লেবাননের বৈরুত বন্দরে এবার ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড
১০সেপ্টেম্বর,বৃহস্পতিবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: লেবাননের বৈরুত বন্দরে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। আগুন লাগার কারণ জানা যায়নি। এক মাস আগে বন্দরের গুদামে ভয়াবহ বিস্ফোরণে লণ্ডভণ্ড হয়ে যায় পুরো বৈরুত। এরমধ্যেই বৃহস্পতিবার (১০ সেপ্টেম্বর) আগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটলো। আল জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়, বন্দরে দাউ দাউ করে আগুন জ্বলছে। আশপাশ কালো ধোঁয়ায় ছেয়ে গেছে। আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিস। তাৎক্ষণিকভাবে আগুনের সূত্রপাত কীভাবে তা জানা যায়নি। ৪ আগস্ট বৈরুতের রাসায়নিক গুদামে অগ্নিকাণ্ডে ১৯১ জন মারা যায়। আহত হয় ৬ হাজার জন। বাস্তুচ্যুত হয় ৩ লাখ মানুষ। ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ১ হাজার ৫০০ কোটি মার্কিন ডলার। গুদামে রাখা ২ হাজার ৭৫০ টন অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট বিস্ফোরণে ক্ষয়ক্ষতির এ ঘটনা ঘটে।
সীমান্তে উসকানিমূলক গুলি চালিয়েছে ভারতীয় সেনা, অভিযোগ চীনের
০৯সেপ্টেম্বর,বুধবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: অবৈধভাবে সীমান্ত অতিক্রমের পাশাপাশি ভারতীয় সেনারা উসকানিমূলক গুলি চালিয়েছে বলে অভিযোগ করেছে চীন। এর জবাবে চীনা সেনাবাহিনীও পাল্টা পদক্ষেপ নিতে বাধ্য হয়েছে। তবে চীনের পক্ষ থেকে ঠিক কী পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে সে বিষয়ে স্পষ্ট করে কিছু বলা হয়নি। খবর বিবিসি। এদিকে ভারত চীনের অভিযোগ অস্বীকার করে জানিয়েছে, ভারতীয় নয় বরং লাদাখ অঞ্চলে চীনা সেনারাই প্রথম ফাঁকা গুলি ছোড়ে। এ নিয়ে উভয় দেশের মধ্যে সীমান্ত উত্তেজনা আরো বাড়ল। ভারত বলেছে, চীনের পিপলস লিবারেশন আর্মির (পিএলএ) সদস্যরা একটি ভারতের সেনাবাহিনীর একটি অবস্থানের কাছে আসে এবং কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোড়ে। এর মধ্য দিয়ে মূলত চীনা সৈন্যরা ভারতীয় সেনাদের ভয় দেখানোর চেষ্টা করছিল। ভারতীয় সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়, ভারতের সেনারা কোনো অবস্থাতেই প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা (এলএসি) লঙ্ঘন করেনি। তারা গুলি ছোড়া কিংবা আক্রমণাত্মক পদক্ষেপও নেয়নি। তবে গুলি ছোড়ার অভিযোগ যদি সত্যি হয়, তাহলে গত ৪৫ বছরের মধ্যে এ প্রথম ভারত-চীন সীমান্তে গুলির ঘটনা ঘটল। ১৯৯৬ সালের এক চুক্তির মধ্য দিয়ে উভয় দেশ প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখায় বন্দুক কিংবা বিস্ফোরক ব্যবহার না করার প্রতিশ্রুতি দেয়। কিন্তু