ক্যাডেটদের আত্মশক্তিতে বলীয়ান হয়ে দেশের প্রয়োজনে প্রস্তুত থাকতে হবে
২০এপ্রিল,শনিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় বিএনসিসির উদ্যোগে সেনা ও বিমান শাখার ক্যাডেটদের দিনব্যাপী বার্ষিক হাইকিং কর্মসূচি উদ্বোধন অনুষ্ঠান গত ১৮ এপ্রিল চবি বঙ্গবন্ধু চত্বরে অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে কর্মসূচির উদ্বোধন করেন উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী। এসময় বক্তব্য রাখেন বিএনসিসির ব্যাটালিয়ন কমান্ডার ও সমন্বয় কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট কর্ণেল ড. এম শফিকুল আলম। উপাচার্য তাঁর বক্তব্যে ক্যাডেটসহ উপস্থিত সকলকে আন্তরিক শুভেচ্ছা জানান। তিনি বলেন, সুন্দর মনের মানুষ হতে হলে অবশ্যই শারীরিকভাবে সুস্থতার অধিকারী হতে হবে। আর এই ধরনের হাইকিং প্রোগ্রাম তরুণ-বৃদ্ধ সকলকেই শারীরিকভাবে সুস্থ থাকতে সহায়তা করে। তিনি বলেন, এই সকল তরুণ মেধাবী ক্যাডেট তাদের মেধা-দক্ষতা-যোগ্যতা দিয়ে আগামীর বাংলাদেশকে পথ দেখাবে। উপাচার্য ক্যাডেটদের আত্মশক্তিতে বলীয়ান হয়ে সত্য, সুন্দর ও ন্যায়ের পথে দৃঢ় অবস্থানে থেকে দেশের যেকোন প্রয়োজনে নিজেদের প্রস্তুত রাখার আহ্বান জানান। উপাচার্য কর্মসূচির সার্বিক সাফলতা কামনা করেন। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ১২ বিএনসিসি ব্যাটালিয়ন কমান্ডার মেজর প্রফেসর ড. মো. শওকতুল মেহের, বিএনসিসি সেনা শাখার কোম্পানি কমান্ডার প্রফেসর ড. বায়েজিদ মাহমুদ খান, বিএনসিসির সেনা শাখার পিইউও ও সহযোগী অধ্যপক শহিদুল হক, বিমান শাখার পিইউও ও উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক রূমঝুম ভূইয়া, সামরিক প্রশিক্ষক কর্পোরাল শরীফ। অনুষ্ঠানে প্যারেড পরিচালনা করেন বিএনসিসির সেনা শাখার সিইউও মো. মিছবাহুর রহমান। হাইকিং কর্মসূচিতে চবি সেনা ও বিমান শাখার ৪০ জন ক্যাডেট অংশগ্রহণ করে। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
দুর্ঘটনামুক্ত সড়কের জন্য তিন বছরের প্রকল্প ঘোষণা করতে হবে
২০এপ্রিল,শনিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: পরিবহন সেক্টরে শৃঙ্খলা ও দুর্ঘটনামুক্ত সড়কের জন্য তিন বছরের প্রজেক্ট ঘোষণা করা হলে সড়ক পরিবহন শ্রমিকরা দায়িত্ব পালন করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন। গতকাল ১৯ এপ্রিল বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন চট্টগ্রাম আঞ্চালিক কমিটির সভায় সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন কেন্দ্রীয় কমিটির কার্যকরী সভাপতি ও সড়কে শৃঙ্খলা আনয়ন কমিটির আহ্বায়ক শাজাহান খান প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন। এতে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি মোহাম্মদ মুছা। পলোগ্রাউন্ডস্থ রেলওয়ে অফিসার্স ক্লাবে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় তিনি বলেন- অনেকে সমস্যা ও সমস্যা সমাধানের বাস্তবতা না বুঝে পরিবহন শ্রমিকদের দায়ী করেন। তিনি বলেন- খুনের মামলায় ফাঁসির আইন রয়েছে। তেমনি সড়ক দুর্ঘটনাও একটি প্রাতিষ্ঠানিক ও বহুপক্ষীয় সমস্যা। পরিবহন শ্রমিকদের ফাঁসিতে লটকিয়ে এ সমস্যার সমাধান হবে না। প্রাক্তন মন্ত্রী শাজাহান খান বলেন, জাতীয়ভাবে প্রশিক্ষিত চালক তৈরির উদ্যোগ গ্রহণ এবং উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আগামী তিন বছরের মধ্যে এক লক্ষ প্রশিক্ষিত চালক সৃষ্টি করতে হবে। পরিবহন সেক্টরে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত ৫ দফা সুপারিশের প্রতি দৃঢ় সমর্থন জানিয়ে শাজাহান খান প্রধানমন্ত্রী সুপারিশ বাস্তবায়নে যারা কোন উদ্যোগ নেন নি তাদেরও শাস্তির দাবি জানান। সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮ সম্পর্কে তিনি বলেন- বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন ইচ্ছাকৃত দুর্ঘটনার জন্য চালকদের শাস্তির বিরোধী নয়। কিন্তু একপক্ষীয় পুলিশী তদন্ত নয়, তদন্ত হতে হবে মালিক, শ্রমিক সংগঠনসহ বহুপক্ষীয়। তিনি সড়ক পরিবহন আইনে নিয়োগপত্র সহ শ্রমিকদের পক্ষে যা সুবিধাবলী রয়েছে তা অবিলম্বে কার্যকর করার দাবি জানান। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন চট্টগ্রাম আঞ্চলিক কমিটির সহ-সাধারণ সম্পাদক আবদুর রহিম। বক্তব্য রাখেন সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন পূর্বাঞ্চল (চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগ) কমিটির সভাপতি মৃণাল চৌধুরী, চট্টগ্রাম আঞ্চলিক কমিটির কার্যকরী সভাপতি রবিউল মওলা, সাধারণ সম্পাদক অলি আহামদ, প্রচার সম্পাদক হাজী আবদুস ছবুর, আবু বক্কর ছিদ্দিকী, জহিরুল ইসলাম, শফিকুর রহমান, হারুনুর রশিদ প্রমুখ। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
সাউদার্ন ইউনিভার্সিটিতে জেসিআই এর রক্তদান কর্মসূচি
১৭এপ্রিল,বুধবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: নগরীর সাউদার্ন ইউনিভার্সিটির মেহেদীবাগ ক্যাম্পাসে জুনিয়র চেম্বার ইন্টারন্যাশনাল (জেসিআই) চট্টগ্রাম কসমোপলিটনের আয়োজনে ও যুব রেড ক্রিসেন্ট চট্টগ্রামের সহায়তায় রক্তদান কর্মসূচি গতকাল সম্পন্ন হয়েছে। ডোন্ট শেড, ডোনেট ব্লাড এই মূলমন্ত্রকে সামনে রেখে অনুষ্ঠিত ক্যাম্পে জেসিআইয়ের সদস্যগণ এবং সাউদার্ন ইউনিভার্সিটির ছাত্রছাত্রীগণ রক্তদান করেন। জেসিআই প্রেসিডেন্ট অসিম কুমার দাসের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সাউদার্ন ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা প্রফেসর সারোয়ার জাহান। বিশেষ অতিথি ছিলেন প্রফেসর হাসিনা জাকারিয়া। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সাউদার্ন ইউনিভার্সিটির সহকারী পরিচালক (জনসংযোগ) মো. সাইদুল ইসলাম, জেসিআইর ভাইস প্রেসিডেন্ট আবু বকর সাহেদ শান, ওমর হাসান ও সুদর্শন মন্টি প্রমুখ।প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
জাতীয় স্বাস্থ্য সেবা সপ্তাহ উদ্বোধন
১৭এপ্রিল,বুধবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রামে জাতীয় স্বাস্থ্য সেবা সপ্তাহ উপলক্ষে গতকাল মঙ্গলবার চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন কার্যালয় ও ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের যৌথ উদ্যোগে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে কর্মকর্তা ও কর্মচারীগণ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মো. ইলিয়াস হোসেন। এতে সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ আজিজুর রহমান সিদ্দিকী । বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম পুলিশ সুপার চট্টগ্রাম মোহাম্মদ নুরে আলম মীনা, ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতাল চট্টগ্রামের তত্ত্বাবধায়ক ডা. অসীম কুমার নাথ, উপ-পরিচালক (পরিবার পরিকল্পনা) ডা. উখ্যে উইন, ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. গোলাম