পূর্বাশার আলোর ১৭ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে প্রতিবন্ধীদের মাঝে হুইল চেয়ার বিতরণ
২৫,অক্টোবর,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী আদর্শ শিশু কিশোর সংগঠন পূর্বাশার আলোর ১৭ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বিশেষভাবে অক্ষম শিশুদের মাঝে হুইল চেয়ার বিতরণ অনুষ্ঠান নগরীর স্টেডিয়ামস্থ জিমনেশিয়ামে অনুষ্ঠিত হয়। পূর্বাশার আলোর কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ইফতেখার সাইমুন এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অথিতি হিসেবে উপস্থিত থেকে প্রতিবন্ধী শিশুদের হুইল চেয়ার তুলে দেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দিন। এসময় উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক আদিল কবির,পূর্বাশার আলো দক্ষিণ জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম শিকদার,কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক আবু জুবাইর রিয়াজ,কেন্দ্রীয় কমিটির অর্থ সম্পাদক মো. আরিফুল হোসাইন, কেন্দ্রীয় কমিটির সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক মো: সোহেল রানা প্রমুখ প্রধান অতিথী বলেন, পূর্বাশার আলো প্রতিষ্ঠালগ্ন হতে মানবতার কল্যানে কাজ করে যাচ্ছে। গরীব এতিমদের কল্যানে সকলকে এগিয়ে আসার আহবান জানান তিনি। পূর্বাশার আলো তাদের ১৭ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে সপ্তাহ ব্যাপী শিশু কিশোরদের নিয়ে নানান কর্মসূচি হাতে নিয়েছে।
শাহ আমানতে বিদেশী অর্থসহ ২ যাত্রী আটক
২৫,অক্টোবর,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে দুবাইগামী দুই যাত্রীকে ৪১ লাখ ২ হাজার ৪৮৪ টাকা সমপরিমাণ বিদেশি অর্থসহ আটক করেছে এনএসআই টিম। বৈধভাবে পাসপোর্টে এ টাকা এনডোসমেন্ট না করে অর্থপাচার অভিযোগে তাদের আটক করা হয়। শনিবার (২৪ অক্টোবর) সন্ধ্যায় বিমানবন্দরের নিচতলার ৭ নম্বর গেইটে ও দোতলার ডিপার্চার এ দুই জনকে তল্লাশি করে আটক করা হয়। তারা দুইজনই দুবাইগামী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বিজি-১৪৭ ফ্লাইটের যাত্রী ছিলেন। আটককৃতরা হলেন- নূর কামাল ও ইমরান হোসেন। কামালের বাড়ি আনোয়ারা উপজেলায়। ইমরানের বাড়ি ফেনী জেলায়। বিমানবন্দর সূত্রে জানা গেছে, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলার নূর কামালকে আটক করা হয় দোতলার ডিপার্চার লাউঞ্জ থেকে। তার কাছে ২৮ লাখ ৪৩ হাজার ৯৬১ টাকার সমপরিমাণ ওমান ও আরব আমিরাতের অর্থ পাওয়া যায়। আরেকজন যাত্রী ফেনীর ছাগলনাইয়ার ইমরান হোসেন নামের এক যাত্রীকে নিচতলার ৭ নম্বর আন্তর্জাতিক গেইট থেকে আটক করা হয়। তার কাছে ১২ লাখ ৫৮ হাজার ৫২৩ টাকার সমপরিমাণ ওমান, সৌদি, কুয়েত ও আরব আমিরাতের মুদ্রা পাওয়া যায়। এসব মুদ্রার বিপরীতে পাসপোর্টে এনডোসমেন্ট ছিল না। দুইযাত্রীর যাত্রা বাতিল করে তাদের আটক করা হয়। পরবর্তীতে তাদের বিমানবন্দরে দায়িত্বরত কাস্টমস ইন্টেলিজেন্সের কাছে সোপর্দ করা হয়। উল্লেখ্য, একজন যাত্রী বৈধভাবে পাসপোর্টে এনডোসমেন্ট করে ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত বিদেশে নিতে পারেন।
অপরাধী ছেলেকে পুলিশের হাতে দিলেন মা
২৫,অক্টোবর,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সাধারণত ছেলে যতই অপরাধী হোক মা ছেলেকে ঢাল হিসেবে আগলে রাখেন। তবে অনেক ক্ষেত্রে আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল মায়ের আচরণ আবেগকে পরাজিত করে। তেমনই এক মা নিজ ছেলেকে মোটরসাইকেল চুরির দায়ে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছেন। ঘটনার বর্ণনা দিয়ে সিএমপির কোতোয়ালী থানার ওসি মোহাম্মদ মহসীন জানান, গতকাল শুক্রবার রাত সাড়ে ৮ টার দিকে রিয়াজউদ্দিন বাজার তামাকুমন্ডি লেইনের বিপরীত পাশে পার্ক করে তালা মেরে মোবাইল মেরামত করতে যান জনৈক মোহাম্মদ আশফাক হোসেন। কিছুক্ষণ পর এসে দেখেন তার মোটরসাইকেলটি নেই। অনেক খোঁজাখুঁজির পর জানতে পারেন, কোন এক ছেলে এসে তার নিজের মোটরসাইকেল বলে তা রিক্সায় উঠে নিয়ে গেছে। হতভম্ব হয়ে আশফাক হোসেন তাৎক্ষণিকভাবে ছুটে যান টিম কোতোয়ালির একটি টহল দলের কাছে। সেখানে টহল টিমের দায়িত্বে থাকা সাব-ইন্সপেক্টর মনজুরুল আলম ভূঞাঁ ঘটনা শুনে কালবিলম্ব না করে ছুটে যান টিম কোতোয়ালির মশাল হাতে আশাহতের আশার আলো হয়ে। এরপর সম্ভাব্য সব জাগায় খোঁজাখুঁজির পর পুলিশকে দেখে এক যুবক জানান, একটি মোটরসাইকেলকে রিক্সায় করে আসকার দিঘীর পাড় এলাকায় নিয়ে যেতে দেখেছেন এক কিশোরকে। এ সংবাদে অভিযানে আসে এক নতুন মাত্রা ও গতি। সংবাদের ভিত্তিতে আসকার দিঘীর দক্ষিণ পাড়ের শতদল ক্লাবের পাশে একটি গলিতে তুহিন ভূঁইয়া (২২) নামের যুবকের হেফাজত হতে উদ্ধার করা হয় আশফাক হোসেনের স্বপ্নের মোটরসাইকেলটি- যোগ করেন ওসি কোতোয়ালী। তবে এর পেছনের ঘটনা বলতে গিয়ে ওসি মহসীন বলেন, আমাদের টিম যখন ওই এলাকায় অভিযান করছিল তখনই স্কুলের পিয়নের কাজ করা ওই মা নিজের বিবেকের কাছে আবেগকে পরাজয় করান। তিনি নিজে এসে পুলিশকে বাসায় নিয়ে ছেলেকে আইনের হাতে যেমন তুলে দেন তেমনি মোটরসাইকেলও ফেরত দেন। এমন মাকে আমাদের টিম কোতোয়ালীর পক্ষ থেকে সম্মান-শ্রদ্ধা। আটক তুহিন ভূঁইয়া ৮ম শ্রেণি পর্যন্ত পড়ালেখা করে এখন সিএনজি অটোরিকশা চালায় বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছে। তার বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট আইনে একটি মামলা দায়ের করার কথাও জানিয়েছে পুলিশ।
চমেক হাসপাতালকে ঢেলে সাজাতে একগুচ্ছ পরিকল্পনা
২৪,অক্টোবর,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চমেক হাসপাতালকে আরও আধুনিকভাবে গড়ে তুলতে একগুচ্ছ পরিকল্পনা নিয়েছে সরকার। তাতে হাসপাতালের পরিধি, শয্যা সংখ্যা বৃদ্ধি, জনবল সংকট নিরসনসহ উন্নয়নমূলক নানান পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। শুক্রবার রাতে নগরীর দুই নম্বর গেটস্থ চশমাহিলে হাসপাতাল পরিচালনা সভাপতি ও শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের সাথে মতবিনিময় সভায় এসব নিয়ে আলোচনা করা হয়। চমেক হাসপাতালের বিভাগীয় প্রধানদের সাথে এ মতবিনিময়ের আয়োজন করা হয়। যাতে চমেক হাসপাতাল ছাড়াও জেনারেল হাসপাতাল ও সিভিল সার্জন এবং বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকও উপস্থিত ছিলেন। একই সাথে আগত চিকিৎসকদের জন্য নগর আ. লীগের অবিসংবাদিত নেতা এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর ঘরে চিকিৎসকদের জন্য আয়োজন করা হয় দশ পদের খাবারও। উপস্থিত থাকা এক চিকিৎসক বলেন, দশ পদের খাবার দিয়ে নৈশভোজের আয়োজন করেন উপমন্ত্রী। তারমধ্যে কাচ্ছি, পোলাও, ইলিশ, রুই, গরু, খাসি, ড্রেজার্টের আয়োজন ছিল। এর আগে গত ১৯ অক্টোবর চিঠি দিয়ে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল এবং জেনারেল হাসপাতালের পরিচালক-তত্ত্বাবধায়কসহ সকল বিভাগীয় প্রধানদের নিয়ে নিজ বাসায় আমন্ত্রণ জানান শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল। মতবিনিময় সভায় উপস্থিত থাকা চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. শামীম হাসান নিউজ একাত্তরকে বলেন, হাসপাতাল পরিচালনা কমিটির সভাপতি মনোনীত হওয়ার পর চমেকের কারও সঙ্গে আনুষ্ঠানিক সাক্ষাৎ হয়নি। তাই উনার বাসায় সকলকে দাওয়াত দিয়েছেন। মতবিনিময়ের মতোই সকল বিভাগীয় প্রধানরা তাদের সমস্যার কথাগুলো তুলে ধরেছেন। একই সাথে মানউন্নয়নের বিষয়েও আলোচনা হয় বৈঠকে। সমস্যা ও মান উন্নয়নের মধ্যে হাসপাতালের জনবল সংকট নিরসন, পরিধি বাড়ানো, শয্যার সংখ্যা বৃদ্ধিসহ হাসপাতালে পরিকল্পিতভাবে আরও আধুনিক কিভাবে করা যায় সে বিষয়েও আলোচনা হয় বৈঠকে। চমেক হাসপাতালের এক বিভাগীয় প্রধান নিউজ একাত্তরকে এমনটি জানিয়ে আরও বলেন, হাসপাতালে সেবার মান উন্নয়ন, বিদ্যমান সমস্যা সমাধান, ওয়ার্ডগুলোকে কিভাবে আরও উন্নত করা যায় সে বিষয়ে কথা বলা হয়। এ বিষয়ে সরকারের একগুচ্ছ পরিকল্পনার কথাও তিনি বলেছেন। তবে এটি মূলত সবার সাথে পরিচিতি হওয়ার জন্যই এমন আয়োজন করা হয়। বৈঠকে উপস্থিত থাকা চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন নিউজ একাত্তরকে বলেন, হাসপাতালের সমস্যা নিরসনেই আলোচনা হয়। এর বাইরে পৃথক ক্যান্সার ইউনিট, নতুন নতুন ওয়ার্ড সৃষ্টিসহ নানাবিধ বিষয়ে আলোচনা করা হয়। একই সাথে হাসপাতালের আশপাশে থাকা দোকানপাট বেশি, তা পরিকল্পিতভাবে গড়ে তোলার বিষয়েও আলোচনা হয়। এর আগে ২০ সেপ্টেম্বর হাসপাতাল পরিচালনা কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হলেও স্ব-শরীরে উপস্থিত ছিলেন না শিক্ষা উপমন্ত্রী নওফেল। ঢাকা থেকে জুমের মাধ্যমে তিনি যুক্ত ছিলেন। পরিচালনা কমিটির সভাপতি হওয়ার পর হাসপাতালের বিভাগীয় প্রধানদের সাথে এটাই তাঁর প্রথম সভা।
কর্ণফুলীর ঘাটে জাহাজের পণ্য খালাস শুরু
২৪,অক্টোবর,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: নৌযান শ্রমিকদের কর্মবিরতি, বৈরী আবহাওয়া, ভারী বৃষ্টির কারণে টানা চারদিন বন্ধ থাকার পর ফের শ্রমিকদের হাঁকডাকে উৎসবমুখর হয়ে উঠছে কর্ণফুলী নদীর ঘাটগুলো। লাইটার জাহাজ থেকে বস্তা ভরে ক্রেনের সাহায্যে নদীপাড়ে আনলোড করা হচ্ছে গম, ডালসহ বিভিন্ন পণ্য। সেই বস্তা শ্রমিকরা কাঁধে তুলে ট্রাকে বোঝাই করছেন। শনিবার (২৪ অক্টোবর) সকালে মাঝিরঘাট, আনুমাঝির ঘাট, এভারগ্রিন ঘাট, বাংলাবাজার ঘাটসহ বিভিন্ন ঘাটে এমন চিত্র দেখা গেছে। এমভি মায়ের আদেশ- নামের একটি লাইটার জাহাজের পণ্যখালাসে নিয়োজিত একজন শ্রমিক জানান, চার দিন পর আবার কাজ পেলাম। খুব ভালো লাগছে। ঘাট গুদাম শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আবদুল খালেক বলেন, নৌযান ও লাইটার শ্রমিকদের কর্মবিরতির কারণে তিন দিন এবং আবহাওয়া অধিদফতরের ৩-৪ নম্বর সতর্ক সংকেতের কারণে আরও একদিন লাইটার জাহাজ থেকে পণ্য খালাস বন্ধ ছিল। শনিবার সকাল থেকে পুরোদমে কর্ণফুলীর ১৬ ঘাটে কাজ চলছে।
নগরীর ঝুঁকিপূর্ণ পাহাড় থেকে সরে যেতে জেলা প্রশাসনের মাইকিং
২৩,অক্টোবর,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: নগরীর ঝুঁকিপূর্ণ ১৭টি পাহাড় ও বায়েজিদ-ফৌজদারহাট সিডিএ লিংক রোড এলাকায় করোনাকালীন সময়ে নতুন ঝুঁকিপূর্ণ ১৬টি পাহাড়ে মাইকিং কার্যক্রম পরিচালনা করেছে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন। শুক্রবার (২৩ অক্টোবর) বেলা ২টা ৩০ মিনিট থেকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তৌহিদুল ইসলামের নেতৃত্বে পাহাড়ের ঝুঁকিপূর্ণ স্থাপনা থেকে লোকজনকে অপসারণ অভিযান পরিচালিত হয়। এ সময় কাট্টলী সার্কেলাধীন ফয়েজ লেক সংলগ্ন ঝিল-১, ২ ও ৩ নম্বর এলাকায় ঝুঁকিপূর্ণ পাহাড়ি বসতি থেকে অপসারণকৃত ১০০টি পরিবারের মধ্যে ৩০টি পরিবারকে ফিরোজ শাহ পি-ব্লক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের আশ্রয় কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে। অভিযানে আকবর শাহ থানা পুলিশের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। প্রসঙ্গত, ফয়েজ লেক এলাকার চারদিকের পাহাড়ি জমিতে স্থানীয়রা অপদখল চালায়। নজরদারির ঘাটতির কারণে ঝিল এলাকায় পাহাড়ি জমি কেটে অবৈধ ও ঝুঁকিপূর্ণ স্থাপনা গড়ে তোলা হয়েছে। ঝিল এলাকায় বিভিন্ন স্বনামধন্য এনজিও সংস্থা কাজ করছে। ঝুঁকিপূর্ণ পাহাড়েই এনজিওর অঅর্থায়নে নানা প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে। নির্মাণ করা হয়েছে ঘর, স্কুল ও স্যানিটারি টয়লেট। জেলা প্রশাসনের পরিদর্শনের সময় স্থানীয়রা জানান, ঝিল এলাকায় জাইকার অর্থায়নে ওয়াসার পক্ষ থেকে সুউচ্চ পাহাড়ি এলাকায় সুপেয় পানির ব্যবস্থা করা হয়েছে।
২৮ হাজার ইয়াবাসহ Rab-7 এর হাতে ধরা বাসের সুপারভাইজার
২৩,অক্টোবর,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: পটিয়া উপজেলার বাইপাস এলাকায় কক্সবাজার থেকে আসা একটি বাসে অভিযান চালিয়ে ২৮ হাজার ৬৫০ পিস ইয়াবাসহ শরিফুল ইসলাম (৩২) নামে একজনকে আটক করেছে Rapid Action Battalion (Rab)। আটক শরিফুল ইসলাম কুমিল্লা জেলার দেবিদ্বার থানাধীন চাঁন্দপুর এলাকার আবদুল আলিমের ছেলে। তিনি বিআরটিসি বাসের সুপারভাইজার হিসেবে কর্মরত বলে জানিয়েছে Rab। Rab-7 এর সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) মো. মাহমুদুল হাসান মামুন নিউজ একাত্তরকে বলেন, পটিয়া উপজেলার বাইপাস এলাকায় কক্সবাজার থেকে আসা একটি বাসে অভিযান চালিয়ে ২৮ হাজার ৬৫০ পিস ইয়াবাসহ শরিফুল ইসলাম নামে একজনকে আটক করা হয়েছে। তাকে পটিয়া থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। Rab-7 এর সহকারী পুলিশ সুপার মো. মাশকুর রহমান নিউজ একাত্তরকে বলেন, শরিফুল ইসলাম বিআরটিসি বাসের সুপারভাইজার হিসেবে কাজ করেন। কিন্তু এর আড়ালে তিনি ইয়াবার ব্যবসা করেন। দীর্ঘদিন ধরে নানা কৌশলে কক্সবাজার থেকে ইয়াবা এনে চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন এলাকায় বিক্রি করে আসছেন।
কিশোরগ্যাং লিডার: আকবরশাহ এলাকায় আরিয়ান গ্রেফতার
২২,অক্টোবর,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: নগরের আকবরশাহ এলাকায় অভিযান চালিয়ে কিশোরগ্যাং লিডার ও ছিনতাইকারী আব্দুল আজিজ প্রকাশ সাকিব প্রকাশ আরিয়ানকে (২৩) গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তার কাছ থেকে একটি অস্ত্র ও এক রাউন্ড কার্তুজ উদ্ধার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২২ অক্টোবর) আকবরশাহ্ থানাধীন সি ওয়ার্ল্ড যাওয়ার রাস্তায় রকির গ্যাস গোডাউনের সামনে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারের পর তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। গ্রেফতার আব্দুল আজিজ প্রকাশ সাকিব প্রকাশ আরিয়ান ফেনী জেলার দাগনভুঁইয়া থানাধীন মাছিমপুর এলাকার মো. শহিদ উল্লাহর ছেলে। তিনি নগরের আকবরশাহ থানাধীন বিশ্বকলোনী এলাকায় বসবাস করেন। তার বিরুদ্ধে আকবরশাহ থানায় দুইটি মামলা রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। আকবরশাহ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জহির হোসেন বলেন, সি ওয়ার্ল্ড যাওয়ার রাস্তায় রকির গ্যাস গোডাউনের সামনে অভিযান চালিয়ে আব্দুল আজিজ প্রকাশ সাকিব প্রকাশ আরিয়ানকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তার কাছ থেকে একটি অস্ত্র ও এক রাউন্ড কার্তুজ উদ্ধার করা হয়েছে। ওসি জানান, আব্দুল আজিজ প্রকাশ সাকিব প্রকাশ আরিয়ান কিশোরগ্যাং লিডার ও ছিনতাইকারী। আকবরশাহ এলাকায় শাকিল হাসান সাগর প্রকাশ লাল সাগরের নেতৃত্বে ছিনতাইয়ের সঙ্গে জড়িত।
জনগণের সম্পৃক্ততাই ক্যারাভান কর্মসূচির সফলতা: সুজন
২২,অক্টোবর,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চসিক প্রশাসক মোহাম্মদ খোরশেদ আলম সুজন বলেছেন, জনগণের সম্পৃক্ততাই ক্যারাভান কর্মসূচির সফলতা। এ কর্মসূচি আমি নগরীর অলিগলিতে ছড়িয়ে দিতে চাই। যেসব এলাকা দীর্ঘদিন ধরে সিটি কর্পোরেশনের সুবিধাবঞ্চিত ছিল ক্যারাভানের কারণে সেসব এলাকার জনসাধারণ এখন নাগরিক সুবিধা পেতে শুরু করেছে। প্রশাসক বলেন, নগরবাসীর দুর্ভোগ লাঘবে এবং পরিষ্কার, পরিচ্ছন্ন ও নিরাপদ বাসযোগ্য নগরী গড়ার প্রত্যয়ে আমি অঙ্গীকারাবদ্ধ। জনতার আস্থার প্রতিদান দেওয়ার জন্য চাই জনসম্পৃক্ততা। তিনি আজ বুধবার (২১ অক্টোবর) বিকেলে বহদ্দারহাটস্থ খাজা রোড থেকে বলির হাট পর্যন্ত চসিকের প্রকৌশল, বিদুৎ ও পরিচ্ছন্ন বিভাগের সমন্বয়ে গঠিত টিম নিয়ে নগর সেবায় ক্যারাভান কার্যক্রমে উপস্থিত জনসাধারণের উদ্দেশে এ কথা বলেন। তিনি আরো বলেন, ক্যারাভান কর্মসূচির সাথে সম্পৃক্ত কর্পোরেশনের সব বিভাগকে আমি এক ছাতার নিচে নিয়ে এসেছি যাতে করে যেখানেই সমস্যা সেখানেই সমাধান করা যায় এবং এতে আমার এ কর্মসূচি ক্রমেই সফলতার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। মাদক ও সন্ত্রাসের সাথে জড়িতরা কোন অবস্থাতেই ছাড় পাবে না। এ ব্যাপারে আমাদের জিরো টরালেন্স নীতি অব্যাহত থাকবে। আমি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দিকনির্দেশনা অনুযায়ী কাজ করছি। জলাবদ্ধতা এ নগরীর একটি দীর্ঘদিনের সমস্যা। প্রধানমন্ত্রীর আন্তরিক দিকনির্দেশনা এবং কার্যকরী পদক্ষেপের ফলে আমরা অচিরেই এ সমস্যা হতে মুক্ত হতে পারবো। সাড়ে পাঁচ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে চলমান উন্নয়ন কর্মকাণ্ড বাস্তবায়িত হলে নগরীর জলাবদ্ধতা আর থাকবে না বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। তিনি উপস্থিত বেশিরভাগ জনসাধারণের মুখে মাস্ক না দেখে তাদেরকে সতর্ক করেন। জনসাধারণকে তাৎক্ষণিক মাস্ক পরিয়ে দেন এবং তাদের মাঝে সাবানও বিতরণ করেন। ক্যারাভান চলাকালে প্রশাসক স্থানীয় কবরস্থান জিয়ারত করেন এবং খালাসী পুকুর পাড় জামে মসজিদে আসরের নামাজ আদায় করেন। খাজা রোডের ক্যারাভান চলাকালীন সময়ে রাস্তার উভয়পাশে দাড়িয়ে শতশত নারী পুরুষ প্রশাসকের এহেন উদ্যোগকে স্বাগত জানান। এসময় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতা মো. শাহাবুদ্দীন, মহানগর ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি নোমান চৌধুরী, শহিদুল আলম, ফরহানুল আলম রাকিব, মো. তাসিন, ইরফানুল আলম, প্রশাসকের একান্ত সচিব মোহাম্মদ আবুল হাশেম, নির্বাহী প্রকৌশলী আবু সিদ্দিক, মির্জা ফজলুল কাদের, প্রকৌশলী তৌহিদুল আলম, মোরশেদুল আলম চৌধুরী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর