চিকিৎসকরা কর্মস্থলে অনুপস্থিত থাকলে ব্যবস্থা: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
৩০নভেম্বর,শনিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক স্বপন বলেছেন, জনগণের সেবার জন্য ডাক্তারদের চাকরি দেওয়া হয়েছে। নিয়ম বহির্ভূতভাবে কর্মস্থলে অনুপস্থিত থাকলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। মানিকগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট সদর হাসপাতাল পরিদর্শনকালে শনিবার দুপুরে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন। স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, দেশে এখন ডেঙ্গু পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে। আগামীতে ডেঙ্গু রোগী মোকাবেলা করার জন্য স্বাস্থ্য বিভাগ সব ধরনের প্রস্তুতি রয়েছে। তবে এডিস মশা নির্মূলের জন্য সিটি করপোরেশন ও পৌরসভাকে সঠিক সময় তাদের দায়িত্ব পালন করতে হবে। স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরো বলেন, আড়াই হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে দেশের আটটি বিভাগে ১৫তলা বিশিষ্ট আটটি নতুন হাসপাতাল নির্মাণ করা হবে। এই হাসপাতালের প্রথম ছয় তলায় ক্যানসার চিকিৎসা করা হবে। এরপরে কিডনির অনুমোদন দেওয়া হবে। কারণ কিডনি রোগীদের ডায়ালিসিসের জন্য ঢাকায় যেতে হয়। ডায়ালিসিস করতে গিয়ে অনেক সময় গরীব মানুষ নিঃস্ব হয়ে যায়। অনেকে মৃত্যুবরণ করেন। এই কারণে প্রতিটি জেলায় দশ বেডের কিডনি হাসপাতাল নির্মাণ করা হবে। স্বাস্থ্যখাতে বর্তমান সরকারের নানা উন্নয়নচিত্র তুলে ধরে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, গত চার মাসে দুই হাজার ডাক্তারকে সহকারী অধ্যাপক হিসেবে পদোন্নতি দেওয়া হয়েছে। তারা বিভিন্ন মেডিকেল কলেজে পড়ানোর পাশাপাশি হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা প্রদান করবেন। আগামী ৮ ডিসেম্বর সাড়ে ৪ হাজার নতুন ডাক্তার জেলা উপজেলার বিভিন্ন হাসপাতালে যোগদান করবে। এতে হাসপাতালগুলোতে আর ডাক্তার সংকট থাকবে না। এসময় উপস্থিত ছিলেন মানিকগঞ্জের পুলিশ সুপার রিফাত রহমান শামীম, কর্নেল মালেক মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ডা. মো. আখতারুজ্জামান, সিভিল সার্জন ডা. আনোয়ারুল আমিন আখন্দ, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট নাদিরা আক্তার, হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক (ভারপ্রাপ্ত) ডা. আব্দুল আওয়াল, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আসমাউল হুসনা লিজা, সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবর পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. লুৎফর রহমান প্রমুখ।
ডিআরইউর সভাপতি আজাদ, সম্পাদক রিয়াজ
৩০নভেম্বর,শনিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: পেশাদার সাংবাদিকদের সংগঠন ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) আগামী এক বছরের নেতৃত্ব নির্বাচিত হয়েছে ভোটের মাধ্যমে। এতে সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন ইংরেজি দৈনিক ইন্ডিপেন্ডেন্টের বিশেষ প্রতিনিধি রফিকুল ইসলাম আজাদ। আর সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন এশিয়ান মেইল টোয়েন্টিফোর ডটকমের প্রধান প্রতিবেদক রিয়াজ চৌধুরী। সভাপতি পদে নির্বাচিত আজাদ পেয়েছেন ৫৫০ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী শাহনেওয়াজ দুলাল পেয়েছেন ৪৮৯ ভোট। আর সাধারণ সম্পাদক পদে বিজয়ী রিয়াজ চৌধুরী পেয়েছেন ৫৬৭ ভোট। আর তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী নুরুল ইসলাম হাসিব পেয়েছেন ৫৬৫ ভোট। শনিবার সকাল ৯টা থেকে কার্যনির্বাহী কমিটির এই নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শুরু হয়ে বিরতিহীনভাবে চলে বিকাল ৫টা পর্যন্ত। ভোট গণনা শেষে সন্ধ্যা পৌনে সাতটার দিকে ফলাফল ঘোষণা করা হয়। এছাড়া বিজয়ীরা হলেন সহসভাপতি পদে নজরুল কবীর; যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে হেলিমুল আলম বিপ্লব; সাংগঠনিক সম্পাদক পদে হাবীবুর রহমান; দপ্তর সম্পাদক পদে জাফর ইকবাল; প্রচার সম্পাদক পদে মাইদুর রহমান রুবেল; তথ্য প্রযুক্তি ও প্রশিক্ষণ সম্পাদক পদে সাখাওয়াত হোসেন সুমন; ক্রীড়া সম্পাদক পদে মজিবুর রহমান; সাংস্কৃতিক সম্পাদক পদে মিজান চৌধুরী। এছাড়া কার্যনির্বাহী পদে বিজয়ী হয়েছেন মইনুল আহসান, এস এম মিজান, আহমেদ মুশফিকা নাজনীন, কামরুজ্জামান বাবলু, ইমরান হাসান মজুমদার, এম মুরাদ হোসেন, সায়ীদ আবদুল মালেক। এর আগে অর্থ সম্পাদক পদে জিয়াউল হক সুমন, নারী বিষয়ক সম্পাদক পদে রীতা নাহার; আপ্যায়ন সম্পাদক পদে এইচ এম আকতার এবং জনকল্যাণ সম্পাদক পদে খালিদ সাইফুল্লাহ বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী হয়েছেন।
অবৈধ টাকা বানানো একটা রোগ: প্রধানমন্ত্রী
৩০নভেম্বর,শনিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বলেছেন, যে একবার টাকা বানাতে থাকে তার বারবার টাকা বানাতে ইচ্ছে করে। আসলে টাকা বানানো একটা রোগ, এটা একটা অসুস্থতা। কিন্তু এ টাকায় শান্তিতে ঘুমানো যায় না। আজ শনিবার (৩০ নভেম্বর) ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, কেউ অবৈধভাবে টাকা উপার্জন করে বিলাসবহুল জীবন যাপন করবেন আর কেউ সৎভাবে জীবন যাপন করে তার জীবনটা নিয়ে কষ্ট পাবেন, তা হতে পারে না। অবৈধভাবে উপার্জিত অর্থ দিয়ে বিরিয়ানি পোলাও খাওয়া আর ব্র্যান্ড পরা থেকে সাদাসিধে জীবনযাপন করা অনেক সম্মানের। শান্তিতে ঘুমানো যাবে। তিনি বলেন, টাকার পেছনে ছুটতে ছুটতে তো নিজের পরিবার ধ্বংসের দিকে যাচ্ছে। কিন্তু ওই টাকার ফলে ছেলে-মেয়ে বিপথে যাবে। পড়াশোনা নষ্ট হবে, মাদকাসক্ত হবে। সেগুলো দেখার সময় নাই। এই ধরনের একটা সামাজিক অবস্থা আমরা চাই না। সৎ পথে কামাই করে যে থাকবে সে সমাজে সম্মান পাবে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, চোরা টাকা, দুর্নীতির টাকা নিয়ে যতই বিলাসিতা করুক মানুষ মুখে হয়তো বাহবা দিবে, পেছনে একটা গালিও দিবে। এই কথাটা মনে রাখতে হবে, জাতির পিতা সারাজীবন সাদাসিধে জীবনযাপন করে গেছেন। কাজেই আপনারা যারা তার আদর্শের সৈনিক সেই অনুযায়ী চলতে হবে। নগরবাসীকে উদ্দেশ্য করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, পানি ও বিদুৎ ব্যবহারে সাশ্রয়ী হতে হবে। চারপাশ পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপি জামায়াত জোট সারা দেশে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছিল। বিএনপির আমলে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা ভয়ে ঘরে থাকতে পারেননি।বিএনপির সময় বিদ্যুৎ উৎপাদন দুর্নীতির কারণে কমে গিয়েছিল। আমরা এসে বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়িয়েছি। তাদের কাজই হলো দুর্নীতি করা, লুটপাট করা আর মানুষকে নির্যাতন করা। হাওয়া ভবন খুলে লুটপাট করার সুযোগ তৈরি করা হয়েছিল। তিনি আরও বলেন, বিদেশ থেকে এতিমের টাকা এসেছিল, সেই টাকা চলে গেল খালেদা জিয়ার অ্যাকাউন্টে। সেই মামলায় খালেদা জিয়া এখন জেল খাটছেন। তার ছেলেও দশ ট্রাক অস্ত্র মামলায় সাজাপ্রাপ্ত আসামি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ যেন উঠে দাঁড়াতে না পারে, সে চেষ্টা করেছিল বিএনপি। খালেদা জিয়ার নির্দেশে সারা দেশে আওয়ামী লীগ নেতাদের ওপর অত্যাচার করা হয়। এর আগে সকাল ১১টার দিকে রাজধানীর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর পর সম্মেলনের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়।
সততা কাকে বলে শেখ হাসিনা তার উদাহরণ
৩০নভেম্বর,শনিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন,রাজনীতি কেনাবেচার পণ্য নয় এটা আমাদের শেখ হাসিনা শিখিয়েছেন। বঙ্গবন্ধু যা শিখিয়ে গেছেন এখন তার কন্যা তা শেখাচ্ছেন। তিনি আমাদের এটা অনুসরণ করতে বলেছেন। শনিবার দুপুরে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ দক্ষিণ ও উত্তরের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে এ কথা বলেন তিনি। সেতুমন্ত্রী বলেন, মানুষের ভালোবাসা রাজনীতিবিদের জন্য বড় সম্পদ। এটা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মনে রাখতে হবে। সততা কাকে বলে শেখ হাসিনা তার উদাহরণ। বঙ্গবন্ধুর বক্তব্যের উদ্ধৃতি দিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন আমরা করি বক্তৃতা। আমরা শিক্ষিত সমাজ দুর্নীতি করি। কৃষক, মজুর ও খেটে খাওয়া মানুষ দুর্নীতি করে না। যেখানে যান সেখানে সেখানেই দুর্নীতি। পাঁচভাগ শিক্ষিত সমাজ দুর্নীতি করে। এসময় বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনার জীবনধারা থেকে সততার শিক্ষা নিয়ে রাজনীতিকে মানুষের জন্য কাজ করার হাতিয়ার হিসেবে গড়ে তুলতে নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।
সংবাদিকদের সংগঠন ডিআরইউর নির্বাচনে ভোটগ্রহণ চলছে
৩০নভেম্বর,শনিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ঢাকায় কর্মরত বিভিন্ন দৈনিকসহ টেলিভিশন অনলাইন ও রেডিওতে কর্মরত ১হাজার ৬৩৫ জন পেশাদার রিপোর্টার সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে ভোট প্রয়োগ করবেন। কর্মরত সাংবাদিকদের সংগঠন ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) কার্যনির্বাহী কমিটির নির্বাচনে ভোট গ্রহণ শুরু হয়েছে সকাল ৯টা থেকে। আজ শনিবার (৩০ নভেম্বর) সাগর-রুনি মিলনায়তনে ভোট গ্রহণ শুরু হয়। সাংবাদিক সংগঠনের নির্বাচনের জন্য গঠিত পাঁচ সদস্যের নির্বাচন কমিশনের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছেন নিউজ টুডের সাবেক সম্পাদক রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ। অন্য সদস্যরা হলেন বিএফইউজের সাবেক সভাপতি এম শাহজাহান মিয়া, বিএফইউজের সাবেক সভাপতি মনজুরুল আহসান বুলবুল, বাংলাদেশ প্রতিদিনের যুগ্ম সম্পাদক আবু তাহের, সাংবাদিক নেতা এম এ আজিজ। ২০২০ সাল মেয়াদের এ নির্বাচনে সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকসহ মোট ২১টি পদের মধ্যে ৪টি সম্পাদকীয় পদে ৪জন একক প্রার্থী থাকায় তারা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। বাকি ১৭টি পদের বিপরীতে ৩৪জন প্রার্থী নির্বাচনী মাঠে থাকলেও শেষ মুহূর্তে সভাপতি পদে রাজু আহমেদ ও শামসুল হক বসুনিয়া ব্যক্তিগতভাবে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন। এবার বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় যারা নির্বাচিত হয়েছেন তারা হলেন, অর্থ সম্পাদক জিয়াউল হক সবুজ, নারী সম্পাদক রীতা নাহার, কল্যাণ সম্পাদক খালিদ সাইফুল্লাহ, আপ্যায়ণ সম্পাদক এইচ এম আকতার। সভাপতি পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আছেন, ডিআরইউর সাবেক সহ সভাপতি ও ইংরেজী দৈনিক ইন্ডিপেন্ডেন্ট পত্রিকার বিশেষ প্রতিনিধি রফিকুল ইসলাম আজাদ, বিবার্তা টুয়েন্টিফোরের বিশেষ প্রতিনিধি শাহনেওয়াজ দুলাল ও দৈনিক আজকালের খবর পত্রিকার প্রধান প্রতিবেদক শরিফুল ইসলাম বিলু। সহ-সভাপতি পদে রাশেদুল হক, ওসমান গণি বাবুল ও নজরুল কবির। সাধারণ সম্পাদক পদে যে ৩জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতায় করছেন তারা সবাই এর আগে বিভিন্ন মেয়াদে ডিআরইউর সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন। তারা হলেন- রিয়াজ চৌধুরী, নূরুল ইসলাম হাসিব ও শেখ মুহাম্মদ জামাল হোসাইন (শেখ জামাল)। যুগ্ম সম্পাদক পদে দুজন প্রার্থী হলেন- দৈনিক জাগরণের মেহদী আজাদ মাসুম ও ডেইলি স্টারের হেলিমুল আলম বিপ্লব। সাংগঠনিক সম্পাদক পদে দুজন প্রার্থী হলেন- দৈনিক ইনকিলাবের মাইনুল হাসান সোহেল ও দৈনিক সময়ের আলোর হাবীব রহমান। এছাড়া, দপ্তর সম্পাদক পদে মো. জাফর ইকবাল ও জান্নাতুল ফেরদৌস পান্না। প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক পদে আব্দুল হাই তুহিন ও মাইদুর রহমান রুবেল। তথ্যপ্রযুক্তি ও প্রশিক্ষণ সম্পাদক পদে সাখাওয়াত হোসেন সুমন ও জান্নাতুল ফেরদৌসী মানু। ক্রীড়া সম্পাদক পদে মাকসুদা লিসা ও মো. মজিবর রহমান। সাংস্কৃতি সম্পাদক পদে মিজান চৌধুরী ও এমদাদুল হক খান প্রতিদ্বন্দ্বিতায় করছেন। ৭টি কার্যনির্বাহী সদস্য পদের বিপরিতে ৯জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতায় করছেন। তারা হলেন- আমান উদ দৌলা, মঈনুল আহসান, আহমেদ মুশফিকা নাজনিন, আহমেদ সিরাজ, কামরুজ্জামান বাবলু, এম মুরাদ হোসেন, ইমরান হাসান মজুমদার, এসএম মিজান ও সায়ীদ আব্দুল মালিক।
ইউনেস্কো নির্বাহী পরিষদে সহ-সভাপতি নির্বাচিত বাংলাদেশ
৩০নভেম্বর,শনিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ইউনেস্কো নির্বাহী পরিষদের সহ-সভাপতি নির্বাচিত হয়েছে বাংলাদেশ। শুক্রবার (২৯ নভেম্বর) ইউনেস্কো সদর দপ্তরে প্রতিষ্ঠানটির নির্বাহী পরিষদের ২০৮ তম সভায় ৫৮ সদস্য রাষ্ট্রের মধ্যে ইলেক্টোরাল গ্রুপ ৪ থেকে সহ সভাপতি নির্বাচিত হয় বাংলাদেশ। চ্যানেল২৪ বাংলাদেশ ২০১৭-২০২১ মেয়াদে ইউনেস্কো-এর নির্বাহী পরিষদের নির্বাচিত সদস্য। এই নির্বাহী পরিষদের ২০৮তম সভায় বাংলাদেশ ছাড়াও অন্যান্য গ্রুপ হতে সহ-সভাপতি পদে নির্বাচিত হয়েছে সুইজারল্যান্ড, রাশিয়া, সেন্ট লুসিয়া, ইথোপিয়া ও মিশর। বাংলাদেশ ইউনেস্কোর নির্বাহী পরিষদের সহ-সভাপতি হিসেবে আগামী ২ বছর এশিয়া ও প্রশান্ত অঞ্চলের ৪৪টি রাষ্ট্রের প্রতিনিধিত্ব করাসহ কল সদস্য রাষ্ট্রের প্রতিনিধিত্ব করবে।
ঢাকা উত্তর-দক্ষিণ আ. লীগের সম্মেলন আজ
৩০নভেম্বর,শনিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে আজ শনিবার (৩০ নভেম্বর)। এদিন সকাল ১১টায় রাজধানীর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এ সম্মেলনের উদ্বোধন করবেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিকালে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে সম্মেলনের দ্বিতীয় অধিবেশনে (কাউন্সিল অধিবেশন) মহানগরের দুই অংশের নতুন সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষণা করা হবে। আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী মহানগর পর্যায়ে প্রতি তিন বছর পর সম্মেলন হওয়ার কথা থাকলেও এবার ঢাকা মহানগরের দুই অংশের সম্মেলন হচ্ছে সাত বছর পর। ২০১২ সালের ২৭ ডিসেম্বর ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সর্বশেষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। যদিও এর তিন বছর পর ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগকে দুই ভাগে বিভক্ত করে ২০১৬ সালের ১০ এপ্রিল মহানগর আওয়ামী লীগ উত্তর-দক্ষিণ, ৪৫টি থানা এবং ১০০টি ওয়ার্ড ও ইউনিয়নগুলোর সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদকদের নাম একযোগে ঘোষণা করেন আওয়ামী লীগের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। এবার ঢাকা মহানগরের দুই অংশ একসঙ্গে সম্মেলনের আয়োজন করছে। একই মঞ্চে একই সময়ে দুই অংশের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। এতে দুই অংশের নেতাদের পাশাপাশি আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারাও উপস্থিত থাকবেন। দুই অংশ মিলিয়ে চার হাজার কাউন্সিলর ও ডেলিগেট উপস্থিত থাকবেন বলে নগরের নেতারা জানান। ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ বলেন,সম্মেলনের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন। নৌকার আদলে মঞ্চ তৈরি করা হয়েছে। কাউন্সিলর-ডেলিগেট ও আমন্ত্রিত অতিথিরাও এতে উপস্থিত থাকবেন। মুরাদ আরও বলেন,উৎসবমুখর পরিবেশে এবারের ম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। এদিকে সম্মেলন উপলক্ষে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ও এর চারপাশে রয়েছে সাজ সাজ রব। রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় পদপ্রত্যাশী নেতাদের ছোট-বড় ব্যানার ও পোস্টারে ছেয়ে গেছে। এছাড়া প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ও তার আশপাশের এলাকায় নিরাপত্তা জোরদার করেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। প্রসঙ্গত, আগামী ২০ ও ২১ ডিসেম্বর আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী দলটির সব শাখার সম্মেলন করে কমিটি হালনাগাদ করার পরই কেন্দ্রের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এর অংশ হিসেবে দলটির সহযোগী সংগঠন যুবলীগের আগামী ২৩ নভেম্বর, স্বেচ্ছাসেবক লীগের ১৬ নভেম্বর এবং ৬ নভেম্বর কৃষক লীগের ও ৯ নভেম্বর ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন শ্রমিক লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। তবে, এবারের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে এক ভিন্ন প্রেক্ষাপটে। যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ এবং কৃষক লীগের কিছু নেতার বিরুদ্ধে অবৈধ ক্যাসিনো ব্যবসায় জড়িত থাকা, জুয়া ও মাদকের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট থাকার অভিযোগ ওঠে। ক্যাসিনোকাণ্ডে রাজধানীর গেন্ডারিয়া থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি এনামুল হক ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রূপন ভুঁইয়ার নামের সঙ্গে মহানগর আওয়ামী লীগের শীর্ষ কয়েক নেতার নাম আলোচনায় আসে। এছাড়া মহানগর আওয়ামী লীগের দুই অংশের শীর্ষ নেতাদের বিরুদ্ধেই কমিটি বাণিজ্য এবং ক্ষেত্র বিশেষে অন্যের জমি ও সম্পত্তি দখলের অভিযোগ ওঠে। সম্মেলনের মাধ্যমে তাদের নিয়মতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় সরানো হবে বলে মনে করা হচ্ছে।
কেউ কেউ ব্যক্তিস্বার্থে গণমাধ্যমকে ব্যবহার করেন: শাহরিয়ার আলম
২৮নভেম্বর,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম বলেছেন, মালিকদের কেউ কেউ ব্যক্তিস্বার্থে গণমাধ্যমকে ব্যবহার করে থাকেন। আমাকেও অনেকে ইনফ্লয়েন্স করার চেষ্টা করে বলেছেন, আপনি রাজনীতি করেন, একটি নিউজ চ্যানেল খোলেন। আমি সেটি করিনি। আমি শিশুদের মেধা-মনন বিকাশের জন্য একটি চ্যানেলের অনুমতি পেয়েছি। সেটাও কোনোরকমের তদবির ছাড়া। আজ বৃহস্পতিবার (২৮ নভেম্বর) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে রাজশাহী বিভাগ সাংবাদিক সমিতি, ঢাকার (আরডিজেএডি) অভিষেক ও পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি। পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেন, স্থানীয় ও জেলা পর্যায়ের নেতারা সেখানে দৈনিক পত্রিকা চালাচ্ছেন। অনলাইন পোর্টাল খুলে ফেলা তো আরও সহজ বিষয়। আপনারা (সাংবাদিক) গণমাধ্যমের মালিকদের এ বিষয়টির প্রতি খেয়াল রাখবেন, আমি এমনটাই আহ্বান জানাব। আপনার পেশার মর্যাদা আপনাদেরকেই রক্ষা করতে হবে। তিনি বলেন, পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের তুলনায় আমাদের এখানের গণমাধ্যমের স্বাধীনতা বেশি রয়েছে বলে বিশ্বাস করি। আমরা যদি রেটিং দেখি কোনো পত্রিকার সার্কুলেশন কত, এটি একটি ভয়াবহ বিষয়। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি খায়রুজ্জামান কামাল। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান চৌধুরীর সঞ্চলনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন জাতীয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমিন। অনুষ্ঠানে সংগঠনের সদস্যদের জন্য ফ্রি ব্ল্যাড গ্রুপিং ও ডায়াবেটিস পরীক্ষার ব্যবস্থা করে সামাজিক সংগঠন উৎসর্গ ফাউন্ডেশন।
বিএনপি এখনও চরমপন্থীদের পৃষ্ঠপোষকতা করছে: তথ্যমন্ত্রী
২৮নভেম্বর,বৃহস্পতিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, বিএনপি রোমহর্ষক হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলা মামলার ঐতিহাসিক রায় ঘোষণার পর কোন প্রতিক্রিয়া জানায়নি। এতেই বোঝা যায় দলটি এখনো জঙ্গিবাদকে পৃষ্ঠপোষকতা করে যাচ্ছে। বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে নিজ কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন। তিনি বলেন, এটা অত্যন্ত বিস্ময়কর এবং একই সাথে দুঃখজনক যে বিএনপি এখনও চরমপন্থী ও জঙ্গিবাদকে পৃষ্ঠপোষকতা করে যাচ্ছে। দেশের সবাই এই ঐতিহাসিক রায়কে স্বাগত জানিয়েছে। এই রায় শুধু দেশে জঙ্গিবাদকে সঙ্কুচিতই করবে না, বরং পাশাপাশি বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটেও একটি অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। কিন্তু বিএনপি এই রায়কে স্বাগত জানাতে ব্যর্থ হয়েছে। এতে করে আবারও প্রমাণিত হল তারা (বিএনপি) জঙ্গিবাদকে মদদ দেয়ার রাজনীতি থেকে বেরিয়ে আসতে পারেনি। ড. হাছান আরও বলেন, বিএনপি প্রধান বেগম খালেদা জিয়া ও মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ দলটির জ্যেষ্ঠ নেতারা জঙ্গিদের ব্যাপারে সব সময় দায়িত্বজ্ঞানহীন কথা বলেন। এমনকি বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোটের প্রধান লক্ষ্য হচ্ছে বাংলাদেশকে একটি তালেবানি রাষ্ট্রে পরিণত করা। মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ বিশ্বের অন্যান্য দেশের তুলনায় জঙ্গিবাদকে নিয়ন্ত্রণে ব্যাপক সাফল্য দেখিয়েছে। জঙ্গিরা প্রিজন ভ্যানে কিভাবে আইএস এর লোগো সম্বলিত ক্যাপ পড়েছিল এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এই বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। বিষয়টি তদন্তাধীন থাকায় আমি এই ইস্যুতে কিছুই বলতে চাই না। হাই কোর্ট প্রাঙ্গণে গাড়ির উপর হামলার ব্যাপারে এক প্রশ্নের জবাবে ড. হাছান বলেন,আমরা ভেবেছিলাম তারা (বিএনপি) ধ্বংস, ভাঙ্গচুর, সন্ত্রাসবাদ ও পেট্রোল বোমা হামলার রাজনীতি পরিত্যাগ করেছে। কিন্তু সাম্প্রতিক ঘটনাটি প্রমাণ করল তারা পরিবর্তন হয়নি এবং পরিবর্তন হবেও না। আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আরও বলেন, বিএনপি যদি সন্ত্রাসবাদকে সহায়তা দেয়ার রাজনীতি বন্ধ না করে তবে তারা আরও বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়বে এবং অদূর ভবিষ্যতে তারা জনগণের শত্রুতে পরিণত হবে।-আলোকিত বাংলাদেশ

জাতীয় পাতার আরো খবর