বৃহস্পতিবার শপথ নিবেন ঢাকার দুই নগর পিতা
২৬ফেব্রুয়ারী,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: আগামীকাল বৃহস্পতিবার ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের নব নির্বাচিত মেয়র এবং কাউন্সিলররা শপথ নিবেন। এদিন সকাল সাড়ে দশটায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের শাপলা হলে শপথ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে বলে স্থানীয় সরকার বিভাগের জ্যেষ্ঠ সচিব হেলালুদ্দীন আহমেদ জানিয়েছেন। নিয়ম অনুযায়ী, প্রধানমন্ত্রী নবনির্বাচিত দুই মেয়রকে শপথ পড়াবেন। আর দুই সিটি করপোরেশনের সাধারণ ও সংরক্ষিত ওয়ার্ডের ১৭২ জন কাউন্সিলকে শপথ পড়াবেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। উল্লেখ্য, ১ ফেব্রুয়ারি ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের নির্বাচনের ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। এতে উত্তরে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মো. আতিকুল ইসলাম এবং দক্ষিণে শেখ ফজলে নূর তাপস নির্বাচিত হন। এদিকে বৃহস্পতিবার শপথ নিলেও মেয়রের দায়িত্ব পাবেন আগামী মে মাসে। নয় মাস উত্তর সিটির মেয়রের দায়িত্ব পালন করা আতিক আইনি বাধ্যবাধকতার কারণে পদ ছেড়ে নির্বাচনে অংশ নেন। অন্যদিকে দক্ষিণে মেয়রের পদে থাকা সাঈদ খোকন নির্বাচনে অংশ নেননি। মে মাসে শেষ হচ্ছে খোকনের মেয়াদ।
ইউজিসির সঙ্গে ফের বৈঠকে উপাচার্যরা
২৬ফেব্রুয়ারী,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সকল পাবলকি বিশ্ববিদ্যালয়ে সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার জন্য বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনর (ইউজিসি) সিদ্ধান্তে পিছিয়ে যায় পাঁচটি বিশ্ববিদ্যালয়। ফলে উপাচার্যদের সঙ্গে আবারও বৈঠকে বসেছে ইউজিসি। আজ বুধবার বিকালে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে ইউজিসি ভবনে এ বৈঠক শুরু হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের এ নিয়ন্ত্রক সংস্থাটির জনসংযোগ বিভাগের কর্মকর্তা শামসুল আরেফিন বলেন,অধিকাংশ বিশ্ববিদ্যালয় সমন্বিত পদ্ধতিতে এগিয়ে যাওয়ার পক্ষে। সেক্ষেত্রে বুধবারের সভায় সবার মতামত নিয়ে মার্চের প্রথম দিকে একটি রূপরেখা দেয়ার চেষ্টায় ইউজিসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক কাজী শহীদুল্লাহ আবারও সব উপাচার্যদের নিয়ে বৈঠকে বসেছেন। বৈঠকের মাধ্যমে আশা করি ভাল ফল আসবে। এর আগে গত ১১ ফেব্রুয়ারি সব উপাচার্যের সঙ্গে ইউজিসির বৈঠকে সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক (সম্মান) শ্রেণিতে ভর্তি জন্য কেন্দ্রীয়ভাবে সমন্বিত পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। ঐ বৈঠকে একটি খসড়া নীতিমালাও তৈরি করা হয়। বৈঠকের পর ইউজিসির এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষায় সম্মত হয়েছে। তবে ঢাকা, রাজশাহী, চট্টগ্রাম, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ও বুয়েটের শিক্ষা পরিষদ (অ্যাকাডেমিক কাউন্সিল) কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষার বিপক্ষে মত দেয়। এরপর বিভিন্ন মহলে বিষয়টি বেশ আলোচনার সৃষ্টি করে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, শিক্ষার্থীদের দুর্ভোগ ও অভিভাবকদের ব্যয় লাঘবে গত কয়েক বছর ধরে শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও ইউজিসি সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার মাধ্যমে সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির উদ্যোগ নেয়। ইউজিসি উপাচার্যদের নিয়ে বৈঠক করে সিদ্ধান্ত জানালেও তা বর্তমান পরিস্থিতিতে এসে দাঁড়ায়। উল্লেখ, বর্তমানে দেশে ৪৬টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে। এছাড়া, সাতটি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার মাধ্যমে ভর্তি কার্যক্রম চলছে। মেডিকেল কলেজেও সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার ব্যবস্থা রয়েছে।
উরুগুয়ে ও লন্ডন সফরে রাষ্ট্রপতি
২৬ফেব্রুয়ারী,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: উরুগুয়েতে অনুষ্ঠেয় প্রেসিডেন্টসিয়াল কমান্ড ট্রান্সফার অনুষ্ঠানে যোগ দিতে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ঢাকা ছেড়েছেন। সেখান থেকে তিনি লন্ডনে যাবেন ব্যক্তিগত কাজে। সব মিলিয়ে মোট ১১ দিনের সফরে মঙ্গলবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) রাতে তিনি ঢাকা ত্যাগ করেন। এমিরেটস এয়ারলাইন্সের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইট ইকে-৫৮৫ রাষ্ট্রপতি এবং তার সফর সঙ্গীদের নিয়ে মঙ্গলবার রাত ১টা ৩৫ মিনিটে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করেছে। বঙ্গভবনের মুখপাত্র এ তথ্য জানিয়েছেন। রাষ্ট্রপতির স্ত্রী রাশিদা খানম এবং বঙ্গভবনের সংশ্লিষ্ট সচিবরা তার সঙ্গে আছেন। স্বরাষ্টমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান, তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী, ঢাকায় ব্রাজিলের রাষ্ট্রদূত, মন্ত্রিপরিষদ সচিব, তিন বাহিনীর প্রধানরা, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্যসচিব, স্বরাষ্ট্র সচিব, পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি), পররাষ্ট্র সচিব এবং বেসামরিক ও সামরিক উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বিমানবন্দরে রাষ্ট্রপতিকে বিদায় জানান। বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি ১ মার্চ উরুগুয়েতে প্রেসিডেন্টসিয়াল কমান্ড ট্রান্সফার অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন। সফরকালে রাষ্ট্রপতি লন্ডনে আরও কয়েকটি অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন। রাষ্ট্রপতি ৯ মার্চ দেশে ফিরবেন বলে আশা করা হচ্ছে। সূত্র: বাসস
যে কোন অর্জনের পেছনে দৃঢ় মনোবল এবং আত্মবিশ্বাস গুরুত্বপূর্ণ
২৬ফেব্রুয়ারী,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, যে কোন অর্জনের পেছনে একটি সুষ্ঠু পরিকল্পনা প্রয়োজন। আর যে কোন অর্জনে দৃঢ় মনোবল এবং আত্মবিশ্বাস সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ। তিনি আজ বুধবার দেশসেরা ১৭২ শিক্ষার্থীকে প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদক২০১৮ প্রদান কালে এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের শাপলা হলে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে শিক্ষার্থীদের মাঝে এই স্বর্ণপদক বিতরণ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ সময় তিনি আরও বলেন, আমাদের ছেলে-মেয়েরা অনেক মেধাবী। তারা একটু সুযোগ পেলেই অনেক ভালো ফল এনে দিতে পারে। বঙ্গবন্ধুর বাণী উদ্ধৃত করে শিক্ষকদের উদ্দেশে শেখ হাসিনা বলেন, শিক্ষকদের ওপর নির্ভর করে আগামী প্রজন্মের ভাগ্য। জাতির পিতার এই কথাটা আপনারা মনে রাখবেন। তারা (শিক্ষার্থীরা) যেনো সেভাবেই শিক্ষা পায়। আমাদের ছেলেমেয়েরা মেধাবী। প্রযুক্তিভিত্তিক শিক্ষার মাধ্যমে তারা আরও মেধাবী হয়ে গড়ে উঠছে। তিনি বলেন, ভবিষ্যতে দেশটা কীভাবে চলবে তার একটা পরিকল্পনা আমরা রেখে যাচ্ছি। আজকে যারা শিক্ষার্থী, আগামী দিনে তারাই দেশটাকে গড়ে তুলবে। শিক্ষার উন্নয়নে সরকারের ভূমিকার প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন, বিভিন্ন বিষয়ভিত্তিক বিশ্ববিদ্যালয় করে দিচ্ছি। মেরিটাইম ও অ্যারোস্পেস ইউনিভারসিটি করছি। আগে মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় ছিল না, তাও করেছি। এখন প্রতিটি বিভাগে একটি করে মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় করে দেবো। বিজ্ঞান শিক্ষাকে আরও আকর্ষণীয় করার জন্য অনেকগুলো প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় করেছি। কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে কতো ছাত্র-ছাত্রী থাকবে সেটাও ঠিক করে দেওয়া হবে। প্রত্যেকটা প্রতিষ্ঠানে মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করতে ব্যবস্থা নিতে চাই। প্রসঙ্গত, বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) উদ্যোগে দেশের ৩৬টি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের এই স্বর্ণপদক দেয়া হয়। এবছর দেশের ৩৬টি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষদে সর্বোচ্চ নম্বর বা সিজিপিএ অর্জনকারী ১৭২ শিক্ষার্থীকে (৮৮ জন ছাত্রী ও ৮৪ জন ছাত্র) প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদক দেয়া হয়। ইউজিসির চেয়ারম্যান প্রফেসর কাজী শহীদুল্লাহর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন। অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি, শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস এবং ইউজিসির সদস্য প্রফেসর ড. মো. সাজ্জাদ হোসেন উপস্থিত ছিলেন। উল্লেখ্য, ২০১৭ সালে ১৬৩ জন শিক্ষার্থীকে প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদক প্রদান করা হয়। দেশের বিশ্ববিদ্যালসমূহের কৃতি শিক্ষার্থীদের মেধা বিকাশ ও অধ্যয়নে উৎসাহ প্রদানের জন্য ইউজিসি ২০০৫ সালে প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদক প্রবর্তন করেন।
৭ মার্চকে জাতীয় দিবস ঘোষণা হাইকোর্টের
২৫ফেব্রুয়ারী,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণকে জাতীয় ঐতিহাসিক দিবস ঘোষণা করে আগামি ১ মাসের মধ্যে গেজেট নোটিফিকেশন জারির নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। আজ মঙ্গলবার বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের বেঞ্চ এ আদেশ দেন। পাশাপাশি প্রত্যক জেলা উপজেলায় মুজিববর্ষের মধ্যেই বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি যথাযথ স্থানে স্থাপনের নির্দেশ দেন আদালত। আগামি এক মাসের মধ্যে সংশ্লিষ্টদের এ বিষয়ে প্রতিবেদন জমা দিতে হবে। আদালত পাঠ্যবইয়ে ৭ই মার্চের ইতিহাস কেন অন্তর্ভুক্ত করা হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছে। এ সংক্রান্ত হাইকোর্টের ২০০৯ সালের আদেশ কেন বাস্তবায়ন করা হয়নি সে বিষয়ে আগামি ১ মাসের মধ্যে লিখিত ব্যাখ্যা দিতে মন্ত্রী পরিষদ সচিবকে নির্দেশ দেন আদালত।
বিসমিল্লাহ গ্রুপের এমডিসহ ৭ জনকে ধরতে রেড অ্যালার্ট
২৫ফেব্রুয়ারী,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বিসমিল্লাহ গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) খাজা সোলেমান আনোয়ার চৌধুরী ও তার স্ত্রী গ্রুপটির চেয়ারম্যান নওরীন হাবিবসহ অর্থ পাচার মামলার ৭ পলাতক আসামিকে ধরতে রেড অ্যালার্ট জারি করেছেন হাইকোর্ট। মঙ্গলবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) এই অ্যালার্ট জারি করেন বিচারপতি নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কে এম হাফিজুল আলমের হাইকোর্ট বেঞ্চ। এছাড়া এ বিষয়ে কী পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে তা আগামী ৫ এপ্রিল আদালতকে জানাতে পুলিশের আইজিপি ও Rabর ডিজিকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। অর্থ পাচার মামলায় বিসমিল্লাহ গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) খাজা সোলেমান আনোয়ার চৌধুরী, তাঁর স্ত্রী ও গ্রুপের চেয়ারম্যান নওরীন হাবিবসহ নয়জনকে ১০ বছর করে কারাদণ্ডের আদেশ দেন আদালত। কারাদণ্ডের পাশাপাশি আসামিদের ৩০ কোটি ৬৭ লাখ ২৩ হাজার ৩৭৩ টাকা অর্থদণ্ড দেওয়া হয়। দণ্ডিত অপর আসামিরা হলেন- বিসমিল্লাহ গ্রুপের পরিচালক ও খাজা সোলেমানের বাবা সফিকুল আনোয়ার চৌধুরী, উপব্যবস্থাপনা পরিচালক আকবর আজিজ মুতাক্কি, মহাব্যবস্থাপক মোহাম্মদ আবুল হোসেন চৌধুরী, ব্যবস্থাপক রিয়াজউদ্দিন আহম্মেদ, নেটওয়ার্ক ফ্রেইট সিস্টেম লিমিটেডের চেয়ারম্যান মো. আক্তার হোসেন এবং জনতা ব্যাংকের কর্মকর্তা মোস্তাক আহমদ খান এবং এস এম শোয়েব-উল-কবীর। প্রসঙ্গত, ২০১৩ সালের নভেম্বর মাসে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) আসামিদের বিরুদ্ধে এ মামলা করে। পরে তদন্ত শেষে নয়জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দিলে আদালত আমলে নিয়ে ২০১৬ সালে বিচার শুরু করেন। দুদকের পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন মোশাররফ হোসেন কাজল।
সালমান শাহর মৃত্যুর পিবিআইয়ের চূড়ান্ত প্রতিবেদন আদালতে
২৫ফেব্রুয়ারী,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চিত্রনায়ক সালমান শাহর মৃত্যুর ঘটনায় পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) তদন্তের চূড়ান্ত প্রতিবেদন আদালতে জমা দেয়া হয়েছে। মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতের ডেসপাস শাখায় এ প্রতিবেদন জমা দেয়া হয়। ৬০০ পৃষ্টার প্রতিবেদনটি আদালতে জমা দেন পিবিআইয়ের পুলিশ পরিদর্শক সিরাজুল ইসলাম। ডেসপাস শাখার ইনচার্জ উপপরিদর্শক আবুল হাসান ভূইয়া ও সহকারী উপ পরিদর্শক হেলাল উদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এরআগে গতকাল সোমবার আলোচিত এ মামলার তদন্ত প্রতিবেদন তুলে ধরেন পিবিআইর প্রধান ডিআইজি বনজ কুমার মজুমদার। পিবিআইর এ প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলা চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় অভিনেতা সালমান শাহ হত্যাকান্ডের শিকার হননি, তিনি পারিবারিক কলহের জেরে আত্মহত্যা করেছিলেন। পিবিআই প্রধান বনজ কুমার মজুমদার বলেন, পিবিআইর তদন্ত কালে ঘটনার সময় উপস্থিত ও ঘটনায় সংশ্লিষ্ট ৪৪ জন সাক্ষীর জবানবন্দি ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬১ ধারায় এবং ১০ জনের সাক্ষ্য ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় লিপিবদ্ধ করা হয়। পাশাপাশি ঘটনা সংশ্লিষ্ট আলামত জব্দ করা হয়। এসব বিষয় পর্যালোচনায় দেখা যাচ্ছে, চিত্রনায়ক সালমান শাহ পারিবারিক কলহের জেরে আত্মহত্যা করেছেন। হত্যার অভিযোগের কোনো প্রমাণ মেলেনি বলেও প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়। পিবিআইর তদন্ত প্রতিবেদনে সালমান শাহের আত্মহত্যার পাঁচটি কারণ উল্লেখ করা হয়েছে। সেগুলো হলো- চিত্রনায়িকা শাবনূরের সঙ্গে সালমানের অতিরিক্ত অন্তরঙ্গতা, স্ত্রী সামিরার সাথে দাম্পত্য কলহ, মাত্রাধিক আবেগপ্রবণতার কারণে একাধিকবার আত্মঘাতী বা আত্মহত্যার চেষ্টা, মায়ের প্রতি অসীম ভালোবাসা জটিল সম্পর্কের বেড়াজালে পড়ে পুঞ্জীভূত অভিমানে রূপ নেয়া এবং সন্তান না হওয়ায় দাম্পত্য জীবনে অপূর্ণতা। ১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর মারা যান চিত্রনায়ক চৌধুরী মোহাম্মদ শাহরিয়ার (ইমন) ওরফে সালমান শাহ। ওই ঘটনায় তখন অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করেন তার বাবা কমরউদ্দিন আহমদ চৌধুরী (প্রয়াত)। পরে ১৯৯৭ সালের ২৪ জুলাই ছেলেকে হত্যা করা হয়েছে অভিযোগ করে মামলাটিকে হত্যা মামলায় রূপান্তরিত করার আবেদন জানান তিনি। অপমৃত্যু মামলার সঙ্গে হত্যাকান্ডের অভিযোগের বিষয়টি একসঙ্গে তদন্ত করতে অপরাধ তদন্ত বিভাগকে (সিআইডি) নির্দেশ দেন আদালত। পরে বিভিন্ন সংস্থার তদন্ত শেষে পিবিআইকে তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয়।
মুজিব বর্ষে ৩০০ আসনে বিশেষ স্বাস্থ্যসেবা ক্যাম্প
২৫ফেব্রুয়ারী,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী মুজিব বর্ষ উপলক্ষে দেশের ৩০০টি সংসদীয় আসনে একযোগে বিশেষ স্বাস্থ্যসেবা ক্যাম্প বসানো হবে। ২০২১ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি এই ক্যাম্পের আয়োজন করা হবে। এছাড়া আগামী ২৪ মার্চ রাজধানীতে সাইকেল Railly সহ জাতীয় সংসদের পক্ষ থেকে বিশেষ স্বাস্থ্য সচেতনতা কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। মঙ্গলবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) জাতীয় সংসদের মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানিয়েছে মুজিববর্ষ উদযাপন উপলক্ষে গঠিত জাতীয় সংসদের স্বাস্থ্যসেবা উপকমিটি। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন স্বাস্থ্যসেবা উপকমিটির সভাপতি ও সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. আ ফ ম রুহুল হক। উপস্থিত ছিলেন কমিটির সদস্য ডা. হাবিবে মিল্লাত, ডা. মনসুর রহমান, ডা. রুস্তম আলী ফরাজী, ডা. নাসির উদ্দিন, ডা. জাকিয়া নুর ও ডা. আব্দুল আজিজ এবং সংসদ সচিবালয়ের কর্মকর্তারা। লিখিত বক্তব্যে ডা. রুহুল হক বলেন, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবাষিকী উপলক্ষে 'সুস্থ সবল জাতি গড়ি, মুজিব বর্ষ পালিন করি' শিরোনামে সাইকেল Rillyর আয়োজন করা হয়েছে। এছাড়া স্বাস্থ্যসেবা উপকমিটির পক্ষ থেকে আগামী ৫ নভেম্বর মানিকমিয়া এভিনিউতে ম্যারাথন দৌড়, ১৮ ডিসেম্বর থেকে ২৭ ডিসেম্বর সংসদ চত্বরে ১০ দিনব্যাপী বিশেষ স্বাস্থ্যমেলা এবং আগামী বছর অর্থাৎ ২০২১ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি ৩০০টি সংসদীয় আসনে বিশেষ স্বাস্থ্যসেবা ক্যাম্প অনুষ্ঠিত হবে। ক্যাম্পে বিভিন্ন রোগের বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা দেওয়া হবে। এর মাধ্যমে প্রায় পাঁচ লাখের অধিক মানুষকে স্বাস্থ্যসেবা দেওয়া হবে বলে উল্লেখ করেন তিনি।
পিলখানা হত্যাকাণ্ডের এগারো বছর
২৫ফেব্রুয়ারী,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বিডিআর বিদ্রোহ ও হত্যাযজ্ঞের ১১ বছর পূর্ণ হলো আজ। ২০০৯ সালে তৎকালীন বিডিআর সদস্যদের বিদ্রোহে ৫৭ সেনা কর্মকর্তাসহ ৭৪ জনকে হত্যা করা হয়। আবারও ফিরে এসেছে শোকাবহ সেই ২৫ ফেব্রুয়ারি, দেশের ইতিহাসের কলঙ্কময় এক অধ্যায়। ২০০৯ সালের আজকের এই দিনে পিলখানায় বিডিআর সদর দফতরে (বর্তমান বিজিবি) ঘটে মর্মান্তিক ও নৃশংস এক ঘটনা। পিলখানায় বিডিআর বিদ্রোহের ঘটনায় সরকারিভাবে এ দিনটিকে পিলখানা হত্যা দিবস হিসেবে পালন করা হয়। ২০০৯ সালের ওইদিন সকাল ৯টা ২৭ মিনিটে বিডিআর দরবার হলে চলমান বার্ষিক (দরবার) নির্ধারিত সভায় একদল বিদ্রোহী বিডিআর সৈনিক তাদের মহাপরিচালকের বুকে আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে মহাপরিচালকসহ সেনাবাহিনীর কর্মকর্তাদের হত্যা ও তাদের পরিবারকে জিম্মি করে। পিলখানার চারটি মূল ফটকই নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আশপাশের এলাকায় গুলি ছুড়তে থাকে। জন্ম নেয় ইতিহাসের এক বীভৎস ঘটনার। টানা ৩৬ ঘণ্টা পর এ বিদ্রোহের অবসান ঘটলেও ততক্ষণে বিদ্রোহী সৈনিকরা কেড়ে নেন ৫৭ জন দক্ষ সেনা কর্মকর্তার জীবন। পিলখানা পরিণত হয় এক রক্তাক্ত প্রান্তরে। ঘটনার পর পিলখানায় আবিষ্কৃত হয় গণকবর। যেখান থেকে উদ্ধার করা হয় সেনা কর্মকর্তাদের লাশ। এ ঘটনায় হতবাক হয়ে যায় সারাদেশের মানুষ। মাত্র ৩৬ ঘণ্টার এ হত্যাযজ্ঞে ৫৭ জন মেধাবী সেনা কর্মকর্তা, একজন সৈনিক, দুইজন সেনা কর্মকর্তার স্ত্রী, নয় জন বিডিআর সদস্য ও পাঁচ জন বেসামরিক ব্যক্তি নিহত হন। এদিকে বহুল আলোচিত ও প্রত্যাশিত পিলখানা হত্যা মামলার পূর্ণাঙ্গ রায় (ডেথ রেফারেন্স ও আসামিদের আপিলের ওপর) চলতি বছরের ৮ জানুয়ারি প্রকাশ করেছেন হাইকোর্ট। ওই দিন সকাল সাড়ে ১০টার দিকে এ মামলার ২৯ হাজার ৫৯ পৃষ্ঠার পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশিত হয়। বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশিসংখ্যক আসামির ফাঁসির আদেশ আসে এ মামলার রায়ে। বিশ্বে আলোচিত মামলাগুলোর মধ্যে আসামির দিক থেকে এবং রায়ে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামির সংখ্যা বিবেচনায় সবচেয়ে বড় মামলা এটি। বিচারিক আদালতে রায়ের পর ডেথ রেফারেন্স ও আসামিদের করা আপিলের ওপর শুনানি নিয়ে রায়ও ঘোষণা হয়। দীর্ঘদিন দেশি-বিদেশি মামলার রায় পর্যালোচনার পর হাইকোর্টের রায় লেখা শেষ হয়।

জাতীয় পাতার আরো খবর