শনিবার, এপ্রিল ৪, ২০২০
ফজলে করিম এমপির প্রতি রাউজান মোহাম্মদপুরবাসীর কৃতজ্ঞতা
২৯অক্টোবর,মঙ্গলবার,রাউজান প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: রাউজান উপজেলার মোহাম্মদপুর মুহিউল উলুম দাখিল মাদরাসা এমপিওভূক্ত হওয়ায় মাদরাসা পরিচালনা পর্ষদের বর্তমান ও প্রাক্তন নেতৃবৃন্দ, শুভাকাঙ্ক্ষী, শিক্ষক, অভিভাবক ও এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী এমপির সাথে দেখা করে ফুলের অভিনন্দন জানিয়ে এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন। শুক্রবার (২৫ অক্টোবর) সন্ধ্যায় তাঁর নগরীর পাথরঘাটাস্থ বাসভবনে এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী সাক্ষাতের সময় বলেন, যে কোন মূল্যে এ মাদরাসাকে এমপিওভূক্ত করা ছিল আমার দৃঢ় অঙ্গিকার। তা বাস্তবায়ন করতে পেরে আমি আনন্দিত। রাউজানবাসীর স্বার্থে নিজেকে বিলিয়ে দেয়ায় হচ্ছে আমার রাজনীতির আদর্শ। প্রতিদানের আশায় নয়, নিজের দায়বদ্ধতা থেকে আজীবন এলাকাবাসীর কল্যাণে কাজ করতে চাই। এ সময় উপস্থিত ছিলেন-সমাজ সেবক এমএ বকর, মোহাম্মদ আলী এমকম, মুক্তিযোদ্ধা শফিকুল আনোয়ার, ৭ নং রাউজান ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বিএম জসিম উদ্দিন হিরু, প্রাক্তন চেয়ারম্যান শাহ আলম চৌধুরী, মাদরাসা পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি মুসলেহ উদ্দিন মুহম্মদ বদরুল, সাংবাদিক খোরশেদুল আলম শামীম, সদস্য নিজাম উদ্দিন আহম্মদ, আব্দুস সালাম, মাদরাসা সুপার মাওলা আবু আহমদ, সারজু মোহাম্মদ নাছের, মোজাম্মেল হক, জিল্লুর রহমান মাসুদ, এনামুল হক এনাম, শাহিল উদ্দিন, শিক্ষক মাওলানা নুরুল আজিম হেলালী, মাওলানা নুরুল আলম জেহাদী, মাওলানা শফিউল আলম, মোরশেদ হোসাইন, নাসিরুদ্দিন, আবু বকর, মোহাম্মদ লিটন, খোরশেদ, জামাল প্রমূখ। মাদরাসা পরিচালনা পর্ষদের নেতৃবৃন্দ এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী এমপির প্রতি এলাকাবাসীর কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করে বলেন, এ মাদরাসা এমপিওভূক্ত হওয়া দীর্ঘদিনের স্বপ্ন।এ স্বপ্ন বাস্তবায়নে স্থানীয় সাংসদের যে ভূমিকা, তা এলাকাবাসী আজীবন শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করবে।
বিষাক্ত মাটি থেকে অক্সিজেন উৎপাদনের আইডিয়ায় সাফল্য
২৯অক্টোবর,মঙ্গলবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস) কর্তৃক বেসিস স্টুডেন্টস ফোরামের সহযোগিতায় টানা পঞ্চমবারের মতো আয়োজিত নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ ২০১৯ প্রতিযোগিতায় নির্বাচিত ৪৫টি প্রকল্প নিয়ে ইনস্টিটিউশন অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স-বাংলাদেশে সম্প্রতি দুইদিন ব্যাপী যে-হ্যাকাথন অনুষ্ঠিত হয়। এতে চট্টগ্রাম বিভাগ থেকে রানার আপ হয়েছে প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটির সিনটেক্স অ্যারর টিম। এই টিমের সদস্যরা হলেন প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটির কমিপউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী অভিষেক ধর, শুভ কর্মকার, সুস্ময় সেন গুপ্ত ও রিদওয়ান তাসমিয়াহ। তাঁরা বিষাক্ত মাটি থেকে অক্সিজেন উৎপাদন করে পরিবেশে কার্বণ ও অক্সিজেনের ভারসাম্য রক্ষার আইডিয়া দেন। নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ ২০১৯ প্রতিযোগিতায় এবার দেশের ৯টি শহর থেকে ৪ হাজারেরও বেশি প্রতিযোগী ৯০০০ প্রকল্প নিয়ে অংশ নেন। প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটির সিনটেক্স অ্যারর টিমসহ দুটি টিম তাদের আইডিয়া নাসা স্পেসের ওপেন ডাটাবেজে জমা দেয়। উল্লিখিত প্রতিযোগিতায় রানার আপ হওয়া সিনটেক্স অ্যারর টিম গতকাল সোমবার নগরীর প্রবর্তক মোড়স্থ প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটি ভবনে উপাচার্য কার্যালয়ে উপাচার্য প্রফেসর ড. অনুপম সেনের সাথে সৌজন্য সাক্ষাতে মিলিত হয়। এ সময় প্রফেসর ড. অনুপম সেন বলেন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে সৃজনশীলতাই মুখ্য। সিনটেক্স অ্যারর টিমের আইডিয়াটি এই সৃজনশীলতারই অংশ। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে মাটি থেকে অক্সিজেন তৈরির যে প্রক্রিয়াটি তারা দিল, তা অদূর ভবিষ্যতে শুধু পৃথিবী নয়, মঙ্গলের মত গ্রহেও কাজ দিবে; অক্সিজেনের ভারসাম্য রক্ষায় ভূমিকা রাখবে। নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ ২০১৯ প্রতিযোগিতায় চট্টগ্রাম বিভাগ থেকে রানার আপ হওয়ার জন্য তিনি সিনটেক্স অ্যারর টিমকে ধন্যবাদ জানান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন প্রকৌশল অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. তৌফিক সাঈদ, ইলেকট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চেয়ারম্যান টুটন চন্দ্র মল্লিক, কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মিনহাজ হোসাইন প্রমুখ। তাঁরা উল্লেখ করেন, সিনটেক্স অ্যারর টিমের প্রকল্পটি নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জের গ্লোবাল নমিনি হিসেবে বিবেচিত হয়েছে। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
নৌঘাঁটি ঈসা খানে জেসিওস ট্রেনিং ইনস্টিটিউট উদ্বোধন
২৮অক্টোবর,সোমবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: বাংলাদেশ নৌবাহিনীর প্রশিক্ষণ কার্যক্রমকে আরোও যুগোপযোগী ও আন্তর্জাতিকমানে উন্নীত করতে গড়ে তোলা হয়েছে জুনিয়র কমিশন্ড অফিসার (জেসিওস) ট্রেনিং ইনস্টিটিউট। গতকাল রবিবার চট্টগ্রামের নৌঘাঁটি ঈসা খানে আনুষ্ঠানিকভাবে এই জেসিওস ট্রেনিং ইন্সটিটিউট এর উদ্বোধন করেন নৌবাহিনী প্রধান এডমিরাল আওরঙ্গজেব চৌধুরী। নৌবাহিনীতে কর্মরত জেসিওসগণের নিজ নিজ শাখায় পেশাগতভাবে দক্ষ ও নেতৃত্বের গুণাবলী অর্জনে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে এই প্রতিষ্ঠান। প্রধান অতিথির বক্তব্যে নৌবাহিনী প্রধান বলেন, দ্রুত পরিবর্তনশীল প্রযুক্তি আর বিস্তীর্ন সামুদ্রিক এলাকার ক্রমবর্ধমান বিভিন্ন চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় চৌকস, দক্ষ প্রশিক্ষিত জনবলের কোন বিকল্প নেই। নৌবাহিনীর সামগ্রিক উন্নয়নে যুগোপযোগী প্রশিক্ষণের লক্ষ্যে প্রতিটি স্কুলের আধুনিকায়নসহ প্রশিক্ষণ কার্যক্রম ঢেলে সাজানো হচ্ছে। বিশেষত এই প্রতিষ্ঠান প্রশিক্ষণার্থীদের তাত্ত্বিক ও ব্যবহারিক জ্ঞান বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে এবং প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত জেসিওসগণ কর্মক্ষেত্রে আরও দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালনে সক্ষম হবে। উল্লেখ্য, বর্তমান সরকারের যুগান্তকারী সিদ্ধান্তের প্রেক্ষিতে সশস্ত্র বাহিনীর জেসিও পদকে ইতোমধ্যেই প্রথম শ্রেণির (নন ক্যাডার) মর্যাদা প্রদান করা হয়েছে। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই জেসিও গণ বাংলাদেশ নৌবাহিনীর সাংগঠনিক ও অপারেশানাল কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে পরিচালনায় অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছেন। বর্তমানে আন্তঃবাহিনী এবং কোস্টগার্ডসহ বিভিন্ন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলেও জেসিও গণ অত্যন্ত সফলতার সাথে দায়িত্ব পালন করে নৌবাহিনীর ভাবমূর্তি সমুজ্জ্বল করছেন। ইতোমধ্যে প্রধানমন্ত্রীর ঐকান্তিক আগ্রহে বাংলাদেশ নৌবাহিনী ত্রিমাত্রিক নৌবাহিনীর সক্ষমতা অর্জন করেছে। এরই ধারাবাহিকতায় ফোর্সেস গোল-২০৩০ অনুযায়ী দক্ষ এবং প্রযুক্তিনির্ভর আধূনিক নৌবাহিনী গড়ে তোলার কার্যক্রম চলমান রয়েছে। পাশাপাশি রোড ম্যাপ ২০৪১, ডেল্টা প্ল্যান ২১০০, ব্লু-ইকনোমি বাস্তবায়নে বঙ্গোপসাগরের কৌশলগত গুরুত্ব বৃদ্ধির সাথে সাথে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর দায়িত্ব ও কর্তব্য বহুগুণে বৃদ্ধি পেয়েছে। এই দ্বায়িত্ব কার্যকরভাবে পালনের লক্ষ্যে জেসিওস ট্রেনিং ইন্সটিটিউট দক্ষ ও প্রশিক্ষিত জনবল তৈরিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে বলে আশা করা হচ্ছে। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
যুবককে পিটিয়ে হত্যা মামলায় এসআইসহ দুইজনের দুইদিনের রিমান্ড মঞ্জুর
২৭অক্টোবর,রবিবার,সীতাকুণ্ড প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: সীতাকুণ্ডের ভাটিয়ারীতে মোবাইল ফোন চুরির অভিযোগে এক যুবককে পিটিয়ে হত্যার ঘটনার মামলায় প্রধান আসামী এসআই ইকবাল পারভেজ রায়হান ও তার ভগ্নিপতি মিজানুর রহমানকে দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত। বাদী পক্ষ ৭ দিনের রিমান্ড চাইলে আজ রোববার চট্টগ্রাম চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিজ্ঞ বিচারক রবিউল আলম ও তার ভগ্নিপতি মিজানুর রহমানেরর দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। নিহত এজাহার মিয়ার বড় ভাই আলমগীর হোসেন মানিক বাদী হয়ে গত বুধবার সীতাকুণ্ড মডেল থানায় এসআই ইকবাল পারভেজ রায়হান, তার ভাই ইমতিয়াজ আরামান এবং তার ভগ্নিপতি মিজানুর রহমানের বিরুদ্ধে উক্ত মামলা দায়ের করেন। উল্লেখ্য যে, গত সোমবার রাতে বোনের মোবাইল চুরির অপবাদে এজাহার মিয়াকে ঘরে ঢেকে নিয়ে ৪ ঘন্টা অমানবিক নির্যাতন করে একই এলাকার পুলিশ কর্মকর্তা ইকবাল পারভেজ রায়হান, তার ভাই ইমতিয়াজ আরামান এবং ভগ্নিপতি মিজানুর রহমান। পরদিন অর্ধমৃত অবস্থায় এজাহার মিয়াকে স্থানীয় ইউনিয় পরিষদ কার্যলয়ে রেখে চলে যায়। সেখানে তার মৃত্যু হয়। এজাহার মিয়া ভাটিয়ারী ৪নং ওয়ার্ডের বালুর রাস্তা এলাকার মফিজুর রহমানের ছেলে। অভিযুক্ত এসআই রায়হান আটক হওয়ার আগ পর্যন্ত নগরীর পুলিশ লাইনে কর্মরত ছিলেন। বাদীর পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন এডভোকেট মোঃ মাসুদুল আলম, প্রশাসনিক ট্রাইবুনাাল চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগ। বাদী আলমগীর হোসেন মানিক তার ছোট ভাইয়ের খুনিদের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি জানান।
চট্টগ্রামে ৫২৪ কোটি টাকার ৭ প্রকল্প উদ্বোধন করলেন সেতুমন্ত্রী
২৭অক্টোবর,রবিবার,চট্টগ্রাম প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: প্রায় ৫২৪ কোটি টাকা ব্যয়ে ৭টি প্রকল্পের কাজ উদ্বোধন করেছেন সেতুমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। রোববার (২৭ অক্টোবর) সকাল ১০টায় আগ্রাবাদ সড়ক ভবনের সম্মেলন কক্ষে তিনি এসব প্রকল্পের কাজ উদ্বোধন করেন। প্রকল্পগুলোর মধ্যে রয়েছে- প্রায় ৪৫৮ কোটি ব্যয়ে চট্টগ্রাম-রাঙামাটি জাতীয় মহাসড়ক (এন-১০৬) হাটহাজারী থেকে রাউজান পর্যন্ত ৪ লেনের প্রকল্প, এক কোটি টাকা ব্যয়ে ফটিকছড়ি সড়ক উপ-বিভাগ অফিস কাম পরিদর্শন বাংলো নির্মাণ প্রকল্প, শাহ আমানত সেতুর ইলেকট্রনিক্স টোল সিস্টেম ও ওজন স্কেলের কার্যক্রম, ৫ কোটি টাকা ব্যয়ে চট্টগ্রাম-কাপ্তাই আঞ্চলিক মহাসড়কের ৪৪তম কিলোমিটারে ৩১ দশমিক ৮২ মিটার দীর্ঘ পিসি গার্ডার সেতু প্রকল্প, সীতাকুণ্ডের বড় দারোগারহাট ওজন স্কেলের নবনির্মিত ৫ম লেনের কার্যক্রম। এছাড়া প্রায় ৩০ কোটি টাকা ব্যয়ে মইজ্জারটেক-বিএফডিসি-মৎসবন্দর ফেরিঘাট সড়কে ২টি পিসি গার্ডার সেতুর পুনঃনির্মাণসহ এক কিলোমিটার থেকে ৫ কিলোমিটার পর্যন্ত সেতু মজবুতকরণ, সম্প্রসারণ ও নতুন সড়ক নির্মাণ কাজ প্রকল্প এবং প্রায় ৩০ কোটি টাকা ব্যয়ে কাশিমপুর-রেলওয়ে স্টেশন-বাগিচারহাট সড়কের চেইনেজ: ০+০০০ থেকে ১০+০০০০ কিলোমিটার পর্যন্ত ফ্লেক্সিবল পেভমেন্ট ও রিজিড পেভমেন্ট দ্বারা মান উন্নীতকরণ প্রকল্প উদ্বোধন করেন সেতুমন্ত্রী। পরে আগ্রাবাদ সড়ক ভবনের সম্মেলন কক্ষে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন,আমরা ৫২ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে ঢাকায় ৬টি মেট্রো লাইন করতে যাচ্ছি। ৪২ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে মেট্রো ৫ এর কাজও একনেকে অনুমোদন হয়েছে। ফিজিক্যাল কনস্ট্রাকশনের কাজ শেষ হয়েছে। ২০৩০ সাল নাগাদ ৬টি মেট্রোলাইন ঢাকাকে সব দিক দিয়ে কানেক্ট করবে। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে বন্দরনগর চট্টগ্রামেও মেট্রোলাইন করা হবে। সেই লক্ষে রোডস অ্যান্ড হাইওয়েকে সম্ভাব্যতা যাচাই করার নির্দেশ দিয়েছি। খুব শিগগিরই সম্ভাব্যতা যাচাই করার কাজ শুরু হবে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কর্ণফুলী টানেলের কাজ ৪৮ শতাংশ শেষ হয়েছে উল্লেখ করে সেতুমন্ত্রী বলেন, এই প্রকল্পটি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অগ্রাধিকারভিত্তিক মেগা প্রকল্প। বাংলাদেশে প্রথম নদীর তলদেশে টানেল নির্মাণ হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী নিজেই এটির উদ্বোধন করে গেছেন। তার সঙ্গে আমিও ছিলাম। এই টানেলের কাজ শেষ হলে পাল্টে যাবে চট্টগ্রাম। মৃত্যু থেকে অলৌকিকভাবে ফিরে এসেছেন উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, সবাই আমার জন্য দোয়া করেছেন। আমি যেখান থেকে ফিরে এসেছি, সেটি অলৌকিকভাবে। স্বপ্নেও ভাবিনি এভাবে ফিরে আসবো। আল্লাহর অশেষ রহমত, মানুষের দোয়া ও নেত্রীর বিচক্ষণতায় পুরো চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়েছি।
সিএমপির হ্যালো ওসি কার্যক্রম দেখে অভিভূত আমেরিকার পুলিশ
২৭অক্টোবর,রবিবার,নিউজ চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রামে কমিউনিটি পুলিশিং ডে উপলক্ষ্যে সিআরবিতে আয়োজিত অনুষ্ঠানে হ্যালো ওসি স্টলের দায়িত্ব পালনকাল করছিলেন বাকলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নেজাম উদ্দিন। এসময় সেই স্টল পরিদর্শনে আসেন আমেরিকান পুলিশ কর্মকর্তা ডেরিল। এসময় ওসি নেজাম উদ্দিন আমেরিকার পুলিশ কর্মকর্তাকে হ্যালো ওসি কার্যক্রম এবং কমিউনিটি পুলিশিং এর বিভিন্ন কর্মকান্ড তুলে ধরেন৷ শনিবার সকাল থেকে আমেরিকার এই পুলিশ কর্মকর্তা কমিউনিটি পুলিশিং ডের নানান আনুষ্ঠানিকতার পাশাপাশি চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি)র হ্যালো ওসি কার্যক্রম দেখে অভিভূত হন৷ এসময় তিনি জানান, আমেরিকানদের মাঝেও কমিউনিটি পুলিশিং খুবই পছন্দ । সেখানেও এই ব্যবস্হার মাধ্যমে পুলিশদের পক্ষে জনগনের কাছে সেবা পৌঁছানো সহজ। এসময় ডেরিল ওসি নেজাম উদ্দিনকে হ্যালো ওসি স্টলে দ্বায়িত্বরত থাকায় এবং সার্বিক বিষয় অবিহিত করায় তাকে ভূয়সী প্রশংসা করেন।
চট্টগ্রামের হজযাত্রীদের জন্য সুখবর
২৭অক্টোবর,রবিবার,মো:ইরফান চৌধুরী,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের চট্টগ্রাম-মদিনা রুটে ফ্লাইট চালু হচ্ছে আগামী ৩১ অক্টোবর। এছাড়া ২৮ অক্টোবর থেকে ঢাকা-মদিনা রুটে যাত্রীসেবা দেবে এই সংস্থা। ২৭১ আসনের বোয়িং ৭৮৭-৮ ড্রিমলাইনার দিয়ে এসব রুটে সরাসরি ফ্লাইট পরিচালনা করা হবে। শাহ আমানত বিমানবন্দরের উইং কমান্ডার সারওয়ার জামান এটি নিশ্চিত করেন। জানা গেছে, প্রাথমিকভাবে চট্টগ্রাম-মদিনা-চট্টগ্রাম ফ্লাইটটি সপ্তাহের প্রতি বৃহস্পতিবার চলাচল করবে। ঢাকা-মদিনা ফ্লাইট সপ্তাহে তিন দিন (সোম, বুধ ও শনিবার) পরিচালিত হবে। বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ২৮ অক্টোবর মদিনা ফ্লাইট উদ্বোধন করবেন। এটি দুপুর ১টা ১৫ মিনিটে ছেড়ে মদিনার প্রিন্স মোহাম্মদ বিন আবদুল আজিজ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে স্থানীয় সময় বিকাল সাড়ে ৫টায় পৌঁছাবে। সেখান থেকে স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৭টা ১৫ মিনিটে ফ্লাইটটি ছেড়ে পরের দিন ঢাকায় ভোর ৪টা ২৫ মিনিটে অবতরণ করবে। একই সময়সূচিতে চট্টগ্রাম শাহ আমানত বিমানবন্দর থেকে চট্টগ্রাম-মদিনা ফ্লাইটটি পরিচালিত হবে। বিমান জানিয়েছে, বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের ঢাকা-মদিনা রুটে ফ্লাইট চালু হচ্ছে। এই ফ্লাইটের মাধ্যমে হজযাত্রী ও সৌদি প্রবাসীরা সবচেয়ে বেশি উপকৃত হবেন। এ বিষয়ে চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বাংলাদেশ বিমানের ভারপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপক আরিফুজ্জামান খান বলেন, এ রুট বিমানের ফ্লাইট চালু হলে সবচেয়ে বেশি উপকৃত হবেন সৌদি প্রবাসীরা। নতুন রুটে একজন যাত্রী চট্টগ্রাম থেকে সরাসরি মদিনা যেতে পারবেন আবার জেদ্দা হয়ে চট্টগ্রামে আসতে পারবেন। আর জেদ্দা গেলে মদিনা থেকে সরাসরি চট্টগ্রাম পৌঁছাতে পারবেন।
উপমহাদেশের সাংবাদিকতার পথিকৃৎ ছিলেন মাওলানা মনিরুজ্জামান ইসলামাবাদী
২৬অক্টোবর,শনিবার,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম:উপমহাদেশের মহান বিপ্লবী স্বাধীনতা সংগ্রামী সাংবাদপত্রের সম্পাদক ও সাংবাদিকতার পথিকৃৎ, সাহিত্যিক, দার্শনিক, লেখক, গবেষক, রাজনীতিবিদ ও চিন্তাবিদ মাওলানা মনিরুজ্জামান ইসলামাবাদী। জাতির এক ক্রান্তিলগ্নে অবিস্মরণীয় ভূমিকায় অবতীর্ণ হন তিনি। সাহিত্য, রাজনীতি, সাংবাদিকতা ও সমাজসেবার ক্ষেত্রে যিনি অপরিসীম অবদান রেখেছেন, তাকে ভূলে যাওয়া মানে ইতিহাসের একটি অধ্যায়কে ভুলে যাওয়া। বক্তারা আরো বলেন মাওলানা মনিরুজ্জামান ইসলামাবাদী চট্টল গৌরব, ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনের অন্যতম নেতা, বঙ্গীয় আইন পরিষদের সদস্য, সাংবাদিক, সাহিত্যিক ও সমাজ সংস্কারক। তিনি সাহিত্যে সাধনা ও সমাজসেবা করে গিয়েছেন আমৃত্যু। তাঁর শেষ কাজ ছিল চট্টগ্রামে একটি এতিমখানা স্থাপন। তিনি আরবী বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য দেয়াং পাহাড়ের বিতৃত জমিও সংগ্রহ করেছিলেন। তাঁর আজীবন স্বপ্ন ছিল দেয়াং পাহাড়ে একটি জাতীয় আরবী বিশ্ববিদ্যালয় গড়ে তোলা। তিনি আরব বিশ্বের বিখ্যাত ফারসি ভাষার পত্রিকা হাবলুল মতিন এর বাংলা সংস্করণ সম্পাদনার দায়িত্ব পালন করেন। ২৫ অক্টোবর শুক্রবার বিকাল ৪ ঘটিকায় অনলাইন নিউজ পোর্টাল পরিস্থিতি২৪ডটকম এর ৭ম বর্ষ পূর্তিতে পরিস্থিতি সমাজ উন্নয়ন সংস্থার আয়োজনে মাওলানা মনিরুজ্জামান ইসলামাবাদীর ৬৯তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা নগরীর হোটেল এশিয়ান এস.আর. এর ব্যান্কুইট হলে অনুষ্ঠিত হয়। পরিবেশবিদ ও পরিস্থিতি২৪ডকটমর সম্পাদক এ. কে. এম. আবু ইউসুফের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বরেণ্য সমাজবিজ্ঞানী-শিক্ষাবিদ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী। প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষাবিদ ও পরিবেশবিদ লায়ন অধ্যক্ষ ড. মোহাম্মদ সানাউল্লাহ। বিশেষ আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ব্যাংকার দুলাল কান্তি বড়য়া, চট্টগ্রাম গণ-অধিকার ফোরামের মহাসচিব এম এ হাশেম রাজু, ফুলকলি ফুড প্রোডাক্টসর জিএম এম এ সবুর, টিআই (অ্যাডমিন) বন্দর বিভাগ এস এম শওকত হোসেন, নাট্যজন সজল চৌধুরী। সংগঠক ও সাংবাদিক স ম জিয়াউর রহমানের সঞ্চালনায় সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এনবি গ্রপের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোহাম্মদ মহিউদ্দিন, বাপউসর কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক ডা. মোহাম্মদ জামাল উদ্দিন, সাংবাদিক-প্রাবন্ধিক নুর মোহাম্মদ রানা, বাউপসর সহ-সভাপতি আলাউদ্দিন চৌধুরী মোর্শেদ, শিক্ষাবিদ বাবু মিন্টু কুমার দাশ, মনসুরুল হাসান জিয়া, লাবিব মার্কেটিং কোম্পানির ডাইরেক্টর এরশাদ হোছাইন, শিক্ষাবিদ শওকতুল ইসলাম। এতে আরো উপস্থিত ছিলেন আলোকচিত্রী ওচমান জাহাঙ্গীর, লায়ন ডা. বরুণ কুমার আচার্য বলাই, প্রাবন্ধিক আবদুল্লাহ মজুমদার, রোটারিয়ান ডা. মনির আজাদ, আবদুল্লাহ আল মুরাদ, সাংবাদিক রাজীব চক্রবর্তী, এস ডি জীবন, আবদুর রাজ্জাক, অনুতোষ দত্ত বাবু, কবি নাছির বিন ইব্রাহিম, সাংবাদিক তৌহিদুর রহমান, ইউসুফ জালাল, রোকন উদ্দিন আহমদ, ডা. অনিল কান্তি বড়য়া, ডা. মিলন বারিকদার, সুরেশ দাশ, সমীর দাশ, সমীরন পাল, এহছান উল্লাহ, বাপ্পী, সাথী কামাল, রিদুয়ানুল হক জিদান প্রমুখ। উক্ত অনুষ্ঠানে বক্তারা আরো বলেন, ইন্টারনেট প্রযুক্তির উৎকর্ষ সাধনে এবং এর প্রভাবে অনলাইন গণমাধ্যমগুলোর বিকাশের পথ সুগম হয়েছে। যার ফলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বপ্নের ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণ আরো সহজ ও গতিশীল হয়েছে। অনলাইন গণমাধ্যমগুলোকে নিবন্ধনের আওতায় এনে সুনির্দিষ্ট নীতিমালায় পরিচালিত করা এখন সময়ের দাবি।
কর্ণফুলীতে ভিবিডি চট্টগ্রামের পরিস্কার অভিযান সম্পন্ন
২৬অক্টোবর,শনিবার,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম:পরিবেশ দূষণের বিরূপ প্রভাব থেকে নদীকে রক্ষা করতে এবং জনগণকে সচেতন করার লক্ষ্যে কর্ণফুলী নদীর পাড়ের ফিশারিঘাট এলাকাটিতে পরিস্কার অভিযান সম্পন্ন করেছে ভলান্টিয়ার ফর বাংলাদেশ চট্টগ্রাম জেলা। প্রবাহমান কর্নফুলী, সমৃদ্ধশালী চট্টগ্রাম নামে ভিবিডি চট্টগ্রাম জেলার এই সচেতনতামূলক পরিচ্ছন্নতা অভিযানে আজ ২৫শে অক্টোবর (শুক্রবার) নগরীর বিভিন্ন সরকারী এবং বেসরকারী স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় ৩০০ ভলান্টিয়ার অংশগ্রহণ করেন। পাঁচটি দলে ভলান্টিয়াররা সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে জাতীয় সংগীত গাওয়ার মাধ্যমে ইভেন্টের শুভারম্ভ করা হয়। এরপরই ভলান্টিয়াররা তাদের চারপাশ যথাসম্ভব পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রেখে সর্বোপরি একটি সুন্দর ও দূষণমুক্ত দেশ গঠনে নিজ নিজ জায়গা থেকে ভূমিকা রাখবেন এই মর্মে শপথবাক্য পাঠ করেন। এরপরই দলবদ্ধভাবে ভলান্টিয়াররা কর্ণফুলী নদীর ফিশারীঘাট সংলগ্ন পুরো এলাকা পরিস্কার অভিযানে নামেন এবং সংশ্লিষ্ট এলাকার জনগণদের নদী বাঁচাতে এগিয়ে আসতে সচেতন করেন। ভিবিডি চট্টগ্রামের বৃহৎ এই ইভেন্টের সার্বিক সহযোগিতার মাধ্যমে উপস্থিত ছিলেন ৩৩নং, ৩২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আলহাজ্ব হাসান মুরাদ বিপ্লব, জহুর লাল হাজারী, চট্টল অধিকার ফোরামের মো: কায়সার আলী চৌধুরী, ভিবিডি ন্যাশনাল বোর্ডের সাংগঠনিক সম্পাদক সোমেন বড়ুয়া পান্ডু, ভিবিডি চট্টগ্রাম বিভাগের সহ-সভাপতি রাশেদ হোসাইন, সাংগঠনিক সম্পাদক শওকত আরাফাত, গত বিভাগীয় বোর্ডের সাংগঠনিক সম্পাদক রিফাত সামির ও মো: ফারুক রেডিও পার্টনার হিসেবে ছিলেন রেডিও ফুর্তি ৮৮এফএম, সার্বিক সহযোগিতায় চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন। বৃহৎ এই ইভেন্টের সার্বিক দায়িত্বে ছিলেন ভিবিডি চট্টগ্রাম জেলা বোর্ডের সভাপতি জিয়াউল হক সোহেল, সহ-সভাপতি কামরুজ্জামান জিয়াদ, সাধারণ সম্পাদক কাউসার হোসাইন, মানবসম্পদ কর্মকর্তা সৌরভ বড়ুয়া, কোষাধ্যক্ষ রেবেকা খানম এবং জনসংযোগ কর্মকর্তা সুকান্ত মিত্র। কমিটি মেম্বার নাবেদ নেওয়াজ, আসিফ খান, মো: মামুন, মো: রাবি, প্রজেক্ট লিডার হিসেবে মোঃ আকিবুর রহমান এবং কো-লিডার হিসেবে ছিলেন উৎস দাশ শুভ্র, টিম লিডার তাসনিয়া মজুমদার দ্যুতি, সামিয়া হক, সুজয় বড়য়া, মো: শাহরিয়ার, পারমিতা পদ্ম।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর