সব উপজেলায় মুজিবমঞ্চ হবে: সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী
১২ফেব্রুয়ারী,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: দেশের সব উপজেলায় একটি করে মুজিবমঞ্চ স্থাপন করা হবে বলে জানিয়েছেন সংস্কৃতিবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কেএম খালিদ। সম্প্রতি জাতীয় সংসদে সরকারি দলের সদস্য অসীম কুমার উকিলের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, মুজিববর্ষ উপলক্ষে থিম সং নির্বাচনসহ সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় ২৫টি কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। এর মধ্যে আছে সব উপজেলায় মুজিবমঞ্চ স্থাপন। প্রতিমন্ত্রী বলেন, মুজিববর্ষ উপলক্ষে ক্ষণগণনার জন্য জেলা পর্যায়ে ৫০ হাজার এবং উপজেলা পর্যায়ে ২৫ হাজার টাকা করে প্রদান করা হয়েছে। আর আগামী ৭ থেকে ২৬ মার্চ পর্যন্ত প্রতিদিন সাংস্কৃতিক কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা হবে। এ উপলক্ষে সব জেলা-উপজেলায়- তোমাকেই খুঁজছে বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ শীর্ষক সাংস্কৃতিক প্রতিভা অন্বেষণ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা হবে। এ ছাড়া যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের আয়োজনে ও সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে ৯ থেকে ২৪ জুলাই ঢাকা ওআইসি ইয়ুথ ক্যাপিটাল এবং বঙ্গবন্ধু ওআইসি ইয়ুথ আর্ট প্রদর্শনী এবং ১৫ থেকে ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০ ডিবেট কম্পিটিশন হবে। তিনি বলেন, ২০২০ সালকে মুজিববর্ষ, ২০২১ সালকে ডিজিটাল বাংলাদেশ বর্ষ, ২০৩০ সালকে এসডিজিবর্ষ ও ২০৪১ সালকে উন্নত বাংলাদেশবর্ষ হিসেবে উদ্যাপন করতে ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। প্রতিমন্ত্রী জানান, আধুনিক বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে বাংলাদেশের সুস্থ সংস্কৃতি বিকাশে সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয় স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদি বিভিন্ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে। ১০ জানুয়ারি থেকে মুজিববর্ষের কার্যক্রম শুরু হয়েছে। মাধ্যমিক বিদ্যালয়গুলোয় সংস্কৃতিচর্চা কার্যক্রম চলমান রয়েছে। দেশের ইতিহাস, ঐতিহ্য সংরক্ষণ ও সম্প্রসারণের লক্ষ্যে ৫০৯টি পুরাকীর্তি সংরক্ষণ করা হয়েছে। জাতীয় জাদুঘরের আধুনিকায়ন করা হচ্ছে এবং ভার্চুয়াল গ্যালারি প্রবর্তন করা হয়েছে। ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর ৭টি প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর নিজস্ব জীবনধারা সম্পর্কে প্রশিক্ষণসহ বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। তিনি বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ বর্ষে ই-কপিরাইট রেজিস্ট্রেশন, জাদুঘরগুলোয় ই-টিকিটিংসহ বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা হবে।
জরিমানা দিয়ে লেবানন থেকে ফিরছেন ৪৭১ বাংলাদেশি
১২ফেব্রুয়ারী,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: লেবানন থেকে এক বছরের জরিমানা ও বিমানের টিকিটের মূল্য পরিশোধ করে দেশে ফিরে আসছেন ৪৭১ বাংলাদেশি। আগামী ১৫ থেকে ২৩ ফেব্রুয়ারির মধ্যে তিন দফায় তারা দেশে ফিরবেন। তাদের মধ্যে শারীরিকভাবে অসুস্থ রয়েছেন ২৪ জন। লেবাননে বাংলাদেশ দূতাবাস কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, বৈরুত থেকে এয়ার এরাবিয়ার ৬টি ফ্লাইটে দেশে ফিরবেন ওই ৪৭১ প্রবাসী বাংলাদেশি। গতকাল মঙ্গলবার রাজধানী বৈরুতে বাংলাদেশ দূতাবাসের হলরুমে নারী-পুরুষ মিলিয়ে ৪৭১ জনের হাতে বিমান টিকিট তুলে দেন লেবাননে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আব্দুল মোতালেব সরকার। প্রবাসীরা টিকিট পেয়ে বৈরুতস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসকে ধন্যবাদ জানান। এ সময় শ্রম সচিব আব্দুল্লাহ আল মামুনসহ দূতাবাসের কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রদূত বলেন, গত পাঁচ মাস ধরে লেবাননে চলমান অর্থনৈতিক অস্থিরতা ও ডলার সংকটের প্রভাব পড়েছে বিদেশি শ্রমিকদের উপর। বেশিরভাগ শ্রমিক চাকরিচ্যুত হওয়ার পাশাপাশি তাদের বৈধতা হারিয়ে স্বেচ্ছায় দেশে যাওয়ার জন্য দূতাবাসের সাহায্য কামনা করেছেন। রাষ্ট্রদূত আশ্বস্ত করেন, যারা স্বেচ্ছায় দেশে যেতে ইচ্ছুক তাদের সবারই নাম নিবন্ধন পর্যায়ক্রমে নেওয়া হবে। বিমানের টিকিট নিতে আসা বৈধ কাগজবিহীন প্রবাসীরা জানান, লেবাননের বর্তমান অবস্থা খুবই ভয়াবহ। আগের মতো কাজ পাওয়া যাচ্ছে না। কাজ করলেও মালিক সঠিকভাবে বেতন পরিশোধ করছেন না। কাজ হারিয়ে অনেকেই বেকার সময় পার করছেন। অনেকেই দেশ থেকে টাকা এনে বাসা ভাড়া দিচ্ছেন। লেবানন প্রবাসীদের একজন বলেন, অপেক্ষায় ছিলাম পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে আসবে। এখন আর পারছি না। তাই দেশে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। বৈরুত দূতাবাসকে অনুরোধ জানাই যেন আমাদেরকে স্বল্প সময়ে দেশে পাঠানোর ব্যবস্থা করে। এর আগে দুই ধাপে বৈরুত দূতাবাসের বিশেষ কর্মসূচির আওতায় স্বেচ্ছায় দেশে ফিরতে ইচ্ছুক প্রায় ৫ হাজার অবৈধ প্রবাসী বাংলাদেশি দূতাবাসে নাম নিবন্ধন করেছিলেন। এ নিয়ে তিন দফায় ১ হাজার অবৈধ প্রবাসী দেশে ফেরার সুযোগ পেলেন। আরও প্রায় ২০ হাজার কাগজপত্রবিহীন বাংলাদেশি বৈরুত দূতাবাসে স্বেচ্ছায় নাম নিবন্ধন করে দেশে যাওয়ার অপেক্ষায় আছে। তাদের মধ্যে বেশিরভাগই নারী শ্রমিক।- আলোকিত বাংলাদেশ
আ.লীগ ক্ষমতায় থাকলে দেশের উন্নতি হয় সেটি প্রমাণিত
১২ফেব্রুয়ারী,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে দেশের উন্নতি হয়- সেটি আজ প্রমাণিত সত্য বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ বুধবার সকালে গণভবনে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে পাঁচটি প্রকল্পের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন। প্রকল্পগুলোর মধ্যে রয়েছে- বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব হাই-টেক পার্ক, রাজশাহীতে নির্মিত শেখ কামাল আইটি ইনকিউবেটর অ্যান্ড ট্রেনিং সেন্টার, শতভাগ বিদ্যুতায়িত সাতটি জেলা, একটি বিদ্যুৎ উৎপাদনকেন্দ্র এবং ১৮টি জেলার ২৩টি উপজেলায় শতভাগ বিদ্যুতায়ন। অনুষ্ঠানে শেখ হাসিনা বলেন, দেশের মানুষের কথা ভেবেই উন্নয়নকাজ অব্যাহত রেখেছে সরকার। নতুন প্রজন্ম যেন বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে পারে তাদের সেভাবেই শিক্ষিত করতে হবে। এ লক্ষ্যে সরকার প্রযুক্তি শিক্ষায় জোর দিয়েছে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রকল্পগুলোর উদ্বোধনের পর সংশ্লিষ্ট উপকারভোগীদের সঙ্গে কথা বলেন এবং তাদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস। অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব হাই-টেক পার্ক, রাজশাহীতে নির্মিত শেখ কামাল আইটি ইনকিউবেটর অ্যান্ড ট্রেনিং সেন্টার, এর ওপর একটি ভিডিওচিত্র পরিবেশন করেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সচিব এ এন এম জিয়াউল আলম। বিদ্যুৎ বিভাগের ওপর উপস্থাপনা এবং ভিডিওচিত্র প্রদর্শন করেন বিদ্যুৎ বিভাগের সচিব ড. সুলতান আহমদ।
টেলিটককে আরো দক্ষতার সঙ্গে পরিচালনার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর
১১ফেব্রুয়ারী,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সরকারি মোবাইল সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান টেলিটককে আরো দক্ষতার সঙ্গে কার্যক্রম পরিচালনার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মঙ্গলবার (১০ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় এ নির্দেশনা দেন প্রধানমন্ত্রী। সভায় গ্রাম পর্যায়ে টেলিটকের নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ ও ৫জি সেবা প্রদানে নেটওয়ার্ক আধুনিকায়ন প্রকল্পটি একনেক সভায় উপস্থাপন করা হলেও অনুমোদন দেয়া হয়নি। তৃতীয় কোনো পার্টিকে দিয়ে প্রকল্পের ফিজিবিলিটি স্ট্যাডি করে পুনরায় একনেক সভায় উপস্থাপনের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। একনেক সভা শেষে পরিকল্পনা সচিব নুরুল আমিন জানান, গ্রাম পর্যায়ে টেলিটকের নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ ও ৫জি সেবা প্রদানে নেটওয়ার্ক আধুনিকায়ন প্রকল্পটি উপস্থাপন করা হলে সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের জন্য সেটি আবার ফেরত দেয়া হয়েছে। এক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্দেশনা দিয়ে বলেছেন টেলিটকের দায়িত্ব বাড়াতে হবে। দক্ষতার সঙ্গে টেলিটকের কার্যক্রম বাড়াতে হবে। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারে আমার গ্রাম, আমার শহর বাস্তবায়নে প্রতিটি গ্রামে আধুনিক প্রযুক্তির সেবা পৌঁছে দিতে দেশজুড়ে ফাইভজিনেটওয়ার্ক স্থাপন করবে সরকার। এ লক্ষ্যে তিন হাজার ২৭৯ কোটি টাকার প্রকল্প চেয়েছিলো টেলিটক। বর্তমানে শহরাঞ্চলে বিদ্যমান টেলিটকের ফোরজি নেটওয়ার্ক ইউনিয়ন ও গ্রাম পর্যন্ত প্রসারিত করে গ্রামাঞ্চলের মানুষকে সুলভ মূল্যে দ্রুতগতির ফোরজি ইন্টারনেট সেবা দেওয়া হবে। পর্যায়ক্রমে সরকার ঘোষিত লক্ষ্য অনুসারে, ২০২১-২৩ সালের মধ্যে বাংলাদেশের প্রতিটি গ্রামে ৫জি প্রযুক্তিনির্ভর মোবাইল সেবা নিশ্চিত করার উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। চলতি সময় থেকে ২০২২ সালের জুন মেয়াদে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে।
ফেসবুকে ক্ষতিকর উপাদানে লাইক দেয়াও অপরাধ : মনিরুল
১১ফেব্রুয়ারী,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ফেক আইডি খোলা অপরাধ। এছাড়া ক্ষতিকারক উপাদান (মন্তব্য, সংবাদ, ছবি, ভিডিও, অডিও) প্রকাশ করা এবং এতে মন্তব্য, শেয়ার কিংবা লাইক দেয়াও অপরাধ। এসব করলে ডিজিটাল সিকিউরিটি আইন অনুযায়ী শাস্তির আওতায় আনা সম্ভব। মঙ্গলবার (১১ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে আইসিটি টাওয়ারে নিরাপদ ইন্টারনেট দিবস ২০২০ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল বিভাগের (সিটিটিসি) প্রধান মনিরুল ইসলাম। তিনি বলেন, দেশে যেসব কনটেন্টকে (সংবাদ, মন্তব্য, ভিডিও, অডিও) ক্ষতিকারক বলি, সেগুলোকে তিনটা ক্যাটাগরিতে ভাগ করা যায়। পর্নোগ্রাফি, রাজনৈতিক ও সামাজিক বিষয়ে অসত্য সংবাদ, গুজব, ঘৃণা ছড়ানো এবং জঙ্গি উপাদান। এ তিন ধরনের কনটেন্টে লাইক দেয়া, শেয়ার করা, মন্তব্য করা কিংবা এ সংক্রান্ত স্ট্যাটাস আপলোড করা অপরাধ। পর্নোগ্রাফি আইন ও ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনের অধিকাংশ অপরাধই অজামিনযোগ্য। এসব ক্ষেত্রে সঙ্গে সঙ্গে মামলা নিয়ে গ্রেফতারের সুযোগ রয়েছে পরোয়ানা ছাড়াই। মনিরুল ইসলাম বলেন, ফেসবুকে ফেক আইডি খোলা, ডিজিটাল সিকিউরিটি আইন অনুযায়ী অপরাধ। শুধু ফেক আইডি খোলার অপরাধেই কাউকে সাজার আওতায় আনা সম্ভব। আমরা যখন চিহ্নিত করতে পারি এটা ফেক আইডি কিংবা এখান থেকে ক্ষতিকর জিনিস ছড়ানো হচ্ছে- তখন ব্যবস্থা নেয়ার চেষ্টা করি। সরকারের কাছে ক্ষতিকারক মনে হলেও (ফেসবুকের) কমিউনিটির স্ট্যান্ডার্ডের স্বার্থের কারণে ফেসবুকের কাছ থেকে প্রত্যাশিত সেবা পাওয়া যায় না বলেও অভিযোগ করেন মনিরুল ইসলাম। আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক বলেন, দেশের আইনে কেউ সিমকার্ড কিনতে গেলে এনআইডি দিতে হয়। অর্থাৎ ১৮ বছরের নিচের কেউ সিমকার্ডের মালিক হতে পারে না। কিন্তু ফেসবুকের নীতি অনুযায়ী, কেউ ১৩ বছরের উপরে হলেই অ্যাকাউন্ট খুলতে পারে। সরকারের পক্ষ থেকে ফেসবুক অ্যাকাউন্ট খোলার জন্য ১৮ বছরের বাধ্যবাধকতা ও এনআইডি ব্যবহার বাধ্যতামূলক করার প্রস্তাব দেন জুনায়েদ আহমেদ পলক। তবে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ফেসবুকের দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়ার হেড অব পলিসি প্রোগ্রামস শেলি থাকরাল এ প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেন। এ সময় ইউনিসেফ বাংলাদেশের প্রতিনিধি তোমো হোজুমি বলেন, সাইবার প্রযুক্তির ঝুঁকি ও সম্ভাবনা বিবেচনা করা এবং ঝুঁকি কমিয়ে আনতে সম্মিলিত প্রজ্ঞা ও শক্তি ব্যবহারের সময় এসেছে। শিশুদের ইন্টারনেট ব্যবহার বন্ধ করা কোনো সমাধান হতে পারে না। কারণ এটি একই সঙ্গে বিশাল জ্ঞান ও তথ্যের উৎস হিসেবে কাজ করে, যা আজকের এই বিশ্বে শিশুদের জন্য প্রয়োজন।- জাগো নিউজ24
মাদককারবারিদের দেশ থেকে নিশ্চিহ্ন করা হবে: Rab মহাপরিচালক
১১ফেব্রুয়ারী,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: Rab এর মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলায় মাদকসেবী ও মাদক ব্যবসায়ীদের স্থান নেই। যেখানেই লুকিয়ে থাক না কেন তাদের খুঁজে বের করে দেশ থেকে নিশ্চিহ্ন করা হবে। এই কাজে সহযোগিতা করার জন্য আগামীর বাংলাদেশের সোনালি ভবিষ্যৎ ছাত্র-ছাত্রীদের এগিয়ে আসতে হবে। মঙ্গলবার (১১ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে বগুড়ায় Rab-12 আয়োজিত মাদকবিরোধী সাইকেল Raillyর উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। বেনজীর আহমেদ বলেন, বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের রোল মডেল। এ উন্নয়নের বড় বাধা হচ্ছে মাদক। দেশের ৮০ লাখ মানুষ মাদকসেবী। দেশে প্রতিদিন আড়াইশ কোটি টাকা শুধু মাদক সেবনে অপচয় হয়। বগুড়া সরকারি আজিজুল হক কলেজে (পুরাতন ভবন) আয়োজিত মাদকবিরোধী এ সাইকেল Railly তে অন্যান্যের মধ্যে Rab এর অতিরিক্ত মহাপরিচালক কর্নেল তোফায়েল মোস্তফা সারোয়ার, পুলিশের রাজশাহী রেঞ্জের ডিআইজি একেএম হাফিজ আকতার, সরকারি আজিজুল হক কলেজের অধ্যক্ষ শাজাহান আলী, বগুড়ার জেলা প্রশাসক ফয়েজ আহামেদ, বগুড়ার পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভূঞা, র‌্যাব-১২ এর কোম্পানি কমান্ডার লে. কর্নেল খায়রুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। সাইকেল Railly তে বগুড়া শহরের ১৯টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের এক হাজার ৮০০ ছাত্র-ছাত্রী অংশগ্রহণ করে। Railly টি আজিজুল হক কলেজের পুরাতন ভবন থেকে শুরু হয়ে শিববাটি, কালিতলা, দত্তবাড়ি, বড়গোলা, থানার মোড়, সাতমাথা হয়ে সেন্ট্রাল স্কুল মাঠে গিয়ে শেষ হয়।
একনেকে ৯ প্রকল্প অনুমোদন
১১ফেব্রুয়ারী,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) ২৮তম সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে দুই হাজার ৪২২ কোটি ২৭ লাখ টাকা ব্যয়ে ৯টি প্রকল্প অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে সরকার দেবে দুই হাজার ১০৮ কোটি ৪৫ লাখ এবং সংস্থার নিজস্ব অর্থায়ন ৩১৩ কোটি ৮২ লাখ টাকা। তবে সম্ভাব্যতা যাচাই না হওয়ায় একটি প্রকল্প অনুমোদন দেয়নি একনেক। আজ মঙ্গলবার শেরেবাংলা নগরে এনইসি সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত একনেক সভার সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপারসন শেখ হাসিনা। সভা শেষে পরিকল্পনা কমিশনের সচিব মো. নূরুল আমিন সাংবাদিকদের সামনে এসব তথ্য তুলে ধরেন। সচিব জানান, আজকের একনেক সভায় সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের দুটি প্রকল্প যথাক্রমে বানেশ্বর (রাজশাহী)-সারদা-চারঘাট-বাঘা-লালপুর (নাটোর)-ঈশ্বরদী (পাবনা) (আর-৬০৬) জেলা মহাসড়ককে আঞ্চলিক মহাসড়কের মানে উন্নীতকরণ প্রকল্প ও সৈয়দপুর-নীলফামারী মহাসড়ক (আর-৫৭০) প্রশস্তকরণ ও মজবুতকরণ (প্রথম সংশোধিত) প্রকল্প; পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের হবিগঞ্জ জেলার বিবিয়ানা বিদ্যুৎ কেন্দ্রসমূহের সম্মুখে কুশিয়ারা নদীর উভয় তীরের প্রতিরক্ষা প্রকল্প; শিল্প মন্ত্রণালয়ের তিন প্রকল্প যথাক্রমে ‘তেজগাঁওয়ে বিসিকের বহুতল ভবন নির্মাণ (প্রথম সংশোধিত) প্রকল্প, বিসিক প্লাস্টিক শিল্পনগরী (প্রথম সংশোধিত) প্রকল্প ও ‘বিসিকের ৮টি শিল্পনগরী মেরামত ও পুনঃনির্মাণ প্রকল্প; বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের ভারত-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ পাইপলাইন প্রকল্পের প্রয়োজনীয় জমি অধিগ্রহণ ও হুকুম দখল এবং অন্যান্য আনুষঙ্গিক সুবিধাদি উন্নয়ন’ প্রকল্প, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকতর অবকাঠামো উন্নয়ন (প্রথম সংশোধন) প্রকল্প এবং স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৫০ শয্যা ও জেলা সদর হাসপাতালে ১০ শয্যার কিডনি ডায়ালাইসিসি সেন্টার স্থাপন’ প্রকল্প অনুমোদন দেয়া হয়েছে।
সেন্টমার্টিনে ট্রলার ডুবি, ১৫ জনের লাশ উদ্ধার
১১ফেব্রুয়ারী,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বঙ্গোপসাগরের সেন্টমার্টিনের ছেঁড়াদ্বীপের কাছে এক ট্রলার ডুবির ঘটনা ঘটেছে। এতে এখন পর্যন্ত ৬৩ জনকে জীবিত ও ১৫ ব্যক্তির মৃতদেহ উদ্ধার করেছে নৌবাহিনী ও কোস্টগার্ড। এ ঘটনায় এখনো অনেক ব্যক্তি নিখোঁজ রয়েছে বলে জানা গেছে। সেন্টমার্টিন কোস্টগার্ডের স্টেশন কমান্ডার লে. কমান্ডার নাইম উল হক বলেন, মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টা পর্যন্ত ১৫ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। পাশাপাশি ৬৩ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে। নিখোঁজদের উদ্ধারের চেষ্টা করছি আমরা। নৌবাহিনী কর্মকর্তা বদিউজ্জামান সাফিন জানান, এখন পর্যন্ত ৬৩ ব্যক্তিকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে। অবৈধভাবে মালয়েশিয়া যাবার পথে এই দুর্ঘটনা ঘটে বলে ধারনা করা হচ্ছে। মৃত ব্যক্তিরা সবাই রোহিঙ্গা বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে।
ঝুঁকি আছে, তবে আতঙ্কের কিছু নেই: আইইডিসিআর
১০ফেব্রুয়ারী,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: নতুন করোনা ভাইরাসের (২০১৯-এনসিওভি) ঝুঁকিতে আছে বাংলাদেশ, তবে এ বিষয়ে আতঙ্কের কিছু নেই বলে জানিয়েছে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর)। আজ সোমবার আইইডিসিআর সম্মেলন কক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে একথা বলেন প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা। রোববার সিঙ্গাপুরে বাংলাদেশি এক নাগরিক করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন বলে জানা গেছে। সেক্ষেত্রে সিঙ্গাপুরের সঙ্গে আমাদের ফ্লাইটগুলোর কী হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, কেবল সিঙ্গাপুর নয়, যেসব দেশে লোকাল ট্রান্সমিশন রয়েছে তাদের সঙ্গেও আমাদের ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ আছে। সিঙ্গাপুরে প্রতিদিন আমাদের অনেক ফ্লাইট যায়। সেদিক থেকে আমাদের ঝুঁকি রয়েছে বলেই আমরা প্রস্তুতি নিয়েছি। অধ্যাপক ডা. ফ্লোরা আরো বলেন, সিঙ্গাপুরে একজন বাংলাদেশি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন বলে বাংলাদেশের হাইকমিশন জানিয়েছে। ওই শ্রমিক সেখানে দেড় বছর ধরে কাজ করছেন। অন্য অসুস্থতার কারণে তিনি হাসপাতালে যাওয়ার পর পরীক্ষাতে তার শরীরে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া যায়। যেহেতু বাইরের দেশে রোগীর গোপনীয়তা খুব কঠিনভাবে মেনে চলা হয়, তাই তার সম্পর্কে বিস্তারিত জানা যায়নি। সংবাদ সম্মেলনে তিনি জানান, গত ২১শে জানুয়ারি থেকে সোমবার সকাল পর্যন্ত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ২৬ হাজার ৫২২ জনের স্ক্রিনিং করা হয়েছে। তবে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত কাউকে পাওয়া যায়নি। আর আইইডিসিআরের হটলাইনে কল এসেছে ১২০টি। এর মধ্যে ৮৪টি কল করোনা ভাইরাস সম্পর্কিত। এছাড়া নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৫৫ জনের। তবে কারো মধ্যে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া যায়নি। তাই বলা যায়, বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি নেই। গৃহপালিত প্রাণীর মধ্যে করোনা ভাইরাস থাকতে পারে কীনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ঘরের পোষা প্রাণী নোভেল করোনা ভাইরাস আক্রান্ত হয় এমন কোনও প্রমাণ এখন পর্যন্ত পাওয়া যায়নি। আশকোনা হজ ক্যাম্প এবং সম্মিলিতি সামরিক হাসপাতালে কোয়ারেন্টাইনে থাকা উহানফেরতদের বিষয়ে ডা. সেব্রিনা ফ্লোরা বলেন, তারা ১লা ফেব্রুয়ারি এসেছেন। ১৪ দিনের ‘ইনকিউবিশন পিরিয়ড’ হিসিবে আগামী ১৫ই ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত কোয়ারেন্টাইনে রাখা হবে। ১৬ই ফেব্রুয়ারি তারা বাড়ি ফিরবেন বলে প্রাথমিকভাবে আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এরপরও যদি তারা কোনও অসুবিধা বোধ করেন তাহলে তারা আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করবেন।-

জাতীয় পাতার আরো খবর