিশোরের জ্বর ও শ্বাসকষ্ঠ থাকায় মঙ্গলবার রাতে চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে আইসোলেশনে ইউনিটে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। তবে সে করোনাভাইরাস আক্রান্ত কিনা নিশ্চিত নই। তিনি বলেন, কিশোরের নমুনা সংগ্রহ করে চট্টগ্রামের সীতাকুন্ডে অবস্থিত বিশেষায়িত হাসপাতাল বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজে (বিআইটিআইডি) পাঠানো হয়েছে। সেখান থেকে পরীক্ষার ফলাফল পাওয়া গেলে করোনার বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া যাবে। এদিকে কিশোরের পরিবারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, রোগীর পরিবারে কোনো বিদেশ ফেরত নেই। সে হিসেবে বিদেশ ফেরত কারো সংপর্শে থাকার তথ্যও নেই।
মেট্টোপলিটন পুলিশকে ১৫০টি পিপিই দিয়েছে এএনএফএল প্রপাটিজ
0১এপ্রিল,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় দায়িত্বপালনরত চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন পুলিশ সদস্যদের জন্য ১৫০টি ব্যক্তিগত সুরক্ষা পোশাক-পিপিই দিয়েছেন এএনএফএল প্রপাটিজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আহসানুল করিম। আজ ১ এপ্রিল ২০২০ ইং বুধবার দুপুরে সিএমপি কমিশনার মোঃ মাহাবুবর রহমানের হাতে এসব পিপিই তুলে দেয়া হয়। এ সময় উপ-পুলিশ কমিশনার (সদর) মোঃ আমীর জাফর, চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি মনজুর কাদের মঞ্জু, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সিনিয়র সহ-সভাপতি রতন কান্তি দেবাশীষ ও টিভি জার্নালিষ্ট এসাসিয়েশন চট্টগ্রামর সভাপতি নাসির উদ্দিন তোতা উপস্থিত ছিলেন।এসময় সিএমপি কমিশনার মোঃ মাহবুবুর রহমান বলেন, সমাজের সব পেশা-শ্রেণির মানুষের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় করোনা ভাইরাসের প্রভাব আমাদের মোকাবেলা করতে হবে।এই সম্মিলিত উদ্যেগের মাধ্যমে সফলতা আসবে বলে আশা করেন তিনি।
চট্টগ্রামে ত্রাণ নিয়ে টালবাহানা
0১এপ্রিল,বুধবার,কমল চক্রবর্তী, বিশেষ প্রতিনিধি,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: দেশের এই সংকটময় অবস্থায় অসহায় পরিবারের মানুষরা সরকার ও বিভিন্ন জনপ্রতিনিধিদের দিকে তাকিয়ে আছেন কিছু সাহায্য সহযোগীতার জন্য। সরকারের পক্ষ থেকে পর্যাপ্ত সাহায্য পাঠানো হলেও তা অনেক ক্ষেত্রে পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ উঠেছে। আবার অনেকে মুষ্টিমেয় কয়েকজনকে সামান্য কিছু ত্রাণ হাতে ধরিয়ে দিয়ে ছবি তুলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচার করে হেয় প্রতিপন্ন করছেন বলেও অনেকে মন্তব্য করেন। সম্প্রতি সরকারের পক্ষ থেকে চট্টগ্রামে পর্যাপ্ত ত্রাণ পাঠানো হয়েছে। উক্ত ত্রাণ চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ, বাংলাদেশ সেনাবাহিনী, নৌ বাহিনী, ও চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র যে ত্রাণ সহযোগিতা দিচ্ছেন তা অসহায় ব্যক্তিরা নিয়মিত পেলেও সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ৪১ টি ওয়ার্ডে যে ত্রাণ সাহায্য পাঠিয়েছেন তা নিয়ে টালবাহানা চলছে বলে অভিযোগ রয়েছে। একই অভিযোগ গ্রাম এলাকায় চেয়্যারম্যান ও মেম্বারদের বেলায় ও। জানা যায়, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবন মান উন্নয়নে গৃহিত কর্মসূচী (এলআইইউপিসি) প্রকল্পের আওতায় ২১ টি ওয়ার্ড ও চসিকের পক্ষ থেকে বাকি ২০ টি ওয়ার্ডে বরাদ্দ সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে। এ কার্যক্রমের আওতায় নগরীর ১ লাখ ১৪ হাজার পরিবারের মাঝে সাবান, বালতি, মাস্ক ৮৪ হাজার স্যানিটাইজার বিতরণসহ ৩৮৪ টি স্পটে হাত ধোয়ার কল স্থাপন হবে। সূত্রে আরো জানা যায় সরকারি ভাবে প্রাপ্ত ২০ মেট্রিকটন চাল চসিকের পক্ষ থেকে প্রতিটি ওয়ার্ডে ৪৮৮ কেজি চাল ও ১০০ কেজি ডাল নগরবাসির মাঝে বিতরণের জন্য দেওয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী কঠোর বার্তা দেওয়ার পরেও ত্রাণ নিয়ে টালবাহানা বন্ধ হচ্ছে না। এ প্রসঙ্গে চট্টগ্রামের পিরিঙ্গি বাজার ওয়ার্ডের বাসিন্দা আবু বক্কর নিউজ একাত্তর কে বলেন, শুনেছি আমাদের জন্য সাহায্য এসেছে কিন্তু চোখে দেখি নাই। ০৯ নং ওয়ার্ডের আব্দুল করিম বলেন, এই ওয়ার্ডে এখনো পর্যন্ত কনো সাহায্য এসেছে বলে শুনিও নাই। ১০ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা শাহ আলম বলেন, বর্তমান কাউন্সিলর তার পরিচিত কয়েকজনকে সাহায্য দিলেও অত্র এলাকায় অনেক অসহায় ব্যক্তি অনাহারে দিন কাঠাচ্ছেন। চান্দগাঁও ওয়ার্ডের সাগরিকা সরকার নামের এক মহিলা অভিযোগ করে বলেন, মাত্র ২ কেজি চাউল হাতে ধরিয়ে দিয়ে মোবাইলে ছবি তুলে ফেইসবুকে ছেড়ে দিলো যা আমার জন্য লজ্জাজনক। একই অভিযোগ ইপিজেড এলাকার আবুল খায়েরের। এ চিত্র শুধু চট্টগ্রাম মহানগরীতে নই, গ্রামের ইউনিয়ন পর্যায় ও এই ত্রাণ নিয়ে টালবাহানার কমতি নেই। উক্ত বিষয়ে প্রশাসনের একজন কর্মকর্তার সাথে কথা হলে তিনি নাম প্রকাশ না করার স্বর্থে বলেন, এই ধরনের বেশ কিছু অভিযোগ আমরা পেয়েছি ওয়ার্ড পর্যায়ে যে জনপ্রতিনিধিরা এই ধরনের কাজে যুক্ত থাকবেন তাদের তালিকা করে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে অচিরেই পাঠানো হবে। অনেকে মত দিয়েছেন যে, সেনাবাহিনীর মাধ্যমে তালিকা করে ঘরে ঘরে ত্রাণ দিলে আর বিশৃঙ্খলা হবে না।
করোনার প্রাদুর্ভাবে দরিদ্রদের মাঝে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের খাদ্য সামগ্রী বিতরণ
0১এপ্রিল,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: দামপাড়া পুলিশ লাইন্সের জনক চত্বরে চট্টগ্রাম মহানগর কমিউনিটি পুলিশিং এর আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয় করোনার প্রাদুর্ভাবে দরিদ্রদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ কার্যক্রম। উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মোঃ মাহাবুবর রহমান, বিপিএম, পিপিএম । এ কার্যক্রমের আওতায় চট্টগ্রাম মহানগর কমিউনিটি পুলিশিং এর আয়োজনে চট্টগ্রাম নগরীতে করোনার প্রাদুর্ভাবে দরিদ্র ১,৫০০ (এক হাজার পাঁচ শত) পরিবারের মাঝে খাদ্য দ্রব্য ও নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী বিতরণ করা হবে। এসময় সেখানে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (প্রশাসন ও অর্থ) আমেনা বেগম, বিপিএম-সেবা, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) এস. এম. মোস্তাক আহমেদ খান বিপিএম, পিপিএম (বার), অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম এন্ড অপারেশন) শ্যামল কুমার নাথ, চট্টগ্রাম মহানগর কমিউনিটি পুলিশিং কমিটি এর আহ্বায়ক মোঃ আব্দুল মালেক, চট্টগ্রাম মহানগর কমিউনিটি পুলিশিং কমিটি এর সদস্য সচিব অহিদ সিরাজ চৌধুরী স্বপন সহ পুলিশের অন্যান্য উধ্বর্তন কর্মকর্তাবৃন্দ ও মহানগর কমিউনিটি পুলিশিং এর নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
করোনা সংকটে দুঃস্থ ও খেটে-খাওয়া মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে RAB-7
0১ এপ্রিল,বুধবার,কমল চক্রবর্তী, বিশেষ প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম:করোনা ভাইরাসের প্রকোপে সমগ্রবিশ্ব জুড়ে ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে। বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেখা দিলে ,সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে RAB-7। এছাড়াও RAB মানুষের মাঝে সচেতনতা তৈরির লক্ষ্যে ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে। সেইসাথে কর্মহীন হয়ে পরা দুঃস্থ ও খেটে-খাওয়া ১৫০০ মানুষকে খাদ্য সহায়তার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এরই অংশ হিসেবে আজ নগরীর কয়েকটি স্থানে অসহায় মানুষদের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়।RAB-7 এর অধিনায়ক লেঃ কর্নেল মোঃ মশিউর রহমান জুয়েল, পিএসসি জানান, RAB-7 এর পক্ষ থেকে প্রাথমিকভাবে আমরা ১৫শত দুঃস্থ ও খেটে-খাওয়া মানুষের খাদ্য সহায়তার কর্মসূচী হাতে নিয়েছি। তবে পরিস্থিতি বুঝে এই কার্যক্রম আরো বাড়ানো হবে। পাশাপাশি RAB-7 এর এই খাদ্য সহায়তা কার্যক্রম ভবিষ্যতেও চলমান থাকবে বলে জানান তিনি। সেই সাথে সকলকে সতর্ক ও নিরাপদে থাকার পরামর্শ দেন। গুজবে কান দেওয়া ও কেউ যাতে গুজব ছড়াতে না পারে সেই জন্য সবাইকে সচেতন থাকতে বলেন।RAB-7 এর সহকারী পরিচালক এ এস পি কাজী মোঃ তারক আজিজ বলেন,করোনা ভাইরাসের কারনে ,সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে মানুষের মাঝে সচেতনতা তৈরির লক্ষ্যে ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে। সেই সাথে কর্মহীন হয়ে পরা দুঃস্থ ও খেটে-খাওয়া ১৫০০ মানুষকে খাদ্য সহায়তার ব্যবস্থা করা হয়েছে।RAB-7 এর এই খাদ্য সহায়তা কার্যক্রম ভবিষ্যতেও চলমান থাকবে।তিনি সবাইকে নিরাপদ দুরত্ব বজায় রাখা ও সরকারী নির্দেশনা মেনে চলার আহ্বান জানান। তাছাড়া কোন প্রকার গুজব না ছড়ানো ও গুজবে কান না দেওয়ার জন্য সকলকে সচেতন থাকার পরামর্শ দেন। কোন প্রকার আতঙ্কিত না হয়ে, স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলার মাধ্যমে করোনা মোকাবেলা করা সম্ভব বলে তিনি মনে করেন।RAB-7এর সহকারী পরিচালক( মিডিয়া) এ এস পি মাহমুদুল হাসান মামুন বলেন, বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেখা দিলে ,সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে RAB-7। তাছাড়া মানুষের মাঝে সচেতনতা তৈরির লক্ষ্যে ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে। সেই সাথে প্রাথমিকভাবে ১৫০০ মানুষকে খাদ্য সহায়তার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এরই অংশ হিসেবে আজ নগরীর কয়েকটি স্থানে অসহায় মানুষকে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়। আমাদের খাদ্য সহায়তা কার্যক্রম ভবিষ্যতেও চলমান থাকবে।
চট্টগ্রামে ৮ জনের নমুনা পরীক্ষা, আইসোলেশনে ৭
0১ এপ্রিল,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনাভাইরাস সন্দেহে বর্তমানে চট্টগ্রামে ৭ জন আইসোলেশনে রয়েছে বলে জানিয়েছেন সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি। এছাড়া গত চব্বিশ ঘণ্টায় ৮ জনের নমুনা পরীক্ষার করার তথ্য জানিয়েছেন বিআইটিআইডির মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের অধ্যাপক শাকিল আহমদ।বুধবার (১ এপ্রিল) সকালে তারা এ তথ্য জানান।সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি বলেন, বর্তমানে আইসোলেশনে ৭ জন রয়েছেন। যেহেতু একজনের মৃত্যু হয়েছে, সংখ্যাটি ৬ হওয়ার কথা। কিন্তু যেহেতু মরদেহ এখনও হস্তান্তর করা হয়নি। তাই ৭ জন দেখানো হয়েছে। তিনি আরও বলেন, কোয়ারেন্টিন থেকে এখন পর্যন্ত ৪৫ জন ছাড়পত্র পেয়েছেন। বর্তমানে আরও ৯শ ২৮ জন কোয়ারেন্টিনে রয়েছেন।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর