আগামী শুক্রবার খালেদা জিয়ার জন্মবার্ষিকী পালন করা হবে
১৪ আগস্ট,বুধবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম:বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ জানিয়েছেন, দোয়া মাহফিলের মাধ্যমে আগামী শুক্রবার দলের পক্ষ থেকে বিএনপি চেয়ারপারসন কারাবন্দি খালেদা জিয়ার ৭৪তম জন্মবার্ষিকী পালন করা হবে।বুধবার বিকেলে রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে রিজভী বলেন, বৃহস্পতিবার খালেদা জিয়ার জন্মবার্ষিকী হলেও শুক্রবার ঢাকাসহ সারাদেশে বিএনপির পক্ষ থেকে তার রোগমুক্তি ও দীর্ঘায়ু কামনা করে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে।সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সেলিমা রহমান, যুগ্ম মহাসচিব হাবিব-উন-নবী খান সোহেল, কেন্দ্রীয় নেতা আমিনুল ইসলাম, টিএস আইউব প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
বিএনপির আমলে চামড়া ব্যবসায়ীদের ব্যাংক ঋণ দেবার ব্যবস্থা ছিল
১৪ আগস্ট,বুধবার,ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম:বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, সরকার বলছে দেশে জন্য তারা উন্নয়ন করছে, দেশ উন্নয়নের রোল মডেল হয়েছে। কিন্তু একথাটিও প্রমানিত যে এসব জনগণকে ভুল বোঝানোর একটি মিথ্যে কৌশল হিসেবে বলা হচ্ছে। সরকারি মতে, উন্নয়নের যে পরিসংখ্যান তারা দিয়েছে তা সঠিক নয়। এর সবচেয়ে বড় প্রমান, এখানে ইনভেস্টমেন্ট হচ্ছে না। সরকারি খরচ বাড়ছে। এই খরচ তারা জোগাড় করছে জনগণের ট্যাক্সের মাধ্যমে। ব্যাংকে যারা টাকা রাখছেন তাদের টাকাও কেটে নেয়া হচ্ছে। ফিক্সড, সেভিং একাউন্ট থেকে টাকা কেটে নেয়া হচ্ছে। এভাবে সামগ্রিকভাবে দেশে অর্থনৈতিক এক বিপর্যয় সৃষ্টি হচ্ছে। তাই আমরা অবিলম্বে সরকারের পদত্যাগসহ নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে একটি নতুন নির্বাচন চাইছি। কারণ এভাবে তারা দেশের অর্থনৈতিক, রাষ্ট্রীয় এবং দীর্ঘ মেয়াদী সামাজিক ক্ষতি করছে। বুধবার সকাল ১০টায় ঠাকুরগাঁও শহরের তিতুমীর সড়কস্থ বাসভবনে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়ে এসব কথা বলেন তিনি । মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, এই ঈদ উপলক্ষে সারা দেশে প্রচুর সংখ্যক পশু কুরবানি করা হয়ছে। এ পশুর চামড়া লেদার ইন্ড্রাস্টিতে বড় ধরণের ভূমিকা পালন করে থাকে। কিন্তু চামড়া ক্রয়-বিক্রয়ের ক্ষেত্রে পরিকল্পিত কোন নীতি না থাকায় এবং সিন্ডিকেট থাকায় এবার পশুর মালিকরা-জনগণ প্রচন্ডভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। একারণে ক্রেতা না থাকায় দেশের বহু জায়গায় চামড়া মাটিতে পুতে ফেলা হয়েছে। বিএনপির আমলে চামড়া ব্যবসায়ীদের ব্যাংক থেকে ঋণ দেবার ব্যবস্থা ছিল। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত এবার কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ না করার কারণে চামড়া নিয়ে ভয়াবহ বিপর্যয় সৃষ্টি হয়েছে। তিনি আরো বলেন, শেষ মুহূর্তে বলা হচ্ছে যে, চামড়া রপ্তানি করা সম্ভব কিন্তু সে সময় এখন পার হয়ে গেছে। জনগণ ক্ষতির শিকার হয়ে গেছে। এসবের কারণ এই সরকার গণবিচ্ছিন্ন সরকার। কোথায় জনগণ ক্ষতিগ্রস্ত হলো, কোথায় ইন্ড্রাস্টি ক্ষতির শিকার হলো, সেই খবর সরকার রাখে না, এনিয়ে তাদের মাথাব্যথাও কথনোই ছিলনা, এখনো নেই। সেই কারণেই তাদের সিন্ধান্ত গণবিরোধী। যা দেশের ক্ষতি করে। এসময় জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি সুলতানুল ফেরদৌস চৌধুরী , যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পয়গাম আলী, আনসারুল হক, উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হামিদ, ছাত্রদলের নেতা কায়েসসহ দলীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।
ধ্বংস করা হচ্ছে ট্যনারি শিল্প
১৩আগস্ট,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, যেভাবে পাট শিল্প ধ্বংস করা হয়েছে, ঠিক সে পথেই ধ্বংস করা হচ্ছে বাংলাদেশের ট্যনারি শিল্প। প্রশ্ন করার কেউ নেই। জবাব দেওয়ার কেউ নেই। সুইস ব্যাংকে আর কত টাকা পাঠানো হলে বাংলাদেশের জনগণ মুক্তি পাবে? সুষ্ঠু নির্বাচনকে দূরে ঠেলে জনগণের সরকার নেই বলেই এভাবে সর্বনাশ করা হচ্ছে। মঙ্গলবার সকাল ১১টায় নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। রিজভী বলেন, কোরবানির পশুর চামড়ার টাকা গরিব, মিসকিন, এতিমদের হক। এ চামড়া বিক্রির টাকা তাদের মধ্যেই বিতরণ করার নিয়ম। এটা তাদের ঈদের আনন্দের একটা উৎস। বিএনপি সরকারের সময়ে এদেশে যে চামড়া কয়েক হাজার টাকায় বিক্রি হতো, এখন তা বিক্রি হচ্ছে দুই-তিনশ টাকায়। ৮০ হাজার টাকা দামের গরুর চামড়ার দাম এখন ২২০ টাকা! এক লাখ টাকার গরুর চামড়া বিক্রি হয়েছে ২২৫ টাকায়। সব জিনিসের দাম হু হু করে বাড়লেও দফায় দফায় কমতে কমতে দশ ভাগের এক ভাগে নেমেছে কাঁচা চামড়ার দাম। তিনি বলেন, ওবায়দুল কাদের সাহেব যখন দুর্ভোগকে স্বস্তিদায়ক আর আনন্দযাত্রা বলছেন, তখন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম রোববার ফেসবুক পোস্টে তুলে ধরেছেন ঈদে তার বাড়ি ফেরার চরম ভোগান্তির কথা। শাহরিয়ার আলম লিখেছেন, আমার ট্রেন ১৫ ঘণ্টা দেরিতে ছাড়লো। শিডিউলে থাকা অনেক প্রোগ্রাম মিস করলাম। বিএনপি নেতা বলেন, দুদিন ধরে টিভিতে দেখলাম মানুষের ভোগান্তি, এগুলো আমাকে অনেক ভাবিয়েছে। আজ নিজের চোখেও দেখলাম। সুতরাং, সেতুমন্ত্রী কথার ফুলঝুড়ি দিয়ে মানুষের চোখকে বিভ্রান্ত করার ব্যর্থ চেষ্টা করেন। কিন্তু, ভুক্তভোগীরা হাড়ে-হাড়ে টের পেয়েছে সড়ক, নৌ ও রেলপথে ঘরে ফেরার যন্ত্রণা।
পবিত্র ঈদুল অজহার মূল কথা হচ্ছে ত্যাগ
১৩আগস্ট,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম:মানুষের জীবনে বড় কিছু পেতে হলে বড় ত্যাগের মধ্য দিয়ে যেতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, আজ সামগ্রিকভাবে দেশের যে অবস্থা, তাতে সবার কাছে আহ্বান থাকবে খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য ত্যাগ স্বীকারের। আমাদের পক্ষ থেকে দোয়া থাকবে সত্যিকারের গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে যেন আমরা যেতে পারি।সোমবার সকালে ঈদের নামাজ শেষে ঠাকুরগাঁওয়ের ফকিরপাড়ার নিজ বাসভবনে স্থানীয় সাংবাদিক ও দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময়কালে তিনি এ কথা বলেন।দেশবাসীকে ঈদুল আজহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন বিএনপির মহাসচিব বলেন, আমাদের দলের পক্ষ থেকে, দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের পক্ষ থেকে সবাইকে ঈদের শুভেচ্ছা জানাচ্ছি।মির্জা ফখরুল বলেন,পবিত্র ঈদুল অজহার মূল কথা হচ্ছে ত্যাগ। হযরত ইব্রাহিম (আ.) নিজের সন্তানকে কোরবানির মধ্য দিয়ে ত্যাগের দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছিলেন। সমগ্র বিশ্বের মানুষের কাছে যা উজ্জ্বল হয়ে আছে। এটা আমাদের জন্য একটা নির্দেশনা যে, মহান আল্লাহকে পেতে হলে, তার সান্নিধ্যে যেতে হলে, অবশ্যই ত্যাগের মধ্য দিয়ে যেতে হবে।
সরকারের দু:শাসনে দেশ আজ মহা বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে
১১আগস্ট,রবিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম:ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকারের দু:শাসনে দেশ আজ মহা বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেন, সারাদেশের মানুষের মধ্যে ঈদের আনন্দ নেই। দেশ আজ মহা বিপর্যয়ের মুখে। সর্বগ্রাসী সংকটে টালমাটাল অবস্থা। সমস্যা-সংকট গভীর থেকে গভীরতর, কোনো আশার আলো নেই, আছে শুধু অন্ধকার, হতাশা ও অনিশ্চিত আগামী। ক্ষমতাবানরা দায়বোধের অনুশোচনা ভুলেই গেছে। অনাচার ও অসাধুতার প্রকোপে মানুষের স্বাভাবিক মৃত্যুর অধিকারটুকুও কেড়ে নিচ্ছে তারা। ডেঙ্গুর ভয়াবহ ছোবলে দেশ বিধ্বস্ত। তিনি অবিলম্বে দলের চেয়ারপারসন কারাবন্দী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করেন। আজ রোববার সকালে এক সংবাদ সম্মেলনে রিজভী এসব কথা বলেন। নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এই সংবাদ সম্মেলন হয়। এসময় দলের কেন্দ্রীয় নেতা আবদুস সালাম আজাদ, বেলায় টল আহমেদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। লিখিত বক্তব্যে রুহুল কবির রিজভী বলেন, বাংলাদেশের কোটি কোটি মানুষের প্রত্যাশা ছিল পবিত্র ঈদুল আযহার পূর্বেই মিথ্যা সাজানো মামলায় কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া মুক্তি পাবেন। কিন্তু ভোটের আগের রাতের নির্বাচনের সরকার প্রধানের হুকুমেই তাকে জামিন দেওয়া হয়নি। তিনি গুরুতর অসুস্থ হলেও এখনো তার সুচিকিৎসা মেলেনি। তাকে উন্নত চিকিৎসা দেয়ার জন্য দলের পক্ষ থেকে, পরিবারের পক্ষ থেকে পছন্দের বিশেষায়িত হাসপাতালে চিকিৎসা করার দাবি জানালেও সরকার তোয়াক্কা করছে না। ৪ বারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী, ২ বারের সাবেক বিরোধী দলীয় নেতা, বাংলাদেশের একটি বড় রাজনৈতিক দলের প্রধানকে কারাগারে বন্দি রেখে নিষ্ঠুর নির্যাতন করে, সুচিকিৎসা না দিয়ে সর্বোচ্চ প্রতিহিংসা চরিতার্থ করা হয়েছে। তিনি বলেন, ক্ষমতার মোহে আওয়ামী লীগ রাজনৈতিক কৃষ্টি কালচার দেশ থেকে বিতাড়িত করে দিয়েছে। কিন্তু ইতিহাস কাউকে ক্ষমা করে না, এ জুলুমের বিচার একদিন হবেই। সেদিন বেশী দুরে নয় যেদিন দেশবাসী ক্ষমতাসীনদের রাষ্ট্রদাসত্ব থেকে মুক্তি পাবে, বাংলাদেশের মানুষ মিডনাইট সরকারের পতন দেখতে পাবে। মানুষ বসে থাকবে না। সকল অত্যাচার, নির্যাতনের শিকল ভেঙ্গে দেশ নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করবে। বেগম খালেদা জিয়ার প্রতি হিংসাশ্রয়ী অবিচার ও অন্যায়ের বিচার এদেশে একদিন হবেই। এখনই জনগণ ঘুরে দাঁড়ানোর স্পর্ধিত বার্তা দিচ্ছে। দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হবে, মানুষ ফিরে পাবে তাদের নাগরিক স্বাধীনতা। দেশবাসীসহ আমরা ব্যথিত, দু:খিত, বেদনার্ত এই ঈদের আগের দিনও বেগম জিয়ার মুক্তি মেলেনি। এ মুহুর্তে বেগম জিয়াকে মুক্তি দিতে হবে। রিজভী বলেন, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বাংলাদেশের মানুষ ঈদ যাত্রায় যে দুর্ভোগ সেটাকে দুর্ভোগ হিসেবে মনে করে না। এটা তারা ঈদ আনন্দের অংশ হিসেবে মনে করে। তিনি বলেন, এবারের ঈদ যাত্রা স্বস্তিদায়ক ছিল। উত্তরের পথে ঢাকা-টাঙ্গাইল সড়কে যানজটের খবর গণমাধ্যমে এলেও তিনি জানিয়েছেন যানজটের কোনো তথ্য তার কাছে নেই। নিশিরাতের ভোটের সরকারের মন্ত্রীদের কথাতেই প্রমানিত হয় রোম পুড়ে ছারখার হয়ে গেলেও নিরোর মতো শাসকরা বাঁশী বাজায়। ওবায়দুল কাদের সাহেব’রা এই মহাদুর্যোগ ও পথে পথে মহাদুর্ভোগের মধ্যে সেই আনন্দের বাঁশী বাজাচ্ছেন। অসত্য ও বাস্তবতা বিবর্জিত বক্তব্যই তাদের দিতে হবে, কারন মিথ্যার ওপর দু:শাসন চালাতে গিয়ে সত্য কথা বলার অধিকার তাঁরা হারিয়েছে। ঈদ যাত্রা নিয়ে ওবায়দুল কাদের সাহেবের বক্তব্য দু:খ দুর্দশাগ্রস্ত মানুষের সাথে নিষ্ঠুর রসিকতা। অপরের দু:খ যন্ত্রণাকে আনন্দ উৎসব হিসেবে মনে করা আওয়ামী লীগের রুচি ও সংস্কৃতি। তিনি আরো বলেন, আসলে সেতুমন্ত্রী মানুষের দু:খ দুর্দশা জানবেন কিভাবে, তিনি তো জনগণের মন্ত্রী নন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ভোটে নির্বাচিত মন্ত্রী। হুইসেল বাজিয়ে রাস্তা ফাঁকা করে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত গাড়ীতে ছুটে বেড়ানোর সেতুমন্ত্রীর অবাধ সুযোগ থাকে। সুতরাং ঘন্টার পর ঘন্টা যানযটে রাস্তায় ঈদে ঘরমুখী মানুষের আটকে পড়ার দৃশ্য দেখে আনন্দ পাওয়ারই কথা। মহাসড়কে ঘন্টার পর ঘন্টা মানুষ যানজটে পড়ে আছে। ভাড়া আদায় করা হয়েছে কয়েকগুন বেশী। ৪০ টাকার ভাড়া ৪০০ টাকা, ৩০০,৪০০ টাকার ভাড়া আদায় করা হয়েছে ১২০০ টাকা। ভাড়া নিয়ে নৈরাজ্য চললেও দেখার কেউ নেই। কোনো কোনো মহাসড়কে ৭০-৮০ কি. মি.যানজট। লঞ্চগুলোতে ধারণ ক্ষমতার চেয়ে বহুগুণ বেশী যাত্রী জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাড়ী যাচ্ছে। ফেরি ঘাটেও গাড়ীর লম্বা লাইন। সবগুলো ট্রেন সিডিউল বিপর্যয়ে পড়েছে। সকালে ট্রেন রাতেও ছেড়ে যায়নি। পরিবার পরিজন নিয়ে স্টেশনগুলোতে বসে থেকে অগুণতি মানুষের কষ্টের সীমা নেই। আর এটাকেই সেতু মন্ত্রী বলছেন, এবারের ঈদযাত্রা স্বস্তিদায়ক ও আনন্দঘন। আওয়ামী লীগের কাজই হলো মানুষের দু:খ দূর্দশা নিয়ে ইয়ার্কী করা, তামাশা করা। রিজভী বলেন, এডিস মশার দল রক্ত খেতে ছুটে বেড়াচ্ছে দিকবিদ্বিক। মৃত্যুর মিছিল বড় হচ্ছে দিনকে দিন। বানভাসী মানুষের দুর্দশা চরম শোচনীয়। গুম-ক্রসফায়ারের সংখ্যা ক্রমবর্ধমান। খুন-ধর্ষণ ডালভাত হয়ে দাঁড়িয়েছে। নির্বিচারে গণপিটুনিতে প্রাণ হারাচ্ছে নিরীহ নারী-পুরুষ। আইন আদালতকে ক্ষমতাসীনরা নিজেদের ইচ্ছানুযায়ী ব্যবহার করছে। দুর্নীতির মরণ ছোবল তথা রাহুগ্রাসে দেশ এখন শুন্য গহ্বর। এ যেন এক পৈশাচিক বিকৃতি। এ পরিস্থিতিতে দেশবাসীর মনে ঈদুল আযহার আনন্দ নেই। রিজভী আরো জানান, বিএনপি চেয়ারপারসন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া দেশবাসী, দলের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মী এবং গুম-খুন ও নির্যাতনের শিকার পরিবারের সদস্যদের পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। একইসঙ্গে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানও দেশবাসী, দলের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মী এবং গুম-খুন ও নির্যাতনের শিকার পরিবারের সদস্যদের পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। এছাড়াও দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরও দেশবাসী, দলের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মী এবং গুম-খুন ও নির্যাতনের শিকার পরিবারের সদস্যদের পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।
মশার কারণে জীবন চলে যাচ্ছে তা মানা যায় না: ওবায়দুল কাদের
০৭আগস্ট,বুধবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ডেঙ্গু জ্বরের হাত থেকে বাঁচতে দিনে ও রাতে মশারি ব্যবহারের আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। আজ বুধবার সকালে মিরপুর মাজার রোডে ডেঙ্গু সচেতনতা অভিযানে অংশ নিয়ে তিনি এ আহ্বান জানান। ওবায়দুল কাদের বলেন, মশার কারণে জীবন চলে যাচ্ছে তা মানা যায় না। সবাইকে এ ব্যাপারে সচেতন হতে হবে। নেতাকর্মী ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের এ বিষয়ে কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়ার নির্দেশ দেন সেতুমন্ত্রী। ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে না আসা পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে সারা দেশে পরিচ্ছন্নতা অভিযান চলবে বলেও জানান ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, ‌সারা বাংলাদেশে যতদিন না পর্যন্ত পর্যন্ত আমরা এডিস মশাকে নিয়ন্ত্রণে আনতে না পারব ততদিন পর্যন্ত এই পরিচ্ছতা অভিযান, এই সচেতনামূলক কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে। কিছুদিনের মধ্যেই মশা মারার কার্যকরী ওষুধ দেশে আসবে জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, জনগণ কার্যকর মশা মারা ওষুধের প্রয়োগ চান। সংশ্লিষ্টদের সেদিকে নজর দিতে হবে।
ফখরুলসহ বিএনপির চার শীর্ষ নেতার জামিন আবেদন
০৬আগস্ট,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ভয়ভীতি ও হত্যার হুমকির অভিযোগের মামলায় বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ দলটির চার শীর্ষ নেতার আগাম জামিন চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করা হয়েছে। মির্জা ফখরুল ইসলাম ছাড়া অন্যরা হলেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী ও গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। আজ মঙ্গলবার হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় তাঁদের পক্ষে জামিন আবেদন করা হয়। এ বিষয়ে বিএনপি নেতাদের পক্ষে আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন জানান, মিথ্যা ও হয়রানির জন্যই বিএনপি নেতাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার হাইকোর্টের বিচারপতি শেখ মো. জাকির হোসেন ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চে এ আবেদনের ওপর শুনানি অনুষ্ঠিত হবে। আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করবেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন। তাঁর সঙ্গে থাকবেন অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন। এর আগে ৫ আগস্ট ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট সত্যব্রত শিকদারের আদালতে জননেত্রী পরিষদের সভাপতি এ বি সিদ্দিকী বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান, দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ নয়জনের বিরুদ্ধে ভয়ভীতি, হত্যার হুমকির অভিযোগে মামলার আবেদন জানান। অন্য আসামিরা হলেন—বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমানউল্লাহ আমান, বুয়েটের বহিষ্কৃত শিক্ষক হাফিজুর রহমান রানা ও ছাত্রদল নেতা এমদাদুল হক ভূঁইয়া। মামলায় বাদী তাঁর অভিযোগে বলেন, ‘চলতি বছরের ২৩ জুলাই বুয়েটের বহিষ্কৃত শিক্ষক হাফিজুর রহমান রানা তাঁকে একটি চিঠি পাঠান। চিঠিতে ১৫ আগস্ট ইসলামিক স্টেট (আইএস) দিয়ে বাদীসহ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও শেখ মুজিবুর রহমানের পরিবারের সদস্যদের হত্যার হুমকি দেওয়া হয়। এ ছাড়া বোমা মেরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিক্ষেত্র উড়িয়ে দেওয়া হবে বলে চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে। বলা হয়েছে, পরে তারেক রহমানের নেতৃত্বে গঠন করা হবে নতুন বাংলাদেশ। তারেক রহমান আইএসের সঙ্গে চুক্তি করেছেন দাবি করে বাদী এ বি সিদ্দিকী আসামিদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির আবেদন করেন। পরে মামলার শুনানি নিয়ে আসামিদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন ঢাকা মহানগর হাকিম সত্যব্রত শিকদার। তাই এ মামলায় জামিন চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন জানান বিএনপির চার শীর্ষ নেতা।
ডেঙ্গুর বিরুদ্ধে আ.লীগের অ্যাকশন শুরু
৩১জুলাই২০১৯,বুধবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ডেঙ্গু প্রতিরোধ ও সচেতনতা তৈরিতে তিনদিনের কর্মসূচী শুরু করেছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। বুধবার (৩১ জুলাই) রাজধানীর ধানমণ্ডি লেকে দেশব্যাপী পরিস্কার রাখি চারপাশের পরিবেশ, পরিছন্ন সমাজ- ডেঙ্গুমুক্ত বাংলাদেশ স্লোগানে কর্মসূচির উদ্বোধন করা হয়। কর্মসূচীর উদ্বোধন করে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, আমরা ভাষণে বিশ্বাস করি না, ডেঙ্গুর বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগের অ্যাকশন শুরু হয়ে গেল। মশা মানুষের চেয়ে শক্তিশালী এমন কিছু নয় যে আমরা এর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ করতে পারব না, বিজয়ী হতে পারব না, ইনশাআল্লাহ আমরা ডেঙ্গুর বিরুদ্ধেও বিজয়ী হব। তিনি বলেন, এ কর্মকাণ্ড নিয়ে প্রশ্ন না করে আসুন, আমরা একযোগে কাজ করি। অ্যাকশন প্রোগ্রাম একটি কঠিন চ্যালেঞ্জ, এই চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সবারই দায়িত্ব আছে। আসুন, আমরা একযোগে এ কর্মসূচিকে সফল করে তুলি। ওবায়দুল কাদের আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে আমরা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ভয়ঙ্কর ডেঙ্গু মশার বিস্তার রোধকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়েছি। শেখ হাসিনার নির্দেশ- পরিচ্ছন্ন ডেঙ্গুমুক্ত বাংলাদেশ। আমরা সেটি সফল করার জন্য কাজ করছি। আমরা ভাষণে বিশ্বাস করি না। সারা বাংলাদেশের সব সিটি করপোরেশন, জেলা, উপজেলা, ইউনিয়ন, ওয়ার্ড পর্যায়ে তিন দিনব্যাপী এ কর্মসূচি চলবে।
ডেঙ্গু ও গুজব প্রতিরোধে মসজিদের ইমামদের জুমার খুতবায় আলোচনা করার আহ্বান: কাদের
৩০জুলাই২০১৯,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বিএনপি বন্যার্তদের পাশেও দাড়াতে পারেনি বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন- যাদের ব্যর্থতার দগদগে ঘা রয়েছে তারাই ঢাকার দুই মেয়র ও স্বাস্থ্য মন্ত্রীর পদত্যাগের দাবি করেন। মঙ্গলবার (৩০ জুলাই) দুপুরে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামী লীগের এক বিশেষ সভায় তিনি এসব মন্তব্য করেন। ওবায়দুল কাদের আরো বলেন- আন্দোলনে ব্যর্থ, নির্বাচনে ব্যর্থ ও বিরোধী দল হিসেবে ভূমিকা না রাখতে পারার ব্যর্থতার জন্য বিএনপিরই টপ টু বটম পদত্যাগ করা উচিত। এদিকে ডেঙ্গু প্রতিরোধে সারা বাংলাদেশে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ‘পরিষ্কার রাখি চারপাশের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন সমাজ- ডেঙ্গুমুক্ত বাংলাদেশ’ শীর্ষক ৩ দিনব্যাপী কর্মসূচি শুরু করছে আওয়ামী লীগ। আগামী ৩১ জুলাই, ২ ও ৩ আগস্ট বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত একযোগে সারাদেশে পরিচ্ছন্নতা কর্মসূচি চলবে এর প্রস্তুতি হিসেবে এই সভা করলো দলটি।

রাজনীতি পাতার আরো খবর