রবিবার, এপ্রিল ৫, ২০২০
চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের নির্বাচন আগামি ৩০জানুয়ারি
০৯জানুয়ারী,বৃহস্পতিবার,কমল চক্রবর্তী,বিশেষ প্রতিনিধি,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম:চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়ন-সিইউজের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচনের তফসিল ঘোষনা করা হয়েছে। নির্বাচনী তফসিল অনুযায়ী আগামি ৩০জানুয়ারি বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা থেকে বিরতীহীন ভাবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত এই ভোট গ্রহণ করা হবে। গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় নির্বাচন পরিচালনা কমিটি সভাপতি জসীম চৌধুরী সবুজের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সভায় অনান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য মোহাম্মদ নিযাম উদ্দিন, মুহাম্মদ মোরশেদ আলম, মুহাম্মদ শামসুল হক, মোহাম্মদ মামুনুর রশীদ। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ি: মনোনয়নপত্র সরবরাহ করা হবে ১৫ ও ১৬ জানুয়ারি, সকাল ১১টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। মনোনয়নপত্র জমা ১৭ জানুয়ারি, সকাল ১১টা থেকে বিকেল-৪টা পর্যন্ত। মনোনয়নপত্র বাছাই ও খসড়া তালিকা প্রকাশ ১৮ জানুয়ারি। মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার ২০ জানুয়ারি, সকাল ১১টা থেকে বিকেল-৪টা পর্যন্ত, চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা প্রকাশ ২১ জানুয়ারি,এবং ভোট গ্রহণ-৩০ জানুয়ারি ২০২০ সকাল ৯টা থেকে বিরতিহীনভাবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। এর আগে বৃহস্পতিবার বিকেলে চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়ন কার্যালয়ে আয়োজিত অনুষ্ঠানে নির্বাচন পরিচালনা কমিটির চেয়ারম্যান জসীম চৌধুরী সবুজ চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি নাজিমুদ্দীন শ্যামল এবং সাধারণ সম্পাদক হাসান ফেরদৌসর কাছ থেকে এই দায়িত্ব বুঝে নেন। এসময় নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য মোহাম্মদ নিজাম উদ্দিন, মুহাম্মদ শামসুল হক, মুহাম্মদ মোরশেদ আলম, মামুনুর রশীদ। নির্বাহী পরিষদের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, সিনিয়র সহসভাপতি, সহসভাপতি, যুগ্ম সম্পাদক, অর্থ সম্পাদক, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক, নির্বাহী পরিষদের একটি সদস্যপদ সহ মোট ৯(নয়)টি পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। মোট ৪০৪জন সদস্য নির্বাচনে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।
নগরীর পাহাড়তলী এলাকায় ৩৯৪ বোতল ফেন্সিডিলসহ ১জনকে আটক করছে Rab
