জায়গা নেই কাশ্মীর কারাগারে
১৭আগস্ট,শনিবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: জম্মু-কাশ্মীর থেকে সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলকে কেন্দ্র করে প্রায় এক হাজার রাজনৈতিক নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করার পর তাঁদের আটক রাখার জায়গা পেতে হিমশিম খাচ্ছে প্রশাসন। উপত্যকার প্রশাসন এখন ব্যক্তিগত সম্পত্তি ভাড়া নিচ্ছে যাতে আটক ব্যক্তিদের সেখানে রাখা যায়। ভারতীয় গণমাধ্যম ইন্ডিয়া টুডের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শ্রীনগরের শের-ই-কাশ্মীর আন্তর্জাতিক কনভেনশন কেন্দ্রসহ বারামুল্লা ও গুরেজের কনভেনশন কেন্দ্রকে অস্থায়ী বন্দিশালা হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। এসব বন্দিশালায় অন্তত ৫৬০ জন রাজনৈতিক নেতাকর্মীকে আটক রাখা হয়েছে বলে জানা গেছে। ভারত সরকার জম্মু-কাশ্মীর বিষয়ে সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বিলোপ করার ঘোষণা দেওয়ার আগে ৪ আগস্ট রোববার গভীর রাতে কাশ্মীরের সাবেক দুই মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি ও ওমর আবদুল্লাহকে গৃহবন্দী করা হয়। এরপর ৫ আগস্ট ৩৭০ অনুচ্ছেদ রদের পর মেহবুবা মুফতি ও ওমর আবদুল্লাহকে গ্রেপ্তার করা হয়। সূত্রের বরাত দিয়ে ইন্ডিয়া টুডে জানায়, অতীতে যেসব রাজনৈতিক কর্মী পাথর নিক্ষেপের ঘটনায় জড়িত ছিল তাদেরও পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। পাশাপাশি উপত্যকার পরিস্থিতি যাতে নিয়ন্ত্রণের বাইরে না যায়, সেজন্য আরো অনেক রাজনৈতিক কর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। জম্মু-কাশ্মীর পুলিশের অতিরিক্ত মহাপরিচালক মুনির খান জানান, জননিরাপত্তা আইনের (পিএসএ) আওতায় কয়েকজন ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছে। সন্দেহভাজন কোনো ব্যক্তিকে কয়েক বছর কারাগারে আটকে রাখতে উপত্যকায় এই আইন ব্যবহার করা হয় বলে জানা গেছে। এক সংবাদ সম্মেলনে মুনির খান বলেন, ‘জননিরাপত্তা আইনের আওতায় কয়েকটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। আমরা তা চাই না কারো প্রাণহানি হোক।
মোদিকে ইমরান খানের বার্তা পাকিস্তানের সেনাবাহিনী প্রস্তুত
১৫ আগস্ট,বৃহস্পতিবার,অনলাইন ডেস্ক ,নিউজ একাত্তর ডট কম:ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে সতর্ক করলেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। আজাদ জম্মু-কাশ্মীরের পার্লামেন্টে বিশেষ অধিবেশনে বুধবার তিনি বক্তব্য রাখেন। সেখানে ইমরান খান বলেন, পাকিস্তানের ভিতরে ভারতের যেকোনো পদক্ষেপের শক্তিশালী পাল্টা জবাব দেবে পাকিস্তান। ওই অধিবেশনে বক্তব্য রাখেন আজাদ জম্মু কাশ্মীরের প্রধানমন্ত্রী রাজা ফারুক হায়দার। তিনি বলেন, কাশ্মীরের পর পাকিস্তানের ভিতরে সমস্যা সৃষ্টি করবে ভারত। তার সঙ্গে একমত প্রকাশ করেন ইমরান খান। তিনি বলেন, (ভারতের) এইসব কর্মকান্ড কাশ্মীরেই শেষ হবে না। এই ঘৃণাপূর্ণ আদর্শ পাকিস্তানের দিকেও ধাবিত হবে। আমাদের কাছে তথ্য আছে এবং আমরা এরই মধ্যে জাতীয় নিরাপত্তা কমিটির দুটি সভা করেছি। পাকিস্তানের সেনাবাহিনী পুরোপুরিভাবে অবহিত যে, আজাদ জম্মু কাশ্মীরে পদক্ষেপ নেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে ভারতের। এ খবর দিয়েছে অনলাইন ডন। ২০১৮ সালে প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর প্রথমবারের মতো বুধবার আজাদ কাশ্মীর পরিদর্শনে যান ইমরান খান। ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা কেড়ে নিয়েছে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার। এর কড়া প্রতিবাদ জানিয়েছেন ইমরান। তিনি কাশ্মীরিদের প্রতি সংহতি প্রকাশ করতে বুধবার যান আজাদ কাশ্মীরে। সেখানে পার্লামেন্টে বক্তব্য রাখেন। ভারতকে উদ্দেশ্য করে ইমরান খান বলেন, আমাদের তথ্যমতে, পুলওয়ামা হামলার পরে বালাকোটে তারা যেমন পদক্ষেপ নিয়েছিল, তার চেয়ে অধিক ভয়াবহ পরিকল্পনা নিয়েছে এখন। দখলীকৃত কাশ্মীর থেকে বিশ্ববাসীর দৃষ্টি সরিয়ে দিতে তারা এখন আজাদ কাশ্মীরের দিকে নজর বাড়াতে চায়। ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদিকে উদ্দেশ্য করে ইমরান খান বলেন, আপনার জন্য এটা আমার বার্তা: আপনি অ্যাকশনে যেতে পারেন এবং এর প্রতিটিরই পাল্টা জবাব দেয়া হবে। সেনাবাহিনী প্রস্তুত। শুধু সেনাবাহিনীই নয়। পুরো জাতি সেনাবাহিনীর পাশাপাশি যুদ্ধ করবে। মুসলিমরা যখন স্বাধীনতার জন্য যুদ্ধ করেছে তখন তারা বিশ্বের সেরা সেনাবাহিনীকে পরাজিত করেছে তারা। আপনারা যা করবেন তার জবাব দিতে আমরা প্রস্তুত। শেষ পর্যন্ত আমরা লড়াই করব। এর আগে কাশ্মীরিদের প্রতি সংহতি প্রকাশ করতে ইমরান খান আজাদ জম্মু কাশ্মীরের রাজধানী মুজাফফরাবাদে যান। সেখানে তিনি বলেন, পাকিস্তানের স্বাধীনতা দিবসে আমি আমার কাশ্মীরি ভাই ও বোনদের সঙ্গে অবস্থান করছি। তিনি সিরিজ টুইটও করেছেন। এতে ইমরান খান বলেছেন, বিশ্বের কাছে নরেন্দ্র মোদি ভারতীয় জনতা পার্টির প্রকৃত চেহারা তুলে ধরেছেন। তার ভাষায়, আমাদের সামনে এখন ভয়াবহ এক আদর্শ। তা হলো হিন্দু জাতীয়তাবাদী রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ (আরএসএস)-এর আদর্শ। শৈশব থেকেই এই সংঘের একজন সদস্য মোদি। নাৎসীদের মতো তাদের আদর্শ। তারা ভারত থেকে মুসলিম জাতিকে মুছে দেয়ার পরিকল্পনা নিয়েছে। যদি আপনারা এই আদর্শ বুঝতে পারেন, তাহলে অনেক কিছুই বুঝবেন। ইমরান খান আরো বলেন, আমরা আতঙ্কিত এই ভেবে যে, যখন দখলীকৃত কাশ্মীর থেকে কারফিউ প্রত্যাহার করা হবে তখন আমরা কি দেখব। তারা কি করতে চাইছে? নরেন্দ্র মোদি কৌশলগত ভুল করে ফেলেছেন। তিনি শেষ কার্ডটি ছুড়ে দিয়েছেন। তারা কাশ্মীরকে আন্তর্জাতিকীকরণ করেছেন। এখন বিশ্ববাসীর চোখ কাশ্মীর ও পাকিস্তানের দিকে। কাশ্মীরের কণ্ঠকে উচ্চে তুলে ধরার ক্ষেত্রে আমিই হব দূত। ইমরান খান আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কেও ছেড়ে কথা বলেন নি। তিনি বলেছেন, যদি এ ইস্যুতে যুদ্ধ হয় তাহলে তার জন্য দায়ী থাকবে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়। তার ভাষায়, আন্তর্জাতিক সংগঠনগুলো, যাদেরকে যুদ্ধ থামানোর জন্য গঠন করা হয়েছিল, তাদের প্রতি আমার বার্তা হলো: যদি যুদ্ধ হয় তাহলে আপনারা দায়ী থাকবেন। তিনি বলেন, পুরো মুসলিম বিশ্বসহ সারা দুনিয়া তাকিয়ে আছে জাতিসংঘের দিকে। সেপ্টেম্বরে জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশন চলাকালে জনগণ যখন বেরিয়ে আসবে তখন দেখতে পাবেন তাদের সংখ্যা। তিনি বলেন, কারফিউ চলাকালে যা কিছুই করছে ভারত, আমরা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে বলব, আপনারা দায়ী। আমরা যে ফোরামই পাব, সেখানে আমিই দূত হব এবং প্রতিটি ফোরামে কাশ্মীরকে তুলে ধরব। মোদি তার শেষ কার্ডটি খেলে দেয়ার পর কাশ্মীর এখন স্বাধীনতার দিকে ধাবিত হবে। তবে ইমরান খান একথা পুনর্ব্যক্ত করেন যে, যুদ্ধ কোনো সমস্যার সমাধান নয়। এতে বরং আরও সমস্যার সৃষ্টি করে। তিনি বলেন, তার সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই আলোচনার মাধ্যমে ভারতের সঙ্গে উত্তম সম্পর্ক রক্ষা করার চেষ্টা করে যাচ্ছে। তার ভাষায়, কিন্তু আলোচনায় তাদের কোনোই আগ্রহ নেই। তাদের একটিই আগ্রহ। তাহলো, পাকিস্তানকে শিক্ষা দেয়া। তাদের অন্তর ঘৃণায় ভরা। ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদিকে উদ্দেশ্য করে বক্তব্য শেষ করেন ইমরান খান। তিনি বলেন, কোনো ভ্রান্ত ধারণার ওপর থাকবেন না। আপনি একটি আইন পাস করেছেন বলে মনে করবেন না কাশ্মীরিরা পরাজয় বরণ করে নিয়েছে। কিন্তু হিতে তা লড়াইকে আরো কঠোর করেছে। তাদের ভয় চলে গেছে। আমরা দেখেছি, তারা রাস্তায় বেরিয়ে এসেছেন। শুধু সাহসী জাতিই এভাবে বেরিয়ে আসতে পারে। মোদি, আপনি কাশ্মীরিদের ক্রীতদাস বানাতে পারেন না। পাকিস্তানকে শিক্ষা দেয়ার জন্য আজাদ কাশ্মীর নিয়ে পরিকল্পনা রয়েছে আপনার। কিন্তু প্রস্তুত হোন। আমি আবার বলছি, আপনার প্রতিটি পদক্ষেপের পাল্টা জবাব দেব আমরা। এখন সময় এসেছে আপনাকে শিক্ষা দেয়ার।
আমাদের সরকার প্রতিটি ক্ষেত্রে দৃষ্টি দিয়েছে
১৫ আগস্ট,বৃহস্পতিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সংবিধানের ৩৭০ ধারা ও ৩৫-এ ধারা বাতিল করা হলো সরদার বল্লভভাই প্যাটেলের স্বপ্ন বাস্তবায়নের এক ধাপ অগ্রগতি। আজ বৃহস্পতিবার ভারতের ৭৩তম স্বাধীনতা দিবসের ভাষণে এ কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এ উপলক্ষে রাজধানী নয়া দিল্লিতে অবস্থিত রেড ফোর্টে বক্তব্য রাখছিলেন তিনি। এ সময় জাতির উদ্দেশে তিনি বলেন, দ্বিতীয় মেয়াদে তার সরকার স্বল্প সময়ের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে। তার ভাষায়, মাত্র ১০ সপ্তাহের মধ্যে আমাদের সরকার প্রতিটি ক্ষেত্রে দৃষ্টি দিয়েছে। জনগণকে সেবা দেয়ার জন্য তারা আমাদেরকে আবার ম্যান্ডেট দিয়েছেন। এক মুহূর্তও বিলম্ব না করে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। অল্প সময়ের মধ্যে আমরা সব সেক্টরে গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ নিয়েছি। এর মধ্যে রয়েছে জম্মু, কাশ্মীর, লাদাখ। তিন তালাক বন্ধ করা, কৃষক ও ব্যবসায়ীদের কল্যাণে পদক্ষেপ নেয়া। তিন তালাকের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে আমাদের মুসলিম বোনদের ন্যায়বিচার দিয়েছি। এ খবর দিয়েছে অনলাইন জি নিউজ। নরেন্দ্র মোদি বলেন, তার সরকার সমস্যা সৃষ্টি করা বা তা খুঁড়ে খুঁড়ে নতুন সমস্যা সৃষ্টিতে বিশ্বাসী নয়। তার ভাষায়, নতুন সরকারের ৭০ দিনেরও কম সময়ের মধ্যে আমরা অনুচ্ছেদ ৩৭০ বাতিল করেছি। পার্লামেন্টের উভয় কক্ষ এবং সদস্যদের দুই-তৃতীয়াংশ এতে আমাদেরকে সমর্থন দিয়েছেন। যারা অনুচ্ছেদ ৩৭০কে সমর্থন করছেন তাদের কড়া সমালোচনা করেন তিনি। বলেন, যদি এটা এতই গুরুত্বপূর্ণ হতো তাহলে কেন এই অনুচ্ছেদ স্থায়ী করা হয়নি? সর্বোপরি তাদেরকে অনেক মানুষ ভোট দিয়েছেন। কিন্তু তারা খুব সহজেই তাদের অবস্থান বদলে ফেলতে পারেন। তাদের বিষয়ে প্রশ্ন রয়েছে ভারতের। নরেন্দ্র মোদি বলেন, তার সরকার জম্মু, কাশ্মীর ও লাদাখের জনগণের সেবা করতে চায়। এ সময় তিনি বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের সঙ্গে পূর্ণ সংহতি প্রকাশ করেন। তাদেরকে সম্ভাব্য সব সহযোগিতা দেয়ার আশ্বাস দেন। মোদি বলেন, ২০১৩-১৪ সালে যখন আমি দেশ সফর করেছিলাম, তখন দেশের মানুষের চোখে হতাশার ছাপ দেখেছি। তাদের দৃষ্টিভঙ্গি ছিল, আমাদের দেশ কি কখনও পরিবর্তন হবে। কিন্তু গত ৫ বছরে আমরা সবাই একত্রিত হয়ে কাজ করেছি। জাতির মুড এখন পাল্টে গেছে। বিশ্বাস ও আস্থাকে আমরা পরিবর্তন করে দিতে পেরেছি। জনগণের সমস্যা সমাধানের বিষয়ে আমাদেরকে ভাবতে হবে। যদিও এ পথে বাধা আছে, তবু তা অতিক্রম করতে হবে। স্মরণ করুন মুসলিম নারীরা কি রকম ভীতিতে ছিলেন। তারা তিন তালাকের কারণে দুর্ভোগে পড়েছেন। এই চর্চা এখন আমরা বন্ধ করেছি।
পাকিস্তানের স্বাধীনতা দিবস উৎসর্গ কাশ্মীরিদের প্রতি
১৪আগস্ট,বুধবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম :বুধবার পাকিস্তানের স্বাধীনতা দিবস পালিত হবে কাশ্মীর সংহতি দিবস হিসেবে। অন্যদিকে ভারতের স্বাধীনতা দিবস ১৫ই আগস্ট পাকিস্তান পালন করবে কালোদিবস হিসেবে। কাশ্মীরিদের প্রতি ১৪ই আগস্ট, বুধবার পুরো পাকিস্তান পালন করবে কাশ্মীর সংহতি দিবস। এদিন পাকিস্তান শাসিত আজাদ কাশ্মীরের রাজধানী হিসেবে পরিচিত মুজাফফরাবাদ সফর করবেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। জাতীয় পর্যায়ে এ দিবসটি পালনের অংশ হিসেবে তিনি এ সফরে যাবেন। সেখানে কাশ্মীরের প্রতি সংহতি প্রকাশ করে তিনি আজাদ কাশ্মীরের পার্লামেন্টে বক্তব্য রাখবেন। এ খবর দিয়েছে অনলাইন ডন। এর আগে পবিত্র ঈদুল আযহার দিনে আলাদাভাবে মুজাফফরাবাদ সফরে যান পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি ও বিরোধী দল পাকিস্তান পিপলস পার্টির (পিপিপি) চেয়ারম্যান বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারি। তারা রোববার রাতে আলাদাভাবে ওই শহরে পৌঁছে একসঙ্গে পবিত্র ঈদুল আযহার নামাজ আদায় করেন। এর মধ্য দিয়ে তারা কাশ্মীরের জনগণের প্রতি তাদের সমর্থন প্রকাশ করেছেন। পাকিস্তানের স্বাধীনতা দিবস কাশ্মীরিদের প্রতি উৎসর্গ করা ও তাদের আত্মমর্যাদা প্রতিষ্ঠার সংগ্রামের প্রতি উৎসর্গ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে পাকিস্তানের জাতীয় নিরাপত্তা কমিটি (এনএসসি)। ভারতীয় জনতা পার্টি নেতৃত্বাধীন ভারত সরকার জম্মু কাশীরের অধিকার কেড়ে নেয়ার দুদিন পরে এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এতে আরো সিদ্ধান্ত হয় যে, ১৫ই আগস্ট ভারতের স্বাধীনতা দিবস। ভারত দখলীকৃত জম্মু-কাশ্মীরে চলমান নৃশংসতা, ভয়াবহ মানবাধিকার লঙ্ঘন ও কারফিউ আরোপের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে এ দিনটি পাকিস্তান পালন করবে কালোদিবস হিসেবে। ওদিকে পাকিস্তানের স্বাধীনতা দিবসের বিশেষ লোগো প্রকাশ করেছে পাকিস্তান। তাতে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে কাশ্মীরি জনগণের প্রতি সংহতি। এটা তৈরি করা হয়েছে কাশ্মীর বানেগা পাকিস্তান থিমের ওপর ভিত্তি করে। এতে কাশ্মীর শব্দটি লেখা হয়েছে লাল কালিতে। এটা ব্যবহার করা হয়েছে স্বাধীনতা আন্দোলনে জীবন উৎসর্গ করা কাশ্মীরি স্বাধীনতা যোদ্ধাদের উদ্দেশে। হকাররা বিভিন্ন স্টলে বা দোকানে বিক্রি করছেন জাতীয় পতাকা, ব্যানার, ব্যাজ, জাতীয় বীরদের ছবি যারা দক্ষিণ এশিয়ায় মুসলিমদের অভিন্ন লক্ষ্য অর্জনে অক্লান্তভাবে সংগ্রাম করে গেছেন। ছেলে ও মেয়েদের জন্য দুই রঙে তৈরি করা হয়েছে বিশেষ পোশাক। তাতে ব্যবহার করা হয়েছে সবুজ ও সাদা রঙ। এটা জাতীয় পতাকার রঙ। এসব পোশাক বিক্রি হচ্ছে বিভিন্ন শহরে। বিভিন্ন সংগঠন আয়োজন করছে সেমিনার, খেলাধুলা, জাতীয় সঙ্গীত ও বক্তব্য প্রতিযোগিতা। সরকার জাতীয় পর্যায়ে গুরুত্বপূর্ণ ভবন ও স্মৃতিসৌধগুলোকে সুসজ্জিত করেছে।
আল আকসা মসজিদে কাঁদানে গ্যাস, আহত ১৪
১৩আগস্ট,মঙ্গলবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম:পবিত্র আল আকসা মসজিদে ঈদুল আযহার নামাজ আদায় করছিলেন প্রায় এক লাখ মুসল্লি। এ সময় তাদের ওপর কাঁদানে গ্যাস, স্টান গ্রেনেড নিক্ষেপ করেছে ইসরাইলি পুলিশ। এতে কমপক্ষে ১৪ জন আহত হয়েছেন। এ খবর দিয়ে অনলাইন আরব নিউজ জানাচ্ছে, ইসরাইলি পুলিশ ও সরকার ইহুদি উগ্রপন্থিদের আল আকসা মসজিদ পরিদর্শনের অনুমতি দেয়ার পর রোববার মুসলিমদের সঙ্গে তাদের সংঘর্ষ হয়। প্রথমে সেখানে ইহুদিদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও পরে তাদেরকে অনুমতি দেয়া হয়। জেরুজালেমের পুলিশ কমান্ডার ডোরোন ইয়েডিড বলেছেন, রাজনৈতিক কর্মকর্তাদের সমর্থনে পরে নীতি পরিবর্তন করা হয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে ইসরাইল ও মুসলিমদের মধ্যে একটি বোঝাপড়া রয়েছে। তার অধীনে আল আকসা মসজিদ কমপ্লেকের ভিতরে প্রার্থনা করা থেকে ইহুদিদের নিষিদ্ধ করা হয়েছে। কিন্তু সাম্প্রতিক বছরগুলোতে উগ্র ডানপন্থি ইহুদিরা ওই বোঝাপড়াকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে মসজিদে তাদের পরিদর্শন বাড়তে থাকে। ইহুদি উগ্রপন্থিরা ওই মসজিদটির ধ্বংস চায়। এর পরিবর্তে তারা সেখানে ইহুদিদের টেম্পল পুনর্নির্মাণ করতে চায়। রোববার সকালে ইসলামিক ওয়াকফ কর্মকর্তারা এক ঘন্টার জন্য নামাজ বিলম্বিত করে জেরুজালেমে সব মসজিদ বন্ধ রেখে মুসলিমদের বাসায় অবস্থান করতে বলেন। উগ্রপন্থিদের ঔদ্ধত্যের কারণে এমন আহ্বান জানানো হয়। ইসলামিক ওয়াকফ কাউন্সিলের সদস্য খলিল আসালি আরব নিউজকে বলেছেন, ১৯৬৭ সাল থেকে যে বোঝাপড়া চলে আসছে তা এবার সুস্পষ্টভাবে লঙ্ঘন করা হয়েছে। এর মাধ্যমে তারা দেখানোর চেষ্টা করছে যে, আল আকসা মসজিদ মুসলিমদের নয়। আল আকসার রক্ষক জর্ডান। তারা রোববারের সহিংসতার জন্য ইসরাইলকে দায়ী করে আনুষ্টানিকভাবে অভিযোগ জমা দিয়েছে ইসরাইল সরকারের কাছে।
মধ্যপ্রাচ্যে ঈদুল আজহা উদযাপন
১১আগস্ট,রবিবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম:ত্যাগে ও আনন্দে সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাতসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে উদযাপন হচ্ছে পবিত্র ঈদুল আজহা। রোববার স্থানীয় সময় ভোর থেকে দেশগুলোতে ঈদের জামাতে সমাবেত হন লাখো মানুষ। নামাজ আদায়ের পর মোনাজাতে মুসলিম উম্মাহ ও বিশ্বের শান্তি কামনা করা হয়। সৌদির পবিত্র শহর মক্কা, মদিনাসহ বিভিন্ন অঞ্চলের মসজিদে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। ধনী-গরিব সব শ্রেণির মানুষ এক কাতারে ঈদ নামাজ আদায় শেষে নিয়ম মেনে শুরু হয় পশু কোরবানি। গালফ নিউজের প্রতিবেদনে বলা হয়, সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাজধানী আবুধাবি, দুবাই, শারজাহর বিভিন্ন মসজিদে ঈদুল আজহার জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। ভোর থেকে বাহারি পোশক পরে এসব জামাতে অংশ নেন হাজার হাজার মানুষ। সাধারণত ফজরের নামাজের পর থেকে সকল মসজিদে আল্লাহু আকবর, আল্লাহু আকবর, লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াল্লাহু আকবর, আল্লাহু আকবর, ওয়া লিল্লাহিল হামদ ধ্বনিতে মুখরিত হয়ে ওঠে আমিরাতের প্রতিটি মসজিদ। আবুধাবিতে ৬টা ১২ মিনিটে, আল আইনে ৬টা ৬ মিনিটে, শারজায় ৬টা ৬ মিনিটে, আজমানে ৬টা ৬ মিনিটে, ফুজাইরায় ৬টা ৪ মিনিটে, উম্মে আল কুইনে ৬টা ৬ মিনিটে ও রাস আল খাইমায় ৬টা ৪ মিনিটে ঈদের নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। এদিকে মুসলমানদের বড় ধরনের এ উৎসব ঘিরে মধ্যপ্রাচ্যের প্রতিটি দেশেই নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। দেশগুলোর নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য সতর্ক অবস্থানে রয়েছেন বলে স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলো থেকে জানা গেছে।
নরওয়েতে মসজিদে গুলি
১১আগস্ট,রবিবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম:নরওয়েতে মসজিদের ভিতরে প্রবেশ করে গুলি চালিয়েছে এক অস্ত্রধারী। এতে একজন মুসল্লি আহত হয়েছেন। ততক্ষণে অন্য মুসল্লিরা ওই অস্ত্রধারীকে পাকড়াও করেন। পুলিশ উপস্থিত হয়ে তাকে গ্রেপ্তার করেছে। অন্যদিকে তার বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয়েছে একজন মৃত নারীকে। এ খবর দিয়েছে অনলাইন বিবিসি। এ ঘটনা ঘটেছে শনিবার রাজধানী অসলোর বাইরে আল নূর ইসলামিক সেন্টারে। স্থানীয় পুলিশের সহকারী প্রধান রুনে স্কোলড বলেছেন, সন্দেহজনকভাবে গ্রেপ্তার করা ওই ব্যক্তি ২০ বছর বয়সী নরওয়ের একজন নাগরিক।একজন আত্মীয়কে হত্যার জন্য এখন তাকে সন্দেহ করা হচ্ছে। তিনি বলেন, ওই হত্যাকা-কে আমরা সন্দেহের চোখে দেখছি। তার বাড়ি থেকে মৃত উদ্ধার করা ওই নারী তার আত্মীয়। তার মৃত্যুর সঙ্গে সে জড়িত বলে আমাদের সন্দেহ।পুলিশ আরো বলছে, হামলাকারী একাই মসজিদে হামলা করেছে। মসজিদটির পরিচালক ইরফান মুসতাক স্থানীয় পত্রিকা বুদস্তিকাকে বলেছেন, গুলিতে আহত হয়েছেন ৭৫ বছর বয়সী একজন মুসল্লি। তার ভাষায়, মাথায় হেলমেট ও ইউনিফর্ম পরা এক শে^তাঙ্গ যুবক আমাদের একজন সদস্যকে গুলি করেছে। পরে তিনি স্থানীয় টেলিভিশন চ্যানেল টিভি২কে বলেছেন, শটগানের মতো দুটি অস্ত্র ও একটি পিস্তল ছিল হামলাকারীর সঙ্গে। সে কাচের দরজা ভেঙে ভিতরে প্রবেশ করে গুলি করা শুরু হরে। এ সময় তাকে মসজিদের অন্যরা পাকড়াও করে। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে তাকে গ্রেপ্তার করে। সরকারি টেলিভিশন এনআরকেকে পুলিশের সূত্র বলেছে, নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে দুটি মসজিদে এক অস্ত্রধারী গুলি করে কমপক্ষে ৫১ জনকে হত্যা করার পর এই মসজিদে আগে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছিল।
ট্রেনের পর এবার ভারতের সঙ্গে বাস সেবাও বন্ধ করলো পাকিস্তান
১০আগস্ট,শনিবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে চলাচলকারী সমঝোতা ও থর এক্সপ্রেস ট্রেনের পর এবার বাস সেবাও বন্ধ করেছে পাকিস্তান। বৃহস্পতিবার প্রথমে সমঝোতা এক্সপ্রেস বন্ধের ঘোষণা দেয় পাকিস্তান। এরপর শুক্রবার বন্ধ করে দেওয়া হয় দুই দেশের মধ্যে চলাচলকারী থর এক্সপ্রেস ট্রেনও। এবার বন্ধ করা হল ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে একমাত্র বাস সেবাটিও। ভারতীয় গণমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়া এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা তুলে নেয়ার পরই ভারতের সঙ্গে একে একে সব সম্পর্ক ছিন্ন করছে পাকিস্তান। তারই অংশ হিসেবে দুই দেশের মধ্যে চলাচলকারী ট্রেনের পর এবার বন্ধ করা হলো বাস সেবা। পাকিস্তানের যোগাযোগ ও ডাক বিভাগের দায়িত্বে থাকা মন্ত্রী মুরাদ শহিদ টুইট করে এই কথা জানিয়েছেন। ন্যাশনাল সিকিউরিটি কমিটির নির্দেশ অনুযায়ী বাস সেবা বন্ধ করা হয়েছে বলে জানান তিনি। ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে সদা-ই-সরহদ নামের বাস সেবা ১৯৯৯ সালের ১৯ ফেব্রুয়ারি শুরু হয়। তত্কালীন প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ী নিজে প্রথম বাসে চড়ে লাহোরের বৈঠকে যোগ দিতে যান। ওয়াঘায় তাকে স্বাগত জানান তত্কালীন পাক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ। ২০০১সালে সংসদ হামলার পর এই বাস সেবা বন্ধ হয়ে গেলেও ২০০৩ সাল থেকে আবারও শুরু হয়।
জাতিসংঘে পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূত, ভারত কাশ্মীরে রেজুল্যুশন ভঙ্গ করেছে
০৮আগস্ট,বৃহস্পতিবার,আন্তর্জাতিক ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম:কাশ্মীরের বিশেষ সুবিধা বাতিল করে ভারতের অবৈধ দখলদারিত্ব বৃদ্ধি করার পরিণতি সম্পর্কে জাতিসংঘে নিরাপত্তা পরিষদের প্রেসিডেন্ট, কূটনীতিক ও কর্মকর্তাদের অবহিত করেছেন পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূত মালিহা লোদি। জাতিসংঘে অন্যান্য দেশের রাষ্ট্রদূতদের সঙ্গেও কথা বলেছেন পাকিস্তানি এই দূত। তিনি তাদের কাছে ব্যাখ্যা করেছেন ভারত কাশ্মীরে কিভাবে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের রেজুল্যুশন ভঙ্গ করেছে। এ খবর দিয়েছে অনলাইন ডন। নিরাপত্তা পরিষদে আগস্টের সভাপতি পোল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত জোয়ানা ওনেকা। তার সঙ্গে সাক্ষাত করে মালিহা লোদি ভারতের কর্মকান্ডকে কাশ্মীদের মর্যাদার গুরুত্বর হেয় বলে বর্ণনা করেছেন। ভারতের বেআইনি ও অস্থিতিশীল কর্মকা-কে প্রত্যাহার করার দাবি জানাতে নিরাপত্তা পরিষদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন মালিহা লোদি। পাশাপাশি ভারত যাতে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের রেজ্যুলুশন মেনে চলে তা নিশ্চিত করার আহ্বান জানানো হয়েছে। কয়েক দশক ধরে চলমান জম্মু, কাশ্মীর বিরোধে হস্তক্ষেপ করার যেকোনো বিষয় থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানাতে বলা হয়। সূত্রের মতে, জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের সভাপতিকে পাকিস্তানি দূত বলেছেন, কাশ্মীদের সামনে ট্রাজেটি এখন পূর্ণমাত্রায়। তিনি দাবি করেন ১৯৪৭ সালেও ভারত একই রকম মিথ্যা তথ্যের ভিত্তিতে জম্মু, কাশ্মীরে দখলদারি প্রতিষ্ঠা করে। ভারতের মূল উদ্দেশ্য হলো, দখলীকৃত জম্মু-কাশ্মীরের জনসংখ্যাতত্ত্বকে বদলে দেয়া।