মিয়ানমারের সেনা সমাবেশে সীমান্ত এলাকায় আতঙ্ক
সন্ত্রাসী হামলার আশঙ্কায় বাংলাদেশ সীমান্তে নতুন করে সেনা মোতায়েন করা হয়েছে বলে দাবি করেছে মিয়ানমার। তারা বলেছে, বাংলাদেশের বিরোধিতা করা তাদের লক্ষ্য নয়। গতকাল শুক্রবার মিয়ানমার সরকারের মুখপাত্র জ হতে এএফপিকে এ কথা বলেন। বাংলাদেশ যত দ্রুত সম্ভব মিয়ানমারকে সেনা প্রত্যাহার করতে বলেছে। সেনা মোতায়েনের ঘটনায় দুই দেশের সীমান্তে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়েছে। এ ঘটনা মিয়ানমারে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের বিষয়টিকে বিলম্বিত করবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এএফপির খবরে জানানো হয়, দুই দেশের শূন্যরেখায় অবস্থান নেওয়া রোহিঙ্গাদের ঘিরে এ সপ্তাহে মিয়ানমার সেনাসমাবেশ বাড়িয়েছে। মিয়ানমারে সামরিক বাহিনীর নৃশংস অভিযানের কারণে গত বছরের আগস্ট মাসে দেশটি থেকে রোহিঙ্গারা পালিয়ে আসছে। এখন পর্যন্ত প্রায় সাত লাখ রোহিঙ্গা সীমান্ত দিয়ে পালিয়ে এসেছে। এর মধ্যে অধিকাংশ বাংলাদেশের কক্সবাজারে আশ্রয় নিয়েছে। শূন্যরেখায় এখন প্রায় ছয় হাজার রোহিঙ্গা আশ্রয় নিয়েছে। দেশ থেকে রোহিঙ্গা মুসলিমদের বিতাড়নে এ ঘটনা ঘটানো হচ্ছে বলে মিয়ানমারকে দোষারোপ করছে জাতিসংঘ। এ ধরনের অভিযানের বিষয়টি বরাবরই অস্বীকার করে আসছে মিয়ানমার। হঠাৎ করে সীমান্তে সেনাসংখ্যা বাড়ানোর বিষয়ে জ হতে বলেন, রোহিঙ্গা জঙ্গিদের তৎপরতা সম্পর্কে গোয়েন্দা তথ্য পাওয়া গেছে। তিনি বলেন, সন্ত্রাসী তৎপরতার তথ্যের ভিত্তিতে এ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। বিশেষ করে রোহিঙ্গা জঙ্গিগোষ্ঠী আরসার (আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি) নতুন তৎপরতা সম্পর্কে তথ্য পাওয়া গেছে। সেনা মোতায়েনের বিষয়টি বাংলাদেশকে লক্ষ্য করে কিছু নয়। বৃহস্পতিবার বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, এ ঘটনায় ঢাকায় মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে তলব করে দ্রুত ওই এলাকা থেকে সামরিক উপকরণসহ সেনাদের সরিয়ে নিতে বলা হয়েছে। গত কয়েক সপ্তাহে শূন্যরেখায় আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গারা মিয়ানমারের সেনাদের চাপের মধ্য রয়েছে। মাইকিং করে রোহিঙ্গাদের তারা শূন্যরেখা থেকে চলে যেতে বলেছে। বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) ও রোহিঙ্গাদের দেওয়া তথ্য অনুসারে, গতকাল শূন্যরেখার পাশে নতুন করে আরও ১০০ সেনা ভারী অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে টহল দেওয়া শুরু করে। গত জানুয়ারি মাসে দুই দেশের মধ্যে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিয়ে চুক্তি হয়। এর মধ্যে সীমান্তের এই উত্তেজনা প্রত্যাবাসনের বিষয়টিকে বাধাগ্রস্ত করতে পারে। ওই সময় প্রস্তুতির অভাবে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের প্রক্রিয়াটি শেষ মুহূর্তে ঝুলে যায়। যথাযথ নিরাপত্তা ও নাগরিকত্বের বিষয়টি নিশ্চিত না করে মিয়ানমারে ফেরত যেতে অস্বীকৃতি জানিয়ে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের বিক্ষোভ করে। মিয়ানমার সব সময় দাবি করে আসছে, রোহিঙ্গারা বাংলাদেশের নাগরিক। তারা অবৈধভাবে মিয়ানমারে প্রবেশ করে বাস করছে। রাখাইন রাজ্যে বংশপরম্পরায় বাস করে আসা রোহিঙ্গারা মিয়ানমারে সব ধরনের মৌলিক অধিকার ও সেবা থেকে বঞ্চিত রয়েছে।
হতাহতদের প্রতি জাতিসংঘ মহাসচিবের শোক
সাত বাংলাদেশি শান্তিরক্ষী হতাহতদের হওয়ার ঘটনায় গভীর শোক প্রকাশ করেছেন জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস। এ ঘটনায় বাংলাদেশ সরকার ও হতাহতদের পরিবারের প্রতি গভীর শোক ও সমবেদনা প্রকাশ করেছেনতিনি। স্থানীয় সময় বুধবার বেলা আড়াইটার দিকে পশ্চিম আফ্রিকার দেশ মালির মোপতি অঞ্চলে এ বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এতে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে থাকা বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর চার সদস্য নিহত এবং গুরুতর আহত হয়েছেন আরও অন্তত তিনজন। জাতিসংঘ মহাসচিব গুতেরেস এই হামলাকে কাপুরুষোচিত বলেও উল্লেখ করেছেন এবং আহতদের দ্রুত আরোগ্য কামনা করেছেন। একই সঙ্গে হামলাকারীদের বিরুদ্ধে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন গুতেরেস। বিবৃতিতে তিনি বলেন, জাতিসংঘ শান্তি মিশনের কর্মীদের লক্ষ্য করে যারা এসব হামলা চালাচ্ছে আন্তর্জাতিক আইনে তারা যুদ্ধাপরাধী হিসেবে বিবেচিত এবং এজন্য তাদেরকে কঠিন বিচারের সম্মুখীন হতে হবে। এসময় তিনি আরো বলেন, এসব হামলা সত্ত্বেও মালিতে স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠা এবং সাধারণ মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য দেশটির সরকারের প্রচেষ্টার প্রতি জাতিসংঘের সমর্থন অব্যাহত থাকবে। নিহতরা হলেন- ওয়ারেন্ট অফিসার আবুল কালাম (পিরোজপুর), ল্যান্স কর্পোরাল আকতার (ময়মনসিংহ), সৈনিক রায়হান (পাবনা) ও সৈনিক জামাল (চাঁপাইনবাবগঞ্জ)। আহতরা হলেন- কর্পোরাল রাসেল (নওগাঁ), সৈনিক আকরাম (রাজবাড়ী), সৈনিক নিউটন (যশোর) ও সৈনিক রাশেদ (কুড়িগ্রাম)।
পরমাণু চালিত যুদ্ধবিমানবাহী রণতরী তৈরি করছে চীন
চীনের সরকারি কাগজ গ্লোবাল টাইমস জানিয়েছে, পরমাণু চালিত যুদ্ধবিমানবাহী রণতরী তৈরি করছে চীন। রাষ্ট্রায়ত্ত চায়না শিপবিল্ডিং ইন্ডাস্ট্রি কর্পোরেশন অবশ্য ওই রিপোর্ট নিয়ে কোনো মন্তব্য করেনি। তারা শুধু বলেছে, প্রযুক্তিগত উন্নতির মাধ্যমে ২০২৫ সালের মধ্যেই চীনের নৌবাহিনীকে আধুনিকভাবে গড়ে তোলা সম্ভব হবে। গ্লোবাল টাইমস লিখেছিল, রণতরী ছাড়াও অত্যাধুনিক সাবমেরিন ও পানির তলায় স্বয়ংক্রিয় নিরাপত্তা ব্যবস্থা গড়ে তোলার কাজ চলছে। এই সিএসআইসি চীনের রণতরী নির্মাণের কাজ করে। এদের কর্মসূচি সম্পূর্ণ গোপন রাখা হয়। এদিকে, ভারতকে ঘিরে ধরতে চাইছে চীন। সেই লক্ষ্যেই ভারত মহাসাগরে তৎপরতা বাড়াচ্ছে বেইজিং। অভিমত মার্কিন সামরিক কর্তার। সেন্ট্রাল কমান্ডের কমান্ডার জেনারেল জোসেফ ভোটেল বলেছেন, বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভ অর্থনীতির পাশাপাশি চীনের সামরিক অবস্থানকেও মজবুত করবে। ভোটেল বলেন, ইরানের সঙ্গেও অর্থনৈতিক ও কূটনৈতিক সম্পর্ক ভালো করতে চাইছে চীন। যেহেতু উপসাগরীয় দেশগুলি থেকে নিজেদের প্রয়োজনের এক-তৃতীয়াংশ জ্বালানি সংগ্রহ করতে হয়, তাই ওই দেশগুলির সঙ্গে সম্পর্ক ভালো করছে চীন। পাকিস্তানের গদর পোর্ট ও জিবুতি বন্দরের মাধ্যমে চীন ভারত মহাসাগরে নিজেদের উপস্থিতি জোরদার করতে চাইছে বলে দাবি করেছেন মার্কিন সেনা কর্তা। মার্কিন নৌঘাঁটিতে রহস্যজনক চিঠি, অসুস্থ ১১ চিঠির খাম খুলতেই অসুস্থ হয়ে পড়লেন ১১ জন নৌবাহিনী। ওয়াশিংটনের কাছে একটি সেনাঘাঁটিতে ঘটনাটি ঘটেছে। ঘটনার তদন্ত শুরু করে দিয়েছে এফবিআই। মঙ্গলবার ভার্জিনিয়ার জয়েন্ট বেস ফোর্ট মায়ার-হেন্ডারসন হলে এক সেনা অফিসার একটি খাম পান। চিঠিটি মেরিন সদর দপ্তরের ঠিকানায় লেখা ছিল। সেনারা খামটি খোলার পর তাদের হাত চুলকাতে শুরু করে। কয়েক মিনিটের মধ্যে নাক ও মুখমণ্ডল দিয়ে রক্ত বের হতে থাকে। কমপক্ষে ১১ জন নৌসেনা এই ঘটনায় অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাদের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। তাদের মধ্যে তিনজনের অবস্থা স্থিতিশীল। খামটিতে ক্ষতিকারক কিছু ছিল বলে মনে করা হচ্ছে। তবে নিশ্চিত হতে চিঠির খামটি পরীক্ষার জন্য গবেষণাগারে পাঠানো হয়েছে। এদিকে নেভাল ক্রিমিনাল ইনভেস্টিগেটিভ সার্ভিস ও এফবিআই ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।
মার্কিন প্রেসিডেন্ট নোবেল পুরস্কারের মনোনয়ন 'ভুয়া ' প্রমাণিত
মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার দেওয়ার ব্যাপারে একটি মনোনয়ন ভুয়া বলে প্রমাণিত হয়েছে। এই জালিয়াতির ব্যাপারে নোবেল কমিটি নরওয়ের পুলিশের কাছে অভিযোগ করেছে বলে জানা যাচ্ছে। অজ্ঞাতপরিচয় একজন আমেরিকান 'বল প্রয়োগের মাধ্যমে বিশ্ব শান্তি' আনার জন্য ট্রাম্পের নাম নোবেল কমিটির কাছে পাঠিয়ে দেন বলে খবরে বলা হচ্ছে। অসলোর নোবেল ইন্সটিটিউটের পরিচালক ওলাভ নিওলস্টাড স্থানীয় সংবাদমাধ্যমকে বলেন, 'আমাদের স্থির বিশ্বাস যে এই মনোনয়ন জাল। এ ধরনের 'ভুয়া মনোনয়ন' আমরা গত বছরও দেখেছি।' নোবেল কমিটির বিবেচনার জন্য প্রতিবছর মনোনয়ন পাঠানোর শেষ তারিখ ৩১ জানুয়ারি। অক্টোবর মাসের গোঁড়ার দিকে এই পুরস্কার ঘোষণা করা হয়। আর প্রার্থীদের মনোনয়নের কাজটা চরম গোপনীয়তার মধ্যে চালানো হয়। সরকারি কর্মকর্তা, সংসদ সদস্য, সাবেক নোবেল বিজয়ী, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকসহ নির্বাচিত কিছু ব্যক্তিত্ব এই মনোনয়ন পাঠাতে পারেন। সম্প্রতি ২০১৭ সালের নোবেল পুরস্কার পেয়েছিল পরমাণু অস্ত্র-বিরোধী সংগঠন আইসিএএনডাব্লিউ। মার্কিন প্রেসিডেন্টদের মধ্যে বারাক ওবামা এবং বিল ক্লিনটন এই সম্মান অর্জন করেন। বিবিসি বাংলার রিপোর্ট
মালিতে বোমা বিস্ফোরণে ৪ বাংলাদেশি শান্তিরক্ষী নিহত
পশ্চিম আফ্রিকার মালিতে মাইন বিস্ফোরণে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী বাহিনীতে নিয়োজিত বাংলাদেশের চার সেনাসদস্য নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও চার সেনা। স্থানীয় সময় বুধবার বেলা আড়াইটার দিকে দোয়েঞ্জা এলাকায় এই বিস্ফোরণ ঘটে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশের আন্তবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর)। নিহত সেনাসদস্যরা হলেন ওয়ারেন্ট অফিসার আবুল কালাম, পিরোজপুর (৩৭ এডি রেজিঃ আর্টিঃ), ল্যান্স কর্পোরাল আকতার, ময়মনসিংহ (৯ ফিল্ড রেজিঃ আর্টিঃ), সৈনিক রায়হান, পাবনা (৩২ ইবি), সৈনিক (পাচক) জামাল, চাঁপাইনবাবগঞ্জ (৩২ ইবি)। আহত চার সেনা সদস্যরা হলেন কর্পোরাল রাসেল, নওগাঁ (৩২ ইবি), সৈনিক আকরাম, রাজবাড়ী (৩২ ইবি), সৈনিক নিউটন, যশোর, সৈনিক রাশেদ, কুড়িগ্রাম (৩২ ইবি)। তাঁরা চিকিৎসাধীন। মালিতে নিয়োজিত বাংলাদেশের অন্য শান্তিরক্ষীরা নিরাপদে আছেন বলে জানিয়েছে আইএসপিআর।
আবারো ৬ মাত্রার ভূমিকম্প পাপুয়া নিউ গিনিতে
পাপুয়া নিউ গিনির পরগেরার ১১১ কিলোমিটার দক্ষিণপশ্চিমে বুধবার একটি শক্তিশালী ভূমিকম্প আঘাত হেনেছে। রিখটার স্কেলে এর মাত্রা ছিল ৬.০। মার্কিন ভূতাত্ত্বিক জরিপ সংস্থা একথা জানিয়েছে। খবর সিনহুয়ার। ভূমিকম্পটির উৎপত্তিস্থল ছিল ৬.১৭১৬ ডিগ্রী দক্ষিণ অক্ষাংশ থেকে ১৪২.৪৭৪৯ ডিগ্রী পূর্ব দাঘিমাংশে ভূ-পৃষ্ঠের ১০ কিলোমিটার গভীরে। এর আগে গত সোমবার ৭.৫ মাত্রার ভূমিকম্প দেশটির পার্বত্য অঞ্চলে পোরগেরা থেকে ৯০ কিলোমিটার দক্ষিণে আঘাত হানে। দেশটির এনগা প্রদেশে সোমবার ভোরে এই ভূমিকম্প হয়। যে দুর্ঘটনায় ৩০ জনেরও বেশি লোক প্রাণ হারিয়েছে বলে আশঙ্কা করা হয়েছে।
সিরিয়ার হামলায় রাসায়নিক অস্ত্রের সরঞ্জাম দিয়েছে উ. কোরিয়া
উত্তর কোরিয়া সিরিয়া সরকারকে রাসায়নিক অস্ত্র তৈরির উপকরণ সরবরাহ করছে বলে দাবি উঠেছে। জাতিসংঘ বিশেষজ্ঞদের তৈরি একটি প্রতিবেদনের বরাতে এমন খবর দিয়েছে মার্কিনসহ কয়েকটি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম। নিউইয়র্ক টাইমসের প্রতিবেদন অনুযায়ী, উত্তর কোরিয়া থেকে সিরিয়ায় সরবরাহ করা উপকরণগুলোর মধ্যে রয়েছে, এসিড রেসিসট্যন্ট টাইলস, ভালভস এবং থার্মোমিটার। খবর এবিসি নিউজ। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পিয়ংইয়ংয়ের ক্ষেপণাস্ত্র বিশেষজ্ঞদেরও সিরিয়ার অস্ত্র তৈরির কারখানাগুলোতে দেখা গেছে। জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তনিও গুতিয়েরেজ উত্তর কোরিয়া এবং সিরিয়াকে সতর্ক করেছেন যে, রাসায়নিক অস্ত্র তৈরি, এর ব্যবহার এবং উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে আরোপিত নিষেধাজ্ঞা সব দেশেরই মেনে চলা উচিৎ। সম্প্রতি সিরিয়ার ঘৌটায় বিষাক্ত ক্লোরিন গ্যাস ব্যবহারের অভিযোগ উঠেছে সিরীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে। যদিও এমন অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে আসাদ সরকার। সিরিয়ার বিরোধীদলীয় অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলেছে, বেশ কয়েকজনকে পার্শ্ববর্তী আল-শিফোনিয়ায় চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। আহতদের শ্বাসনালীতে যন্ত্রণা, প্রদাহ, চোখ জালা-পোড়া ও মাথা ঘোরার লক্ষণ পাওয়া গেছে। বিদ্রোহীদের হাত থেকে পূর্ব ঘৌটার নিয়ন্ত্রণ নিতে সিরিয়ার সরকারি প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদ বাহিনী একাধিক ফ্রন্ট থেকে হামলা চালিয়ে আসছে। গত এক সপ্তাহে পূর্ব ঘৌটায় সরকারি বাহিনীর হামলায় নারী শিশুসহ পাঁচ শতাধিক মানুষের প্রাণহানি ঘটেছে। জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞার পরেও একের পর এক পারমাণবিক অস্ত্রের পরীক্ষা চালিয়ে যাচ্ছে উত্তর কোরিয়া।
মানবিক যুদ্ধ বিরতি ঘোষণা পুতিনের
সিরিয়ার গৌতায় মানবিক যুদ্ধ বিরতির ঘোষণা দিয়েছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। এর আগে, শনিবার ত্রাণ ও চিকিৎসাসেবা পৌঁছানোর লক্ষ্যে সিরিয়ার গৌতায় ৩০ দিনের যুদ্ধবিরতি ঘোষণা দিয়েছে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ। বিভিন্ন পর্যবেক্ষক সংস্থা দাবি করেছে, গত এক সপ্তাহে ওই অঞ্চলে ৫৪০ জন মারা গেছে। জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের যুদ্ধবিরতির সিদ্ধান্তের কয়েক ঘন্টা পরই বিদ্রোহী অধ্যূষিত এলাকায় আক্রমণ চালায় সিরিয় বাহিনী। রবিবার বিদ্রোহী বাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়, পূর্ব গৌতার নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার লক্ষ্যে সিরীয় সেনাবাহিনী বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে। এদিকে, ত্রাণ সংস্থা 'সিরিয়ান আমেরিকান মেডিক্যাল সোসাইটি' জানায়, তাদের একটি হাসপাতালে আসা রোগীদের উপসর্গ দেখে ধারণা করা হচ্ছে, এখানে রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করা হয়েছে।
শি জিনপিং-এর প্রভাব ও ক্ষমতা বৃদ্ধি হতে চলেছে
প্রেসিডেন্ট ও ভাইস প্রেসিডেন্টের দুই দফা মেয়াদ বিষয়ক আইনে পরিবর্তন আনতে চলেছে চীন। স্থানীয় সময় রোববার ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টির সেন্ট্রাল কমিটি এই পরিবর্তন আনার প্রস্তাব উত্থাপন করেছে। ধারণা করা হচ্ছে, এতে করে দেশটির বর্তমান প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং-এর প্রভাব ও ক্ষমতা বৃদ্ধি হতে চলেছে। প্রসঙ্গত, চীনের বর্তমান আইন অনুযায়ী কোনো ব্যক্তি দুই দফার বেশি প্রেসিডেন্ট বা ভাইস প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালন করতে পারবেন না। চীনের রাষ্ট্র পরিচালিত বার্তা সংস্থা সিনহুয়া এক সংক্ষিপ্ত বিবৃতিতে জানিয়েছে, সেন্ট্রাল কমিটি দেশটির সংবিধান থেকে প্রেসিডেন্ট ও ভাইস প্রেসিডেন্ট সর্বোচ্চ পরপর দুই দফা দায়িত্ব পালন করতে পারবে- এই বিধান অপসারণের প্রস্তাব উত্থাপন করেছেন। প্রস্তাবটি রোববার জনসাধারণের জন্য প্রকাশ করা হয়েছে। শি জিনপিং গত বছর দ্বিতীয় দফায় পাঁচ বছরের জন্য চীনের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছেন। বর্তমান আইন অনুযায়ী, ২০২২ সাল পর্যন্ত দেশটির প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালন করবেন। এরপর আর প্রেসিডেন্ট পদে নির্বাচন করতে পারবেন না তিনি। তবে অনেক বিশ্লেষকের ধারণা, এতে তুষ্ট নন শি জিনপিং। তিনি আরো বেশিদিন ক্ষমতায় আসীন থাকতে চান। তার দলের সেন্ট্রাল কমিটি কর্তৃক প্রস্তাবিত আইন পাস হলে চলতি মেয়াদ শেষ হওয়ার পর ২০২২ সালেও প্রেসিডেন্ট পদে নির্বাচনে লড়তে পারবেন শি জিনপিং। কমিউনিস্ট পার্টির সেন্ট্রাল কমিটির প্রধান শি, শনিবার সংবিধানের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়ে কথা বলেছেন। ওইদিন এক সেন্ট্রাল কমিটি পলিট ব্যুরো বৈঠকে তিনি বলেন, কোনো সংস্থা বা ব্যক্তিরই সংবিধানের আইন লঙ্ঘনের ক্ষমতা নেই। গত মাসে সেন্ট্রাল কমিটির এক পূর্ণাঙ্গ অধিবেশনে দলের নেতারা শির নির্দেশনামূলক নীতিমালা সংবিধানের অন্তর্ভুক্ত করার পরিকল্পনা করেন। তাদের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, মার্চ মাসে অনুষ্ঠেয় ন্যাশনাল পিপলস কংগ্রেস-এ এই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা হবে। নতুন যুগের জন্য চীনা বৈশিষ্ট্যের সঙ্গে সমাজতন্ত্রের সমপর্ক নিয়ে শি জিনপিংয়ের ভাবনা শীর্ষক শির নীতিমালা গত বছর কমিউনিস্ট পার্টির সংবিধানে যোগ করা হয়।