০৯জানুয়ারী,বৃহস্পতিবার,কমল চক্রবর্তী,বিশেষ প্রতিনিধি,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম নগরীর পাহাড়তলী থানাধীন সরাইপাড়া এলাকা থেকে ৩৯৪ বোতল ফেন্সিডিলসহ কাজী আবদুল আলিম (৩৭) নামে এক মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে Rab-7। এসময় মাদক পরিবহনে ব্যবহৃত একটি প্রাইভেট কার জব্দ করা হয়। আজ বৃহস্পতিবার ৯ জানুয়ারি বিকেল ৩টার দিকে পাহাড়তলী থানাধীন সরাইপাড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে থেকে ৩৯৪ বোতল ফেন্সিডিলসহ কাজী আবদুল আলিম(৩৭) নামে এক মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করা হয়েছে বলে জানান Rab-7 এর সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) এএসপি মো. মাহমুদুল হাসান মামুন। গ্রেফতারকৃত কাজী আবদুল আলিম (৩৭) ফেনী জেলার ফেনী সদর থানাধীন ইলাসপুর(মান্নান মিয়া কাজী বাড়ী) গ্রামের কাজী আবদুল মান্নান এর ছেলে। Rab-7 এর সহকারী পরিচালক এএসপি কাজী মোহাম্মদ তারেক আজিজ জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আমরা জানতে পারি যে, ফেনী থেকে কতিপয় মাদক ব্যবসায়ী প্রাইভেট কার যোগে মাদকদ্রব্য নিয়ে চট্টগ্রামের দিকে আসছে। এমন তথ্যের ভিত্তিতে আজ Rab-7 এর একটি টহল দল নগরীর পাহাড়তলী থানাধীন সড়াইপাড়া এলাকার জাহানারা মেকানিক্যাল ওয়ার্কশপ এর সামনে চেকপোস্ট বসিয়ে তল্লাশী চালায়। এ সময় সন্দেহ জনক গতিবিধির একটি প্রাইভেট কার তল্লাশী করে প্রাইভেট কারের ভিতর সুকৌশলে লুকানো ৩৯৪ বোতল ফেন্সিডিলসহ কাজী আবদুল আলিম (৩৭) কে আটক করা হয়। প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন শেষে তাকে পাহাড়তলী থানায় হস্তান্তর করা হবে। তিনি আরো জানান, জব্দকৃত মাদক দ্রব্যের আনুমানিক মুল্য ৫ লক্ষ ৯১ হাজার টাকা ও জব্দকৃত প্রাইভেট কারের মুল্য ২০ লক্ষ টাকা। Rab-7 এর অপারেশন অফিসার এএসপি মো. মাশকুর রহমান জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে নগরীর পাহাড়তলী থানাধীন সড়াইপাড়া এলাকার জাহানারা মেকানিক্যাল ওয়ার্কশপ এর সামনে চেকপোস্ট বসিয়ে তল্লাশী চালায় Rab-7 এর একটি দল। এ সময় সন্দেহ জনক গতিবিধির একটি প্রাইভেট কার তল্লাশী করে প্রাইভেট কারের ভিতর সুকৌশলে লুকানো ৩৯৪ বোতল ফেন্সিডিলসহ কাজী আবদুল আলিম (৩৭) কে আটক করা হয়। তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন শেষে তাকে পাহাড়তলী থানায় হস্তান্তর করা হবে।
নগরীর পাহাড়তলী এলাকায় ৩৯৪ বোতল ফেন্সিডিলসহ ১জনকে আটক করছে Rab
০৯জানুয়ারী,বৃহস্পতিবার,কমল চক্রবর্তী,বিশেষ প্রতিনিধি,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম নগরীর পাহাড়তলী থানাধীন সরাইপাড়া এলাকা থেকে ৩৯৪ বোতল ফেন্সিডিলসহ কাজী আবদুল আলিম (৩৭) নামে এক মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে Rab-7। এসময় মাদক পরিবহনে ব্যবহৃত একটি প্রাইভেট কার জব্দ করা হয়। আজ বৃহস্পতিবার ৯ জানুয়ারি বিকেল ৩টার দিকে পাহাড়তলী থানাধীন সরাইপাড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে থেকে ৩৯৪ বোতল ফেন্সিডিলসহ কাজী আবদুল আলিম(৩৭) নামে এক মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করা হয়েছে বলে জানান Rab-7 এর সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) এএসপি মো. মাহমুদুল হাসান মামুন। গ্রেফতারকৃত কাজী আবদুল আলিম (৩৭) ফেনী জেলার ফেনী সদর থানাধীন ইলাসপুর(মান্নান মিয়া কাজী বাড়ী) গ্রামের কাজী আবদুল মান্নান এর ছেলে। Rab-7 এর সহকারী পরিচালক এএসপি কাজী মোহাম্মদ তারেক আজিজ জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আমরা জানতে পারি যে, ফেনী থেকে কতিপয় মাদক ব্যবসায়ী প্রাইভেট কার যোগে মাদকদ্রব্য নিয়ে চট্টগ্রামের দিকে আসছে। এমন তথ্যের ভিত্তিতে আজ Rab-7 এর একটি টহল দল নগরীর পাহাড়তলী থানাধীন সড়াইপাড়া এলাকার জাহানারা মেকানিক্যাল ওয়ার্কশপ এর সামনে চেকপোস্ট বসিয়ে তল্লাশী চালায়। এ সময় সন্দেহ জনক গতিবিধির একটি প্রাইভেট কার তল্লাশী করে প্রাইভেট কারের ভিতর সুকৌশলে লুকানো ৩৯৪ বোতল ফেন্সিডিলসহ কাজী আবদুল আলিম (৩৭) কে আটক করা হয়। প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন শেষে তাকে পাহাড়তলী থানায় হস্তান্তর করা হবে। তিনি আরো জানান, জব্দকৃত মাদক দ্রব্যের আনুমানিক মুল্য ৫ লক্ষ ৯১ হাজার টাকা ও জব্দকৃত প্রাইভেট কারের মুল্য ২০ লক্ষ টাকা। Rab-7 এর অপারেশন অফিসার এএসপি মো. মাশকুর রহমান জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে নগরীর পাহাড়তলী থানাধীন সড়াইপাড়া এলাকার জাহানারা মেকানিক্যাল ওয়ার্কশপ এর সামনে চেকপোস্ট বসিয়ে তল্লাশী চালায় Rab-7 এর একটি দল। এ সময় সন্দেহ জনক গতিবিধির একটি প্রাইভেট কার তল্লাশী করে প্রাইভেট কারের ভিতর সুকৌশলে লুকানো ৩৯৪ বোতল ফেন্সিডিলসহ কাজী আবদুল আলিম (৩৭) কে আটক করা হয়। তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন শেষে তাকে পাহাড়তলী থানায় হস্তান্তর করা হবে।
মোছলেম উদ্দিনের সমর্থনে কফিল উদ্দিনের গণসংযোগ
০৯জানুয়ারী,বৃহস্পতিবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম-৮ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মোছলেম উদ্দিন আহমদের সমর্থনে গত ৭ জানুয়ারি মঙ্গলবার সকালে গণসংযোগ করেছেন পাঁচলাইশ ৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিল আলহাজ্ব কফিল উদ্দিন খাঁন। তিনি পাঁচলাইশ ওয়ার্ডের পূর্ব শহীদ নগর, পশ্চিম শহীদ নগর, চালিতাতলী, শীলবাড়ীসহ বিভিন্ন এলাকায় ব্যাপক গণসংযোগ করেন। গণসংযোগকালে তিনি সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করার আহবান জানান। তিনি আগামী ১৩ জানুয়ারি উপ-নির্বাচনে চট্টগ্রাম-৮ আসনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মনোনীত প্রার্থী সংগ্রামী নেতা মুক্তিযোদ্ধা মোসলেম উদ্দিন আহমদকে নৌকা প্রতীকে বিজয়ী করতে তিনি এলাকাবাসীকে অনুরোধ জানান। এসময় উপস্থিত ছিলেন অধ্যাপক সিরাজুল আলম, মো. জাহাঙ্গীর আলম সর্দ্দার, মো. আব্দুর রহিম, মো, আলমগীর হোসেন, মো. শরীফ, মো. লোকমান, মো. শাকিল আহমেদ, সোনা মিয়া, মো. ইয়াকুব লেদু, ফজল কাদের চৌধুরী সর্দ্দার, শওকত আলী সোহেল, মো. আইয়ুব আলী রুবেল, এস.এম দিদারুল আলম, মামুনুর রশিদ মামুন, মো. সেলিম, মো. মাহবুব আলম, শাহ মনজুর আলম, মো. সালাউদ্দীন, মো. মোরশেদ আলম, ফরহাদ হাসান সয়ন, মো. মহিন উদ্দীন, রাশেদুল ইসলাম আরমান, মো. জুবাইর হোসেন, মো. এরশাদ, মো. রিপন, রাজু দাশ, নিমাই দাশ, মো. সোহেল, জিয়া উদ্দিন বাবলু, মো. আরিফুল ইসলাম আরিফ, মো. ফয়সাল, মো. সাকিব প্রমুখ।- প্রেস বিজ্ঞপ্তি
চট্টগ্রাম- ৮ উপ-নির্বাচন: নৌকার পক্ষে মোহরা ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের গণসংযোগ
০৮জানুয়ারী,বুধবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: গত ৫ জানুয়ারি রবিবার নগরীর ৫নং মোহরা ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের উদ্যোগে চট্টগ্রাম- ৮ উপ-নির্বাচনে নৌকা প্রার্থী মোছলেম উদ্দিন আহমদের সমর্থনে এক গণসংযোগ কামাল বাজার, কাজির হাট, চর রাঙ্গামাটিয়া ও আশেপাশের বিভিন্ন এলাকা পদক্ষিণ করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন- মহানগর আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আলহাজ্ব খোরশেদ আলম সুজন, সাংস্কৃতিক সম্পাদক আবু তাহের, ক্রিড়া সম্পাদক মোঃ দিদারুল আলম, শিক্ষা ও মানব বিষয়ক সম্পাদক জালাল উদ্দিন ইকবাল, আওয়ামীলীগ নেতা মোঃ ঈসা, দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি পটিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান মোতাহেরুল ইসলাম, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডাঃ তিমির বরণ চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক রাসেদ মনোয়ার, দেবব্রত দাশ, পটিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও পটিয়া পৌর মেয়র অধ্যাপক হারুনুর রশিদ, মোহরা ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের আহব্বায়ক মোঃ রফিকুল আলম, যুগ্মআহব্বায়ক মোঃ নাজিম উদ্দিন চৌধুরী, মোঃ জসিম উদ্দিন, খালেদ হোসেন মাসুক, মোহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন, অমিত চৌধুরী, সমীরন মলিক, মিশু চৌধুরী, টুটুল নাথ, শুভ নাথ, আসফাক খাঁন, সমীরন পাল। আরো উপস্থিত ছিলেন পটিয়া, বোয়ালখালী, মোহরা ওয়ার্ডের আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ, শ্রমিকলীগ ওছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ। গণসংযোগকালে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে মহানগর আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আলহাজ্ব খোরশেদ আলম সুজন বলেন, মুক্তিযোদ্ধা মোছলেম উদ্দিন আহমদকে চট্টগ্রাম-৮ আসনের উপ-নির্বাচনে আগামী ১৩ জানুয়ারি নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করে কালুরঘাট সেতু নির্মাণসহ জনগণের সেবা করার সুযোগ দেওয়ার আহব্বান জানান।- প্রেস বিজ্ঞপ্তি
চট্টগ্রাম-কলকাতা পরীক্ষামূলক ট্রান্সশিপমেন্ট এ মাসেই: বন্দর চেয়ারম্যান
০৭জানুয়ারী,মঙ্গলবার,ষ্টাফ রিপোর্টার,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: ভারতকে ট্রান্সশিপমেন্ট সুবিধা দিতে চট্টগ্রাম বন্দর প্রস্তুত রয়েছে জানিয়ে বন্দর চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল জুলফিকার আজিজ বলেছেন, এ মাসেই দুই দফা পরীক্ষামূলক (ট্রায়াল রান) ট্রান্সশিপমেন্ট হবে। মঙ্গলবার দুপুরে বন্দর ভবনে গণমাধ্যমকর্মীদের সাথে মতবিনিময় সভায় তিনি বলেন,বন্দরের পক্ষ থেকে আমরা প্রস্তুত। আমাদের যথেষ্ট সক্ষমতা আছে। যদি জাহাজ আসে আমরা সেবা দিতে পারব। অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বার্থিং দেয়া বা স্পেশাল এরিয়া থাকবে কিনা সেটা নির্ভর করবে চুক্তির উপর। আমাদের জানানো হলে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে পারব। জানুয়ারিতেই দুটি ট্রায়াল রান হবে চট্টগ্রাম বন্দর ও ক্যালকাটা বন্দরের মধ্যে। তারপরে রেগুলার রান হবে। ট্রান্সশিপমেন্টের ট্যারিফ (মাশুল) বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সরকার নির্ধারিত যেটা সেটাই হবে। বন্দর সম্প্রসারণের বিষয়ে চেয়ারম্যান বলেন, ২০১৩ সালে একটা স্ট্র্যাটেজিক মাস্টারপ্ল্যান করা হয়। সেটা পরবর্তী ৩০ বছরের জন্য, ২০৪৩ সাল পর্যন্ত। তখন কন্টেইনার হ্যান্ডলিং ১৪ মিলিয়ন টিইইউএস (টোয়েন্টিফিট ইক্যুভেলেন্ট ইউনিট, প্রতিটি ২০ ফুট দৈর্ঘ্যের কন্টেইনার) হবে। আমরা এখন ৩ মিলিয়ন ক্লাবে। আরো ১১ মিলিয়ন টিইইউএস বাড়বে। যতই সম্প্রসারণ করি চট্টগ্রাম বন্দরে ৪ মিলিয়ন টিইইউএস এর বেশি হ্যান্ডলিং করতে পারব না। এজন্য আমরা বে টার্মিনাল ও মাতারবাড়ি করছি। তখন বঙ্গবন্ধু শিল্পনগরও ছিল না। এখন আরেকটা প্ল্যান করা হচ্ছে সারাদেশে কি পরিমাণ ট্রেড হবে সেটাসহ যোগ করে। বে-টার্মিনালের বিষয়ে জুলফিকার আজিজ লিখিত বক্তব্যে বলেন, ২০২৫ সালের মধ্যে বে-টার্মিনালের দেড় হাজার মিটার মাল্টিপারপাস টার্মিনাল এবং ১২২৫ ও ৮৩০ মিটার দৈর্ঘ্যের দুটি কন্টেইনার টার্মিনাল নির্মাণের লক্ষ্যে কাজ চলছে। এখন জোয়ারের সময় গড়ে চার ঘণ্টায় সাড়ে নয় মিটার ড্রাফটের (জাহাজের পানির নিচে থাকা অংশের গভীরতা) ও সর্বোচ্চ ১৯০ মিটির দৈর্ঘ্যের জাহাজ দিন-রাত ভিড়ানোর সুযোগ থাকবে। কর্ণফুলী নদীর দূষণ নিয়ন্ত্রণের বিষয়ে প্রশ্নে জুলফিকার আজিজ বলেন, দূষণ নিয়ন্ত্রণে ফ্লোটিং গার্বেজ (ভাসমান আর্বজনা) নিয়ন্ত্রণে চীন থেকে বিশেষ নৌকা আনা হবে। মোহনায় দুইটা এবং সদরঘাটে দুইটা রাখব। যাতে ময়লা না পড়ে নদীতে। ড্রেজিং চলমান প্রক্রিয়া। কর্ণফুলীতে নরমাল ড্রেজিং সম্ভব না। গ্র্যাব দিয়ে ট্রায়াল করা হচ্ছে। সফল হলে আরো গ্র্যাব দিয়ে কাজ করা হবে। কর্ণফুলীর অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের বিষয়ে হাই কোর্টে তলবের বিষয়ে জানতে চাইলে বন্দর চেয়ারম্যান বলেন,উচ্ছেদ অভিযান চলমান প্রক্রিয়া। প্রস্তুতি নিয়ে আবার উচ্ছেদ হবে। যতটুকু দখলে ছিল তার ৩০ শতাংশ আমরা উচ্ছেদ করেছি। বাকিটা ধীরে ধীরে করব। নতুন ধাপের জন্য পরিকল্পনা করছি। আবারো ২৫-৩০ শতাংশ উচ্ছেদ একসাথে করবে। উচ্ছেদ থেমে নেই। স্ক্যানিং মেশিন বন্দর না কাস্টমস কিনবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, কাস্টমস নতুন দুটি স্ক্যানিং মেশিন স্থাপন শেষ করেছে। আমদানি-রপ্তানি কার্গো এগুলো দিয়ে স্ক্যান করতে পারবে। আইএসপিএসর চাহিদা- রপ্তানি কার্গো স্ক্যান করা। আমরাও কয়েকটা স্ক্যানিং মেশিন কিনব। বন্দর সম্প্রসারণে বিভিন্ন প্রকল্পের অগ্রগতি তুলে ধরে বন্দর চেয়ারম্যান বলেন, বছরে সাড়ে চার লাখ টিইইউএস কন্টেইনার হ্যান্ডলিং এর লক্ষ্যে নির্মিতব্য পতেঙ্গা কন্টেইনার টার্মিনালের (পিসিটি) প্রায় ৫২ শতাংশ কাঠামো সম্পন্ন হয়েছে। এখানে ছয়শ মিটার জেটিতে ১৯০ মিটার দৈর্ঘ্য ও সাড়ে ১০ মিটার ড্রাফটের তিনটি কন্টেইনারবাহী জাহাজ এবং ২২০ মিটার দৈর্ঘ্যের ডলফিন জেটিতে একটি তেলবাহী জাহাজ ভিড়বে। ব্যাকআপ ইয়ার্ড থাকবে প্রায় ১৬ একর, যেখানে সাড়ে চার হাজার টিইইউএস কন্টেইনার ধারণক্ষমতা থাকবে। মুজিববর্ষে পিসিটিতে অপারেশনাল কার্যক্রম শুরু করা যাবে। এক প্রশ্নে জবাবে তিনি বলেন,আপনারা লিখে নিয়ে যান, ২০২৫ সালে চট্টগ্রামে কোনো ট্রাক ঢুকবে না। চট্টগ্রাম বন্দর ও বে-টার্মিনালের মধ্যে আলাদা সংযোগ সড়ক হবে। কন্টেইনার বন্দর থেকে সেখানে চলে যাবে। বে-টার্মিনাল এলাকায় আট হাজার ট্রাক ধারণক্ষমতার টার্মিনাল হবে। সেখান থেকে ডেলিভারি হয়ে যাবে। এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণে বন্দরের পক্ষ থেকে কোনো বাধা নেই দাবি করে চেয়ারম্যান বলেন, আইএসপিএস (ইন্টারন্যাশনাল শিপ অ্যান্ড পোর্ট ফ্যাসিলিটি সিকিউরিটি) কোড আমাদের মানতে হয়। বন্দর সংলগ্ন সড়কে ট্রাক চলাচলে যেন কোনো বাধা না হয়। এলিভেটেড এক্সপ্রেস ওয়ের নিচের রাস্তা ট্রাক চলাচলের জন্য যেন কমে না যায়। এজন্য সংশ্লিষ্ট সংস্থাকে নতুন লে-আউট দিতে বলেছি। সেটা দিয়েছে। আমরা অনুমোদন করেছি। সে অনুযায়ী কন্সট্রাকশন ডিজাইন করা তাদের কাজ। লিখিত বক্তব্যে বন্দর চেয়ারম্যান জানান, ২০১৮ সালে চট্টগ্রাম বন্দরে ২৯ লাখ ৩ হাজার টিইইউএস কন্টেইনার ওঠানামা হয়, যা ২০২৯ সালে বেড়ে দাঁড়ায় ৩০ লাখ ৮৮ হাজার টিইইউএসে। এক্ষেত্রে প্রবৃদ্ধি ৬ দশমিক ৩৪ শতাংশ। পাশাপাশি কার্গো ওঠানামা হয় ১০ কোটি ৩০ লাখ মেট্রিক টন; প্রবৃদ্ধির হার ৭ দশমিক ০৩ শতাংশ। ২০১৮ সালে বন্দরে জাহাজ আসে ৩৭৪৭টি এবং ২০১৯ সালে জাহাজ আসে ৩৮০৭টি। মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন বন্দরের সদস্য জাফর আলম, কমডোর এম শফিউল বারী এবং ক্যাপ্টেন এম মহিদুল হাসানসহ শীর্ষ কর্মকর্তারা।
নগরবাসীর আস্থা অর্জনে সক্ষম হয়েছে মেট্রোপলিটন পুলিশ: খোরশেদ আলম সুজন
০৭জানুয়ারী,মঙ্গলবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: নগরীর আইন শৃংখলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক এবং ট্রাফিক ব্যবস্থায় শৃংখলা ফিরিয়ে নগরবাসীর আস্থা অর্জন করতে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ সক্ষম হয়েছে বলে মত প্রকাশ করেছেন জনদুর্ভোগ লাঘবে জনতার ঐক্য চাই শীর্ষক নাগরিক উদ্যোগের প্রধান উপদেষ্টা ও চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি খোরশেদ আলম সুজন। তিনি গত ৫ জানুয়ারী রবিবার বিকাল ৪ টায় পুলিশ সপ্তাহ ২০২০ উপলক্ষ্যে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের ভারপ্রাপ্ত পুলিশ কমিশনার এস এম মোস্তাক আহমেদ খান এর সাথে তার দপ্তরে ফুলেল শুভেচ্ছা বিনিময় কালে উপরোক্ত মত প্রকাশ করেন। এ সময় সুজন বলেন চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের প্রতিটি ইউনিট অত্যন্ত দক্ষতা, সাহসিকতা এবং পেশাদারিত্বের মনোভাব নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে। পুলিশের এ অগ্রযাত্রায় সর্বাত্নকভাবে সহযোগিতা করছে চট্টগ্রামের আপামর জনসাধারন। ইতিমধ্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে বর্তমান সরকার পুলিশ বাহিনীকে একটি উন্নততর বাহিনীতে রূপান্তরের লক্ষ্যে মেধা, মনন ও প্রশিক্ষণের সংমিশ্রণ ঘটিয়েছে। জনগনের যে কোন বিপদে আপদে পুলিশ বন্ধুর হাত বাড়িয়ে দিচ্ছে। স্থানীয় থানাগুলো জনগনের আশ্রয়কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে। আইন শৃংখলার পাশাপাশি নগরীর ট্রাফিক ব্যবস্থায় শৃংখলা ফিরিয়ে নিয়ে আসার লক্ষ্যে নানামূখী উদ্যোগ গ্রহণ করছে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের ট্রাফিক বিভাগ। জনাব সুজন নগরীর ট্রাফিক ব্যবস্থাকে সয়ংক্রিয় এবং আধুনিকায়ন করার উদ্যোগ গ্রহণ করার জন্য ভারপ্রাপ্ত পুলিশ কমিশনারকে অনুরোধ জানান। চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের ভারপ্রাপ্ত পুলিশ কমিশনার এস এম মোস্তাক আহমেদ খান নাগরিক উদ্যোগের নেতৃবৃন্দকে পুলিশ সপ্তাহ উপলক্ষ্যে শুভেচ্ছা বিনিময় করতে আসায় ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। তিনি বলেন চট্টগ্রামের আইন শৃংখলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখা এবং নগরবাসীর নিরাপত্তা বিধানে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের সকল সদস্য অত্যন্ত আন্তরিকতা এবং বিশ্বস্ততার সাথে তাদের উপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছে। সরকারের উন্নয়নের অগ্রযাত্রাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে দায়িত্বশীল ভমিকা রাখছে পুলিশের প্রতিটি সদস্য। সন্ত্রাস, দূর্নীতি এবং মাদকের বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান সবসময়ই অব্যাহত থাকবে বলে অঙ্গীকার করে ভারপ্রাপ্ত পুলিশ কমিশনার আরো বলেন সমাজের প্রতিটি স্তরে সুশাসন নিশ্চিত করাই পুলিশ বাহিনীর লক্ষ্য। এর আগে জনাব সুজন পুলিশ সপ্তাহ ২০২০ উপলক্ষ্যে ভারপ্রাপ্ত পুলিশ কমিশনার এস এম মোস্তাক আহমেদ খান কে নাগরিক উদ্যোগের পক্ষ থেকে ফুলেল শুভেচ্ছা অর্পন করেন। অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন এডিসি (নগর বিশেষ শাখা) কাজেমুর রশীদ কাজল, আব্দুর রহমান মিয়া, নাগরিক উদ্যোগের সদস্য সচিব হাজী মোঃ হোসেন, নুরুল কবির, মোরশেদ আলম, অনির্বাণ দাশ বাবু, রকিবুল আলম সাজ্জী প্রমুখ।-প্রেস বিজ্ঞপ্তি
সিএমপি'র ট্রাফিক বিভাগ কর্তৃক গৃহীত CLEAN ROAD FREE ROAD কার্যক্রমের উদ্বোধন
০৫জানুয়ারী,রবিবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: সিএমপি’র ট্রাফিক বিভাগের উদ্যোগে মহানগরীর রাস্তা অবৈধ দখলমুক্ত করন ও জনসাধারণের নির্বিঘ্নে চলাচল নিশ্চিত কল্পে সিএমপি'র ট্রাফিক বিভাগ কর্তৃক গৃহীত CLEAN ROAD FREE ROAD কর্মসূচির উদ্বোধন করা হয়। এই কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) এস এম মোস্তাক আহমেদ খান, বিপিএম, পিপিএম (বার)। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপ পুলিশ কমিশনার(ট্রাফিক উত্তর) শহীদুল্লাহ্, পিপিএম, অতিরিক্ত উপ পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক-দক্ষিণ) নাজমুল হাসান, অতিরিক্ত উপ পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক-উত্তর) ওয়াহিদুল হক চৌধুরী, সহকারী পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক-দক্ষিণ) সুলতান মাহমুদ খান, সহকারী পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক-উত্তর) মিজানুর রহমান, টিআই (প্রশাসন) মহিউদ্দিন খান, টিআই (চান্দগাঁও) প্রশাস্ত কুমার দাশ, টিআই (খুলশী) জসীম উদ্দিন, টিআই (চকবাজার) গোলাম জাকারিয়া, টিআই (বায়েজিদ) মোঃ শহিদুল ইসলাম সহ ট্রাফিক উত্তর বিভাগের সকল উদ্ধর্তন কর্মকর্তাগণ। চট্রগ্রাম সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব গোলাম রাসুল বাবুল, কালুরঘাট বাস সমিতির সাধারণ সম্পাদক অনু কাদেরী, সিটি সার্ভিস ওনার্স এর যুগ্ম সম্পাদক জাফর আহম্মদ সহ পরিবহন মালিক ও শ্রমিক সংঘঠনের বিপুল সংখ্যক প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন। বহদ্দারহাট মোড়ে আয়োজিত এই উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) মোস্তাক আহমেদ, বিপিএম, পিপিএম (বার) অবৈধ রাস্তা দখলকারীকে স্বেচ্ছায় রাস্তা ছেড়ে চলে যেতে বলেন, অন্যথায় তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে সাবধান করে দেন। জনসাধারণ এই উদ্যোগ কে সাধুবাদ জানায়।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর