সোমবার, জুলাই ১৩, ২০২০
চট্টগ্রাম নগর ফাঁকা,দোকানপাট ও যানবাহন চলাচল বন্ধ
২৬মার্চ,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম:করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে বৃহস্পতিবারও (২৬ মার্চ) মানুষ ঘর থেকে বের হচ্ছেন না। সংবাদকর্মী, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, গুটিকয়েক দোকানি ও স্বল্প আয়ের হাতেগোনা কিছু লোকজন ছাড়া কেউ বাইরে আসছেন না। সড়কে কমে গেছে যানবাহন চলাচলও। বুধবার (২৫ মার্চ) সকাল থেকে প্রশাসনের সঙ্গে মাঠে কাজ করছেন সেনাবাহিনীর সদস্যরা। শহরের সড়ক, অলি-গলিতে টহল দেওয়া ছাড়াও সচেতনতামূলক মাইকিং এবং সিভিল প্রশাসনের কাজে সহায়তা করছেন তারা। প্রশাসনের পক্ষ থেকে কঠোর নির্দেশনা পেয়ে সন্ধ্যার পর বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে নগরের অধিকাংশ দোকানপাট। শুধু খোলা রাখা হচ্ছে কয়েকটি ওষুধ এবং মুদির দোকান। বিভিন্ন এলাকায় মসজিদ থেকে আজানের আগে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ে জনগণকে সচেতনতার বার্তা দিতে আহ্বান জানিয়েছে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি)। বন্ধ রাখা হয়েছে বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানও। চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. তৌহিদুল ইসলাম জানান, সড়কে জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কেউ বের হলে তাকে বাসায় ফেরত পাঠানো হচ্ছে। এছাড়া হোম কোয়ারেন্টিন ব্যবস্থা পর্যালোচনাসহ প্রশাসনকে সহায়তা করছেন সেনাবাহিনী। শহীদ মিনারমুখী জনস্রোত দেখা যায়নি ভোর থেকে, ছিল না জনকোলাহল। অন্য দিনগুলোর চাইতে তাই ব্যতিক্রমই বলতে হবে স্বাধীনতা দিবসের এই দিনটিকে।
নগরীতে ইয়াবাসহ ১ জন মহিলা মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে Rab-7
২৫মার্চ,বুধবার,কমল চক্রবর্তী,বিশেষ প্রতিনিধি,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম মহানগরীর ডবলমুরিং থানাধীন মতিয়ারপোল এলাকায় অভিযান চালিয়ে ২,৪২৫ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধারসহ ১ জন মহিলা মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে Rab-7। বুধবার ২৫ মার্চ বিকাল ৫:৩০ মিনিটের সময় চট্টগ্রাম মহানগরীর ডবলমুরিং থানাধীন মতিয়ারপোল বায়তুল হামদ মসজিদ লেন এলাকায় অভিযান চালিয়ে ইয়াবাসহ ১ জন মহিলা মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করা হয়েছে বলে জানান Rab-7 এর সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) এ এস পি মাহমুদুল হাসান মামুন। আটককৃত আসামী হলেন মোসাঃ নাছিমা বেগম (৩০) চট্টগ্রাম জেলার মীরসরাই থানাধীন হাইতকান্দি (নুরুল হকের বাড়ি) গ্রামের মোঃ আলমগীর হোসেন এর স্ত্রী। তার বর্তমান ঠিকানা- মতিয়ারপোল (দেলোয়ারা বেগমের বাড়ি), ২৩নং ওয়ার্ড, বায়তুল হামদ মসজিদ লেন, থানা- ডবলমুরিং, চট্টগ্রাম। Rab-7 এর সহকারী পরিচালক এ এস পি কাজী মোঃ তারেক আজিজ জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আমরা জানতে পারি যে, চট্টগ্রাম মহানগরীর ডবলমুরিং থানাধীন মতিয়ারপোল বায়তুল হামদ মসজিদ লেন এলাকায় কতিপয় মাদক ব্যবসায়ী মাদকদ্রব্য ক্রয়-বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে অবস্থান করছে। এমন তথ্যের ভিত্তিতে র্যাাবের একটি টহল দল অভিযান চালিয়ে ১ মহিলা মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করে। পরে আসামীর দেখানো ও সনাক্ত মতে তার ভাড়া বাসায় তল্লাশী চালিয়ে ২,৪২৫ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়। গ্রেফতারকৃত আসামীকে নগরীর বন্দর থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। Rab-7 এর সহকারী পরিচালক (অপারেশন) এ এস পি কাজী মাশকুর রহমান জানান, গ্রেফতারকৃত আসামীকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, সে দীর্ঘদিন যাবত বিভিন্ন মাদক ব্যবসায়ীদের সাথে যোগসাজশে ইয়াবা ট্যাবলেট সংগ্রহ করে উক্ত ভাড়া ঘরে মজুদ করে এবং পরবর্তীতে চট্টগ্রাম শহরের বিভিন্ন এলাকার মাদক ব্যবসায়ী ও মাদক সেবীদের কাছে বিক্রয় করে আসছে। উদ্ধারকৃত মাদকদ্রব্যের আনুমানিক মূল্য ১২ লক্ষ ১২ হাজার ৫০০ টাকা। গ্রেফতারকৃত আসামীকে নগরীর বন্দর থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।
চট্টগ্রামে হোম কোয়ারেন্টিনে শিক্ষা বোর্ডের ৩ কর্মকর্তা
২৫মার্চ,বুধবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম:বুধবার (২৫ মার্চ) বিকেলে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর প্রদীপ চক্রবর্ত্তী নিজেই। তিনি জানান, এইচএসসি পরীক্ষা নিয়ে গত ২২ মার্চ কক্সবাজারের ১২ জন কেন্দ্র প্রধানদের সঙ্গে আমরা একটি বৈঠক করি। হ্যান্ড স্যানিটাইজারসহ জীবাণুনাশক সামগ্রী দিয়ে হাত পরিষ্কার করে বোর্ডে সবাইকে প্রবেশ করানো হয়।তিনি আরও জানান, অন্য কেন্দ্র প্রধানদের সঙ্গে বৈঠকে অংশ নেন কক্সবাজার সরকারি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষও। তবে তার মা যে এর কয়েকদিন আগে সৌদিআরব থেকে ফিরেছেন, তিনি মায়ের সঙ্গে দেখা করার পরেও হোম কোয়ারেন্টিন পালন না করে যে বৈঠকে এসেছেন,তা গোপন করেন।বুধবার বিষয়টি জানাজানির পর ওই বৈঠকে অংশ নেওয়া চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের কলেজ পরিদর্শক এবং পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকসহ সবাইকে হোম কোয়ারেন্টিন পালনের অনুরোধ জানিয়েছি। আমি নিজেও হোম কোয়ারেন্টিন পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছি।এক প্রশ্নের উত্তরে শিক্ষা বোর্ড চেয়ারম্যান জানান, বোর্ড কর্মকর্তাদের আতঙ্ক বা শঙ্কার কিছু নেই। ওই বৈঠকে আমরা সবাই নির্দিষ্ট দূরত্ব মেনে বসেছি। সবাই জীবাণুনাশক সামগ্রী দিয়ে হাত পরিষ্কার করেছি। আক্রান্ত ওই নারীর সঙ্গে দেখা করার পরেও কক্সবাজার সরকারি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষের মধ্যে কোনো উপসর্গ দেখা দেয়নি।তারপরেও সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে। দেশের এই কঠিন পরিস্থিতে নিজ নিজ দায়িত্ব পালন করে নিজেকে, পরিবারকে সুরক্ষিত রাখতে হবে। যোগ করেন তিনি।এদিকে তথ্য গোপন করে বৈঠকে অংশ নেওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে কক্সবাজার সরকারি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ জানান, সৌদি ফেরত মায়ের সঙ্গে দেখা করলেও তার সংস্পর্শে যাইনি আমি। মঙ্গলবার সকালে মায়ের করোনা ভাইরাসের রিপোর্ট পজিটিভ আসার পর আমি নিজেই হোম কোয়ারেন্টিন পালন করছি।প্রসঙ্গত, কক্সবাজার মহিলা কলেজের অধ্যক্ষের মা কক্সবাজার জেলার চকরিয়ার বাসিন্দা ওই নারী গত ১৩ মার্চ ওমরাহ শেষে সৌদি আরব থেকে দেশে ফেরেন। এরপর তিনি নগরের চান্দগাঁও আবাসিক এলাকায় তার এক ছেলের বাসায় ওঠেন। পরে ১৪ মার্চ চকরিয়ার খুটাখালীতে গ্রামের বাড়িতে যান। সেখানে অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তার অসুস্থতার ধরন দেখে নমুনা পরীক্ষার জন্য ২২ মার্চ রাজধানীর রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটে (আইইডিসিআর) পাঠায়। মঙ্গলবার (২৪ মার্চ) ওই নারীর করোনা ভাইরাসের রিপোর্ট পজেটিভ আসে।এ খবরে মঙ্গলবার রাতে নগরের চান্দগাঁও এবং বাকলিয়া এলাকায় ওই নারীর দুই সন্তানের বাড়ি লকডাউন করে প্রশাসন। কক্সবাজারের বাড়িও লকডাউন করা হয়। পাশাপাশি তাকে সেবা দেওয়া চিকিৎসক, নার্স এবং সংস্পর্শে আসা পরিবারের লোকজনকে হোম কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়। খবর:আমাদের সময়.কম
বাঁশখালী থানার এসআই প্রদীপ চক্রবর্তীর মা চলে গেলেন না ফেরার দেশে
২৫মার্চ,বুধবার,কমল চক্রবর্তী,নিউজ একাত্তর ডট কম:বাঁশখালী থানার এসআই প্রদীপ চক্রবর্তীর মা পুতুল রানী চক্রবর্তী(৬৮) চলে গেলেন না ফেরার দেশে। তিনি দীর্ঘ দিন যাবত বেশ কিছু জটিল রোগে ভুগছিলেন এবং গত ৪ মার্চ থেকে চট্টগ্রাম নগরীর মাক্স হাসপাতালে(HDU ICU) তে ভর্তি ছিলেন। গতকাল তার অবস্থার অবনতি ঘটলে তাকে চট্টগ্রাম থেকে লাইফ সাপোর্ট এর মাধ্যমে এম্বুল্যাঞ্চ যোগে ফেনী জেলার পরশুরাম থানাধীন অনন্তপুর গ্রামের তাহার নিজ বাড়িতে আনা হয় । গতকাল মঙ্গলবার ২৪শে মার্চ রাত ১০.৪০ মিনিটের সময় পরশুরামের তার নিজ বাড়িতে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন (দহেয়ং সর্বগাত্রানি দিব্যান লোকান সগচ্ছতু)। আজ সকালে তার নিজ বাড়িতে শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়। উল্লেখ্য, তিনি দীর্ঘ দিন ধরে নানা শারীরিক সমস্যায় ভুগছিলেন এবং গত ৪ঠা মার্চ তার শারিরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে প্রথমে তাকে চট্টগ্রাম নগরীর ম্যাক্স হাস্পাতালের HDU তে ভর্তি করা হয়। পরে তার অবস্থার আরও অবনতি ঘটলে ICU তে স্থানান্তর করা হয়। পরে গত শুক্রুবার ২০শে মার্চ তাকে লাইফ সাপোর্ট এ নেয়া হয়। কিন্তু অবস্থার কোন উন্নতি না হওয়ায় গতকাল ২৪ মার্চ লাইফ সাপোর্ট এর মাধ্যমে এম্বুল্যাঞ্চ যোগে পরশুরাম তাহার নিজ বাড়িতে আনা হয় এবং ঐ দিনই রাত ১০.৪০ মিনিটের সময় মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন।।তিনি দীর্ঘ ২০ দিন যাবত নগরীর ম্যাক্স হাসপাতালে চিকিৎসা্ধিন ছিলেন। মৃত্যুকালে তিনি ২ ছেলে ১ মেয়ে ও ৪ নাতি নাতনিসহ অসংখ্য আত্মীয় স্বজন রেখে গেছেন।
নগরীর প্রতিটি এলাকায় সেনা সদস্যদের টহল শুরু
২৫মার্চ,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম:করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধ, সামাজিক দূরত্ব ও সতর্কতা নিশ্চিত এবং জনসমাগম রোধে প্রশাসনকে সহায়তা করতে চট্টগ্রামে টহল শুরু করেছে সেনাবাহিনী। বুধবার (২৫ মার্চ) সকাল থেকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের সহযোগিতায় নগরীর প্রতিটি এলাকায় টহল শুরু করেন সেনা সদস্যরা। এ সময় তারা বিভিন্ন পাড়া মহল্লায় গিয়ে অযথা রাস্তায় অবস্থান না নিতে জনগণের প্রতি আহ্বান জানান। ভিড় এড়িয়ে বাসায় ফিরে যেতে মাইকিংও করেন তারা। প্রথম পর্যায়ে অনুরোধ করলেও পরবর্তীতে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার হুঁশিয়ারি দেন সেনা সদস্যরা।করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করা, বিদেশ ফেরত ব্যক্তিদের হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকতে বাধ্য করা, কোথাও যেন জনসমাগম না হয়, কেউ যাতে খাদ্য মজুত করে কৃত্রিম সঙ্কট তৈরি করতে না পারে, নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম যেন কেউ বাড়াতে না পারে ও সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেয়ার ক্ষেত্রে প্রশাসনকে সহায়তা করতে সেনা সদস্যদের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের (ইউএনও) নেতৃত্বে সেনাবাহিনীর সর্বোচ্চ ৪টি থেকে সর্বনিম্ন ২টি দল মাঠে কাজ করবেন। নগরে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের নেতৃত্বে সেনাবাহিনীর প্রয়োজনীয় সংখ্যক দল মাঠে কাজ করবেন। সিটি কর্পোরেশন এ কাজে সহায়তা দিচ্ছে।
সচেতনতাই করোনাভাইরাস প্রতিরোধ করতে পারে:মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন
২৫মার্চ,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রামের প্রধান প্রধান সড়কে ব্লিচিং পাউডার মেশানো ৪১ হাজার লিটার পানি ছিটিয়েছে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন (চসিক)। বুধবার (২৫ মার্চ) মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন নিজ হাতে পানি ছিটিয়ে এ কার্যক্রম উদ্বোধন করেন। এসময় মেয়র বলেন, আতঙ্কিত হওয়ার কিছুই নেই। সচেতনতাই করোনাভাইরাস প্রতিরোধ করতে পারে। এ ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে প্রত্যেকেই সতর্কতার অংশ হিসেবে মুখে মাস্ক ব্যবহার করা, গণপরিবহন ও ময়লা পোশাক এড়িয়ে চলা, পর্যাপ্ত পানি পান করা, ঘরে ফিরে হ্যান্ডওয়াশ দিয়ে ভালো করে হাত ধোয়া, ডিম কিংবা মাংস রান্নার সময় ভালো করে সেদ্ধ করা, নিয়মিত থাকার ঘর এবং কাজের জায়গা পরিষ্কার রাখতে হবে।মেয়র বলেন, প্রতিদিন জীবাণুনাশক পানি ছিটানো অব্যাহত থাকবে। নগরবাসীর প্রতি আহ্বান, বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারের নির্দেশনা মেনে চলুন। তাহলে সম্মিলিত প্রচেষ্টায় করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ করতে পারবো।একটি গাড়ি চট্টগ্রাম ওয়াসার মোড় থেকে কালুরঘাট পর্যন্ত, আরেকটি গাড়ি ওয়াসা থেকে শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর এবং আরেকটি গাড়ি আন্দরকিল্লা পর্যন্ত পানি ছিটিয়েছে।
চট্টগ্রামে জলকামান থেকে জীবাণুনাশক ছিটাচ্ছে পুলিশ
২৫মার্চ,বুধবার,নিজস্ব স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম নগরীতে জীবাণুনাশক ছিটানো শুরু করেছে পুলিশ। আর এ কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে পুলিশের দাঙ্গা দমনের কাজে ব্যবহৃত জলকামানগুলো। নগরীকে পরিচ্ছন্ন করতে পুলিশের এই উদ্যোগে স্বস্ত্বি মিলেছে নগরবাসীর মধ্যে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সিএমপির এই উদ্যোগ প্রশংসা কুড়িয়েছে। মঙ্গলবার (২৪ মার্চ) দুপুরে নগরীর দামপাড়ায় ব্লিচিং পাউডারসহ জীবাণুনাশক নানান উপকরণ মেশানো পানি ছিটানো কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) কমিশনার মো. মাহাবুবুর রহমান। এসময় সিএমপি কমিশনার বলেন, পুলিশ হিসেবে আমাদের কাজ মানুষকে সেবা দেওয়া। এই সেবার মানসিকতা থেকেই আমরা নগরীকে জীবাণুমুক্ত করার কাজে নেমেছি। আমরা সকলের সম্মিলিত প্রয়াসে করোনাভাইরাসকে মোকাবিলা করব। নগরবাসীর প্রতি আমার আহ্বান, আপনারা আতঙ্কিত হবেন না। সচেতন থাকুন। আর হোম কোয়ারেনটাইনে যারা আছেন তাদের আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হবার অনুরোধ করছি। ঘর ছেড়ে বাইরে আসবেন না। আপনাদের সুস্থতার জন্য, আপনার আশপাশের মানুষকে সুস্থ রাখার জন্য যে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে, সেটা পালন করুন। এসময় অন্যান্যের মধ্যে সিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার (প্রশাসন) আমেনা বেগম, অতিরিক্ত কমিশনার (অপরাধ ও অভিযান) শ্যামল কুমার নাথসহ উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। সিএমপি কমিশনারের উদ্বোধনের পর নগরীর দামপাড়া থেকে শুরু হওয়া জীবাণুনাশক ছিটানো কার্যক্রম জিইসি মোড় পর্যন্ত চলে। আর এই কাজে ব্যবহার করা হয়েছে রাজনৈতিক অস্থিরতা, সংঘাত, দাঙ্গা দমনে ব্যবহৃত কয়েকটি জলকামান। এসময় উৎসুক জনতাকেও পানি ছিটিয়ে সরিয়ে দিতে হয়েছে পুলিশকে। জীবাণুনাশক পানি ছিটানোর এই কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছেন নগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (মিডিয়া) আবু বক্কর সিদ্দিক। একইসঙ্গে নগরীর ১৬টি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার তত্ত্বাবধানেও শুরু হয়েছে নিজ নিজ এলাকায় জীবাণুনাশক ছিটানোসহ পরিচ্ছন্নতার কার্যক্রম।
করোনা মোকাবিলায় রেড ক্রিসেন্ট চট্টগ্রামের ১২০০ স্বেচ্ছাসেবক
২৫মার্চ,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনাভাইরাস প্রতিরোধে ও সচেতনতায় মাঠে কাজ করছে রেড ক্রিসেন্ট চট্টগ্রামের ১২০০ স্বেচ্ছাসেবক। বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি চট্টগ্রাম জেলা ও সিটি ইউনিটের সার্বিক ব্যবস্থাপনায় যুব রেড ক্রিসেন্ট, চট্টগ্রামের বাস্তবায়নে যুব স্বেচ্ছাসেবকদের অংশগ্রহণে গতকাল (২৪ মার্চ) মঙ্গলবার থেকে স্বেচ্ছাসেবকরা চট্টগ্রামের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে তাদের কার্যক্রম শুরু করেন। যেখানে মানুষের গণজমায়েত হয়- যেমন বহদ্দারহাট বাস টার্মিনাল, বিআরটিসি বাস টার্মিনাল, নৌ-ঘাট, রেলওয়ে স্টেশন, এ কে খান, জিইসি, নিউ মার্কেট, আগ্রাবাদ, কাস্টমস, হালিশহর, চকবাজার, নতুন ব্রিজ এলাকায় জনসচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ, মাইকিং, জীবাণুনাশক স্প্রে ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ করা হয়। এছাড়াও উপজেলা পর্যায়ে সাতকানিয়া, পটিয়া, বাঁশখালী ও সীতাকুণ্ড উপজেলার মানুষকে সচেতনতার জন্য লিফলেট বিতরণ করা হয়। বাস টার্মিনালের বিভিন্ন গাড়ির টিকেট কাউন্টারের লোকদের মাঝে হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ ও বাসের হাতলে জীবাণুনাশক স্প্রে ছিটানো হয়। আগামীতে উপজেলা পর্যায়ে ইউনিয়নভিত্তিক লিফলেট ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ ও জীবাণুনাশক স্প্রে ছিটানো কার্যক্রম পরিচালনা করা হবে। আজকের কার্যক্রমের সার্বিক পর্যবেক্ষণে ছিলেন বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির ম্যানেজিং বোর্ড সদস্য ও চট্টগ্রাম জেলা ইউনিটের ভাইস চেয়ারম্যান ডা. শেখ শফিউল আজম, চট্টগ্রাম সিটি ইউনিটের ভাইস চেয়ারম্যান এমএ ছালাম, চট্টগ্রাম সিটি ইউনিটের কার্যকরী পর্ষদ সদস্য এইচ এম সালাউদ্দিন, মহসিন উদ্দিন চৌধুরী ফয়সাল, জেলার ইউনিট লেভেল অফিসার আব্দুর রশিদ খান, সিটির ইউনিট লেভেল অফিসার মুহাম্মদ ইয়াহইয়া বখতিয়ার, সিনিয়র যুব সদস্য এইচ এম. মহিউদ্দিন, যুব রেড ক্রিসেন্ট, চট্টগ্রামের যুব প্রধান মো. ইসমাইল হক চৌধুরী ফয়সাল, দপ্তর বিভাগীয় প্রধান আবু নাঈম তামজীদ, ক্রীড়া ও প্রচার-প্রকাশনা বিভাগীয় প্রধান কৃষ্ণ দাশ ও কার্যকরী পর্ষদ সদস্যসহ যুব স্বেচ্ছাসেবকরা। আজ থেকে যুব রেড ক্রিসেন্ট, চট্টগ্রাম কার্যালয়কে কন্ট্রোলরুম হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। কন্ট্রোল রুমের হটলাইন নং- ০১৬৭৫-৬২৮৮৪২
নগরীতে ইয়াবাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে Rab-7
২৪মার্চ,মঙ্গলবার,কমল চক্রবর্তী,বিশেষ প্রতিনিধি,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম মহানগরীর বন্দর থানাধীন নিমতলী বিশ্ব রোড এলাকার অভিযান চালিয়ে ৬,৭৪০ পিস ইয়াবা সহ (১) মো: বাসেদ মিয়া (২৯) এবং (২) মো: সাফায়েত (২৭) নামে দুই মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে Rab-7।এসময় মাদক পরিবহনে ব্যবহৃত একটি ট্রাক জব্দ করা হয়। আজ মঙ্গলবার ২৪শে মার্চ ভোর ৪:২০ মিনিটের সময় চট্টগ্রাম মহানগরীর বন্দর থানাধীন বন্দর নতুন মার্কেটের সামনে নিমতলা হতে অলংকারগামী রাস্তার উপর অভিযান চালিয়ে ২ মাদক ব্যবসায়ীকে বিপুল পরিমান ইয়াবাসহ আটক করা হয় বলে জানিয়েছেন Rab-7 এর সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) এ এস পি মাহমুদুল হাসান মামুন। আটককৃত আসামীরা হলেন মোঃ বাছের (২৭) বগুড়া জেলার শিবগঞ্জ থানাধীন দাইমুল্ল্যা গ্রামের মোঃ দিলবরের ছেলে এবং মোঃ শাফায়েত (২৮)বগুড়া জেলার শিবগঞ্জ থানাধীন দাইমুল্ল্যা গ্রামের মৃত শাহজাহান এর ছেলে । Rab-7 এর সহকারী পরিচালক (অপারেশন) এ এস পি মাশকুর রহমান জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আমরা জানতে পারি যে, কতিপয় মাদক ব্যবসায়ী একটি ট্রাক যোগে পন্য পরিবহণের আড়ালে বিপুল পরিমাণ ইয়াবা ট্যাবলেট নিয়ে নিমতলা বিশ্বরোড হতে অলংকার বাস স্ট্যান্ডের দিকে যাচ্ছে। এমন তথ্যের ভিত্তিতে Rab-7 এর একটি টহল দল চট্টগ্রাম মহানগরীর বন্দর থানাধীন বন্দর নতুন মার্কেটের সামনে নিমতলা হতে অলংকারগামী রাস্তার উপর একটি চেকপোস্ট বসিয়ে করে গাড়ি তল্লাশী শুরু করে। এসময় নিমতলা বিশ্বরোড হতে অলংকারগামী একটি ট্রাকের গতিবিধি সন্দেহজনক মনে হলে র্যাকব সদস্যরা ট্রাকটিকে থামানোর সংকেত দিলে ট্রাকে থাকা মাদক ব্যবসায়ীরা র্যালবের উপস্থিতি টের পেয়ে গাড়িটিকে রাস্তার পাশে থামিয়ে গাড়ি থেকে নেমে দৌড়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টাকালে র্যাসব সদস্যরা ধাওয়া করে তাদের আটক করে। পরে আটককৃত আসামীদেরকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করে তাদের দেখানো ও সনাক্ত মতে ট্রাকটি (বগুড়া মেট্টো-ট-১১-২৪১৭) তল্লাশী করে ট্রাকের ড্রাইভিং সিটের নিচে সুকৌশালে লুকানো অবস্থায় ৬,৭৪০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয় এবং মাদক পরিবহনে ব্যবহৃত ট্রাকটি জব্দ করা হয়। তিনি আরও জানান,গ্রেফতারকৃত আসামীদেরকে জিজ্ঞাসাবাদে আরো জানা যায়, তারা পরস্পর যোগসাজশে দীর্ঘদিন যাবত বিভিন্ন এলাকা হতে ইয়াবা ট্যাবলেট সংগ্রহ করে অভিনব কৌশলে চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পাচার করে আসছে। উদ্ধারকৃত ইয়াবা ট্যাবলেটের আনুমানিক মূল্য ৩৩ লক্ষ ৭০ হাজার টাকা এবং জব্দকৃত ট্রাকের আনুমানিক মূল্য ৪০ লক্ষ টাকা। গ্রেফতারকৃত আসামীদের চট্টগ্রাম মহানগরীর বন্দর থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর