ক্লোন এটিএম কার্ড দিয়ে ৭৮ কোটি রুপি হ্যাকিং!
অনলাইন ডেস্ক: মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, রাশিয়া ও সংযুক্ত আরব আমিরাতসহ ২৮ দেশের বিভিন্ন শহরে অবস্থিত ভারতের কসমস ব্যাংকের শাখা থেকে ক্লোন এটিএম কার্ড ব্যবহার করে প্রায় ৭৮ কোটি রুপি হাতিয়ে নিয়েছে একদল হ্যাকার। আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলো জানায়, ১১ থেকে ১৩ আগস্টের মধ্যে একদল অজ্ঞাত পরিচয় হ্যাকার ব্যাংকের এটিএম সুইচ সার্ভারে প্রবেশ করে বিভিন্ন তথ্য হাতিয়ে নেয়। তারা আন্তব্যাংক সুইফট সিস্টেমও আক্রমণ করে এবং সবমিলিয়ে ৯৪ কোটি রুপি পাচার করতে সক্ষম হয়। পুনে পুলিশের সাইবার ও অর্থ অপরাধ শাখার ডেপুটি পুলিশ কমিশনার জয়তি প্রিয়া সিং জানান, হ্যাকাররা ২৮টি দেশের ব্যাংক শাখায় স্বশরীরে গিয়ে ক্লোন কার্ডের মাধ্যমে টাকাগুলো উত্তোলন করে। অপরাধীদের সনাক্ত করতে এসব দেশের আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোর সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে।
উত্তর কোরিয়ায় পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সফর স্থগিত করলেন ট্রাম্প
অনলাইন ডেস্ক: মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেওর পরিকল্পিত উত্তর কোরিয়া সফর স্থগিত করে দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। নিকট ভবিষ্যতে তার কোনো ধরণের সফরও হওয়ার সম্ভাবনাও বাতিল করেছেন তিনি। বিবিসি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। মাইক পম্পেও উত্তর কোরিয়া বিষয়ক তার নয়া বিশেষ প্রতিনিধি স্টিফেন বিগানকে নিয়ে পিয়ংইয়ং সফরে যাবেন বলে ঘোষণা করার পরদিন ট্রাম্প এ সফর আটকে দিলেন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প শুক্রবার এক টুইটার বার্তায় পম্পেরও সফর স্থগিত করে দেয়ার কথা জানান। পিয়ংইয়ংয়ের পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ প্রক্রিয়ায় পর্যাপ্ত অগ্রগতি না হওয়াকে এ সফর স্থগিত করার কারণ হিসেবে উল্লেখ করেন তিনি। একইসঙ্গে কোরীয় উপদ্বীপের পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণ প্রক্রিয়ায় সহযোগিতা না করার জন্য চীনকে অভিযুক্ত করেন ট্রাম্প। ট্রাম্প বলেন, পরমাণু নিরস্ত্রীকরণে চীন উত্তর কোরিয়াকে পর্যাপ্ত চাপ দিচ্ছে না। আমেরিকার সাথে চীনের বাণিজ্য মতবিরোধ এর অন্যতম কারণ। শুক্রবার বিকালে পম্পেওকে হোয়াইট হাউজে ডেকে তার উত্তর কোরিয়া সফর বাতিল করার আহ্বান জানান প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবার উত্তর কোরিয়া সফরে যেতে পারলে গত জুনের দ্বিপক্ষীয় শীর্ষ বৈঠকের পর এটি হতো তার দ্বিতীয় পিয়ংইয়ং সফর। গত ১২ জুন সিঙ্গাপুরে কিম জং-উনের সঙ্গে বৈঠককে ব্যাপক সাফল্য বলে উল্লেখ করেছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। ওই শীর্ষ বৈঠকে উত্তর কোরিয়া নিজের পরমাণু অস্ত্র ধ্বংসের মৌখিক প্রতিশ্রুতি দিলেও দুইদেশের মধ্যে স্বাক্ষরিত সমঝোতায় কোনো শক্ত প্রতিশ্রুতি দেয়া থেকে বিরত থাকেন কিম। বিষয়টি নিয়ে দেশে সমালোচনার মুখে পড়েন ট্রাম্প। এদিকে আমেরিকার কয়েকজন গোয়েন্দা ও প্রতিরক্ষা কর্মকর্তা পম্পেওর উত্তর কোরিয়া সফরের সমালোচনা করে বলেছিলেন, তিনি বারবার উত্তর কোরিয়া সফরে গেলেও দেশটির পরমাণু অস্ত্র ধ্বংসের ব্যাপারে উল্লেখযোগ্য কোনো অগ্রগতি হয়নি। এর আগে একাধিকবার উত্তর কোরিয়া সফরে গিয়ে কিম জং-উনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন পম্পেও।
লিবিয়ায় ৪৫ জনের মৃত্যুদণ্ডের আদেশ-৫৪ জনের কারাদণ্ড
অনলাইন ডেস্ক: ২০১১ সালে লিবিয়ার রাজধানী ত্রিপোলিতে প্রেসিডেন্ট মোয়াম্মার গাদ্দাফির বিরুদ্ধে গণঅভ্যুত্থানকালে বিক্ষোভকারীদের নির্বিচারে গুলি করে হত্যার দায়ে ৪৫ জনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন দেশটির একটি আদালত। বুধবার (১৫ আগস্ট) আদালত ওই ৪৫ জনকে ফায়ারিং স্কোয়াডে নিয়ে গুলি করে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের এ আদেশ দেন। আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, দণ্ডপ্রাপ্তদের একটি মিলিশিয়া গোষ্ঠীর সদস্য বলছে স্থানীয় পশ্চিমাপন্থি সরকার। গাদ্দাফির বিরুদ্ধে লাখো জনতা রাস্তায় নেমে এলে এই গোষ্ঠীর সদস্যরা তখন নির্বিচারে গুলি ছোড়ে এবং অনেককে হত্যা করে। ধারণা করা হচ্ছে, গাদ্দাফির পতনের পর আফ্রিকার আরব দেশটিতে এখন পর্যন্ত এটিই সবচেয়ে বেশি মৃত্যুদণ্ডাদেশের ঘটনা। দেশটির সরকারি কৌঁসুলিরা জানান, ওই ঘটনায় আরও ৫৪ জনকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। তবে মামলা থেকে রেহাই দেওয়া হয়েছে ২২ জনকে। অভিযুক্তদের কবে গ্রেফতার করা হয়েছে কিংবা তাদের বিরুদ্ধে কবে অভিযোগ গঠন করা হয়েছে, সেসব বিষয়ে কিছু স্পষ্ট করেননি রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলিরা। ওই দেশের সরকার এই দণ্ডপ্রাপ্তদের মিলিশিয়া গোষ্ঠীর বললেও আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম বলছে, মোয়াম্মার গাদ্দাফির পতনের খবরে ত্রিপোলির আবু সালিমে আগাম উদযাপনে নামে সরকারবিরোধীরা। এসময় গাদ্দাফিপন্থি স্থানীয় বাসিন্দারা নির্বিচারে গুলি ছোড়ে বিরোধীদের ওপর। তারপর বিজয়ী বিরোধীরা অভিযুক্তদের অনেককে গ্রেফতার করে। ২০১১ সালের অক্টোবরে বিদ্রোহীদের হাতে গাদ্দাফি নিহত হওয়ার প্রায় সাত বছরেরও বেশি সময় ধরে অস্থিতিশীলতার মধ্যে যাচ্ছে লিবিয়া। যদিও পশ্চিমা গোষ্ঠীর সমর্থনপুষ্ট ত্রিপোলি সরকার সম্প্রতি সেখানে শান্তি প্রতিষ্ঠার দাবি করেছে।
ভূমিকম্পে ১০ ইঞ্চি উপরে উঠে গেল ইন্দোনেশিয়ার দ্বীপ
অনলাইন ডেস্ক: ভয়াবহ ভূমিকম্পে কেঁপে ওঠা ইন্দোনেশিয়ার লম্বক দ্বীপ ১০ ইঞ্চি উপরে উঠে গেছে বলে জানা গেছে। শনিবার বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, উপগ্রহ চিত্র মারফত এই তথ্যের প্রমাণ মিলেছে। বিজ্ঞানীদের মতে, ছবিতে স্পষ্ট লম্বক দ্বীপের মাটি উঁচুনিচু ও অসমান হয়েছে। দ্বীপের উত্তর-পশ্চিম পাশ অর্থাৎ ভূমিকম্পের কেন্দ্রস্থলের কাছে ভূখণ্ডটি প্রায় ১০ ইঞ্চি উঁচু হয়ে গেছে। এমনই তথ্য জানাচ্ছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা ও ক্যালিফোর্নিয়া ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি। ৫ আগষ্টের ওই ভূমিকম্পে শুধু দ্বীপ উচুঁই হয়ে যায়নি, বিভিন্ন জায়গা দুই থেকে ছয় ইঞ্চি নিচুও হয়ে গেছে। বিজ্ঞানীরা বলছেন, প্রশান্ত মহাসাগরীয় বেসিনে আগ্নেয়গিরি আর চ্যুতি রেখার অবস্থানের কারণে বিশ্বের অন্যতম ভূমিকম্পপ্রবণ এলাকা তথা রিং অব ফায়ারের মধ্যে পড়েছে ইন্দোনেশিয়া। ফলে এখানে ভূমিকম্প নিত্যদিনের ঘটনা। উল্লেখ্য, ওই ভূমিকম্পের মাত্রা ছিল ৬ দশমিক ৯। জাতীয় সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে রোববারের সেই ভূমিকম্পে নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে প্রায় ৪০০। তবে সরকারি সংস্থা বলছে, ভূমিকম্প আঘাত হানার পর এ পর্যন্ত ৩৮১ জনের মৃত্যু হয়েছে।
জার্মানিতে পানি কমতেই নদীতে বেরিয়ে আসছে অস্ত্র
অনলাইন ডেস্ক: দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় এবং যুদ্ধের পর নদী বা জলাশয়ে অস্ত্র, বোমা ও অন্যান্য উপকরণ ফেলে দেয়া হয়েছিল। এতদিন পর এসব সামরিক অস্ত্র-শস্ত্র বের হচ্ছে। কারণ, জার্মানি জুড়ে তাপমাত্রা বৃদ্ধিতে জলাশয়ের পানি কমে গেছে। তবে এসব অস্ত্রের দেখা পেলে তাতে স্পর্শ না করতে সতর্ক করেছে দেশটির পুুলিশ। পুলিশের দেয়া তথ্যানুযায়ী, জার্মানির পূর্বাঞ্চলের সাক্সনি আনহাল্ট আর সাক্সনি রাজ্যে এল্বে নদীর বিভিন্ন জায়গায় দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের বিপুল পরিমাণ বোমা ও অস্ত্র পাওয়া গেছে। এগুলোর মধ্যে আছে রয়েছে- ২২টি গ্রেনেড, মাইন ও অন্যান্য বিস্ফোরক দ্রব্য। পুলিশের এক কর্মকর্তা বলেন,এটা পরিষ্কার যে পানির স্তর নীচে নেমে যাওয়ায় এগুলো পাওয়া যাচ্ছে।’ জার্মানিতে এ বছর জুলাইকে বলা হচ্ছে উষ্ণতম মাস। ৩১ জুলাই সাক্সনি আনহাল্টে তাপমাত্রা ছিল সর্বোচ্চ ৩৯ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সপ্তাহের শুরুতে সাক্সনি আনহাল্টের মাগডেবুর্গে পানির উচ্চতা রেকর্ড পরিমান ৫১ সেন্টিমিটার কমে গেছে। যেখানে সর্বশেষ ১৯৩৪ সালে পানি কমেছিল ৪৮ সেন্টিমিটার। দেশটির পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, এ রকম কোনো অস্ত্র বা সরঞ্জাম দেখতে পেলে প্রথমে তাদেরকে যেন খবর দেয়া হয়। এরপর অস্ত্র নিষ্ক্রিয়করণ বিশেষজ্ঞরা পরীক্ষা করে সেগুলোকে নিষ্ক্রিয় করেন। এছাড়া যেগুলো নিষ্ক্রিয় করা যায় না, সেগুলোকে খোলা জায়গায় নিয়ে বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। গত মাসে এলবে নদীতে পাওয়া দুটি অ্যান্টি ট্যাংক মাইনের বিস্ফোরণ ঘটিয়েছেন অস্ত্র নিষ্ক্রিয়করণ বিশেষজ্ঞরা। শীর্ষ নিউজ
মার্কিন নিষেধাজ্ঞা যুদ্ধ ঘোষণার শামিল: রুশ প্রধানমন্ত্রী
অনলাইন ডেস্ক: যুক্তরাজ্যের সলসবুরিতে সাবেক রুশ গোয়েন্দা ও তার কন্যাকে নার্ভ এজেন্ট প্রয়োগে হত্যাচেষ্টায় রাশিয়ার সংশ্লিষ্টার অভিযোগ এনে তাদের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। আর যুক্তরাষ্ট্রের এমন নিষেধাজ্ঞা যুদ্ধের শামিল বলে অভিহিত করেছেন রুশ প্রধানমন্ত্রী দিমিত্রি মেদভেদেভ। রাশিয়ার ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে রুশ প্রধানমন্ত্রী বলেন, তার দেশের বিরুদ্ধে মার্কিন সরকারের পক্ষ থেকে আরোপিত যেকোনো নিষেধাজ্ঞা মস্কোর বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণার শামিল এবং রাশিয়া এ ব্যাপারে পাল্টা ব্যবস্থা নেবে। রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী গতকাল দেশটির পূর্বাঞ্চলীয় কামচাটকা উপত্যকা সফরে গিয়ে এ ব্যাপারে প্রতিক্রিয়া জানান। মেদভেদেভ বলেন, রাশিয়ার আর্থিক প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা বরদাশত করা হবে না। গত বুধবার থেকে যুক্তরাষ্ট্রে তৎপর রাশিয়ার রাষ্ট্র নিয়ন্ত্রিত বেশ কয়েকটি ব্যাংকের কার্যক্রমের ওপর ওই নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়। এর ফলে এসব ব্যাংক কর্তৃক ডলার ব্যবহারের ওপর সীমাবদ্ধতা আরোপ করা হয়েছে। রাশিয়ার ব্যাংকসহ আর্থিক প্রতিষ্ঠান এবং বৈদেশিক মুদ্রা ব্যবহারের ওপর নিষেধাজ্ঞাকে মস্কোর বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক যুদ্ধ ঘোষণার শামিল ধরে নেয়া হবে জানিয়ে রুশ প্রধানমন্ত্রী বলেন, এ ধরনের পদক্ষেপের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক এমনকি প্রয়োজনে অন্য কোনো উপায়ে জবাব দেবে মস্কো। মার্কিন কর্মকর্তাদের এ বিষয়টি উপলব্ধি করা উচিত বলেও তিনি মন্তব্য করেন।
ইরান ত্যাগ করেছে কমপক্ষে ১০০ আন্তর্জাতিক কোম্পানী
অনলাইন ডেস্ক :সম্প্রতি ইরানের ওপর মার্কিন অবরোধ দিয়েছে। এ কারণে অর্থনৈতিক মন্দার আশঙ্কায় ইরান ত্যাগ করেছে কমপক্ষে ১০০ আন্তর্জাতিক কোম্পানী। মার্কিন গণমাধ্যম সিএনএন এর বরাতে আনাদোলু এজেন্সি এ খবর দিয়েছে।নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা সিএনএনকে জানান, মার্কিন অবরোধের সাথে সাড়া দিয়ে ১০০ টি বিদেশী কোম্পানী ইরান ত্যাগের সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছে। ঐ কর্মকর্তা আরও জানান, আমরা আনন্দিত যে জ্বালানী এবং বিনিয়োগ খাত থেকে এতগুলো কোম্পানী আমাদের সিদ্ধান্তের প্রতি একাত্মতা পোষণ করেছে। সিএনএন মোতাবেক, এসব কোম্পানীর মধ্যে প্রসিদ্ধ হলো ফ্রান্সের বেজো ও রোনো, জার্মানির গাড়ি উৎপাদন কোম্পানী দিয়ালমার, ফ্রান্সের টোটাল, জার্মানির সিমেনস ইত্যাদি। উল্লেখ্য, চলতি বছরের নভেম্বর মাসে দ্বিতীয় দফায় ইরানের জ্বালানী খাতকে টার্গেট করে অবরোধ কার্যকর করবে যুক্তরাষ্ট্র। সূত্র :

আন্তর্জাতিক পাতার আরো খবর