আবরার হত্যা: গ্রেফতার ছাত্রলীগের ১০ নেতা রিমান্ডে
০৮অক্টোবর,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যার ঘটনায় এখন পর্যন্ত ১০ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতার ১০ জনই আবরার হত্যার কথা স্বীকার করেছেন। ঢাকা দক্ষিণ মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার হাসান আরাফাত বিষয়টি নিশ্চিত করেন। এদিকে, আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় গ্রেফতার ছাত্রলীগের ১০ নেতার ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। মঙ্গলবার (৮ অক্টোবর) তাদের ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করে পুলিশ। এ সময় চকবাজার থানায় করা মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম সাদবীর ইয়াসির আহসান চৌধুরী এই রিমান্ড মঞ্জুর করেন। যাদের রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়েছে তারা হলেন- বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদি হাসান রাসেল, সহ-সভাপতি মুস্তাকিম ফুয়াদ, সহ-সম্পাদক আশিকুল ইসলাম বিটু, উপ-দফতর সম্পাদক মুজতবা রাফিদ, উপ-সমাজকল্যাণ সম্পাদক ইফতি মোশাররফ সকাল, উপ-আইন সম্পাদক অমিত সাহা, ক্রীড়া সম্পাদক সেফায়েতুল ইসলাম জিওন, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক অনিক সরকার, গ্রন্থনা ও গবেষণা সম্পাদক ইশতিয়াক মুন্না এবং খন্দকার তাবাখখারুল ইসলাম তানভির। আবরার ফাহাদ বুয়েটের তড়িৎ ও ইলেকট্রনিক প্রকৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের (১৭তম ব্যাচ) ছাত্র ছিলেন। তিনি থাকতেন বুয়েটের শেরে বাংলা হলের নিচতলায় ১০১১ নম্বর কক্ষে। বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে সাম্প্রতিক কিছু চুক্তির সমালোচনা করে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেয়ার জেরে রোববার রাতে ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যা করেন বুয়েট ছাত্রলীগের একদল নেতাকর্মী। সোমবার রাতে ফাহাদ হ'ত্যার ঘটনায় ১৯ জনকে আসামি করে তার বাবা বরকত উল্লাহ ঢাকার চকবাজার থানায় মামলা করেন।
ভারত সফর নিয়ে বুধবার গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন
০৮অক্টোবর,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: যুক্তরাষ্ট্রের নিউইর্য়ক ও ভারত সফর নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বুধবার বিকেল সাড়ে ৩টায় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইং থেকে এ তথ্য জানানো হয়। জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৪তম অধিবেশনে যোগ দিতে গত ২২ থেকে ২৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত নিউইর্য়ক সফর করেন প্রধানমন্ত্রী। সেখানে তিনি জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের বিভিন্ন কর্মসূচিতে অংশগ্রহণের পাশাপাশি বেশ কয়েক দেশের রাষ্ট্র ও সরকারপ্রধান এবং বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থা প্রধানের সঙ্গে বৈঠক করেন। অন্যদিকে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আমন্ত্রণে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক এবং বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামের ইন্ডিয়া ইকোনমিক সামিটে অংশ নিতে ৩ থেকে ৬ অক্টোবর পর্যন্ত নয়াদিল্লি সফর করেন।
কেরানীগঞ্জ কারাগারে সম্রাট, ছয় মাসের দণ্ড
০৭অক্টোবর,সোমবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: রাজধানীর কাকরাইলে যুবলীগ নেতা ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাটের কার্যালয় থেকে অভিযান চালিয়ে অবৈধ অস্ত্র-গুলি, মাদক ও ক্যাঙ্গারুসহ বিরল প্রজাতির প্রাণীর চামড়া উদ্ধার করা হয়েছে। ফলে বণ্যপ্রাণী সংরক্ষণ ও নিরাপত্ত আইন ২০১২ এর ধারা ৩৪(খ) এর আওতায় তাকে ছয় মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন Rapid Action Battalion(Rab) ভ্রাম্যমাণ আদালত। একই সঙ্গে মাদক ও অস্ত্র আইনে নিয়মিত মামলা দায়ের হবে। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন Rabর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম। আজ রবিবার (৬ অক্টোবর) Rabর ম্যাজিস্ট্রেট সরোয়ার আলম ও Rabর পরিচালক (মিডিয়া) লে. কর্নেল সরোয়ার বিন কাশেম সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান। এদিকে ক্যাসিনো সম্রাটকে তার কার্যালয় থেকে বের করে ঢাকার কেরানীগঞ্জ কেন্দ্রীয় কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। সন্ধ্যা ৭টায় তাকে নিয়ে রওয়ানা হয় Rab। সম্রাটকে আটকের পর রবিবার দুপুর থেকে তার কার্যালয়ে অভিযান চালায় Rab। এ সময় সেখান থেকে দুটি ক্যাঙ্গারুর চামড়া, অবৈধ অস্ত্র, বিপুল পরিমাণ মাদকদ্রব্য ও টর্চার করার ইলেকট্রিক যন্ত্রপাতি উদ্ধার করা হয়। পরে Rabর ভ্রাম্যমাণ আদালতে তাকে অবৈধভাবে বন্যপ্রাণীর চামড়া সংরক্ষণের অপরাধে ৬ মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। এদিকে যুবলীগের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী ওরফে সম্রাটকে সংগঠনটি থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।
দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী
০৭অক্টোবর,সোমবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ভারতে চার দিনের সরকারি সফর শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।এসময় বিমানবন্দরে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা উপদেষ্টা মেজর জেনারেল (অব.) তারিক আহমেদ সিদ্দিক, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এসডিজি বিষয়ক মুখ্য সমন্বয়ক মো. আবুল কালাম আজাদ এবং প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব সাজ্জাদুল হাসানসহ অন্যান্যরা প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানান। রবিবার রাত ১০টা ৩৫ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী এবং তার সফরসঙ্গীদের নিয়ে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইট হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে।এর আগে স্থানীয় সময় রাত ৮টার পর নয়াদিল্লি পালাম বিমান বাহিনী স্টেশন থেকে ঢাকার উদ্দেশে রওয়ানা দেন প্রধানমন্ত্রী।সফরে ভারতের রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে বৈঠক করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। হায়দ্রাবাদ হাউসে ভারতের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক শেষে দুই দেশের মধ্যে সাতটি সমঝোতা স্মারক ও চুক্তি সই হয়। সেখান থেকে দুই প্রধানমন্ত্রী কয়েকটি যৌথ প্রকল্প উদ্বোধন করেন।
বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষে সোনিয়া গান্ধীকে আমন্ত্রণ প্রধানমন্ত্রীর
০৭অক্টোবর,সোমবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ ও বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে (৫০ বছর পূর্তি) যোগ দিতে ভারতীয় কংগ্রেসের সভাপতি সোনিয়া গান্ধীকে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।রবিবার দুপুরে নয়াদিল্লির তাজমহল হোটেলে সোনিয়া গান্ধীর সঙ্গে বৈঠক করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এসময় কংগ্রেস সভাপতিকে প্রধানমন্ত্রী এই আমন্ত্রণ জানান। কংগ্রেসের পক্ষ থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। কংগ্রেসের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের প্রধান আনন্দ শর্মা সই করা ওই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে কংগ্রেস সভাপতি সোনিয়া গান্ধীর বৈঠক হয়েছে। বৈঠকে দুই দেশের নেতারা আওয়ামী লীগ ও কংগ্রেসের ঐতিহাসিক সম্পর্কের কথা উল্লেখ করেন।বৈঠকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ ও বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তির অনুষ্ঠানে যোগ দিতে সোনিয়া গান্ধীকে আমন্ত্রণ জানান শেখ হাসিনা। এছাড়া, সোনিয়ার মেয়ে প্রিয়াঙ্কা গান্ধী ও ছেলে রাহুল গান্ধীকেও আমন্ত্রণ জানিয়েছেন তিনি। সোনিয়া গান্ধী এই আমন্ত্রণ গ্রহণ করেছেন। নয়াদিল্লির হোটেল তাজমহলে এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন, ভারতীয় কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়াংকা গান্ধী ও ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। গত ৩ অক্টোবর ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আমন্ত্রণে দ্বিপাক্ষিক সফর এবং বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামের ইন্ডিয়া ইকোনমিক সামিটে যোগ দিতে নয়াদিল্লি সফরে যান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সফর শেষের রবিবার রাতে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী।
সম্রাটের কার্যালয় থেকে বিদেশি পিস্তল-গুলি-মদ উদ্ধার
০৬অক্টোবর,রবিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: যুবলীগের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাটের কার্যালয় থেকে একটি পিস্তল, গুলি, বিপুল পরিমাণ বিদেশি মদ ও দুটি বন্যপ্রাণীর চামড়া পাওয়া গেছে। আজ রবিবার দুপুর ১টা ৪০ মিনিটে Rabর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলমের নেতৃত্বে Rabর একটি দল কাকরাইলে ভূঁইয়া ট্রেড সেন্টারে তালা ভেঙে সম্রাটের কার্যালয়ে ঢুকে অভিযান শুরু করে। এর আগে ভোর ৫টার দিকে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের আলকরা ইউনিয়নের কুঞ্জুশ্রীপুর গ্রাম থেকে গ্রেপ্তার করা হয় আত্মগোপনে থাকা সম্রাটকে। তার সঙ্গে আরমান নামে তার এক সহযোগীকেও আটক করা হয়। আজ রবিবার সন্ধ্যা ৬টায় অভিযান শেষে এক জানাকীর্ণ সংবাদ সম্মেলনে Rapid Action Battalion -01 এর অধিনায়ক ও আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লে. কর্নেল সারওয়ার বিন কাসেম বলেন, গত ১৮ সেপ্টেম্বর থেকে ক্যাসিরোবিরোধী অভিযান শুরু হয়। আজ এই অভিযানের ১৯তম দিন। আজ ভোরে আমরা সম্রাটকে গ্রেপ্তার করি। এর আগে তাকে গ্রেপ্তারের জন্য Rabর বেশ কয়েকটি গোয়েন্দাদল মাঠে ছিল। কুমিল্লা থেকে গ্রেপ্তারের সময় তার প্রধান সহযোগী আরমানকেও আটক করা হয়। তবে তাকে মদ্যপ অবস্থায় পাওয়া যায় এবং এ কারণে Rabর নির্বাহী হাকিম তাকে ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করেন। এরপর সম্রাটকে নিয়ে ঢাকায় আসা হয় এবং তার কার্যালয়ে অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযান শেষে তার কার্যালয় থেকে একটি ৭.৬৫ বিদেশি অস্ত্র, একটি ম্যাগজিন, ৫ রাউন্ড গুলি, ১১৬০ পিস ইয়াবা, ১৯ বোতল বিদেশি মদ, দুটি বন্যপাণীর চামড়া, দুটি ইলেকট্রিক শক দেওয়ার মেশিন ও ২টি লাঠি জব্দ করা হয়। অস্ত্র, মাদক ও বন্যপ্রাণীর চামড়া রাখার অপরাধে তার কী শাস্তি হতে পারে এমন প্রশ্নের জবাবে Rabর নির্বাহী হাকিম সারোয়ার আলম বলেন, প্রথমত অবৈধভাবে বন্যপ্রাণীর চামড়া রাখার অপরাধে তাকে ৬ মাসের সাজা দিয়ে কারাগারে পাঠানো হবে। এর পর তার বিরুদ্ধে অস্ত্র ও মাদক আইনে মামলা করা হবে। এর পর তার বিরুদ্ধে যদি আরো কোনো অভিযোগ থাকে তবে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
সম্রাট আটকের পর যা বললেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
০৬অক্টোবর,রবিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: নানা জল্পনা কল্পনার পর, সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট এবং তার সহযোগী আরমানকে গ্রেফতার করেছে Rab। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, সম্রাটের অপরাধের ভিত্তিতে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। এদিকে, ক্যাসিনোবিরোধী অভিযানের পর সম্রাটকে নিয়ে কোনো পদক্ষেপ না নিলেও আজ গ্রেফতারের পরপরই তাকে বহিস্কার করে কেন্দ্রীয় যুবলীগ। সিঙ্গাপুরে প্রথমসারির জুয়াড়ি হিসেবে খ্যাত ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ইসমাইল হোসেন সম্রাট। রাজধানীর সব ক্যাসিনো চলতো তার ছত্রছায়াতেই। ক্যাসিনো বিরোধী অভিযানের পর, সম্রাট ও তার স্ত্রীর ব্যাংক হিসাব জব্দ করা হয়; দেশত্যাগে জারি করা হয় নিষেধাজ্ঞা। সবশেষ রোববার (৬ অক্টোবর) ভোর পাঁচটায় কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের আলকরা ইউনিয়নের কুঞ্জশ্রীপুর থেকে ইসমাইল হোসেন সম্রাটকে গ্রেফতার করে Rab। তার সঙ্গে গ্রেফতার করা হয় ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সহ-সভাপতি আরমানকে। দুপুর একটার দিকে সম্রাটকে নিয়ে আসা হয় কাকরাইলে যুবলীগের অফিসে। সেখানে তাকে নিয়ে অভিযানে নামে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনী। এদিকে, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেন, সম্রাট এবং আরমানের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। মন্ত্রী বলেন, আইনানুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে। এটা এখন তদন্ত হবে। তদন্তের পর সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে। এদিকে, ক্যাসিনোবিরোধী অভিযানের ১৭ দিনেও সম্রাটের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা না নিলেও গ্রেফতারের পরপরই তাকে বহিস্কারের ঘোষণা দেয় যুবলীগ।
অভিযানের পরই রাজধানী ছাড়েন সম্রাট: Rab ডিজি
০৬অক্টোবর,রবিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ক্যাসিনোবিরোধী অভিযানের এক দুইদিনের মধ্যে ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট রাজধানী ছেড়ে আত্মগোপনে চলে যান বলে জানিয়েছেন Rabর মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ। রোববার (৬ অক্টোবর) দুপুরে Rab সদর দফতরে এ বিষয়ে ব্রিফ করেন তিনি। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে Rab ডিজি বলেন, পালানোর জন্য তিনি এমন কৌশল অবলম্বন করেছেন, যাতে তাকে সহজে খুঁজে না পাওয়া যায়। ক্যাসিনো ব্যবসার সঙ্গে সম্রাট জড়িত বলেও জানান তিনি। এ সময় সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন তিনি। বেনজীর আহমেদ বলেন, আমরা ক্যাসিনো বন্ধ করেছি। যারা ক্যাসিনোর সাথে সরাসরি জড়িত রয়েছে আমরা এখন তাদেরকে ধরছি। এই অভিযান অব্যাহত থাকবে বলেও তিনি জানান। ভোরে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের আলকরা ইউনিয়নের কুঞ্জুশ্রীপুর থেকে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট ও সহসভাপতি আরমানকে আটক করে Rapid Action BAttalion (Rab)। এদিকে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাটকে নিয়ে তার কার্যালয়ের তালা ভেঙে ভেতরে ঢুকেছে Rab সদস্যরা। দুপুরে রাজধানীর কাকরাইল মোড়ের ভূইয়া ম্যানশনে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের এ কার্যালয়ে ঢোকেন Rab সদস্যরা। এখানেই নিয়মিত বসতেন সম্রাট।
ব্রিটেনের সবচেয়ে প্রভাবশালী রাজনীতিক তালিকায় টিউলিপ
০৫অক্টোবর,শনিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নাতনি টিউলিপ সিদ্দিকের নাম ব্রিটেনের সবচেয়ে প্রভাবশালী রাজনীতিকদের তালিকায় উঠে এসেছে। লন্ডনভিত্তিক সংবাদপত্র ইভিনিং স্ট্যান্ডার্ডের করা ২০১৯ সালে জরিপে তার নাম উঠে আসে। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছোট বোন শেখ রেহানার মেয়ে টিউলিপ ব্রিটেনের লেবার পার্টি থেকে লন্ডনের হ্যাম্পস্টেড অ্যান্ড কিলবার্ন আসনের এমপি। প্রতি বছর লন্ডনে বিভিন্ন ক্ষেত্রে সবচেয়ে প্রভাব বিস্তারকারীদের নিয়ে প্রোগ্রেস ১০০০ নামে এই তালিকা প্রকাশ করে ইভিনিং স্ট্যান্ডার্ড। রাজনীতি ছাড়াও ব্যবসা, প্রযুক্তি, বিজ্ঞান, ডিজাইন, সাহিত্য ও সংস্কৃতিসহ বিভিন্ন খাতের শীর্ষস্থানীয়রা উঠে আসেন এই তালিকায়। টিউলিপ সিদ্দিক এই তালিকায় স্থান পেয়েছেন ওয়েস্টমিনস্টার ক্যাটাগরিতে। তিনি ছাড়াও এই তালিকায় আছেন ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন, ডাচি অফ ল্যানকাস্টারের চ্যান্সেলর মাইকেল গভ, স্বাস্থ্যমন্ত্রী ম্যাট হ্যানকক ও শিক্ষামন্ত্রী গেভিন উইলিয়ামসনের মতো লন্ডনের রাজনীতিকরা। টিউলিপকে নিয়ে সেখানে লেখা হয়েছে, যুক্তরাজ্যের পার্লামেন্টে সাবেক প্রধানমন্ত্রী টেরিজা মের ব্রেক্সিট চুক্তির বিপক্ষে ভোট দেওয়ার জন্য সন্তান জন্মদানের অস্ত্রোপচার পিছিয়ে বিশ্বব্যাপী সংবাদ শিরোনাম হয়েছিলেন হ্যাম্পস্টেড অ্যান্ড কিলবার্নের এমপি টিউলিপ সিদ্দিক। তখন পর্যন্ত যুক্তরাজ্যের পার্লামেন্টে সাধারণত কোনো এমপির সন্তান জন্ম দেওয়ার সময় আসন্ন হলে বা সদ্যোজাত সন্তানের কারণে বা অসুস্থতার কারণে কোনো ভোটে অংশ নিতে না পারলে বিরোধী পক্ষেরও একজন সদস্য ভোটদান থেকে বিরত থাকতেন, যাকে পেয়ার বলা হত। কারও অনুপস্থিতি যেন ভোটের ফলে প্রভাব ফেলতে না পারে, তাই ওই প্রথা।কিন্তু ২০১৮ সালের জুলাইয়ে কনজারভেটিভ পার্টির প্রধান ব্রান্ডন লুইস ওই প্রথা লঙ্ঘন করে ভোট দিয়েছিলেন। যদিও লুইস পরে এজন্য দুঃখ প্রকাশ করে বলেছিলেন, দুর্ঘটনাবশত ভোট দিয়ে ফেলেছিলেন তিনি। অতীতের এই ঘটনার কারণে ওই ব্যবস্থায় তার আর আস্থা নেই জানিয়ে সশরীরে পার্লামেন্টে গিয়ে ভোট দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন টিউলিপ। তার এই সাহসী সিদ্ধান্তের কারণে সন্তান প্রত্যাশী ও নবজাতকদের বাবা-মার জন্য ঐতিহাসিক প্রক্সি ভোটিং পদ্ধতি চালু করতে বাধ্য হয় ব্রিটিশ সরকার। এই বিষয়টিকেই গুরুত্বপূর্ণ মনে করছে ইভিনিং স্ট্যান্ডার্ড। এছাড়া ২০১৫ সালের মে মাসে লন্ডনের এই আসন থেকেই এমপি হয়ে হাউজ অব কমন্সে গিয়ে প্রথম ভাষণেই নজর কাড়েন টিউলিপ সিদ্দিক। ওই ভাষণে শরণার্থী ও আশ্রয় প্রার্থীদের প্রতি ব্রিটেনের সহৃদয়তার ওপর আলোকপাত করেন টিউলিপ সিদ্দিক। বিবিসির তৈরি ব্রিটিশ পার্লামেন্টে সবচেয়ে স্মরণীয় নবনির্বাচিতদের ভাষণের তালিকায়ও স্থান পায় তার এই ভাষণ। নিজেকে একজন আশ্রয় প্রার্থীর কন্যা হিসেবে বর্ণনা করে সে সময় মা শেখ রেহানার দুর্দশার বিবরণ দেন তিনি। ১৯৭৫ সালে পরিবারের অধিকাংশ সদস্যসহ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নিহত হওয়ার পর লন্ডনে রাজনৈতিক আশ্রয় খোঁজেন ছোট মেয়ে শেখ রেহানা।

জাতীয় পাতার আরো খবর