সোমবার, এপ্রিল ৬, ২০২০
ভালভাবে সেবা দিলেই সাব-রেজিস্ট্রারদের ইমেজ সংকট দূর হবে
০৬ফেব্রুয়ারী,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, জনগণকে হয়রানি না করে ভালভাবে সেবা দিলেই সাব-রেজিস্ট্রারদের ইমেজ সংকট দূর হবে। তাই জনগণকে সেবা দিতে কার্পণ্য না করার আহবান জানিয়েছেন তিনি । বৃহস্পতিবার ঢাকায় বিচার প্রশাসন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে নিবন্ধন অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিদর্শক খান মো. আব্দুল মান্নান এর বিদায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় একথা বলেন তিনি। মন্ত্রী বলেন, মর্যাদা বৃদ্ধির জন্য নিবন্ধন পরিদপ্তরকে অধিদপ্তরে উন্নীত করা হয়েছে। বালাম বই সংকট দূর করা হয়েছে। নকল নবীশদের বকেয়া পরিশোধ করা হয়েছে। সাব-রেজিস্ট্রারের শূন্য পদগুলো পূরণ করা হয়েছে। তাদের দেশে-বিদেশে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। এখন শুধু জনগণকে সেবা দেওয়ার পালা। তিনি বলেন, নিবন্ধন অধিদপ্তরের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী সেবার মানোভাব নিয়ে কাজ করলেই জনগণ প্রকৃত সেবা পাবে এবং নিবন্ধন অধিদপ্তরের মর্যাদা বাড়বে। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় আইন সচিব মো. গোলম সারওয়ার সকল সাব-রেজিস্ট্রার ও জেলা রেজিস্ট্রারকে সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত অফিসে অবস্থান করার নির্দেশ দেন। তিনি বলেন, রোববার থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত সকল সাব-রেজিস্ট্রার ও জেলা রেজিস্ট্রারকে অবশ্যই কর্মস্থলে উপস্থিত থাকতে হবে। এই সময়কালে ছুটি ব্যতিত কেউ কর্মস্থল ত্যাগ করতে পারবেনা। নিবন্ধন অধিদপ্তরের নতুন মহাপরিদর্শক শহীদুল আলম ঝিনুক এর সভপতিত্বে অনুষ্ঠানে নিবন্ধন পরিদপ্তরের সকল পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা বিদায়ী মহাপরিদর্শকের কর্মময় জীবন নিয়ে স্মৃতিচারণ করেন। অনুষ্ঠানে যুগ্ম-সচিব বিকাশ কুমার সাহা ও উম্মে কুলসুম, সলিসিটর রুনা নাহিদ আকতারসহ আইন মন্ত্রণালয়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এবং নিবন্ধন অধিদপ্তরের সর্বস্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।
শুরু হলো চার দিনব্যাপী বেসিস সফট এক্সপো
০৬ফেব্রুয়ারী,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বৃহস্পতিবার বিকেলে আন্তর্জাতিক কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি) মেলার উদ্বোধন করেন রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ। একটি ডামি মোবাইলে ফোনের বাটন চেপে মেলার উদ্বোধন করেন রাষ্ট্রপতি। এই বাটন চাপার সঙ্গে সঙ্গে একটি ভিডিও তথ্যচিত্রে দেশের আইসিটি খাতের হালচাল তুলে ধরা হয়। বেসিস সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবীরের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শিল্পমন্ত্রী নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সিনিয়র সচিব এনএম জিয়াউল আলম, মেলার প্লাটিনাম স্পন্সর ডাচ-বাংলা ব্যাংকের চেয়ারম্যান সায়েম আহমেদ প্রমুখ। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বেসিস সফটএক্সপো ২০২০ এর আহ্বায়ক এবং বেসিস-এর সহ-সভাপতি (অর্থ) মুশফিকুর রহমান। বিশ্বায়নের প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে দেশে নতুন প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়ানোর ওপর গুরুত্ব দিলেন শিল্পমন্ত্রী নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন। তিনি বলেন, তারুণ্য শক্তিকে আমরা সহজেই আইটি দক্ষ জনবল গঠন করে রেমিটেন্স বাড়াতে পারি। তথ্য-প্রযুক্তির উদ্ভাবনের মাধ্যমে জ্ঞান ভিত্তিক শিল্প গড়ে তুলতে পারি। তথ্য প্রযুক্তির ব্যাপক উৎকর্ষতায় বিশ্ব আজ গ্লোবাল ভিলেজ। আর আজ চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের ফলে শিল্প উৎপাদনে রোবটিক ও আর্টিফিশিয়াল ইন্টিলিজেন্সের প্রয়োগ বাড়ছে। এ ধরনের নতুন প্রযুক্তি ব্যবহার করে শিল্পোন্নত দেশগুলো উৎপাদনের সাফল্যের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রেখেছে। আমাদেরকেও নতুন প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়াতে হবে। প্রদর্শনী এলাকাকে ১০টি জোনে ভাগ করা হয়েছে। ইন্ডাস্ট্রি ৪.০ জোন এবং এক্সপেরিয়েন্স জোন বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের সক্ষমতা তুলে ধরবে। রয়েছে ভ্যাট জোন, ডিজিটাল এডুকেশন জোন, ফিনটেক জোন, উইমেন জোন এবং বরাবরের মতো রয়েছে সফটওয়্যার সেবা প্রদর্শনী জোন, উদ্ভাবনী মোবাইল সেবা জোন, ডিজিটাল কমার্স জোন, আইটিইএস ও বিপিও জোন।
প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে পোপের সাক্ষাৎ
০৬ফেব্রুয়ারী,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ ভ্যাটিকান সিটিতে ক্যাথোলিক খ্রিষ্টানদের আধ্যাত্মিক নেতা পোপ ফ্রান্সিসের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন। প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহ্সানুল করিম বলেন, প্রধানমন্ত্রী আজ সকালে ইতালির রাজধানী রোমের নিকটে অবস্থিত ভ্যাটিকান সিটি যান এবং পোপের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী সেখানে কিছু সময় অবস্থান করেন এবং পোপের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন। এ সময় প্রধানমন্ত্রীর ছোট বোন শেখ রেহানা ও তাঁর মেয়ে সায়মা ওয়াজেদ হোসেন উপস্থিত ছিলেন। শেখ হাসিনা আজ বিকেলে একটি ট্রেনে ইতালির মিলান নগরীর উদ্দেশে রওয়ানা দিবেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইতালির প্রধানমন্ত্রী জিউসেপ কোঁতের আমন্ত্রণে মঙ্গলবার বিকেলে চার দিনের সরকারি সফরে ইতালি পৌঁছেন।
২০২৩ সালে স্যাটেলাইট ২ উৎক্ষেপণ : মোস্তাফা জব্বার
০৬ফেব্রুয়ারী,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, দেশের দ্বিতীয় স্যাটেলাইট ২০২৩ সালের মধ্যে উৎক্ষেপণের লক্ষ্য নির্ধারণ করে কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করা হচ্ছে। তিনি বলেন, বর্তমান সরকারের অন্যতম অর্জন বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট ১ এর সফল উৎক্ষেপণ। এর মাধ্যমে বাংলাদেশ পরিণত হয়েছে স্যাটেলাইট ক্লাবের ৫৭তম গর্বিত সদস্যে। বর্তমান সরকারের নির্বাচনী ইশতেহারে দেশের দ্বিতীয় স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের ঘোষণা রয়েছে। বৃহস্পতিবার (০৬ ফেব্রুয়ারি) সংসদে আনোয়ার হোসেন খানের প্রশ্নের জবাবে একথা বলেন তিনি। মন্ত্রী বলেন, দেশের দ্বিতীয় স্যাটেলাইট কী ধরনের হবে এবং এর দ্বারা কি কি সেবা প্রদান করা হবে তা নির্ধারণের জন্য স্টেকহোল্ডারদের সাথে আলোচনা ও আন্তর্জাতিক পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।
৩টি উপনির্বাচনের তফসিল ঘোষণা
০৬ফেব্রুয়ারী,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সংসদ সদস্যদের পদত্যাগসহ মৃত্যুজনিত কারণে শূন্য হওয়া ৫টি সংসদীয় আসনের ৩টিতে উপনির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। আসন তিনটি হচ্ছে-ঢাকা ১০, গাইবান্ধা ৩ ও বাগেরহাট ৪ আসন। আগামী ২১ মার্চ একই দিনে এসব আসনে ভোট হবে। বৃহস্পতিবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে কমিশন সভা শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এসব তথ্য জানান ইসি সিনিয়র সচিব মো. আলমগীর। তিনি বলেন, ঢাকা ১০ আসনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) মেশিন ব্যবহার করলেও অন্য ২ সংসদীয় আসনে পুরোনো পদ্ধতি ব্যালটে এই ভোট অনুষ্ঠিত হবে। ইসি সচিব বলেন, মনোনয়ন দাখিল ১৯ ফেব্রুয়ারি, যাচাই-বাছাই ২৩ ফেব্রুয়ারি, আপিল দায়ের ২৪/২৬ ফেব্রুয়ারি, আপিল নিষ্পত্তি ২৮ ফেব্রুয়ারি, প্রত্যাহার ১৯ ফেব্রুয়ারি, প্রতীক বরাদ্দ ১ মার্চ, ভোট ২১ মার্চ। এদিকে ঢাকা ১০ আসনে উপ-নির্বাচনে যে ক’জন মনোনয়নপ্রত্যাশী রয়েছেন, তাদের মধ্যে আলোচনায় রয়েছেন দেশের ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার্স অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (এফবিসিসিআই) সাবেক সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন। গাইবান্ধা ৩ আসনে উপ-নির্বাচনে মনোনয়নপ্রত্যাশীদের মধ্যে আলোচনার শীর্ষে রয়েছেন কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সংরক্ষিত নারী আসনের সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট উম্মে কুলসুম স্মৃতি। এছাড়া বাগেরহাট ৪ আসনে উপ-নির্বাচনে আলোচনায় রয়েছেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য আমিরুল আলম মিলন, সাবেক অতিরিক্ত আইজিপি অধ্যাপক আব্দুর রহিম খান ও ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি এ এইচ এম বদিউজ্জামান সোহাগ। প্রসঙ্গত, ৫টি শূন্য আসনের মধ্যে ঢাকা ১০ আসনের সাংসদ সদস্য ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস মেয়র পদে নির্বাচন করতে গত ২৯ ডিসেম্বর সংসদ সদস্য পদ থেকে পদত্যাগ করেন। গত ২৭ ডিসেম্বর গাইবান্ধা-৩ আসনের সংসদ সদস্য মো. ইউনূস আলী, ১০ জানুয়ারি বাগেরহাট ৪ আসনের সংসদ সদস্য ডা. মোজাম্মেল হোসেন মারা গেলে তাদের মূত্যুতে আসনগুলো শূন্য হয়ে পড়েছিল। এই তিনটি আসনের উপনির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে। এছাড়াও গত ১৮ জানুয়ারি বগুড়া ১ আসনের সংসদ সদস্য আব্দুল মান্নান এবং গত ২১ জানুয়ারি যশোর ৬ অসনের সংসদ সদস্য ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক মারা গেছেন। তাদের মূত্যুতে আসনগুলো শূন্য হয়ে আসে। এই দুইটি আসনে পড়ে তফসিল ঘোষণা করা হবে।
সাংবাদিক সুমনের ওপর হামলার ঘটনায় একজন গ্রেপ্তার
০৬ফেব্রুয়ারী,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে পেশাগত দায়িত্বপালনকালে সাংবাদিক সুমনের ওপর হামলার ঘটনায় একজনকে আটক করেছে পুলিশ। গ্রেপ্তারকৃত ব্যক্তির নাম ইসমাইল। আজ সকালে মোহাম্মদপুর থানার এসআই ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আলতাফ হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। আলতাফ হোসেন বলেন, বুধবার রাতে রাজধানীর রায়েরবাজার এলাকার বুদ্ধিজীবী সড়কের একটি বাসা থেকে ইসমাইলকে আটক করে থানায় আনা হয়। এরপর সুমনের করা মামলায় তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়। আজ রিমান্ড আবেদন করে তাকে আদালতে পাঠানো হবে। ঘটনার ভিডিও ফুটেজ, ছবি ও প্রত্যক্ষদর্শীদের বর্ণনা অনুযায়ী হামলাকারীদের শনাক্তে কাজ করা হচ্ছে বলেও জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা। বলেন, এজন্য একটু সময় লাগছে। তবে সব আসামি ধরা পড়বে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।।
আমি সারা বিশ্বের এক নম্বর অর্থমন্ত্রী: কামাল
০৬ফেব্রুয়ারী,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: জাতীয় সংসদে বিএনপি ও জাতীয় পার্টির সদস্যদের সমালোচনার মুখে উষ্মা প্রকাশ করে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, একবার চিন্তা করে দেখেন। সাইফুর রহমান (সাবেক অর্থমন্ত্রী) চার্টার্ড অ্যাকাউনট্যান্ট ছিলেন। আমিও তাই। আমি সারা বিশ্বের এক নম্বর অর্থমন্ত্রী। এ সময় বিশ্বের শ্রেষ্ঠ অর্থমন্ত্রীর খেতাব পাওয়ার কথা স্মরণ করিয়ে দেন কামাল। গতকাল বুধবার জাতীয় সংসদে অর্থমন্ত্রী স্বায়ত্তশাসিত, আধা-স্বায়ত্তশাসিত, সংবিধিবদ্ধ সরকারি কর্তৃপক্ষ, পাবলিক নন-ফাইন্যান্সিয়াল করপোরেশনসহ স্বশাসিত সংস্থাগুলোর তহবিলের উদ্বৃত্ত অর্থ সরকারি কোষাগারে জমা দেওয়ার বাধ্যবাধকতা তৈরিতে বিল পাসের জন্য সংসদে তুলেন। এ সময় এর বিরোধিতায় সরব হন বিরোধীদের আসনে বসা দুই দলের সদস্যরা। জাতীয় পার্টির সদস্য মুজিবুল হক চুন্নু বলেন, অর্থমন্ত্রী ব্যবসায়ী হলে যা হয় তাই হয়েছে। বাজেট করার সময় চিন্তা করেননি? রাজস্ব ঘাটতি সম্পর্কে চিন্তা করেননি? ৩৫ হাজার কোটি টাকার ঘাটতি। আগের বছরের চেয়ে ৪৫ শতাংশ রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্য ঠিক করেছিলেন। করেছেন মাত্র ৭ শতাংশ। এনবিআরের ব্যর্থতার কারণে এই বিল সমর্থন করতে পারছি না। প্রত্যাহার করার দাবি করছি। তিনি বলেন, আমি একজন অ্যাডভোকেট। এটা বললে কি অপরাধ হবে? উনি চার্টার্ড অ্যাকাউনট্যান্ট। কিন্তু উনার মূল পরিচয় একজন ব্যবসায়ী। এটাতে আহত হওয়ার কারণ নেই। আমরা আশা করেছিলাম সাকসেসফুল বিজনেসম্যান অর্থনীতিতে ভালো করবেন। কতদূর ভালো করেছেন উনি চিন্তা করবেন। ব্যাংকের মালিক ডিরেক্টররা ঋণ নিয়ে বসে আছেন। এটা কী দেশ? টাকা পাচার হয় উনি ব্যবস্থা নেন না। বিভিন্ন সংস্থার টাকা খরচ করছেন। আগামী বছর ট্যাক্স না পেলে কী করবেন। বিগত সরকারের শ্রম প্রতিমন্ত্রী চুন্নু বলেন, ২০১৭ সালে আমাকে বেস্ট লেবার মিনিস্টারের অ্যাওয়ার্ড দিয়েছিল। কেন যে দিয়েছিল, তা আমি জানি না। অর্থমন্ত্রীর সমালোচনা করে বিএনপির রুমিন ফারহানা বলেন, অর্থমন্ত্রী অসাধারণ মেধাবী ছাত্র ছিলেন। সাধারণ অবস্থা থেকে ব্যবসায়ী হয়েছেন। উনি অর্থনীতি বোঝেন না এটা পাগলেও বিশ্বাস করবে না। তাহলে সমস্যটা কোথায়? উনার সদিচ্ছার অভাব। এত মেধাবী তিনি কিন্তু শেয়ারবাজার, খেলাপি ঋণ নিয়ে কিছু করলেন না। কেন মেধাবী অর্থমন্ত্রী এদিকে নজর দিচ্ছেন না? উনি ধনী সমাজের জন্য অর্থমন্ত্রী হননি। কেন খেটে খাওয়া মানুষের দিকে উনার নজর নেই? জবাব দিতে গিয়ে অর্থমন্ত্রী মুস্তফা কামাল বলেন, একবার চিন্তা করে দেখেন। সাইফুর রহমান চার্টার্ড অ্যাকাউনট্যান্ট ছিলেন। আমিও তাই। আমি সারা বিশ্বের এক নম্বর অর্থমন্ত্রী। পারসোনাল লেভেলে কথা বলবেন, এটা ঠিক নয়। আমিও অনেক কিছু বলতে পারি। সবার বিষয়েই আমি জানি। বিএনপি ও জাতীয় পার্টির আরও বেশ কয়েকজন সংসদ সদস্য অর্থমন্ত্রীর সমালোচনা করে বক্তব্য দেন, যা নিয়ে উষ্মা প্রকাশ করেন মুস্তফা কামাল। তিনি বলেন, এত বক্তৃতা শুনতে ভালো লাগেনি। আপনারা এক সময় দায়িত্বে ছিলেন। কী কাজ করেছেন? পৃথিবীতে কোথায় কী হচ্ছে জানা দরকার। বাংলাদেশ অন্য দেশের কাছে দৃষ্টান্ত। আপনারা বলছেন, ব্যাংক, শেয়ারবাজার সব খালি করে ফেলেছি। আপনাদের সময় পুঁজিবাজার কী ছিল? আপনাদের সময় ইনডেক্স কী ছিল? এবার সারা পৃথিবীতে সবচেয়ে খারাপ অবস্থা। অর্থনীতিতে ওঠানামা থাকে। বিলের পক্ষে যুক্তি দিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, এই প্রতিষ্ঠানগুলো কার টাকায় তৈরি হয়েছে? সরকারের টাকায়। জনগণের টাকায়। তৈরির সময় যদি সরকার টাকা দেয় তবে লাভের সময় ইচ্ছামতো বোনাস নেবে। বিদেশে ঘুরবে তা হয় না। পরে বিলটি সংসদ সদস্যদের কণ্ঠভোটে পাস হয়, যদিও বিএনপি-জাতীয় পার্টির সদস্যরা বিপক্ষে ভোট দেন। উল্লেখ্য, লন্ডনভিত্তিক দ্য ফাইন্যান্সিয়াল টাইমস গ্রুপের সাময়িকী দ্য ব্যাংকার গেল মাসে বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালকে ফাইন্যান্স মিনিস্টার অব দ্য ইয়ার ২০২০ ঘোষণা করে।
একুশে পদক পাচ্ছেন ২১ ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠান
০৫ফেব্রুয়ারী,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বিভিন্ন ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে সঙ্গীতশিল্পী মিতা হকসহ ২০ জনকে এবার একুশে পদকের জন্য মনোনীত করা হয়েছে। সেই সঙ্গে মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটও পাচ্ছে ২০২০ সালের একুশে পদক। আজ বুধবার সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এবারের পুরস্কারের জন্য মনোনীতদের নাম প্রকাশ করে। ভাষা আন্দোলনের শহীদদের স্মরণে সরকার ১৯৭৬ সাল থেকে প্রতি বছর বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে এই পুরস্কার দিয়ে আসছে। পুরস্কারপ্রাপ্ত প্রত্যেককে ৩৫ গ্রাম ওজনের একটি স্বর্ণপদক, এককালীন দুই লাখ টাকা ও একটি সম্মাননাপত্র দেওয়া হবে। আগামী ২০ ফেব্রুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে আনুষ্ঠানিকভাবে তাদের হাতে একুশে পদক তুলে দেবেন। একুশে পদক পেলেন যারা- ভাষা আন্দোলনে (মরণোত্তর) মরহুম আমিনুল ইসলাম বাদশা। শিল্পকলায় (সংগীত) বেগম ডালিয়া নওশিন, শঙ্কর রায় ও মিতা হক। শিল্পকলায় (নৃত্য) মো. গোলাম মোস্তফা খান। শিল্পকলায় (অভিনয়) এম এম মহসীন। শিল্পকলায় (চারুকলা) অধ্যাপক শিল্পী ড. ফরিদা জামান। মুক্তিযুদ্ধে (মরণোত্তর) মরহুম হাজি আক্তার সরদার, মরহুম আব্দুল জব্বার, মরহুম ডা. আ আ ম মেসবাহুল হক (বাচ্চু ডাক্তার)। সাংবাদিকতায় জাফর ওয়াজেদ (আলী ওয়াজেদ জাফর)। গবেষণায় ড. জাহাঙ্গীর আলম, হাফেজ কারী আল্লামা সৈয়দ মোহাম্মদ ছাইফুর রহমান নিজামী শাহ। শিক্ষায় অধ্যাপক ড. বিকিরণ প্রসাদ বড়ুয়া। অর্থনীতিতে অধ্যাপক ড. শামসুল আলম। সমাজসেবায় সুফি মোহাম্মদ মিজানুর রহমান। ভাষা ও সাহিত্যে ড. নুরুন নবী, মরহুম সিকদার আমিনুল হক (মরণোত্তর) ও বেগম নাজমুন নেসা পিয়ারি। চিকিৎসায় অধ্যাপক ডা. সায়েবা আখতার। প্রতিষ্ঠান: গবেষণায় বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট।
চট্টগ্রামে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর উপস্থিতিতে ৯ হাজার কোটি টাকার কোকেইন ধ্বংস
০৫ফেব্রুয়ারী,বুধবার,মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন চৌধুরী,নিউজ একাত্তর ডট কম: Rapid Action Battalion (Rab) কয়েকটি অভিযানে জব্দ হওয়া ৩৭০ লিটার কোকেইন ধ্বংস করা হয়েছে। ২০১৫ সালে চট্টগ্রাম বন্দর থেকে আটক হওয়া কোকেইনের চালান এটি। এসব মাদকের বাজারমূল্য আনুমানিক ৯ হাজার কোটি টাকা বলে জানিয়েছে Rab। বুধবার (৫ ফেব্রুয়ারি) পতেঙ্গা Rab-7 সদর দফতরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খানের উপস্থিতিতে এসব মাদক ধ্বংস করা হয়।চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের পক্ষে মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আবু সালেম মোহাম্মদ নোমান ও চট্টগ্রাম বন্দরের পক্ষে সহকারী ব্যবস্থাপক (এস্টেট) রায়হান উদ্দিন মাদক ধ্বংস কার্যক্রম তদারকি করেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, মাদকের তৎপরতা বন্ধে তিনভাগে কাজ শুরু হয়েছে। কাজ চলছে। মাদক একটি ভয়ংকর নেশা। যিনি একবার এ নেশায় আসক্ত হবেন তিনি আর বের হতে পারেন না। মাদক সর্বনাশা। ভবিষ্যৎ প্রজন্ম যাতে মাদক ও জঙ্গিবাদে না জড়ায় সেটি নিয়ে কাজ করছি। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী দেশে মাদক নির্মূলে কাজ করছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। মাদক, জঙ্গিবাদ নির্মূলে দক্ষতার পরিচয় দিয়েছে আমাদের Rab ও পুলিশ বাহিনী। তিনি বলেন, সুন্দরবন একসময় জলদস্যু, বনদস্যুদের অভয়ারণ্য ছিল। কোনো পর্যটক, স্থানীয় জেলে সুন্দরবনে যেতে পারতেন না। কিন্তু Rabর প্রচেষ্টায় এখন সুন্দরবন জলদস্যুমুক্ত হয়েছে। মন্ত্রী বলেন, দেশে ইয়াবা প্রবেশের প্রধান রুট কক্সবাজার। সেখানেও Rab, পুলিশ, বিজিবিসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতায় তা কমে এসেছে। Rab-7 এর অধিনায়ক লে. কর্নেল মো. মশিউর রহমান জুয়েলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি, হাবিবুর রহমান এমপি, ফরিদুল হক খান এমপি, পীর ফজলুর রহমান এমপি, চট্টগ্রাম-১১ আসনের এমপি এম আবদুল লতিফ, Rabর মহাপরিচালক (ডিজি) ড. বেনজীর আহমেদ, চট্টগ্রাম রেঞ্জ ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুক, সিএমপি কমিশনার মো. মাহাবুবর রহমান। এ সময় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর চট্টগ্রাম অঞ্চলের অতিরিক্ত পরিচালক মো. মজিবুর রহমান পাটোয়ারী, বিভিন্ন সরকারি ও সামরিক কর্মকর্তাসহ Rabর ঊর্ধ্বতন কমর্কর্তারা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে পতেঙ্গা এলাকার বিভিন্ন বিদ্যালয়ের ১ হাজার শিক্ষার্থীর মাঝে বঙ্গবন্ধুর আত্মজীবনী, মাদক ও জঙ্গিবাদ বিরোধী বই বিতরণ করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান। অনুষ্ঠানে উপস্থিত শিক্ষার্থীদের মাদক ও জঙ্গিবাদ বিরোধী শপথবাক্য পাঠ করান Rab সদর দফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপরেশনস) কর্নেল তোফায়েল মোস্তফা সরোয়ার।

জাতীয় পাতার আরো খবর