বুধবার, অক্টোবর ১৬, ২০১৯
চুড়িহাট্টায় নিহত আরও ১১ জনের পরিচয় শনাক্ত
৬মার্চ,বুধবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: রাজধানীর চকবাজারের চুড়িহাট্টায় ভয়াবহ আগুনে পুড়ে নিহতদের মধ্যে ডিএনএ টেস্টের মাধ্যমে ১১ জনের পরিচয় নিশ্চিত করেছে সিআইডি। বুধবার সকালে সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার (এসএসপি) রুমানা আক্তার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, আমরা ডিএনএ টেস্টের মাধ্যমে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে ১১ জনের মরদেহ শনাক্ত করে প্রতিবেদন পাঠিয়েছি। সিআইডির মালিবাগ কার্যালয়ে বুধবার সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ তথ্য জানান। এর আগে গত ২৫ ফেব্রুয়ারি এ ঘটনায় নিহত অজ্ঞাত ৩৮ স্বজনের থেকে ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ করে সিআইডি। অশনাক্তদের পরিচয় নিশ্চিত হতে সিআইডির ফরেনসিক টিম কাজ করছে। প্রসঙ্গত, ২০ ফেব্রুয়ারি রাতে চকবাজারের নন্দকুমার দত্ত রোডের শেষ মাথায় চুড়িহাট্টা শাহী মসজিদের পাশে ৬৪ নম্বর হোল্ডিংয়ের ওয়াহিদ ম্যানশনে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ৬৭ জন পুড়ে মারা যায়। পরে ঢামেক হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরও চারজনের মৃত্যু হয়। এর মধ্যে ৪৮ জনের লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। বাকি ১৯ জনের পরিচয় শনাক্ত করতে সিআইডি ২১টি পরিবারের সদস্যদের ডিএনএন নমুনা সংগ্রহ করে। এর মধ্যে ১১ জনের পরিচয় শনাক্ত হলো।
পাটুরিয়া-গোয়ালন্দে হবে দ্বিতীয় পদ্মা সেতু
৫মার্চ,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: দ্বিতীয় পদ্মা সেতু নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের। ঢাকা-ফরিদপুর মহাসড়কে পাটুরিয়া-গোয়ালন্দ অবস্থানে এটি নির্মিত হবে। এরই মধ্যে দ্বিতীয় পদ্মা সেতু নির্মাণে পিডিপিপি নীতিগতভাবে অনুমোদিত হয়েছে। মঙ্গলবার (৫ মার্চ) একাদশ জাতীয় সংসদ অধিবেশনের প্রশ্নোত্তর পর্বে লিখিত জবাবে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এ তথ্য জানান। হার্ট অ্যাটার্কে গুরুতর অসুস্থ হয়ে ওবায়দুল কাদের বর্তমানে সিঙ্গাপুরে চিকিৎসাধীন থাকায় প্রশ্নোত্তর পর্বটি টেবিলে উত্থাপিত হয়। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদের অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়। সাবেক মন্ত্রী শাজাহান খানের লিখিত প্রশ্নের জবাবে সেতুমন্ত্রী জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে গত বছরের ৩০ মে পিপিপি কর্তৃপক্ষের বোর্ড গভর্নরসের দ্বিতীয় সভায় সিদ্ধান্ত হয়েছে ২য় পদ্মা বহুমুখী সেতুর উদ্যোগে বর্তমানে নির্মাণাধীন সেতুর কার্যক্রম সমাপ্ত হলে এর অভিজ্ঞতা পর্যালোচনার পর গ্রহণ করা যেতে পারে। এই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ২য় পদ্মা সেতু নির্মাণের কার্যক্রম শুরু করা সম্ভব হবে আশা করা যায়। সরকারি দলের সংসদ সদস্য এম আবদুল লতিফের লিখিত জবাবে ওবায়দুল কাদের জানান, বিআরটিএর পক্ষ থেকে পরিচালিত মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে ২০০৯ থেকে ২০১৮ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত ২ লাখ ২১ হাজার মামলায় ২৩ কোটি ২৬ লাখ ২৭ হাজার টাকা জরিমানা আদায় ও ৩ হাজার ৬১৫ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড প্রদান এবং ৯ হাজার ৯১৯টি যানবাহন ডাম্পিং স্টেশনে প্রেরণ করা হয়েছে। একই সংসদ সদস্যের প্রশ্নের লিখিত জবাবে তিনি আরও জানান, বিমানবন্দর থেকে কমলাপুর রুটে দেশের প্রথম পাতাল রেল বা আন্ডারগ্রাউন্ড মেট্রোরেল নির্মিত হতে যাচ্ছে। এই রুটের মোট দৈর্ঘ্য ১৯ দশমিক ৮৭ কিলোমিটার। যার মধ্যে মূল পাতাল রেল ১৬ দশমিক ২১ কিলোমিটার এবং আন্ডারগ্রাউন্ড এলিভেটেড ট্রানজিশন সেকশন ৩ দশমিক ৬৫ কিলোমিটার। এই রুটে মোট স্টেশন (আন্ডারগ্রাউন্ড) থাকবে ১২টি, ৭টি স্টেশন হবে এলিভেটেড। এর মধ্যে নতুনবাজার ও যমুনা ফিউচার পার্ক স্টেশন বিমানবন্দর রুটের অংশ হিসেবে আন্ডারগ্রাউন্ড নির্মিত হবে। নতুন বাজার স্টেশনে ইন্টারচেঞ্জ থাকবে। এ ইন্টারচেঞ্জ ব্যবহার করে বিমানবন্দর রুট থেকে পূর্বাচল রুটে এবং পূর্বাচল রুট থেকে বিমানবন্দর রুটে যাতায়াত করা যাবে। সংসদ সদস্য নাছিমুল আলম চৌধুরীর প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, গত বছরের ২৮ ফেব্রুয়ারি রাইড শেয়ারিং সার্ভিস নীতিমালা-২০১৭ গেজেট আকারে প্রকাশিত হয়েছে। গেজেটটি প্রকাশিত হওয়ার পর গত বছরের ২২ এপ্রিল থেকে এ পর্যন্ত মোট ১৬টি রাইড শেয়ারিং সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান এনলিস্টমেন্ট সার্টিফিকেটের জন্য আবেদন করেছে। তিনি জানান, নীতিমালার কিছু শর্ত প্রতিপালিত না হওয়ার কারণে এখন পর্যন্ত আবেদনকৃত রাইড শেয়ারিং প্রতিষ্ঠানের বিপরীতে এনলিস্টমেন্ট সার্টিফিকেট ইস্যু করা সম্ভব হয়নি। ইতোমধ্যে বিআরটিএ কর্তৃক নীতিমালায় শর্ত পূরণ করার জন্য অ্যাপসভিত্তিক রাইড শেয়ারিং প্রতিষ্ঠানসমূহকে নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে। ওই নীতিমালা বাস্তবায়নের সঙ্গে বাংলাদেশ পুলিশ, নির্বাচন কমিশন এবং বিটিআরসি সংশ্লিষ্ট বিধায় এই মুহূর্তে রাইড শেয়ারিং প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা যাচ্ছে না। সংসদ সদস্য এম আবদুল লতিফের প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের আওতাধীন দেশের বিভিন্ন মহাসড়কে পাকা সড়কসংলগ্ন কিছু অব্যবহৃত ভূমিতে অসাধু ব্যক্তিরা দোকানপাট বা বাজার তৈরি করেছেন। অধিদপ্তর থেকে প্রতিনিয়ত এসব অবৈধ দখলরোধে মনিটর করা হচ্ছে এবং ইতোমধ্যে অবৈধ দখলকৃত ভূমি উদ্ধার কার্যক্রম নিয়মিত পরিচালিত হচ্ছে। তথ্য পাওয়া বা নজরে আসামাত্র অবৈধ দখলকৃত ভূমি উদ্ধার কার্যক্রম আগামীতেও অব্যাহত থাকবে।
১৫ শতাংশ ভ্যাট কাটার নির্দেশ ফেসবুক-ইউটিউব-গুগলের বিজ্ঞাপন থেকে
৫মার্চ,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক, জনপ্রিয় ভিডিও শেয়ারিং সাইট ইউটিউব ও সার্চ ইঞ্জিন গুগলে বিজ্ঞাপনের উপর ১৫ শতাংশ হারে ভ্যাট কেটে নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। সোমবার (৪ মার্চ) এনবিআরের এই নির্দেশ বাস্তবায়ন করতে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে পৃথক নির্দেশনা দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। বাংলাদেশের ভৌগোলিক সীমানার বাইরে ভার্চুয়াল জগতের বিজ্ঞাপন থেকে এতদিন সরকার কোনও শুল্ক আদায় করছিল না। সম্প্রতি হাইকোর্টের এক আদেশে গুগল, ফেসবুক, ইউটিউবের মতো ওয়েবসাইটে বাংলাদেশ থেকে দেওয়া বিজ্ঞাপনের লেনদেন থেকে সব ধরনের রাজস্ব আদায়ের নির্দেশ দেওয়া হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে এই ভ্যাট আদায়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে গত ২২ জানুয়ারি বাংলাদেশ ব্যাংককে একটি চিঠি দিয়েছিল জাতীয় রাজস্ব বোর্ড- এনবিআর। বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর প্রধান নির্বাহীদের কাছে পাঠানো নির্দেশনায় বলা হয়েছে,মূল্য সংযোগ কর আইন-১৯৯১-এর ধারা ৩-এর উপধারা (৩)-এর দফা (ঘ) অনুযায়ী, বাংলাদেশের ভৌগোলিক সীমার বাইরে থেকে সেবা (যেমন- রয়্যালটি, বিভিন্ন ইন্টারনেট সার্ভিস, ফেসবুক, ইউটিউবসহ সব মাধ্যমে বিজ্ঞাপন প্রচার ইত্যাদি) সরবরাহের ক্ষেত্রে সেবা গ্রহণকারীর কাছ থেকে ১৫ শতাংশ হারে মূসক আদায়যোগ্য। তাই বাংলাদেশের ভৌগোলিক সীমার বাইরে থেকে সেবা সরবরাহের ক্ষেত্রে সেবা গ্রহণকারীর কাছ থেকে মূসক (ভ্যাট) আদায় নিশ্চিত করতে হবে। এনবিআরের নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ফেসবুক ও ইউটিউবসহ বিভিন্ন ইন্টারনেট সার্ভিস তথা এসব সেবার বিপরীতে পণ্যমূল্য বাংলাদেশ ব্যাংক ও অন্যান্য ব্যাংকের মাধ্যমে বিদেশে পাঠানো হয়। কিন্তু কোনও কোনও ব্যাংক এই খাত থেকে মূসক আদায় করছে না। এ অবস্থায় মাস্টার কার্ড, ভিসা কার্ড বা টিটি অথবা যেকোনও মাধ্যমে পেমেন্ট হলেই ১৫ শতাংশ হারে ভ্যাট কেটে সরাসরি ট্রেজারিতে জমা করতে হবে। এনবিআরের অনুরোধেই ব্যাংকগুলোকে নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।
সিঙ্গাপুরে ডা. ফিলিপ কোহের তত্ত্বাবধানে কাদেরের চিকিৎসা
৫মার্চ,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: ওবায়দুল কাদেরকে বহনকারী এয়ার অ্যাম্বুলেন্স সিঙ্গাপুরের পৌঁছেছে বাংলাদেশ সময় রাত ৮টায়। সিঙ্গাপুরের সেলেটর নামে একটি প্রাইভেট বিমানবন্দরে অ্যাাম্বুলেন্সটি অবতরণ করে। মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. ফিলিপ কোহের তত্ত্বাবধানে তার চিকিৎসা চলবে। ওবায়দুল কাদেরের শারীরিক অবস্থা ভালো আছে জানিয়ে সোমবার (৪ মার্চ) রাত ৮টা ৫৭ মিনিটে ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া। তিনি স্ট্যাটাসে জানান, ওবায়দুল কাদেরের ব্লাড প্রেসার ভালোই আছে। বর্তমানে তার প্রেসারের মাত্রা ওপরে আছে ১৩৫ এবং নিচে ৭৮। তিনি মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালের পথেই আছেন। মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালের আইসিইউ ৩০০৮ এ ডা. ফিলিপ কোহের তত্ত্বাবধানে ওবায়দুল কাদেরকে ভর্তি করানো হবে। সোমবার (৪ মার্চ) বিকেল চারটার দিকে সিঙ্গাপুর থেকে আসা এয়ার অ্যাম্বুলেন্সটি তাকে নিয়ে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর ছেড়ে যায়।- somoynews
বিমান ছিনতাইয়ের ঘটনায় নিরাপত্তায় অবহেলা পেয়েছে তদন্ত কমিটি
৪মার্চ,সোমবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: বিমান ছিনতাইয়ের ঘটনায় নিরাপত্তায় অবহেলা পেয়েছে তদন্ত কমিটি। এ কারণে শাহজালাল বিমান বন্দরের ৫ নিরাপত্তা কর্মীকে সাময়িক বহিস্কার ও ১ জনকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। এছাড়া তদন্ত কমিটির সময় বাড়ানো হয়েছে আরো ২ দিন। বরখাস্তকৃতরা হলেন গত ২৪ ফেব্রুয়ারি হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের অভ্যন্তরীণ টার্মিনালের সশস্ত্র নিরাপত্তা প্রহরী মো. ইউনুস হাওলাদার, হেভি লাগেজ গেটে (উত্তর) স্ক্যানিংয়ের নিরাপত্তা সুপারভাইজার মো. লেহাজ উদ্দিন ভূঁইয়া, শাহজালাল বিমানবন্দরের অভ্যন্তরীণ টার্মিনালের ব্যাটালিয়ন আনসার কেবিন ব্যাগেজ স্ক্যানিং গেটের অপারেটর আলীম হোসেন, বডি সার্চার অঙ্গীভূত আনসার সদস্য মাহফুজুর রহমান ও হেভি লাগেজ গেট উত্তরের বডি সার্চার আনসার সাদ্দাম হোসেন। এ ছাড়াও ঘটনার সময় কতর্ব্যরত এয়ারপোর্ট সিকিউরিটি ফোর্সের (এফসেক) সদস্য পোস্ট সুপারভাইজার সার্জেন্ট সাযেদুল ইসলামকেও তার বর্তমান কর্মস্থল থেকে প্রত্যাহার করে সংযুক্ত করা হয় বাংলাদেশ বিমানবাহিনীতে।
জ্ঞান ফিরেছে ওবায়দুল কাদেরের: বিপ্লব বড়ুয়া
৪মার্চ,সোমবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের চেতনা (জ্ঞান) ফিরেছে বলে সোমবার সকালে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের উপ-দফতর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া। মহান আল্লাহর অশেয দয়া ও আপনাদের ভালবাসায় প্রিয় নেতা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের শারীরিক অবস্থার উল্লেখযোগ্যভাবে উন্নতি হচ্ছে। তিনি সম্পুর্ণ চেতনা ফিরে পেয়েছেন এবং চিকিৎসকরা তার সুস্থতার বিষয়ে সম্পুর্ণ আশাবাদী, বলেন তিনি। বিপ্লব বড়ুয়া আরও জানান, সকালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎসক তাকে জানিয়েছেন ওবায়দুল কাদেরের শারীরিক অবস্থার যথেষ্ট উন্নতি হয়েছে। তবে, যেহেতু এখনো তিনি ক্রিটিক্যাল করোনারি কেয়ার ইউনিটে রয়েছেন; সে কারণে তাকে সম্পূর্ণ শঙ্কামুক্ত বলেননি চিকিৎসকেরা, বলেন আওয়ামী লীগের উপ-দফতর সম্পাদক। রবিবার সকালে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে বিএসএমএমইউ- এর করোনারি কেয়ার ইউনিটে (সিসিইউ) ভর্তি হন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদানের পর এনজিওগ্রাম করা হলে কাদেরের আর্টারিতে তিনটি ব্লক ধরা পড়ার কথা জানান চিকিৎসকরা। যার মধ্যে একটি ব্লক অপসারণের কথাও জানানো হয়েছিল। এদিকে তার অসুস্থতা খবরে ওইদিন বিকালে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী এবং মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ বিএনপির একটি প্রতিদল ও বিভিন্নস্তরের রাজনৈতিক নেতা-কর্মী কাদেরকে দেখতে হাসপাতালে ছুঁটে যান। অপরদিকে রবিবার রাত পৌনে ৮টায় সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের চিকিৎসার জন্য চার সদস্যের মেডিকেল টিম সিঙ্গাপুর থেকে এসে শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে প্রবেশ করে। এরপর থেকে তাদের তত্ত্বাবধানে কাদেরকে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়।- ইউএনবি
ওবায়দুল কাদেরের শারীরিক অবস্থা পর্যবেক্ষণে হাসপাতালে সিঙ্গাপুরের চিকিৎসক দল
৩মার্চ,রবিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের শারীরিক অবস্থা পর্যবেক্ষণে সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালের চিকিৎসক দল ঢাকায় পৌঁছেছেন। রোববার (০৩ মার্চ) সন্ধ্যায় তারা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে গেছেন। এর আগে বিকেলে ওবায়দুল কাদেরের শারীরিক অবস্থা সম্পর্কের জানাতে ব্রিফিং করেন বিএসএমএমইউ'র চিকিৎসকরা। এসময় তারা জানান, ওবায়দুল কাদের ডাকে সাড়া দিচ্ছেন। তিনি চোখ খুলেছেন বলেও জানান তারা। চিকিৎসকরা ওই সময় জানিয়েছিলেন রাতে সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালের ৩ জন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক আসবেন এবং তাদের সঙ্গে মেডিকেল বোর্ডের আলোচনার পর পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। এই মুহূর্তে বিদেশি স্থানান্তর করার মতো অবস্থাতেও তিনি নেই বলে ব্রিফিংয়ে জানানো হয়। তবে সিঙ্গাপুর থেকে যে টিম আসছে তারা যদি নিশ্চিত করে যে, উনাকে নিয়ে যাওয়ার সময় এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে কোনো সমস্যা হলে সেটিকে কাভার দেয়ার মতো প্রযুক্তি, জনবল বা সরঞ্জামের নিশ্চয়তা যদি দিতে না পারেন তাহলে উনাকে নিয়ে যাওয়ার অনুমতি দেয়া হবে না। রোববার ভোর ৬টায় নিজ বাসায় হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন ওবায়দুল কাদের। এরপর সকাল সাড়ে ৭টায় তাকে বিএসএমএমইউ হাসপাতালে নেয়া হয়। প্রথমে তাকে আইসিইউ-তে নেয়া হলেও পরে সিসিইউ-তে স্থানান্তর করা হয়। সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রীর জনসংযোগ কর্মকর্তা আবু নাছের বলেন, আজ (রোববার) ফজরের নামাজের পর হঠাৎ করে সেতুমন্ত্রীর শ্বাসপ্রশ্বাসের সমস্যা দেখা দেয়। তাঁকে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসকরা তাঁকে পরীক্ষা করে দ্রুত এনজিওগ্রাম করার পরামর্শ দেন। চিকিৎসকের পরামর্শে তাঁকে কার্ডিওলজি বিভাগে নেওয়া হয়। এনজিওগ্রামে তাঁর হার্টে তিনটি ব্লক ধরা পড়ে। রিং পরিয়ে একটি ব্লক সচল করা হয়। পরে তাকে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়।
ওবায়দুল কাদেরকে দেখতে গেলেন রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী
৩মার্চ,রবিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) চিকিৎসাধীন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরকে দেখতে হাসপাতালে গেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রোববার বেলা ৩টা ৩৪ মিনিটে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে আসেন প্রধানমন্ত্রী। এ সময় ওবায়দুল কাদেরের চিকিৎসার খোঁজখবর নেন আওয়ামী লীগ সভাপতি। এরপর বিকেল ৪টা ২৫ মিনিটে হাসপাতালে আসেন রাষ্ট্রপতি। তিনি তার চিকিৎসার খোঁজখবর করেন। রাষ্ট্রপতির কয়েক মিনিট পর স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীও হাসপাতালে পৌঁছান। রোববার সকালে বুকে ব্যথা অনুভূত হলে দ্রুত ওবায়দুল কাদেরকে বিএসএমএমইউতে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে হাসপাতালের করোনারি কেয়ার ইউনিটের (সিসিইউ) ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটের (আইসিইউ) ২ নম্বর বেডে চিকিৎসাধীন তিনি। চিকিৎসকরা বলছেন, ওবায়দুল কাদেরের তিনটি রক্তনালীতে ব্লক ধরা পড়েছে, যার একটি তারা অপসারণ করেছেন। কিন্তু জীবনশঙ্কা থাকায় কৃত্রিমভাবে তার শ্বাসপ্রশ্বাসের ব্যবস্থা করা হয়েছে। উন্নত চিকিৎসার জন্য ওবায়দুল কাদেরকে সিঙ্গাপুরে নেওয়ার প্রস্তুতি চললেও এই শারীরিক অবস্থায় তা সম্ভব হবে কি না- সে বিষয়ে নিশ্চিত নন চিকিৎসকরা।
হুমকি মোকাবেলায় সেনাবাহিনীকে প্রস্তুত থাকার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
৩মার্চ,রবিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সদস্যদের পবিত্র সংবিধান এবং সার্বভৌমত্ব সুরক্ষায় দেশ মাতৃকার বিরুদ্ধে যে কোন অভ্যন্তরীণ বা বাইরের হুমকি মোকাবেলায় সর্বদা ঐক্যবদ্ধ এবং সদাপ্রস্তুত থাকার নির্দেশ দিয়েছেন। তিনি বলেন, পবিত্র সংবিধান এবং দেশমাতৃকার সার্বভৌমত্ব রক্ষা করার জন্য আপনাদের ঐক্যবদ্ধ থেকে অভ্যন্তরীণ কিংবা বাহ্যিক যে কোন হুমকি মোকাবিলায় সদাপ্রস্তুত থাকতে হবে। খবর বাসসর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ সকালে রাজশাহী সেনানিবাসের শহীদ কর্ণেল আনিস প্যারেড গ্রাউন্ডে বাংলাদেশ ইনফেন্ট্রি রেজিমেন্টের ৭ম, ৮ম, ৯ম এবং ১০ম রেজিমেন্ট ন্যাশনাল স্টোন্ডার্ড প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে একথা বলেন। তিনি ইনফেন্ট্রি রেজিমেন্টের সংশ্লিষ্ট ইউনিট কমান্ডারগণের নিকট জাতীয় পতাকা হস্তান্তরের মাধ্যমে তাদেরকে ন্যাশনাল স্ট্যান্ডার্ড প্রদান করেন। মনোজ্ঞ কুচকাওয়াজের মাধ্যমে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর একটি সুসজ্জিত দল প্রধানমন্ত্রীকে রাষ্ট্রীয় সালাম জানায়। প্রধানমন্ত্রী একটি খোলা জিপে করে প্যারেড পরিদর্শন এবং সালাম গ্রহণ করেন। এ সময় সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ তাঁর সঙ্গে ছিলেন। সেনা সদস্যদের দেশের সম্পদ এবং দেশের মানুষের ভরসা ও বিশ্বাসের মূর্তপ্রতীক উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী তাদেরকে পেশাদারিত্বের কাক্সিক্ষত মান অর্জনের জন্য দক্ষ, সামাজিক ও ধর্মীয় মূল্যবোধে উদ্বুদ্ধ হয়ে সৎ এবং মঙ্গলময় জীবনের অধিকারী হবারও আহবান জানান। জনগণের সেবা করার জন্য সেনাবাহিনীকে তাঁর সরকার সব সময় পাশে পেয়েছে উল্লেখ করে বর্তমান সরকারের রাষ্ট্র পরিচালনার সময়ে যখনই প্রয়োজন হবে তখনই সেনাবাহিনী জনগণের পাশে এসে দাঁড়াবে মর্মে দৃঢ় আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সদস্যরা নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করে দেশের গণতান্ত্রিক ধারা সমুন্নত রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন। সেজন্য তিনি সেনাসদস্যদের ধন্যবাদ জানিয়ে চতুর্থবারের মত এবং একটানা তৃতীয়বার সরকার গঠন করার সুযোগ করে দেয়ায় দেশবাসীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন। তাঁর সরকার সবসময় শাসক হিসেবে নয় জনগণের সেবক হিসেবেই দেশ পরিচালনা করতে চায় বলেও এ সময় উল্লেখ করেন শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, আমাদের সরকার শাসক হিসেবে নয়, জনগণের সেবক হিসেবে দেশ পরিচালনা করতে চায়। একটি আধুনিক ও চৌকস সশস্ত্র বাহিনী গড়ে তুলতে তাঁর সরকার বদ্ধপরিকর উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন,এজন্য ফোর্সেস গোল ২০৩০ প্রণয়ন করে পর্যায়ক্রমে বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। এর আওতায় সেনাবাহিনীতে নতুন নতুন পদাতিক ডিভিশন, ব্রিগেড, ইউনিট ও প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। ইতোমধ্যে আমরা সেনাবাহিনীতে তিনটি নতুন ডিভিশন প্রতিষ্ঠা করেছি, বলেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, তাঁর সরকার প্রথমবারের মত বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে প্যারা কমান্ডো ব্রিগেড গঠন করেছে। দেশের আকাশ প্রতিরক্ষাকে আরও সুসংহত করতে সংযোজিত হয়েছে এমএলআরএস এবং মিসাইল রেজিমেন্ট। তিনি বলেন,অত্যাধুনিক বিভিন্ন যুদ্ধাস্ত্র, হেলিকপ্টার, আর্টিলারি গান এবং মর্ডান ইনফ্যান্ট্রি গেজেট ইত্যাদি সংযোজন করে সেনাবাহিনীর আভিযানিক সক্ষমতাকে বহুলাংশে বৃদ্ধি করেছি।

জাতীয় পাতার আরো খবর