বিজিবির অভিযানে ২২ কোটি টাকার চোরাচালান ও মাদকদ্রব্য জব্দ
১জুন,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) গত মাসে দেশের সীমান্ত এলাকাসহ অন্যান্য স্থানে অভিযান চালিয়ে সর্বমোট ২২ কোটি ৬৯ লক্ষ ৬৮ হাজার টাকা মূল্যের বিভিন্ন প্রকারের চোরাচালান ও মাদকদ্রব্য জব্দ করেছে। জব্দকৃত মাদকের মধ্যে রয়েছে ৪ লাখ ৪৭ হাজার ৮৬৭ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট, ৩৩ হাজার ৯৩৩ বোতল ফেনসিডিল, ১ হাজার ৬৪৬ বোতল বিদেশি মদ, ৪৪২ ক্যান বিয়ার, ১ হাজার ২৮৭ কেজি গাঁজা, ১ কেজি ৩৮৩ গ্রাম হেরোইন, ৩ হাজার ৬৭টি উত্তেজক ইনজেকশন, ৩ হাজার ৬৩৩টি এ্যানেগ্রা/সেনেগ্রা ট্যাবলেট এবং ৫৭ হাজার ৯৩০টি অন্যান্য ট্যাবলেট। জব্দকৃত অন্যান্য চোরাচালান দ্রব্যের মধ্যে রয়েছে ৫ হাজার ৫২০টি কসমেটিক্স সামগ্রী, ৭০০টি ইমিটেশন গহনা, ৭৪টি শাড়ি, ১৩০টি তৈরি পোশাক, ৪২ মিটার থান কাপড়, ২৪টি থ্রিপিস/শার্টপিস ২৬৬ ঘনফুট কাঠ, ১৭৫ কেজি চা পাতা, ৬ হাজার কেজি কয়লা, ৪টি প্রাইভেটকার/মাইক্রোবাস, ৩টি পিকআপ, ২টি ট্রাক, ১২টি সিএনজি/ইঞ্জিন চালিত অটোরিকশা এবং ৭০টি মোটরসাইকেল। উদ্ধারকৃত অস্ত্রের মধ্যে রয়েছে ২টি বন্দুক, ১টি পাইপ গান এবং ৩ রাউন্ড গুলি। এছাড়াও সীমান্তে বিজিবির অভিযানে ইয়াবাসহ বিভিন্ন প্রকার মাদক পাচার ও অন্যান্য চোরাচালানে জড়িত থাকার অভিযোগে ২৬১ জন চোরাচালানীকে এবং অবৈধভাবে সীমান্ত অতিক্রমের দায়ে ২১ জন বাংলাদেশী নাগরিক ও ১ জন ভারতীয় নাগরিককে আটকের পর তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।
লিবিয়ায় ২৬ জন বাংলাদেশিকে হত্যা,মানবপাচার চক্রের হোতা হাজী কামাল গ্রেপ্তার
১জুন,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: লিবিয়ায় ২৬ জন বাংলাদেশিকে গুলি করে হত্যা ও দেশটিতে মানবপাচার চক্রের অন্যতম সদস্য কামাল হোসেন ওরফে হাজী কামালকে (৫৫) গ্রেপ্তার করেছে Rapid Action Battalion 3। আজ সোমবার (১ জুন) তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন RAB এর লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের জ্যেষ্ঠ সহকারী পরিচালক এএসপি সুজয় সরকার। এএসপি সুজয় বলেন, মানবপাচার চক্রের অন্যতম হোতা কামাল হোসেন ওরফে হাজী কামালকে ২৬ জন বাংলাদেশি হত্যার ঘটনায় গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় তার কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ পাসপোর্ট জব্দ করা হয়েছে। সেইসঙ্গে তাকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আন্তর্জাতিক মানবপাচার চক্র সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া গেছে। তিনি আরো বলেন, হাজী কামাল মানবপাচার চক্রের অন্যতম সদস্য। তাকে নিয়ে আজ বেলা দেড়টায় রাজধানীর টিকাটুলিতে অবস্থিত RAB-3 কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানানো হবে।
স্বাস্থ্যবিধি না মানা এ সংকটকে আরও ঘনীভূত করতে পারে
১জুন,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: যাত্রী সাধারণকে অনুরোধ জানিয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আপনারা অতিরিক্ত যাত্রী হবেন না। অর্ধেক আসন খালি রাখুন। শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখুন। সংক্রমণ থেকে বাঁচুন অপরকে বাঁচান। হুড়োহুড়ি, বাড়তি যাত্রী হওয়া, স্বাস্থ্যবিধি না মানা এ সংকটকে আরও ঘনীভূত করতে পারে। সোমবার সংসদ ভবনের সরকারি বাসভবন থেকে এক ভিডিও বার্তায় তিনি এসব কথা বলেন। গণপরিবহন চালু ও ভাড়া বৃদ্ধির বিষয়ে সড়ক ওবায়দুল কাদের বলেন, করোনা সংক্রমণ রোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে অর্ধেক আসন খালি রেখে গাড়ি চালানো শুরু হয়েছে। সরকার বাস্তবতার প্রয়োজনে ভাড়া সমন্বয় করেছে। শর্তসাপেক্ষে গণপরিবহন চলছে জানিয়ে তিনি বলেন, আমি মালিকদের স্বাস্থ্যবিধি ও শর্ত মেনে গাড়ি চালানোয় অনুরোধ করছি। পাশাপাশি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ ভিজিল্যান্স টিম, মোবাইল কোর্টসহ টার্মিনাল কর্তৃপক্ষকে অর্ধেক আসন খালি রাখা ও বর্ধিত ৬০ শতাংশ ভাড়া এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা ও মাস্ক পরার বিষয় তদারকি করার আহ্বান জানান সেতুমন্ত্রী। দেশবাসীকে সতর্ক করে সেতুমন্ত্রী বলেন, জনগণের অসচেতনতা ও স্বাস্থ্যবিধি না মানায় পরিস্থিতি অবনতি হলে সরকার আরও কঠোর হবে। তিনি বলেন, পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা উদ্বেগজনক পর্যায়ে থাকলেও লকডাউন শিথিল করছে। কোথাও কোথাও তুলে নিয়েছে। জীবনের পাশাপাশি জীবিকা দীর্ঘমেয়াদে বন্ধ থাকলে জীবনের গতিপথে থেমে আসবে। অর্থনীতিও হয়ে পড়বে স্থবির। পরিবর্তিত প্রেক্ষাপটে বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে আমাদের ভারসাম্যপূর্ণ অবস্থান বেছে নিতে হবে। সরকারের অর্থ ও খাদ্য সহায়তার কারণে করোনা সংকটকালে একজন মানুষ না খেয়ে মারা যায়নি বলেও দাবি করেন সেতুমন্ত্রী।
দেশে করোনায় আরও ২২ জনের মৃত্যু,শনাক্ত দুই হাজার ৩৮১ জন
১জুন,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: মহামারি করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ২২ জনের মৃত্যু হয়েছে। ফলে ভাইরাসটিতে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ৬৭২ জনে। এছাড়া একই সময়ে করোনায় আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন দুই হাজার ৩৮১ জন। এতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ৪৯ হাজার ৫৩৪ জনে। সোমবার (১ জুন) দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদফতরের করোনাভাইরাস বিষয়ক নিয়মিত হেলথ বুলেটিনে এ তথ্য জানানো হয়। অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (মহাপরিচালকের দায়িত্বপ্রাপ্ত) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা বুলেটিন উপস্থাপন করেন।
মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক,না মানলে ৬ মাসের জেল অথবা এক লাখ টাকা জরিমানা
১জুন,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: জীবনযাত্রা স্বাভাবিক অবস্থায় ফেরানোর পর সবার জন্য মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক করেছে সরকার। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে এ ব্যাপারে নির্দেশনা জারি করা হয়েছে। মাস্ক ছাড়া কেউ বাইরে বের হলে ৬ মাসের জেল অথবা এক লাখ টাকা জরিমানা করা হবে। বাইরে লোকজনের চলাচল বেড়ে যাওয়ায় এই পদক্ষেপ নিলো সরকার। জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন- করোনা থেকে নিরাপদ থাকতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা এখন নাগরিক দায়িত্ব। ঈদের পর সরকার সাধারণ ছুটি আর না বাড়ানোয় সাধারণ ছন্দে ফেরে দেশ। কাজে যোগ দেয়ায় বাইরে লোকজনের চলাচলও বেড়েছে। করোনা সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকি থাকলেও জীবিকার তাগিদে বাইরে বের হয়েছে মানুষ। স্বাস্থ্যবিধি মানার কথা বলা হলেও, অনেককে দেখা গেছে মাস্ক ছাড়াই বাইরে চলাফেরা করতে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর তৎপরতা কম থাকায় মানা হচ্ছে না সামাজিক দূরত্ব। তবে সংক্রমণ থেকে বাঁচতে কঠোরভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার তাগিদ দেন বিশেষজ্ঞরা। এ অবস্থায়, স্বাস্থ্যবিধি মানতে নতুন করে কিছু কড়াকড়ি আরোপ করেছে সরকার। বাইরে বের হলে মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। নির্দেশ অমান্যকারীর বিরুদ্ধে সংক্রমণ রোগ প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূল আইনে সর্বোচ্চ ১ লাখ টাকা জরিমানা বা ৬ মাসের জেল হবে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সবকিছু খুলে দেয়ায় সংক্রমণ ঝুকি বেড়ে গেছে। তাই স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করার জন্য কঠোর মনিটরিং দরকার। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে কঠোর হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।
অত্যন্ত কম সংখ্যক কর্মকর্তা নিয়ে স্বল্প পরিসরের সরকারি অফিস খুলেছি
১জুন,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগের ২৫ শতাংশের বেশি কর্মকর্তা অফিস করতে পারবেন বলে জানিয়েছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন। বলেছেন, আমরা নিষেধাজ্ঞাসহ স্বল্প পরিসরের সরকারি অফিস খুলেছি। অনেক বেসরকারি আধা-সরকারি স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান বন্ধ ছিল। আমাদের ১৮টি মন্ত্রণালয় স্বল্পপরিসরে এতদিন চালু ছিল। রোববার প্রথম দিন আমরা সচিবালয়ে যে চিত্র দেখেছি অধিকাংশ মন্ত্রণালয়, যেভাবে আমরা বলেছি যে, বয়স্ক কর্মকর্তারা আসবেন না, অসুস্থ এবং সন্তানসম্ভবা নারী কর্মকর্তারা আসবেন না, সেটা আমরা মেইনটেইন করেছি। একটি বেসরকারি টেলিভিশনের সঙ্গে ভিডিওকলে যুক্ত হয়ে প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, রোববার ছিল প্রথম দিন, অনেকগুলো মন্ত্রণালয় অত্যন্ত কম সংখ্যক কর্মকর্তা নিয়ে, যারা বিভিন্ন জায়গায় ঝুঁকিপূর্ণ স্থানে বসবাস করছেন, তাদের আমরা আসতে বারণ করেছি, তারা আসেননি। দর্শনার্থী যাতে সচিবালয়ে প্রবেশ করতে না পারে সেজন্য ১৫ দিনে কোনো পাস ইস্যু করা হবে না। প্রতিমন্ত্রী বলেন, তারপরও আমার কাছে তথ্য আসছে যে, কিছু কিছু মন্ত্রণালয়ে হয়তো প্রয়োজনের তুলনায়,আমরা কেবল শুরু করছি, অল্প প্রয়োজনে স্বল্প পরিসরে অফিসে আসার জন্য বলা হয়েছে। ফরহাদ হোসেন বলেন, মন্ত্রণালয়গুলোকে জানিয়ে দেয়া হয়েছে, অত্যাবশ্যকীয় যে কাজগুলো আছে এখন আমরা সেই কাজগুলো করতে চাই। সেক্ষেত্রে চার ভাগের এক ভাগ (২৫ শতাংশ) বা পাঁচ ভাগের এক ভাগ (২০ শতাংশ) কর্মকর্তা উপস্থিত থাকবেন। যারা অসুস্থ আছেন, তারা ঘরে বসে কাজ করবেন তারা অফিসে আসবেন না, এভাবে আমরা সাজিয়েছি। যাতে কেউ এখানে ইনফেক্টেড না হন। যারা একটু দূরে থাকে যারা ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় থাকে আমরা তাদের আমরা শনাক্ত করেছি। প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমরা লক্ষ করেছি কিছু কিছু মন্ত্রণালয়ে কোনো কোনো কর্মকর্তার প্রয়োজন ছিল না তারপরও তারা এসেছে। তাদের কোনো কাজ ছিল না। তাদের কাছে বার্তা ঠিকমতো পৌঁছায়নি। করানোর সংক্রমণ এখন সর্বোচ্চ একটি অবস্থায় আছে জানিয়ে ফরহাদে হোসেন বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে আমাদের কাজগুলো করতে হবে। প্রথম দিন আমরা দেখলাম আমাদের অবজারভেশনে কিছু ত্রুটি পেয়েছি। তিনি বলেন, এই ১৫ দিনে আমরা ট্রায়াল অ্যান্ড এরর বেসিসে কাজ করবো। আজ যে ভুলগুলো হয়েছে কাল যাতে সেই ভুলগুলো না হয় সেটাই আমরা করতে চাই। উল্লেখ্য, করোনাভাইরাস মহামারির কারণে গত ২৬ মার্চ থেকে টানা ৬৬ দিনের ছুটি শেষে গতকাল রোববার প্রথম অফিস চালু হয়। আপাতত: আগামী ১৫ জুন পর্যন্ত অফিস খুলে দিয়েছে সরকার।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কাজে যোগ দিলেন
১জুন,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা ও আইসোলেশন পর্ব শেষ করে কাজে যোগ দিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ। আজ সোমবার (১ জুন) সকালে কাজে যোগ দেন তিনি। সুস্থ হওয়ার পর সংশ্লিষ্ট সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন আবুল কালাম আজাদ। সেইসঙ্গে করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সবাইকে নিয়ে আরো জোরালো গতিতে কাজ এগিয়ে নেওয়ার প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন তিনি কালের কণ্ঠের কাছে। এ ছাড়া করোনায় যাঁরা মৃত্যুবরণ করেছেন তাঁদের আত্মার শান্তি কামনা ও আক্রান্তদের দ্রুত আরোগ্য কামনা করেন তিনি।
করোনা আক্রান্ত মন্ত্রিপরিষদের উপসচিব
১জুন,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের উপসচিব মোহাম্মদ আব্দুল ওয়াদুদ চৌধুরী করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের মাঠ প্রশাসন সমন্বয় অধিশাখায় দায়িত্বরত অবস্থায় আক্রান্ত হয়েছেন তিনি। মাঠ প্রশাসনের সঙ্গে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের গুরুত্বপূর্ণ যোগাযোগে যে কয়টি অধিশাখা মূল দায়িত্ব পালন করে থাকে, সমন্বয় অধিশাখা তার মধ্যে অন্যতম। এ কারণে দেশব্যাপী লকডাউন পরিস্থিতি চলাকালে মাঠ প্রশাসনের সঙ্গে প্রতিনিয়ত বিভিন্ন কাজে যুক্ত ছিলেন ওয়াদুদ চৌধুরী। বাসা এবং অফিস দুই জায়গা থেকেই সক্রিয় ছিলেন তিনি। করোনা শনাক্ত হওয়ার পর থেকেই ছুটিতে রয়েছেন আব্দুল ওয়াদুদ। ওয়াদুদ চৌধুরী আজ সোমবার সকালের কালের কণ্ঠকে বলেন, করোনাভাইরাস পজেটিভ হলেও আমি আল্লাহর রহমতে ভালো আছি। আপাতত তেমন কোনো সমস্যা নেই। তিনি বলেন, আমার মতো আরো যাঁরা আক্রান্ত আছেন তাঁদের সবাই দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠুন এই কামনা করি। সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন। বিশেষ করে মাঠ প্রশাসনের যারা দিনরাত অক্লান্ত পরিশ্রম করছেন তাঁদের জন্যও সবার কাছে দোয়া চান তিনি। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এ বিভাগের একজন লিফটম্যানও করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। তাঁর নাম রেজাউল ইসলাম। রেজাউলের করোনা শনাক্ত হলেও তেমন কোনো লক্ষণ নেই। তিনিও ছুটিতে আছেন। জানা গেছে, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের যারা লকডাউন চলাকালে নিয়মিত অফিস করেছেন তাঁদের প্রায় সবাইরই করোনা পরীক্ষা করা হয়েছে। তাদের মধ্যে উল্লিখিত দুইজন শনাক্ত হয়েছেন।
আজ থেকে অভ্যন্তরীণ রুটে ফ্লাইট চলাচল শুরু
১জুন,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: অভ্যন্তরীণ রুটে ফ্লাইট চলাচল শুরু হয়েছে। করোনা মহামারির জন্য ২ মাসের বেশি সময় বন্ধ থাকার পর আজ সোমবার সকাল থেকে দেশের ৪টি এয়ারলাইন্স কোম্পানি তাদের ফ্লাইট চালু করে। বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক) চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মফিদুর রহমান গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, বর্তমানে দেশের চারটি এয়ারলাইন্স কোম্পানি দেশের অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট পরিচালনা করে। যার গড় হিসাব করলে অভ্যন্তরীণ রুটে প্রতিদিন আগে ১৪০টির মতো ফ্লাইট চলাচল করতো। তবে গত ২০শে মার্চ তিন মাসের জন্য ফ্লাইট চলাচল বন্ধ ঘোষণা করেছে রিজেন্ট এয়ারওয়েজ। তাই বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স, নভোএয়ার এবং ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স অভ্যন্তরীণ রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করছে। মফিদুর রহমান জানান, আজ অভ্যন্তরীণ রুটে মোট ২৪টি ফ্লাইট ছিলো। যার মধ্যে ইউএসবাংলা এয়ারলাইন্সের ১০টি, বাংলাদেশ বিমানের ৬টি ও নভোএয়ারের ৮টি। কিন্তু বাংলাদেশ বিমান যাত্রী না পাওয়ায় ইতিমধ্যে ৪টি ফ্লাইট বাতিল করেছে। এছাড়া হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে অভ্যন্তরীণ রুটে প্রথম ফ্লাইট যায় চট্টগ্রামের উদ্দেশ্যে সকাল ৭টা ৫০ মিনিটে ২৮ জন যাত্রী নিয়ে। ফ্লাইট চালুর বিষয়ে বাংলাদেশ বিমানের ডিজিএম তাহেরা খন্দকার বলেন, আমাদের ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সৈয়দপুর রুটে অর্থাৎ ৩টি রুটে ৬টি ফ্লাইট ছিলো। কিন্তু যাত্রী না পাওয়ায় চট্টগ্রাম ও সিলেট রুটের ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে। অর্থাৎ ৪টি ফ্লাইট বাতিল হয়েছে। তবে সকালে সৈয়দপুর রুটে ফ্লাইট গিয়েছে, বিকেলের ফ্লাইটও যাবে।

জাতীয় পাতার আরো খবর