মো. তৈয়ব আলী, ডা. দীনেশ চন্দ্র শীল, ডা. মো. ওয়াজেদ চৌধুরী, ডা. মো. নুরুল হায়দার। এ উপলক্ষে আগামী শুক্রবার সকাল ৯টা হতে দুপুর ১২ টা পর্যন্ত সকল সরকারি স্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠান সমূহের বর্হিবিভাগে স্বাস্থ্য সেবা প্রদান করা হবে। জাতীয় সেবা সপ্তাহ উপলক্ষে হাসপাতালসমূহে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা, নিয়ন সাইন, লাইটিং ও সৌন্দর্য বর্ধন, রঙিন বীনের মাধ্যমে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা করা, সুশংখলভাবে স্বাস্থ্য সেবা প্রদান, বাথরুমসমূহ সংস্কার ও পরিস্কার পরিচ্ছন্ন করা, অগ্নি নির্বাপণ মহড়া, হাসপাতালসমূহে সিটিজেন চার্টারসমূহ দৃশ্যমান করা, ধুমপান মুক্ত রাখা, রক্তদান কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হবে। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
শুলকবহর ওয়ার্ডে মাদক জঙ্গিবাদবিরোধী সমাবেশ
১৭এপ্রিল,বুধবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেছেন, যে দলেরই হোক, সন্ত্রাসীদের কোনো দল নেই। তাদের পরিচয় তারা সন্ত্রাসী। এরা দেশের শত্রু, জনগণের শত্রু। যদি এদেরকে কেউ আশ্রয় ও প্রশ্রয় দেয়, তাদেরকেও আইনের আওতায় আনতে হবে। তিনি গত সোমবার সকালে শুলকবহর ওয়ার্ড এর উদ্যোগে আয়োজিত এলজিইডির হলরুমে মাদক,সন্ত্রাস,জঙ্গিবাদ ও দুর্নীতি বিরোধী সমাবেশ এবং স্থানীয় জনগনের সাথে সার্বিক বিষয়ে মতবিনিময় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন। শুলকবহর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোরশেদ আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন পুলিশের উপ-কমিশনার বিজয় বসাক বিপিএম পিপিএম, চসিক আইন শ;ংখলা বিষয়ক কমিটির সভাপতি কাউন্সিলর এইচ এম সোহেল, সদস্য সচিব নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আফিয়া আকতার, স্পেশাল ম্যাজিস্ট্রেট (যুগ্ম জেলা জজ) জাহানারা ফেরদৌস । অনুষ্টানে আরো বক্তব্য রাখেন পাচঁলাইশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবুল কাশেম ভুইয়া,খুলশী থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শেখ মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন, জনগণের পক্ষে বিশিষ্ট সমাজসেবক আতিকুর রহমান, আবদুর রউফ সোহেল, সিদ্দিকুল ইসলাম, আইয়ুব চৌধুরী, মাসুদ খান, আলহাজ্ব সৈয়দ সিরাজদৌল্লাহ, ডা. সাধন চন্দ্র নাথ, মো. কায়কোবাদ, শিক্ষক লিলি বড়ুয়া, আবু তাহের, মোহাম্মদ শাহ জাহান, আরিফুল ইসলাম, ওমর শাহেদ হিরা, রিয়া দাশ প্রমূখ। সিটি মেয়র আরো বলেন, চট্টগ্রাম হচ্ছে শান্তির শহর। এই নগরে বাসিন্দারা সন্ত্রাস, নৈরাজ্য ও সহিংসতার পে নয়। সকল সন্ত্রাস, নৈরাজ্য ও সহিংসতাকে পরাজিত করার সমর্থ রয়েছে এই নগরবাসীর। যে কোনো অন্যায় অবিচারের বিরুদ্ধে এই চট্টগ্রামের মানুষ সবসময় সোচ্ছার ছিল,এখনো আছে। মাদক, সন্ত্রাস,জঙ্গিবাদ ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে চট্টগ্রামবাসীর অবস্থান জিরো টলারেন্স। মেয়র বলেন মাদক, সন্ত্রাস,জঙ্গিবাদ ও দুনীর্তি প্রতিরোধে জন সচেতনতার বিকল্প নেই। এরই অংশ হিসেবে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নগরীর ৪১টি ওয়ার্ডে এ আয়োজন করে আসছে। নগরবাসীর মধ্যে মানবিক মুল্যবোধ জাগ্রত করাই এই কর্মসুচির মূল উদ্দেশ্য। অনুষ্ঠানে উপ পুলিশ কমিশনার বিজয় বসাক সমাজে যারা মাদক, সন্ত্রাস,জঙ্গিবাদ ও দুনীর্তির মত অবৈধ কর্মকান্ডের সাথে জড়িত তাদের ধরিয়ে দিতে সমাজের সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
চট্টগ্রাম সিটি মেয়র সকাশে হিউম্যান রাইটস নেতৃবৃন্দ
১৬এপ্রিল,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: পাহাড়তলী থানাধীন অলংকার মোড়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতি স্থাপনের প্রস্তাব পত্র নিয়ে আজ ১৬ই এপ্রিল মিলেনিয়াম হিউম্যান রাইটস এন্ড জার্নালিস্ট ফাউন্ডেশন চট্টগ্রাম মহানগর কমিটির পক্ষ থেকে মহানগর চেয়ারম্যান এম.এ নুরুন্নবী চৌধুরীর নেতৃতে সংগঠনের নেতৃবৃন্দ চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ.জ.ম নাছির উদ্দিনের সাথে সাক্ষাত করে এবং প্রস্তাবনা নিয়ে আলোচনা করেন।প্রস্তাবনার আলোকে মেয়র বলেন,পাহাড়তলী থানাধীন অলংকার মোড়ে কোন স্মৃতিস্তম্ভ না থাকা সত্য,অত্র সংস্থার পক্ষ থেকে প্রস্তাবিত বিষয়টি সময় উপযোগী,এটি দ্রুত বাস্তবায়নে আমার আন্তরিক সহযোগিতা থাকবে,এই ধরনের সময়োপযোগি প্রস্তাবনার জন্য আমি অত্র সংস্থাকে সাধুবাদ জানাই।উক্ত সাক্ষাতে উপস্থিত ছিলেন জেলা চেয়ারম্যান ও আকবরশাহ্ থানা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি লোকমান আলি,মহাসচিব ও উত্তর জেলা কৃষকলীগের সহ সভাপতি মোঃ ফজলুল ইসলাম ভূইয়াঁ,নগর মহাসচিব ও পেশাজীবী লীগের নেতা মোঃ তছলিম কাদের চৌধুরী,সিঃভাইস চেয়ারম্যান ইদ্রিস মোঃ নুরুল হুদা,মহিলা বিষয়ক সচিব শিরিন আক্তার,প্রচার ও প্রকাশনা সচিব সুজন আচার্য,সাংবাদিক মোঃ সোহেল,বিশিষ্ট ব্যবসায়ী তাজল কুমার দে,মানবাধিকার কর্মী মোঃ ইরফান চৌধুরী,মোঃ মনিরুল ইসলাম,মোঃ আমজাদ চৌধুরী প্রমুখ।
নাসিবের মাসব্যাপী ক্ষুদ্র কুটির শিল্প ও বাণিজ্য মেলা উদ্বোধন
১৬এপ্রিল,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: নগরীর হালিশহরের আবাহনী মাঠে মাসব্যাপী প্রথম চট্টগ্রাম ক্ষুদ্র কুটির শিল্প ও বাণিজ্য মেলার উদ্বোধন করা হয়েছে। ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পের প্রসারের লক্ষ্যে জাতীয় ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প সমিতি বাংলাদেশ (নাসিব) চট্টগ্রাম মহানগর এই মেলারে আয়োজন করেছে। গতকাল সোমবার ফিতা কেটে মেলার উদ্বোধন করেন নাসিব কেন্দ্রীয় কমিটির প্রেসিডেন্ট মীর্জা নুরুল গণি শোভন সিআইপি। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম আবাহনী লিমিটেডের উপ ক্রীড়া সম্পাদক মোহাম্মদ মহিউদ্দিন, নাসিব চট্টগ্রাম জেলা প্রেসিডেন্ট নুরুল আজম খান, নাসিব চট্টগ্রাম মহানগর নির্বাহী কমিটির সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মো. মাহাবুবুর রহমান, ভাইস প্রেসিডেন্ট দেওয়ান মো. আকতার হোসেন, বেবী হাসান, সিতারা রহমান, সদস্য মো. মামুন, মো. তাজউদ্দীন। নাসিব চট্টগ্রাম মহানগর প্রেসিডেন্ট এ এস এম আবদুল গাফফার মিয়াজীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে চট্টগ্রাম জেলা কমিটির সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট এস এ সেলিম, ভাইস প্রেসিডেন্ট এজহারুল হক, মুক্তিযোদ্ধা আবু তাহের, ব্যবসায়ী হাফেজ আবুল হাসান, আশিক উল্লাহ চৌধুরী টুকু, তসলিম উদ্দিন আনন্দ, মো. আজাদ, মো. আব্দুল মালেক প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মীর্জা নুরুল গণি শোভন বলেন, নাসিব সারা দেশে ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পের প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছে। নাসিবের প্রায় ১৫ হাজার সদস্য রয়েছে। মেলায় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ১৮০টি স্টল, বিদেশি জোনে ইরানী ও থাই প্যাভিলিয়নসহ রয়েছে ফুড জোন। মেলায় হস্তশিল্প, কুটির শিল্প, তাঁত ও বাটিক শিল্প সামগ্রী ও নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের বিপুল সমাহার রয়েছে। শিশুদের বিনোদনের জন্য রয়েছে ওয়াটার রাইড, নাগর দোলা ইত্যাদি। মেলায় প্রবেশ মূল্য ১০ টাকা। শিশুদের প্রবেশ ফ্রি। মেলা প্রতিদিন সকাল দশটা থেকে রাত দশটা পর্যন্ত চলবে। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
ওয়েল ফুডে বর্ষবরণ উৎসব
১৫এপ্রিল,সোমবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: বর্ষবরণের আনন্দকে ভাগাভাগি করে নিতে দেশের স্বনামধন্য কেক প্রস্তুতকারী কোম্পানি ওয়েল ফুডের উদ্যোগে মডেল ওয়ার্ল্ড ইন্সিটিটিউটের সার্বিক ব্যবস্থাপনায় বৈশাখী উৎসব গতকাল নগরীর লালখান বাজারস্থ একটি রেস্টুরেন্টে অনুষ্ঠিত হয়। এতে গুণীজন সংবর্ধনা, আলোচনা সভা ও ফ্যাশন শোর আয়োজন করা হয়। সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র ও চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী। রাইজিং স্টারের প্রতিষ্ঠাতা ইলিয়াছ রিপনের সঞ্চালনায় ও মডেল ওয়ার্ল্ড ইন্সিটিটিউটের পরিচালক সুন্দর শাহ হিরোর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে প্রবীণ নাট্যকার ও নির্দেশক রবিউল আলমকে সংবর্ধিত করা হয়। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, কালার্স অব লাইফের প্রেসিডেন্ট শাকিলা গাফফার, আবৃত্তিকার শাওন পান্থ, গীতিকার ফারুক হাসান, গীতিকার আবছার উদ্দিন অলী, সীতাকুন্ড প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি সৈয়দ ফোরকান আবু, সংগীত শিল্পী সুবর্ণ রহমান, ডিএনসি শিপিংয়ের ম্যানেজিং পার্টনার মোঃ জাহিদ, ব্যবসায়ী আবদুল গফুর। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আসাদুর রহমান আসাদ, মহি উদ্দিন টিটু, লায়ন সাইফ সাইফুল প্রমুখ। শেষে মডেল ওয়ার্ল্ড ইন্সিটিটিউটের পরিচালক সুন্দর শাহ হিরোর কোরিওগ্রাফিতে মিয়া বিবি, জিন্টেলম্যান, ডিসপ্লে, জেইনমিরর ক্রিয়েশণের ফ্যাশন শো অনুষ্ঠিত হয়। পহেলা বৈশাখে হোটেল ওয়েল পার্কের নানা আয়োজন বাংলা ও বাঙালির সার্বজনীন উৎসব পহেলা বৈশাখ বাংলা বর্ষবরণ-১৪২৬ উপলক্ষে চিরায়ত বাঙলার সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যকে মাথায় রেখে নগরীর জিইসি মোড়ের অভিজাত হোটেল ওয়েল পার্ক রেসিডেন্স আয়োজন করেছে নানা আয়োজন। হোটেলের মোহরা গার্ডেন রেস্টুরেন্টে থাকছে ১০১টি পদের বাঙালি খাদ্যের সমাহারে বুফে মেনু। থাকছে দেশের বিখ্যাত বাউল সংগীত শিল্পীদের পরিবেশনায় বাউল গান এবং ৩টি টিকেটের সাথে ১জন ফ্রি বুফের সুযোগ। হোটেলের জেনারেল ম্যানেজার এম এ মনছুর ও হেড অব সেলস অ্যান্ড মার্কেটিং মামুন আল রশিদ জানান, ওয়েল পার্ক সবসময় বাঙালি ঐতিহ্যকে লালন করে আধুনিক চিন্তা ধারার সংমিশ্রণে তুলে ধরার প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখবে এবং বাংলা নব-বর্ষের সমস্ত আয়োজন যাতে রুচিশীল গ্রাহকরা সুলভে উপভোগ করতে পারে তার জন্য কর্তৃপক্ষ বিশেষ মূল্য নির্ধারণ করেছে। বিস্তারিত জানতে ০১৮৪১৭৩৫৫৫৮-৯, ০১৭৩০৭৩৫৫৫৫ নম্বরে যোগাযোগের অনুরোধ জানানো হয়েছে। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর