ভারতের হরিয়ানায় ঘন কুয়াশায় দুর্ঘটনায় নিহত ৮
অনলাইন ডেস্ক: ভারতের হরিয়ানায় সড়ক দুর্ঘটনায় আটজন নিহত হয়েছেন। দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হয়েছেন ১০ জন। ঘন কুয়াশার কারণে ওই দুর্ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছে পুলিশ। আজ সোমবার হরিয়ানার ঝাঁঝরে রোহতক-রেওয়ারি সড়কে ওই দুর্ঘটনা ঘটে। জানা যায়, সোমবার সকালে একটি স্কুলবাস ওই এলাকার একটি ফ্লাইওভার দিয়ে যাচ্ছিল। ঘন কুয়াশার কারণে ওই স্কুলবাসটির পেছনে একের পর এক এসে ধাক্কা মারে অন্তত ৫০টি গাড়ি। লাইন দিয়ে একের পর এক গাড়ির ধাক্কায় বেশ কয়েকটি গাড়ি ভেঙেচুড়ে দুমড়েমুচড়ে যায়। ফলে একটি গাড়িতে থাকা আটজন যাত্রী ঘটনাস্থলেই মারা যান। নিহতদের মধ্যে ছয়জন নারী রয়েছেন বলে জানা যায়। ঝাঁঝরের পুলিশ সুপার পঙ্কজ নয়ন জানিয়েছেন, ঘন কুয়াশার কারণে একের পর গাড়িতে ধাক্কা লাগার কারণে দুর্ঘটনা ভয়াবহ হয়। ঘটনায় আটজন মারা যান এবং বিভিন্ন গাড়িতে থাকা ১০ জন গুরুতর আহত হন। আহতদের ঝাঁঝরের একটি সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘন কুয়াশার কারণেই এ দুর্ঘটনা বলে পুলিশ সূত্রে প্রাথমিকভাবে জানা যায়। এ দুর্ঘটনায় আহতদের দেখতে হাসপাতালে যান হরিয়ানার কৃষিমন্ত্রী ওমপ্রকাশ ধনকর। হরিয়ানা সরকার এরই মধ্যে নিহতদের পরিবারপিছু দুই লাখ রুপি ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছে। আহতদের দেওয়া হবে এক লাখ রুপি।
আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাত থেকে সুনামি, ইন্দোনেশিয়ায় নিহত ৪৩
আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ইন্দোনেশিয়ার উপকূলীয় এলাকা 'বানতেন'-এর একটি আগ্নেয়গিরিতে অগ্ন্যুৎপাতের কারণে সমুদ্রের তলদেশে ভূমিধস থেকে সৃষ্ট সুনামিতে এখন পর্যন্ত ৪৩ জন নিহত হয়েছেন বলে সরকারিভাবে জানানো হয়েছে। দেশটির দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, বানতেন প্রদেশের সেরাংয়ে সুনামির আঘাতে আরো দুজন নিখোঁজ রয়েছেন। আহত হয়েছেন কমপক্ষে ৫৮৪ জন। আর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বিস্তীর্ণ এলাকার বসতবাড়ি। কর্তৃপক্ষ সতর্ক করে দিয়ে বলেছে, সুনামিতে মৃতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে। সেরাং ছাড়াও সুনামির আঘাতে ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে প্যানডেংলাং ও দক্ষিণ লাম্পুং এলাকা। দুর্গত এলাকা থেকে লোকজনকে সরিয়ে নেওয়ার কাজ শুরু হয়েছে। প্রথাগত বা স্বাভাবিক ভূমিকম্পের কারণে এই সুনামির সৃষ্টি হয়নি বলেই ধারণা করছেন বিশেষজ্ঞরা। সেরাংয়ের ক্র্যাকাটোয়া আগ্নেয়গিরির উদগিরণ শুরু হলে তার অভিঘাতে সমুদ্রের তলদেশে ভূমিধস হয়। এ থেকেই সৃষ্টি হয় সুনামির। পূর্ণচন্দ্রের প্রভাবে সমুদ্রের জলতরঙ্গ ব্যাপক উচ্চগতিতে সৈকতে এসে আছড়ে পড়তে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের মুখপাত্র সুনামির আঘাতের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট করেছেন। সেখানে দেখা যাচ্ছে, উপকূলীয় বিভিন্ন এলাকা ব্যাপকভাবে প্লাবিত হয়েছে, যানবাহন তাতে ভেসে যাচ্ছে। আগ্নেয়গিরি বিশেষজ্ঞ জেস পোনিক্স বিবিসিকে বলেছেন, যখন আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাতের সৃষ্টি হয়, তখন তার গরম ম্যাগমা সমুদ্রের তলদেশে গিয়ে আঘাত করে। এতে ভূমিধসের সৃষ্টি হয়। আর তা থেকেই তৈরি হয় সুনামি। ১৮৮৩ সালে ক্র্যাকাটোয়া আগ্নেয়গিরিতে ভয়াবহ অগ্ন্যুৎপাতের ঘটনা ঘটে। সে সময় উত্তপ্ত লাভায় পুড়ে ছাই হয়ে মারা যায় কয়েক হাজার মানুষ। ওই সময় অগ্ন্যুৎপাতের ফলে সৃষ্ট সুনামিতে ১৩৫ ফুট উঁচু ঢেউয়ের সৃষ্টি হয়। এর ফলে কমপক্ষে ৩০ হাজার মানুষ সমুদ্রে ভেসে যায়। সাম্প্রতিক মাসগুলোতে এই সুপ্ত আগ্নেয়গিরি ফের সচল হতে দেখা যায়। ইন্দোনেশিয়ার জিওলজিক এজেন্সি জানিয়েছে, গত শুক্রবার ক্র্যাকাটোয়া আগ্নেয়গিরি থেকে দুই মিনিট ১২ সেকেন্ড অগ্ন্যুৎপাত হয়েছে। এর ফলে পাহাড়ের চারশ মিটার বা এক হাজার তিনশ ফুট উঁচুতে ছাই-মেঘের সৃষ্টি হয়। ভূ-প্রাকৃতিক অবস্থানের কারণে ইন্দোনেশিয়ায় ভূমিকম্পের ঘটনা প্রায়ই ঘটে থাকে। ইন্দোনেশিয়া ভূমিকম্পপ্রবণ দেশ। কারণ, এটি রিং অব ফায়ার নামক ভয়াবহ এক আগ্নেয়গিরির চক্রের ওপরে অবস্থান করছে। সমুদ্রপৃষ্ঠের ওপর যাদের অবস্থান, সারা দুনিয়ার এমন যত জীবন্ত আগ্নেয়গিরি রয়েছে, তাদের অর্ধেকের বেশি এই চক্রের অন্তর্ভুক্ত। এর আগে গত সেপ্টেম্বরে ইন্দোনেশিয়ার পালু শহরের বালারোয়া ও পেতোবো এলাকার ভূমিকম্প ও সুনামিতে মাটি তরল হয়ে হাজারো মানুষ নিখোঁজ রয়েছে। তাতে প্রায় দেড় হাজার মানুষের প্রাণহানির ঘটনা ঘটে। আগস্টের ৫ তারিখে আঘাত হানা ভূমিকম্পে দেশটিতে ৪৬০ জনের বেশি মানুষের প্রাণহানি ঘটে। ২০০৪ সালে ইন্দোনেশিয়ার সুমাত্রা দ্বীপে শক্তিশালী ভূমিকম্পের ফলে সৃষ্ট সুনামিতে ভারত মহাসাগরের উপকূলজুড়ে দুই লাখ ২৬ হাজার মানুষের প্রাণহানি হয়েছিল। নিহতদের মধ্যে এক লাখ ২০ হাজার ইন্দোনেশীয় ছিল।
অচলের পথে মার্কিন সরকার, মেক্সিকো দেয়াল নিয়ে মতানৈক্য
আন্তর্জাতিক ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রে ফের শুরু হলো 'শাটডাউন' বা অনির্দিষ্টকালের জন্য সরকারি কর্মকাণ্ডের বিরতি। মেক্সিকো সীমান্তে দেয়াল নির্মাণ নিয়ে বাজেটে অর্থ বরাদ্দ প্রসঙ্গে মার্কিন কংগ্রেস নেতারা একমত হতে পারেননি। ফলে এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। এর ফলে, বড়দিনের আগে বিনা বেতনে কাজ করতে হবে হাজারো ফেডারেল কর্মী বা সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীকে। গতকাল শুক্রবার মধ্যরাত থেকে এই অবস্থা কার্যকর হয়। এ ছাড়া সরকারি সব প্রতিষ্ঠান যেমন- প্রতিরক্ষা, যানবাহন, কৃষি, বিচার বিভাগের সব কার্যক্রমও বন্ধ থাকবে। যুক্তরাষ্ট্রের রাজনৈতিক নিয়মানুযায়ী, কোনো বিষয়ে সিনেটররা একমত হতে না পারলে অথবা স্বয়ং প্রেসিডেন্ট যখন কোনো বিলে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সই করতে না পারেন তখনই শাটডাউন হয়। মেক্সিকো সীমান্ত দিয়ে অভিবাসন প্রত্যাশীদের প্রবেশ ঠেকাতে দেয়াল তুলবে যুক্তরাষ্ট্র। কিন্তু দেয়াল নির্মাণের অর্থ সংক্রান্ত প্রস্তাবিত বিল নিয়ে একমত হতে না পারায় ভোট বন্ধ রাখা হয়েছে। এদিকে, এই অবস্থার জন্য ডেমোক্র্যাট সিনেটরদের দায়ী করেছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এ সংক্রান্ত ভিডিও বার্তায় তিনি দেয়াল তোলার জন্য অর্থ বরাদ্দ করতে ডেমোক্র্যাট সদস্যদের, এর পক্ষে ভোট দিতে আহ্বান জানান। কিন্তু ডেমোক্রেটদের অভিযোগ, ট্রাম্পের বদমেজাজ এই পরিস্থিতি তৈরি করেছে।
এখন আমাদের সেনাদের ফেরার সময়: ট্রাম্প
আন্তর্জাতিক ডেস্ক: সিরিয়া থেকে সেনা প্রত্যাহারের ঘোষণা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। দেশটির প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, ‘আমরা আইএসের (জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট) বিরুদ্ধে জয়ী হয়েছি। আমরা তাদের (আইএস) বাজেভাবে হারিয়েছি। এখন আমাদের সেনাদের ফেরার সময়। সংবাদমাধ্যম সিএনএন জানিয়েছে, ডোনাল্ড ট্রাম্প স্থানীয় সময় গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় টুইটারে দেওয়া এক ভিডিও বার্তায় বিষয়টি জানান। ট্রাম্প বলেন, আমরা দীর্ঘ সময় ধরে সিরিয়ায় যুদ্ধ করছি। তিনি বলেন, আমরা আইএসের বিরুদ্ধে জয়ী হয়েছি। ওই যুদ্ধে নিহত মার্কিন সেনাদের স্মরণ করে ট্রাম্প বলেন, তারা দেশের জন্য যুদ্ধ করেছে, এটা অনেক সম্মানের। তবে হৃদয়বিদারকও বটে। এখন আমরা জিতেছি। এখন সময় ফেরার। ট্রাম্প বলেন, সেনারা তৈরি। তারা দ্রুতই ফিরবে। তারা আমেরিকান বীর। তারা সারা বিশ্বের বীর। কারণ, তারা আমাদের জন্য যুদ্ধ করেছে। তারা আইএসকে পরাজিত করেছে, যারা বিশ্বকে আঘাত করেছে। আমরা সেনাদের জন্য গর্বিত। সংবাদমাধ্যম বিবিসি জানিয়েছে, হোয়াইট হাউস এক বিবৃতিতে জানায়, সিরিয়া থেকে সেনা প্রত্যাহারের ব্যাপারে কাজ শুরু হচ্ছে। পরবর্তী পদক্ষেপ কী হবে, তা পরে জানানো হবে। ২০১৪ সালে সিরিয়ায় আইএসের সঙ্গে যুদ্ধে জড়ায় যুক্তরাষ্ট্র। তখন দেশটির প্রেসিডেন্ট ছিলেন বারাক ওবামা।
ভেনিজুয়েলার গণপ্রতিরক্ষা বাহিনীর সদস্য সংখ্যা বেড়ে ১৬ লাখে
আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ভেনিজুয়েলার প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরো সোমবার বলেছেন, দেশের গণপ্রতিরক্ষা বাহিনীর সদস্য সংখ্যা বেড়ে ১৬ লাখে দাঁড়িয়েছে। এই সংখ্যা এ বছরের শুরুতে থাকা সদস্যের তুলনায় তিন গুণেরও বেশি। গণপ্রতিরক্ষা বাহিনীর সদস্যদের উদ্দেশে তিনি এ কথা বলেন। গণপ্রতিরক্ষা বাহিনীর সদস্যদের উদ্দেশে দেওয়া বক্তব্যে যুক্তরাষ্ট্রের নাম উল্লেখ না করে তিনি বলেন, দখলদার সাম্রাজ্যবাদী এক শক্তি আমাদের পিতৃপুরুষের ভূমিতে প্রবেশ করতে পারে। তবে তাদের জানা উচিত যে, তারা এখান থেকে প্রাণ নিয়ে ফিরতে পারবে না। মূল সশস্ত্র বাহিনীকে সহায়তার লক্ষ্যে ২০০৮ সালে প্রেসিডেন্ট হুগো চ্যাভেজ বেসামরিক স্বেচ্ছাসেবকদের নিয়ে ন্যাশনাল বলিভারিয়ান মিলিশিয়া নামের এই রিজার্ভ বাহিনী প্রতিষ্ঠা করেন। রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে দেওয়া বক্তব্যে মাদুরো এই বাহিনীর সদস্যদের হাতে অস্ত্র তুলে দেওয়ার কথাও জানিয়েছেন। এই বাহিনীর সদস্য সংখ্যা চার লাখের কাছাকাছি থাকা অবস্থায় গত এপ্রিলেই এর আকার ১০ লাখে উন্নীত করার তাগিদ দেন মাদুরো। তবে ৯ মাসেরও কম সময়ে সেই সংখ্যা ১২ লাখ বৃদ্ধি পেয়েছে।
ভারতের মুম্বাইয়ের একটি হাসপাতালে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড
আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ভারতের মুম্বাইয়ের একটি হাসপাতালে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড ঘটেছে। ওই ঘটনায় আটজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়। মৃতদের মধ্যে একটি পাঁচ মাসের শিশু রয়েছে বলেও জানা যায়। মৃতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। গতকাল সোমবার বিকেলে মুম্বাইয়ের আন্ধেরির এমপ্লয়িজ স্টেট ইন্স্যুরেন্স করপোরেশন (ইএসআইসি) হাসপাতালে আগুন লাগে। গতকালই ছয়জনের লাশ উদ্ধার করা হয়। এনডিটিভি জানিয়েছে, আজ মঙ্গলবার সকালে আরো দুটি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত ওই হাসপাতাল থেকে ১৪০ জনকে উদ্ধার করা হয়েছে। আগুন লাগার খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে পৌঁছে যায় ফায়ার সার্ভিসের ১০টি ইউনিট। উদ্ধারকর্মীদের পাশাপাশি উদ্ধারকাজে যোগ দেন অন্য বাহিনীর সদস্যরাও। আগুনে গোটা এলাকা কালো ধোঁয়ায় ঢেকে যায়। অগ্নিকাণ্ডের পরই শুরু হয়ে যায় উদ্ধারকাজ। ভেতরে দাউদাউ করে জ্বলতে থাকা আগুনের মধ্যে বারান্দা ও জানালার পাশে দাঁড়িয়ে চিৎকার করতে থাকেন রোগীরা। মই লাগিয়ে জানালার কাচ ভেঙে দড়ি বেঁধে রোগীদের নিচে নামিয়ে আনেন উদ্ধারকর্মীরা। ওই হাসপাতাল থেকে এরই মধ্যে দেড় শতাধিক রোগীকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয় অন্যান্য হাসপাতালে। উদ্ধার হওয়া রোগীদের আশপাশের কুপার, হোলি স্পিরিট, হীরানন্দানি, সিদ্ধার্থ, সেভেন হিলস এবং পি ঠাকরে ট্রমা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানা যায়। আহতদের মধ্যে অন্তত ২০ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। জানা যায়, আটতলা হাসপাতালটির সবচেয়ে নিচের তলায় প্রথমে আগুন লাগে। নিচে একটি রাবারের গুদাম থেকে আগুন ছড়ায় বলে ফায়ার সার্ভিসের ধারণা। আগুন ধীরে ধীরে হাসপাতালের ওপরের তলাগুলোতে ছড়িয়ে পড়ে। হাসপাতালজুড়ে রীতিমতো আতঙ্কের পরিবেশ তৈরি হয়। আতঙ্কে অনেক রোগী হাসপাতালের দোতলা ও তিনতলা থেকে নিচে ঝাঁপ দেন। মুম্বাইয়ের মেয়র ভি মহাদেবেশ্বর জানিয়েছেন, ওই হাসপাতালের অগ্নিনির্বাপণের ব্যবস্থা দেখাশোনার দায়িত্বে ছিল মহারাষ্ট্র ইন্ডাস্ট্রিয়াল ডেভেলপমেন্ট করপোরেশন (এমএসডিসি)। ওই প্রতিষ্ঠানের কোনো গাফিলতি রয়েছে কি না, তা খতিয়ে দেখা হবে। তবে আগুন লাগার সঠিক কারণ এখনো জানা যায়নি বলেও জানান তিনি। এদিকে, এমএসডিসির ডেপুটি চিফ এমডি ওগলে জানান, ১৫ দিন আগে ওই হাসপাতালের অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা খতিয়ে দেখা হয়েছিল। তবে তাতে পাস করতে পারেনি হাসপাতাল। আগুনের উৎসস্থল খুঁজে সাইরেন বাজানো এবং তারপর স্বয়ংক্রিয় পানি ছিটানোর ব্যবস্থা ঠিকমতো কাজ করেনি।
ধেয়ে যাচ্ছে অন্ধ্র প্রদেশের দিকে ঘূর্ণিঝড় ফেথাই
আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ভারতের অন্ধ্র প্রদেশের দিকে ধেয়ে যাচ্ছে ঘূর্ণিঝড় ফেথাই। ঘন্টায় ৯৫ কিলোমিটার গতিবেগে এগুচ্ছে ঝড়টি। টাইমস অব ইন্ডিয়া জানায়, সোমবার দুপুরের পর যেকোন মুহূর্তে অন্ধ্র প্রদেশ ও তামিল নাড়ুতে আঘাত হানতে পারে ঘূর্ণিঝড় হেথাই। রোববার থেকেই প্রবল বাতাসের পাশাপাশি শুরু হয়েছে টানা বর্ষণ। এরইমধ্যে, উপকূলীয় এলাকায় সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি করেছে দেশটির দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর। স্থানীয় জেলেদের সোমবার মাছ ধরতে সাগরে না যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন আবহাওয়া অফিস। পরিস্থিতি মোকাবেলায় নিয়োগ করা হয়েছে ফায়ার সার্ভিস ও সেনাবাহিনীর অন্তত ১৬টি ইউনিট। তবে ঘূর্ণিঝড়টি সোমবার বিকেল নাগাদ দূর্বল হতে পারে বলে জানিয়েছে সংস্থাটি।
পশ্চিমবঙ্গের শিয়ালদহে ট্রেন বন্ধ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ভারতের শিয়ালদহ শাখায় ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকার কারণে ভারতে ঢুকে সমস্যায় পড়েছেন শতাধিক বাংলাদেশি। আজ রোববার পশ্চিমবঙ্গের উত্তর ২৪ পরগনা জেলার অন্যতম ট্রেন রুট বনগাঁ-শিয়ালদহ এবং বনগাঁ-হাসনাবাদ শাখায় ট্রেন বন্ধ থাকার কারণে তৈরি হয়েছে এই সমস্যা। জানা যায়, বাংলাদেশ ও ভারতের বেনাপোল-পেট্রাপোল স্থলবন্দর দিয়ে ভারতে প্রবেশের পর আজ রোববার সমস্যায় পড়েছেন বহু বাংলাদেশি ট্রেনযাত্রী। গতকাল শনিবার দিবাগত রাত ১টা থেকে আজ রোববার দিবাগত রাত ১টা পর্যন্ত ভারতের পূর্ব রেলের শিয়ালদহ বিভাগে বারাসত থেকে মধ্যমগ্রাম রেল স্টেশনের মধ্যে চলাচল করছে না কোনো ট্রেন। ফলে ভারতের সীমান্ত শহর বনগাঁ থেকে শিয়ালদহ পর্যন্ত ট্রেন চলাচল কার্যত বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। একইভাবে হাসনাবাদ শাখাতেও বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে ট্রেন চলাচল। যে কারণে পেট্রাপোল স্থলবন্দর দিয়ে ভারতে প্রবেশের পর বাংলাদেশি পর্যটকরা শিয়ালদহ যাওয়ার ক্ষেত্রে রেলপথে সমস্যার মুখে পড়ছেন। অন্যদিকে ঘোজাডাঙ্গা স্থলবন্দর দিয়েও ভারতে প্রবেশ করে সমস্যায় পড়ছেন বাংলাদেশিরা। ভারতের পূর্ব রেল সূত্রে জানা যায়, বারাসতের ১২ নম্বর রেল গেটের দুই পাশের মধ্যে সংযোগ স্থাপনের লক্ষ্যে রেল লাইনের নিচ দিয়ে ভূগর্ভস্থ সাবওয়ে তৈরির জন্য ২৪ ঘণ্টা ওই লাইনে ট্রেন না চালানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। যার জেরে শিয়ালদহ-বনগাঁ, শিয়ালদহ-বারাসত ও শিয়ালদহ-হাসনাবাদ শাখায় বহু লোকাল ট্রেন বাতিল করা হয়েছে। কিছু ট্রেন মধ্যবর্তী স্টেশনগুলোতে শাটল হিসেবে চালানো হলেও তার সংখ্যা অত্যন্ত নগণ্য। ফলে রোববার সকাল থেকেই এই লাইনের যাত্রীরা ও ভারতে আসা বাংলাদেশি পর্যটকরা মহাসমস্যার মধ্যে পড়েছেন। পূর্ব রেলের শিয়ালদহ বিভাগে বারাসত একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ রেল জংশন। এই জংশন থেকেই একদিকে বারাসত-বাংলাদেশের বনগাঁ স্টেশন হতে পেট্রাপোল-বেনাপোল সীমান্তে যেমন যাওয়া যায়, তেমনি হাসনাবাদ হয়ে ঘোজাডাঙ্গা-ভোমরা সীমান্তে যাওয়া যায়। ওই দুই সীমান্ত দিয়ে প্রতিদিন বহু বাংলাদেশি ট্রেনে করে বারাসত জংশন হয়ে শিয়ালদহে যাতায়াত করে। কম খরচে কলকাতায় যাওয়ার জন্য এই ট্রেনপথই বাংলাদেশিদের যাতায়াতের অন্যতম একটি রাস্তা। সেখানে এদিন সমস্যার কারণে রোববার সকাল থেকেই বিপাকে পড়েছেন ভারতে আসা বহু বাংলাদেশি। অগত্যা পেট্রাপোল ও ঘোজাডাঙ্গা থেকে মোটা রুপি ব্যয় করে তাঁদের সড়কপথেই যেতে হচ্ছে কলকাতায়। তবে পূর্ব রেলের পক্ষ থেকে যাত্রীদের সহায়তা করার চেষ্টা চালানো হচ্ছে বলে জানা যায়। বারাসত রেলের জিআরপি ওসি দীপক পাইক জানান, মধ্যমগ্রাম ও বারাসত স্টেশনের মধ্যে ট্রেন না চলার কারণে যাত্রীদের রেলের তরফে একটি পরিষেবার ব্যবস্থাও করা হয়েছে। সেক্ষেত্রে বনগাঁ থেকে বারাসত বা শিয়ালদহ থেকে বারাসত পর্যন্ত শাটল ট্রেনে আসা যাত্রীরা টিকিট দেখিয়ে নিতে পারবেন এই পরিষেবা। ওই পরিসেবার মাধ্যমে যাত্রীদের বারাসত স্টেশন থেকে মধ্যমগ্রাম ও মধ্যমগ্রাম থেকে বারাসত স্টেশন পর্যন্ত রেল বাসে করে যাত্রীদের পৌঁছে দেবে। তবে সেই পরিষেবা চালু থাকলেও এই লাইনে যেহেতু শাটল ট্রেনের সংখ্যা অত্যন্ত নগণ্য থাকবে সেহেতু যাত্রী দুর্ভোগ আজ দিনভর চলবেই। বনগাঁ জিআরপি ওসি লোকনাথ ঘোষ জানান, বনগাঁ থেকে বারাসত পর্যন্ত এদিন কয়েকটি শাটল ট্রেন চললেও সেই ট্রেন থাকবে অত্যন্ত কম। রেলসূত্রে জানা যায়, নির্ধারিত টাইম টেবিল মেনে এই শাটল ট্রেন চলবে না। ফলে আগেভাগে যাত্রীরা কখন কোন ট্রেন ছাড়বে সেটা বুঝতে না পারায় সমস্যা প্রকট হবে।
ভারতের একটি মন্দিরে প্রসাদ প্রাণ গেল ১১ জনের
আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ভারতের একটি মন্দিরে প্রসাদ খাওয়ার পর অন্তত ১১ জন মারা গেছেন। এ সময় আরো অনেক মানুষ অসুস্থ হয়েছেন বলে পুলিশ জানিয়েছে। দক্ষিণ ভারতের কর্ণাটক রাজ্যের চামারাজানগর জেলার মারাম্মা মন্দিরে গতকাল শুক্রবার একটি অনুষ্ঠানে ওই খাবারের আয়োজন করা হয়। মন্দিরে দীক্ষিতদের বিদায় উপলক্ষে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল। মন্দিরে প্রসাদ খাওয়ার পর অন্তত ৭০ জন অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পুলিশের একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, অসুস্থদের মধ্যে আরো ১১ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। এদিকে এই ঘটনার পর পরই দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। স্থানীয় এক স্বাস্থ্য কর্মকর্তা পুলিশকে জানিয়েছেন, মন্দিরের খাবারটি বিষাক্ত হয়ে থাকতে পারে। অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়া একজন ব্যক্তি বলেছেন, মন্দিরে প্রসাদ হিসেবে টমেটো ভাত দেওয়া হয়েছিল। সেখান থেকে গন্ধ আসছিল। যারা সেই খাবার খায়নি, তারা ভালো আছে। যারা খেয়েছে, তারাই বমি করতে শুরু করে এবং পেটে ব্যথা হয়। এই ঘটনায় কর্নাটক রাজ্য সরকার শোক প্রকাশ করে নিহতদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা প্রকাশ করেছে। তাঁরা ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের আশ্বাস দিয়েছেন।