গুলির ঘটনা না ঘটলেও বিতর্কিত সীমান্তে দুই দেশের সেনাবাহিনী সংঘর্ষে জড়িয়েছে। পিএলএর মুখপাত্র ঝাং শুইলির বরাতে চীনের রাষ্ট্রীয় সংবাদ মাধ্যম দ্য গ্লোবাল টাইমস জানিয়েছে, ভারতের সেনাবাহিনী পানগং সো লেকের দক্ষিণ তীরের কাছে শেনপাও পার্বত্য এলাকায় অবৈধভাবে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা অতিক্রম করে। আর ভারতের এ পদক্ষেপ উভয় দেশের মধ্যকার চুক্তির স্পষ্ট লঙ্ঘন, যা ওই অঞ্চলে ফের উত্তেজনা বৃদ্ধি করেছে। পিএলএর মুখপাত্র ভারতীয় কর্তৃপক্ষের কাছে অনুরোধ করেন, যেন অবিলম্বে এ ধরনের বিপজ্জনক পদক্ষেপ বন্ধ করা হয়। একই সঙ্গে যেসব সেনাসদস্য নিয়ন্ত্রণ রেখা লঙ্ঘন করেছে, তাদের তুলে নেয়ার পাশাপাশি যারা উসকানিমূলক গুলি ছুড়েছে তাদের বিচারের আওতায় আনার দাবি জানান তিনি। কিন্তু এ বিষয়ে ভারতের পক্ষ থেকে দেয়া বিবৃতিতে আরো বলা হয়, তারা শান্তি বজায় রাখতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। কিন্তু একই সঙ্গে তারা যে কোনো মূল্যে সার্বভৌমত্ব ও জাতীয় সংহতি ধরে রাখার ক্ষেত্রেও বদ্ধপরিকর। মূলত, এর আগে ভারতীয় সেনাবাহিনী চীনা কর্তৃপক্ষকে সতর্ক করেছিল যে চীনা সেনাবাহিনী বিতর্কিত সীমান্ত এলাকা থেকে পাঁচ ভারতীয় বেসামরিক নাগরিককে অপহরণ করেছে। আর এর ঠিক একদিন পরই নতুন করে সোমবার মধ্যরাতে মুখোমুখি হলো উভয় দেশের সেনাবাহিনী। এ বিষয়ে ভারতের ক্যাবিনেট মন্ত্রী কিরেন রিজুজু গতকাল টুইটারে বলেন, পিএলএ ভারতের বার্তায় সাড়া দিয়েছে। অরুণাচল প্রদেশের ওই পাঁচ তরুণকে ভারতীয় কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলছে। মূলত গত জুনে চীনা সেনাবাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে ২০ ভারতীয় জওয়ান নিহত হওয়ার পর থেকেই উভয় দেশের মধ্যে উত্তেজনা বৃদ্ধি পাচ্ছে। এ পরিস্থিতিতে সীমান্তে সৈন্য সংখ্যা ও ভারী অস্ত্রসজ্জা বৃদ্ধি করছে চীন ও ভারত। এর আগে আগস্টে ভারতের পক্ষ থেকে চীনের বিরুদ্ধে দুবার উসকানিমূলক আচরণের অভিযোগ তোলা হয়। তবে চীন এ অভিযোগ অস্বীকার করে উত্তেজনা সৃষ্টির দায় সম্পূর্ণভাবে ভারতের ওপর চাপায়। উল্লেখ্য, চীন ও ভারতের মধ্যে একবারই যুদ্ধ হয় ১৯৬২ সালে। ওই যুদ্ধে ভারতের শোচনীয় পরাজয় ঘটে।
ভারতীয় সেনারা লাদাখ সীমান্তে গুলি চালিয়েছে: চীন
০৮সেপ্টেম্বর,মঙ্গলবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: লাদাখের প্যাংগন লেকের দক্ষিণ তীরের প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা (এলএসি) অবৈধভাবে অতিক্রম করে ভারতীয় সেনারা গুলি চালিয়েছে বলে অভিযোগ করেছে চীন। সোমবার (৭ সেপ্টেম্বর) রাতে দেশটির পিপলস লিবারেশন আর্মির (পিএলএ) এক মুখপাত্র দাবি করেন, পরিস্থিতি স্থিতিশীল করতে পাল্টা পদক্ষেপ নিতে বাধ্য হয় চীনের সীমান্ত রক্ষাকারী বাহিনী। তবে এই পাল্টা পদক্ষেপ কী ছিলো তা স্পষ্ট করা হয়নি। আর এই বিষয়ে ভারতের পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত পাল্টা কোনও প্রতিক্রিয়াও জানানো হয়নি। ভারতীয় সম্প্রচারমাধ্যম এনডিটিভির প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে। গত কয়েক মাস ধরে লাদাখ সীমান্তে ভারত ও চীনের মধ্যে উত্তেজনা চলছে। এনিয়ে পাল্টাপাল্টি দোষারোপের মধ্যে গত শনিবার (৫ সেপ্টেম্বর) ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় দুই দেশের উত্তেজনা নিরসনে সম্মতিতে পৌঁছানোর কথা জানানো হয়। ওই বিবৃতিতে জানানো হয়, রাশিয়ার মস্কোতে চীন ও ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রীদের বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত হয়েছে। সোমবার রাতে চীনের পিপলস লিবারেশন আর্মির (পিএলএ) মুখপাত্র অভিযোগ করেন ভারতীয় সেনারা অবৈধভাবে নিয়ন্ত্রণ রেখা অতিক্রম করে প্যাংগন লেকের দক্ষিণ তীর এবং শেনপাও পার্বত্য এলাকায় ঢুকে পড়ে। পিএলএর পশ্চিমাঞ্চলীয় কমান্ডের মুখপাত্র সিনিয়র কর্নেল ঝ্যাং সুইলি এক বিবৃতিতে বলেন, অভিযানকালে চীনের সীমান্ত রক্ষাকারী বাহিনীর টহল দলের ওপর মারাত্মক হুমকিমূলক গুলি বর্ষণ করে ভারতীয় বাহিনী আর মাঠ পর্যায়ের পরিস্থিতি স্থিতিশীল করতে পাল্টা পদক্ষেপ নিতে বাধ্য হয় চীনা বাহিনী। ভারতের এই আচরণকে খুবই বাজে ধরণের মারাত্মক উস্কানি আখ্যা দিয়ে ওই বিবৃতিতে বলা হয়, আমরা ভারতীয় পক্ষকে মারাত্মক বিপদজনক পদক্ষেপ এখনই বন্ধ করার অনুরোধ জানাচ্ছি। ভারতের দাবি গত দুই সপ্তাহে অন্তত দুইবার প্যাংগন লেকের দক্ষিণ তীরে চীনা সেনাবাহিনী উস্কানিমূলক কাজে জড়িত থেকেছে। তবে ভারত নিয়ন্ত্রণ রেখার স্থিতাবস্থা বদলে দেওয়ার একক প্রচেষ্টা থামিয়ে দিতে সক্ষম হয় বলে দাবি করা হয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে। এতে বলা হয়, এসব ঘটনার সময়ে দুই দেশের সেনাদের মধ্যে কোনও শারিরীক সংঘাতও হয়নি। ভারতের দাবি সর্বশেষ গত ৩১ আগস্ট দিনের বেলা এক অভিযানের সময়ে ভারতীয় সেনা সদস্যদের ঘিরে ফেলে চীনা বাহিনী। ভারতীয় সেনাদের নিয়ন্ত্রিত পার্বত্য এলাকায় নিজেদের অবস্থান ফিরে পেতে চেষ্টা চালাতে গিয়ে ওই ঘটনা ঘটায় চীনা বাহিনী। ওই সময়ে চীনা বাহিনীকে থেমে যাওয়ার সতর্ক বার্তা দিয়ে দুই দেশের মাঠ পর্যায়ের সেনা কর্মকর্তারা আলোচনায় বসে। উত্তেজনা নিরসনে তখনই দুই দেশের সেনা সদস্যদের নিজ নিজ অবস্থানে ফিরিয়ে নেওয়া হয়। এর আগে গত ২৯ আগস্ট রাতে চীনা বাহিনী আরও একবার উস্কানিমূলক আচরণ করে বলে দাবি করে ভারত। প্যাংগন লেকের দক্ষিণ তীরে ওই সময়ে চীন বিপুল সেনা মোতায়েন করে সেখানকার পশ্চিমাঞ্চল দখলের চেষ্টা চালায়। উল্লেখ্য, গত ১৫ জুন লাদাখের গালওয়ান উপত্যকায় সংঘাতে জড়ায় ভারত ও চীনের সেনা সদস্যরা। এতে ভারতের অন্তত ২০ সেনা নিহত হয়। তবে চীনের তরফে কোনও হতাহতের কথা জানানো হয়নি। ওই সংঘাতের পর জুলাই মাসে দুই দেশের উচ্চ পর্যায়ের আলোচনার পর সেনা সরিয়ে নেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু করতে সম্মত হয় ভারত ও চীন। তবে এখন পর্যন্ত সেই প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ হয়নি।
যুক্তরাষ্ট্রের পোর্টল্যান্ড বিক্ষোভকে দাঙ্গা ঘোষণা পুলিশের
০৭সেপ্টেম্বর,সোমবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: যুক্তরাষ্ট্রের পোর্টল্যান্ডে স্থানীয় সময় শনিবার রাতে বর্ণবাদবিরোধী বিক্ষোভের সময় বেশ কয়েকজনকে গ্রেফতার করেছে দেশটির পুলিশ। এ সময় শত শত বিক্ষোভকারীর বিরুদ্ধে কাঁদানে গ্যাস ব্যবহার করা হয়। বিপরীতে আন্দোলনকারীরা মোলোটভ ককটেল (আগুন বোমা) নিক্ষেপ করলে পুলিশ এ বিক্ষোভকে দাঙ্গা ঘোষণা করে। পুলিশ জানিয়েছে, মোলোটভ ককটেলে অন্তত একজন আহত হয়েছে। খবর এএফপি। শনিবার পূর্ব পোর্টল্যান্ডে কয়েকশ বিক্ষোভকারী জড়ো হয়। এ সময় ২০ বছর বয়সী বিক্ষোভকারী জে বলেন, জর্জ ফ্লয়েডের হত্যাকাণ্ডের পর পোর্টল্যান্ডে ব্ল্যাক লাইভ ম্যাটার্স আন্দোলনের শততম দিন পার হয়েছে। আর এমন দিনে পুলিশ আমাদের মিছিল করতে বাধা দিয়েছে। পুলিশ বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে নিক্ষেপ করেছে কাঁদানে গ্যাস। কিন্তু এখানে আন্দোলন করা কিংবা মত প্রকাশ করা আমাদের সাংবিধানিক অধিকার। তবে পুলিশ বলছে, বিক্ষোভকারীরা সহিংস আচরণ করছিল, যা জননিরাপত্তার জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়ায়। বিক্ষোভকারীরা এ সময় মোলোটভ ককটেল নিক্ষেপ করে। এ অবস্থায় পুলিশের পক্ষ থেকে বিক্ষোভকে দাঙ্গা ঘোষণা করা হয়েছে। মূলত পুলিশের হেফাজতে কৃষ্ণাঙ্গ মার্কিন নাগরিক জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যুর ঘটনায় আমেরিকাজুড়েই বিক্ষোভ দানা বেঁধে ওঠে। কিন্তু পোর্টল্যান্ড, যেখানে ৬ লাখ ৫০ হাজার অধিবাসীর ৭০ শতাংশই শ্বেতাঙ্গ, সেখানে বিক্ষোভকারীরা কার্যত প্রতিদিনই বিচারের দাবিতে রাস্তায় নামছেন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প দাবি করেছেন, শহরটি এখন গৃহ-সন্ত্রাস সৃষ্টিকারী দুর্বৃত্তদের দখলে চলে গেছে। তবে বাস্তবে দেখা গেছে, বিক্ষোভকারীরা মোটামুটি শান্তিপূর্ণ আন্দোলনই করে আসছিলেন। কিন্তু গত সপ্তাহে দক্ষিণপন্থী একটি গোষ্ঠীর এক সমর্থক গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা গেলে উত্তেজনা বৃদ্ধি পায়। এদিকে প্যাট্রিয়ট প্রেয়ার নামে দক্ষিণপন্থী গোষ্ঠীটি ওই নিহত সদস্য অ্যারন জে ডেনিয়েলসনের স্মরণে শনিবার সকালে পোর্টল্যান্ডের একটি পার্কে জড়ো হয় কয়েকশ মানুষ। ৩৯ বছর বয়সী জে ট্রাম্পপন্থীদের সঙ্গে ব্ল্যাক লাইভ ম্যাটার্সবিরোধী বিক্ষোভে যোগ দিয়েছিলেন। এর পরই তিনি গুলিবিদ্ধ হন। এদিকে এ গুলির ঘটনায় সন্দেহভাজন মাইকেল রেইনোয়েলও গ্রেফতার হওয়ার সময় মারা যান। এ অবস্থায় প্যাট্রিয়ট প্রেয়ারের সঙ্গে যুক্ত ড্যান নামে একজন বলেন, বর্তমানে আমরা গৃহযুদ্ধের মধ্যে রয়েছি। লড়াই চলছে শুভ ও অশুভর মধ্যে।
সীমান্তে উত্তেজনা প্রশমনে রাজি হয়েছে নয়াদিল্লি ও বেইজিং
০৬সেপ্টেম্বর,রবিবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বিরোধপূর্ণ সীমান্ত নিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা প্রশমনে সম্মত হয়েছে নয়াদিল্লি ও বেইজিং। শনিবার পারমাণবিক সক্ষমতাসম্পন্ন দুই প্রতিবেশী দেশের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠক শেষে এ তথ্য নিশ্চিত হয়। খবর রয়টার্স। গত জুনের সংঘর্ষের পর থেকেই পশ্চিম হিমালয় বেষ্টিত ফ্রন্টিয়ারে সেনা মোতায়েন বাড়িয়েছে চীন ও ভারত। সম্প্রতি ভারতের অরুণাচল প্রদেশসংলগ্ন সীমান্তে উত্তেজনা দেখা দেয়। নভেল করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যে এশিয়ার শীর্ষ দুই অর্থনীতির মধ্যে সামরিক উত্তেজনা যে দুদেশের রাজনীতি ও অর্থনীতির জন্য ভালো হবে না সে বিষয় মাথায় রেখে সমঝোতার কথা বলে আসছিলেন বিশ্লেষকরা। সে ধারাবাহিকতায় উভয় পক্ষ উত্তেজনা প্রশমনে সম্মত হয়েছেন। শনিবার ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের তরফ থেকে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে এ কথা জানানো হয়। এর আগে রাশিয়ার রাজধানী মস্কোতে সাংহাই কো-অপারেশন অর্গানাইজেশনের সম্মেলনের মাঝে দুই দেশের প্রতিরক্ষামন্ত্রী পর্যায়ের এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের ওই বিবৃতিতে বলা হয়, উভয় পক্ষই একটি বিষয়ে একমত হয়েছে যে তারা কেউই সীমান্ত পরিস্থিতি আরো জটিল হয়ে উঠতে পারে বা সীমান্ত এলাকায় উত্তেজনা ছড়াতে পারে এমন কোনো কিছু করবে না। ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং এবং চীনের প্রতিরক্ষামন্ত্রী জেনারেল উই ফ্যাং মস্কোতে শুক্রবার দিনের শেষভাগে নিজেদের সীমান্তের বিষয়ে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে বসেন। এক টুইটার বার্তায় রাজনাথ সিং জানান, ওই বৈঠক ২ ঘণ্টা ২০ মিনিট স্থায়ী হয়েছে। শুক্রবার ভারতীয় সময় রাত সাড়ে ৯টা নাগাদ ফ্যাংয়ের সঙ্গে রাজনাথের বৈঠকে প্রতিরক্ষা সচিব অজয় কুমার এবং রাশিয়ায় ভারতের রাষ্ট্রদূত ডি বি ভেঙ্কটেশ বর্মাও উপস্থিত ছিলেন। এর আগে বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর এবং জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভাল পৃথকভাবে টেলিফোনে কথা বলেন চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই-র সঙ্গে। সেনাবাহিনী পর্যায়ের বৈঠক চলছে ধারাবাহিকভাবে। মে মাসের পর শুক্রবারই প্রথম দুই দেশের শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের মুখোমুখি বৈঠক হলো। ওই বৈঠক নিয়ে বেইজিংভিত্তিক গ্লোবাল টাইমস পত্রিকার প্রতিবেদনে বলা হয়, বৈঠকে উই ফ্যাং ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথকে বলেছেন, সীমান্তে বর্তমানে যে উত্তেজনা চলছে তার পুরো দায় নয়াদিল্লির। বেইজিং ও নয়াদিল্লির মধ্যে উত্তেজনা প্রশমনে মস্কো মধ্যস্থতাকারীর ভূমিকা পালন করছে বলে বলছে ভারতের স্থানীয় পত্রিকাগুলো। কূটনীতিক সূত্র বলছে, এশিয়ার দুই পরাশক্তি সংঘাতে জড়িয়ে পড়ুক তা রাশিয়ার কাছে কোনোভাবেই কাম্য নয়। প্রসঙ্গত, হিমালয়ের পশ্চিমাঞ্চলে লাদাখের গালওয়ান উপত্যকায় ১৫ জুন চীন ও ভারতের সেনাদের মধ্যে সংঘর্ষে ২০ ভারতীয় সেনার মৃত্যু হয়। চীন অবশ্য তাদের সেনা হতাহতের কোনো উপাত্ত প্রকাশ করেনি। ওই সংঘাতের পর উভয় দেশ লাইন অব কন্ট্রোল-এলওসি জুড়ে অতিরিক্ত সেনা মোতায়েন করে রেখেছে। লাদাখ সীমান্ত পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে বৃহস্পতিবার সেখানে যান ভারতের সেনাপ্রধান। এক মাসের ব্যবধানে এটি ছিল ভারতীয় সেনাপ্রধানের দ্বিতীয়বার লাদাখ সফর।
মধ্য নাইজেরিয়ায় বন্দুকধারীদের গুলিতে নিহত ২২
০৫সেপ্টেম্বর,শনিবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: মধ্য নাইজেরিয়ায় দুটি পৃথক হামলায় বন্দুকধারীদের গুলিতে অন্তত ২২ জন নিহত হয়েছে। স্থানীয় সময় বুধবার নাইজার প্রদেশের দুক্কু ও কাগারা শহরে এ হামলার ঘটনা ঘটে। গতকাল এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন রাজ্যের নিরাপত্তাবিষয়ক পরিচালক কাবিরু মোহাম্মদ মাইকুন্ডি। খবর এএফপি। প্রথম হামলাটি ঘটে রিজাউ জেলার দুক্কুতে। কয়েক ডজন দুষ্কৃতকারী মোটরসাইকেলে করে এসে হামলা চালায়। এ সময় তারা স্থানীয় রক্ষীদের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে জড়িয়ে পড়লে ১৮ জন নিহত হয়। মাইকুন্ডি বলেন, নিহতদের সবাই স্থানীয় রক্ষী। এদিকে একই দিনে আরেকটি সশস্ত্র দল রাফি জেলার কাগারায় হামলা চালায়। এ সময় তারা একটি ব্যাংকে প্রবেশ করলেও সেটির ভল্টে ঢুকতে ব্যর্থ হয়। উপস্থিত পুলিশ সদস্যরা তাদের বাধা দিলে বন্দুকযুদ্ধ শুরু হয়। এতে মারা যায় চার পুলিশ সদস্য।
মালয়েশিয়া প্রবেশে নিষেধাজ্ঞায় বাংলাদেশসহ ১২ দেশ
০৪সেপ্টেম্বর,শুক্রবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনা ভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে বাংলাদেশসহ ১২টি দেশের নাগরিকদের মালয়েশিয়া প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে দেশটির সরকার। বেশ কয়েকটি দেশে সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে সেখানকার সরকার। বৃহস্পতিবার (৩ সেপ্টেম্বর) মালয়েশিয়ার রিকভারি মুভমেন্ট কন্ট্রোল অর্ডার (আরএমসিও) বাস্তবায়নে মন্ত্রী পরিষদের বিশেষ বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। বৈঠক শেষে আগামী ৭ সেপ্টেম্বর থেকে যেসব দেশে করোনাক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দেড় লাখের বেশি, সেসব দেশের নাগরিক মালয়েশিয়া প্রবেশ করতে পারবে না বলে জানান দেশটির জ্যেষ্ঠ মন্ত্রী দাতুক সেরি ইসমাইল সাবরি ইয়াকুব। তিনি বলেন, আগামী ৭ সেপ্টেম্বর (সোমবার) থেকে কার্যকরভাবে যুক্তরাষ্ট্র, ব্রাজিল, ফ্রান্স, যুক্তরাজ্য, স্পেন, ইতালি, সৌদি আরব, রাশিয়া এবং বাংলাদেশের পাশাপাশি ভারত, ইন্দোনেশিয়া এবং ফিলিপাইন থেকে দীর্ঘমেয়াদী পাসধারীদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। ফলে এইসব দেশের নাগরিকদের মালয়েশিয়ায় প্রবেশ করতে দেয়া হবে না। দেশটিতে যারা স্থায়ী নাগরিক, মাই সেকেন্ড হোম পাস হোল্ডার, ভিজিট পাস, ওয়ার্ক পারমিট, স্পাউস অথবা স্বামী-স্ত্রী ভিসাধারী এবং প্রফেশনাল ভিসাধারী সবার ক্ষেত্রে এই নিষেধাজ্ঞা বহাল থাকবে। ইসমাইল সাবরি আরও বলেন, সরকার অন্যান্য দেশের পরিস্থিতিও পর্যবেক্ষণ করছে এবং একই ধরনের বিধি নিষেধ আরোপের সম্ভাবনা রয়েছে। তবে এখনও চূড়ান্ত হয়নি। আমরা এখন অন্যান্য দেশগুলোর দিকে নজর দিচ্ছি যেখানে দেড় লাখের বেশি আক্রান্ত হবে, তাদেরকে এ নিষেধাজ্ঞার আওতায় পড়তে হবে। এছাড়া নিষেধাজ্ঞা জারি করা দেশগুলোতে যদি কোন মালয়েশিয়ান নাগরিক থাকে তবে তাদের নির্ধারিত এসওপি প্রয়োগের মাধ্যমে দেশে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হবে। কারণ এটি সংবিধানের পরিপন্থী হওয়ায় আমরা আমাদের নাগরিকদের ফিরে আসতে বাধা দিতে পারি না। ইমিগ্রেশন আইনও আমাদের নাগরিকদের ফিরে আসতে বাধা দিতে পারে না বলেও জানান তিনি। এদিকে, দেশটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১৪ জন। সব মিলিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা ৯ হাজার ৩৭৪ জন। এর মধ্যে ৯ হাজার ৮৩ জনই সুস্থতা লাভ করেছেন। আর মৃত্যু হয়েছে ১২৮ জনের।
লাদাখে ফের উত্তেজনা, এলাকা দখল নিয়ে পাল্টাপাল্টি অবস্থানে চীন-ভারত
০৩সেপ্টেম্বর,বৃহস্পতিবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চীনের সঙ্গে সংঘর্ষে ভারতের বিশেষ বাহিনীর এক সদস্য নিহত হওয়ার পর লাদাখ সীমান্তে উত্তেজনা বাড়ছে। সীমান্তে ফের মুখোমুখি অবস্থানে চীনা ও ভারতীয় সেনারা। আনন্দবাজার পত্রিকা জানিয়েছে, প্যাংগং লেকের উত্তরে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় সেনা বিন্যাসে কিছু পরিবর্তন ঘটিয়েছে ভারত। এছাড়া লেকের দক্ষিণ প্রান্তের একাধিক স্থানে বাড়তি সেনা মোতায়েন করা হয়েছে। ভারতীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, গত শনিবার চীনা সেনাবাহিনী বিনা প্ররোচনায় প্যাংগং লেকের দক্ষিণ প্রান্তের স্থিতাবস্থা বদলে দেয়ার চেষ্টা করেছিল। গতকাল রাতেও তারা প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় ভারতের দিকের চুমার এলাকায় অনুপ্রবেশের চেষ্টা করে। চীনা সেনাদের লাগাতার এমন চেষ্টার পরিপ্রেক্ষিতেই প্যাংগং লেকের উত্তর ও দক্ষিণ প্রান্তে সেনা বিন্যাসে বদল ঘটানো হয়েছে। সেনাবাহিনীর এমন অবস্থান বদলে জল্পনা ছড়ায় প্যাংগং লেকের উত্তর ঘেঁষে থাকা ফিঙ্গার ফোরের দখল নিয়েছে ভারতীয় সেনা। পরে সেনা সূত্রে জানানো হয়, ফিঙ্গার ফোরের দখল নেয়া নিয়ে যে জল্পনা ছড়িয়েছে, তা ঠিক নয়। তবে সতর্কতামূলক পদক্ষেপ হিসেবে প্যাংগং লেকের উত্তর প্রান্তে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় সেনা বিন্যাসে কিছু পরিবর্তন আনা হয়েছে। সেনা সূত্রে জানানো হয়েছে, প্যাংগং লেকের উত্তর প্রান্তের পরে গত দুদিনে দক্ষিণ প্রান্তে চীনা সেনাদের জমি দখলের চেষ্টা করতে দেখে রেজাং লা এবং রেচিন লা এলাকায় অতিরিক্ত সেনা মোতায়েন করেছে ভারত। এ ছাড়া চুসুলের কাছে চীনা সেনাদের মুখোমুখি টি-৯০ ট্যাংক নিয়েও অবস্থান নিয়েছে ভারতীয় বাহিনী। সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা।
আবারও উত্তপ্ত লাদাখ সীমান্ত, ভারতের আরও এক সৈন্য নিহত
০২সেপ্টেম্বর,বুধবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ভারতের সঙ্গে প্রায় ৪ হাজার ৩৮৮ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে সীমানা রয়েছে চীনের। তাই সীমান্ত বিবাদ নিয়ে বহুবার সংঘর্ষে জড়িয়েছে এই দুই দেশ। মাস দুয়েক আগে হঠাৎ করেই আবার পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। গত ১৫ জুন লাদাখ সীমান্তে দুই বাহিনীর সংঘর্ষে ভারতের অন্তত ২০ সেনা প্রাণ হারান। তবে এ ঘটনায় চীনের কতজন হতাহত হয়েছে তা জানায়নি দেশটি। এমন পরিস্থিতিতে চলতি সপ্তাহে লাদাখ সীমান্তে চীনের সঙ্গে সংঘর্ষে ভারতের বিশেষ বাহিনীর এক সদস্য নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার তিব্বতের এক সংসদ সদস্যের বরাতে এ তথ্য জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ান। তিব্বতের নির্বাসিত সংসদ সদস্য নামগিয়াল দোলকার লাগিয়ারি বার্তা সংস্থা এএফপি’কে বলেন, শনিবার রাতের সংঘর্ষে তিব্বতিয়ান বংশোদ্ভূত এক ভারতীয় সৈন্য নিহত হয়েছেন। এসময় স্পেশাল ফ্রন্টিয়ার ফোর্সের (এসএফএফ) আরও এক সদস্য আহত হন। তবে ভারতীয় গণমাধ্যমে দেশটির কোনও সৈন্য নিহত হওয়ার খবর দেখা যায়নি। ভারত সরকারও এসএফএফের কার্যক্রম সম্পর্কে কোনও মন্তব্য করেনি।

আন্তর্জাতিক পাতার আরো খবর